প্রধান মেনু খুলুন

শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেতা বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (বাংলাদেশ)

শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেতা বিভাগে বাংলাদেশ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের পার্শ্ব অভিনেতাদের জন্য সর্বাপেক্ষা সম্মানীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার; যা জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের অংশ হিসাবে ১৯৭৫ সাল থেকে প্রতি বছর দেওয়া হয়। প্রথমবার এই পুরস্কার লাভ করেন ফারুক[১] সর্বাধিক চারবার এই পুরস্কার লাভ করেন যৌথভাবে আবুল খায়েররাজিব। তিনবার এই পুরস্কার লাভ করেন গোলাম মুস্তাফা, যার মধ্যে ১৯৯০ সালে তিনি তার এই পুরস্কার প্রত্যাখ্যান করেন। দুইবার করে এই পুরস্কার লাভ করেন আনোয়ার হোসেন, আলমগীর, রাইসুল ইসলাম আসাদফজলুর রহমান বাবু

জাতীয় চলচ্চিত্র শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রে অভিনেতা পুরস্কার
পুরস্কার দেওয়া হয়বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে অবদানের জন্য
অবস্থানঢাকা
দেশবাংলাদেশ
পুরস্কার দাতাবাংলাদেশ সরকার
প্রথম পুরস্কার প্রদান১৯৭৬
(১৯৭৫-এর চলচ্চিত্রের জন্য)
শেষ পুরস্কার প্রদান২০১৮
(২০১৬-এর চলচ্চিত্রের জন্য)
বর্তমানে যার দ্বারা গৃহীতআলীরাজফজলুর রহমান বাবু
পুড়ে যায় মনমেয়েটি এখন কোথায় যাবে
প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবাসাইট

বিজয়ী অভিনেতাসম্পাদনা

ফারুক (বামে) লাঠিয়াল (১৯৭৫) এবং খলিল উল্লাহ খান (ডানে) গুন্ডা (১৯৭৬) চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য এই পুরস্কার লাভ করেন।
সাইফুদ্দিন (বামে) সুন্দরী (১৯৭৮) এবং প্রবীর মিত্র (ডানে) বড় ভাল লোক ছিল (১৯৮০) চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য এই পুরস্কার লাভ করেন।
রাজীব (বামে) ১৯৮৮, ১৯৯১, ২০০০ ও ২০০৩ সালে সর্বাধিক চারবার (যৌথভাবে) এবং ইলিয়াস কাঞ্চন (ডানে) শাস্তি (২০০৫) চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য এই পুরস্কার লাভ করেন।
রাইসুল ইসলাম আসাদ (বামে) ঘানি (২০০৬) ও মৃত্তিকা মায়া (২০১৩) এবং আলমগীর (ডানে) জীবন মরনের সাথী (২০১০) ও কে আপন কে পর (২০১১) চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য দুইবার করে এই পুরস্কার লাভ করেন।
এটিএম শামসুজ্জামান (বামে) চোরাবালি (২০১২) এবং এজাজুল ইসলাম (ডানে) তারকাঁটা (২০১১) চলচ্চিত্রে অভিনয় করে এই পুরস্কার লাভ করেন।

১৯৭০-এর দশকসম্পাদনা

বছর বিজয়ী অভিনেতা চলচ্চিত্র ভূমিকা সূত্র
১৯৭৫ ফারুক লাঠিয়াল দুখু মিয়া [১]
১৯৭৬ খলিল উল্লাহ খান গুন্ডা ম্যানেজার [২]
১৯৭৭ শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রে অভিনেতার জন্য পুরস্কার দেওয়া হয়নি
১৯৭৮ আনোয়ার হোসেন গোলাপী এখন ট্রেনে গায়েন
১৯৭৯ সাইফুদ্দিন সুন্দরী মিঠু

১৯৮০-এর দশকসম্পাদনা

বছর বিজয়ী অভিনেতা চলচ্চিত্র ভূমিকা সূত্র
১৯৮০ গোলাম মুস্তাফা এমিলের গোয়েন্দা বাহিনী [২]
১৯৮১ পুরস্কার দেওয়া হয় নি
১৯৮২ প্রবীর মিত্র বড় ভালো লোক ছিল ড্রাইভার
১৯৮৩ আজাদ রহমান শাকিল পুরস্কার [৩]
১৯৮৪ সিরাজুল ইসলাম চন্দ্রনাথ খুড়ো [২]
১৯৮৫ আবুল খায়ের দহন
১৯৮৬ আশীষ কুমার লোহ পরিণীতা
১৯৮৭ আনোয়ার হোসেন
আবুল খায়ের
দায়ী কে?
রাজলক্ষী শ্রীকান্ত
কালু
-
১৯৮৮ রাজিব হীরামতি
১৯৮৯ ব্ল্যাক আনোয়ার ব্যাথার দান

১৯৯০-এর দশকসম্পাদনা

বছর বিজয়ী অভিনেতা চলচ্চিত্র ভূমিকা সূত্র
১৯৯০ গোলাম মুস্তাফা $ ছুটির ফাঁদে পি কে ভট্টাচার্য [২]
১৯৯১ রাজিব দাঙ্গা কালু মিয়া
১৯৯২ মিজু আহমেদ ত্রাস
১৯৯৩ শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রে অভিনেতার জন্য পুরস্কার দেওয়া হয়নি
১৯৯৪ অমল বোস আজকের প্রতিবাদ
১৯৯৫ আবুল খায়ের অন্য জীবন
১৯৯৬ বুলবুল আহমেদ দীপু নাম্বার টু
১৯৯৭ আবুল খায়ের দুখাই ফকির
১৯৯৮ শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রে অভিনেতার জন্য পুরস্কার দেওয়া হয়নি
১৯৯৯ গোলাম মুস্তাফা শ্রাবণ মেঘের দিন জমিদার

২০০০-এর দশকসম্পাদনা

বছর বিজয়ী অভিনেতা চলচ্চিত্র ভূমিকা সূত্র
২০০০ রাজিব বিদ্রোহ চারিদিকে [২]
২০০১ শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রে অভিনেতার জন্য পুরস্কার দেওয়া হয়নি
২০০২ শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রে অভিনেতার জন্য পুরস্কার দেওয়া হয়নি
২০০৩ রাজিব^
সোহেল রানা
সাহসী মানুষ চাই [৪]
২০০৪ ফজলুর রহমান বাবু শঙ্খনাদ [৫]
২০০৫ ইলিয়াস কাঞ্চন শাস্তি দুখী রাম রায়
২০০৬ মাসুম আজিজ
রাইসুল ইসলাম আসাদ
ঘানি শামসু
আফসু
২০০৭ আবুল হায়াত দারুচিনি দ্বীপ সোবহান
২০০৮ শামস সুমন স্বপ্নপূরন [৬]
২০০৯ শহীদুল আলম সাচ্চু বৃত্তের বাইরে [৭]

২০১০-এর দশকসম্পাদনা

বছর বিজয়ী অভিনেতা চলচ্চিত্র ভূমিকা সূত্র
২০১০ আলমগীর জীবন মরনের সাথী আশরাফ চৌধুরী [৮]
২০১১ আলমগীর কে আপন কে পর [৯]
২০১২ এটিএম শামসুজ্জামান চোরাবালি নেতা [১০]
২০১৩ রাইসুল ইসলাম আসাদ মৃত্তিকা মায়া ক্ষীরমোহন [১১][১২]
২০১৪ এজাজুল ইসলাম তারকাঁটা মুসা রাজ [১৩][১৪]
২০১৫ গাজী রাকায়েত অনিল বাগচীর একদিন [১৫]
২০১৬ আলীরাজ
ফজলুর রহমান বাবু
পুড়ে যায় মন
মেয়েটি এখন কোথায় যাবে
[১৬]
  • $ পুরস্কার প্রত্যাখ্যান করেছেন।
  • ^ মরণোত্তর পুরস্কার বিজয়ী।

পুরস্কারের পরিসংখ্যানসম্পাদনা

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "লাঠিয়াল"দৈনিক সমকাল। ২০১২-০৮-১৫। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০১৬ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  2. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রাপ্তদের নামের তালিকা (১৯৭৫-২০১২)"বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশন। সংগ্রহের তারিখ ১৮ অক্টোবর ২০১৫ 
  3. "সুভাষ দত্তর মতো শিশুবান্ধব পরিচালক এখন নেই"নিউজনেক্সটবিডি। ১৬ নভেম্বর ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ২৭ মার্চ ২০১৭ 
  4. কামরুজ্জামান (২০০৯-১০-১৩)। "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার কি আটকে যাচ্ছে?"দৈনিক প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০১৬ 
  5. নাদিয়া সারওয়াত (২৫ অক্টোবর ২০০৮)। "National Film Awards generate enthusiasm"দ্য ডেইলি স্টার। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০১৬ 
  6. মেঘলা রহমান বৃষ্টি (১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১০)। "অভিনয়ে সেরা রিয়াজ ও পপি"দৈনিক কালের কণ্ঠ। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০১৬ 
  7. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০০৯"বাংলানিউজ টোয়েন্টিফোর.কম। ঢাকা, বাংলাদেশ। ২৪ মার্চ ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ১৮ অক্টোবর ২০১৫ 
  8. "সেরা ছবি গহীনে শব্দ, অভিনয়ে সাকিব-পূর্ণিমা"দৈনিক আজাদী। ২২ মার্চ ২০১২। ২০১৬-১১-৩০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ অক্টোবর ২০১৫ 
  9. "Guerrilla bags 10 National Film Awards"বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম। ১৭ মার্চ ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৮ অক্টোবর ২০১৫ 
  10. "'জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১২' ঘোষণা"দৈনিক ইত্তেফাক। ৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১৮ অক্টোবর ২০১৫ 
  11. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-২০১৩"বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশন। সংগ্রহের তারিখ ১৮ অক্টোবর ২০১৫ 
  12. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে 'মৃত্তিকা মায়া'র জয়জয়কার"বিডিনিউজ। ঢাকা, বাংলাদেশ। ১০ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৮ অক্টোবর ২০১৫ 
  13. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-২০১৪"বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশন। সংগ্রহের তারিখ ১৮ অক্টোবর ২০১৫ 
  14. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৪ ঘোষণা"দৈনিক জনকণ্ঠ। ঢাকা, বাংলাদেশ। ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২৬ মার্চ ২০১৬ 
  15. "২০১৫ সালের 'জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার' ঘোষণা"দৈনিক জনকণ্ঠ। ঢাকা, বাংলাদেশ। ১৯ মে ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মে ২০১৭ 
  16. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৬" (PDF)তথ্য মন্ত্রণালয়। বাংলাদেশ সরকার। ৪ এপ্রিল ২০১৮। ৫ এপ্রিল ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ এপ্রিল ২০১৮ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা