হোসাইন ইবনে আলী

মুহাম্মাদের নাতি ও আলি ইবনে আবি তালিবের পুত্র

হ়োসাইন ʾইবনে ʿআলী (আরবি: ٱلْحُسَيْن ٱبْن عَلِيّ‎, প্রতিবর্ণী. Al-Ḥusayn ibn ʿAlī‎‎; ১০ জানুয়ারি ৬২৬ – ১০ অক্টোবর ৬৮০) ছিলেন ইসলামের পয়গম্বর মুহম্মদের ﷺ দৌহিত্র এবং আলীফাতিমার পুত্র।[১০] মুসলমানরা তাঁকে আহল আল-কিসাআহল আল-বাইতের একজন সদস্য হিসেবে অত্যন্ত শ্রদ্ধা করে। তিনি সুন্নি ইসলামের একজন গুরত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব এবং শিয়া ইসলামের তৃতীয় ইমাম


হ়োসাইন ʾইবনে ʿআলী
ٱلْحُسَيْن ٱبْن عَلِيّ

ইমাম[৩]
আশ-শহীদ[৪]
আর-রশীদ
আস-সিবত়
আত-তৈয়িব
আল-ওয়াফী[৪]
আল-মুবারক
সৈয়দ আশ-শুহাদা[৫]
আত-তাবী লি মর্দাতুল্লাহ
সৈয়দু শবাবি আহলিল জান্নাহ
الحسين ابن علي.svg
হ়োসাইন ʾইবনে ʿআলীর নাম সংবলিত ইসলামি চারুলিপি
৩য় ইমাম
শিয়া ইসলাম
ইমামত৬৭০ – ৬৮০ খ্রি.
পূর্বসূরিহ়াসান ʾইবনে ʿআলী
উত্তরসূরিʿআলী ʾইবনে হ়োসাইন
জন্মহ়োসাইন ʾইবনে ʿআলী
৮ জানুয়ারি ৬২৬
(৩ শাবান ৪ হিজরি)[৬]
মদীনা, হেজাজ, আরব উপদ্বীপ
মৃত্যু১০ অক্টোবর ৬৮০(680-10-10) (বয়স ৫৫)
(১০ মুহররম ৬১ হিজরি)
কারবালা, ইরাক, উমাইয়া সাম্রাজ্য
দাম্পত্য সঙ্গীশহরবানু
রুবাব বিনতে ইমরুল কায়েস
লায়লা বিনতে আবী মুররাহ আস-সাকাফী
উম্মে ইসহাক বিনতে তালহা ইবনে উবায়দুল্লাহ[৭]
সন্তানআলী ইবনে হোসাইন জয়নুল আবিদীন
সকিনা
আলী আল-আকবর
সুকয়না
আলী আল-আসগর
ফাতিমা আস-সুগরা[৮]
পূর্ণ নাম
আল-হ়োসাইন ʾইবনে ʿআলী ʾইবনে আবী ত়ালিব
আরবি: ٱلْحُسَيْن ٱبْن عَلِيّ ٱبْن أَبِي طَالِب‎‎
স্থানীয় নামٱلْحُسَيْن ٱبْن عَلِيّ ٱبْن أَبِي طَالِب
বংশআহল আল-বাইত
বংশবনু হাশিম (আলীয়)
রাজবংশকুরাইশ
পিতাʿআলী ʾইবনে আবী ত়ালিব
মাতাফাত়িমা বিনতে মুহ়ম্মদ
ধর্মইসলাম
মৃত্যুর কারণকারবালার যুদ্ধে উমাইয়া সেনাবাহিনী কর্তৃক শিরশ্ছেদ
সমাধিইমাম হোসেনের মাজার, কারবালা প্রদেশ, ইরাক
৩২°৩৬′৫৯″ উত্তর ৪৪°১′৫৬.২৯″ পূর্ব / ৩২.৬১৬৩৯° উত্তর ৪৪.০৩২৩০২৮° পূর্ব / 32.61639; 44.0323028
স্মৃতিস্তম্ভইরাক, সিরিয়া, মিশর
অন্যান্য নামউচুঞ্জু আলী (তৃতীয় আলী)
তুর্কী: Üçüncü Ali
পরিচিতির কারণকারবালার যুদ্ধে শাহাদাতবরণ
প্রতিদ্বন্দ্বীইয়াজ়িদ ʾইবনে মুʿয়াবিয়া
আত্মীয়মুহ়ম্মদ ইবনে ʿআব্দুল্লাহ ﷺ (পিতামহ)
হ়াসান ʾইবনে ʿআলী (ভাই)

উমাইয়া শাসক মুয়াবিয়া ইবনে আবী সুফিয়ান মৃত্যুর পূর্বে হাসান–মুয়াবিয়া চুক্তির শর্ত ভঙ্গ করে স্বীয় পুত্র ইয়াজিদ ইবনে মুয়াবিয়াকে তাঁর উত্তরসূরি হিসাবে নিযুক্ত করে যান।[১১] ৬৮০ সালে মুয়াবিয়া ইন্তেকাল করলে ইয়াজিদ হোসাইনের কাছে তার প্রতি আনুগত্যের অঙ্গীকার করতে বলেন। হোসাইন ইয়াজিদের প্রতি আনুগত্য প্রদর্শনে অস্বীকৃতি জানান। ঘটনাক্রমে তিনি ৬০ হিজরিতে মক্কায় আশ্রয় নেবার উদ্দেশ্য তাঁর নিজ শহর মদীনা ত্যাগ করেন।[১১][১২] সেখানে কুফার লোকেরা তাঁর কাছে চিঠি পাঠিয়ে তাঁর সাহায্য প্রার্থনা করে এবং তাঁর প্রতি তাদের আনুগত্যের প্রতিশ্রুতি দেয়। কিছু অনুকূল ইঙ্গিত পেয়ে তিনি তাঁর আত্মীয়স্বজন ও অনুসারীদের একটি ছোট কাফেলা নিয়ে কুফার অভিমুখে যাত্রা করেন।[১১][১৩] কিন্তু কারবালার নিকটে ইয়াজিদের সেনাবাহিনী তাঁর কাফেলাটির পথরোধ করে। ৬৮০ সালের ১০ই অক্টোবরে (১০ মুহররম ৬১ হিজরি) সংঘটিত কারবালার যুদ্ধে ইয়াজিদের বাহিনী হোসাইন ইবনে আলীকে শিরশ্ছেদ করে, তাঁর পরিবারের সদস্য—তাঁর ছয় মাসের ছেলে আলী আসগরও ছিলেন যাঁদের একজন—ও অনুচরদের হত্যা করে এবং মহিলা এবং শিশুদের যুদ্ধবন্দী হিসেবে ধরে নিয়ে যায়।[১১][১৪] হোসাইনের মৃত্যুর ফলে সৃষ্ট ক্রোধ একটি বেদনাদায়ক ক্রন্দনে রূপান্তরিত হয় যা উমাইয়া খিলাফতের বৈধতা ক্ষুণ্ন করতে এবং অবশেষে আব্বাসীয় বিপ্লব দ্বারা এর পতনে সহায়তা করে।[১৫][১৬]

প্রাথমিক জীবনসম্পাদনা

মুবাহালা সম্পাদনার ঘটনাসম্পাদনা

" মুহাবালা " ইসলামিক ইতিহাসের অতি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা সমুহের একটি। হুসাইন ইবনে আলী আহ্লুল বাইতের অন্তর্ভুক্ত বলে তিনিও আলী,[১] মুহাম্মদ( সা. ), ফাতিমা এবং হাসানের সাথে মুহাবালার ঘটনায় জড়িত। আরবি " মুহাবালা " শব্দটি এসেছে মূলত " বাহলা " মূলধাতু থেকে যার অর্থ অভিশাপ। এখানে মুহাবালা শব্দটি নাজরানের খ্রিস্টান সম্প্রদায় এবং রাসুলুল্লাহ ( সা. ) এবং তাঁর আহলুল বাইতের অনুগত শিয়া সম্প্রদায় একে অপরের প্রতি ব্যবহার করেছিলেন। " মুহাবালার চুক্তি " এই অভিশাপের শান্তিপূর্ণ সূচনা ঘটায় এবং মুসলিম-খ্রিস্টানদের ভাত্রিত্বকে এক নতুন উচ্চতায় সম্প্রসারিত করে।

মুসলিম মনীষী আলী বিন ইবরাহীম আল-কুম্মীর তাফসির কিতাবে ইমাম আল-সাদিক একটি হাদিস বিবৃত করেন:

" নাজরানের খ্রিস্টানেরা ( খ্রিস্টানদের প্রতিনিধি হিসেবে ) রাসুলুল্লাহ ( সা. ) এর নিকট আসেন, ( মসজিদে নববির ) দরজার ঘণ্টা বাজায়; ( তাঁর ভেতরে ঢুকলে ) সাহাবারা প্রতিবাদ সরূপ বলে উঠেন, ' হে রাসুলুল্লাহ্ ( সা. )! আপনার মসজিদে এসব ( কী হতে চলেছে )? ' তিনি বলেছিলেন, ' তাঁদেরকে নিজের মতো করে ছেড়ে দাও। ( তাঁরা নিজের মতো করেই ইবাদত করুক ) '

তাঁরা নিজেদের ইবাদত শেষ করে রাসুলুল্লাহ্ ( সা. ) এর কাছে গমন করেন এবং জিজ্ঞেস করেছিলেন, ‘ আপনি কী সাক্ষ দেন? ' উত্তরে তিনি ( সা. ) বলেন, ‘ আমি সাক্ষ দেই যে আল্লাহ্ ছাড়া কোন ইলাহ্ নেই এবং আমি আল্লাহর রাসুল এবং ঈসা ( আ. )কে সৃষ্টি করা হয়েছে ( আল্লাহর ) সেবক হিসেবে এবং তিনি ( সাধারণ মানুষের ন্যায় ) পানাহার করতেন এবং নিজেই নিজের সাহায্য করতেন। '

তাঁরা এরপর বলে উঠল, ‘ তাহলে তাঁর পিতা কে ছিলেন? ', তখন রাসুলুল্লাহ ( সা. ) এর কাছে নাযিল হয়, ‘ তাঁদেরকে ঘোষণা দাও- তোমরা আদম ( আ. ) সম্পর্কে কি মতামত পোষণ করো? তাঁকে কি আল্লাহর বান্দা হিসেবে সৃষ্টি করা হয়েছে, সে কি পানাহার, আয়েস এবং সহবাস করতো? ' রাসুলুল্লাহ ( সা. ) উক্ত প্রশ্ন জিজ্ঞেস করলে তাঁরা বলেন, ‘ হ্যা ( আমরা একই মতামত পোষণ করি ) ' তিনি এরপর তাঁদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘ তাহলে তাঁর পিতা কে ছিলেন? ' তাঁরা উত্তর দিতে পারলেন না, তাই আল্লাহ্ নাযিল করেন,

' সত্যিই, ঈসার উদাহরণ আদমের উদাহরণের অনুরূপ; আল্লাহ যাঁকে মাটি হতে সৃষ্টি করেছিলেন এবং তাঁকে ‘ হও ' বলার পর তিনি পরিণত হন। ' ( কোরান ৩:৫৯ )

রাসুলুল্লাহ ( সা. ) ( তাঁদের মনের অবস্থা পরিলক্ষিত করে ) বলেন, ‘ তাহকে আহবান করো: যদি আমি সত্যি কথা বলে থাকি, তোমাদের ওপর অভিশাপ পড়বে এবং যদি ভুল বলে থাকি, আমার ওপর ( উল্টো ) অভিশাপ পড়বে। '

তাঁরা এক নির্দিষ্ট তারিখে এই পারস্পরিক অভিশাপ আরম্ভে সম্মতি জানায়।

তাঁরা যখন সেখানে তাঁদের ( সাময়িক ) থাকার স্থানে ফিরে আসে, তাঁদের নেতা আল-সাঈদ, আল-আকীব, আল-আহতাম ব্যক্ত করেন, ‘ সে যদি তাঁর অনুসারীদেরকে নিয়ে আমাদের এই আহবান করে, আমরা তা গ্রহণ করবো কারণ তিনি কোন নবি নন; কিন্তু সে যদি তাঁর পরিবারের সহিত তা করতে সাহস করে যা আমরা করিনি, কারণ সে কখনো ( এই ব্যপারে ) তাঁর পরিবারকে সামনে আনবে না, যদি না সে সত্যবাদী হয়। '

সকালে, তাঁরা ( পুনরায় ) রাসুলুল্লাহ ( সা. ) এর নিকট গমণ করে এবং তাঁরা তাঁর ( সা. ) সঙ্গে আমীরুল মুমিনিন ( আলী আ. ), ফাতিমাহ্, হাসান এবং হুসাইনকেও দেখতে পান, তাই তাঁরা হকচকিয়ে বলে উঠেন, ‘ এরা কারা? ', লোকেরা জবাবে দিল, ‘ ইনি তাঁর চাচাতো ভাই, উত্তরসূরী এবং জামাই, ইনি হলেন তাঁর কণ্যা ফাতিমাহ্ এবং এনারা হলেন তাঁর নাতি - আল-হাসান এবং আল-হুসাইন। '

তাঁর এই দেখে চিন্তিত এবং ভীত হয়ে পড়েন। তাঁরা রাসুলুল্লাহ ( সা. )কে বলেন, ‘ আমরা আপনাকে যতেচ্ছা অর্থ দেব, তাই মুহাবালা থেকে আমাদের মুক্তি দিন। ' রাসুলুল্লাহ ( সা. ) জিযীয়া পরিষোধের বিনিময়ে তাঁদের সাথে এক চুক্তিতে আবদ্ধ হন এবং তাঁরা সহসা বিদায় নেন। " [২]

হোসেইন এবং খিলাফতসম্পাদনা

হোসেইন এবং খোলাফায়ে রাশিদীনসম্পাদনা

ইমাম হোসাইন ইয়াজিদের বাইয়্যাত গ্রহণের প্রস্তাব অস্বীকার করে আপনজনদের কাছে ফিরে আসলেন এবং সবাইকে একত্রিত করে বললেন, আমার প্রিয়জনেরা! যদি আমি পবিত্র মদীনা শহরে অবস্থান করি, এরা আমাকে ইয়াযীদের বাইয়াত করার জন্য বাধ্য করবে, কিন্তু আমি কখনও বাইয়াত গ্রহণ করতে পারবো না। তারা বাধ্য করলে নিশ্চয়ই যুদ্ধ হবে, ফাসাদ হবে; কিন্তু আমি চাইনা আমার কারণে মদীনা শরীফে লড়াই বা ফাসাদ হোক। আমার মতে, এটাই সমীচীন হবে যে, এখান থেকে হিজরত করে মক্কা শরীফে চলে যাওয়া। নিজের আপনজনেরা বললেন, ‘আপনি আমাদের অভিভাবক; আমাদেরকে যা হুকুম করবেন তাই মেনে নেব।’ অতঃপর তিনি মদীনা শরীফ থেকে হিজরত করার সিদ্ধান্ত নিলেন। তথন তিনি নবী মুহাম্মাদের রওযায় উপস্থিত হয়ে বিদায়ী সালাম পেশ করলেন এবং আত্মীয়-পরিজন সহকারে মদীনা থেকে হিজরত করে মক্কায় চলে গেলেন। হেরেম শরীফের সীমানায় অবস্থান করে স্রষ্টার ইবাদত বন্দেগীতে বাকী জীবন কাটিয়ে দিবেন - এই ছিলো তার মনোবাসনা।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

মুয়াবিসম্পাদনা

য়ার সময়সম্পাদনা

ইয়াজীদ-এর শাসনসম্পাদনা

গণআন্দোলনসম্পাদনা

কারবালার যুদ্ধসম্পাদনা

সুন্নি মতবাদসম্পাদনা

শিয়া মতবাদসম্পাদনা

হোসেইন-এর মস্তকের প্রত্যাবর্তন সম্পর্কে ফাতেমীয়দের বিশ্বাসসম্পাদনা

পরিবারসম্পাদনা

হুসাইন রাহমাতুল্লাহি আলাইহি এর সন্তানাদি

  1. জয়নাল আবেদীন ইবনে হুসাইন
  2. উমর ইবনে হুসাইন
  3. আলি আল আসগার ইবনে হুসাইন
  4. আবু বকর ইবনে হুসাইন
  5. সাকিনাহ বিনতে হুসাইন
  6. সুকায়না বিনতে হুসাইন
  7. ফাতিমা আল সুঘরা
  8. ফাতিমা বিনতে হুসাইন
  9. উমমে কুলসুম বিনতে হুসাইন
  10. যাইনাব বিনতে হুসাইন

স্মারকসম্পাদনা

হোসেইন সম্পর্কে শিয়া মতবাদসম্পাদনা

সময়পঞ্জিসম্পাদনা

হোসাইন ইবনে আলী
আহলে বায়াত এর
Banu Quraish এর বংশ
জন্মঃ 3rd Sha‘bān 4 AH 11 January 626 CE মৃত্যুঃ 10th Muharram 61 AH 13 October 680 CE
শিয়া ইসলামী পদবীসমূহ
পূর্বসূরী
Hasan ibn Ali
Disputed by Nizari
3rd Imam of Shia Islam
669–680
উত্তরসূরী
‘Alī ibn Ḥusayn
উত্তরসূরী
Muhammad ibn al-Hanafiyyah
Kaysanites successor

আরও দেখুনসম্পাদনা

  উইকিউক্তিতে Imam Husayn সম্পর্কিত উক্তি পড়ুন

পাদটীকাসম্পাদনা

  1. https://sunnah.com/bukhari:3748
  2. https://www.islamweb.net/ar/fatwa/10967/
  3. A Brief History of The Fourteen Infallibles। Qum: Ansariyan Publications। ২০০৪। পৃষ্ঠা 137। 
  4. al-Qarashi, Baqir Shareef (২০০৭)। The life of Imam Husain। Qum: Ansariyan Publications। পৃষ্ঠা 58। 
  5. Nakash, Yitzhak (১ জানুয়ারি ১৯৯৩)। "An Attempt To Trace the Origin of the Rituals of Āshurā¸"। Die Welt des Islams33 (2): 161–181। ডিওআই:10.1163/157006093X00063 
  6. Shabbar, S.M.R. (১৯৯৭)। Story of the Holy Ka'aba। Muhammadi Trust of Great Britain। ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ মে ২০১৭ 
  7. Reyshahri, Mohammad, Imam Hussain's encyclopedia in the Quran, Sunnah and History, Dar Al-Hadith Research Center, vol. 1, pg. 215
  8. S. Manzoor Rizvi। The Sunshine Bookআইএসবিএন 1312600942 
  9. Badruddīn, Amir al-Hussein bin (20th Dhul Hijjah 1429 AH)। The Precious Necklace Regarding Gnosis of the Lord of the Worlds। Imam Rassi Society।  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  10. "Husayn ibn Ali"Encyclopædia BritannicaAl-Ḥusayn ibn ʿAlī, (born January 626, Medina, Arabia [now in Saudi Arabia]—died October 10, 680, Karbalāʾ, Iraq), hero in Shiʿi Islam, grandson of the Prophet Muhammad through his daughter Fāṭimah and son-in-law ʿAlī (the first imam of the Shiʿah and the fourth of the Sunni Rashidun caliphs). 
  11. Madelung, Wilferd"HOSAYN B. ALI"Iranica। ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ জানুয়ারি ২০০৮ 
  12. Dakake 2007, পৃ. 81–82.
  13. "Husayn ibn Ali | Biography, Death, & Significance"Encyclopedia Britannica (ইংরেজি ভাষায়)। ২ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ নভেম্বর ২০১৯ 
  14. Gordon, 2005, pp. 144–146.
  15. Cornell, Vincent J.; Kamran Scot Aghaie (২০০৭)। Voices of Islam। Westport, Conn.: Praeger Publishers। পৃষ্ঠা 117 and 118। আইএসবিএন 9780275987329। সংগ্রহের তারিখ ৪ নভেম্বর ২০১৪ 
  16. Robinson, Chase F. (২০১০)। "5 - The rise of Islam, 600–705"। The New Cambridge History of Islam (6 vols.)। Cambridge: Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 215। আইএসবিএন 978-0-521-51536-8 

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

বই
এনসাইক্লোপিডিয়া
Blog

বহি:সংযোগসম্পাদনা

টেমপ্লেট:Martyrs of Karbala