উত্তর-পূর্ব ভারত

উত্তর-পূর্ব ভারত বলতে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের আসাম, অরুণাচল প্রদেশ, মেঘালয়, মণিপুর, নাগাল্যান্ড, মিজোরাম, ত্রিপুরাসিকিম রাজ্যসংলগ্ন অঞ্চলটিকে বোঝায়।

উত্তর-পূর্ব ভারত
উত্তর পূর্ব অঞ্চল
উত্তর-পূর্ব ভারতের অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৬° উত্তর ৯১° পূর্ব / ২৬° উত্তর ৯১° পূর্ব / 26; 91
দেশ ভারত
রাজ্য
বৃহত্তম শহরগুয়াহাটি
অন্যান্য উল্লেখযোগ্য শহর (২০১১)[১]
আয়তন
 • মোট২,৬২,১৭৯ বর্গকিমি (১,০১,২২৮ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১ ভারতের জনগণনা)
 • মোট৪,৫৭,৭২,১৮৮
 • জনঘনত্ব১৭৩/বর্গকিমি (৪৫০/বর্গমাইল)
সময় অঞ্চলভারত মান সময় (ইউটিসি+৫:৩০)
প্রাতিষ্ঠানিক ভাষা
ব্রহ্মপুত্র সমতল এবং উত্তর -পূর্ব ভারতের পূর্ব হিমালয়

জনউপাত্তসম্পাদনা

উত্তর -পূর্ব ভারতের মোট জনসংখ্যা ৪৬ মিলিয়ন এবং ৬৮% মানুষ আসামে বাস করে। আসামেরও জনসংখ্যার ঘনত্ব ৩৯৭ জন প্রতি কিমি। অরুণাচল প্রদেশ এবং আসাম বাদে উত্তর -পূর্বাঞ্চলের রাজ্যে সাক্ষরতার হার জাতীয় গড় ৭৪ শতাংশের চেয়ে বেশি। ২০১১ সালের আদমশুমারি অনুসারে, মেঘালয় এই অঞ্চলের সমস্ত রাজ্যের মধ্যে সর্বোচ্চ জনসংখ্যা বৃদ্ধি ২৭.৮ শতাংশ রেকর্ড করেছে, যা জাতীয় গড় ১৭.৬৪ শতাংশের চেয়ে বেশি; নাগাল্যান্ডে ঋণাত্মক ০.৫ শতাংশ সহ সমগ্র দেশে সর্বনিম্ন রেকর্ড করা হয়েছে।

আরও দেখুনসম্পাদনা

পাদটীকাসম্পাদনা

  1. "Indian cities by population" (PDF) 
  2. "Report of the Commissioner for linguistic minorities: 47th report (July 2008 to June 2010)" (PDF)। Commissioner for Linguistic Minorities, Ministry of Minority Affairs, Government of India। পৃষ্ঠা 84–89। ১৩ মে ২০১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  3. Nath, Monoj Kumar (২০২১-০৩-২৯)। The Muslim Question in Assam and Northeast India (ইংরেজি ভাষায়)। Taylor & Francis। পৃষ্ঠা 57। আইএসবিএন 978-1-000-37027-0 
  4. Chakravarti, Sudeep (২০২২-০১-০৬)। The Eastern Gate: War and Peace in Nagaland, Manipur and India's Far East (ইংরেজি ভাষায়)। Simon and Schuster। পৃষ্ঠা 421। আইএসবিএন 978-93-92099-26-7 
  5. Kumāra, Braja Bihārī (২০০৭)। Problems of Ethnicity in the North-East India (ইংরেজি ভাষায়)। Concept Publishing Company। পৃষ্ঠা 88। আইএসবিএন 978-81-8069-464-6 
  6. Wadley, Susan S. (২০১৪-১২-১৮)। South Asia in the World: An Introduction: An Introduction (ইংরেজি ভাষায়)। Routledge। পৃষ্ঠা 76। আইএসবিএন 978-1-317-45959-0 
  7. Oinam, Bhagat; Sadokpam, Dhiren A. (২০১৮-০৫-১১)। Northeast India: A Reader (ইংরেজি ভাষায়)। Taylor & Francis। পৃষ্ঠা 164। আইএসবিএন 978-0-429-95320-0 
  8. Deb, Bimal J. (২০০৬)। Ethnic Issues, Secularism, and Conflict Resolution in North East Asia (ইংরেজি ভাষায়)। Concept Publishing Company। পৃষ্ঠা 21। আইএসবিএন 978-81-8069-134-8 
  9. Chakravarti, Sudeep (২০২২-০১-০৬)। The Eastern Gate: War and Peace in Nagaland, Manipur and India's Far East (ইংরেজি ভাষায়)। Simon and Schuster। পৃষ্ঠা 421। আইএসবিএন 978-93-92099-26-7 
  10. Kumāra, Braja Bihārī (২০০৭)। Problems of Ethnicity in the North-East India (ইংরেজি ভাষায়)। Concept Publishing Company। পৃষ্ঠা 88। আইএসবিএন 978-81-8069-464-6 
  11. Britannica। Student Britannica India 7 Vols (ইংরেজি ভাষায়)। Popular Prakashan। পৃষ্ঠা 174। আইএসবিএন 978-0-85229-762-9 
  12. Britannica। Student Britannica India 7 Vols (ইংরেজি ভাষায়)। Popular Prakashan। পৃষ্ঠা 174। আইএসবিএন 978-0-85229-762-9 
  13. Brenzinger, Matthias (২০১৫-০৭-৩১)। Language Diversity Endangered (ইংরেজি ভাষায়)। Walter de Gruyter GmbH & Co KG। পৃষ্ঠা 322। আইএসবিএন 978-3-11-090569-4 
  14. Experts, Arihant (২০১৯-০৬-০৪)। General Knowledge 2020 (ইংরেজি ভাষায়)। Arihant Publications India limited। পৃষ্ঠা 531। আইএসবিএন 978-93-131-9167-4 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

External linksসম্পাদনা