প্রধান মেনু খুলুন

নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর

ভারতের কলকাতা শহরে অবস্থিত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর

নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর (আইএটিএ: সি.সি.ইউআইসিএও: ভি.ই.সি.সি) (আগেকার নাম: দমদম বিমানবন্দর) ভারতের একটি বিমানবন্দর। এটি পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী কলকাতা শহর থেকে ১৭ কিলোমিটার দুরে অবস্থিত৷ এর দুইটি সমান্তরাল রানওয়ে আছে। এর ৩টি প্রান্তিক আছে: একটি অভ্যন্তরীন প্রান্তিক, একটি আন্তর্জাতিক প্রান্তিক আর একটি মালবাহী প্রান্তিক। ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের একজন বিশিষ্ট নেতা নেতাজী সুভাষচন্দ্র বসুর নামে এই বিমানবন্দরের নামকরণ করা হয়েছিল, আগে দমদম বিমানবন্দর নামে পরিচিত ছিল।

নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর
নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের লোগো.jpg
Kolkata Airport New Terminal Outside view.JPG
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
বিমানবন্দরের ধরনসরকারী
মালিকভারতীয় বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ
সেবা দেয়কলকাতা
অবস্থানকলকাতা, উত্তর চব্বিশ পরগণা জেলা,, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত
চালু১৯২৪
যে হাবের জন্য
মনোনিবেশ শহর
এএমএসএল উচ্চতা১৬ ফুট / ৫ মিটার
স্থানাঙ্ক২২°৩৯′১৭″ উত্তর ০৮৮°২৬′৪৮″ পূর্ব / ২২.৬৫৪৭২° উত্তর ৮৮.৪৪৬৬৭° পূর্ব / 22.65472; 88.44667 (নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর)স্থানাঙ্ক: ২২°৩৯′১৭″ উত্তর ০৮৮°২৬′৪৮″ পূর্ব / ২২.৬৫৪৭২° উত্তর ৮৮.৪৪৬৬৭° পূর্ব / 22.65472; 88.44667 (নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর)
ওয়েবসাইটকলকাতা বিমানবন্দর
মানচিত্র
সি.সি.ইউ ভারত বিমানবন্দর-এ অবস্থিত
সি.সি.ইউ
সি.সি.ইউ
ভারতে কলকাতা বিমানবন্দরের অবস্থান
রানওয়েসমূহ
দিকনির্দেশনা দৈর্ঘ্য পৃষ্ঠতল
মি ফুট
০১এল/১৯আর ৩,২৬০ ৭,৪৯৭ কংক্রিট / আস্ফাল্ট
০১আর/১৯এল ৩,৯৬০ ১২,০০৮ অ্যাস্ফাল্ট
পরিসংখ্যান (এপ্রিল ২০১৮-মার্চ ২০১৯)
যাত্রী পরিবহন২,১৮,৭৭,৩৫০ (বৃদ্ধি১০%)
বিমান চলাচল১,৬২,০২৬ (বৃদ্ধি৮.৯%)
পন্য পরিবহন (টন)১,৫৫,২৩২ (বৃদ্ধি-৫%)

২,৪৬০ একর (১,০০০ হে) এলাকা জুড়ে ছড়িয়ে রয়েছে বিমানবন্দরটি, কলকাতা বিমানবন্দর দেশটির পূর্ব অংশে বিমান চলাচলের জন্য সবচেয়ে বড় হাব এবং পশ্চিমবঙ্গে দুটি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর পরিচালনা করে, অন্যটি হচ্ছে বাগডোগরা বিমানবন্দর। দিল্লি, মুম্বাই, ব্যাঙ্গালোর ও চেন্নাইয়ের পরে যাত্রী পরিবহনের ক্ষেত্রে এয়ারপোর্টটি ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ১৫.৮ মিলিয়ন যাত্রী পরিবহনে ভারতের পঞ্চম বৃহত্তম বিমানবন্দরে পরিণত হয়েছে। বিমানবন্দরটি উত্তর-পূর্ব ভারত, বাংলাদেশ, ভুটান, চীন ও দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার জন্য একটি প্রধান কেন্দ্র। ২০১৪ এবং ২০১৫ সালে, এয়ারপোর্ট কাউন্সিল ইন্টারন্যাশনাল কর্তৃক প্রদত্ত এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে কলকাতা বিমানবন্দর শ্রেষ্ঠ উন্নত বিমানের শিরোপা জিতেছে।[৫]

ইতিহাসসম্পাদনা

 
সুভাষচন্দ্র বসু ১৯৩৮ সালে বিমান বন্দরে

কলকাতা বিমানবন্দর ঐতিহ্যগতভাবে ইউরোপ থেকে ইন্দোচীন ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে বিমান রুটে কৌশলগত কেন্দ্র হিসেবে কাজ করে।[৬] ১৯৩৭ সালে এ্যামিলিয়া ইয়ারহাটসহ বহু বিমান সংস্থার অনেক অগ্রগামী উড়ানগুলি যাত্রা শুরু করে কলকাতা থেকে।[৭] ১৯২৪ সালে, কেএলএল বিমান সংস্থা কলকাতায় তাদের আমস্টারডামের -বতভিয়া (জাকার্তা) রুটের অংশ হিসাবে অবতরণ শুরু করেন।[৮] একই বছরে, কোনও বিমান বাহিনী কর্তৃক প্রথম বিশ্ব ভ্রমণ অভিযানের অংশ হিসাবে একটি রয়েল এয়ার ফোর্স বিমান কলকাতায় অবতরণ করে।[৯]

দমদমে রয়্যাল আর্টিলারির পাশে একটি খোলা মাঠ নিয়ে বিমানবন্দর শুরু হয়।[৯] বাংলার গভর্নর স্যার স্ট্যানলি জ্যাকসন ১৯২২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে কলকাতা বিমানবন্দরে বেঙ্গল ফ্লাইং ক্লাবটি খোলেন।[১০] ১৯৩০ সালে, এয়ারফিল্ড সারা বছর ধরে ব্যবহারের জন্য নির্মান করা হয়,[১১] এবং অন্যান্য বিমান সংস্থা বিমানবন্দরটি ব্যবহার করতে শুরু করেছিল। এয়ার ওরিয়েন্ট প্যারিস -সাইগন রুটের অংশ হিসাবে কলকাতা বিমানবন্দরে অবতরণ শুরু করে[১২] এবং ইম্পেরিয়াল এয়ারওয়েজ ১৯৩৩ সালে কলকাতা বিমানবন্দরের মাধ্যমে লন্ডন থেকে অস্ট্রেলিয়ায় যাত্রা শুরু করে।[১৩] এই উড়াণে অনুপ্রানিত হয়ে কলকাতা বিমানবন্দরে অনেকগুলি বিমান সংস্থা চালু করেছিল।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে কলকাতা একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ১৯৪২ সালে যুক্তরাষ্ট্রের আর্মি এয়ার ফোর্সেস ৭তম বোম্বারমেন্ট গ্রুপ বার্মার বিরুদ্ধে যুদ্ধ মিশনে বিমানবন্দর থেকে বি -৪২ মুক্ত বোমা বিস্ফোরণ করে। কলকাতা বিমানবন্দর এয়ার ট্রান্সপোর্ট কমান্ডের জন্য একটি মালবাহী বন্দর হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছিল এবং এটি দশম বিমান বাহিনীর জন্য যোগাযোগ কেন্দ্র হিসেবেও ব্যবহৃত হয়েছিল।[১৪]

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর যাত্রীবাহী সেবা বৃদ্ধি পায় কলকাতা বিমানবন্দরে। এই সময় ব্রিটিশ ওভারসিজ এয়ারওয়েজ কর্পোরেশন (বিওএসি) লন্ডন থেকে কলকাতা রুটের বিশ্বের প্রথম জেট-চালিত যাত্রী বিমান, ডি হাভাল্যান্ড কমেট- এর পরিচালনা শুরু করে। উপরন্তু, ১৯৬৪ সালে ইন্ডিয়ান এয়ারলাইনস প্রথম ভারতীয় অন্তর্দেশীয় বিমান সেবা চালু করে, কলকাতা-দিল্লী রুটে কেরাভেল্ল জেট বিমান ব্যবহার করে।

১৯৪০ ও ১৯৬০-এর দশকের মাঝামাঝি সময়ে এয়ারফ্লোট,[১৫] এয়ার ফ্রান্স,[১৬] অ্যালটিয়া,[১৭] ক্যাথে প্যাসিফিক,[১৮] জাপান এয়ারলাইন্স,[১৯] ফিলিপাইন এয়ারলাইন্স,[২০] কেএলএম , প্যান আম,[২১] লুফথানসা,[২২] সুইসয়ার[২৩] এবং এসএএস -এর মত প্রধান বিমান সংস্থা কলকাতা থেকে উড়ান পরিচালনা করে।[২৪]

১৯৬০-এর দশকে কলকাতার দীর্ঘস্থায়ী বিমানের প্রবর্তনের ফলে এবং কলকাতার রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে বিমানের বিমান সংস্থাগুলি তাদের উড়ান পরিষেবা বন্ধ করে দেয়। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে কলকাতায় উদ্বাস্তু ও রোগী উভয়েরই ব্যাপক বৃদ্ধি ঘটেছিল, যার ফলে কলকাতা বিমানবন্দর থেকে আরো অনেক বিমান সংস্থার সেবা বন্ধ হয়ে যায়। ১৯৭৫ সালে, বিমানবন্দরটি ভারতের প্রথম কার্গো টার্মিনাল পরিচালনা শুরু করে।[৬]

বিমানবন্দর কাঠামোসম্পাদনা

 
নতুন সংহত টার্মিনালের চেক-ইন অঞ্চল

এয়ার ইন্ডিয়া বিমানবন্দরে হ্যাঙ্গার পরিচালনা করে, আর ভারত পেট্রোলিয়াম এবং ইন্ডিয়ান অয়েল জ্বালানী সরবরাহকারী হিসাবে কাজ করে। ক্যাটারিং সুবিধাগুলি তাজ-স্যাটস এবং ওবেরয় ফ্লাইট সার্ভিসের মালিকানাধীন।

বিমানবন্দরের নতুন সুসংহত টার্মিনালটি ২,৩৩,০০০ বর্গমিটার (২৫,১০,০০০ বর্গফুট) জুড়ে বিস্তৃত এবং বার্ষিক ২৫ মিলিয়ন যাত্রী পরিচালনা করতে সক্ষম, আগের টার্মিনালের ধারণক্ষমতা পাঁচ মিলিয়নের তুলনায় যা অনেক বেশি। টার্মিনালটি একটি এল-আকারের কাঠামো নিয়ে গঠিত এবং ছয়টি স্তরযুক্ত। এটিতে ১২৮ চেক-ইন কাউন্টার রয়েছে, যা সিইউটিই (কমন ইউজার টার্মিনাল সরঞ্জাম) প্রযুক্তি ব্যবহার করে এবং এতে ৭৮ টি ইমিগ্রেশন কাউন্টার এবং বারোটি শুল্ক কাউন্টার রয়েছে।[২৫] যাত্রী লাউঞ্জগুলি এয়ার ইন্ডিয়া সরবরাহ কর। টার্মিনালটি ১৮ টি এ্যারোব্রিজ[২৬] এবং আরও ৫৭ টি দূরবর্তী পার্কিং বে দিয়ে সজ্জিত। ইন্টিগ্রেটেড টার্মিনাল কমপ্লেক্সে নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুর একটি ১৮ ফুট লম্বা ব্রোঞ্জের মূর্তি স্থাপন করা হয়েছে।[২৭]

সুসংহত টার্মিনালটি খোলার সাথে সাথে কলকাতা বিমানবন্দরের পুরানো আন্তর্জাতিক ও অন্তঃদেশীয় টার্মিনাল বন্ধ করা হয়।[২৮] তবে, পুরাতন আন্তর্জাতিক টার্মিনালটি ভবিষ্যতের হজ পরিষেবাগুলির জন্য ব্যবহৃত হতে পারে এবং আভ্যন্তরীণ টার্মিনালটি আঞ্চলিক বিমান সংস্থাগুলি ব্যবহার করতে পারে[২৯] বিদ্যমান অভ্যন্তরীণ টার্মিনাল থেকে স্বল্প ব্যয়ের উড়ান কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ার পূর্ববর্তী প্রস্তাবটি নতুন সংহত টার্মিনালের ক্ষমতা সম্পূর্ণরূপে ব্যবহারের প্রয়োজনের কারণে প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে।

২০১১ সালের এপ্রিল থেকে মার্চ ২০১২ অর্থবছরে, কলকাতা বিমানবন্দরটি ১০.৩ মিলিয়ন যাত্রীকে পরিষেবা দিয়েছে, যার মধ্যে ৮৫% যাত্রী অন্তঃদেশীয় ভ্রমণ করেছিল।[৩০] ২০১২ সালের মার্চ মাসে লুফ্‌টহানজা ফ্রাঙ্কফুর্টের পরিষেবা প্রত্যাহারের ফলে কলকাতা বিমানবন্দর থেকে এশিয়ার বাইরে সরাসরি সংযোগ বন্ধ হয়ে যায়।[৩১] তবে ২০১২ সালে অন্যান্য আন্তর্জাতিক ক্রিয়াকলাপ বৃদ্ধি পেয়েছে।[৩০] নতুন টার্মিনালটি কয়েকটি এয়ারলাইনকে কলকাতা অন্তর্ভুক্ত করার জন্য তাদের রুট নেটওয়ার্কগুলি প্রসারিত করতে আকর্ষণ করেছে।[৩২][৩৩]

৩ জুন ২০১৯ সালে, সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্স সাপ্তাহিক আসনের সক্ষমতা বাড়িয়ে সিঙ্গাপুর থেকে কলকাতা যাওয়ার জন্য বিমানবন্দরের প্রথম এ৩৫০-৯০০ বিমান পরিচালনা করে।[৩৪]

সম্প্রসারণসম্পাদনা

নতুন টার্মিনাল নির্মাণের পাশাপাশি রানওয়ে সম্প্রসারণ প্রকল্পের প্রথম ধাপের কাজ শেষে হিসাবে চিহ্নিত হয়েছে। এএআইয়ের কর্মকর্তারা ঘোষণা করেছেন যে তারা কলকাতা বিমানবন্দর সম্প্রসারণ পরিকল্পনার দ্বিতীয় ধাপটি কার্যকর করতে প্রস্তুত। নতুন টার্মিনালে উড়োজাহাজগুলির আরও ভাল দৃশ্যের সাথে কন্ট্রোলারদের সরবরাহ করতে এটি প্রাথমিকভাবে ৫৭ মিটার এটিসি টাওয়ার নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে। বিল্ডিংটির সাথে একটি ৪ তলা অফিস কমপ্লেক্স থাকবে।[৩৫]

নতুন সম্প্রসারণ পরিকল্পনা

আগামী চার বছরের মধ্যে (২০২১) বছরে ৪০ মিলিয়ন যাত্রী যাতায়াতের ব্যবস্থা করতে বিমানবন্দরটির যাত্রী ধারণক্ষমতা ১০০% বৃদ্ধি করা হবে। কলকাতা বিমানবন্দর পরিচালক অতুল দীক্ষিত নিশ্চিত করেছেন যে, বিমানবন্দর বার্ষিক দুই কোটি যাত্রীর সক্ষমতা পৌঁছে গিয়েছে ২০১৮-২০১৯ বর্ষে। বিমানবন্দরের পরবর্তী পর্যায়ে সম্প্রসারণের পরিকল্পনা চলছে। এই নতুন সম্প্রসারণ পরিকল্পনাটি দুই ধাপে কার্যকর করা হবে।

নির্ধারিত গন্তব্যসূচীসম্পাদনা

যাত্রিবাহী বিমান চলাচলসম্পাদনা

বিমান সংস্থাগন্তব্যস্থলসূত্র
এয়ার এশিয়া কুয়ালা লামপুর
এয়ারএশিয়া ইন্ডিয়া আগরতলা, বাগডোগরা, ব্যাঙ্গালোর, ভুবনেশ্বর, চেন্নাই, দিল্লি , গুয়াহাটি, হায়দ্রাবাদ, ইম্ফল, মুম্বাই, পুনে, রাঁচি, পুনে (শুরু ২৭ অক্টোবর ২০১৯), বিশাখাপত্তনম[৩৬]
এয়ার ইন্ডিয়া আগরতলা, আইজওয়াল, বাগডোগরা, ব্যাঙ্গালোর, ব্যাংকক-সুবর্ণভূমি, ভুবনেশ্বর, চেন্নাই, দিল্লি, ঢাকা, দুবাই-আন্তর্জাতিক, ডিব্রুগড়, ডিমাপুর, গয়া, গুয়াহাটি,হায়দ্রাবাদ, ইম্ফল, জয়পুর, কাঠমান্ডু, দেরাদুন (শুরু ২৮ অক্টোবর ২০১৯), মুম্বাই, পাটনা, পোর্ট ব্লেয়ার, শিলচর, বারাণসী, ইয়াঙ্গুন [৩৭]
অ্যালায়েন্স এয়ার গুয়াহাটি, লীলাবাড়ি, পাসিঘাট, শিলং, তেজপুর, ভুবনেশ্বর, ঝারসুগুড়া, রাঁচি
ভুটান এয়ারলাইন্স ব্যাংকক-সুবর্ণভূমি, পারো
বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স চট্টগ্রাম, ঢাকা
বুদ্ধ এয়ার কাঠমান্ডু [৩৮]
ক্যাথে ড্রাগন হংকং
চায়না ইস্টার্ন এয়ারলাইন্স কুনমিং
ড্রুক এয়ার ব্যাংকক-সুবর্ণভূমি, পারো
এমিরেট্‌স এয়ারলাইন্স দুবাই-আন্তর্জাতিক
ইতিহাদ এয়ারওয়েজ আবু ধাবি
গো এয়ার আহমেদাবাদ, আইজওয়াল, বাগদোগরা, ব্যাঙ্গালোর, ব্যাংকক-সুবর্ণভূমি, ভুবনেশ্বর, দিল্লি, গুয়াহাটি, হায়দ্রাবাদ, ইম্ফল, জয়পুর, মুম্বাই, পাটনা, পোর্ট ব্লেয়ার, পুনে' সিঙ্গাপুর
ইন্ডিগো আগরতলা, আহমেদাবাদ, এলাহাবাদ, অমৃতসর (শুরু ১ ডিসেম্বর ২০১৯), বাগডোগরা, ব্যাংকক-সুবর্ণভূমি, ব্যাঙ্গালোর, ভুবনেশ্বর, চণ্ডীগড়, চেন্নাই, কোয়েম্বাটুর, দিল্লি, ঢাকা, ডিব্রুগড়, ডিমাপুর, গয়া, গোয়া, গোরখপুর, গুয়াহাটি,হায়দ্রাবাদ, গুয়াংজু, হ্যানয়, হো চি মিন সিটি, হংকং, হায়দ্রাবাদ, ইম্ফল, ইন্দোর, জব্বলপুর, জয়পুর, যোরহাট, কোচি, লখনউ, মুম্বাই, নাগপুর, পাটনা, পোর্ট ব্লেয়ার, পুনে, রায়পুর, রাঁচি, শিলং, সিঙ্গাপুর, শ্রীনগর, সুরাট, তিরুবনন্তপুরম, বারাণসী, বিশাখাপত্তনম
মালিন্দো এয়ার কুয়ালালামপুর-আন্তর্জাতিক[৩৯]
মায়ানমার এয়ারওয়েজ ইন্টারন্যাশনাল ইয়াঙ্গুন
নভোএয়ার ঢাকা
কাতার এয়ারওয়েজ দোহা
রিজেন্ট এয়ারওয়েজ চট্টগ্রাম, ঢাকা
সিল্কএয়ার সিঙ্গাপুর
সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্স সিঙ্গাপুর
স্পাইসজেট বাগডোগরা, ব্যাংকক-সুবর্ণভূমি, ব্যাঙ্গালোর, চেন্নাই, ঢাকা, দিল্লি , ডিব্রুগড়, গুয়াহাটি, গোয়ালিয়র, হায়দ্রাবাদ, জব্বলপুর,[৪০] জয়পুর, ঝারসুগুড়া, মুম্বাই, পাকিয়ং (পুনরায় শুরু ২৭ অক্টোবর ২০১৯),[৪১] পাটনা, পোর্ট ব্লেয়ার, পুনে , শিলচর, শ্রীনগর, সুরাট, বারাণসী
শ্রীলঙ্কান এয়ারলাইন্স কলম্বো
থাই এয়ার এশিয়া ব্যাংকক–ডন মুয়াং
থাই এয়ারওয়েজ ব্যাংকক-সুবর্ণভূমি
থাই স্মাইল ব্যাংকক-সুবর্ণভূমি [৪২]
ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ চট্টগ্রাম, ঢাকা
ভিস্তারা দিল্লি, গোয়া, মুম্বাই, পোর্ট ব্লেয়ার, পুনে

মালবাহী বিমান চলাচলসম্পাদনা

বিমান সংস্থাগন্তব্যস্থল
বিসমিল্লাহ এয়ারলাইন্স ঢাকা
ব্লু ডার্ট এভিয়েশনবেঙ্গালুরু, চেন্নাই, দিল্লি, মুম্বাই, হায়দ্রাবাদ,

জয়পুর, আহমেদাবাদ

ক্যাথে প্যাসিফিক কার্গোদিল্লি, হংকং
কাতার এয়ারওয়েজ কার্গোদোহা, ঢাকা
উইনি-টপ এয়ারলাইন্স কুনমিং
ইজি ফ্লাই এক্সপ্রেস ঢাকা
কুইকজেট এয়ারলাইন্স দিল্লি, চেন্নাই, মুম্বাই, হায়দ্রাবাদ,

চুক্তিভিত্তিক বিমান চলাচলসম্পাদনা

বিমান সংস্থাগন্তব্যস্থল
ডেকান এভিয়েশন কুচবিহার, জামসেদপুর

শীর্ষ অভ্যন্তরীণ গন্তব্যস্থলসম্পাদনা

সিসিইউ থেকে ব্যস্ততম অভ্যন্তরীণ রুটে (২০১৯)[৪৩]
ক্রম শহর বাহক
নতুন দিল্লি এয়ার এশিয়া ইন্ডিয়া, এয়ার ইন্ডিয়া, গো এয়ার, ইন্ডিগো, স্পাইসজেট, ভিস্তারা
মুম্বাই এয়ার এশিয়া ইন্ডিয়া, এয়ার ইন্ডিয়া, গো এয়ার, ইন্ডিগো, স্পাইসজেট, ভিস্তারা
বেঙ্গালুরু এয়ার এশিয়া ইন্ডিয়া, এয়ার ইন্ডিয়া, গো এয়ার, ইন্ডিগো, স্পাইসজেট
গুয়াহাটি এয়ার এশিয়া ইন্ডিয়া, এয়ার ইন্ডিয়া, গো এয়ার, ইন্ডিজ, স্পাইসজেট
হায়দ্রাবাদ এয়ার এশিয়া ইন্ডিয়া, এয়ার ইন্ডিয়া, গো এয়ার, ইন্ডিগো
চেন্নাই এয়ার এশিয়া ইন্ডিয়া, এয়ার ইন্ডিয়া, ইন্ডিগো, স্পাইসজেট
বাগডোগরা এয়ার এশিয়া ইন্ডিয়া, এয়ার ইন্ডিয়া, গো এয়ার, ইন্ডিগো, স্পাইসজেট
ইম্ফল এয়ার এশিয়া ইন্ডিয়া, এয়ার ইন্ডিয়া, ইন্ডিগো, এয়ার এশিয়া ভারত
পুনে এয়ার এশিয়া ইন্ডিয়া, গো এয়ার, ইন্ডিগো, স্পাইসজেট
১০ ভুবনেশ্বর এয়ার এশিয়া ইন্ডিয়া, এয়ার ইন্ডিয়া, গোয়ার, ইন্ডিগো

ভূতল পরিবহণসম্পাদনা

বাস পরিষেবাসম্পাদনা

বিমানবন্দর থেকে শহরের কেন্দ্রস্থলে যাবার জন্য বিভিন্ন বেসরকারী এবং সরকারী (বাতানুকুল ভলভো সহ) বাস পরিষেবা আছে। সরকারী বাস পরিষেবা প্রদানকারী সংস্থাগুলি হল কলকাতা রাষ্ট্রীয় পরিবহন সংস্থা, দক্ষিণবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহন সংস্থা, পশ্চিমবঙ্গ ভূতল পরিবহন নিগম এবং ক্যালকাটা ট্রামওয়েজ কোম্পানি। অনেক বেসরকারী বাস (এল২৩৮,৪৬,২৩৭,মধ্যমগ্রাম -হাওড়া, বারাসাত -গড়িয়া) আছে।

ট্যাক্সি পরিষেবাসম্পাদনা

বিমানবন্দর থেকে শহরের যেকোনও প্রান্তে যাবার জন্য প্রিপেড হলুদ রঙের মিটার ট্যাক্সি এবং বাতানুকুল (কলকাতা ক্যাব, রেডিও ক্যাব, মেগা ক্যাব ইত্যাদি) ট্যাক্সি পরিষেবা আছে। এছাড়া ওলা ক্যাব ও উবের ক্যাব পরিষেবা আছে।

ট্রেন পরিষেবাসম্পাদনা

কলকাতা আন্তঃনগরীয় রেল (চক্র রেল) পরিষেবার মাধ্যমে বিমানবন্দর স্টেশন থেকে দমদম এবং শহরের অন্যান্য প্রান্তিক স্টেশনে অত্যন্ত অল্পমূল্যে যাওয়া যায়। এই পরিষেবা বন্ধ করে মেট্রো রেল চালু করার পরিকল্পনা চলছে।

গ্যালারিসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. http://knowindia.net/aviation3.html
  2. "Traffic News for the month of Feb 2019: Annexure-III" (PDF)Airports Authority of India। ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯। পৃষ্ঠা 3। ২৬ এপ্রিল ২০১৯ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ এপ্রিল ২০১৯ 
  3. "Traffic News for the month of Feb 2019: Annexure-II" (PDF)Airports Authority of India। ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯। পৃষ্ঠা 3। ২৬ এপ্রিল ২০১৯ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ এপ্রিল ২০১৯ 
  4. "Traffic News for the month of March 2019: Annexure-IV" (PDF)Airports Authority of Indiaসংগ্রহের-তারিখ=29 April 2018। পৃষ্ঠা 3। ২৬ এপ্রিল ২০১৯ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ এপ্রিল ২০১৯ 
  5. "Which airports offer the world's best customer service?"CNN। ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১ মার্চ ২০১৫ 
  6. "気になる薄毛の事"nscbiairport.org। সংগ্রহের তারিখ ৯ মে ২০১৫ 
  7. "Amelia Earhart's Circumnavigation Attempt"Tripline.net। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১১ 
  8. "Amsterdam- Batavia Flight"Flight Global। ২০ নভেম্বর ১৯২৪। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১১ 
  9. "Amsterdam- Round-The-World Flights"Flight Global। ২২ মে ১৯২৪। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১১ 
  10. "Bengal Flying Club Opened"Flight Global। ৭ মার্চ ১৯২৯। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১১ 
  11. "State of Air Transport in the British Empire"Flight Global। ২৯ আগস্ট ১৯৩০। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১১ 
  12. "1930 Histoire d'Air Orient."1930 Histoire d'Air Orient। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১১ 
  13. "Global Networks Before Globalisation: Imperial Airways and the Development of Long-Haul Air Route"Globalization and World Cities Research Network। ৫ ডিসেম্বর ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১১ 
  14. Maurer, Maurer (1983). Air Force Combat Units of World War II. Maxwell AFB, Alabama: Office of Air Force History. আইএসবিএন ০-৮৯২০১-০৯২-৪.
  15. "Image: su57-04.jpg, (2391 × 1449 px)"। timetableimages.com। সংগ্রহের তারিখ ৪ অক্টোবর ২০১৫ 
  16. "Air France"timetableimages.com। সংগ্রহের তারিখ ৯ মে ২০১৫ 
  17. "Image: az61-11.jpg, (2304 × 1325 px)"। timetableimages.com। সংগ্রহের তারিখ ৪ অক্টোবর ২০১৫ 
  18. "Image: cathay19.jpg, (570 × 720 px)"। timetableimages.com। সংগ্রহের তারিখ ৪ অক্টোবর ২০১৫ 
  19. "JAL - Japan Air Lines"timetableimages.com। সংগ্রহের তারিখ ৯ মে ২০১৫ 
  20. "Philippine 1949 Timetable"। timetableimages.com। সংগ্রহের তারিখ ৪ অক্টোবর ২০১৫ 
  21. "PanAm Schedule"। timetableimages.com। সংগ্রহের তারিখ ৪ অক্টোবর ২০১৫ 
  22. "Lufthansa timetable May 1, 1960"। timetableimages.com। সংগ্রহের তারিখ ৪ অক্টোবর ২০১৫ 
  23. "Image: sr51-06.jpg, (2420 × 1222 px)"। timetableimages.com। সংগ্রহের তারিখ ৪ অক্টোবর ২০১৫ 
  24. "SAS – Scandinavian Airlines System"। Timetableimages.com। সংগ্রহের তারিখ ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ 
  25. "27 Elevators" 
  26. Oppili, P.; Sekar, Sunitha (২৬ অক্টোবর ২০১০)। "Second lot of aerobridges for Chennai International Airport arrive at Kolkata port"The Hindu। Chennai, India। সংগ্রহের তারিখ ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ 
  27. "Kolkata airport finds place for 'forgotten' hero"The Times of India। ১৮ অক্টোবর ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ 
  28. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; timesofindia.indiatimes.com নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  29. "All flights from new terminal by March"The Times of India। ২৯ আগস্ট ২০১২। 
  30. "Kolkata Airport: New terminal opens this week; Domestic capacity shrinks"। ১৩ মার্চ ২০১৩। 
  31. "Lufthansa flies out of Kolkata skies"The Times of India। ২৬ মার্চ ২০১২। 
  32. "Four international airlines seek flight to new Kolkata airport"। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১২। 
  33. "Three international airlines show interest in Kolkata"। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১২। 
  34. Himatsingka, Anuradha (২৫ এপ্রিল ২০১৯)। "Singapore Airlines to introduce Airbus A350 aircraft in Kolkata"The Economic Times। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুন ২০১৯ 
  35. Share on FacebookShare on Twitter (১৪ মে ২০১৩)। "''Times of India''. 14 May 2013. Retrieved 8 July 2013"। Articles.timesofindia.indiatimes.com। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ 
  36. "AirAsia India inducts 19th aircraft; adds 2 new routes"The Economic Times। PTI। ২৯ আগস্ট ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  37. https://www.routesonline.com/news/38/airlineroute/285047/air-india-further-expands-dubai-network-from-july-2019/
  38. [https://www.buddhaair.com/destinations/kolkata[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]:
  39. Subhro Niyogi (৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮)। "Malaysian Airline to touch down in city next month"The Times of India। TNN। সংগ্রহের তারিখ ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  40. "SpiceJet Flight Schedule"SpiceJet। সংগ্রহের তারিখ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 
  41. "SpiceJet eyes resumption of Gangtok ops in early 4Q19"ch-aviation.com। ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯। 
  42. "Thai Smile adds Kolkata service in S19"। routesonline। সংগ্রহের তারিখ ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  43. Statistics - Directorate General of Civil Aviation (India) 8 March 2018

বহিঃসংযোগসম্পাদনা