প্রধান মেনু খুলুন

৮ম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (বাংলাদেশ)

৮ম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বাংলাদেশের তথ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক চলচ্চিত্রের বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখার জন্য প্রদত্ত ৮ম আয়োজন; যা ১৯৮৩ সালে বাংলাদেশের মুক্তিপ্রাপ্ত চলচ্চিত্র সমূহের জন্য দেওয়া হয়। ১৯৭৫ সাল থেকে প্রতি বছর এটি দেয়া হচ্ছে। সরকার কর্তৃক নিযুক্ত একটি জাতীয় প্যানেল বিজয়ীদের নির্বাচন করে থাকে। ১৯৮৫ সালের ২৩ জানুয়ারি সোনার গাঁও হোটেলে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তৎকালীন মন্ত্রী এ.আর.ইউসুফ পুরস্কার বিতরণ করে। এই বছর ১৯টি শাখার মধ্যে ১০টি শাখায় পুরস্কার প্রদান করা হয়[১]; তবে শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রে অভিনেত্রী সুবর্ণা মুস্তাফা পুরস্কৃত হলেও তিনি তা প্রত্যাখ্যান করেন।[২]

৮ম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার
পুরস্কার দেওয়া হয়১৯৮৩ সালের চলচ্চিত্রশিল্পে গৌরবোজ্জ্বল ও অসাধারণ অবদানের জন্য
পুরস্কার প্রদান করেবাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি
উপস্থাপিততথ্য মন্ত্রণালয়
তারিখ২৩ জানুয়ারি ১৯৮৫
স্থানঢাকা, বাংলাদেশ
অফিসিয়াল ওয়েবসাইটঅফিসিয়াল ওয়েবসাইট
আলোকপাত
শ্রেষ্ঠ পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রপুরস্কার
শ্রেষ্ঠ অভিনেতাসোহেল রানা
লালু ভুলু
শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীশাবানা
নাজমা
সর্বাধিক পুরস্কারপুরস্কার (৫)
 < ৭ম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ৯ম > 

পরিচ্ছেদসমূহ

বিজয়ীদের তালিকাসম্পাদনা

মেধা পুরস্কারসম্পাদনা

পুরস্কারের নাম বিজয়ী চলচ্চিত্র
শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র সত্য সাহা (প্রযোজক) পুরস্কার[৩]
শ্রেষ্ঠ পরিচালক কামাল আহমেদ লালু ভুলু
শ্রেষ্ঠ অভিনেতা সোহেল রানা লালু ভুলু
শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী শাবানা নাজমা
শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রে অভিনেতা শাকিল পুরস্কার
শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রে অভিনেত্রী সুবর্ণা মুস্তাফা নতুন বউ

কারিগরী পুরস্কারসম্পাদনা

পুরস্কারের নাম বিজয়ী চলচ্চিত্র
শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্যকার সৈয়দ শামসুল হক পুরস্কার
শ্রেষ্ঠ সংলাপ রচয়িতা সৈয়দ শামসুল হক পুরস্কার
শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক (সাদা কালো) আনোয়ার হোসেন পুরস্কার
শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক (রঙ্গিন) অরুণ রায় জনি

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রাপ্তদের নামের তালিকা (১৯৭৫-২০১২)"fdc.gov.bdবাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশন। ২৩ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  2. রাশেদ শাওন। "চার দশকে আমাদের সেরা চলচ্চিত্রগুলো"বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম। ২৮ ডিসেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৪, ২০১২ 
  3. ফজলে এলাহী। "সাদাকালোয় সোনালি দিন"বনিক বার্তা। সংগ্রহের তারিখ ২২ জানুয়ারি ২০১৬