আব্দুর রহমান বিন আলি বিন মুহাম্মদ বিন আবুল ফারাজ বিন আল-জাওজি , প্রায়শই সংক্ষেপে ইবনে জাওজি ( আরবি : ابن الجوزي, ইবনে আল-জাওজি ; ১১১৬ - ১৬ জুন ১২০১ খ্রিস্টাব্দ) বা সুন্নি মুসলমানদের কাছে ইমাম ইবনে-জাওজি ছিলেন একজন আরব মুসলমান আইনজ্ঞ, প্রচারক, বক্তা, ধর্মবিদ্যাবিদ, ইতিহাসবিদ, বিচারক, এবং সাস্কৃতিক ভাষাবিদ । তিনি হাম্বলি মাযহাব বাগদাদে শহরে প্রচারে অক্লান্ত ভূমিকা পালন করেছিলেন।

ইমাম ইবনে আল-জাওজি
PARSONS(1808) p008 View of Bagdad on the Persian side of the Tigris.jpg
১৮০৮ সালের বাগদাদের একটি চিত্র, যেটি 'এশিয়া ও আফ্রিকা ট্র্যাভেলস ইত্যাদি' মুদ্রণ সংগ্রহ থেকে নেওয়া (জে. পি. বারজে, ব্রিটিশ পাঠাগার); ইবনে আল জাওজা তাঁর পুরো জীবন দ্বাদশ শতাব্দীতে এই শহরেই কাটিয়েছিলেন
আইনজ্ঞ, ধর্মপ্রাচারক, ইতিহাসবিদ;
ইসলামের শাইখ, 'রাজা এবং রাজপুত্রদের মুখপাত্র, হাম্বলিদের ইমাম
সম্মানিতসুন্নি ইসলাম এ,কিন্তু বিশেষ করে হাম্বলি মাযহাবে। আর সালাফিরা তাকে পূজার না করে বরং সম্মান করে।
প্রধান মঠবাগদাদ, ইরাক এ সবুজ রঙের গম্বুজ
ইবনে আল-জাওজা
উপাধিশাইখুল ইসলাম[১]
ব্যক্তিগত
জন্ম৫১০ হিজরী/১১১৬ খ্রিস্টাব্দ
মৃত্যু১২ রমজান ৫৯৭ হিজরী/১৬ জুন ১২০১ (প্রায় ৭৪ বছর))
ধর্মইসলাম

তিনি ধনী পরিবারের সন্তান ছিলেন এবং তিনি আবু বকরের বংশোদ্ভূত ছিলেন,[২] ইবনুল জাওজীর ছেলেবেলা থেকেই পর্যাপ্ত জ্ঞান লাভ করার সুযোগ পেয়েছিলেন। আর সেই যুগের সর্বাধিক খ্যাতিমান বাগদাদী আলেম ইবনে আল-জাগুনি (মৃত্যু ১১৩৩), আবু বকর আল-দিনাওয়ারী (মৃত্যু ১১১৭-৮), রায্যাক্ব আলী গিলানী (মৃত্যু ১২০৮), এবং আবু মনসুর আল-জাওয়ালিকা (মৃত্যু ১১৪৪-৫) সহ অনেক পন্ডিতদের অধীনে শিক্ষা নেওয়ার সৌভাগ্য হয়েছিল। [৩]

ধর্মতত্ত্ববিদ্যাসম্পাদনা

আল্লাহ মহাবিশ্বের ভিতরে বা বাইরে নেইসম্পাদনা

ইবনে জাওজী, আস-সিফাতে বলেছেন যে। আল্লাহ এই মহাবিশ্বের পৃথিবীর ভিতরে বা এমনকি এর বাইরেও নেই। [৪] তাঁর মতে, "ভিতরে বা বাহিরে থাকার জন্য স্থান দখল করেতে হয়, তাই কোন কিছু কোথাও থাকা মানি সে ঐ জায়গার স্থান দখল করেছে। কিন্তু আল্লাহর জন্য এই স্থান দখলের বৈশিষ্ট খাটে না।

 
দার উল কুতুব আল ইলমিয়াহ থেকে প্রকাশিত আর-রাদ 'আলাল মুতা'আসসিব আল-আনিদের প্রচ্ছদ।

আরো দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Al-Dhahabi, Siyar A'lam al-Nubala'.
  2. Ibn al-Jawzi, Sincere Counsel to the Seekers of Sacred Knowledge, Daar Us-Sunnah Publications Birmingham (2011), p. 88
  3. Ibn Rajab, Dhayl ʿalā Ṭabaqāt al-ḥanābila, Cairo 1372/1953, i, 401
  4. Swartz, Merlin. A Medieval Critique of Anthropomorphism, pg. 159. Leiden: Brill Publishers, 2001.

উদ্ধৃতি ত্রুটি: <references>-এ সংজ্ঞায়িত "Laoust - Ibn al-D̲j̲awzī" নামসহ <ref> ট্যাগ পূর্ববর্তী লেখায় ব্যবহৃত হয়নি।

উদ্ধৃতি ত্রুটি: <references>-এ সংজ্ঞায়িত "Ibn Rajab 404-405" নামসহ <ref> ট্যাগ পূর্ববর্তী লেখায় ব্যবহৃত হয়নি।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা