হিন্দু দেবদেবী

হিন্দুধর্মের উপাস্য দেবতা ও দেবী

হিন্দু উপাস্যগণ বলতে হিন্দুধর্মের দেব-দেবীদেরকে বোঝানো যায়। বৈচিত্রপূ্র্ণ এই ধর্মে উপাস্য বোঝাতে দেব, দেবী, ঈশ্বর, ভগবান, ভগবতী শব্দগুলো ব্যবহার করা যেতে পারে।[১][২]

হিন্দু দেবতাদের উদাহরণ:(উপর থেকে) ব্রহ্মা, সরস্বতী, লক্ষ্মী, বিষ্ণু, শিব, দুর্গা, হরিহর এবং অর্ধনারীশ্বর

হিন্দুদের দেব-দেবীগণ বৈদিক যুগ (খ্রীষ্টপূর্ব দ্বিতীয় শতক) ও মধ্যযুগে (খ্রীষ্টীয় প্রথম শতক) নেপাল ভারত ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় বহু বিবর্তনের মধ্য দিয়ে বর্তমান অবস্থায় পৌঁছেছে।[৩][৪] হিন্দু দেবতা বলতে যোগশাস্ত্রের ইষ্টদেবতা[৫][৬],তেত্রিশ বৈদিক দেবতা[৭] বা শতাধিক পৌরাণিক দেবতাদের কথা বোঝানো যায়[৮]। এদের মধ্যে মুখ্য দেবতারা হলেন বিষ্ণু, শিব, শ্রী বা লক্ষ্মী, পার্বতী বা দুর্গা, ব্রহ্মা, সরস্বতী প্রভৃতি। প্রত্যেক দেবতার আলাদা আলাদা জটিল জটিল চরিত্রাবলী বিদ্যমান হলেও তাদেরকে অনেকসময়ই "ব্রহ্ম " নামে এক নিরাকার পরম সত্তার অংশবিশেষ বলে ধরা হয়।[৯] প্রাচীন কাল থেকেই এই একত্বের ধারণা হিন্দুধর্মের অন্যতম এক বৈশিষ্ট্য,যা ধর্মশাস্ত্র এবং হরিহর[১০](শিববিষ্ণু), অর্ধনারীশ্বর(অর্ধেক শিব অর্ধেক পার্বতী) -এর মতো মূর্তিগুলোর ক্ষেত্রে দেখা যায়।[১১]

মুখ্য দেবতার উপাসকরা হিন্দুধর্মের ভিন্ন শাখাগুলোর জন্ম দিয়েছেন যেমন শৈবমত, বৈষ্ণবমতশাক্তমত। কিন্তু শাখাগুলোর মধ্যে বহু মিলও আবার রয়েছে। 

হিন্দু দেবতাদেরকে বিভিন্ন প্রতীকের দ্বারা চেনানো যেতে পারে, যেমন ছবি বা প্রতিমা। কিছু হিন্দুদর্শন যেমন চার্বাকরা আবার নাস্তিক্যবাদী মনোভাব পোষণ করেছেন এবং দেবতা বা ঈশ্বরের ধারণাকে অস্বীকার করেছেন। আর্য সমাজ বা ব্রাহ্ম সমাজের মতো ঊনবিংশ শতাব্দীর ধর্মমতগুলো একাধিক দেবতার ধারণাকে বাতিল করে নিরাকার একেশ্বর-বিশ্বাসের পথে হেঁটেছেন। জৈনধর্ম বা বহির্ভারতীয় থাইল্যান্ড বা জাপানিজ বৌদ্ধবিশ্বাসে হিন্দু দেবতাদের আপন করে নেওয়া হয়েছে। এখনও এঁদেরকে সেইসব ধর্মীয় মন্দিরে বা শিল্পে দেখানো হয়। 

প্রাচীন ও মধ্যযুগীয় শাস্ত্রে মানবশরীরকে এক মন্দির বলে বর্ণনা করা হয়েছে। বলা হয়েছে যে ভগবান মানবমন্দিরেই বসবাস করেন। একইভাবে ব্রহ্ম বা পরমতম সত্তাকে আত্মা বলে বর্ণনা করা হয়েছে। হিন্দুরা বিশ্বাস করেন যে এই আত্মা শাশ্বত ও প্রাণের অস্তিত্বের কারণ।

ব্যুৎপত্তিসম্পাদনা

যাস্কের মতে ‘দীপ্’ ধাতু হতে দেব শব্দ এসেছে যা প্রকাশার্থক, অথবা যিনি দ্যুস্থানে বা আকাশে থাকেন তিনিই দেব, অথবা যিনি যজ্ঞফল দান করেন তিনিই দেব।[১২] দেবের স্ত্রীলিঙ্গ হল দেবী। হিন্দুধর্মে দেবতা বলতে উপাস্য বোঝানো হয়।[১৩][১৪][১৫]

দেবতাদের বৈশিষ্ট্যসম্পাদনা

বৈদিক যুগেসম্পাদনা

সময়ের সাথে বৈদিক যুগের দেবতাদের বৈশিষ্ট্যের পরিবর্তন হয়েছে। (বামে) রুদ্র বৈদিক সাহিত্যে উপস্থাপিত হয়েছেন, শিব-রুদ্র ২য় শতাব্দীর ভাস্কর্য হিসেবে (মাঝখানে) এবং ১৩ শতকের শিল্পকর্মে (ডানদিকে) শিব হিসেবে দেখানো হয়েছে। কিছু প্রতীকী উপাদান পরিবর্তিত হয়েছে, যেমন ত্রিশূল, কুড়াল ধরে রেখেছে।[১৬][১৭]

বেদে বহুদেবতার উপাসনা দৃষ্ট হয়। এঁদের মধ্যে তেত্রিশ দেবতাকে প্রধান হিসেবে ধরা হয়। এঁরা ১১ জন করে পৃথিবী, অন্তরীক্ষ ও দ্যুলোকের দেবতা।[১৮] অগ্নি, বায়ুসূর্যই দেবতা রূপে ভিন্ন ভিন্ন কর্মে ও বিশেষণে ত্রিলোকে অবস্থান করেন। বৈদিক দেবমণ্ডলীতে দেবঅসুর নামে দুটি শ্রেণীর উল্লেখ পাওয়া যায়। অন্যান্য দেবতারা হলেন বিষ্ণু, রুদ্র (পরবর্তীকালে শিবের সমার্থক), প্রজাপতি (পরবর্তীতে ব্রহ্মা) প্রভৃতি।[১৯] বৈদিক দেবীর সংখ্যাও উল্লেখযোগ্য। এঁদের মধ্যে ঊষা, পৃথিবী, অদিতি, সরস্বতী, সাবিত্রী, বাক, রাত্রি, অরণ্যানী ইত্যাদি ঋগ্বেদে বর্ণিত।[২০] শ্রী বা লক্ষ্মীও পরবর্তী বৈদিক সাহিত্যে আছেন।[২১] প্রত্যেক দেবতা এক একটি করে বিশেষ জ্ঞান বা প্রাকৃতিক শক্তির প্রকাশক।[২২][২৩] বেদ হল বিভিন্ন দেবতার স্তোত্রের একটি সংকলন। এই দেবতাদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি উল্লেখিত দেবতারা হলেন ইন্দ্র, অগ্নি এবং সোম।[২৪] অগ্নিদেবকে সমগ্র মানবজাতির মিত্র বলে উল্লেখ করা হয়েছে। জলদেবতা বরুণবিশ্বদেব নামে এক দেবমণ্ডলীও প্রধান ছিলেন।[২৫]

মধ্যযুগেসম্পাদনা

মহাকাব্য ও মধ্যযুগীয় পুরাণগুলোর একটি অনন্য বৈশিষ্ট্য হল যে হিন্দু দেবতাদের সঙ্গে নানারকম রূপক উপাখ্যান সংযুক্ত করা।[২৬][২৭][২৮] বৈদিক যুগে দেব উপাসনা ছিল যাগযজ্ঞ কেন্দ্রিক, তবে প্রতিমা পূজার প্রচলন হয় আরও পরে। এমন কি রামায়ন ও মহাভারত হতেও প্রতিমা পূজা প্রচলন সম্পর্কে জানা যায় না। অনুমান করা হয়, গুপ্তযুগে পুরাণ রচিত হলে এর প্রচলন শুরু হয়। এই পৌরাণিক যুগে দেবতাদের বৈশিষ্টে বিবর্তন দেখা যায়। ইন্দ্র, অগ্নির প্রাধান্য হ্রাস পেয়ে অপ্রধান দেবতা যেমন বিষ্ণু, শিব প্রভৃতির প্রাধান্য বৃদ্ধি পায়। এ সময় দেবতারা মানবিকরূপ গ্রহণ করে এবং মানবিকভাবে পূজিত হন।

পুরাণে পুরুষ দেবতার মধ্যে ব্রহ্মা, বিষ্ণু ও শিব হচ্ছেন প্রধান। এঁদের একত্রে বলা হয় ত্রিদেব। এছাড়াও আছেন গণেশ, কার্তিকেয়, যম, অগ্নি, সূর্য, চন্দ্র সহ আরও বহু দেবতা। নারী দেবতার মাঝে আছেন দূর্গা বা পার্বতী। কালী, জগদ্ধাত্রী, অন্নপূর্ণা প্রভৃতি দেবী শক্তিদেবতা রূপে পূজিত হন। কিছু লৌকিক দেবতাও পুরাণে দেখা যায়, যেমন শীতলা, মনসা, ষষ্ঠী প্রভৃতি।

দেব-অসুরসম্পাদনা

আদি বৈদিক ধারণায় সমস্ত অমানবীয়রাই অসুর।[২৯][৩০] বৈদিক যুগের শেষের দিকে ভালো অতিমানবীয় ব্যক্তিত্বদের দেবাসুর নামে অভিহিত করা হয়। যাস্কের মতে এই সুর (দেবতা) এবং অসুর উভয়ই প্রজাপতির সন্তান।[৩১] দেব এবং অসুর মূলত একই বস্তু এবং এদের উৎসও এক। অসু অর্থ প্রাণ। প্রজাপতির প্রাণ হতে জন্মেছে বলে তাদের অসুর বলা হয়। ঋগ্বেদে অসুর শব্দটি দেবতাদের সমার্থক। ইন্দ্র, বরুণ, রুদ্র, মরুৎ প্রভৃতি দেবগণ অসুর সংজ্ঞা লাভ করেছিলেন। যেমন বেদে অগ্নির উদ্দেশ্যে বলা হয়েছে, “হে অগ্নি, তুমিই রুদ্র, মহান অসুর”[৩২] বেদোত্তর যুগের শাস্ত্রে, যেমন পুরাণেইতিহাসে দেবতারা সাধু ও অসুররা দুর্বৃত্ত।[৩][৪] কিছু মধ্যযুগীয় ভারতীয় সাহিত্যে দেবতাদের সুর বলেও বর্ণনা করা হয়েছে এবং তাদের মতই শক্তিশালী কিন্তু দুষ্ট অসুরদের কথা বলা হয়েছে।

শ্রীমদ্ভাগবতগীতার মতে জীবজগতের সকল প্রাণীর মধ্যেই সাত্ত্বিক প্রবৃত্তি ও আসুরিক প্রবৃত্তি বিদ্যমান।[৪][৩৩] গীতার ষোড়শ পরিচ্ছেদে বলা হয়েছে যে সম্পূর্ণ সাত্ত্বিক ও সম্পূর্ণ তামসিক এই দুই চরিত্রই বিরল। অধিকাংশ মানুষই আসলে বহু গুণাদোষের সন্নিবেশ।.[৪] জিনি ফাউলারের মতে কামনা বাসনা লোভ আবেগকে গীতায় সাধারণ জীবনের অঙ্গ বলেই ধরা হয়েছে। কিন্তু যখন তারা কাম ক্রোধ হিংসা মাৎসর্য ইত্যাদি ধ্বংসাত্মক প্রবৃত্তিতে বদলে যায় তখন সাধারণ মানবিক প্রবৃত্তিগুলোর আসুরিকতায় উত্তরণ ঘটে।[৪][৩৩] 

 
ইন্দ্র একজন বৈদিক যুগের দেবতা। উপরে থাইল্যান্ডের একটি সীলমোহরের অংশ ইন্দ্র।

অন্যান্য টীকাকারেরা যেমন আদি-শঙ্কর এই মত পোষণ করেন যে, হিন্দু দেবদেবীগণ একাধারে ব্রহ্মাণ্ড এবং মানবদেহ এ দুয়েই অবস্থান করেন। তাদের মতে সূর্য দৃষ্টিশক্তি, বায়ু নাসিকা, প্রজাপতি উপস্থে, লোকপালগণ কর্ণে ও চন্দ্র মনে অবস্থান করেন। বরুণ নিশ্বাসে, মিত্র প্রশ্বাসে, ইন্দ্রদেব বাহুদ্বয়ে ও বৃহস্পতি বাকে অবস্থান করেন। বিষ্ণু পদদ্বয়ে ও মায়া হাস্যে অবস্থান করেন।

দেব-দেবীর উদাহরণসম্পাদনা

হিন্দুধর্মের মুখ্য দেবতাদের নিয়ে পুরাণ, আগমের মতো বহু সাহিত্য রচিত হয়েছে। অনেক পুরাণ মুখ্য দেবতাদের নামানুসারে নামাঙ্কিত, যেমন বিষ্ণুপুরাণ, শিবপুরাণ ও দেবী-মাহাত্ম্য।[২৬] বিষ্ণু এবং তার অবতারেরা বৈষ্ণব-সাহিত্যের মূল বিষয়। ঠিক তেমনই শৈব- সাহিত্যে মহাদেব এবং শাক্তদের ক্ষেত্রে দেবী মুখ্য। স্মার্তদের মতো কেউ কেউ পরম ব্রহ্মের বিভিন্ন অংশ হিসাবে মুখ্য দেবতাদের উপাসনা করেছেন।[৩৪][৩৫][৩৬] 

লরেন্স বলেছেন যে এই ধর্মশাখাগুলো শুধুমাত্র তাদের দেবতাকেই একমাত্র পরম সত্য বলে প্রচার করেনি।[৩৪] জুলিয়াস লিপনার দেখিয়েছেন যে এই বহুবাদিতা, যেখানে অন্য শাখার মুখ্য দেবতাকেও যথেষ্ট সম্মান জানানো হয়, হিন্দুধর্মের এক প্রধান বৈশিষ্ট্য।.[৩৭] 

তেত্রিশ দেবতাসম্পাদনা

বেদে দেবতাগণ তিন শ্রেণীতে বিভক্ত রয়েছে, যথা “মর্ত্যবাসী অগ্নি, শূণ্যবাসী বায়ু ও আকাশবাসী সূর্য"। বেদের প্রাচীনতম অংশ সংহিতায় "তেত্রিশ দেব"-এর কথা বলা রয়েছে, ত্রিলোকের একাদশ দেবতা বা দ্বাদশ আদিত্য(সূর্যের ১২টি বিশেষণ), একাদশ রুদ্র(বায়ুর ১১টি বিশেষণ), অষ্টবসু(অগ্নির ৮টি বিশেষণ) এবং বেদের ব্রাহ্মণ অংশে অশ্বিনীকুমারদ্বয়[৩৮][৩৯][৪০] পরবর্তি কালে এই তেত্রিশ দেবতা তেত্রিশ কোটি দেবতা নামে লোকমুখে প্রচলিত হয়। এই তেত্রিশ দেবতা ছাড়াও আরও অনেক দেবতার কথা বেদপুরাণে উল্লেখ পাওয়া যায়।

তেত্রিশ দেবতার তালিকা
দ্বাদশ আদিত্য একাদশ রুদ্র অষ্টবসু দুই অশ্বিন
  • প্রাণ (নিঃশ্বাস)
  • অপান (প্রশ্বাস)
  • ব্যান
  • সমান
  • উদান
  • নাগ
  • কূর্ম
  • কৃকল
  • দেবদত্ত
  • ধনঞ্জয়
  • আত্মা


  • নাসত্য
  • দস্র

ত্রিমূর্তিত্রিদেবীসম্পাদনা

 
সহধর্মিণীদের সাথে ব্রহ্মা, বিষ্ণু ও শিব।

ত্রিনাথের ধারণা হিন্দু সাহিত্যে বেশ কিছুটা পরের দিকেই এসছে। আনুমানিক প্রথম খ্রীষ্টপূর্বাব্দ শতকে এর আত্মপ্রকাশ।[৪১] ত্রিনাথের ধারণা এই যে ব্রহ্মা বিষ্ণু ও মহেশ্বর এই তিন দেবতা সৃষ্টির তিন কর্মে নিয়োজিত থাকেন। ব্রহ্মা জগৎ সৃষ্টি করেন,বিষ্ণু তা পালন করেন ও মহেশ্বর সৃষ্টির বিনাশ সাধন করেন। তবে এই তিন জন হিন্দু সাহিত্যের একমাত্র ত্রিনাথ নন।[৪২] ত্রিদেবী হিসাবে লক্ষ্মী, সরস্বতীদুর্গারও উল্লেখ আছে দেবী-মাহাত্ম্য গ্রন্থে। শাক্তগণ কেউ কেউ আবার এও বিশ্বাস করে থাকেন যে দেবীই হলেন পরম ব্রহ্ম এবং তারই শক্তি ব্রহ্মা-বিষ্ণু-মহেশ্বর-কে পরিচালিত করে। [৪১] প্রাচীন বৈদিক শাস্ত্রে উল্লেখিত অন্য ত্রিনাথ হলেন সূর্য (স্রষ্টা), বায়ু (পালক) ও অগ্নি (প্রলয়কারী); প্রাণ (স্রষ্টা), খাদ্য (পালক) এবং কাল (প্রলয়কারী) যা পরবর্তী সাহিত্যে ত্রিমূর্তির রূপ নেয়।[৪১] বিভিন্ন সময়ে তিন দেবতাদেরকে ত্রিস্তর না বানিয়েই একত্রিত করা হয়েছে, আবার কখনও তাদেরকে এক সচ্চিদান্দ পরম ব্রহ্মেরই অংশবিশেষ বলে বর্ণনা করা হয়েছে।[৪১]

পুরাণে ধারণাটি এভাবে বর্ণিত হয়েছে:

স্রষ্টা নিজেকেই সৃষ্টি করেন, বিষ্ণু নিজেই পাল্য এবং পালক, হরি স্বয়ং প্রলয়কালে নিজেকে উপসংহৃত করেন এবং সংহারও করেন। হরি স্বয়ং ব্রহ্মা হয়ে জগৎ সৃষ্টি করেছেন, বিষ্ণুরূপে জগৎ পালন করেন এবং রূদ্ররূপে কল্পান্তে প্রভু জগৎ সংহার করেন।

— গরুড় পুরাণ, ৪।১১,১২

আধুনিক ত্রিদেবের ধারণা মৈত্রেনীয় উপনিষদে প্রথম বর্ণিত হয়। এই ধারণাই বর্তমান কাল পর্যন্ত চলে আসছে। এই ত্রিদেবকে তিন গুণের দ্বারা বর্ণনা করা হয়ে থাকে। প্রকৃতি ও জীব প্রত্যেকেই সত্ত্ব, রজঃতমঃ এই তিন গুণের সমাহারে গঠিত। এই ত্রিগুণের সঠিক অনুপাতই ব্যক্তি ও পৃথিবীকে সচল রাখে।[৪৩] মধ্যযুগীয় পুরাণে আচার থেকে আধ্যাত্মিক বিভিন্ন ব্যাপারেই ত্রিমূর্তির উল্লেখ আছে। তবে বেলির মতে পৌরাণিক কাহিনী হিন্দু ঐতিহ্যে প্রধান নয়, বরং তার আধ্যাত্মিক বার্তাটিই বড় কথা।

হিন্দু দেবতাদের অবতারসম্পাদনা

 
বিষ্ণুর দশ অবতার: মৎস্য, কুর্ম, বরাহ, বামন, কৃষ্ণ, কল্কি, বুদ্ধ, পরশুরাম, রাম এবং নরসিংহ, (মাঝে) রাধা ও কৃষ্ণ (ঘড়ির কাঁটার দিকে, উপরে বাম থেকে)। বর্তমানে Victoria and Albert Museum-এ সংরক্ষিত চিত্রকর্ম।

হিন্দু দেবতাদের অবতারের ধারণাটি বহু প্রাচীন। দেবতারা যখন দেহ ধারণ করে পৃথিবীতে আবির্ভূত হন, তখন তাদের অবতার বলা হয়।[৪৪][৪৫] অবতারের অর্থ দেবতাগণ পৃথিবীতে দেহ ধারণ করে অবতরণ হওয়া।[৪৬][৪৭]

অবতারের ধারণাটি বৈষ্ণব সম্প্রদায়ে সবচেয়ে পরিপুষ্ট।[৪৮][৪৯] পুরাণে বিষ্ণুর বহু অবতারের কথা বলা আছে। সমুদ্রমন্থনের সময় তিনি মোহিনী রূপ ধারণ করে দেবাসুরের বিবাদ মেটান। বিষ্ণুর দশাবতাররা হলেন মৎস্য, কূর্ম, বরাহ, নৃসিংহ, বামন, পরশুরাম, রাম, কৃষ্ণ, বুদ্ধ এবং কল্কি[৪৯] ভগবদ্গীতায় বলা আছে যে, যখনই ধর্মের পতন ঘটবে, তখন সাধুদিগের পরিত্রাণ ও অধর্মাচারীর বিনাশের উদ্দেশ্যে ভগবান বিষ্ণু স্বয়ং দেহধারণ করে পৃথিবীতে আবির্ভূত হবেন।[৪৫]

শাক্তধারাতেও দেবীর বিভিন্ন রূপে প্রকাশ হবার কথা বলা আছে।[৫০] দেবী মহামায়ার বিভিন্ন রূপ হল দুর্গা কালীজগদ্ধাত্রী। এঁদেরকে পূর্ব ভারতে বেশি করে পূজা করা হয়। তন্ত্রে এঁদের বিশেষ স্থান রয়েছে।[৫১][৫২][৫৩] শৈবসাহিত্যে শিবের একবিংশ অবতারের কথা বলা থাকলেও শৈবধারা অবতারদের চেয়ে স্বয়ং শিবকেই বেশি প্রাধান্য দেয়।[৪৪]

প্রধান প্রাদেশিক ও সর্বভারতীয় হিন্দু দেবতা সমূহসম্পাদনা

নাম যে দেবতার অবতার বা রূপ এলাকা মূর্তি বা ছবি প্রাচীনতম শিল্পমুদ্রণ
বিষ্ণু রাম, কৃষ্ণ,
নারায়ন, বিঠভা, জগন্নাথদেব
বরাহ
Naraenten (那羅延天, জাপান)
সর্বভারতীয়,নেপাল    
খ্রিস্টপূর্ব দ্বিতীয় শতক
শিব মহাদেব, পশুপতি,
ত্রিপুরান্তক,
দক্ষিণমূর্তি, অচলনাথ
Fudō Myōō (জাপান)[৫৪][৫৫]
সর্বভারতীয়,নেপাল    
খিস্টপূর্ব ১ম শতক[৫৬]
ব্রহ্মা Bonten (Japan)[৫৭]
Phra Phrom (থাইল্যান্ড)
সর্বভারতীয়, নেপাল    
৬ষ্ঠ শতক
গণেশ গণপতি, বিনায়ক
(শিব পার্বতীর সন্তান)
Kangiten (জাপান)
সর্বভারতীয়, নেপাল    
সপ্তম শতক
কার্তিকেয় স্কন্দ , মুরুগান
(শিব পার্বতীর সন্তান)
সর্বভারতীয়    অষ্টম শতক
পার্বতী উমা, দেবী,গৌরী,
দুর্গা,কালী
Umahi (烏摩妃, জাপান)
দেবী শ্রী (ইন্দোনেশিয়া)[৫৮]
সর্বভারতীয়,নেপাল    
পঞ্চম শতক
লক্ষ্মী শ্রী,সীতা,রাধা
Kisshōten (জাপান)
Nang Kwak (থাইল্যান্ড)[৫৯]
সর্বভারতীয়, নেপাল    
খিস্টপূর্ব ১ম শতক
সরস্বতী Benzaiten (Japan),
Biàncáitiān (চীন),
Thurathadi (মায়ানমার),
Suratsawadi (থাইল্যান্ড)[৬০]
সর্বভারতীয়,নেপাল, জাভা, বালী    
একাদশ শতক
দুর্গা পার্বতী, কালী
বেতারি দুর্গা (ইন্দোনেশিয়া)[৬১]
সর্বভারতীয়, নেপাল    
অষ্টম শতক
কালী দুর্গা, পার্বতী সর্বভারতীয়, নেপাল    
বারো শতক
মারীয়াম্মান দুর্গা, পার্বতী দক্ষিণ ভারত,
দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া
 
হরিহর অর্ধেক বিষ্ণু অর্ধেক শিব সর্বভারতীয়    
ষষ্ট শতক
অর্ধনারীশ্বর অর্ধেক শিব অর্ধেক পার্বতী সর্বভারতীয়, নেপাল    
প্রথম শতক

বহু দেবতার একত্ব সম্পর্কে ধারণাসম্পাদনা

পাশ্চাত্যের অনেক পণ্ডিতের মতে, বৈদিক সাহিত্যে উপাস্য সমস্ত দেবতারা পৃথক প্রাকৃতিক শক্তির প্রতীক। পরবর্তী শাস্ত্রে (আনুমানিক ৫০০ খ্রীষ্টপূর্বাব্দ—২০০ খ্রীষ্টাব্দ) বিশেষ করে প্রথম দিকের মধ্যযুগীয় শাস্ত্রে তারা এক নিরাকার পরম ব্রহ্মের বিভিন্ন রূপ হিসেবে বর্ণিত।[৬২][৬৩] কিন্তু অনেক পণ্ডিত ভিন্নমত পোষণ করে বলেন, প্রত্যেকটি প্রাকৃতিক বস্তুর মাঝে প্রাচীন ঋষিগণ এক অদৃশ্য শক্তির অনুভব করেছিলেন সহস্ত্র বছর পূর্বেই, যা বহু দেবতার মাঝে একত্ববাদের মূল দর্শন।[৬৪]

ঋগ্বেদের প্রথম মণ্ডলেরই একটি ঋকে পাওয়া যায়,

ইন্দ্রং মিত্রং বরুণমগ্নিমাহুরথো দিব্যঃ সুপর্ণো গরুত্মান্।
একং সদ্বিপ্রা বহুধা বদন্ত্যগ্নিং যমং মাতরিশ্বানমাহুঃ।।

— ঋগ্বেদ, ১ম মণ্ডল। সুক্ত ১৬৪। মন্ত্র ৪৬

অনুবাদঃ এক সৎ বস্তুকেই ইন্দ্র, মিত্র, বরুণ, অগ্নি পক্ষযুক্ত সুপর্ণ (পক্ষী,-সূর্য) অগ্নি, যম, মাতরিশ্বা প্রভৃতি বহুনামে বিপ্রগণ অভিহিত করে থাকেন।।

বৈদিক দেবতা কেবল প্রাকৃতিক শক্তির দেবতাজ্ঞানে উপাসনা নয়, বরং তেজরূপি এক প্রাণশক্তির ভিন্ন ভিন্ন প্রকাশ, যা দেব-উপাসনার মূল তত্ত্ব।[৬৫][৩৪] যেমন, তেত্রিশ কোটি দেবতা বলতে তেত্রিশ প্রকার গুণ সম্পন্ন বৈদিক দেবতাকে বুঝানো হয়।[৬৬][৬৭] আবার পুরাণে ত্রিদেবের সত্ত্বাকে এক হিসেবে দেখা যায়। এরা যেন এক ঈশ্বরের বিভিন্ন গুণের প্রকাশক বা রূপভেদ।

ব্রহ্মের ধারণা আব্রাহামীয় ঈশ্বরের সঙ্গে সম্পূর্ণ এক নয়। ব্রড বলেন যে আব্রাহামীয় ধর্মে “স্রষ্টা, জীব- অস্তিত্বের থেকে একটি পৃথক সত্ত্বা”। কিন্তু হিন্দুমতে ঈশ্বর, ব্রহ্মাণ্ড, মানুষ ও অন্যান্য জীবজগৎ একই সূত্রে গ্রথিত। ঈশ্বর আত্মারূপে সকল জীবের মাঝেই অবস্থান করেন। এই আত্মা শাশ্বত ও পরম সত্তা।[৬৮][৬৯]

আরও দেখুনসম্পাদনা

টিকাসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Radhakrishnan and Moore (1967, Reprinted 1989), A Source Book in Indian Philosophy, Princeton University Press, আইএসবিএন ৯৭৮-০৬৯১০১৯৫৮১, pages 37-39, 401-403, 498-503
  2. Mircea Eliade (2009), Yoga: Immortality and Freedom, Princeton University Press, আইএসবিএন ৯৭৮-০৬৯১১৪২০৩৬, pages 73-76
  3. Nicholas Gier (2000), Spiritual Titanism: Indian, Chinese, and Western Perspectives, State University of New York Press, আইএসবিএন ৯৭৮-০৭৯১৪৪৫২৮০, pages 59-76
  4. Jeaneane D Fowler (2012), The Bhagavad Gita, Sussex Academic Press, আইএসবিএন ৯৭৮-১৮৪৫১৯৩৪৬১, pages 253-262
  5. Renou 1964, পৃ. 55
  6. Mike Burley (2012), Classical Samkhya and Yoga - An Indian Metaphysics of Experience, Routledge, আইএসবিএন ৯৭৮-০৪১৫৬৪৮৮৭৫, page 39-41;
    Lloyd Pflueger, Person Purity and Power in Yogasutra, in Theory and Practice of Yoga (Editor: Knut Jacobsen), Motilal Banarsidass, আইএসবিএন ৯৭৮-৮১২০৮৩২৩২৯, pages 38-39;
    Kovoor T. Behanan (2002), Yoga: Its Scientific Basis, Dover, আইএসবিএন ৯৭৮-০৪৮৬৪১৭৯২৯, pages 56-58
  7. George Williams (2008), A Handbook of Hindu Mythology, Oxford University Press, আইএসবিএন ৯৭৮-০১৯৫৩৩২৬১২, pages 90, 112
  8. Sanjukta Gupta (2013), Lakṣmī Tantra: A Pāñcarātra Text, Motilal Banarsidass, আইএসবিএন ৯৭৮-৮১২০৮১৭৩৫৭, page 166
  9. Knut Jacobsen (2008), Theory and Practice of Yoga : 'Essays in Honour of Gerald James Larson, Motilal Banarsidass, আইএসবিএন ৯৭৮-৮১২০৮৩২৩২৯, pages 77-78
  10. David Leeming (2001), A Dictionary of Asian Mythology, Oxford University Press, আইএসবিএন ৯৭৮-০১৯৫১২০৫৩০, page 67
  11. Ellen Goldberg (2002), The Lord who is half woman: Ardhanārīśvara in Indian and feminist perspective, State University of New York Press, আইএসবিএন ০-৭৯১৪৫৩২৫১, pages 1-4
  12. যাস্ক নিরুক্ত ৭।১৫।৪
  13. Monier Monier-Williams, A Sanskrit-English Dictionary" Etymologically and Philologically Arranged to cognate Indo-European Languages, Motilal Banarsidass, page 496
  14. John Stratton Hawley and Donna Marie Wulff (1998), Devi: Goddesses of India, Motilal Banarsidass, আইএসবিএন ৯৭৮-৮১২০৮১৪৯১২, page 2
  15. William K Mahony (1997), The Artful Universe: An Introduction to the Vedic Religious Imagination, State University of New York Press, আইএসবিএন ৯৭৮-০৭৯১৪৩৫৮০৯, page 18
  16. Stella Kramrisch (1994), The Presence of Siva, Princeton University Press, আইএসবিএন ৯৭৮-০৬৯১০১৯৩০৭, pages 338-339
  17. M Chakravarti (1995), The concept of Rudra-Śiva through the ages, Motilal Banarsidass, আইএসবিএন ৯৭৮-৮১২০৮০০৫৩৩, pages 59-65
  18. Singhal, K. C; Gupta, Roshan. The Ancient History of India, Vedic Period: A New Interpretation. Atlantic Publishers and Distributors. আইএসবিএন ৮১২৬৯০২৮৬৮. P. 150.
  19. Hajime Nakamura (1998), A Comparative History of Ideas, Motilal Banarsidass, আইএসবিএন ৯৭৮-৮১২০৮১০০৪৪, pages 26-33
  20. David Kinsley (2005), Hindu Goddesses: Vision of the Divine Feminine in the Hindu Religious Traditions, University of California Press, আইএসবিএন ৯৭৮-৮১২০৮০৩৯৪৭, pages 6-17, 55-64
  21. David Kinsley (2005), Hindu Goddesses: Vision of the Divine Feminine in the Hindu Religious Traditions, University of California Press, আইএসবিএন ৯৭৮-৮১২০৮০৩৯৪৭, pages 18, 19
  22. George Williams (2008), A Handbook of Hindu Mythology, Oxford University Press, আইএসবিএন ৯৭৮-০১৯৫৩৩২৬১২, pages 24-33
  23. Bina Gupta (2011), An Introduction to Indian Philosophy, Routledge, আইএসবিএন ৯৭৮-০৪১৫৮০০০৩৭, pages 21-25
  24. "Botany of Haoma", from Encyclopædia Iranica. Accessed 15 June 2012
  25. Renou, Louis. L'Inde Classique, vol. 1, p. 328, Librairie d'Ameriqe et d'Orient. Paris 1947, reprinted 1985. আইএসবিএন ২-৭২০০-১০৩৫-৯.
  26. Ludo Rocher (1986), The Puranas, Otto Harrassowitz Verlag, আইএসবিএন ৯৭৮-৩৪৪৭০২৫২২৫, pages 1-5, 12-21
  27. Greg Bailey (2001), Encyclopedia of Asian Philosophy (Editor: Oliver Leaman), Routledge, আইএসবিএন ৯৭৮-০৪১৫১৭২৮১৩, pages 437-439
  28. Gregory Bailey (2003), The Study of Hinduism (Editor: Arvind Sharma), The University of South Carolina Press, আইএসবিএন ৯৭৮-১৫৭০০৩৪৪৯৭, page 139
  29. Wash Edward Hale (1999), Ásura in Early Vedic Religion, Motilal Barnarsidass, আইএসবিএন ৯৭৮-৮১২০৮০০৬১৮, pages 5-11, 22, 99-102
  30. Monier Monier-Williams, A Sanskrit-English Dictionary" Etymologically and Philologically Arranged to cognate Indo-European Languages, Motilal Banarsidass, page 121
  31. যাস্ক নিরুক্ত
  32. ঋগ্বেদ ২।১।৬
  33. Christopher K Chapple (2010), The Bhagavad Gita: Twenty-fifth–Anniversary Edition, State University of New York Press, আইএসবিএন ৯৭৮-১৪৩৮৪২৮৪২০, pages 610-629
  34. David Lawrence (2012), The Routledge Companion to Theism (Editors: Charles Taliaferro, Victoria S. Harrison and Stewart Goetz), Routledge, আইএসবিএন ৯৭৮-০৪১৫৮৮১৬৪৭, pages 78-79
  35. Guy Beck (2005), Alternative Krishnas: Regional and Vernacular Variations on a Hindu Deity, SUNY Press, আইএসবিএন ৯৭৮-০৭৯১৪৬৪১৫১, pages 1-2
  36. Editors of Hinduism Today, Editors of Hinduism Today। "What is Hinduism?"Himalayan Academy Publications। সংগ্রহের তারিখ ১৬ অক্টোবর ২০১১ 
  37. Andrew J Nicholson (2013), Unifying Hinduism: Philosophy and Identity in Indian Intellectual History, Columbia University Press, আইএসবিএন ৯৭৮-০২৩১১৪৯৮৭৭, pages 167-168
  38. ঋগ্বেদ, মণ্ডল ১, সুক্ত ৩৪, মন্ত্র ১১ ; ভাষ্যকার ধর্মদেব বিদ্যামার্তণ্ড। http://www.onlineved.com
  39. George Williams (2008), A Handbook of Hindu Mythology, Oxford University Press, আইএসবিএন ৯৭৮-০১৯৫৩৩২৬১২, pages 90, 112
  40. মনির-উইলিয়াম, A Sanskrit-English Dictionary" পৃষ্ঠা ৪৯২
  41. Jan Gonda (1969), The Hindu Trinity, Anthropos, 63/64, 1/2, pages 212-226
  42. GM Bailey (1979), Trifunctional Elements in the Mythology of the Hindu Trimūrti, Numen, Vol. 26, Fasc. 2, pages 152-163
  43. James G. Lochtefeld, Guna, in The Illustrated Encyclopedia of Hinduism: A-M, Vol. 1, Rosen Publishing, আইএসবিএন ৯৭৮০৮২৩৯৩১৭৯৮, page 265
  44. James Lochtefeld (2002), The Illustrated Encyclopedia of Hinduism: A-M, The Rosen Publishing Group, আইএসবিএন ৯৭৮-০-৮২৩৯-৩১৮০-৪, pages 72-73
  45. Sheth, Noel (জানু ২০০২)। "Hindu Avatāra and Christian Incarnation: A Comparison"। Philosophy East and West। University of Hawai'i Press। 52 (1 (Jan. 2002)): 98–125। জেস্টোর 1400135ডিওআই:10.1353/pew.2002.0005 
  46. Matchett, Freda (২০০১)। Krishna, Lord or Avatara?: the relationship between Krishna and Vishnu। 9780700712816। পৃষ্ঠা 4। আইএসবিএন 978-0-7007-1281-6 
  47. Christopher Hugh Partridge, Introduction to World Religions, pg. 148
  48. Kinsley, David (২০০৫)। Lindsay Jones, সম্পাদক। Gale's Encyclopedia of Religion2 (Second সংস্করণ)। Thomson Gale। পৃষ্ঠা 707–708। আইএসবিএন 0-02-865735-7 
  49. Bryant, Edwin Francis (২০০৭)। Krishna: A Sourcebook। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 18। আইএসবিএন 978-0-19-514891-6 
  50. Hawley, John Stratton; Vasudha Narayanan (২০০৬)। The life of Hinduism। University of California Press। পৃষ্ঠা 174। আইএসবিএন 978-0-520-24914-1 
  51. David Kinsley (1988), Hindu Goddesses: Vision of the Divine Feminine in the Hindu Religious Traditions, University of California Press, আইএসবিএন ০-৫২০০৬৩৩৯২, pages 45-48, 96-97
  52. Sally Kempton (2013), Awakening Shakti: The Transformative Power of the Goddesses of Yoga, আইএসবিএন ৯৭৮-১৬০৪০৭৮৯১৬, pages 165-167
  53. Eva Rudy Jansen, The Book of Hindu Imagery: Gods, Manifestations and Their Meaning, Holland: Binkey Kok, আইএসবিএন ৯৭৮-৯০৭৪৫৯৭০৭৪, pages 133-134, 41
  54. Miyeko Murase (1975), Japanese Art: Selections from the Mary and Jackson Burke Collection, The Metropolitan Museum of Art (New York), আইএসবিএন ৯৭৮-০৮৭০৯৯১৩৬৩, page 31
  55. Jiro Takei and Marc P Keane (2001), SAKUTEIKI, Tuttle, আইএসবিএন ৯৭৮-০৮০৪৮৩২৯৪৬, page 101
  56. M Chakravarti (1995), The concept of Rudra-Śiva through the ages, Motilal Banarsidass, আইএসবিএন ৯৭৮-৮১২০৮০০৫৩৩, pages 148-149
  57. Robert Paine and Alexander Soper (1992), The Art and Architecture of Japan, Yale University Press, আইএসবিএন ৯৭৮-০৩০০০৫৩৩৩৩, page 60
  58. Joe Cribb (1999), Magic Coins of Java, Bali and the Malay Peninsula, British Museum Press, আইএসবিএন ৯৭৮-০৭১৪১০৮৮১০, page 77
  59. Jonathan Lee, Fumitaka Matsuoka et al (2015), Asian American Religious Cultures, ABC, আইএসবিএন ৯৭৮-১৫৯৮৮৪৩৩০৯, page 892
  60. Kinsley, David (1988), Hindu Goddesses: Vision of the Divine Feminine in the Hindu Religious Traditions, University of California Press, আইএসবিএন ০-৫২০-০৬৩৩৯-২, pages 94-97
  61. Francine Brinkgreve (1997), Offerings to Durga and Pretiwi in Bali, Asian Folklore Studies Vol. 56, No. 2, pages 227-251
  62. David Kinsley (2005), Hindu Goddesses: Vision of the Divine Feminine in the Hindu Religious Traditions, University of California Press, আইএসবিএন ৯৭৮-৮১২০৮০৩৯৪৭, pages 18, 19
  63. Christopher John Fuller (2004), The Camphor Flame: Popular Hinduism and Society in India, Princeton University Press, আইএসবিএন ৯৭৮-০৬৯১১২০৪৮৫, page 41
  64. হিন্দুদের দেবদেবী, উদ্ভব ও ক্রমবিকাশ (১ম খন্ড)  - ডঃ হংসনারায়ণ ভট্টাচার্য
  65. Lynn Foulston, Stuart Abbott (২০০৯)। Hindu goddesses: beliefs and practices। Sussex Academic Press। পৃষ্ঠা 1–3, 40–41। আইএসবিএন 9781902210438 
  66. George Williams (2008), A Handbook of Hindu Mythology, Oxford University Press, আইএসবিএন ৯৭৮-০১৯৫৩৩২৬১২, pages 90, 112
  67. যজুর্বেদ অধ্যায় ২০, মন্ত্র ১১৩৬ । ধর্মদেব বিদ্যামার্তণ্ড ভাষ্য।
  68. Jeffrey Brodd (2003), World Religions: A Voyage of Discovery, Saint Mary's Press, আইএসবিএন ৯৭৮-০৮৮৪৮৯৭২৫৫, page 43
  69. Christopher John Fuller (2004), The Camphor Flame: Popular Hinduism and Society in India, Princeton University Press, আইএসবিএন ৯৭৮-০৬৯১১২০৪৮৫, pages 30-31, Quote: "Crucial in Hindu polytheism is the relationship between the deities and humanity. Unlike Jewish, Christian and Islamic monotheism, predicated on the otherness of God and either his total separation from man and his singular incarnation, Hinduism postulates no absolute distinction between deities and human beings. The idea that all deities are truly one is, moreover, easily extended to proclaim that all human beings are in reality also forms of one supreme deity - Brahman, the Absolute of philosophical Hinduism. In practice, this abstract monist doctrine rarely belongs to an ordinary Hindu's statements, but examples of permeability between the divine and human can be easily found in popular Hinduism in many unremarkable contexts".

আরোও পড়ুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা