ভারতে কথিত ভাষাসমূহ বেশ কয়েকটি ভাষা পরিবারের অন্তর্গত, প্রধানসমূহ হল ৭৮.০৫% ভারতীয়ের দ্বারা কথ্য ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষা এবং ১৯.৬৪% ভারতীয়দের দ্বারা কথ্য দ্রাবিড় ভাষা[৬][৭] উভয় ভাষা পরিবার একসঙ্গে কখনও কখনও ভারতীয় ভাষা হিসাবে পরিচিত।[৮][৯][১০] অবশিষ্ট ২.৩১% জনসংখ্যার দ্বারা কথিত ভাষাসমূহ অস্ট্রো-এশীয়, চীন-তিব্বতি, তাই-কাদাই এবং আরও কয়েকটি ছোটখাটো ভাষা পরিবার ও বিচ্ছিন্ন ভাষার অন্তর্গত।[১১]:২৮৩ নাইজেরিয়া (৫২৪ টি), ইন্দোনেশিয়া (৭১০ টি) ও পাপুয়া নিউ গিনির (৮৪০ টি) পরে, ভারতে বিশ্বের চতুর্থ সর্বোচ্চ সংখ্যক ভাষা (৪৪৭ টি) রয়েছে।[১২] ভারতীয় উপমহাদেশে বিশ্বের তৃতীয় সর্বাধিক কথ্য ভাষা, হিন্দি-উর্দু; ষষ্ঠ সর্বাধিক কথ্য ভাষ, বাংলা; ত্রয়োদশ সর্বাধিক কথ্য ভাষা, পাঞ্জাবি; এবং সতেরোতম সর্বাধিক কথ্য ভাষা, তামিলের ধাত্রী ভূমি।[১২]

ভারত-এর ভাষা
দাপ্তরিক
বিদেশিইংরেজি – ২০ কোটি (এল২ বক্তা, ২০০৩)[৫]
সাংকেতিক

ভারতের সংবিধানের ৩৪৩ নং অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, যে ইউনিয়নের দাপ্তরিক ভাষা হল দেবনাগরী লিপিতে লিখিত হিন্দি, ১৯৪৭ থেকে ১৫ বছর ধরে ইংরেজির দাপ্তরিক ব্যবহার অব্যাহত থাকবে। পরবর্তীতে, ভারত সরকার একটি সাংবিধানিক সংশোধনী দ্য অফিসিয়াল ল্যাঙ্গুয়েজ অ্যাক্ট, ১৯৬৩ অনুসারে হিন্দির পাশাপাশি ইংরেজিকে অনির্দিষ্টকালের জন্য চালু রাখার অনুমতি অর্জন করে, যতক্ষণ না আইন প্রণয়ন এটি পরিবর্তন করার সিদ্ধান্ত নেয়।[২] ইউনিয়নের দাপ্তরিক কাজে ব্যবহার করা সংখ্যার রূপ হল "ভারতীয় সংখ্যার আন্তর্জাতিক রূপ",[১৩][১৪] যা বেশিরভাগ ইংরেজিভাষী দেশে আরবি সংখ্যা হিসাবে উল্লেখ করা হয়।[১] ভারতের কোন জাতীয় অথবা রাষ্ট্রীয় ভাষা নেই; ভারতের সংবিধান কোনো ভাষাকে জাতীয় বা রাষ্ট্রীয় ভাষার মর্যাদা প্রদান করে না।[১৫][১৬]

ভারতীয় সংবিধানের অষ্টম তফসিলে ২২ টি ভাষার তালিকা রয়েছে,[১৭] যেগুলিকে তফসিলি ভাষা হিসাবে উল্লেখ করা হয়েছে এবং স্বীকৃতি, মর্যাদা ও সরকারি উত্সাহ প্রদান করা হয়েছে। এছাড়াও, ভারত সরকার কন্নড়, মালয়ালম, ওড়িয়া, সংস্কৃত, তামিলতেলেগুকে ধ্রুপদী ভাষা বিশিষ্টতা প্রদান করেছে। ধ্রুপদী ভাষার মর্যাদা সেই ভাষাগুলিকে দেওয়া হয়, যেগুলির সমৃদ্ধ ঐতিহ্য ও স্বতন্ত্র প্রকৃতি রয়েছে।

ভারতে ২০০১ সালের জনগণনা অনুসারে, ভারতে ১২২ টি প্রধান ভাষা ও ১৫৯৯ টি অন্যান্য ভাষা রয়েছে। যাইহোক, অন্যান্য উত্স থেকে পরিসংখ্যান পরিবর্তিত হয়, প্রাথমিকভাবে "ভাষা" ও "উপভাষা" শব্দের সংজ্ঞার পার্থক্যের কারণে। ২০০১ সালের জনগণনায় ১০ লাখ বা তার বেশি সংখ্যক মাতৃ-ভাষাভাষী সহ ৩০ টি ভাষা এবং কমপক্ষে ১০ হাজার লোকের কথ্য ভাষা হিসাবে আরও ১২২টি ভাষা নথিভুক্ত হয়।[১৮] এই ভাষাগুলির বাইরেও ভারতবর্ষের ইতিহাসে ফার্সি ও ইংরেজি আন্তর্জাতিক ভাষা হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। দুটি যোগাযোগের ভাষা ভারতের ইতিহাসে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে: ফার্সি[১৯]ইংরেজি[২০] ভারতে মুঘল আমলে ফার্সি আদালতের ভাষা ছিল। এটি ব্রিটিশ উপনিবেশের যুগ পর্যন্ত কয়েক শতাব্দী ধরে প্রশাসনিক ভাষা হিসাবে রাজত্ব করেছিল।[২১] ইংরেজি ভারতে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভাষা হিসাবে অব্যাহত রয়েছে। এটি উচ্চ শিক্ষায় ও ভারত সরকারের কিছু ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়। হিন্দি, যার বর্তমানে ভারতে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক প্রথম-ভাষাভাষী রয়েছে,[২২] উত্তরমধ্য ভারতের বেশিরভাগ অংশ জুড়ে যোগাযোগের ভাষা হিসেবে কাজ করে। যাইহোক, দক্ষিণ ভারতে হিন্দি চাপিয়ে দেওয়া নিয়ে উদ্বেগ উত্থাপিত হয়েছে, বিশেষ করে তামিলনাড়ুকর্ণাটক রাজ্যে।[২৩][২৪] পশ্চিমবঙ্গ, মহারাষ্ট্র, আসাম, পাঞ্জাব ও অন্যান্য অ-হিন্দি অঞ্চলসমূহও হিন্দি সম্পর্কে উদ্বেগ প্রকাশ করতে শুরু করেছে।[২৫] বাংলা হল পূর্বউত্তর-পূর্বাঞ্চলে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক ভাষাভাষী সহ রাষ্ট্রের দ্বিতীয় সর্বাধিক কথ্য ও বোধগম্য ভাষা। মারাঠি হল দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক ভাষাভাষী সহ রাষ্ট্রের তৃতীয় সর্বাধিক কথ্য ও বোধগম্য ভাষা।[২৬]

ইতিহাসসম্পাদনা

দক্ষিণ ভারতীয় ভাষাসমূহ দ্রাবিড় পরিবার থেকে এসেছে। দ্রাবিড় ভাষাসমূহ ভারতীয় উপমহাদেশের দেশীয় ভাষা।[২৭] প্রত্ন-দ্রাবিড় ভাষাসমূহ খ্রিস্টপূর্ব ৪র্থ সহস্রাব্দে ভারতে কথ্য ভাষা ছিল এবং খ্রিস্টপূর্ব ৩য় সহস্রাব্দের দিকে বিভিন্ন শাখায় বিভক্ত হতে শুরু করে।[২৮] দ্রাবিড় ভাষাসমূহকে চারটি গোষ্ঠীতে ভাগ করা হয়েছে: উত্তর, মধ্য (কোলামি-পার্জি), দক্ষিণ-মধ্য (তেলেগু-কুই) ও দক্ষিণ দ্রাবিড় (তামিল-কন্নড়)।[২৯]

ইন্দো-ইউরোপীয় পরিবারের ইন্দো-আর্য শাখা থেকে উত্তর ভারতীয় ভাষাসমূহ মধ্যযুগের মধ্য ইন্দো-আর্য প্রাকৃত ভাষা ও অপভ্রংশের মাধ্যমে প্রাচীন ইন্দো-আর্য থেকে বিবর্তিত হয়েছে। ইন্দো-আর্য ভাষা তিনটি পর্যায়ে বিকশিত এবং উদ্ভূত হয়েছিল — পুরাতন ইন্দো-আর্য (১৫০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ থেকে ৬০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ), মধ্য ইন্দো-আর্য পর্যায় (৬০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ ও ১০০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ) ও নতুন ইন্দো-আর্য (১০০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ ও ১৩০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দের মধ্যে)। আধুনিক উত্তর ভারতীয় ইন্দো-আর্য ভাষাসমূহ নতুন ইন্দো-আর্য যুগে স্বতন্ত্র, স্বীকৃত ভাষায় বিকশিত হয়েছিল।[৩০]

ফার্সি ভাষাকে গজনভিদ ও অন্যান্য তুর্কো-আফগান রাজবংশের দ্বারা আদালতের ভাষা হিসাবে ভারতে আনা হয়েছিল। সাংস্কৃতিকভাবে ফার্সিকৃত, তারা পরবর্তী মুঘল রাজবংশের (তুর্কো-মঙ্গোল বংশোদ্ভূত) সঙ্গে একত্রিত হয়ে ৫০০ বছরেরও বেশি সময় ধরে এই অঞ্চলের শিল্প, ইতিহাস ও সাহিত্যকে প্রভাবিত করেছিল, যার ফলশ্রুতিতে অনেক ভারতীয় ভাষার ফার্সিকরণ হয়েছে, প্রধানত আভিধানিকভাবে। ব্রিটিশরা ১৮৩৭ সালে প্রশাসনিক উদ্দেশ্যে ইংরেজি ও ফার্সি-আরবি লিপিতে লিখিত হিন্দুস্তানি দ্বারা ফার্সিকে প্রতিস্থাপিত করেছিল। ১৯তম শতকের হিন্দি আন্দোলন সংস্কৃত উদ্ভব শব্দ দিয়ে ফার্সি শব্দভান্ডারকে প্রতিস্থাপিত করে এবং প্রশাসনিক উদ্দেশ্যে ফার্সি-আরবি লিপির ব্যবহার দেবনাগরীর লিপি দ্বারা প্রতিস্থাপিত বা পরিপূরক করে।[১৯][৩১]

উত্তর ভারতীয় ভাষার প্রতিটিরই আলাদা প্রভাব ছিল। উদাহরণস্বরূপ, হিন্দুস্তানি ভাষা সংস্কৃত, আরবিফার্সি দ্বারা দৃঢ়ভাবে প্রভাবিত ছিল, যার ফলে হিন্দুস্তানি ভাষার রেজিস্টার হিসাবে আধুনিক প্রতিম হিন্দিআধুনিক প্রতিম উর্দু আবির্ভূত হয়। অন্যদিকে বাংলা ভাষা ফার্সি, ইংরেজি, ফরাসি ও অন্যান্য বিদেশী ভাষার শব্দসমূহের সঙ্গে তার শব্দভাণ্ডার ব্যাপকভাবে প্রসারিত করার সময় নিজের সংস্কৃত শিকড় ধরে রেখেছে।[৩২][৩৩]

ভাষা পরিবারসমূহসম্পাদনা

নৃতাত্ত্বিক ভাষাগতভাবে, দক্ষিণ এশিয়ার ভাষাসমূহ এই অঞ্চলের জটিল ইতিহাস ও ভূগোলকে প্রতিধ্বনিত করে, ভাষা পরিবার, ভাষা ফাইলা ও বিচ্ছিন্নতার একটি জটিল প্যাচওয়ার্ক গঠন করে।[১১] ভারতে কথিত ভাষাসমূহ বেশ কয়েকটি ভাষা পরিবারের অন্তর্গত, প্রধানসমূহ হল ৭৮.০৫% ভারতীয়দের দ্বারা কথ্য ইন্দো-আর্য ভাষাসমূহ ও ১৯.৬৪% ভারতীয়দের দ্বারা কথ্য দ্রাবিড় ভাষাসমূহ। ভারতের ভাষাগুলি কয়েকটি ভাষা পরিবারের অন্তর্গত, যার মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল:[৩৪][৬][৭][১১][৩৫]

ক্রম ভাষা পরিবার জনসংখ্যা (২০১৮)
1 ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষা পরিবার ১০৪,৫০,০০,০০০ (৭৮.০৫%)
2 দ্রাবিড় ভাষা পরিবার ২৬৫,০০০,০০০ (১৯.৬৪%)
3 অস্ট্রো-এশীয় ভাষা পরিবার অজানা
4 চীনা-তিব্বতি ভাষা পরিবার অজানা
5 তাই-কাদাই ভাষা পরিবার অজানা
6 গ্রেট আন্দামানিজ ভাষাসমূহ অজানা
মোট ভারতের ভাষাসমূহ ১৩৪,০০,০০,০০০

দাপ্তরিক ভাষাসমূহসম্পাদনা

যুক্তরাষ্ট্রীয় স্তরসম্পাদনা

ভারতে ভাষার দক্ষতা (২০০১, ২০১১)[৩৬][৩৭]
ভাষা বছর শতাংশ
হিন্দি ২০০১
  
52.61% +3.50%
২০১১
  
57.11%
ইংরেজি ২০০১
  
12.19% -1.57%
২০১১
  
10.62%

স্বাধীনতার পূর্বে, ব্রিটিশ ভারতে, ইংরেজিই প্রশাসনিক কাজের পাশাপাশি উচ্চ শিক্ষার উদ্দেশ্যে ব্যবহৃত একমাত্র ভাষা ছিল।[৩৮]

ভারতের গণপরিষদের ১৯৪৬ সালে কার্যধারায় জাতীয় ভাষার সমস্যাটি একটি তিক্তভাবে বিতর্কিত বিষয় ছিল, বিশেষ করে ভারতের সংবিধান লেখা ও সংসদের কার্যক্রম চলাকালীন কথাবার্তার ভাষা এবং এইভাবে "জাতীয়" উপাধির যোগ্য ভাষাটি কি হওয়া উচিত। ভারতের উত্তরাঞ্চলের সদস্যরা জোর দিয়েছিলেন, যে সংবিধানটি ইংরেজিতে অনানুষ্ঠানিক অনুবাদ সহ হিন্দিতে খসড়া করা হোক। সাংবিধানিক বিষয়সমূহতে সংক্ষিপ্ত গদ্য তৈরি করার জন্য ইংরেজি অনেক ভাল ছিল, এই কারণে খসড়া কমিটি এটিতে সম্মত হয়নি। হিন্দিকে প্রাক-প্রসিদ্ধ ভাষা করার প্রচেষ্টা ভারতের সেইসব অঞ্চলের সদস্যরা কঠোরভাবে প্রতিহত করেছিল, যেখানে হিন্দি স্থানীয়ভাবে বলা হত না।

অবশেষে, জাতীয় ভাষার উল্লেখ না করার জন্য একটি বোঝাপড়া করা হয়েছিল। পরিবর্তে, দেবনাগরী লিপিতে লিখিত হিন্দিকে ইউনিয়নের দাপ্তরিক ভাষা হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছিল, কিন্তু "সংবিধানের সূচনা থেকে পনের বছরের জন্য ইংরেজি ভাষাটি ইউনিয়নের সমস্ত দাপ্তরিক উদ্দেশ্যে ব্যবহার অব্যাহত থাকবে, যা এই ধরনের দাপ্তরিক ভাষার ব্যবহার আরম্ভ হওয়ার আগে থেকেই ব্যবহার করা হচ্ছিল।"[৩৮]

ভারতের সংবিধানের ৩৪৩ (১) নং অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে "কেন্দ্রীয় সরকারের দাপ্তরিক ভাষা হবে দেবনাগরী লিপিতে লিখিত হিন্দি।"[৩৯]:২১২[৪০] সংসদ অন্যথায় সিদ্ধান্ত না নিলে, সংবিধান কার্যকর হওয়ার ১৫ বছর পরে, অর্থাৎ ১৯৬৫ সালের ২৬শে জানুয়ারি দাপ্তরিক উদ্দেশ্যে ইংরেজির ব্যবহার বন্ধ হয়ে যায়।[৩৯]:২১২[৪০]

পরিবর্তনের তারিখ যতই ঘনিয়ে আসছিল, ততই ভারতের অ-হিন্দি-ভাষী এলাকায়, বিশেষ করে কেরল, গুজরাত, মহারাষ্ট্র, তামিলনাড়ু, পাঞ্জাব, পশ্চিমবঙ্গ, কর্ণাটক, পুদুচেরিঅন্ধ্রপ্রদেশে বহু শঙ্কা দেখা দিয়েছিল। তদনুসারে, জওহরলাল নেহেরু ১৯৬৩-এর দাপ্তরিক ভাষা আইনের,[৪১][৪২] প্রণয়ন নিশ্চিত করেছিলেন, যেটি প্রদান করেছিল যে দাপ্তরিক উদ্দেশ্যে হিন্দির সঙ্গে ইংরেজির ব্যবহার করা "যেতে পারে", এমনকি ১৯৬৫ সালের পরেও।[৩৮]

ঘটনাটি, ১৯৬৫-এর কাছাকাছি আসার সঙ্গে সঙ্গে, ভারতের নতুন প্রধানমন্ত্রী লাল বাহাদুর শাস্ত্রী ১৯৬৫ সালের ২৬শে জানুয়ারি থেকে হিন্দিকে সর্বোপরি কার্যকর করার জন্য প্রস্তুত হন। এর ফলে তামিলনাড়ুতে ব্যাপক আন্দোলন, দাঙ্গা, আত্মহনন ও আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে। দক্ষিণের কংগ্রেস রাজনীতিবিদদের তাদের দলীয় অবস্থান থেকে বিভাজন, দক্ষিণ থেকে দুই কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর পদত্যাগ এবং দেশের ঐক্যের জন্য ক্রমবর্ধমান হুমকি শাস্ত্রীকে স্বীকার করতে বাধ্য করেছিল।[৩৮][২৪]

ফলস্বরূপ, প্রস্তাবটি বাদ দেওয়া হয়েছিল,[৪৩][৪৪] এবং আইনটি নিজেই ১৯৬৭ সালে সংশোধিত হয়েছিল, ইংরেজির ব্যবহার বন্ধ হবে না যতক্ষণ না সেই প্রভাবের জন্য একটি রেজোলিউশন হিন্দিকে দাপ্তরিক ভাষা হিসাবে গ্রহণ না করা প্রতিটি রাজ্যের আইনসভা দ্বারা ও ভারতীয় সংসদের প্রতিটি কক্ষ দ্বারা পাস না করা হয়।[৪১]

ভারতের সংবিধান কোনো ভাষাকে জাতীয় ভাষার মর্যাদা প্রদান করে না।[১৫][১৬]

ভারতের বিশিষ্ট ভাষাসমূহসম্পাদনা

হিন্দিসম্পাদনা

ব্রিটিশ ভারতে, ইংরেজিই প্রশাসনিক উদ্দেশ্যের পাশাপাশি উচ্চ শিক্ষার উদ্দেশ্যে ব্যবহৃত একমাত্র ভাষা ছিল। ১৯৪৭ সালে ভারত স্বাধীন হলে, ভারতীয় আইনপ্রণেতাদের কাছে সরকারি যোগাযোগের পাশাপাশি ভারত জুড়ে বিভিন্ন ভাষাগত অঞ্চলের মধ্যে যোগাযোগের জন্য একটি ভাষা বেছে নেওয়ার চ্যালেঞ্জ ছিল। উপলব্ধ পছন্দ ছিল:

  • "হিন্দি"কে নির্বাচন করা, যেটি বহু মানুষ (৪১%)[৪৫] তাদের মাতৃভাষা, দাপ্তরিক ভাষা হিসাবে চিহ্নিত হয়েছিল।
  • "ইংরেজি"কে নির্বাচন করা, যা অ-হিন্দি ভাষীরা পছন্দ করে, বিশেষ করে কন্নড়তামিল এবং মিজোরাম ও নাগাল্যান্ডের দাপ্তরিক ভাষা। হিন্দি বিরোধী আন্দোলন দেখুন
  • হিন্দি ও ইংরেজি উভয়কেই দাপ্তরিক ভাষা হিসাবে ঘোষণা করা এবং প্রতিটি রাজ্যকে রাজ্যের দাপ্তরিক ভাষা বেছে নেওয়ার স্বাধীনতা প্রদান করা।

ভারতীয় সংবিধান, ১৯৫০ সালে, দেবনাগরী লিপিতে লিখিত হিন্দিকে ইউনিয়নের দাপ্তরিক ভাষা হিসাবে ঘোষণা করে।[৩৯] যদি না সংসদ অন্য সিদ্ধান্ত না গ্রহণ করে, তবে সংবিধান কার্যকর হওয়ার ১৫ বছর পর, অর্থাৎ ১৯৬৫ সালের ২৬শে জানুয়ারি সরকারি কাজকর্মে ইংরেজির ব্যবহার বন্ধ হয়ে যায়।[৩৯] পরিবর্তনের সম্ভাবনা, ভারতের অ-হিন্দি-ভাষী অঞ্চলে, বিশেষ করে দক্ষিণ ভারতে যাদের মাতৃভাষাসমূহ হিন্দির সাথে সম্পর্কিত নয়, তাদের মধ্যে অনেক শঙ্কা সৃষ্টি করেছিল। ফলস্বরূপ, সংসদ ১৯৬৩ সালে সরকারি ভাষা আইন প্রণয়ন করে,[৪৬][৪৭][৪৮][৪৯][৫০][৫১] যা ১৯৬৫ সালের পরেও হিন্দির সঙ্গে দাপ্তরিক উদ্দেশ্যে ইংরেজির ব্যবহার অব্যাহত রাখে।

বাংলাসম্পাদনা

বাংলা হল বঙ্গীয় অঞ্চলের স্থানীয় ভাষা; পশ্চিমবঙ্গ, ত্রিপুরা ও আসামের বরাক উপত্যকা অঞ্চল. এবং বাংলাদেশ নিয়ে গঠিত। বাংলা বিশ্বের ষষ্ঠ সর্বাধিক কথ্য ভাষা। ভারত বিভাগের পর (১৯৪৭), পূর্ব পাকিস্তান থেকে উদ্বাস্তুরা ত্রিপুরা, ঝাড়খণ্ড এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জে বসতি স্থাপন করে। এছাড়াও মহারাষ্ট্রগুজরাতে প্রচুর সংখ্যক বাংলাভাষী লোক রয়েছে, যেখানে তারা গহনা শিল্পে কারিগর হিসাবে কাজ করে। অপভ্রংশ থেকে উদ্ভূত অবহট্‌ঠ থেকে বাংলার বিকশিত হয়েছে, যেটি নিজেই মাগধী প্রাকৃত থেকে উদ্ভূত হয়েছিল। আধুনিক বাংলা শব্দভাণ্ডার মাগধী প্রাকৃত ও পালি থেকে আগত শব্দভান্ডার ধারণ করে, এছাড়াও সংস্কৃত থেকে তৎসম শব্দ এবং অন্যান্য প্রধান তৎসম শব্দ ফার্সি, আরবি, অস্ট্রো-এশীয় ভাষা ও সংস্পর্শে থাকা অন্যান্য ভাষা থেকে গ্রহণ করা হয়েছে।

বেশিরভাগ ভারতীয় ভাষার মতো, বাংলারও বেশ কয়েকটি উপভাষা রয়েছে। এটি ডিগ্লোসিয়া প্রদর্শন করে, সাহিত্যিক ও মানক রূপটি ভাষার সঙ্গে চিহ্নিত অঞ্চলের কথোপকথন থেকে অনেকটাই আলাদা। [৯৪] বাংলা ভাষা একটি সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ভিত্তিক বিস্তৃত শিল্প, সঙ্গীত, সাহিত্য ও ধর্ম গড়ে তুলেছে। বাংলা ভাষায় সমস্ত আধুনিক ইন্দো-আর্য ভাষার প্রাচীনতম সাহিত্য রয়েছে, যা প্রায় ১০ শতক থেকে১২ শতকের ('চর্যাপদ', বৌদ্ধ গান)। এই ভাষা রক্ষায় অনেক আন্দোলন হয়েছে এবং ইউনেস্কো ১৯৯৯ সালে ১৯৫২-এর বাংলা ভাষা আন্দোলনের স্মরণে ২১ ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করে।[95]

ভারতের ধ্রুপদী ভাষাসম্পাদনা

২০০৪ সালে ভারত সরকার ঘোষণা করে যে ভারতের কোন ভাষা যদি কিছু প্রয়োজনীয়তা পূরণ করে তবে সেটিকে একটি "ধ্রুপদী ভাষার" মর্যাদা দেওয়া যেতে পারে।[৫২] পরবর্তী কয়েক বছরে, বেশ কিছু ভাষাকে ধ্রুপদী মর্যাদা দেওয়া হয়। বাংলা[৫৩][৫৪]মারাঠি সহ অন্যান্য ভাষার জন্য এই মর্যাদার দাবী করা হয়েছে।[৫৫]

এ পর্যন্ত যেসব ভাষাকে ধ্রুপদী ভাষা হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছে:

২০০৬ সালের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে পর্যটন ও সংস্কৃতি মন্ত্রী অম্বিকা সোনি রাজ্যসভায় বলেন, "ধ্রুপদী ভাষা" হিসেবে শ্রেণীবিভাগের জন্য ভাষার যোগ্যতা নির্ধারণের ক্ষেত্রে নিম্নলিখিত মানদণ্ড নির্ধারণ করা হয়েছে। [৬২][৬৩][৬৪] -

  1. ১৫০০-২০০০ বছর ধরে এর প্রারম্ভিক গ্রন্থ/রেকর্ডকৃত ইতিহাসের উচ্চ প্রাচীনত্ব;
  2. প্রাচীন সাহিত্য/গ্রন্থের একটি দেহ, যা প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে এর বক্তাদের নিকট একটি মূল্যবান ঐতিহ্য হিসেবে বিবেচনা করা হয়;
  3. মৌলিক সাহিত্য ঐতিহ্য এবং অন্য কোন বাক সম্প্রদায় থেকে এটি ধার নেওয়া নয়নি;
  4. ভাষাটির ধ্রুপদী ভাষারূপ এবং সাহিত্য এর আধুনিক রূপ থেকে আলাদা;
  5. ধ্রুপদী ভাষা এবং এর পরবর্তী রূপ বা এর প্রশাখাগুলোর মধ্যে একটি বিরতি থাকতে পারে।

উপকারিতাসম্পাদনা

ভারত সরকারের রেজোলিউশন নং ২-১৬/২০০৪-ইউএস(একাডেমী) (2-16/2004-US(Akademies)) অনুযায়ী, "ধ্রুপদী ভাষা" হিসেবে ঘোষিত একটি ভাষার সুবিধাগুলো হল:

  1. ধ্রুপদী ভাষাগুলিতে বিশিষ্ট পণ্ডিতদের জন্য দুটি প্রধান আন্তর্জাতিক পুরস্কার প্রদান করা হয়।
  2. ধ্রুপদী ভাষায় অধ্যয়নের জন্য একটি সেন্টার অফ এক্সেলেন্স স্থাপন করা হয়।
  3. অন্ততপক্ষে কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ধ্রুপদী ভাষার জন্য নির্দিষ্ট সংখ্যক পেশাদার চেয়ার তৈরি করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনকে অনুরোধ করা হবে, যেখানে অধিষ্ঠিত হবেন ধ্রুপদী ভাষার বিশিষ্ট পন্ডিতগণ।[৬৫]

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Constitution of India"। ২ এপ্রিল ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০২২ 
  2. "Official Language Act | Government of India, Ministry of Electronics and Information Technology"meity.gov.in (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০২২ 
  3. Salzmann, Zdenek; Stanlaw, James; Adachi, Nobuko (৮ জুলাই ২০১৪)। Language, Culture, and Society: An Introduction to Linguistic Anthropology। Westview Press। আইএসবিএন 9780813349558 – Google Books-এর মাধ্যমে। 
  4. "Official Language – The Union -Profile – Know India: National Portal of India"Archive.india.gov.in। সংগ্রহের তারিখ ২৮ ডিসেম্বর ২০১৭ 
  5. "India"Ethnologue (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০২২ 
  6. "Indo-Aryan languages"Encyclopædia Britannica Online। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০২২ 
  7. "Hindi languages"Encyclopædia Britannica Online। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০২২ 
  8. Kak, Subhash। "Indic Language Families and Indo-European"YavanikaThe Indic family has the sub-families of North Indian and Dravidian 
  9. Reynolds, Mike; Verma, Mahendra (২০০৭), Britain, David, সম্পাদক, "Indic languages", Language in the British Isles, Cambridge: Cambridge University Press, পৃষ্ঠা 293–307, আইএসবিএন 978-0-521-79488-6, সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০২২ 
  10. Kak, Subhash। "On The Classification Of Indic Languages" (PDF)Louisiana State University 
  11. Moseley, Christopher (১০ মার্চ ২০০৮)। Encyclopedia of the World's Endangered Languages। Routledge। আইএসবিএন 978-1-135-79640-2 
  12. "What countries have the most languages?"Ethnologue। ২২ মে ২০১৯। 
  13. Aadithiyan, Kavin (১০ নভেম্বর ২০১৬)। "Notes and Numbers: How the New Currency May Resurrect an Old Language Debate"। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০২২ 
  14. "Article 343 in The Constitution Of India 1949"। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০২২ 
  15. Khan, Saeed (২৫ জানুয়ারি ২০১০)। "There's no national language in India: Gujarat High Court"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০২২ 
  16. Press Trust of India (২৫ জানুয়ারি ২০১০)। "Hindi, not a national language: Court"The Hindu। Ahmedabad। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০২২ 
  17. Languages Included in the Eighth Schedule of the Indian Constution ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৪ জুন ২০১৬ তারিখে
  18. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; Census2001 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  19. Abidi, S.A.H.; Gargesh, Ravinder (২০০৮)। "4. Persian in South Asia"। Kachru, Braj B.। Language in South Asia। Kachru, Yamuna & Sridhar, S.N.। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 103–120। আইএসবিএন 978-0-521-78141-1 
  20. Bhatia, Tej K and William C. Ritchie. (2006) Bilingualism in South Asia. In: Handbook of Bilingualism, pp. 780-807. Oxford: Blackwell Publishing
  21. "Decline of Farsi language – The Times of India"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০২২ 
  22. "Hindi mother tongue of 44% in India, Bangla second most spoken – The Times of India"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০২২ 
  23. Nehru, Jawaharlal; Gandhi, Mohandas (১৯৩৭)। The question of language: Issue 6 of Congress political and economic studies। K. M. Ashraf। 
  24. Hardgrave, Robert L. (আগস্ট ১৯৬৫)। The Riots in Tamilnad: Problems and Prospects of India's Language Crisis। Asian Survey। University of California Press। 
  25. News, Nagpur। "Maharashtra to join 'anti – Hindi' stir at Bengaluru"www.nagpurtoday.in 
  26. "The World Factbook"www.cia.gov। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০২২ 
  27. Avari, Burjor (২০০৭-০৬-১১)। India: The Ancient Past: A History of the Indian Sub-Continent from C. 7000 BC to AD 1200 (ইংরেজি ভাষায়)। Routledge। আইএসবিএন 9781134251629 
  28. Andronov, Mikhail Sergeevich (২০০৩-০১-০১)। A Comparative Grammar of the Dravidian Languages (ইংরেজি ভাষায়)। Otto Harrassowitz Verlag। আইএসবিএন 9783447044554 
  29. Krishnamurti, Bhadriraju (২০০৩)। The Dravidian Languages। Cambridge University Press। আইএসবিএন 0521771110 
  30. Kachru, Yamuna (১ জানুয়ারি ২০০৬)। Hindi। London Oriental and African language library। John Benjamins Publishing। পৃষ্ঠা 1। আইএসবিএন 90-272-3812-X 
  31. Brass, Paul R. (২০০৫)। Language, Religion and Politics in North India। iUniverse। পৃষ্ঠা 129। আইএসবিএন 978-0-595-34394-2 
  32. Kulshreshtha, Manisha; Mathur, Ramkumar (২৪ মার্চ ২০১২)। Dialect Accent Features for Establishing Speaker Identity: A Case Study। Springer Science & Business Media। পৃষ্ঠা 16। আইএসবিএন 978-1-4614-1137-6 
  33. Robert E. Nunley; Severin M. Roberts; George W. Wubrick; Daniel L. Roy (১৯৯৯), The Cultural Landscape an Introduction to Human Geography, Prentice Hall, আইএসবিএন 0-13-080180-1, ... Hindustani is the basis for both languages ... 
  34. "India : Languages"Encyclopædia Britannica Online। সংগ্রহের তারিখ ২ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  35. INDIA STATISTICS REPORT
  36. "C-17 : Population by Bilingualism and Trilingualism"Census of India Website 
  37. "Census of India Website : Office of the Registrar General & Census Commissioner, India"censusindia.gov.in 
  38. Guha, Ramachandra (১০ ফেব্রুয়ারি ২০১১)। "6. Ideas of India (section IX)"। India After Gandhi: The History of the World's Largest Democracy। Pan Macmillan। পৃষ্ঠা 117–120। আইএসবিএন 978-0-330-54020-9। সংগ্রহের তারিখ ৩ জানুয়ারি ২০১৫ 
  39. "Constitution of India as of 29 July 2008" (PDF)The Constitution Of India। Ministry of Law & Justice। ২১ জুন ২০১৪ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০২২ 
  40. Thomas Benedikter (২০০৯)। Language Policy and Linguistic Minorities in India: An Appraisal of the Linguistic Rights of Minorities in India। LIT Verlag Münster। পৃষ্ঠা 32–35। আইএসবিএন 978-3-643-10231-7। সংগ্রহের তারিখ ১৯ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  41. "Official Languages Act, 1963 (with amendments)" (PDF)Indian Railways। ১০ মে ১৯৬৩। সংগ্রহের তারিখ ৩ জানুয়ারি ২০১৫ 
  42. "Chapter 7 – Compliance of Section 3(3) of the Official Languages Act, 1963" (PDF)Committee of Parliament on Official Language report। ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  43. "The force of words"Time। ১৯ ফেব্রুয়ারি ১৯৬৫। ১৪ অক্টোবর ২০০৭ তারিখে মূল  থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ জানুয়ারি ২০১৫ 
  44. Forrester, Duncan B. (Spring–Summer ১৯৬৬), "The Madras Anti-Hindi Agitation, 1965: Political Protest and its Effects on Language Policy in India", Pacific Affairs, 39 (1/2): 19–36, জেস্টোর 2755179, ডিওআই:10.2307/2755179 
  45. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; CensusData2001S1 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  46. "DOL"। ২০ জুন ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০২২ 
  47. "Commissioner Linguistic Minorities"। ৮ অক্টোবর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০২২ 
  48. "Language in India"www.languageinindia.com 
  49. "THE OFFICIAL LANGUAGES ACT, 1963"। ১ জুন ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০২২ 
  50. "National Portal of India : Know India : Profile"। ১৭ এপ্রিল ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০২২ 
  51. "Committee of Parliament on Official Language report" (PDF)। ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০২২ 
  52. "India sets up classical languages"। BBC। ১৭ সেপ্টেম্বর ২০০৪। সংগ্রহের তারিখ ১ মে ২০০৭ 
  53. "Didi, Naveen face-off over classical language status"The New Indian Express। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০২-১২ 
  54. "Bangla O Bangla Bhasha Banchao Committee"www.facebook.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০২-১২ 
  55. Clara Lewis (১৬ এপ্রিল ২০১৮)। "Clamour grows for Marathi to be given classical language status"The Times of India 
  56. "Front Page : Tamil to be a classical language"। Chennai, India: The Hindu। ১৮ সেপ্টেম্বর ২০০৪। সংগ্রহের তারিখ ১ আগস্ট ২০১০ 
  57. "National : Sanskrit to be declared classical language"। Chennai, India: The Hindu। ২৮ অক্টোবর ২০০৫। ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ আগস্ট ২০১০ 
  58. "Declaration of Telugu and Kannada as classical languages"Press Information Bureau। Ministry of Tourism and Culture, Government of India। সংগ্রহের তারিখ ৩১ অক্টোবর ২০০৮ 
  59. "'Classical' status for Malayalam"। Thiruvananthapuram, India: The Hindu। ২৪ মে ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২৫ মে ২০১৩ 
  60. "Odia gets classical language status"The Hindu। ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  61. "Milestone for state as Odia gets classical language status"The Times of India 
  62. Singh, Binay (৫ মে ২০১৩)। "Removal of Pali as UPSC subject draws criticism"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  63. "Reviving classical languages – Latest News & Updates at Daily News & Analysis"Dnaindia.com। ১৩ আগস্ট ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২৮ ডিসেম্বর ২০১৭ 
  64. "Marathi may become classical language"The Indian Express। ৪ জুলাই ২০১৩। 
  65. "Classical Status to Oriya Language" (সংবাদ বিজ্ঞপ্তি)। ১৪ আগস্ট ২০১৩।