প্রধান মেনু খুলুন

৩য় জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (বাংলাদেশ)

বাংলাদেশের চলচ্চিত্র শিল্পের সর্বোচ্চ পুরস্কার

৩য় জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার তথ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক চলচ্চিত্রের বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখার জন্য প্রদত্ত ৩য় আয়োজন; যা ১৯৭৯ সালে দেওয়া হয়। ১৯৭৫ সাল থেকে প্রতি বছর এটি দেয়া হচ্ছে। সরকার কর্তৃক নিযুক্ত একটি জাতীয় প্যানেল বিজয়ীদের নির্বাচন করে থাকে।[১]

৩য় জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার
পুরস্কার দেওয়া হয়১৯৭৭ সালে চলচ্চিত্রশিল্পে গৌরবোজ্জ্বল ও অসাধারণ অবদানের জন্য
পুরস্কার প্রদান করেবাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি
উপস্থাপিততথ্য মন্ত্রণালয়
ঘোষণাজুন ১৭, ১৯৭৮
উপস্থাপনজানুয়ারি ৯, ১৯৭৯ (জানুয়ারি ৯, ১৯৭৯)
স্থানঢাকা, বাংলাদেশ
অফিসিয়াল ওয়েবসাইটঅফিসিয়াল ওয়েবসাইট
আলোকপাত
শ্রেষ্ঠ পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রবসুন্ধরা
শ্রেষ্ঠ অভিনেতাবুলবুল আহমেদ
সীমানা পেরিয়ে
শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীববিতা
বসুন্ধরা
সর্বাধিক পুরস্কারবসুন্ধরা (৫)
 < ২য় জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ৪র্থ > 

পরিচ্ছেদসমূহ

সারাংশসম্পাদনা

প্রখ্যাত সাহিত্যিক আলাউদ্দিন আল আজাদের উপন্যাস ‘তেইশ নম্বর তৈলচিত্র’ অবলম্বনে নির্মিত চলচ্চিত্র ‘বসুন্ধরা’ সর্বোচ্চ ৬টি বিভাগে পুরস্কার লাভ করে। ১৯টি শাখার মধ্যে ১৫টি শাখায় পুরস্কৃতদের নাম ১৯৭৮ সালের ১৭ জুন ঘোষণা করা হয়। বাকী ৪টি শাখায় কেউ পুরস্কার পায়নি। ১৯৭৯ সালের ৯ জানুয়ারি রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান উপ-রাষ্ট্রপতি ভবনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ১৯৭৭ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র বিতরণ করেন। চিত্র নায়িকা শাবানা "জননী" ছবিতে অভিনয়ের জন্য শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী পুরস্কার পেলেও তিনি তা গ্রহণ করেননি। জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের ইতিহাসে তিনিই প্রথম পুরস্কার প্রত্যাখান করেন।

বিজয়ীদের তালিকাসম্পাদনা

এই বছর মোট ১৫টি বিভাগে পুরস্কার প্রদান করা হয়।[২]

মেধা পুরস্কারসম্পাদনা

পুরস্কারের নাম বিজয়ী চলচ্চিত্র
শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র সুভাষ দত্ত (প্রযোজক) বসুন্ধরা
শ্রেষ্ঠ পরিচালক সুভাষ দত্ত বসুন্ধরা
শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বুলবুল আহমেদ সীমানা পেরিয়ে[৩]
শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী ববিতা বসুন্ধরা
পার্শ্বচরিত্রে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী শাবানা জননী
শ্রেষ্ঠ সঙ্গীত পরিচালক আজাদ রহমান যাদুর বাঁশি
শ্রেষ্ঠ নারী সঙ্গীত শিল্পী রুনা লায়লা যাদুর বাঁশি
  • শাবানা তার পার্শ্বচরিত্রে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীর পুরস্কার প্রত্যাখ্যান করেন।

কারিগরী পুরস্কারসম্পাদনা

পুরস্কারের নাম বিজয়ী চলচ্চিত্র
শ্রেষ্ঠ কাহিনীকার আলাউদ্দিন আল আজাদ বসুন্ধরা
শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্যকার আহমদ জামান চৌধুরী যাদুর বাঁশি
শ্রেষ্ঠ সংলাপ রচয়িতা আলমগীর কবির সীমানা পেরিয়ে
শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক (সাদাকালো) রেজা লতিফ অনন্ত প্রেম
শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক (রঙ্গিন) এম এ মবিন সীমানা পেরিয়ে
শ্রেষ্ঠ সম্পাদক বশির হোসেন সীমানা পেরিয়ে
শ্রেষ্ঠ শব্দগ্রাহক মহিউদ্দিন ফারুক বসুন্ধরা

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. রাশেদ শাওন। "চার দশকে আমাদের সেরা চলচ্চিত্রগুলো"বিডিনিউজ। ২৮ ডিসেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৪, ২০১২ 
  2. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রাপ্তদের নামের তালিকা (১৯৭৫-২০১২)"fdc.gov.bdবাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশন। ২৩ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  3. "এক নজরে বুলবুল আহমেদ"যায় যায় দিন। জুলাই ২৫, ২০১৫। 

বহিঃসযোগসম্পাদনা