লুক্সেমবুর্গ জাতীয় ফুটবল দল

লুক্সেমবুর্গ জাতীয় ফুটবল দল (লুক্সেমবুর্গীয়: Lëtzebuergesch Foussballnationalequipe, ফরাসি: Équipe du Luxembourg de football, জার্মান: Luxemburgische Fußballnationalmannschaft, ইংরেজি: Luxembourg national football team) হচ্ছে আন্তর্জাতিক ফুটবলে লুক্সেমবুর্গের প্রতিনিধিত্বকারী পুরুষদের জাতীয় দল, যার সকল কার্যক্রম লুক্সেমবুর্গের ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা লুক্সেমবুর্গ ফুটবল ফেডারেশন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। এই দলটি ১৯১০ সাল হতে ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা ফিফার এবং ১৯৫৪ সাল হতে তাদের আঞ্চলিক সংস্থা উয়েফার সদস্য হিসেবে রয়েছে। ১৯১১ সালের ২৯শে অক্টোবর তারিখে, লুক্সেমবুর্গ প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক খেলায় অংশগ্রহণ করেছে; লুক্সেমবুর্গের লুক্সেমবুর্গ শহরে অনুষ্ঠিত উক্ত ম্যাচে লুক্সেমবুর্গ ফ্রান্সের কাছে ৪–১ গোলের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছে।[৩]

লুক্সেমবুর্গ
দলের লোগো
ডাকনামড্রুড লাইভেন
লে লিওঁস রুজ
ডাই রটেন লোভেন
(লাল সিংহ)
অ্যাসোসিয়েশনলুক্সেমবুর্গ ফুটবল ফেডারেশন
কনফেডারেশনউয়েফা (ইউরোপ)
প্রধান কোচলুক হোলৎস
অধিনায়কলঁরাঁ জঁস
সর্বাধিক ম্যাচমারিও মুচ (১০২)
শীর্ষ গোলদাতালেওঁ মার (১৬)
মাঠজসি বার্থেল স্টেডিয়াম
ফিফা কোডLUX
ওয়েবসাইটwww.football.lu
প্রথম জার্সি
দ্বিতীয় জার্সি
ফিফা র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ৯৬ অপরিবর্তিত (২৭ মে ২০২১)[১]
সর্বোচ্চ৮২ (সেপ্টেম্বর ২০১৮)
সর্বনিম্ন১৯৫ (আগস্ট ২০০৬)
এলো র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ১০৩ বৃদ্ধি ১৯ (২ জুন ২০২১)[২]
সর্বোচ্চ৬৯ (মে ১৯৪৫)
সর্বনিম্ন১৯০ (অক্টোবর ২০০৫)
প্রথম আন্তর্জাতিক খেলা
 লুক্সেমবুর্গ ১–৪ ফ্রান্স 
(লুক্সেমবুর্গ শহর, লুক্সেমবুর্গ; ২৯ অক্টোবর ১৯১১)
বৃহত্তম জয়
 লুক্সেমবুর্গ ৬–০ আফগানিস্তান 
(ব্রাইটন, যুক্তরাজ্য; ২৬ জুলাই ১৯৪৮)
বৃহত্তম পরাজয়
 জার্মানি ৯–০ লুক্সেমবুর্গ 
(বার্লিন, জার্মানি; ৪ আগস্ট ১৯৩৬)
 লুক্সেমবুর্গ ০–৯ ইংল্যান্ড 
(লুক্সেমবুর্গ শহর, লুক্সেমবুর্গ; ১৯ অক্টোবর ১৯৬০)
 ইংল্যান্ড ৯–০ লুক্সেমবুর্গ 
(লন্ডন, যুক্তরাজ্য; ১৫ ডিসেম্বর ১৯৮২)

৮,০০০ ধারণক্ষমতাবিশিষ্ট জসি বার্থেল স্টেডিয়ামে লাল সিংহ নামে পরিচিত এই দলটি তাদের সকল হোম ম্যাচ আয়োজন করে থাকে। এই দলের প্রধান কার্যালয় লুক্সেমবুর্গের মন্ডেরকাঙ্গে-এ অবস্থিত। বর্তমানে এই দলের ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করছেন লুক হোলৎস এবং অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছেন মেসের রক্ষণভাগের খেলোয়াড় লঁরাঁ জঁস

লুক্সেমবুর্গ এপর্যন্ত একবারও ফিফা বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করতে পারেনি। অন্যদিকে, উয়েফা ইউরোপীয় চ্যাম্পিয়নশিপেও লুক্সেমবুর্গ এপর্যন্ত একবারও অংশগ্রহণ করতে সক্ষম হয়নি।

অরেলিয়েঁ জোয়াকিম, রদি লাঁজে, গুস্তি কেম্প, মারিও মুচ এবং লেওঁ মারের মতো খেলোয়াড়গণ লুক্সেমবুর্গের জার্সি গায়ে মাঠ কাঁপিয়েছেন।

র‌্যাঙ্কিংসম্পাদনা

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে, ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে লুক্সেমবুর্গ তাদের ইতিহাসে সর্বোচ্চ অবস্থান (৮২তম) অর্জন করে এবং ২০০৬ সালের আগস্ট মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে তারা ১৯৫তম স্থান অধিকার করে, যা তাদের ইতিহাসে সর্বনিম্ন। অন্যদিকে, বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে লুক্সেমবুর্গের সর্বোচ্চ অবস্থান হচ্ছে ৬৯তম (যা তারা ১৯৪৫ সালে অর্জন করেছিল) এবং সর্বনিম্ন অবস্থান হচ্ছে ১৯০। নিম্নে বর্তমানে ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং এবং বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে অবস্থান উল্লেখ করা হলো:

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং
২৭ মে ২০২১ অনুযায়ী ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং[১]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
৯৪     কঙ্গো ১২৫৫.৮৮
৯৫     জর্ডান ১২৫১.৬৩
৯৬     লুক্সেমবুর্গ ১২৪৪.৮৬
৯৭     সাইপ্রাস ১২৪০.৭৮
৯৮     বাহরাইন ১২৪০.১
বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং
২ জুন ২০২১ অনুযায়ী বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং[২]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
১০১     ভিয়েতনাম ১৪১০
১০২     জিম্বাবুয়ে ১৪০৪
১০৩     কেনিয়া ১৩৯১
১০৩   ১৯   লুক্সেমবুর্গ ১৩৯১
১০৫     কুয়েত ১৩৮৯

প্রতিযোগিতামূলক তথ্যসম্পাদনা

ফিফা বিশ্বকাপসম্পাদনা

ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
সাল পর্ব অবস্থান ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো
  ১৯৩০ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
  ১৯৩৪ উত্তীর্ণ হয়নি ১৫
  ১৯৩৮
  ১৯৫০
  ১৯৫৪ ১৯
  ১৯৫৮ ১৯
  ১৯৬২ ২১
  ১৯৬৬ ২০
  ১৯৭০ ২৪
  ১৯৭৪ ১৪
  ১৯৭৮ ২২
  ১৯৮২ ২৩
  ১৯৮৬ ২৭
  ১৯৯০ ২২
  ১৯৯৪ ১৭
  ১৯৯৮ ২২
    ২০০২ ১০ ১০ ২৮
  ২০০৬ ১২ ১২ ৪৮
  ২০১০ ১০ ২৫
  ২০১৪ ১০ ২৬
  ২০১৮ ১০ ২৬
  ২০২২ অনির্ধারিত অনির্ধারিত
মোট ০/২১ ১৩৪ ১০ ১১৯ ৬৯ ৪৩৩

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "ফিফা/কোকা-কোলা বিশ্ব র‍্যাঙ্কিং"ফিফা। ২৭ মে ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ২৭ মে ২০২১ 
  2. গত এক বছরে এলো রেটিং পরিবর্তন "বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং"eloratings.net। ২ জুন ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ২ জুন ২০২১ 
  3. Barrie Courney (৪ ডিসে ২০১৪)। "Luxembourg – List of International Matches"RSSSF। সংগ্রহের তারিখ ৩১ আগস্ট ২০১২ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা