গ্যাবন জাতীয় ফুটবল দল

গ্যাবন জাতীয় ফুটবল দল (ফরাসি: Équipe nationale de football du Gabon) হচ্ছে আন্তর্জাতিক ফুটবলে গ্যাবনের প্রতিনিধিত্বকারী পুরুষদের জাতীয় দল, যার সকল কার্যক্রম গ্যাবনের ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা গাবোনীয় ফুটবল ফেডারেশন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। এই দলটি ১৯৬৬ সাল হতে ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা ফিফার এবং ১৯৬৮ সাল হতে তাদের আঞ্চলিক সংস্থা আফ্রিকান ফুটবল কনফেডারেশনের সদস্য হিসেবে রয়েছে।[৩] ১৯৬০ সালের ১৩ই এপ্রিল তারিখে, গ্যাবন প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক খেলায় অংশগ্রহণ করেছে; মাদাগাস্কারে অনুষ্ঠিত উক্ত ম্যাচে গ্যাবন আপার ভোল্টার কাছে ৫–৪ গোলের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছে।

গ্যাবন
দলের লোগো
ডাকনামলেস পান্থেরেস (প্যান্থার)
লেস ব্রেসিলিয়েন্স (ব্রাজিলীয়)
অ্যাসোসিয়েশনগাবোনীয় ফুটবল ফেডারেশন
কনফেডারেশনক্যাফ (আফ্রিকা)
প্রধান কোচপাত্রিস এভো
অধিনায়কপিয়ের এমেরিক অবামেয়াং
সর্বাধিক ম্যাচদিদিয়ের অভোনো (১১২)
শীর্ষ গোলদাতাপিয়ের এমেরিক অবামেয়াং (২৬)
মাঠওমর বাঙ্গো স্টেডিয়াম
ফিফা কোডGAB
ওয়েবসাইটwww.fegafoot.com
প্রথম জার্সি
দ্বিতীয় জার্সি
ফিফা র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ৮২ অপরিবর্তিত (২১ ডিসেম্বর ২০২৩)[১]
সর্বোচ্চ৩০ (জুলাই ২০০৯)
সর্বনিম্ন১২৫ (এপ্রিল–মে ২০০৩)
এলো র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ৯৪ হ্রাস ১৩ (১২ জানুয়ারি ২০২৪)[২]
সর্বোচ্চ৬৩ (নভেম্বর ১৯৯৬)
সর্বনিম্ন১২৩ (জুন ২০০৪)
প্রথম আন্তর্জাতিক খেলা
 আপার ভোল্টা ৫–৪ গ্যাবন 
(মাদাগাস্কার; ১৩ এপ্রিল ১৯৬০)
বৃহত্তম জয়
 গ্যাবন ৭–০ বেনিন 
(লিব্রেভিল, গ্যাবন; ২ এপ্রিল ১৯৯৫)
বৃহত্তম পরাজয়
 ক্যামেরুন ৬–০ গ্যাবন 
(আবিজান, কোত দিভোয়ার; ২৬ ডিসেম্বর ১৯৬১)
 মরক্কো ৬–০ গ্যাবন 
(রাবাত, মরক্কো; ১৫ নভেম্বর ২০০৬)
আফ্রিকা কাপ অফ নেশন্স
অংশগ্রহণ৭ (১৯৯৪-এ প্রথম)
সেরা সাফল্যকোয়ার্টার-ফাইনাল (১৯৯৬, ২০১২)

৪১,০০০ ধারণক্ষমতাবিশিষ্ট ওমর বাঙ্গো স্টেডিয়ামে লেস পান্থেরেস নামে পরিচিত এই দলটি তাদের সকল হোম ম্যাচ আয়োজন করে থাকে। এই দলের প্রধান কার্যালয় গ্যাবনের রাজধানী লিব্রেভিলে অবস্থিত। বর্তমানে এই দলের ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করছেন পাত্রিস এভো এবং অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছেন আর্সেনালের মধ্যমাঠের খেলোয়াড় পিয়ের এমেরিক অবামেয়াং

গ্যাবন এপর্যন্ত একবারও ফিফা বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করতে পারেনি। অন্যদিকে, আফ্রিকা কাপ অফ নেশন্সে গ্যাবন এপর্যন্ত ৭ বার অংশগ্রহণ করেছে, যার মধ্যে সেরা সাফল্য হচ্ছে ১৯৯৬ এবং ২০১২আফ্রিকা কাপ অফ নেশন্সের কোয়ার্টার-ফাইনালে পৌঁছানো।

দিদিয়ের অভোনো, পিয়ের এমেরিক অবামেয়াং, ব্রুনো একুয়েলে মাঙ্গা, মালিক এভুনা এবং দানিয়েল কুসিনের মতো খেলোয়াড়গণ গ্যাবনের জার্সি গায়ে মাঠ কাঁপিয়েছেন।

র‌্যাঙ্কিং

সম্পাদনা

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে, ২০০৯ সালের জুলাই মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে গ্যাবন তাদের ইতিহাসে সর্বোচ্চ অবস্থান (৩০তম) অর্জন করে এবং ২০০৩ সালের এপ্রিল মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে তারা ১২৫তম স্থান অধিকার করে, যা তাদের ইতিহাসে সর্বনিম্ন। অন্যদিকে, বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে গ্যাবনের সর্বোচ্চ অবস্থান হচ্ছে ৬৩তম (যা তারা ১৯৯৬ সালে অর্জন করেছিল) এবং সর্বনিম্ন অবস্থান হচ্ছে ১২৩। নিম্নে বর্তমানে ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং এবং বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে অবস্থান উল্লেখ করা হলো:

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং
২১ ডিসেম্বর ২০২৩ অনুযায়ী ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং[১]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
৮০     গিনি ১২৯০.০১
৮১     বুলগেরিয়া ১২৮৯.৯
৮২     গ্যাবন ১২৮৯.৫২
৮৩     লুক্সেমবুর্গ ১২৮৫.৪১
৮৪     জাম্বিয়া ১২৮৪.৫৬
বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং
১২ জানুয়ারি ২০২৪ অনুযায়ী বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং[২]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
৯৩   ১৫   গিনি ১৪৪৯
৯৪   ১৩   গ্যাবন ১৪৪২
৯৫   ১২   মার্তিনিক ১৪৪১
৯৬   ২৬   ত্রিনিদাদ ও টোবাগো ১৪৩২

প্রতিযোগিতামূলক তথ্য

সম্পাদনা

ফিফা বিশ্বকাপ

সম্পাদনা
ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
সাল পর্ব অবস্থান ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো
  ১৯৩০ ফ্রান্সের অংশ ছিল ফ্রান্সের অংশ ছিল
  ১৯৩৪
  ১৯৩৮
  ১৯৫০
  ১৯৫৪
  ১৯৫৮
  ১৯৬২
  ১৯৬৬ প্রত্যাহার প্রত্যাহার
  ১৯৭০ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
  ১৯৭৪ প্রত্যাহার প্রত্যাহার
  ১৯৭৮ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
  ১৯৮২
  ১৯৮৬
  ১৯৯০ উত্তীর্ণ হয়নি
  ১৯৯৪
  ১৯৯৮ ১১
    ২০০২
  ২০০৬ ১২ ১৫ ১৪
  ২০১০ ১৬ ২০ ১৩
  ২০১৪
  ২০১৮
  ২০২২ অনির্ধারিত অনির্ধারিত
মোট ০/২৩ ৬১ ২৩ ১১ ২৭ ৬০ ৬৮

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. "ফিফা/কোকা-কোলা বিশ্ব র‍্যাঙ্কিং"ফিফা। ২১ ডিসেম্বর ২০২৩। সংগ্রহের তারিখ ২১ ডিসেম্বর ২০২৩ 
  2. গত এক বছরে এলো রেটিং পরিবর্তন "বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং"eloratings.net। ১২ জানুয়ারি ২০২৪। সংগ্রহের তারিখ ১২ জানুয়ারি ২০২৪ 
  3. CAF and FIFA, 50 years of African football - the DVD, 2009

বহিঃসংযোগ

সম্পাদনা