বাংলার শাসকগণ

উইকিমিডিয়ার তালিকা নিবন্ধ

নিবন্ধটি বাংলার শাসকদের একটি তালিকাবাংলা ইতিহাসের বেশিরভাগ সময় বাংলা কয়েকটি স্বাধীন রাজ্যে বিভক্ত ছিল, শুধুমাত্র কয়েকবার সম্পূর্ণরূপে একত্রিত ছিল। প্রাচীনকালে, বাংলায় পুন্ড্র, সুহ্ম, বঙ্গ, সমতট এবং হরিকেল রাজ্য ছিল।

খ্রিস্টপূর্ব ৪র্থ শতাব্দীতে, নন্দ সাম্রাজ্যের শাসনামলে, গঙ্গারিডাইয়ের শক্তিশালী শাসকরা যুদ্ধের হাতিদের সাথে তাদের বাহিনী পাঠায় যা ভারতীয় উপমহাদেশ থেকে আলেকজান্ডার দ্য গ্রেটকে অভিযানের সমাপ্তি ঘটায়।[১]

বাংলার বেশিরভাগ অংশই মৌর্য সাম্রাজ্যের প্রদেশ হিসাবে ছিল, তবে পূর্বের বাংলা রাজ্যগুলি ছিল না। তারা অশোকের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখতো। গুপ্তদের কাছে পরাজিত আগে বাংলার রাজ্যগুলি করদ রাজ্য হিসাবে বিদ্যমান ছিল। গুপ্ত সাম্রাজ্যের পতনের সাথে সাথে বাংলা প্রথমবারের মতো একক স্থানীয় শাসক রাজা শশাঙ্কের অধীনে একত্রিত হয়। তার রাজ্যের পতনের সাথে সাথে বাংলা আরও একবার ক্ষুদ্র রাজ্যে বিভক্ত হয়ে যায়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

৭৫০ খ্রিস্টাব্দে গোপালের উত্থানের সাথে সাথে বাংলা আবার হিন্দু বৌদ্ধ পাল সাম্রাজ্যের অধীনে একত্রিত হয়। পাল যুগকে বাংলার ইতিহাসের অন্যতম স্বর্ণযুগ হিসাবে বিবেচনা করা হয় কারণ এটি কয়েক শতাব্দীর গৃহযুদ্ধের পরে বাংলায় স্থিতিশীলতা ও সমৃদ্ধি এনেছিল, শিল্প ও স্থাপত্যের অসামান্য কাজ তৈরি করেছিল, তাদের অধীনে প্রথম সাহিত্যকর্ম, চর্যাপদ সহ পাক-বাংলা ভাষার বিকাশ ঘটে। দ্বাদশ শতাব্দী পর্যন্ত হিন্দু চন্দ্র রাজবংশ, সেন রাজবংশদেববংশ এর উত্তরসূরি ছিল। দেব রাজবংশের শাসন ছিল শান্তি, সমৃদ্ধি এবং সৃজনশীল উৎকর্ষের সময় এবং এটিকে "স্বর্ণযুগ" হিসাবে পরিকল্পিত করা যেতে পারে তাদের পরে, বাংলা চন্দ্রদ্বীপ এবং কোচবিহারের মতো রাজ্যের হিন্দু মহারাজাদের দ্বারা শাসিত হয়েছিল।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

১৩ শতকের গোড়ার দিকে, মুহাম্মদ বিন বখতিয়ার খলজি পশ্চিম এবং উত্তরবঙ্গের কিছু অংশ জয় করেন,[২] এবং বাংলায় প্রথম মুসলিম রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেন।[৩] ইসলামিক মামলুক সালতানাত, খলজি রাজবংশ, তুর্কো-ভারতীয় তুঘলক রাজবংশ, সৈয়দ রাজবংশ এবং লোদী রাজবংশ ৩২০ বছরেরও বেশি সময় ধরে বাংলা শাসন করেছে।[৪] একমাত্র মহিলা সার্বভৌম শাসক রাজিয়া সুলতানার সাথে মালিক আলতুনিয়ার রাজত্ব উল্লেখযোগ্য ছিল।

দিল্লী সালতানাতের শাসনামলের পর, বাংলার সালতানাত, বিশ্বের প্রধান বাণিজ্য জাতি ছিল,[৫] যা শামসুদ্দিন ইলিয়াস শাহ দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয় এবং ইলিয়াস শাহী রাজবংশ দ্বারা শাসিত হয়, পরে আলাউদ্দিন হোসেন শাহ কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত হোসেন শাহী রাজবংশ এর স্থলাভিষিক্ত হয়। প্রথম দিকে পর্তুগিজ বণিকদের আগমনের সাক্ষী হয়ে চট্টগ্রাম বন্দরে সালতানাতের সম্প্রসারণ দেখেছেন।

ঘাঘরার যুদ্ধে সুলতান নাসিরুদ্দিন নসরত শাহের পরাজয়ের সময় ১৬ শতকে বাবর কর্তৃক বঙ্গীয় সুবাহে বিলীন হওয়ার পর, বাংলা মুঘল সাম্রাজ্যের সুবাহদারদের দ্বারা শাসিত হতে শুরু করে। সম্রাট আকবর উদ্ভাবিত নতুন ধর্ম দ্বীন-ই ইলাহীর প্রচার শুরু করেন, যাকে বাংলার কাজীরা ধর্মঅবমাননা বলে ঘোষণা করেন। ইসলাম খান প্রথম ঢাকাকে বাংলার রাজধানী হিসেবে ঘোষণা করেন, যা তখন জাহাঙ্গীর নগর নামে পরিচিত ছিল যা ছিল সম্রাট জাহাঙ্গীরের নামানুসারে নামকরণ করা। সম্রাট শাহজাহানের আদেশে যুবরাজ শাহ সুজার রাজত্ব মুঘল স্থাপত্যের উচ্চতার প্রতিনিধিত্ব করে।

মুঘল সাম্রাজ্যের পতনের পর, বাংলা ও মুর্শিদাবাদের নবাবরা বাংলা ও উড়িষ্যা শাসন করেন। নবাব আলীবর্দী খান বর্ধমানের যুদ্ধে মারাঠা সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে বিজয়ী হন। পলাশীর যুদ্ধ এবং সিরাজ উদ-দৌলার মৃত্যুদন্ডের পর, ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলার উপর নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করে এবং রবার্ট ক্লাইভ বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি প্রতিষ্ঠিত করেন, যেখানে কোম্পানিররাজ অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক এবং শিক্ষাগত কেন্দ্র ছিল।

এ কে ফজলুল হক এবং হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী কর্তৃক ১৯৩৭ সালে বাংলার প্রধানমন্ত্রীর পদ প্রতিষ্ঠিত হয়। ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলন এবং বঙ্গভঙ্গের পর (১৯৪৭), পশ্চিমবঙ্গ ভারতের প্রজাতন্ত্রের প্রধান রাজ্যে পরিণত হয়, যেখানে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ পূর্ব বাংলা পূর্ব পাকিস্তান নামে পরিচিত হয়। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের পর পূর্ব বাংলা একটি স্বাধীন রাষ্ট্র, বাংলাদেশ হয়ে ওঠে এবং শেখ মুজিবুর রহমান, জিয়াউর রহমানহুসেইন মুহম্মদ এরশাদ শাসিত হয়।

প্রাচীন বাংলা সম্পাদনা

প্রাচীন ভূ-রাজনৈতিক বিভাগ সম্পাদনা

 
প্রাচীন রাজনৈতিক বিভাগ
প্রাচীন অঞ্চল আধুনিক অঞ্চল
পুন্ড্রবর্ধন বাংলাদেশের রাজশাহী বিভাগ এবং রংপুর বিভাগ ; ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মালদা বিভাগ
বঙ্গ বাংলাদেশে খুলনা বিভাগ এবং বরিশাল বিভাগ ; প্রেসিডেন্সি বিভাগ এবং ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মেদিনীপুর বিভাগ
তিরাভুক্তি ভারত ও নেপালের মিথিলা এলাকা
সুহমা ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান বিভাগ, মেদিনীপুর বিভাগ এবং প্রেসিডেন্সি বিভাগ
রহ অবস্থান অস্পষ্ট; ভারতের পশ্চিমবঙ্গে সম্ভাব্য অবস্থান
সমতট বাংলাদেশে ঢাকা বিভাগ, বরিশাল বিভাগ এবং চট্টগ্রাম বিভাগ
হরিকেল বাংলাদেশের সিলেট বিভাগ, চট্টগ্রাম বিভাগ, ঢাকা বিভাগ এবং বরিশাল বিভাগ
প্রাগজ্যোতিষ ভারতের আসামের বরাক উপত্যকা অঞ্চলের করিমগঞ্জ জেলা ; বাংলাদেশের সিলেট বিভাগ এবং ঢাকা বিভাগ

অঙ্গস, বঙ্গ, কলিঙ্গ, পুন্ড্র, ওদ্র এবং সুহ্মাদের প্রতিষ্ঠাতাদের সাধারণ বংশ ছিল। এরা সকলেই বালি নামক রাজার দত্তক পুত্র, গৌতম দীর্ঘতামাস নামে এক ঋষির দ্বারা জন্মগ্রহণ করেন, যিনি গিরিব্রজা শহরের কাছে মগধে বাস করতেন।[৬]

বাংলা থেকে আনু. ১১০০ থেকে আন. ৬০০ খ্রিষ্টপূর্ব
 
বৈদিক যুগের শেষভাগে বাংলা ও রাজ্য আনু. ১১০০ থেকে আন. ৬০০ খ্রিষ্টপূর্ব
বাংলা আনু. ৬০০ থেকে আনু. ৩৫০ খ্রিষ্টপূর্ব
 
মহাজনপদ যুগে বাংলা ও রাজ্য আনু. ৬০০ থেকে আনু. ৩৫০ খ্রিষ্টপূর্ব
বাংলা আনু. ৩৫০
 
৩৫০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে মহাপদ্ম নন্দ সর্বপ্রথম সমগ্র বাংলা জয় করেন

অঙ্গ রাজ্য (আনু. ১১০০ - ৫৩০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে) সম্পাদনা

সর্বপ্রথম উল্লেখ পাওয়া যায় অথর্ববেদে (V.২২.১৪) যেখানে এগুলি মগধ, গান্ধারী এবং মুজাভাতদের পাশাপাশি তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।[৭] বিম্বিসারের সময়ে অঙ্গ মগধ দ্বারা অধিষ্ঠিত হয়েছিল। এটিই ছিল বিম্বিসারের একমাত্র বিজয়।[৮]

  • মহারাজ অঙ্গ - (রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা এবং রাজা বালির পুত্র)
  • রোমাপদ
  • বৃহদ্রথ
  • অঙ্গরাজ কর্ণ
  • বৃষকেতু - (কর্ণের পুত্র)
  • তাম্রলিপ্ত
  • লোমাপদ
  • চিত্ররথ
  • বৃহদ্রথ
  • বাসুহোমা
  • ধতরথ
  • ধাদিবাহন
  • ব্রহ্মদত্ত - (অঙ্গ রাজ্যের শেষ রাজা)

বঙ্গ রাজ্য (আনু. ১১০০- ৩৪০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে) সম্পাদনা

বঙ্গ ছিল গাঙ্গেয় বদ্বীপের একটি প্রাচীন রাজ্য এবং ভূ-রাজনৈতিক বিভাগ। এটি বর্তমান দক্ষিণ-পশ্চিম বাংলাদেশ এবং দক্ষিণ পশ্চিমবঙ্গ ( ভারত ) সহ মূল অঞ্চল সহ দক্ষিণবঙ্গে অবস্থিত ছিল। [৯]

পরিচিত বঙ্গ শাসক হলেন:

  • সমুদ্রসেন
  • চদ্রসেন
  • কর্ণ
  • ভগভট্ট

পুন্ড্র রাজ্য (আনু. ১১০০- ৩৪০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে) সম্পাদনা

পুন্ড্রবর্ধন বা পুন্ড্র রাজ্য ছিল একটি প্রাচীন রাজ্য, যেটিতে বর্তমান বাংলাদেশের রাজশাহীরংপুর বিভাগের কিছু অংশের পাশাপাশি ভারতের পশ্চিমবঙ্গের পশ্চিম দিনাজপুর জেলার অন্তর্ভুক্ত ছিল।[১০][১১]

পরিচিত পুন্ড্র শাসকরা হলেন

সুহমা রাজ্য (আনু. ১১০০- ৩৪০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে) সম্পাদনা

সুহমা রাজ্য ছিল বৈদিক যুগে বাংলার পূর্ব অংশে একটি প্রাচীন রাজ্য। মহাকাব্য মহাভারতে এই রাজ্যের উল্লেখ করা হয়েছে তার প্রতিবেশী রাজ্য প্রসুহ্মার সাথে। [১২]

মিথিলার বিদেহ রাজবংশ (তিরাভুক্তি) (আনুমানিক ১১০০- ৭০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে) সম্পাদনা

তিরাভুক্তি বা মিথিলা অঞ্চলটি পূর্বে মহানন্দা নদী, দক্ষিণে গঙ্গা, পশ্চিমে গণ্ডকী নদী এবং উত্তরে হিমালয়ের পাদদেশ দ্বারা বেষ্টিত ছিল।[১৩]

মিথিলা অঞ্চল প্রথম বিদেহ রাজবংশ দ্বারা শাসিত হয়। মিথিলার বিদেহ রাজবংশে ৫২জন জনক (রাজা) শাসন করেছিলেন- [১৪]

  1. মিথি - (মিথিলার প্রতিষ্ঠাতা ও প্রথম জনক) [১৫]
  2. উদভাসু
  3. নন্দীবর্ধন
  4. সুকেতু
  5. দেবরতা
  6. বৃহদ্ব্রত
  7. মহাবীর
  8. সুধৃতি
  9. দৃষ্টকেতু
  10. হরিয়াস্ব
  11. মারু
  12. প্রতিন্ধাকা
  13. কৃতীরথ
  14. দেবমিধা
  15. বিভূতা
  16. মাহিধরাতা
  17. কীর্তিরত
  18. মহরমা
  19. স্বর্ণরমা
  20. হৃস্বরোমা
  21. সীরাধ্বজা
  22. ভানুমান
  23. শতদ্যুম্ন
  24. শুচি
  25. অর্জনামা
  26. কৃতি
  27. অঞ্জন
  28. কুরুজিৎ
  29. অরিষ্টনেমী
  30. শ্রুতায়ু
  31. সুপার্শ্ব
  32. শ্রীঞ্জয়া
  33. ক্ষেমাবী
  34. আনেনা
  35. ভৌমারথ
  36. সত্যরথ
  37. উপগু
  38. উপগুপ্ত
  39. স্বাগত
  40. স্বানন্দ
  41. সুভারচা
  42. সুপার্শ্ব
  43. সুভাষ
  44. সুশ্রুত
  45. জয়া
  46. বিজয়া
  47. রিট
  48. সুনায়া
  49. বীতাহব্য
  50. ধৃতি
  51. বহুলাশ্ব
  52. কৃতি - (বিদেহ বা জনক রাজবংশের শেষ রাজা, কীর্তি জনক ছিলেন নৃশংস শাসক যিনি তার প্রজাদের উপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছিলেন। তিনি আচার্যদের (শিক্ষিত পুরুষ) নেতৃত্বে জনসাধারণের দ্বারা ক্ষমতাচ্যুত হন।

বিদেহ রাজবংশের পতনের এই সময়কালে, বৈশালীতে লিচ্ছবি প্রজাতন্ত্রের উত্থান ঘটে এবং খ্রিস্টপূর্ব আট শতাব্দীতে মিথিলা অঞ্চল ভাজ্জি কনফেডারেসি লিচ্ছাভি গোষ্ঠীর নিয়ন্ত্রণে আসে।[১৬]

গঙ্গারিডাই রাজ্য (আনু. ৩৫০- ১০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে) সম্পাদনা

গঙ্গারিডাই শব্দটি প্রাচীন গ্রেকো-রোমান লেখকদের দ্বারা প্রাচীন ভারতীয় উপমহাদেশের মানুষ বা ভৌগলিক অঞ্চলকে বর্ণনা করতে ব্যবহৃত হয়। এই লেখকদের কেউ কেউ বলেছেন যে আলেকজান্ডার দ্য গ্রেট গঙ্গারিডাইয়ের শক্তিশালী যুদ্ধ হাতি বাহিনীর কারণে ভারতীয় উপমহাদেশ থেকে প্রত্যাহার করেছিলেন। যাইহোক, ভৌগোলিক অঞ্চলটি তখন নন্দ সাম্রাজ্য দ্বারা সংযুক্ত এবং শাসিত ছিল।

অনেক আধুনিক পণ্ডিত বাংলা অঞ্চলের গাঙ্গেয় ব-দ্বীপে গঙ্গারিডাইকে সনাক্ত করেছেন, যদিও বিকল্প তত্ত্বও রয়েছে। গঙ্গা বা গঙ্গা, গঙ্গারিডাইয়ের রাজধানী ( টলেমির মতে), চন্দ্রকেতুগড় এবং ওয়ারী-বটেশ্বর সহ এই অঞ্চলের বেশ কয়েকটি স্থানের সাথে চিহ্নিত করা হয়েছে। [১৭]

বাংলার মগধ রাজবংশ সম্পাদনা

 
মগধ রাজবংশ এবং সাম্রাজ্যের বিস্তার

বৃহদ্রথ রাজবংশ (আনুমানিক ১৭০০- ৬৮২ খ্রিস্টপূর্বাব্দ) সম্পাদনা

শাসকগণ-
বৃহদ্রথ রাজবংশের শাসকদের তালিকা
শাসক রাজত্ব (খ্রিস্টপূর্বাব্দ)
বৃহদ্রথ - খ্রিস্টপূর্বাব্দ
জরাসন্ধ - খ্রিস্টপূর্বাব্দ
মগধের সহদেব - খ্রিস্টপূর্বাব্দ
সোমাধি ১৬৬১-১৬০৩ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
শ্রুতশ্রাবস ১৬০৩-১৫৩৯ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
আয়ুতায়ুস ১৫৩৯-১৫০৩ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
নীরমিত্র ১৫০৩-১৪৬৩ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
সুক্ষত্র ১৪৬৩-১৪০৫ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
বৃহত্কর্মণ ১৪০৫-১৩৮২ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
সেনাজিৎ ১৩৮২-১৩৩২ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
শ্রুতাঞ্জয়া ১৩৩২-১২৯২ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
বিপ্রা ১২৯২-১২৫৭ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
সুচি ১২৫৭-১১৯৯ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
ক্ষেম্যা ১১৯৯-১১৭১ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
সুব্রত ১১৭১-১১০৭ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
ধর্ম ১১০৭-১০৪৩ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
সুসুমা ১০৪৩-৯৭০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
দ্রিধসেন ৯৭০-৯১২ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
সুমতি ৯১২-৮৭৯ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
সুবালা ৮৭৯-৮৫৭ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
সুনিতা ৮৫৭-৮১৭ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
সত্যজিৎ ৮১৭-৭৬৭ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
বিশ্বজিৎ ৭৬৭-৭৩২ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
রিপুঞ্জয়া ৭৩২-৬৮২ খ্রিস্টপূর্বাব্দ

( রিপুঞ্জয় ছিলেন রাজবংশের শেষ শাসক, ৬৮২ খ্রিস্টপূর্বাব্দে প্রদ্যোতা কর্তৃক বর্জিত )

প্রদ্যোতা রাজবংশ (আনু. ৬৮২ - ৫৪৪ খ্রিস্টপূর্বাব্দ) সম্পাদনা

শাসক-
প্রদ্যোত রাজবংশের শাসকদের তালিকা
শাসক রাজত্ব (খ্রিস্টপূর্বাব্দ) সময়কাল
প্রদ্যোত মহাসেনা ৬৮২-৬৫৯ খ্রিস্টপূর্বাব্দ ২৩
পালাকা ৬৫৯-৬৩৫ খ্রিস্টপূর্বাব্দ ২৪
বিশাখায়ূপা ৬৩৫-৫৮৫ খ্রিস্টপূর্বাব্দ ৫০
আজকা ৫৮৫-৫৬৪ খ্রিস্টপূর্বাব্দ ২১
বর্ত্তিবর্ধন ৫৬৪-৫৪৪ খ্রিস্টপূর্বাব্দ ২০

( বর্তিবর্ধন খ্রিস্টপূর্ব ৫৪৪ সালে বিম্বিসার কর্তৃক রাজবংশের শেষ শাসক ছিলেন )

হরিয়াঙ্ক রাজবংশ (আনু. ৫৪৪ - ৪১৩ খ্রিস্টপূর্বাব্দ) সম্পাদনা

শাসকগণ-
হরিয়াঙ্ক রাজবংশের শাসকদের তালিকা
শাসক রাজত্ব (খ্রিস্টপূর্বাব্দ)
বিম্বিসার ৫৪৪-৪৯১ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
অজাতশত্রু ৪৯১-৪৬১ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
উদয়িন ৪৬১-৪২৮ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
অনিরুধা ৪২৮-৪১৯ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
মুন্ডা ৪১৯-৪১৭ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
দর্শকা ৪১৭-৪১৫ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
নাগদাসক ৪১৫-৪১৩ খ্রিস্টপূর্বাব্দ

( নাগদাসক ৪১৩ খ্রিস্টপূর্বাব্দে শিশুনাগা কর্তৃক উৎখাত পূর্বে রাজবংশের শেষ শাসক ছিলেন )

শিশুনাগ রাজবংশ (আনু. ৪১৩ - ৩৪৫ খ্রিস্টপূর্বাব্দ) সম্পাদনা

শাসকগণ-
শিশুঙ্গ রাজবংশের শাসকদের তালিকা
শাসক রাজত্ব (খ্রিস্টপূর্বাব্দ)
শিশুনাগা ৪১৩-৩৯৫ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
কালাশোকা ৩৯৫-৩৭৭ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
ক্ষেমাধর্মণ ৩৭৭-৩৬৫ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
ক্ষত্রৌজস ৩৬৫-৩৫৫ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
নন্দীবর্ধন ৩৫৫-৩৪৯ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
মহানন্দিন ৩৪৯-৩৪৫ খ্রিস্টপূর্বাব্দ

(৩৪৫ খ্রিস্টপূর্বাব্দে মহানন্দিন তার অবৈধ পুত্র মহাপদ্ম নন্দের দ্বারা তার সাম্রাজ্য হারিয়েছিলেন)

নন্দ সাম্রাজ্য (আনু. ৩৪৫ - ৩২২ খ্রিস্টপূর্বাব্দ) সম্পাদনা

শাসকগণ-
নন্দ রাজবংশের শাসকদের তালিকা
শাসক রাজত্ব (খ্রিস্টপূর্বাব্দ)
মহাপদ্ম নন্দ ৩৪৫-৩৪০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
পান্ডুকানন্দ ৩৪০-৩৩৯ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
পংঘুপতিনন্দ ৩৩৯-৩৩৮ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
ভূতপালানন্দ ৩৩৮-৩৩৭ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
রাষ্ট্রপালননদা ৩৩৭-৩৩৬ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
গোবিশানকানন্দ ৩৩৬-৩৩৫ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
দশসিদখকানন্দ ৩৩৫-৩৩৪ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
কৈবর্তানন্দ ৩৩৪-৩৩৩ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
করবিনাথানন্দ ৩৩৩-৩৩০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
ধনা নন্দ ৩৩০-৩২২ খ্রিস্টপূর্বাব্দ

(৩২২ খ্রিস্টপূর্বাব্দে ধনা নন্দ চন্দ্রগুপ্ত মৌর্যের কাছে তার সাম্রাজ্য হারান)

মৌর্য সাম্রাজ্য (আনু. ৩২২ - ১৮৪ খ্রিস্টপূর্বাব্দ) সম্পাদনা

শাসকগণ-
শাসক রাজত্ব মন্তব্য
চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য ৩২২-২৯৭ খ্রিস্টপূর্বাব্দ প্রথম ভারতীয় ঐক্যবদ্ধ সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা।
বিন্দুসার অমিত্রঘাটা   ২৯৭-২৭৩ খ্রিস্টপূর্বাব্দ তার বিদেশী কূটনীতির জন্য পরিচিত এবং বিদর্ভ বিদ্রোহকে চূর্ণ করা।
অশোক   ২৬৮-২৩২ খ্রিস্টপূর্বাব্দ রাজবংশের সর্বশ্রেষ্ঠ সম্রাট। তার ছেলে কুনালা অন্ধ হয়ে বাবার আগেই মারা যান। অশোকের স্থলাভিষিক্ত হন তাঁর নাতি। কলিঙ্গ যুদ্ধ জয়ের জন্যও পরিচিত।
দশরথ মৌর্য   ২৩২-২২৪ খ্রিস্টপূর্বাব্দ অশোকের নাতি।
সম্প্রতি ২২৪-২১৫ খ্রিস্টপূর্বাব্দ দশরথের ভাই।
শালিশুকা   ২১৫-২০২ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
দেববর্মণ ২০২-১৯৫ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
শতধনবন ১৯৫-১৮৭ খ্রিস্টপূর্বাব্দ মৌর্য সাম্রাজ্য তার রাজত্বকালে সঙ্কুচিত হয়েছিল
বৃহদ্রথ ১৮৭-১৮৪ খ্রিস্টপূর্বাব্দ ১৮৫ খ্রিস্টপূর্বাব্দে তাঁর সেনাপতি পুষ্যমিত্র শুঙ্গার হাতে নিহত হন।

( বৃহদ্রথ ছিলেন রাজবংশের শেষ শাসক, ১৮৫ খ্রিস্টপূর্বাব্দে পুষ্যমিত্র শুঙ্গ কর্তৃক সিংহাসনচ্যুত হয়)

শুঙ্গা সাম্রাজ্য (আনু. ১৮৫ - ৭৩ বিখ্রিস্টাব্দ) সম্পাদনা

শাসক-
শুঙ্গ রাজবংশের শাসকদের তালিকা
শাসক রাজত্ব (খ্রিস্টপূর্বাব্দ)
পুষ্যমিত্র শুঙ্গ ১৮৫-১৪৯ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
অগ্নিমিত্রা ১৪৯-১৪১ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
বাসুজ্যেষ্ঠ ১৪১-১৩১ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
বসুমিত্রা ১৩১-১২৪ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
ভদ্রকা ১২৪-১২২ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
পুলিন্দকা ১২২-১১৯ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
ঘোষা ১১৯-১০৮ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
বজ্রমিত্র ১০৮-৯৪ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
ভগভদ্র ৯৪-৮৩ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
দেবভূতি ৮৩-৭৩ খ্রিস্টপূর্বাব্দ

( দেবভূতি ছিলেন রাজবংশের শেষ শাসক, ৭৩ খ্রিস্টপূর্বাব্দে বাসুদেব কণ্ব কর্তৃক সিংহাসনচ্যুত)

কানভা রাজবংশ (আনুমানিক ৭৩ - ২৮ খ্রিস্টপূর্বাব্দ) সম্পাদনা

শাসকগণ-
কানভ রাজবংশের শাসকদের তালিকা
শাসক রাজত্ব সময়কাল
বাসুদেব কণ্ব ৭৩-৬৪ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
ভূমিমিত্র ৬৪-৫০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ ১৪
নারায়ণ ৫০-৩৮ বিখ্রিস্টাব্দ ১২
সুসরমান ৩৮-২৮ খ্রিস্টপূর্বাব্দ ১০

(সুসারমান ছিলেন রাজবংশের শেষ শাসক, সাতবাহন সাম্রাজ্যের সিমুকা কর্তৃক সিংহাসনচ্যুত)

ধূপদী যুগ সম্পাদনা

চন্দ্র রাজবংশ (আনুমানিক ২০২ - ১০৫০ খ্রিস্টাব্দ) সম্পাদনা

চন্দ্র রাজ্য ছিল একটি কায়স্থ রাজ্য, যা বাংলার সমতট অঞ্চলের পাশাপাশি উত্তর আরাকান শাসন করত। পরবর্তীতে এটি উত্তরে পাল সাম্রাজ্যের প্রতিবেশী ছিল। চন্দ্র রাজ্যের শাসকরা হিন্দু ধর্মের অনুসারী ছিলেন।[১৮][১৯]

শাসকগণ-
চন্দ্র রাজবংশের শাসকদের তালিকা
# রাজা সময় রাজত্বকাল (খ্রিস্টাব্দ)
চন্দ্রোদয় ২৭ ২০২–২২৯
আনাভেতা ২২৯–২৩৪
চন্দ্রনভেতা ৭৭ ২৩৪–৩১১
রিম্বিয়াপ্পা ২৩ ৩১১–৩৩৪
কুভেরামি (রানী) ৩৩৪–৩৪১
উমাভিরা (রানী) ২০ ৩৪১–৩৬১
জুংগা ৩৬১–৩৬৮
লাংকি ৩৬৮–৩৭০
দেবেনচন্দ্র ৫৫ ৩৭০–৪২৫
১০ রাজাচন্দ্র ২০ ৪২৫–৪৪৫
১১ কালাচন্দ্র ৪৪৫–৪৫৪
১২ দেবাচন্দ্র ২২ ৪৫৪–৪৭৬
১৩ যজ্ঞচন্দ্র ৪৭৬–৪৮৩
১৪ চন্দ্রবান্ডু ৪৮৩–৪৮৯
১৫ ভূমিচন্দ্র ৪৮৯–৪৯৬
১৬ ভূতিচন্দ্র ২৪ ৪৯৬–৫২০
১৭ নীতিচন্দ্র (রানী) ৫৫ ৫২০–৫৭৫
১৮ বীরচন্দ্র ৫৭৫–৫৭৮
১৯ প্রীতিচন্দ্র (রাণী) ১২ ৫৭৮–৫৯০
২০ পৃথ্বীচন্দ্র ৫৯০–৫৯৭
২১ তীর্থচন্দ্র ৫৯৭–৬০০
২২ মহাবীর ১২ ৬০০–৬১২
২৩ ভীরায়যাব ১২ ৬১২–৬২৪
২৪ সেবারীন ১২ ৬২৪–৬৩৬
২৫ ধর্মসুর ১৩ ৬৩৬–৬৪৯
২৬ বজ্রশক্তি ১৬ ৬৪৯–৬৬৫
২৭ ধর্মবিজয় ৩৬ ৬৬৫–৭০১
২৮ নরেন্দ্রবিজ্য ২ বছর ৯ মাস ৭০১–৭০৩
২৯ ধর্মচন্দ্র ১৬ ৭০৩–৭২০
৩০ আনন্দচন্দ্র ৯+ ৭২০–৭২৯+
হরিকেল
ত্রৈলোক্যচন্দ্র ৩০ ৯০০–৯৩০
শ্রীচন্দ্র ৪৫ ৯৩০–৯৭৫
কল্যাণচন্দ্র ২৫ ৯৭৫–১০০০
লড়হচন্দ্র ২০ ১০০০–১০২০
গোবিন্দচন্দ্র ৩০ ১০২০–১০৫০

গুপ্ত সাম্রাজ্য (আনু. ২৪০ - ৫৫০ খ্রিস্টাব্দ) সম্পাদনা

শাসকগণ-

জৈন্তিয়া রাজ্য (আনু. ৫২৫ - ১৮৩৫ খ্রিস্টাব্দ) সম্পাদনা

পুরানো রাজবংশের শাসকরা সম্পাদনা

  • উর্মি রানী (?-৫৫০)
  • কৃষক পাতার (৫৫০-৫৭০)
  • হাতক (৫৭০-৬০০)
  • গুহক (৬০০-৬৩০)

বিভক্ত জৈন্তিয়া শাসকরা সম্পাদনা

  • জয়ন্ত (৬৩০-৬৬০)
  • জয়মল্লা (৬৬০–? )
  • মহাবল (? )
  • বাঞ্চরু (?–১১০০)
  • কামদেব (১১০০-১১২০)
  • ভীম্বল (১১২০)

ব্রাহ্মণ রাজবংশের শাসক সম্পাদনা

  • কেদারেশ্বর রায় (১১২০-১১৩০)
  • ধনেশ্বর রায় (১১৩০-১১৫০)
  • কন্দর্পা রায় (১১৫০-১১৭০)
  • মানিক রায় (১১৭০-১১৯৩)
  • জয়ন্ত রাই (১১৯৩-১২১০)
  • জয়ন্তী দেবী
  • বড় গোসাইন
  • প্রভাত রায় সায়েম সুতঙ্গা (১৫০০-১৫১৬)
  • মাঝা গোসাইন সায়েম সুতঙ্গা (১৫১৬-১৫৩২)
  • বুরহা পর্বত রায় সায়েম সুতঙ্গা (১৫৩২-১৫৪৮)
  • বার গোসাইন সায়েম সুতঙ্গা প্রথম (১৫৪৮-১৫৬৪)
  • বিজয় মানিক সায়েম সুতঙ্গা (১৫৬৪-১৫৮০)
  • প্রতাপ রায় সায়েম সুতঙ্গা (১৫৮০-১৫৯৬)
  • ধন মানিক সায়েম সুতঙ্গা (১৫৯৬-১৬১২)
  • জসা মানিক সায়েম সুতঙ্গা (১৬১২-১৬২৫)
  • সুন্দর রায় সায়েম সুতঙ্গা (১৬২৫-১৬৩৬)
  • ছোট পর্বত রায় সায়েম সুতঙ্গা (১৬৩৬-১৬৪৭)
  • যসামন্ত রায় সায়েম সুতঙ্গা (১৬৪৭-১৬৬০)
  • বান সিং সিয়াম সুতঙ্গা (১৬৬০-১৬৬৯)
  • প্রতাপ সিং সিয়াম সুতঙ্গা (১৬৬৯-১৬৭৮)
  • লক্ষ্মী নারায়ণ সায়েম সুতঙ্গা (১৬৭৮-১৬৯৪)
  • রাম সিং সিয়াম সুতঙ্গা প্রথম (১৬৯৪-১৭০৮)
  • জয় নারায়ণ সায়েম সুতঙ্গা (১৭০৮-১৭৩১)
  • বার গোসাইন সায়েম সুতঙ্গা দ্বিতীয় (১৭৩১-১৭৭০)
  • ছত্র সিং সায়েম সুতঙ্গা (১৭৭০-১৭৮০)
  • যাত্রা নারায়ণ সায়েম সুতঙ্গা (১৭৮০-১৭৮৫)
  • বিজয় নারায়ণ সায়েম সুতঙ্গা (১৭৮৫-১৭৮৬)
  • লক্ষ্মী সিং সায়েম সুতঙ্গা (১৭৮৬-১৭৯০)
  • রাম সিং সিয়াম সুতঙ্গা দ্বিতীয় (১৭৯০-১৮৩২)
  • রাজেন্দ্র সিং সায়েম সুতঙ্গা (১৮৩২-১৮৩৫) [২০][২১]

গৌড় রাজ্য (আনু. ৫৫০ - ৬২৬ খ্রিস্টাব্দ) সম্পাদনা

বাংলার শাসক-
  • প্রথম দিকের গৌণ্ড শাসকদের অজানা
  • শশাঙ্ক (৫৯০-৬২৫), বাংলার প্রথম লিপিবদ্ধ স্বাধীন হিন্দু রাজা, বাংলায় প্রথম একীভূত রাজনৈতিক সত্তা তৈরি করেন।
  • মানব (৬২৫-৬২৬), ৬২৬ খ্রিস্টাব্দে হর্ষবর্ধন এবং ভাস্করবর্মণ দ্বারা জয়ী হওয়ার আগে ৮ মাস শাসন করেছিলেন।

পুষ্যভূতি (বর্ধন) সাম্রাজ্য (আনু. ৬০৬ – ৬৪৭ খ্রিস্টাব্দ) সম্পাদনা

শাসকগণ-
  • হর্ষবর্ধন (৬০৬-৬৪৭), উত্তর ভারতকে একীভূত করেন এবং ৪০ বছরেরও বেশি সময় ধরে শাসন করেন, তিনি ছিলেন একীভূত উত্তর ভারত শাসনকারী শেষ অমুসলিম সম্রাট

খড়গ রাজবংশ (আনু. ৬২৫ - ৭৩০ খ্রিস্টাব্দ) সম্পাদনা

পরিচিত শাসকরা হলেন-
শিরোনাম নাম রাজত্ব মন্তব্য
খড়গোদ্যমা ৬২৫-৬৪০ জাতখড্গের পিতা
জাতখড্গ ৬৪০-৬৫৮ দেবখদ্গার পিতা
দেবখদ্গা ৬৫৮-৬৭৩ রানী প্রভাবতী
রাজাভট্ট ৬৭৩-৭০৭ দেবখড্গের পুত্র
বলভাটা ৭০৭-৭১৬ দেবখড্গের পুত্র
উদিরনাখদগা ? ?

ভাদ্র রাজবংশ (৬ষ্ঠ থেকে ৭ম শতাব্দী) সম্পাদনা

ভদ্র রাজবংশ ব্রাহ্মণ বংশোদ্ভূত একটি বাঙালি হিন্দু রাজকীয় ঘর ছিল, তাদের শাসন ৭ ম শতাব্দীর প্রথমার্ধে বিকাশ লাভ করেছিল, যদিও তাদের ইতিহাস সম্পর্কে খুব কমই জানা যায়। রাজবংশের রাজারা "ভাদ্র" প্রত্যয় দিয়ে নাম রাখতেন।

শাসক-
  • নারায়ণভদ্র
  • জ্যেষ্ঠভদ্র

মল্লভূম রাজ্য (আনু. ৬৯৪ - ১৯৪৭ খ্রিস্টাব্দ) সম্পাদনা

বাংলার চোল শাসকরা হলেন-
রাজা[২২][২৩] রাজত্বকাল
আদি মল্ল ৬৯৪–৭১০
জয় মল্ল ৭১০–৭২০
বেনু মল্ল ৭২০–৭৩৩
কিনু মল্ল ৭৩৩–৭৪২
ইন্দ্রা মল্ল ৭৪২–৭৫৭
কানু ল্ল ৭৫৭–৭৬৪
ধা মল্ল ৭৬৪–৭৭৫
শূর মল্ল ৭৭৫–৭৯৫
কণক মল্ল ৭৯৫–৮০৭
কান্দারপা মল্ল ৮০৭–৮২৮
সনাতন মল্ল ৮২৮–৮৪১
খড়্গ মল্ল ৮৪১–৮৬২
দুর্জন (দুর্জয়) মল্ল ৮৬২–৯০৬
যাদব মল্ল ৯০৬–৯১৯
জগন্নাথ মল্ল ৯১৯–৯৩১
বিরাট মল্ল ৯৩১–৯৪৬
মহাদেব মল্ল ৯৪৬–৯৭৭
দুর্গাদাস মল্ল ৯৭৭–৯৯৪
জগৎ মল্ল ৯৯৪–১০০৭
অনন্ত মল্ল ১০০৭–১০১৫
রূপ মল্ল ১০১৫–১০২৯
সুন্দর মল্ল ১০২৯–১০৫৩
কুমুদ মল্ল ১০৫৩–১০৭৪
কৃষ্ণ মল্ল ১০৭৪–১০৮৪
দ্বিতীয় রুপ মল্ল ১০৮৪–১০৯৭
প্রকাশ মল্ল ১০৯৭–১১০২
প্রতাপ মল্ল ১১০২–১১১৩
সিন্দুর মল্ল ১১১৩–১১২৯
সুখময় মল্ল ১১২৯–১১৪২
বনমালী মল্ল ১১৪২–১১৫৬
যাদু মল্ল ১১৫৬–১১৬৭
জীবন মল্ল ১১৬৭–১১৮৫
রাম মল্ল ১১৮৫–১২০৯
গোবিন্দ মল্ল ১২০৯–১২৪০
ভীম মল্ল ১২৪০–১২৬৩
কাটার মল্ল ১২৬৩–১২৯৫
পৃথ্বী মল্ল ১২৯৫ -১৩১৯
টাপা মল্ল ১৩১৯–১৩৩৪
দীনবন্ধু মল্ল ১৩৩৪–১৩৪৫
দ্বিতীয় কানু মল্ল ১৩৪৫–১৩৫৮
দ্বিতীয় সূর মল্ল ১৩৫৮–১৩৭০
শিব সিং মল্ল ১৩৭০–১৪০৭
মদন মল্ল ১৪০৭–১৪২০
দ্বিতীয় দুর্জয় মল্ল ১৪২০–১৪৩৭
উদয় মল্ল ১৪৩৭–১৪৬০
চন্দ্র মল্ল ১৪৬০–১৫০১
বীর মল্ল ১৫০১–১৫৫৪
ধারী মল্ল ১৫৫৪–১৫৬৫
বীর হাম্বীর ১৫৬৫–১৬২০
ধারি হাম্বির মল্ল দেব ১৬২০–১৬২৬
রগুনাথ সিংহ দেব ১৬২৬–১৬৫৬
বীর সিংহ দেব ১৬৫৬–১৬৮২
দুর্জন সিংহ দেব ১৬৮২–১৭০২
দ্বিতীয় রগুনাথ সিংহ দেব ১৭০২–১৭১২
গোপাল সিংহ দেব ১৭১২–১৭৪৮
চৈতন্য সিংহ দেব ১৭৪৮–১৮০১
মাধব সিংহ দেব ১৮০১–১৮০৯
দ্বিতীয় গোপাল সিংহ দেব ১৮০৯–১৮৭৬
রামকৃষ্ণ সিংহ দেব ১৮৭৬–১৮৮৫
দোহাজা মনি দেবী ১৮৮৫–১৮৮৯
নীলমনী দেব ১৮৮৯–১৯০৩
চুড়ামণি দেবী (রিজেন্সি) ১৯০৩–১৯৩০
কালিপদ সিংহ ঠাকুর ১৯৩০–১৯৪৭

উত্তর-ধূপদী যুগ সম্পাদনা

পাল সাম্রাজ্য (আনু. ৭৫০ - ১১৬১ খ্রিস্টাব্দ) সম্পাদনা

বেশিরভাগ পাল শিলালিপিতে কোনো সুপরিচিত ক্যালেন্ডার যুগ ছাড়াই শুধুমাত্র রাজত্বকালকে ইস্যুর তারিখ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। এ কারণে পাল রাজাদের কালানুক্রম নির্ণয় করা কঠিন।[২৪] বিভিন্ন এপিগ্রাফ এবং ঐতিহাসিক নথির বিভিন্ন ব্যাখ্যার উপর ভিত্তি করে, বিভিন্ন ঐতিহাসিকরা পাল কালানুক্রমকে নিম্নরূপ অনুমান করেছেন:[২৫]

রমেশচন্দ্র মজুমদার (১৯৭১)[২৬] এ এম চৌধুরী (১৯৬৭)[২৭] বিপি সিনহা (১৯৭৭)[২৮] দীনেশচন্দ্র (১৯৭৫–৭৬)[২৯] ডি কে গাঙ্গুলি (১৯৯৪)[২৪]
প্রথম গোপাল ৭৫০–৭৭০ ৭৫৬–৭৮১ ৭৫৫–৭৮৩ ৭৫০–৭৭৫ ৭৫০–৭৭৪
ধর্মপাল ৭৭০–৮১০ ৭৮১–৮২১ ৭৮৩–৮২০ ৭৭৫–৮১২ ৭৭৪–৮০৬
দেবপাল ৮১০–আনু. 850 ৮২১–৮৬১ ৮২০–৮৬০ ৮১২–৮৫০ ৮০৬–৮৪৫
মহেন্দ্রপাল প্রযোজ্য নয় (মহেন্দ্রপালের অস্তিত্ব পরে আবিষ্কৃত একটি তামার-প্লেট সনদের মাধ্যমে চূড়ান্তভাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। ৮৪৫–৮৬০
প্রথম শূরপাল বিগ্রহপাল এর বিকল্প নাম হিসাবে বিবেচিত ৮৫০–৮৫৮ ৮৬০–৮৭২
দ্বিতীয় গোপাল প্রযোজ্য নয় (১৯৯৫ সালে আবিষ্কৃত তামা-প্লেট চার্টার)। ২০০৯ সালে প্রকাশিত শিলালিপির পাঠ্য।
প্রথম বিগ্রহপাল ৮৫০–৮৫৩ ৮৬১–৮৬৬ ৮৬০–৮৬৫ ৮৫৮–৬০ ৮৭২–৮৭৩
নারায়ণপাল ৮৫৪–৯০৮ ৮৬৬–৯২০ ৮৬৫–৯২০ ৮৬০–৯১৭ ৮৭৩–৯২৭
রাজ্যপাল ৯০৮–৯৪০ ৯২০–৯৫২ ৯২০–৯৫২ ৯১৭–৯৫২ ৯২৭–৯৫৯
তৃতীয় গোপাল ৯৪০–৯৫৭ ৯৫২–৯৬৯ ৯৫২–৯৬৭ ৯৫২–৯৭২ ৯৫৯–৯৭৬
দ্বিতীয় বিগ্রহপাল ৯৬০–আনু. ৯৮৬ ৯৬৯–৯৯৫ ৯৬৭–৯৮০ ৯৭২–৯৭৭ ৯৭৬–৯৭৭
প্রথম মহীপাল ৯৮৮–আনু. ১০৩৬ ৯৯৫–১০৪৩ ৯৮০–১০৩৫ ৯৭৭–১০২৭ ৯৭৭–১০২৭
নয়পাল ১০৩৮–১০৫৩ ১০৪৩–১০৫৮ ১০৩৫–১০৫০ ১০২৭–১০৪৩ ১০২৭–১০৪৩
তৃতীয় বিগ্রহপাল ১০৫৪–১০৭২ ১০৫৮–১০৭৫ ১০৫০–১০৭৬ ১০৪৩–১০৭০ ১০৪৩–১০৭০
দ্বিতীয় মহীপাল ১০৭২–১০৭৫ ১০৭৫–১০৮০ ১০৭৬–১০৭৮/৯ ১০৭০–১০৭১ ১০৭০–১০৭১
দ্বিতীয় শূরপাল ১০৭৫–১০৭৭ ১০৮০–১০৮২ ১০৭১–১০৭২ ১০৭১–১০৭২
রামপাল ১০৭৭–১১৩০ ১০৮২–১১২৪ ১০৭৮/৯–১১৩২ ১০৭২–১১২৬ ১০৭২–১১২৬
কুমারপাল ১১৩০–১১৪০ ১১২৪–১১২৯ ১১৩২–১১৩৬ ১১২৬–১১২৮ ১১২৬–১১২৮
চতুর্থ গোপাল ১১৪০–১১৪৪ ১১২৯–১১৪৩ ১১৩৬–১১৪৪ ১১২৮–১১৪৩ ১১২৮–১১৪৩
মদনপাল ১১৪৪–১১৬২ ১১৪৩–১১৬২ ১১৪৪–১১৬১/৬২ ১১৪৩–১১৬১ ১১৪৩–১১৬১
গোবিন্দপাল ১১৫৮–১১৬২ প্রযোজ্য নয় ১১৬২–১১৭৬ বা ১১৫৮–১১৬২ ১১৬১–১১৬৫ ১১৬১–১১৬৫
পালাপাল প্রযোজ্য নয় প্রযোজ্য নয় প্রযোজ্য নয় ১১৬৫–১১৯৯ ১১৬৫–১২০০

চোল সাম্রাজ্য (১০১৯ - ১০৭০ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত দক্ষিণ-পশ্চিম বাংলার অংশ শাসিত) সম্পাদনা

শাসক-
  • রাজারাজা চোল প্রথম (৯৮৫-১০১৪), ১০১৯ খ্রিস্টাব্দ থেকে বাংলা শাসন করেছিলেন
  • রাজেন্দ্র চোলা প্রথম (১০১৪-১০১৮)
  • রাজাধিরাজ চোল প্রথম (১০১৮-১০৫৪)
  • রাজেন্দ্র চোলা দ্বিতীয় (১০৫৪-১০৬৩)
  • বীররাজেন্দ্র চোল (১০৬৩-১০৭০)
  • অথিরাজেন্দ্র চোল (১০৬৭-১০৭০), বাংলার শেষ চোল শাসক

সেন রাজবংশ (আনুমানিক ১০৭০ - ১২৩০ খ্রিস্টাব্দ) সম্পাদনা

সেন রাজবংশ ১০৭০ সাল থেকে দক্ষিণ-পশ্চিম বাংলা শাসন করে এবং ১২৩০ সাল পর্যন্ত পূর্ব বাংলা শাসন করে। বিজয়া সেনা ১১৫৪ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে সমগ্র বাংলা জয় করে।

শাসকদের তালিকা বিতর্কিত-

দেব রাজবংশ (আনু. ১১৫০ - ১২৯৪ খ্রিস্টাব্দ) সম্পাদনা

  • পুরুষোত্তমদেব
  • মধুসূদনদেব
  • বাসুদেব
  • শান্তিদেব
  • বীরদেব
  • আনন্দদেব
  • ভবদেব
  • দামোদরদেব (১২৩১-১২৪৩)
  • দশরথদেব (১২৪৩-১২৮১)
  • বিক্রমাদিত্যদেব (১২৮১-১২৯৪)

দিল্লি সালতানাত আমল সম্পাদনা

খলজি রাজবংশ সম্পাদনা

বাংলার খলজি রাজবংশ (আনুমানিক ১২০৩-২৭) প্রাথমিকভাবে ঘুরিদ সাম্রাজ্যের প্রতিনিধি ছিল, পরে স্বাধীন হয়, যদিও কখনও কখনও দিল্লি সালতানাতের অধীনস্থ ছিল।

নাম রাজত্ব মন্তব্য
মুহাম্মদ বিন বখতিয়ার খলজি গ.১২০৩ –১২০৬ বাংলায় খলজি রাজবংশের সূচনা হয়
মুহাম্মদ শিরান খলজি ১২০৬-১২০৮
হুসামুদ্দিন ইওয়াজ খলজি ১২০৮-১২১০
আলী মর্দান খলজি ১২১০-১২১২
গিয়াসউদ্দিন ইওয়াজ শাহ ১২১২-১২২৭ দ্বিতীয় মেয়াদে দিল্লির সুলতান ইলতুৎমিশের কাছ থেকে স্বাধীনতা লাভের জন্য নিহত হন
আলাউদ্দিন দৌলত শাহ খলজী ১২২৯-১২৩০ [৩০]
বলকা খলজি ১২৩০-১২৩১ সর্বশেষ খলজি শাসক

মামলুক রাজবংশের অধীনে বাংলার গভর্নর (১২২৭-১২৮৭) সম্পাদনা

দিল্লি সালতানাতের মামলুক রাজবংশের অধীনে বাংলার গভর্নররা।

নাম রাজত্ব মন্তব্য
নাসিরুদ্দিন মাহমুদ ১২২৭-১২২৯ তাঁর পিতা দিল্লির সুলতান ইলতুৎমিশ কর্তৃক নিযুক্ত হন
আলাউদ্দিন জনি ১২৩২-১২৩৩
সাইফুদ্দিন আইবক ১২৩৩-১২৩৬
আওয়ার খান আইবক ১২৩৬ দখলকারী
তুঘরাল তুগান খান ১২৩৬-১২৪৬ পুনঃস্থাপিত মামলুক গভর্নর
তুঘলক তমর খান ১২৪৬-১২৪৭
জালালউদ্দিন মাসুদ জানি ১২৪৭-১২৫১
মালিক ইখতিয়ারউদ্দিন ইউজবাক ১২৫১-১২৫৭ স্বাধীনতা দাবি করেছে।
ইজ্জাউদ্দিন বলবন ইউজবাকি ১২৫৭-১২৫৯
তাতার খান ১২৫৯-১২৬৮ স্বাধীনতা দাবি করেছে।
শের খান ১২৬৮-১২৭২
আমিন খান ১২৭২-১২৭২
তুঘরাল তুগান খান ১২৭২-১২৮১ দ্বিতীয় মেয়াদে মুগিসুদ্দিন তুঘরাল
নাসিরুদ্দিন বুগরা খান ১২৮১-১২৮৭ স্বাধীনতা ঘোষণা করেন এবং বলবন রাজবংশ প্রতিষ্ঠা করেন

বলবনের পরিবার সম্পাদনা

বলবনের পরিবার (c.১২৮৭-১৩২৪) মামলুক গভর্নর নাসিরুদ্দিন বুঘরা খানের স্বাধীনতা ঘোষণার ফলে ঘটেছিল।

নাম রাজত্ব মন্তব্য
নাসিরুদ্দিন বুগরা খান ১২৮৭-১২৯১ দিল্লি সালতানাত থেকে স্বাধীনতা ঘোষণা করেন
রুকুনউদ্দিন কায়কাউস ১২৯১-১৩০০ প্রথম মুসলিম শাসক সাতগাঁও রাজ্য জয় করেন, লখনৌতি সম্প্রসারণ করেন।
শামসুদ্দিন ফিরোজ শাহ ১৩০০-১৩২২ প্রথম মুসলিম শাসক যিনি সোনারগাঁ, ময়মনসিংহশ্রীহট্ট জয় করেন। কায়কাউসের সাতগাঁও বিজয় সম্পন্ন।
গিয়াসউদ্দিন বাহাদুর শাহ ১৩২২-১৩২৪ দিল্লির সুলতান গিয়াসউদ্দিন তুঘলকের কাছে বাংলার স্বাধীনতা হারানো।

তুঘলক রাজবংশের অধীনে বাংলার গভর্নররা (১৩২৪-১৩৩৮) সম্পাদনা

নাম অঞ্চল রাজত্ব মন্তব্য
গিয়াসউদ্দিন বাহাদুর শাহ সোনারগাঁও ১৩২৪-১৩২৮ দিল্লির সুলতান মুহাম্মদ বিন তুঘলক কর্তৃক গভর্নর হিসেবে নিযুক্ত হন, কিন্তু পরে স্বাধীনতা ঘোষণা করেন
বাহরাম খান সোনারগাঁও ১৩২৮-১৩৩৮
কাদের খান লখনৌতি ১৩২৮-১৩৩৬
মুখলিস লখনৌতি ১৩৩৬-১৩৩৯
আজম খান সাতগাঁও ১৩২৪-১৩২৮
ইজ্জউদ্দিন ইয়াহিয়া সাতগাঁও ১৩২৮-১৩৩৮

বাংলার সালতানাতের যুগ সম্পাদনা

তুঘলক রাজবংশের সময় বাংলার স্বাধীন সুলতান (১৩৩৮-১৩৫২) সম্পাদনা

নাম অঞ্চল রাজত্ব মন্তব্য
ফখরুদ্দিন মোবারক শাহ সোনারগাঁও ১৩৩৮-১৩৪৯ সোনারগাঁয়ের প্রথম স্বাধীন শাসক
ইখতিয়ারউদ্দিন গাজী শাহ সোনারগাঁও ১৩৪৯-১৩৫২
ইলিয়াস শাহ সাতগাঁও ১৩৩৯-১৩৪২
আলাউদ্দিন আলী শাহ লখনৌতি ১৩৩৯-১৩৪২
ইলিয়াস শাহ লখনৌতিসাতগাঁও ১৩৪২-১৩৫২

ইলিয়াস শাহী রাজবংশ (১৩৫২-১৪১৪) সম্পাদনা

নাম রাজত্ব মন্তব্য
শামসুদ্দিন ইলিয়াস শাহ ১৩৫২-১৩৫৮ সোনারগাঁ, সাতগাঁওলখনৌতি নিয়ে গঠিত সমগ্র বাংলার প্রথম একক শাসক হন।
সিকান্দার শাহ ১৩৫৮-১৩৯০ তার পুত্র এবং উত্তরাধিকারী গিয়াসউদ্দিন আজম শাহের সাথে যুদ্ধে নিহত হন
গিয়াসউদ্দিন আজম শাহ ১৩৯০-১৪১১
সাইফুদ্দিন হামজা শাহ ১৪১১-১৪১২
শিহাবুদ্দিন বায়েজিদ শাহ ১৪১২-১৪১৪

রাজা গণেশের পরিবার (১৪১৪-১৪৩৫) সম্পাদনা

নাম রাজত্ব মন্তব্য
রাজা গণেশ ১৪১৪-১৪১৫
জালালউদ্দিন মুহাম্মদ শাহ ১৪১৫-১৪১৬ রাজা গণেশের পুত্র এবং ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন
রাজা গণেশ ১৪১৬-১৪১৮ দ্বিতীয় পর্ব
জালালউদ্দিন মুহাম্মদ শাহ ১৪১৮-১৪৩৩ দ্বিতীয় পর্ব
শামসুদ্দিন আহমদ শাহ ১৪৩৩-১৪৩৫

ইলিয়াস শাহী রাজবংশ পুনরুদ্ধার (১৪৩৫-১৪৮৭) সম্পাদনা

নাম রাজত্ব মন্তব্য
নাসিরউদ্দিন মাহমুদ শাহ ১৪৩৫-১৪৫৯
রুকুনউদ্দিন বারবক শাহ ১৪৫৯-১৪৭৪ মাহমুদ শাহের ছেলে
শামসুদ্দিন ইউসুফ শাহ ১৪৭৪-১৪৮১ বারবক শাহের ছেলে
নুরুদ্দিন সিকান্দার শাহ ১৪৮১ মাহমুদ শাহের ছেলে
জালালউদ্দিন ফতেহ শাহ ১৪৮১-১৪৮৭ মাহমুদ শাহের ছেলে

হাবশী শাসন (১৪৮৭-১৪৯৪) সম্পাদনা

নাম রাজত্ব মন্তব্য
শাহজাদা বারবক ১৪৮৭
সাইফুদ্দিন ফিরুজ শাহ ১৪৮৭-১৪৮৯
মাহমুদ শাহ দ্বিতীয় ১৪৮৯-১৪৯০
শামসুদ্দিন মুজাফফর শাহ ১৪৯০-১৪৯৪

হোসেন শাহী রাজবংশ (১৪৯৪-১৫৩৮) সম্পাদনা

নাম রাজত্ব মন্তব্য
আলাউদ্দিন হোসেন শাহ ১৪৯৪-১৫১৮ তাঁর রাজত্বকালে সাংস্কৃতিক নবজাগরণ আনার জন্য বাংলার সকল সুলতানদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ বলে বিবেচিত।
নাসিরুদ্দিন নসরত শাহ ১৫১৮-১৫৩৩
আলাউদ্দিন ফিরুজ শাহ ১৫৩৩
গিয়াসউদ্দিন মাহমুদ শাহ ১৫৩৩-১৫৩৮

সুর সাম্রাজ্যের অধীনে বাংলার গভর্নর (১৫৩২-১৫৫৬) সম্পাদনা

নাম রাজত্ব মন্তব্য
শের শাহ সুরি ১৫৩২-১৫৩৮ মুঘলদের পরাজিত করে ১৫৪০ সালে দিল্লির শাসক হন।
খিদর খান ১৫৩৮-১৫৪১
কাজী ফজিলত ১৫৪১-১৫৪৫
মুহাম্মদ খান সুর ১৫৪৫-১৫৫৪
শাহবাজ খান ১৫৫৫

মুহাম্মদ শাহ রাজবংশ (১৫৫৪-১৫৬৪) সম্পাদনা

নাম রাজত্ব মন্তব্য
মুহাম্মদ খান সুর ১৫৫৪-১৫৫৫ স্বাধীনতা ঘোষণা করেন এবং নিজেকে শামসুদ্দিন মুহম্মদ শাহ হিসেবে স্টাইল করেন
খিজর খান সুরি ১৫৫৫-১৫৬১
গিয়াসউদ্দিন জালাল শাহ ১৫৬১-১৫৬৩
তৃতীয় গিয়াসউদ্দিন বাহাদুর শাহ ১৫৬৩-১৫৬৪ [৩১]

কররানি রাজবংশ (১৫৬৪-১৫৭৬) সম্পাদনা

নাম রাজত্ব মন্তব্য
তাজ খান কররানী ১৫৬৪-১৫৬৬
সুলায়মান খান কররানী ১৫৬৬-১৫৭২
বায়েজিদ খান কররানী ১৫৭২
দাউদ খান কররানী ১৫৭২-১৫৭৬

সুবাহ বাংলার সুবাহদার (১৫৭৬-১৭১৭) সম্পাদনা

আকবরের আমলে সম্পাদনা

নাম রাজত্ব মন্তব্য
মুনিম খান ১৫৭৪-১৫৭৫ খান-ই-খানন
হোসেন কুলি খান ১৫৭৫-১৫৭৮
মোজাফফর খান তুরবতী ১৫৭৯-১৫৮০
মির্জা আজিজ কোকা ১৫৮২-১৫৮৩
ওয়াজির খান তাজিক ১৫৮৩-১৫৮৩
শাহবাজ খান কম্বোহ ১৫৮৩-১৫৮৫
সাদিক খান ১৫৮৫-১৫৮৬
শাহবাজ খান কম্বোহ ১৫৮৬-১৫৮৭
সাঈদ খান ১৫৮৭-১৫৯৪
রাজা মান সিং ১৫৯৭ - ১৬০৬

জাহাঙ্গীরের আমলে সম্পাদনা

নাম রাজত্ব মন্তব্য
কুতুবউদ্দিন কোকাহ ২ সেপ্টেম্বর ১৬০৬ - ২০ মে ১৬০৭ শের আফগানের বিরুদ্ধে যুদ্ধে নিহত হন। (ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমানের স্থানীয় ইতিহাস বলে যে কুতুবউদ্দিন কোকাহ ১৬১০ খ্রিস্টাব্দে আলী কুলি ইস্তাজলু ওরফে শের আফগানের বিরুদ্ধে যুদ্ধে মারা যান। যে সমাধিতে তাদের দুজনকে কবর দেওয়া হয়েছিল সেটি বর্তমানে আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়ার পরিচালনার অধীন রয়েছে।)
জাহাঙ্গীর কুলি বেগ ১৬০৭-১৬০৮ প্রথম জীবনে আকবরের ভাই মির্জা মুহাম্মদ হাকিমের দাস
ইসলাম খান চিশতী ১৬০৮-১৬১৩ ১৬১২ সালের এপ্রিল মাসে বাংলার রাজধানী ঢাকায় স্থানান্তরকারী প্রথম গভর্নর
কাসিম খান চিশতী ১৬১৩-১৬১৭ ইসলাম খান চিশতীর ছোট ভাই
ইব্রাহিম খান ফাত-ই-জং ১৬১৭-১৬২৪ যুবরাজ শাহজাহানের আক্রমণে মারা যান
দরব খান ১৬২৪-১৬২৫ যখন শাহজাহান বাংলা দখল করেন। মহব্বত খান কর্তৃক নিহত।
মহাবত খান ১৬২৫-১৬২৬
মোকাররম খান ১৬২৬-১৬২৭
ফিদাই খান ১৬২৭-১৬২৮

শাহজাহানের আমলে সম্পাদনা

নাম রাজত্ব মন্তব্য
কাসিম খান জুভাইনি ১৬২৮-১৬৩২
মীর মুহাম্মদ বাকির ১৬৩২-১৬৩৫ আজম খান নামে পরিচিত
মীর আবদুস সালাম ১৬৩৫-১৬৩৯ ইসলাম খান মাশাদী নামে পরিচিত
যুবরাজ শাহ সুজা ১৬৩৯-১৬৪৭ আবার ১৬৫২-১৬৬০

আওরঙ্গজেবের আমলে সম্পাদনা

নাম রাজত্ব মন্তব্য
দ্বিতীয় মীর জুমলা ১৬৬০-১৬৬৩
শায়েস্তা খান ১৬৬৪-১৬৭৮
আজম খান কোকা ১৬৭৮-১৬৭৮ ফিদাই খান দ্বিতীয় নামে পরিচিত
যুবরাজ মুহাম্মদ আজম ২০ জুলাই ১৬৭৮ - ৬ অক্টোবর ১৬৭৯ [৩২]
শায়েস্তা খান ১৬৮০-১৬৮৮
ইব্রাহিম খান দ্বিতীয় ১৬৮৯-১৬৯৭
যুবরাজ আজিম-উস-শান ১৬৯৭-১৭১২

বাংলার মধ্যযুগীয় হিন্দু রাজবংশ সম্পাদনা

কোচ রাজবংশ (আনু. ১৫১৫ - ১৯৪৯ খ্রিস্টাব্দ) সম্পাদনা

অবিভক্ত কোচ রাজবংশের শাসকরা (আনু. ১৫১৫ - ১৫৮৬ খ্রিস্টাব্দ) সম্পাদনা

কোচবিহারের শাসকরা (আনু. ১৫৮৬ - ১৯৪৯) সম্পাদনা

ভুরশুট রাজ্য (আনুমানিক ১৬-১৮ শতক) সম্পাদনা

চন্দ্রদ্বীপ বা বসু রাজবংশের রাজ্য সম্পাদনা

চন্দ্রদ্বীপ শাসিত

  • রাজা পরমানন্দ বসু
  • রাজা জগন্নাথ বসু
  • কন্দর্পনারায়ণ বসু (১৫৮২-১৫৯৮)
  • রামচন্দ্র বসু
  • কীর্তিনারায়ণ বসু
  • বাসুদেবনারায়ণ বসু
  • প্রতাপনারায়ণ বসু

যশোর অঞ্চলের মহারাজারা সম্পাদনা

পরিচিত শাসকরা হলেন-

নিম্নবঙ্গ অঞ্চলের মহারাজা সম্পাদনা

পরিচিত শাসক

ভাওয়াল অঞ্চলের মহারাজা সম্পাদনা

বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চল গাজীপুর ও মধুপুর বনের শাসকরা ভাওয়াল রাজ্যের শাসক হিসাবে পরিচিত ছিলো।

বাংলার নবাবরা সম্পাদনা

বাংলার স্বাধীন নবাব (১৭১৭-১৭৫৭ খ্রিস্টাব্দ) সম্পাদনা

প্রতিকৃতি শিরোনাম নাম ব্যক্তিগত নাম জন্ম রাজত্ব মৃত্যু
নাসিরি রাজবংশ
  আলা-উদ-দৌলা মুর্শিদকুলী জাফর খান ১৬৬৫ ১৭১৭-১৭২৭ ৩০ জুন ১৭২৭
  মির্জা আসাদুল্লাহ সরফরাজ খান বাহাদুর ? ১৭২৭-১৭২৭ এপ্রিল ১৭৪০
  সুজা উদ-দৌলা সুজা-উদ-দিন মুহাম্মদ খান ১৬৭০ জুলাই ১৭২৭ - ২৬ আগস্ট ১৭৩৯ ২৬ আগস্ট ১৭৩৯
  মির্জা আসাদুল্লাহ সরফরাজ খান বাহাদুর ? ১৩ মার্চ ১৭৩৯ - এপ্রিল ১৭৪০ এপ্রিল ১৭৪০
আফশার রাজবংশ
  হুসাম উদ-দৌলা মুহাম্মদ আলীবর্দী খান বাহাদুর ১০ মে ১৬৭১ ২৯ এপ্রিল ১৭৪০ - ১৬ এপ্রিল ১৭৫৬ ১৬ এপ্রিল ১৭৫৬
  সিরাজ উদ-দৌলা মির্জা মুহাম্মদ সিরাজ-উদ-দৌলা ১৭৩৩ এপ্রিল ১৭৫৬ - ২ জুন ১৭৫৭ জুন ১৭৫৭

ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির অধীনে বাংলার নবাব (১৭৫৭-১৮৩৮ খ্রিস্টাব্দ) সম্পাদনা

প্রতিকৃতি শিরোনাম নাম ব্যক্তিগত নাম জন্ম রাজত্ব মৃত্যু
নাজাফি রাজবংশ
  জাফর আলী খান বাহাদুর মীর মোহাম্মদ জাফর আলী খান ১৬৯১ জুন ১৭৫৭ - অক্টোবর ১৭৬০ ১৭ জানুয়ারী ১৭৬৫
  ইতিমাদ উদ-দৌলা মীর কাসিম আলী খান বাহাদুর ? ১৭৬০-১৭৬৩ ১৭৭৭
  জাফর আলী খান বাহাদুর মীর মোহাম্মদ জাফর আলী খান ১৬৯১ ২৫ জুলাই ১৭৬৩ - ১৭ জানুয়ারী ১৭৬৫ ১৭ জানুয়ারী ১৭৬৫
  নাজাম-উদ-দৌলা নাজিমুদ্দিন আলী খান ১৭৫০ ৫ ফেব্রুয়ারি ১৭৬৫ - ৮ মে ১৭৬৬ ৮ মে ১৭৬৬
  সাইফ উদ-দৌলা নাজাবুত আলী খান ১৭৪৯ ২২ মে ১৭৬৬ - ১০ মার্চ ১৭৭০ ১০ মার্চ ১৭৭০
  আশরাফ আলী খান ১৭৫৯ সালের আগে ১০ মার্চ ১৭৭০ - ২৪ মার্চ ১৭৭০ ২৪ মার্চ ১৭৭০
  মোবারক উদ-দৌলা মোবারক আলী খান ১৭৫৯ ২১ মার্চ ১৭৭০ - ৬ সেপ্টেম্বর ১৭৯৩ ৬ সেপ্টেম্বর ১৭৯৩
  অজুদ-উদ-দৌলা বাবর আলী খান বাহাদুর ? ১৭৯৩ - ২৮ এপ্রিল ১৮১০ ২৮ এপ্রিল ১৮১০
  আলী জাহ জয়ন-উদ-দীন আলী খান ? ৫ জুন ১৮১০ - ৬ আগস্ট ১৮২১ ১৮২১ সালের ৬ আগস্ট
  ওয়াল্লা জাহ আহমদ আলী খান ? ১৮১০ - ৩০ অক্টোবর ১৮২৪ ৩০ অক্টোবর ১৮২৪
  হুমায়ুন জাহ মোবারক আলী খান ২ ২৯ সেপ্টেম্বর ১৮১০ ১৮২৪ - ৩ অক্টোবর ১৮৩৮ ৩ অক্টোবর ১৮৩৮
  ফেরাদুন জাহ মনসুর আলী খান ২৯ অক্টোবর ১৮৩০ ২৯ অক্টোবর ১৮৩৮-১৮৮১ (ত্যাগ করা) ১৮৮৪ সালের ৫ নভেম্বর

মুর্শিদাবাদের নবাবরা সম্পাদনা

ছবি শিরোনাম নাম ব্যক্তিগত নাম জন্ম রাজত্ব মৃত্যু
নাজাফি রাজবংশ
  আলী কাদির সৈয়দ হাসান আলী মির্জা খান বাহাদুর ২৫ আগস্ট ১৮৪৬ ১৭ ফেব্রুয়ারি ১৮৮২ - ২৫ ডিসেম্বর ১৯০৬ ২৫ ডিসেম্বর ১৯০৬ [৩৪]
  আমির উল ওমরাহ সৈয়দ ওয়াসিফ আলী মির্জা খান বাহাদুর ৭ জানুয়ারী ১৮৭৫ ডিসেম্বর ১৯০৬ - ২৩ অক্টোবর ১৯৫৯ ২৩ অক্টোবর ১৯৫৯ [৩৫]
  রইস উদ-দৌলা সৈয়দ ওয়ারিস আলী মির্জা খান বাহাদুর ১৪ নভেম্বর ১৯০১ ২৩ অক্টোবর ১৯৫৯ - ২০ নভেম্বর ১৯৬৯ ২০ নভেম্বর ১৯৬৯ [৩৬]
প্রযোজ্য নয় প্রযোজ্য নয় বিরোধিত/ অবস্থায়[৩৭][৩৮] প্রযোজ্য নয় ২০ নভেম্বর ১৯৬৯- ১৩ আগস্ট ২০১৪ প্রযোজ্য নয়
  প্রযোজ্য নয় সৈয়দ মোহাম্মদ আব্বাস আলী মির্জা খান বাহাদুর প্রায় ১৯৪২ ১৩ আগস্ট ২০১৪– দায়িত্বপ্রাপ্ত ( শিরোনাম )[৩৭][৩৮] প্রযোজ্য নয়

বাংলায় ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির গভর্নররা সম্পাদনা

বাংলায় ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির গভর্নর (১৭৫৭-১৭৯৩) সম্পাদনা

১৭৬৫ সালে এলাহাবাদের চুক্তি অনুসারে, ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানিকে (BEIC) রাজস্ব সংগ্রহের অধিকার (দিওয়ানি অধিকার) দেওয়া হয়েছিল। ১৭৬৯ সাল থেকে কোম্পানি বাংলা থেকে রাজস্ব সংগ্রহ করে।

বাংলায় ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির গভর্নর-জেনারেল - দ্বৈত সরকার (১৭৭৩-১৭৭৪) সম্পাদনা

১৭৭৩ সালের রেগুলেটিং অ্যাক্ট অনুসরণ করে, বাংলার গভর্নরকে আনুষ্ঠানিকভাবে ফোর্ট উইলিয়ামের গভর্নর-জেনারেল বলা হয়।

বাংলায় ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির গভর্নর-জেনারেল (১৭৯৩-১৮৫৪) সম্পাদনা

১৭৯৩ সালে, ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি নিজামত, অর্থাৎ মুঘল সম্রাট-নিযুক্ত নবাবদের দ্বারা স্থানীয় শাসন বিলুপ্ত করে এবং বাংলাকে সংযুক্ত করে।

ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির গভর্নর-জেনারেল (১৮৩৩-১৮৫৮) সম্পাদনা

১৮৩৩ সালের সনদ আইন অনুসারে, বাংলার গভর্নর-জেনারেলকে ভারতের গভর্নর-জেনারেল বলা হবে।

ব্রিটিশ রাজ যুগ সম্পাদনা

 
১৮৫৫ ব্রিটিশ বেঙ্গল মিশন
 
১৮৮০ ব্রিটিশ বাংলা প্রদেশ

১৮৫৮ সালে ভারতের সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠার সাথে সাথে, গভর্নর-জেনারেলের পদটি ভারতের গভর্নর-জেনারেল এবং ভাইসরয় দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়। বাংলার রাজধানী কলকাতাও ভারতের রাজধানী হয়ে ওঠে। ফলস্বরূপ, প্রাদেশিক বিষয়গুলি দেখাশোনার জন্য বাংলার লেফটেন্যান্ট-গভর্নরের পদ প্রতিষ্ঠিত হয়।

লেফটেন্যান্ট-গভর্নর (১৮৫৮-১৯১২) সম্পাদনা

গভর্নর (১৯১২-১৯৪৭) সম্পাদনা

১৯১১ সালের শেষের দিকে, ভারত সরকার রাজধানীকে নয়াদিল্লিতে স্থানান্তর করার সিদ্ধান্ত নেয়। ফলে বেঙ্গল প্রেসিডেন্সির গভর্নরশিপ এখন প্রয়োজন ছিল।

নাম অফিস নেন অফিস ছেড়েছে
টমাস গিবসন-কারমাইকেল, ১ম ব্যারন কারমাইকেল ১৯১২ ১৯১৭
লরেন্স ডান্ডাস, রোনাল্ডশেয়ের আর্ল ১৯১৭ ১৯২২
ভিক্টর বুলওয়ার-লিটন, লিটনের দ্বিতীয় আর্ল ১৯২২ ১৯২৭
স্যার স্ট্যানলি জ্যাকসন ১৯২৭ ১৯৩২
স্যার জন অ্যান্ডারসন ১৯৩২ ১৯৩৭
মাইকেল ন্যাচবুল, ৫ম ব্যারন ব্র্যাবোর্ন ১৯৩৭ ১৯৩৮
স্যার জন আর্থার হারবার্ট ১৯৩৯ ১৯৪৩
রিচার্ড কেসি ১৯৪৪ ১৯৪৬
স্যার ফ্রেডরিক বারোজ ১৯৪৬ ১৯৪৭

বাংলার প্রধানমন্ত্রী (১৯৩৭-১৯৪৭) সম্পাদনা

ভারত সরকার আইন ১৯৩৫ ভারতে প্রাদেশিক স্বায়ত্তশাসন প্রবর্তন করে এবং বাংলার মুখ্যমন্ত্রী বা প্রধানমন্ত্রীর অবস্থান অত্যন্ত বিশিষ্ট হয়ে ওঠে।

 
কলকাতায় রাইটার্স বিল্ডিং, অবিভক্ত বাংলা সরকারের সাবেক আসন
 
ঢাকায় হক, নাজিমুদ্দিন ও সোহরাওয়ার্দীর সমাধি
না নাম ছবি মেয়াদ(গুলি) [৩৯] পার্টি গভর্নর ভাইসরয়
শেরে বাংলা
এ কে ফজলুল হক
  ১ এপ্রিল ১৯৩৭ - ১ ডিসেম্বর ১৯৪১



</br> ১২ ডিসেম্বর ১৯৪১ - ২৯ মার্চ ১৯৪৩
কৃষক প্রজা পার্টি স্যার জন আর্থার হারবার্ট লিনলিথগোর মার্কেস
খাজা নাজিমুদ্দিন সাহেব   ২৯ এপ্রিল ১৯৪৩ - ৩১ মার্চ ১৯৪৫ বঙ্গীয় প্রাদেশিক মুসলিম লীগ স্যার জন আর্থার হারবার্ট (−১৯৪৪)

স্যার রিচার্ড কেসি (১৯৪৪-)
লিনলিথগোর মার্কেস
ভিসকাউন্ট ওয়েভেল
এইচ এস সোহরাওয়ার্দী
 
২৩ এপ্রিল ১৯৪৬ - ১৪ আগস্ট ১৯৪৭ বঙ্গীয় প্রাদেশিক মুসলিম লীগ স্যার রিচার্ড কেসি (−১৯৪৬)
স্যার ফ্রেডরিক বারোজ
ভিসকাউন্ট ওয়েভেল
আর্ল মাউন্টব্যাটেন

পরবর্তীকালে, তিনজন বাঙালি মুখ্যমন্ত্রীই পূর্ব পাকিস্তানে চলে যান, যেখানে তারা প্রভাবশালী রাষ্ট্রনায়ক হিসাবে অব্যাহত ছিলেন। নাজিমুদ্দিন এবং সোহরাওয়ার্দী পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হন, আর হক পূর্ব পাকিস্তানের মুখ্যমন্ত্রীগভর্নর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

ভারত ও পাকিস্তানের স্বাধীনতার পর সম্পাদনা

ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক আমলের অবসান ঘটে যখন ভারতপাকিস্তান ১৯৪৭ সালে স্বাধীন দেশ হয়ে ওঠে। বাংলা দুটি ভাগে বিভক্ত - একটি ভারতে, যার নাম পশ্চিমবঙ্গ এবং অন্যটি পাকিস্তানে পূর্ব বাংলা নামে, পরে ১৯৫৫ সালে পূর্ব পাকিস্তানের নামকরণ করা হয়।

পাকিস্তানি (পূর্ব) বাংলা (১৯৪৭-১৯৭১) সম্পাদনা

পূর্ব বাংলার গভর্নর (১৯৪৭-১৯৫৫) সম্পাদনা

মেয়াদ পূর্ব বাংলার গভর্নর
১৫ আগস্ট ১৯৪৭ - ৩১ মার্চ ১৯৫০ স্যার ফ্রেডরিক চালমারস বোর্ন
৩১ মার্চ ১৯৫০ - ৩১ মার্চ ১৯৫৩ স্যার ফিরোজ খান নূন
৩১ মার্চ ১৯৫৩ - ২৯ মে ১৯৫৪ চৌধুরী খলিকুজ্জামান
২৯ মে ১৯৫৪ - মে ১৯৫৫ ইস্কান্দার আলী মির্জা
মে ১৯৫৫ - জুন ১৯৫৫ মুহাম্মদ শাহাবুদ্দিন (ভারপ্রাপ্ত)
জুন ১৯৫৫ - ১৪ অক্টোবর ১৯৫৫ আমিরুদ্দিন আহমদ

পূর্ব বাংলার মুখ্যমন্ত্রী (১৯৪৭-১৯৫৫) সম্পাদনা

মেয়াদ পূর্ব বাংলার মুখ্যমন্ত্রী রাজনৈতিক দল
আগস্ট ১৯৪৭ - সেপ্টেম্বর ১৯৪৮ খাজা নাজিমুদ্দিন সাহেব মুসলিম লীগ
সেপ্টেম্বর ১৯৪৮ - এপ্রিল ১৯৫৪ নুরুল আমিন মুসলিম লীগ
এপ্রিল ১৯৫৪ - ১৯৫৫ আবুল কাসেম ফজলুল হক যুক্তফ্রন্ট

পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর (১৯৫৫-১৯৭১) সম্পাদনা

১৯৫৪ সালের শেষদিকে, প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী বগুড়া এক ইউনিট নীতি শুরু করেন যার ফলস্বরূপ পূর্ব বাংলা প্রদেশের নাম পরিবর্তন করে পূর্ব পাকিস্তান করা হয়।

মেয়াদ পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর রাজনৈতিক অন্তর্ভুক্তি
১৪ অক্টোবর ১৯৫৫ - মার্চ ১৯৫৬ আমিরুদ্দিন আহমদ মুসলিম লীগ
মার্চ ১৯৫৬ - ১৩ এপ্রিল ১৯৫৮ এ কে ফজলুল হক মুসলিম লীগ
১৩ এপ্রিল ১৯৫৮ - ৩ মে ১৯৫৮ হামিদ আলী (ভারপ্রাপ্ত) আওয়ামী লীগ
৩ মে ১৯৫৮ - ১০ অক্টোবর ১৯৫৮ সুলতানউদ্দিন আহমদ আওয়ামী লীগ
১০ অক্টোবর ১৯৫৮ - ১১ এপ্রিল ১৯৬০ জাকির হোসেন মুসলিম লীগ
১১ এপ্রিল ১৯৬০ - ১১ মে ১৯৬২ লেফটেন্যান্ট জেনারেল আজম খান, পিএ সামরিক প্রশাসন
১১ মে ১৯৬২ - ২৫ অক্টোবর ১৯৬২ গোলাম ফারুক স্বাধীন
২৫ অক্টোবর ১৯৬২ - ২৩ মার্চ ১৯৬৯ আব্দুল মোনেম খান বেসামরিক প্রশাসন
২৩ মার্চ ১৯৬৯ - ২৫ মার্চ ১৯৬৯ মির্জা নুরুল হুদা বেসামরিক প্রশাসন
২৫ মার্চ ১৯৬৯ - ২৩ আগস্ট ১৯৬৯ মেজর-জেনারেল মুজাফফরউদ্দিন,[৪০] পিএ সামরিক প্রশাসন
২৩ আগস্ট ১৯৬৯ - ১ সেপ্টেম্বর ১৯৬৯ লেফটেন্যান্ট জেনারেল সাহাবজাদা ইয়াকুব খান, পিএ সামরিক প্রশাসন
১ সেপ্টেম্বর ১৯৬৯ - ৭ মার্চ ১৯৭১ ভাইস-এডমিরাল সৈয়দ মোহাম্মদ আহসান, পিএন সামরিক প্রশাসন
৭ মার্চ ১৯৭১ - ৬ এপ্রিল ১৯৭১ লেফটেন্যান্ট জেনারেল সাহাবজাদা ইয়াকুব খান, পিএ সামরিক প্রশাসন
৬ এপ্রিল ১৯৭১ - ৩১ আগস্ট ১৯৭১ লেফটেন্যান্ট জেনারেল টিক্কা খান, পিএ সামরিক প্রশাসন
৩১ আগস্ট ১৯৭১ - ১৪ ডিসেম্বর ১৯৭১ আব্দুল মোতালেব মালিক স্বাধীন
১৪ ডিসেম্বর ১৯৭১ - ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ লেফটেন্যান্ট জেনারেল আমির আবদুল্লাহ খান নিয়াজী, পিএ সামরিক প্রশাসন

পূর্ব পাকিস্তানের মুখ্যমন্ত্রী (১৯৫৫-১৯৭১) সম্পাদনা

মেয়াদ পূর্ব পাকিস্তানের মুখ্যমন্ত্রী রাজনৈতিক দল
আগস্ট ১৯৫৫ - সেপ্টেম্বর ১৯৫৬ আবু হোসেন সরকার কৃষাণ শ্রমিক পার্টি
সেপ্টেম্বর ১৯৫৬ - মার্চ ১৯৫৮ আতাউর রহমান খান আওয়ামী লীগ
মার্চ ১৯৫৮ আবু হোসেন সরকার কৃষাণ শ্রমিক পার্টি
মার্চ ১৯৫৮ - ১৮ জুন ১৯৫৮ আতাউর রহমান খান আওয়ামী লীগ
১৮ জুন ১৯৫৮ - ২২ জুন ১৯৫৮ আবু হোসেন সরকার কৃষাণ শ্রমিক পার্টি
২২ জুন ১৯৫৮ - ২৫ আগস্ট ১৯৫৮ রাজ্যপালের শাসন
২৫ আগস্ট ১৯৫৮ - ৭ অক্টোবর ১৯৫৮ আতাউর রহমান খান আওয়ামী লীগ

১৯৫৮ সালের ৭ অক্টোবর পূর্ব পাকিস্তানের মুখ্যমন্ত্রীর পদ বিলুপ্ত করা হয়। এবং ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর পূর্ব পাকিস্তান প্রদেশটি বিলুপ্ত হয়ে যায়।

ভারতীয় (পশ্চিম) বাংলা (১৯৪৭-বর্তমান) সম্পাদনা

পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপালরা সম্পাদনা

ক্রমিক নাম অফিস গ্রহণ অফিস ত্যাগ
চক্রবর্তী রাজাগোপালাচারী ১৫ আগস্ট ১৯৪৭ ২১ জুন ১৯৪৮
কৈলাশ নাথ কাটজু ২১ জুন ১৯৪৮ ১ নভেম্বর ১৯৫১
হরেন্দ্র কুমার মুখার্জি ১ নভেম্বর ১৯৫১ ৮ আগস্ট ১৯৫৬
- ফণিভূষণ চক্রবর্তী (ভারপ্রাপ্ত) ৮ আগস্ট ১৯৫৬ ৩ নভেম্বর ১৯৫৬
পদ্মজা নায়ডু ৩ নভেম্বর ১৯৫৬ ১ জুন ১৯৬৭
ধর্ম বীর ১ জুন ১৯৬৭ ১ এপ্রিল ১৯৬৯
- দীপ নারায়ণ সিনহা (ভারপ্রাপ্ত) ১ এপ্রিল ১৯৬৯ ১৯ সেপ্টেম্বর ১৯৬৯
শান্তি স্বরূপ ধাওয়ান ১৯ সেপ্টেম্বর ১৯৬৯ ২১ আগস্ট ১৯৭১
অ্যান্থনি ল্যান্সেলট ডায়াস ২১ আগস্ট ১৯৭১ ৬ নভেম্বর ১৯৭৯
ত্রিভুবন নারায়ণ সিং ৬ নভেম্বর ১৯৭৯ ১২ সেপ্টেম্বর ১৯৮১
ভৈরব দত্ত পান্ডে ১২ সেপ্টেম্বর ১৯৮১ ১০ অক্টোবর ১৯৮৩
১০ অনন্ত প্রসাদ শর্মা ১০ অক্টোবর ১৯৮৩ ১৬ আগস্ট ১৯৮৪
- সতীশ চন্দ্র (ভারপ্রাপ্ত) ১৬ আগস্ট ১৯৮৪ ১ অক্টোবর ১৯৮৪
১১ উমা শঙ্কর দীক্ষিত ১ অক্টোবর ১৯৮৪ ১২ আগস্ট ১৯৮৬
১২ পদ্মজা নায়ডু ১২ আগস্ট ১৯৮৬ ২০ মার্চ ১৯৮৯
১৩ টি.ভি. রাজেশ্বর ২০ মার্চ ১৯৮৯ ৭ ফেব্রুয়ারী ১৯৯০
(১২) সৈয়দ নুরুল হাসান ৭ ফেব্রুয়ারী ১৯৯০ ১২ জুলাই ১৯৯৩
- বি. সত্যনারায়ণ রেড্ডি (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ১৩ জুলাই ১৯৯৩ ১৪ আগস্ট ১৯৯৩
১৪ কে ভি রঘুনাথ রেড্ডি ১৪ আগস্ট ১৯৯৩ ২৭ এপ্রিল ১৯৯৮
১৫ আখলাকুর রহমান কিদওয়াই ২৭ এপ্রিল ১৯৯৮ ১৮ মে ১৯৯৯
১৬ শ্যামল কুমার সেন ১৮ মে ১৯৯৯ ৪ ডিসেম্বর ১৯৯৯
১৭ বীরেন জে শাহ ৪ ডিসেম্বর ১৯৯৯ ১৪ ডিসেম্বর ২০০৪
১৮ গোপালকৃষ্ণ গান্ধী ১৪ ডিসেম্বর ২০০৪ ১৪ ডিসেম্বর ২০০৯
- দেবানন্দ কোঁয়রr (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ১৪ ডিসেম্বর ২০০৯ ২৩ জানুয়ারি ২০১০
১৯ এম.কে. নারায়ণন ২৪ জানুয়ারি ২০১০ ৩০ জুন ২০১৪
- ডি ওয়াই পাতিল (অতিরিক্ত দায়িত্ব)[৪১] ৩ জুলাই ২০১৪ ১৭ জুলাই ২০১৪
২০ কেশরী নাথ ত্রিপাঠী ২৪ জুলাই ২০১৪ ২৯ জুলাই ২০১৯
২১ জগদীপ ধনখড়[৪২] ৩০ জুলাই ২০১৯ ১৭ জুলাই ২০২২
- লা. গণেশন (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ১৮ জুলাই ২০২২ ২২ নভেম্বর ২০২২
২২ সিভি আনন্দ বোস ২৩ নভেম্বর ২০২২ Incumbent

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীরা সম্পাদনা

রাজনৈতিক দলগুলির রং-নির্দেশ
  নির্দল
  কোনওটি না (রাষ্ট্রপতি শাসন)
পশ্চিমবঙ্গের প্রধানমন্ত্রী[ক]
নং প্রতিকৃতি নাম মেয়াদ[৪৩] মেয়াদের দৈর্ঘ্য বিধানসভা

(নির্বাচন)

রাজনৈতিক দল[৪৫]
  প্রফুল্লচন্দ্র ঘোষ ৩ জুলাই, ১৯৪৭ ১৪ আগস্ট, ১৯৪৭ ৪২ দিন শর্তাধীন প্রাদেশিক আইনসভা (১৯৪৭)[খ]

(১৯৪৬-এর নির্বাচন)

ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস
(১)   প্রফুল্লচন্দ্র ঘোষ ১৫ আগস্ট, ১৯৪৭ ২২ জানুয়ারি, ১৯৪৮ ১৬০ দিন প্রাদেশিক আইনসভা (১৯৪৭-৫২)[গ]

(১৯৪৬-এর নির্বাচন)

ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস
  ড.বিধানচন্দ্র রায় ২৩ জানুয়ারি, ১৯৪৮ ২৫ জানুয়ারি, ১৯৫০ ২ বছর, ২ দিন
পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী
নং[ঘ] প্রতিকৃতি নাম বিধানসভা কেন্দ্র মেয়াদ[ঙ] মেয়াদের দৈর্ঘ্য বিধানসভা[৪৬](নির্বাচন) রাজনৈতিক দল[৪৫]

(জোট)

(২)   ড.বিধানচন্দ্র রায়[চ] ২৬ জানুয়ারি, ১৯৫০ ৩০ মার্চ, ১৯৫২ ১২ বছর, ১৫৬ দিন(মোট: ১৪ বছর, ১৫৮ দিন) বিধানসভা (১৯৪৬-৫২)[ছ](১৯৪৬-এর নির্বাচন) ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস
বউবাজার ৩১ মার্চ, ১৯৫২ ৫ এপ্রিল, ১৯৫৭ প্রথম বিধানসভা (১৯৫২-৫৭)

(জানুয়ারি, ১৯৫২-এর নির্বাচন)

৬ এপ্রিল, ১৯৫৭ ২ এপ্রিল, ১৯৬২ দ্বিতীয় বিধানসভা (১৯৫৭-৬২)

(মার্চ, ১৯৫৭-এর নির্বাচন)

চৌরঙ্গী ৩ এপ্রিল, ১৯৬২ ১ জুলাই, ১৯৬২ তৃতীয় বিধানসভা (১৯৬২–৬৭)

(ফেব্রুয়ারি, ১৯৬২-এর নির্বাচন)

প্রফুল্লচন্দ্র সেন[জ] আরামবাগ পূর্ব ৯ জুলাই, ১৯৬২ ২৮ ফেব্রুয়ারি, ১৯৬৭ ৪ বছর, ২৩৪ দিন
  অজয়কুমার মুখোপাধ্যায় তমলুক ১ মার্চ, ১৯৬৭ ২১ নভেম্বর, ১৯৬৭ ২৬৫ দিন চতুর্থ বিধানসভা (১৯৬৭–৬৮)

(ফেব্রুয়ারি, ১৯৬৭-এর নির্বাচন)

বাংলা কংগ্রেস(যুক্তফ্রন্ট)
(১)   প্রফুল্লচন্দ্র ঘোষ ঝাড়গ্রাম ২১ নভেম্বর, ১৯৬৭ ১৯ ফেব্রুয়ারি, ১৯৬৮ ৯০ দিন

(মোট: ২৫০ দিন)

নির্দল(প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট)
  শূন্য পদ[ঝ](রাষ্ট্রপতি শাসন) ২০ ফেব্রুয়ারি, ১৯৬৮ ২৫ ফেব্রুয়ারি, ১৯৬৯ ১ বছর, ৫ দিন বিলুপ্ত প্রযোজ্য নয়
(৪)   অজয়কুমার মুখোপাধ্যায় তমলুক ২৫ ফেব্রুয়ারি, ১৯৬৯ ১৬ মার্চ, ১৯৭০ ১ বছর, ১৯ দিন পঞ্চম বিধানসভা (১৯৬৯-৭০)

(ফেব্রুয়ারি, ১৯৬৯-এর নির্বাচন)

বাংলা কংগ্রেস(যুক্তফ্রন্ট)
-   পদ শূন্য[ঝ](রাষ্ট্রপতি শাসন) ১৯ মার্চ, ১৯৭০ ৩০ জুলাই, ১৯৭০ ১ বছর, ১৪ দিন প্রযোজ্য নয়
৩০ জুলাই, ১৯৭০ ২ এপ্রিল, ১৯৭১ অবলুপ্ত
(৪)   অজয়কুমার মুখোপাধ্যায় তমলুক ২ এপ্রিল, ১৯৭১ ২৮ জুন, ১৯৭১ ৮৭ দিন(মোট: ২ বছর, ৬ দিন) ষষ্ঠ বিধানসভা (১৯৭১)

(মার্চ, ১৯৭১-এর নির্বাচন)

ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস(গণতান্ত্রিক জোট)
  শূন্য পদ[ঝ](রাষ্ট্রপতি শাসন) ২৯ জুন, ১৯৭১ ২০ মার্চ, ১৯৭২ ২৬৫ দিন অবলুপ্ত প্রযোজ্য নয়
  সিদ্ধার্থ শঙ্কর রায় মালদহ ২০ মার্চ, ১৯৭২ ৩০ এপ্রিল, ১৯৭৭ ৫ বছর, ৪১ দিন সপ্তম বিধানসভা (১৯৭২–৭৭)

(মার্চ, ১৯৭২-এর নির্বাচন)

ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস(প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক জোট)
  শূন্যপদ[ঝ](রাষ্ট্রপতি শাসন) ৩০ এপ্রিল, ১৯৭৭ ২০ জুন, ১৯৭৭ ৫১ দিন অবলুপ্ত প্রযোজ্য নয়
  জ্যোতি বসু সাতগাছিয়া ২১ জুন, ১৯৭৭ ২৩ মে, ১৯৮২ ২৩ বছর, ১৩৭ দিন অষ্টম বিধানসভা (১৯৭৭–৮২)

(জুন, ১৯৭৭-এর নির্বাচন)

ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্ক্সবাদী)(বামফ্রন্ট)
২৪ মে, ১৯৮২ ২৯ মার্চ, ১৯৮৭ নবম বিধানসভা (১৯৮২–৮৭)

(মে, ১৯৮২-এর নির্বাচন)

৩০ মার্চ, ১৯৮৭ ১৮ জুন, ১৯৯১ দশম বিধানসভা (১৯৮৭–৯১)

(মার্চ, ১৯৮৭-এর নির্বাচন)

১৯ জুন, ১৯৯১ ১৫ মে, ১৯৯৬ একাদশ বিধানসভা (১৯৯১–৯৬)

(মে, ১৯৯১-এর নির্বাচন)

১৬ মে, ১৯৯৬ ৫ নভেম্বর, ২০০০ দ্বাদশ বিধানসভা (১৯৯৬–২০০১)

(মে, ১৯৯৬-এর নির্বাচন)

  বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য যাদবপুর ৬ নভেম্বর, ২০০০ ১৪ মে, ২০০১ ১০ বছর, ১৮৮ দিন
১৫ মে, ২০০১ ১৭ মে, ২০০৬ ত্রয়োদশ বিধানসভা (২০০১–০৬)

(মে, ২০০১-এর নির্বাচন)

১৮ মে, ২০০৬ ১৩ মে, ২০১১ চতুর্দশ বিধানসভা (২০০৬–১১)

(এপ্রিল-মে, ২০০৬-এর নির্বাচন)

  মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ভবানীপুর ২০ মে, ২০১১ ২৫ মে, ২০১৬ ১৩ বছর, ৪ দিন পঞ্চদশ বিধানসভা (২০১১–১৬)

(এপ্রিল–মে, ২০১১-এর নির্বাচন)

সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেস[ঞ]
২৬ মে, ২০১৬ ২ মে,

২০২১

ষোড়শ বিধানসভা (২০১৬–২১)

(এপ্রিল-মে ২০১৬-এর নির্বাচন)

৫ মে,

২০২১

বর্তমান সপ্তদশ বিধানসভা (২০২১–২৬)

(মার্চ-এপ্রিল ২০২১-এর নির্বাচন)

বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর সম্পাদনা

রাষ্ট্রপতি ১৯৭৫ থেকে ১৯৯১ সাল পর্যন্ত রাষ্ট্রপতি শাসিত সরকারে বাংলাদেশের রাষ্ট্রের নির্বাহী প্রধান ছিলেন। তারপরে, প্রধানমন্ত্রী এই সংসদীয় প্রজাতন্ত্রের সরকারের নির্বাহী প্রধান এবং রাষ্ট্রপতি হলেন আনুষ্ঠানিক রাষ্ট্রপ্রধান, সংসদ দ্বারা নির্বাচিত।

চাবি সম্পাদনা

রাজনীতিক দল
Other factions
Status
  •   Acting President

বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতিরা সম্পাদনা

নাম

(জন্ম-মৃত্যু)
নির্বাচন অফিস দল
শেখ মুজিবুর রহমান

(১৯২০–১৯৭৫)[ট]
১৭ এপ্রিল ১৯৭১ ১২ জানুয়ারি ১৯৭২ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
সৈয়দ নজরুল ইসলাম

(১৯২৫–১৯৭৫)[ঠ]
১৭ এপ্রিল ১৯৭১ ১২ জানুয়ারি ১৯৭২ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
আবু সাঈদ চৌধুরী

(১৯২১–১৯৮৭)
১২ জানুয়ারি ১৯৭২ ২৪ ডিসেম্বর ১৯৭৩ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
মোহাম্মদউল্লাহ

(১৯২১–১৯৯৯)
২৪ ডিসেম্বর ১৯৭৩ ২৭ জানুয়ারি ১৯৭৪ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
১৯৭৪ ২৭ জানুয়ারি ১৯৭৪ ২৫ জানুয়ারি ১৯৭৫
শেখ মুজিবুর রহমান

(১৯২০–১৯৭৫)
২৫ জানুয়ারি ১৯৭৫ ১৫ আগস্ট ১৯৭৫

(হত্যা করা হয়)
বাক্শাল
খন্দকার মোশতাক আহমেদ

(১৯১৮–১৯৯৬)
১৫ আগস্ট ১৯৭৫ ৬ নভেম্বর ১৯৭৫

(পদচ্যুত.)
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
আবু সাদাত মোহাম্মদ সায়েম

(১৯১৬–১৯৯৭)[ড]
৬ নভেম্বর ১৯৭৫ ২১ এপ্রিল ১৯৭৭ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
জিয়াউর রহমান

(১৯৩৬–১৯৮১)[ঢ]
১৯৭৭[ণ]

১৯৭৮[ত]
২১ এপ্রিল ১৯৭৭ ৩০ মে ১৯৮১

(হত্যা.)
সশস্ত্র বাহিনী /

বিএনপি
আবদুস সাত্তার

(১৯০৬–১৯৮৫)
৩০ মে ১৯৮১ ২০ নভেম্বর ১৯৮১ বিএনপি
১৯৮১ ২০ নভেম্বর ১৯৮১ ২৪ মার্চ ১৯৮২

(পদচ্যুত)
হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ

(১৯৩০–২০১৯)[থ]

২৪ মার্চ ১৯৮২ ২৭ মার্চ ১৯৮২ মিলিটারি
আ ফ ম আহসানউদ্দিন চৌধুরী

(১৯১৫–২০০১)
২৭ মার্চ ১৯৮২ ১০ ডিসেম্বর r ১৯৮৩ স্বতন্ত্র
হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ

(১৯৩০–২০১৯)[দ]
১৯৮৫

১৯৮৬
১১ ডিসেম্বর ১৯৮৩ ৬ ডিসেম্বর ১৯৯০ সশস্ত্র বাহিনী /

জাতীয় পার্টি
শাহাবুদ্দিন আহমেদ

(জন্ম ১৯৩০)
৬ ডিসেম্বর ১৯৯০ ১০ অক্টোবর ১৯৯১ স্বতন্ত্র
আবদুর রহমান বিশ্বাস

(১৯২৬–২০১৭)
১৯৯১ ১০ অক্টোবর ১৯৯১ ৯ অক্টোবর ১৯৯৬ বিএনপি
শাহাবুদ্দিন আহমেদ

(জন্ম ১৯৩০)
১৯৯৬ ৯ অক্টোবর ১৯৯৬ ১৪ নভেম্বর ২০০১ স্বতন্ত্র
একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী

(জন্ম ১৯৩২)
২০০১ ১৪ নভেম্বর ২০০১ ২১ জুন ২০০২ বিএনপি
জমির উদ্দিন সরকার

(জন্ম ১৯৩১)
২১ জুন ২০০২ ৬ সেপ্টেম্বর ২০০২ বিএনপি
ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ

(১৯৩১–২০১২)
২০০২ ৬ সেপ্টেম্বর ২০০২ ১২ ফেব্রুয়ারী ২০০৯ স্বতন্ত্র
মঈন উদ্দিন আহমেদ ১১ জানুয়ারি ২০০৭ ১২ জানুয়ারি ২০০৭ সশস্ত্র বাহিনী
জিল্লুর রহমান

(১৯২৯–২০১৩)
২০০৯ ১২ ফেব্রুয়ারী ২০০৯ ২০ মার্চ ২০১৩

(মারা যান)
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
আবদুল হামিদ

(জন্ম ১৯৪৪)[ধ]
১৪ মার্চ ২০১৩ ২৪ এপ্রিল ২০১৩ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
২০১৩ ২৪ এপ্রিল ২০১৩ ২৪ এপ্রিল ২০১৮
২০১৮ ২৪ এপ্রিল ২০১৮ ২৪ এপ্রিল ২০২৩
শাহাবুদ্দিন চুপপু(১০ ডিসেম্বর ১৯৪৯) ২৪ এপ্রিল ২০২৩ ক্ষমতাশীন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ


আরও দেখুন সম্পাদনা

নোট সম্পাদনা

  1. বিধানসভার ওয়েবসাইটে ১৯৫০-এর পূর্ববর্তী পদাধিকারীদের ইংরেজিতে "প্রিমিয়ারস অফ ওয়েস্ট বেঙ্গল" (ইংরেজি: "Premiers of West Bengal") বলে উল্লেখ করা হলেও,[৪৩] টাইমস অফ ইন্ডিয়া পত্রিকায় দেখানো হয়েছে যে, সেই সময় তাঁদের সর্বজনীনভাবে "পশ্চিমবঙ্গের প্রধানমন্ত্রী" (ইংরেজি:"Prime Ministers of West Bengal") নামে অভিহিত করা হত।[৪৪]
  2. এই আইনসভাটি বঙ্গীয় প্রাদেশিক আইনসভার বাংলার হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠ পশ্চিম অংশের নির্বাচিত প্রতিনিধিদের নিয়ে গঠিত ছিল। এই আইনসভার একাদশ সদস্য বিশিষ্ট একটি মন্ত্রিসভা ৩ জুলাই ১৯৪৭ শপথ গ্রহণ করে।
  3. এই আইনসভাটি হল দেশবিভাজনের পর সৃষ্ট ৯০-সদস্যবিশিষ্ট একটি খণ্ডিত আইনসভা। পূর্বতন বঙ্গীয় প্রাদেশিক আইনসভার পশ্চিমবঙ্গীয় নির্বাচনী কেন্দ্রগুলিকে নিয়ে এই আইনসভাটি গঠিত হয়। পূর্বতন আইনসভাটি ভারত সরকার আইন, ১৯৩৫ মোতাবেক গঠিত হয়েছিল। এটি ভারতীয় সংবিধান-সম্মত আইনসভা নয়। কারণ, এই আইনসভার কার্যকালে উক্ত সংবিধানের খসড়া রচনার কাজ চলছিল।[৪৫]
  4. বন্ধনীর মধ্যে উল্লিখিত নম্বরটি নির্দেশ করছে পদাধিকারী মুখ্যমন্ত্রী পূর্বেও মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন।
  5. মুখ্যমন্ত্রীর কার্যকালের মেয়াদ-সংক্রান্ত তথ্য মূলত পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভার ওয়েবসাইট থেকে গৃহীত হলেও,[৪৩] নিশ্চিত ভুলগুলি (প্রধানত ১৯৬৯ থেকে ১৯৭১ সালের মধ্যবর্তী সময়ের) একই ওয়েবসাইটে প্রদত্ত একটি ঐতিহাসিক প্রবন্ধের সাহায্যে সংশোধন করে নেওয়া হয়েছে।[৪৫]
  6. ১৯৫২ সালের মার্চ মাস পর্যন্ত ড. বিধানচন্দ্র রায় কোনও বিধানসভা কেন্দ্রের প্রতিনিধিত্ব করেননি। তৃতীয় বিধানসভায় তাঁর কার্যকালের শেষ তিন মাস তিনি চৌরঙ্গি বিধানসভা কেন্দ্রের প্রতিনিধিত্ব করেন।
  7. ভারতের সংবিধান প্রবর্তনের পর এবং ১৯৫২ সালে স্বাধীন ভারতের প্রথম নির্বাচনের আগে পর্যন্ত প্রাদেশিক আইনসভাটি পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা হিসেবে কাজ করছিল।[৪৫]
  8. কোনও কোনও সূত্রের মতে, ১৯৬২ সালের ২ থেকে ৮ জুলাই তারিখ পর্যন্ত প্রফুল্লচন্দ্র সেন অন্তর্বর্তীকালীন মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছিলেন।[৪৭]
  9. ভারতীয় সংবিধানের ৩৫৬ ধারা অনুযায়ী, "রাজ্য সরকার সংবিধান মোতাবেক কার্য পরিচালনায় অক্ষম হলে" রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হতে পারে। প্রায়শই যখন কোনও দল বা জোট বিধানসভায় সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনে ব্যর্থ হয়, তখন এই ধারা জারি হয়। কোনও রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হলে সেই রাজ্যের মন্ত্রিসভা ভেঙে দেওয়া হয়। এই কারণে মুখ্যমন্ত্রীর পদটি শূন্য থাকে এবং রাজ্যের রাজ্যপাল প্রশাসনিক দায়িত্ব নিজের হাতে তুলে নেন। তিনি কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে নিজের কাজ করেন। কোনও কোনও ক্ষেত্রে, বিধানসভাও ভেঙে দেওয়া হয়।[৪৮]
  10. মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রথম ১৬ মাস সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেস ও ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের জোট সরকারের নেতৃত্ব দেন। ২০১২ সালের সেপ্টেম্বর মাসে তৃণমূল কংগ্রেস সংযুক্ত প্রগতিশীল জোট ত্যাগ করে। সেই সময় জাতীয় কংগ্রেসের মন্ত্রীরাও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করেন। এরপর শুধুই তৃণমূল কংগ্রেসের মন্ত্রীরাই তাঁর মন্ত্রিসভার সদস্য ছিলেন।[৪৯]
  11. Pakistani prisoner to 8 January 1972.
  12. Acting for Sheikh Mujibur Rahman.
  13. Also Chief Martial Law Administrator (24 August 1975 – 4 November 1975 and 7 November 1975 – 29 November 1976).
  14. Also Chief Martial Law Administrator (29 November 1976 – 6 April 1979).
  15. Referendum.
  16. Direct election.
  17. Served as Chief Martial Law Administrator until 30 March 1984.
  18. Served as Chief Martial Law Administrator until 30 March 1984.
  19. Acting for Zillur Rahman until 20 March 2013.

তথ্যসূত্র সম্পাদনা

  1. আবদুল মমিন চৌধুরী (২০১২)। "গঙ্গারিডাই"ইসলাম, সিরাজুল; মিয়া, সাজাহান; খানম, মাহফুজা; আহমেদ, সাব্বীর। বাংলাপিডিয়া: বাংলাদেশের জাতীয় বিশ্বকোষ (২য় সংস্করণ)। ঢাকা, বাংলাদেশ: বাংলাপিডিয়া ট্রাস্ট, বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটিআইএসবিএন 9843205901ওএল 30677644Mওসিএলসি 883871743 
  2. Majumdar, R. C. (১৯৭৩)। History of Mediaeval Bengal। G. Bharadwaj & Co.। পৃষ্ঠা 1–2। ওসিএলসি 1031074 
  3. Arnold, Thomas Walker (১৯১৩)। The Preaching of Islam: A History of the Propagation of the Muslim Faith (2nd সংস্করণ)। Constable & Company। পৃষ্ঠা 227। 
  4. Sen, Sailendra (২০১৩)। A Textbook of Medieval Indian History। Primus Books। পৃষ্ঠা 68–102। আইএসবিএন 978-9-38060-734-4 
  5. Nanda, J. N (2005). Bengal: the unique state। Concept Publishing Company. p. 10.। ২০০৫। আইএসবিএন 978-81-8069-149-2 
  6. "The Mahabharata of Krishna-Dwaipayana Vyasa" Translated into English Prose, Bharata Press, Calcutta (1883–1896)
  7. Digha Nikaya
  8. The Garuda Purana 55.12; V.D. I.9.4; the Markendeya Purana 56.16–18
  9. "West Bengal | History, Culture, Map, Capital, & Population | Britannica" 
  10. Hossain, Md. Mosharraf, Mahasthan: Anecdote to History, 2006, pp. 69–73, Dibyaprakash, 38/2 ka Bangla Bazar, Dhaka, আইএসবিএন ৯৮৪-৪৮৩-২৪৫-৪
  11. সুচন্দ্রা ঘোষ (২০১২)। "পুন্ড্রবর্ধন"ইসলাম, সিরাজুল; মিয়া, সাজাহান; খানম, মাহফুজা; আহমেদ, সাব্বীর। বাংলাপিডিয়া: বাংলাদেশের জাতীয় বিশ্বকোষ (২য় সংস্করণ)। ঢাকা, বাংলাদেশ: বাংলাপিডিয়া ট্রাস্ট, বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটিআইএসবিএন 9843205901ওএল 30677644Mওসিএলসি 883871743 
  12. Klidsa; Mallinatha. Sajvan (১৯২২)। The Raghuvamsa of Kalidasa : with the commentary (the Samjivani) of Mallinatha ; Cantos I-X ; edited with a literal English translation, copious notes in Sanskrit and English, and various readings &c. &c. by M.R. Kale। Robarts - University of Toronto। Bombay : P.S. Rege। 
  13. Jha, M. (১৯৯৭)। "Hindu Kingdoms at contextual level"Anthropology of Ancient Hindu Kingdoms: A Study in Civilizational Perspective। M.D. Publications Pvt. Ltd। পৃষ্ঠা 27–42। আইএসবিএন 9788175330344 
  14. Kamal Kant Jha; Pt. Sri ganeshrai Vidyabhushan। "A Brief History of Mithila State Bihar Articles" (ইংরেজি ভাষায়)। ১ মার্চ ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ জানুয়ারি ২০০৮ 
  15. Encyclopaedia of Hinduism. Nagendra Kumar Singh, p. 3239.
  16. Raychaudhuri, Hemchandra (1972), Political History of Ancient India, University of Calcutta, Calcutta, pp. 106–113, 186–90
  17. হেলাল উদ্দিন আহমেদ (২০১২)। "ইতিহাস"ইসলাম, সিরাজুল; মিয়া, সাজাহান; খানম, মাহফুজা; আহমেদ, সাব্বীর। বাংলাপিডিয়া: বাংলাদেশের জাতীয় বিশ্বকোষ (২য় সংস্করণ)। ঢাকা, বাংলাদেশ: বাংলাপিডিয়া ট্রাস্ট, বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটিআইএসবিএন 9843205901ওএল 30677644Mওসিএলসি 883871743 
  18. Wicks, Robert S. (১৯৯৫)। Money, Markets, and Trade in Early Southeast Asia: The Development of Indigenous Monetary Systems to AD 1400 (ইংরেজি ভাষায়)। Cornell University Press। পৃষ্ঠা 87। আইএসবিএন 978-1-5017-1947-9 
  19. Johnston, E. H. (১৯৪৪)। "Some Sanskrit Inscriptions of Arakan": 357–385। আইএসএসএন 0041-977Xজেস্টোর 609320ডিওআই:10.1017/S0041977X00072529 
  20. Laloo, Betty (২০ জুলাই ২০১৬)। "III: Early Jaintia State Formation" (পিডিএফ)Reconstructing the early Jaintia state through oral traditions (PhD)। North-Eastern Hill University। 
  21. "Jaintia Hills-Land of Myths and Legends"Mesmerizing Meghalaya। ১২ আগস্ট ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  22. Dasgupta, Biswas এবং Mallik 2009
  23. Mallik, Abhaya Pada (১৯২১)। History of Bishnupur-Raj: An Ancient Kingdom of West Bengal। Abhaya Pada Mallik। পৃষ্ঠা 128–130। সংগ্রহের তারিখ ১১ মার্চ ২০১৬ 
  24. Dilip Kumar Ganguly (১৯৯৪)। Ancient India, History and Archaeology। Abhinav। পৃষ্ঠা 33–41। আইএসবিএন 978-81-7017-304-5 
  25. Susan L. Huntington (১৯৮৪)। The "Påala-Sena" Schools of Sculpture। Brill Archive। পৃষ্ঠা 32–39। আইএসবিএন 90-04-06856-2 
  26. R. C. Majumdar (১৯৭১)। History of Ancient Bengal। G. Bharadwaj। পৃষ্ঠা 161–162। 
  27. Abdul Momin Chowdhury (১৯৬৭)। Dynastic history of Bengal, c. 750-1200 CE। Asiatic Society of Pakistan। পৃষ্ঠা 272–273। 
  28. Bindeshwari Prasad Sinha (১৯৭৭)। Dynastic History of Magadha, Cir. 450–1200 A.D.। Abhinav Publications। পৃষ্ঠা 253–। আইএসবিএন 978-81-7017-059-4 
  29. Dineshchandra Sircar (১৯৭৫–১৯৭৬)। "Indological Notes - R.C. Majumdar's Chronology of the Pala Kings": 209–10। 
  30. এ.বি.এম শামসুদ্দীন আহমদ (২০১২)। "ইলতুৎমিশ"ইসলাম, সিরাজুল; মিয়া, সাজাহান; খানম, মাহফুজা; আহমেদ, সাব্বীর। বাংলাপিডিয়া: বাংলাদেশের জাতীয় বিশ্বকোষ (২য় সংস্করণ)। ঢাকা, বাংলাদেশ: বাংলাপিডিয়া ট্রাস্ট, বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটিআইএসবিএন 9843205901ওএল 30677644Mওসিএলসি 883871743 
  31. Singh, Nagendra Kr (২০০৩)। Encyclopaedia Of Bangladesh (Set Of 30 Vols.) (ইংরেজি ভাষায়)। Anmol Publications Pvt. Limited। আইএসবিএন 978-81-261-1390-3 
  32. আবদুল করিম (২০১২)। "মুহম্মদ আজম, যুবরাজ"ইসলাম, সিরাজুল; মিয়া, সাজাহান; খানম, মাহফুজা; আহমেদ, সাব্বীর। বাংলাপিডিয়া: বাংলাদেশের জাতীয় বিশ্বকোষ (২য় সংস্করণ)। ঢাকা, বাংলাদেশ: বাংলাপিডিয়া ট্রাস্ট, বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটিআইএসবিএন 9843205901ওএল 30677644Mওসিএলসি 883871743 
  33. "Princess Daisy of Pless: The Happy Years. An exhibition at Castle Pless"www.rvondeh.dircon.co.uk 
  34. Paul, Gautam। "Murshidabad History – Hassan Ali"murshidabad.net। ১ সেপ্টেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ অক্টোবর ২০১৬ 
  35. Company, East India (১৮০৭)। Papers Presented to the House of Commons Concerning the Late Nabob of the Carnatic (ইংরেজি ভাষায়)। পৃষ্ঠা 118। 
  36. Paul, Gautam। "Murshidabad History – Waresh Ali"murshidabad.net। ২২ মার্চ ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ অক্টোবর ২০১৬ 
  37. Mahato, Sukumar (২০ আগস্ট ২০১৪)। "Murshidabad gets a Nawab again, but fight for assets ahead"The Times of India। ২৬ এপ্রিল ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুন ২০১৫ 
  38. "Portrait of an accidental Nawab"The Times of India। ২২ আগস্ট ২০১৪। ২৩ আগস্ট ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুন ২০১৫ 
  39. "Premier of Bengal"West Bengal Legislative Assembly। ১৪ জুলাই ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  40. (acting martial law administrator and governor as he was the GOC 14th Infantry Division)
  41. "Dr D y Patil appointed West Bengal's acting Governor"The Economic Times। ৩ জুলাই ২০১৪। 
  42. "Senior Advocate Jagdeep Dhankhar Made West Bengal Governor"। ২০ জুলাই ২০১৯। 
  43. Premiers/Chief Ministers of West Bengal. West Bengal Legislative Assembly. Archive link from 12 March 2016.
  44. Saibal Sen. "Post-Independence, a Prime Minister for Bengal!". The Times of India. 15 August 2013. Archived on 16 July 2018.
  45. Origin and Growth of the West Bengal Legislative Assembly. West Bengal Legislative Assembly. Retrieved on 27 July 2018.
    Note: In case of an error, please click the "Origin & Growth" button in the top left of the website.
  46. Brief Information on Previous Assemblies. West Bengal Legislative Assembly. Archive link from 12 March 2016.
  47. List of Chief Ministers of West Bengal. Panchayat & Rural Development Department, Hooghly. Retrieved on 27 July 2018. Archived on 27 July 2018.
  48. Amberish K. Diwanji. "A dummy's guide to President's rule". Rediff.com. 15 March 2005. Archived on 16 August 2017.
  49. Shiv Sahay Singh. "Congress quits Mamata Ministry". The Hindu. 22 September 2012. Archived on 26 July 2018.

আরো পড়ুন সম্পাদনা