মাহফুজুর রহমান খান

মাহফুজুর রহমান খান (১০ মে ১৯৪৯ – ৬ ডিসেম্বর ২০১৯) ছিলেন একজন বাংলাদেশী চিত্রগ্রাহক। পেশাদার চিত্রগ্রাহক হিসেবে তিনি ১৯৭২ সালে প্রথম চলচ্চিত্রে কাজ করেন। তিনি আলমগীর কবির, আলমগীর কুমকুম, হুমায়ুন আহমেদ, শিবলি সাদিকদের মত চলচ্চিত্র পরিচালকদের সাথে কাজ করেন।

মাহফুজুর রহমান খান
মাহফুজুর রহমান খান.jpeg
জন্ম
মাহ্‌ফুজ-উর-রহমান খান

(১৯৪৯-০৫-১০)১০ মে ১৯৪৯
মৃত্যু৬ ডিসেম্বর ২০১৯(2019-12-06) (বয়স ৭০)
জাতীয়তাবাংলাদেশী
নাগরিকত্ব পাকিস্তান (১৯৭১ সালের পূর্বে)
 বাংলাদেশ
শিক্ষাস্নাতক
পেশাচিত্রগ্রাহক
কার্যকাল১৯৭২-২০১৯
উল্লেখযোগ্য কর্ম
শ্রাবণ মেঘের দিন
ঘেটুপুত্র কমলা
দাম্পত্য সঙ্গীড. নিরাফাত আলম শিপ্রা (১৯৭৮-২০০১) (মৃত্যু)
পিতা-মাতাইরতিজা-উর-রহমান খান (পিতা)
আত্মীয়ই আর খান (চাচা)
এহতেশাম (ফুফাত ভাই)
মুস্তাফিজ (ফুফাত ভাই)
পুরস্কারজাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার
বাচসাস পুরস্কার
মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার

চলচ্চিত্রের চিত্রগ্রহণের জন্য তিনি দশবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার, আটবার বাচসাস পুরস্কার এবং একবার বিশেষ বিভাগে মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার লাভ করেন।[১]

প্রাথমিক জীবনসম্পাদনা

মাহফুজুর রহমান ১৯৪৯ সালের ১০ মে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের (বর্তমান বাংলাদেশ) ঢাকার লালবাগে জন্মগ্রহণ করেন।[১] তার পিতা হাকিম ইরতিজা-উর-রহমান খান ছিলেন একজন ব্যবসায়ী। তার পৈতৃক নিবাস ছিল লালবাগের চকবাজারস্থ হাকিম হাবিবুর রহমান খান রোডে। রোডটির নাম তার দাদা হাকিম হাবিবুর রহমান খান নামানুসারে রাখা হয়েছিল। তার চাচা ই আর খান (ইরতিফা-উর-রহমান খান) ১৯৬০-৮০-এর দশকের বাংলা চলচ্চিত্রের একজন খ্যাতনামা পরিচালক ও প্রযোজক ছিলেন। তাছাড়া প্রখ্যাত চিত্রপরিচালক ভাতৃদ্বয় এহতেশামমুস্তাফিজ ছিলেন তার ফুফাত ভাই।[১]

স্কুলে পড়াকালীন সময় থেকে তিনি চিত্রগ্রহণে আগ্রহী ছিলেন। তার বাবার ক্যামেরা দিয়ে ছবি তুলে তার চিত্রগ্রহণে হাতেখড়ি হয়। চিত্রগ্রহণ শেখার উদ্দেশ্যে তিনি প্রখ্যাত চিত্রপরিচালক জহির রায়হান নির্মাণাধীন লেট দেয়ার বি লাইট-এর সেটে গিয়েছিলেন। এছাড়া রফিকুল বারী চৌধুরীআব্দুল লতিফ বাচ্চুর সেটে গিয়ে চিত্রগ্রহণের বিভিন্ন বিষয় শিখেছেন।[২]

কর্মজীবনসম্পাদনা

মাহফুজুর রহমান আরেক প্রখ্যাত চিত্রগ্রাহক আব্দুল লতিফ বাচ্চুর শিষ্য।[৩] তিনি তার অধীনে সহকারী চিত্রগ্রাহক হিসেবে ১৯৭০ সালে দর্প চূর্ণ ও ১৯৭১ সালে স্বরলিপি চলচ্চিত্রে কাজ করেন। প্রধান চিত্রগ্রাহক হিসেবে তার প্রথম কাজ আবুল বাশার চুন্নু পরিচালিত কাঁচের স্বর্গ (১৯৭২)। এছাড়া একই সময় তিনি আবদুল্লাহ আল মামুন পরিচালিত জল্লাদের দরবার ১৯৭২), আলমগীর কুমকুম পরিচালিত আমার জন্মভূমি (১৯৭৩), মুস্তাফিজ পরিচালিত আলো-ছায়া (১৯৭৪), নুর-উল-আলম পরিচালিত চলো-ঘর-বাঁধি (১৯৭৪), দিলীপ বিশ্বাস পরিচালিত দাবি (১৯৭৪), সিরাজুল ইসলাম ভূঁইয়া পরিচালিত একালের নায়ক (১৯৭৫) চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন।[১] তিনি প্রথম রাজ্জাক পরিচালিত অভিযান চলচ্চিত্রের জন্য শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন। পরে আজহারুল ইসলাম খানের সহযাত্রী ও আখতারুজ্জামানের পোকামাকড়ের ঘরবসতি চলচ্চিত্রের জন্য এই পুরস্কার লাভ করেন। তিনি হুমায়ূন আহমেদ পরিচালিত আটটি চলচ্চিত্রের চিত্রগ্রহণের কাজ করেন[৪] এবং চারটি চলচ্চিত্রের জন্য শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন।[২] চলচ্চিত্রগুলো হল শ্রাবণ মেঘের দিন, দুই দুয়ারী, আমার আছে জলঘেটুপুত্র কমলা। এছাড়া কোহিনূর আক্তার সুচন্দার হাজার বছর ধরে, গোলাম রাব্বানী বিপ্লব পরিচালিত বৃত্তের বাইরে চলচ্চিত্রের জন্য এই পুরস্কার অর্জন করেন।[৩]

ব্যক্তিগত জীবনসম্পাদনা

মাহফুজুর রহমান ১৯৭৮ সালে ড. নিরাফাত আলম শিপ্রাকে বিয়ে করেন। শিপ্রা দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত হয়ে ২০০১ সালের ২৭ আগস্ট মৃত্যুবরণ করেন। দাম্পত্য জীবনে তারা নিঃসন্তান ছিলেন।[১] মাহফুজুর ২০১৯ সালের ৬ নভেম্বর বৃহস্পতিবার ৭০ বছর বয়সে ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন।[৫] এরপূর্বে অসুস্থতার ফলে তাকে ২৫ নভেম্বর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল।[৫]

চলচ্চিত্রের তালিকাসম্পাদনা

বছর চলচ্চিত্র পরিচালক টীকা
১৯৭২ কাঁচের স্বর্গ আবুল বাশার চুন্নু চিত্রগ্রাহক হিসেবে অভিষেক
১৯৭৩ আমার জন্মভূমি আলমগীর কুমকুম
১৯৭৫ চাষীর মেয়ে বাবুল চৌধুরী
১৯৮৩ প্রিন্সেস টিনা খান আখতারুজ্জামান বিজয়ী: বাচসাস পুরস্কার সেরা চিত্রগ্রাহক
১৯৮৪ অভিযান রাজ্জাক বিজয়ী: জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক
মহানায়ক আলমগীর কবির
১৯৮৫ চাঁপা ডাঙ্গার বউ রাজ্জাক বিজয়ী: বাচসাস পুরস্কার সেরা চিত্রগ্রাহক
তিন কন্যা শিবলি সাদিক
১৯৮৬ ঢাকা ৮৬ রাজ্জাক
১৯৮৭ সহযাত্রী আজহারুল ইসলাম খান বিজয়ী: জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক
১৯৮৮ ভেজা চোখ শিবলি সাদিক
১৯৯০ মরণের পরে আজহারুল ইসলাম খানে
১৯৯১ অচেনা শিবলি সাদিক
১৯৯২ অন্ধ বিশ্বাস মতিন রহমান
১৯৯৩ ত্যাগ শিবলি সাদিক
১৯৯৪ অন্তরে অন্তরে শিবলি সাদিক
১৯৯৬ পোকা মাকড়ের ঘর বসতি আখতারুজ্জামান বিজয়ী: জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক
১৯৯৭ আনন্দ অশ্রু শিবলি সাদিক
১৯৯৮ পাহারাদার বিজয়ী: বাচসাস পুরস্কার সেরা চিত্রগ্রাহক
১৯৯৯ শ্রাবণ মেঘের দিন হুমায়ূন আহমেদ বিজয়ী: জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক
বিজয়ী: বাচসাস পুরস্কার সেরা চিত্রগ্রাহক
২০০০ দুই দুয়ারী হুমায়ূন আহমেদ বিজয়ী: জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক
বিজয়ী: প্রযোজক সমিতি পুরস্কার সেরা চিত্রগ্রাহক
২০০১ মেঘলা আকাশ নারগিস আক্তার বিজয়ী: বাচসাস পুরস্কার সেরা চিত্রগ্রাহক
২০০৩ চন্দ্রকথা হুমায়ূন আহমেদ
২০০৪ শঙ্খনাদ আবু সাইয়ীদ
এক খণ্ড জমি শাহজাহান চৌধুরী
২০০৫ হাজার বছর ধরে কোহিনূর আক্তার সুচন্দা বিজয়ী: জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক
বিজয়ী: বাচসাস পুরস্কার সেরা চিত্রগ্রাহক
২০০৬ নন্দিত নরকে বেলাল আহমেদ
২০০৭ স্বপ্নডানায় গোলাম রাব্বানী বিপ্লব
২০০৮ চন্দ্রগ্রহণ মুরাদ পারভেজ বিজয়ী: বাচসাস পুরস্কার সেরা চিত্রগ্রাহক
কি যাদু করিলা চন্দন চৌধুরী
আমার আছে জল হুমায়ূন আহমেদ
২০০৯ বৃত্তের বাইরে গোলাম রাব্বানী বিপ্লব বিজয়ী: জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক
বিজয়ী: বাচসাস পুরস্কার সেরা চিত্রগ্রাহক
২০১২ ঘেটুপুত্র কমলা হুমায়ূন আহমেদ বিজয়ী: জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক
২০১৪ জীবনঢুলী তানভীর মোকাম্মেল
এক কাপ চা নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামুল
৭১ এর মা জননী শাহ আলম কিরণ
৭১ এর ক্ষুদিরাম মান্নান হীরা
২০১৫ পদ্ম পাতার জল তন্ময় তানসেন
২০১৬ পৌষ মাসের পিরীত নারগিস আক্তার

পুরস্কার ও সম্মাননাসম্পাদনা

চলচ্চিত্র পুরস্কারসম্পাদনা

পুরস্কার বছর বিভাগ চলচ্চিত্র ফলাফল
জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ১৯৮৪ শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক (রঙ্গিন) অভিযান বিজয়ী
১৯৮৭ শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক (সাদাকালো) সহযাত্রী বিজয়ী
১৯৯৬ শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক পোকা মাকড়ের ঘর বসতি বিজয়ী
১৯৯৯ শ্রাবণ মেঘের দিন বিজয়ী
২০০০ দুই দুয়ারী বিজয়ী
২০০৫ হাজার বছর ধরে বিজয়ী
২০০৮ আমার আছে জল বিজয়ী
২০০৯ বৃত্তের বাইরে বিজয়ী
২০১২ ঘেটুপুত্র কমলা বিজয়ী
বাচসাস পুরস্কার ১৯৮৩ সেরা চিত্রগ্রাহক প্রিন্সেস টিনা খান বিজয়ী
১৯৮৫ চাঁপা ডাঙ্গার বউ বিজয়ী
১৯৯৮ পাহারাদার বিজয়ী
১৯৯৯ শ্রাবণ মেঘের দিন বিজয়ী
২০০১ মেঘলা আকাশ বিজয়ী
২০০৫ হাজার বছর ধরে বিজয়ী
২০০৮ চন্দ্রগ্রহণ বিজয়ী
২০০৯ বৃত্তের বাইরে বিজয়ী
প্রযোজক সমিতি পুরস্কার ২০০০ সেরা চিত্রগ্রাহক দুই দুয়ারী বিজয়ী
মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার ২০০৫ বিশেষ পুরস্কার (চিত্রগ্রাহক) হাজার বছর ধরে বিজয়ী

সম্মাননাসম্পাদনা

  • এম. আব্দুস সামাদ স্মৃতি সম্মাননা (২০১৫)[৬]

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. পারভেজ, আতিক (১৪ নভেম্বর ২০১৩)। "চিত্র-গ্রাহক মাহ্‌ফুজ"। দৈনিক আজাদী। ২০১৫-১১-১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০১৬ 
  2. নওরোজ, অহ (২২ মে ২০১৬)। "সেরা কাজটি এখনো করতে পারিনি : মাহফুজুর রহমান খান"রাইজিংবিডি ডট কম। ২৬ মে ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ জানুয়ারি ২০১৭ 
  3. "মুক্তিযুদ্ধের দুই চলচ্চিত্র নিয়ে মাহফুজুর রহমান খান"দৈনিক মানবজমিন। ২০১৪-১২-১৯। ২২ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ জানুয়ারি ২০১৭ 
  4. "চলচ্চিত্রে নতুন জোয়ার"যায়যায়দিন। ২২ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ জানুয়ারি ২০১৭ 
  5. "চলে গেলেন মাহফুজুর রহমান খান"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ৫ ডিসেম্বর ২০১৯ 
  6. "এম. আব্দুস সামাদ স্মৃতি সম্মাননা পেলেন চিত্রগ্রাহক মাহফুজুর রহমান খান"দৈনিক ইত্তেফাক। ৩১ অক্টোবর ২০১৫। ২২ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ জানুয়ারি ২০১৭ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা