মাহদী

দ্বাদশ ইমাম

মাহদী (আরবি: ٱلْمَهْدِيّ‎, প্রতিবর্ণী. al-Mahdīy‎; অর্থাৎ ন্যায়নিষ্ঠ) হলেন ইসলামি পরলোকতত্ত্ব অনুসারে একজন ত্রাণকর্তা, মুক্তিদাতা বা মশীহীয় ব্যক্তিত্ব যিনি শেষ যুগে আবির্ভূত হবেন এবং পৃথিবী থেকে অন্যায় ও অশুভ শক্তি দূরীভূত করে ন্যায়বিচার ও বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠা করবেন। ইসলামি ঐতিহ্যমতে তিনি নবী ঈসার সঙ্গে আগমন করবেন এবং সর্বজনীন খিলাফত কায়েম করবেন। বিভিন্ন সূত্রমতে তাঁর শাসনকাল ৬, ৭ বা ৯ বছর স্থায়ী হবে।[১]

মদীনার মসজিদে নববীতে মাহদীর নাম সংবলিত আরবি চারুলিপি

কোরআনে মাহদী সম্পর্কে সরাসরি কোনো উল্লেখ না থাকলেও[২] হাদীসশাস্ত্রে বিস্তারিত বিবরণ রয়েছে। অধিকাংশ হাদীস মোতাবেক ইমাম মাহদী নবী ঈসার সঙ্গে আগমন করবেন এবং আল-মসীহ আদ-দজ্জালকে (ভণ্ড খ্রীষ্ট বা খ্রীষ্টারি) পরাজিত করবেন।[৩] যদিও মাহদীর ধারণাটি সুন্নি ইসলামের অপরিহার্য কোনো তত্ত্ব নয়, এটি শিয়া ইসলামের একটি কেন্দ্রীয় ধারণা।[৪] উভয় মতাবলম্বীরাই বিশ্বাস করেন যে মাহদী মুসলমানদের শাসন করবেন এবং সমগ্র বিশ্বে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করবেন; তবে তাঁর বৈশিষ্ট্য ও মর্যাদা সম্পর্কে তাদের মধ্যে ব্যাপক মতবিরোধ রয়েছে।

ঐতিহাসিকভাবে বিভিন্ন ব্যক্তিগণ নিজেদের মাহদী বলে দাবি করেছেন। এদের মধ্যে মাহদবিয়া সম্প্রদায়ের প্রতিষ্ঠাতা মুহাম্মদ জৌনপুরী, বাব মতবাদের প্রতিষ্ঠাতা বা'ব তথা সৈয়দ আলী মুহম্মদ শিরাজী, ১৯শ শতাব্দীর শেষভাগে সুদানে মাহদীবাদী রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা মুহম্মদ আহমদ, আহমদিয়া আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা মির্জা গোলাম আহমদ, পিপলস মুজাহিদীন অব ইরানের নেতা মাসুদ রাজাওয়ী,[৫] নেশন অব ইসলামের প্রতিষ্ঠাতা রিয়াজ আহমদ গোহর শাহী ও ওয়ালেস ফার্ড মুহাম্মদ প্রমুখ বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য।[৬]

অন্যদিকে শিয়া মুসলমানদের মতে মাহদী হবেন অবশ্যই নবী মুহাম্মদের বংশধর তথা আহল আল-বাইতের সদস্য। শিয়াদের বৃহত্তম উপদল দ্বাদশীদের বিশ্বাসমতে তাদের দ্বাদশ ইমাম মুহম্মদ আল-মাহদী, যিনি একাদশ ইমাম হাসান আল-আসকারীর পুত্র এবং বর্তমানে অন্তর্হিত, হলেন প্রতীক্ষিত মাহদী। দাঊদি বোহরাসহ তৈয়িবি ইসমাইলি শিয়ারা বিশ্বাস করেন যে আত-তৈয়িব আবুল কাসিমের বংশোদ্ভূত একজন ইমামই বর্তমান লুক্কায়িত মাহদী। বাহাই ধর্মাবলম্বীরা বিশ্বাস করেন যে বা'ব ছিলেন পুনরাবির্ভূত দ্বাদশ ইমাম ও মাহদী।[৭][৮]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Hadith – Chapters on Al-Fitan – Jami' at-Tirmidhi – Sunnah.com – Sayings and Teachings of Prophet Muhammad (صلى الله عليه و سلم)"sunnah.com। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৭ 
  2. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; EI2 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  3. Sonn (2004) p. 209
  4. Shahzad Bashir Messianic Hopes and Mystical Visions: The Nūrbakhshīya Between Medieval and Modern Islam Univ of South Carolina Press 2003 আইএসবিএন ৯৭৮-১-৫৭০-০৩৪৯৫-৪ page 24
  5. Merat, Arron (২০১৮-১১-০৯)। "Terrorists, cultists – or champions of Iranian democracy? The wild wild story of the MEK"The Guardian (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 0261-3077। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১১-১০ 
  6. "The Muslim Program - NOI.org Official Website"। অক্টোবর ৮, ২০১৩। 
  7. Effendi, Shoghi (১৯৭৪)। God Passes By। National Spiritual Assembly of the Baha'is of the United States। পৃষ্ঠা 57–58। এলসিসিএন 44-51036 
  8. Effendi, Shoghi (১৯৩২)। The Dawn Breakers। Kingsport Press। পৃষ্ঠা xxix–xxx। এলসিসিএন 32-8946 

গ্রন্থপঞ্জিসম্পাদনা

ঐতিহাসিক উৎসসমূহসম্পাদনা

  • "Muqaddimah Ibn al-Salah", Sahih al-Bukhari, Dar al-Ma’aarif, পৃষ্ঠা 160–169 
  • Ja'far al-Sadiq, Al-Ghaybah (The occultation): narrations from the prophecies of al-Mahdi by Imam Ja'far al-Sadiq, Mihrab Publishers 
  • Bihar al-Anwar

আধুনিক উৎসসমূহসম্পাদনা

  • Baqr al-Majlisi, Muhammad, সম্পাদক (২০০৩), Kitab al-Ghaybat, Qom: Ansariyan Publications 
  • Doi, A. R. I., "The Yoruba Mahdī", Journal of Religion in Africa, 4 (2): 119–136, জেস্টোর 1594738, ডিওআই:10.1163/157006671x00070 
  • Glassé, Cyril, সম্পাদক (২০০১), "Mahdi", The new encyclopedia of Islam, Rowman Altamira, আইএসবিএন 0-7591-0190-6 
  • Martin, Richard C., সম্পাদক (২০০৪), "Mahdi", Encyclopedia of Islam and the Muslim world, Thompson Gale 
  • Momen, Moojan (১৯৮৫), An introduction to Shi'i Islam, New Haven, Connecticut: Yale University Press, আইএসবিএন 0-300-03531-4 
  • Shauhat Ali, Millenarian and Messianic Tendencies in Islamic Thought (Lahore: Publishers United, 1993)
  • Timothy Furnish, Holiest Wars: Islamic Mahdis, Jihad and Osama Bin Laden (Westport: Praeger, 2005) আইএসবিএন ০-২৭৫-৯৮৩৮৩-৮
  • Abdulaziz Abdulhussein Sachedina, Islamic Messianism: The Idea of the Mahdi in Twelver Shi'ism (Albany: State University of New York Press, 1981) আইএসবিএন ০-৮৭৩৯৫-৪৫৮-০
  • Syaikh Hisyam Kabbani, The Approach of Armageddon (Islamic Supreme Council of America, 2002) আইএসবিএন ১-৯৩০৪০৯-২০-৬
  • "mahdī", Encyclopædia Britannica, ২০০৮, সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৭-০৪ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

  • Mahdi – an article on Encyclopædia Britannica Online