সেন্ট কিট্‌স ও নেভিস জাতীয় ফুটবল দল

সেন্ট কিট্‌স ও নেভিস জাতীয় ফুটবল দল (ইংরেজি: Saint Kitts and Nevis national football team) হচ্ছে আন্তর্জাতিক ফুটবলে সেন্ট কিট্‌স ও নেভিসের প্রতিনিধিত্বকারী পুরুষদের জাতীয় দল, যার সকল কার্যক্রম সেন্ট কিট্‌স ও নেভিসের ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা সেন্ট কিটস ও নেভিস ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। এই দলটি ১৯৯২ সাল হতে ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা ফিফার এবং একই বছর হতে তাদের আঞ্চলিক সংস্থা কনকাকাফের সদস্য হিসেবে রয়েছে। ১৯৩৮ সালের ১৮ই আগস্ট তারিখে, সেন্ট কিট্‌স ও নেভিস প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক খেলায় অংশগ্রহণ করেছে; সেন্ট ক্রিস্টোফার ও নেভিসে অনুষ্ঠিত উক্ত ম্যাচে সেন্ট কিট্‌স ও নেভিস গ্রেনাডার কাছে ৪–২ গোলের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছে।

সেন্ট কিট্‌স ও নেভিস
ডাকনামসুগার বয়েজ
অ্যাসোসিয়েশনসেন্ট কিটস ও নেভিস ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন
কনফেডারেশনকনকাকাফ (উত্তর আমেরিকা)
প্রধান কোচক্লাউদিও কাইমি[১]
অধিনায়কহুলানি আর্চিবালদ
সর্বাধিক ম্যাচথ্রিজেন লিডার (৭১)
শীর্ষ গোলদাতাকিথ গাম্বস (৪৭)
মাঠওয়ার্নার পার্ক স্পোর্টিং কমপ্লেক্স
ফিফা কোডSKN
ওয়েবসাইটsknfa.com
প্রথম জার্সি
দ্বিতীয় জার্সি
ফিফা র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ১৩৫ অপরিবর্তিত (২৭ মে ২০২১)[২]
সর্বোচ্চ৭৩ (অক্টোবর ২০১৬, মার্চ ২০১৭)
সর্বনিম্ন১৭৬ (নভেম্বর ১৯৯৪)
এলো র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ১৫২ বৃদ্ধি(২ জুন ২০২১)[৩]
সর্বোচ্চ১০৯ (আগস্ট ২০০৩)
সর্বনিম্ন১৭৫ (নভেম্বর ২০০৮)
প্রথম আন্তর্জাতিক খেলা
ব্রিটিশ লিওয়ার্ড দ্বীপপুঞ্জ সেন্ট কিট্‌স ও নেভিস ২–৪ গ্রেনাডা 
(সেন্ট ক্রিস্টোফার ও নেভিস; ১৮ আগস্ট ১৯৩৮)
বৃহত্তম জয়
 সেন্ট কিট্‌স ও নেভিস ১০–০ মন্টসেরাট 
(বাসেতেরে, সেন্ট কিট্‌স ও নেভিস; ১৭ এপ্রিল ১৯৯২)
 সেন্ট মার্টিন ০–১০ সেন্ট কিট্‌স ও নেভিস 
(দ্য ভ্যালি, অ্যাঙ্গুইলা; ১৪ অক্টোবর ২০১৮)
বৃহত্তম পরাজয়
 মেক্সিকো ৮–০ সেন্ট কিট্‌স ও নেভিস 
(মোন্তেরে, মেক্সিকো; ১৭ নভেম্বর ২০০৪)

৮,০০০ ধারণক্ষমতাবিশিষ্ট ওয়ার্নার পার্ক স্পোর্টিং কমপ্লেক্সে সুগার বয়েজ নামে পরিচিত এই দলটি তাদের সকল হোম ম্যাচ আয়োজন করে থাকে। এই দলের প্রধান কার্যালয় সেন্ট কিটস ও নেভিসের রাজধানী ব্যাস্টেয়ারে অবস্থিত। বর্তমানে এই দলের ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করছেন ক্লাউদিও কাইমি এবং অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছেন ডাব্লিউ কানেকশনের গোলরক্ষক হুলানি আর্চিবালদ

সেন্ট কিট্‌স ও নেভিস এপর্যন্ত একবারও ফিফা বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করতে পারেনি। অন্যদিকে, কনকাকাফ গোল্ড কাপেও সেন্ট কিট্‌স ও নেভিস এপর্যন্ত একবারও অংশগ্রহণ করতে সক্ষম হয়নি।

কিথ গাম্বস, থ্রিজেন লিডার, জেরার্ড উইলিয়ামস, ইয়ান লেক এবং জর্জ আইসাকের মতো খেলোয়াড়গণ সেন্ট কিট্‌স ও নেভিসের জার্সি গায়ে মাঠ কাঁপিয়েছেন।

র‌্যাঙ্কিংসম্পাদনা

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে, ২০১৬ সালের অক্টোবর মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে সেন্ট কিট্‌স ও নেভিস তাদের ইতিহাসে সর্বপ্রথম সর্বোচ্চ অবস্থান (৭৩তম) অর্জন করে এবং ১৯৯৪ সালের নভেম্বর মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে তারা ১৭৬তম স্থান অধিকার করে, যা তাদের ইতিহাসে সর্বনিম্ন। অন্যদিকে, বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে সেন্ট কিট্‌স ও নেভিসের সর্বোচ্চ অবস্থান হচ্ছে ১০৯তম (যা তারা ২০০৩ সালে অর্জন করেছিল) এবং সর্বনিম্ন অবস্থান হচ্ছে ১৭৫। নিম্নে বর্তমানে ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং এবং বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে অবস্থান উল্লেখ করা হলো:

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং
২৭ মে ২০২১ অনুযায়ী ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং[২]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
১৩৩     টোগো ১১০৪.১৪
১৩৪     লিথুয়ানিয়া ১১০২.৮৪
১৩৫     সেন্ট কিট্‌স ও নেভিস ১০৯১.১২
১৩৬     সুরিনাম ১০৮৯.৪৩
১৩৭     তানজানিয়া ১০৮৮.০৫
বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং
২ জুন ২০২১ অনুযায়ী বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং[৩]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
১৫০   ১৩   কোমোরোস ১২৩৩
১৫১     ফিজি ১২৩০
১৫২     সেন্ট কিট্‌স ও নেভিস ১২২৫
১৫২     মায়োত ১২২৫
১৫৪   ১৪   মাল্টা ১২২৩

প্রতিযোগিতামূলক তথ্যসম্পাদনা

ফিফা বিশ্বকাপসম্পাদনা

ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
সাল পর্ব অবস্থান ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো
  ১৯৩০ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
  ১৯৩৪
  ১৯৩৮
  ১৯৫০
  ১৯৫৪
  ১৯৫৮
  ১৯৬২
  ১৯৬৬
  ১৯৭০
  ১৯৭৪
  ১৯৭৮
  ১৯৮২
  ১৯৮৬
  ১৯৯০
  ১৯৯৪
  ১৯৯৮ উত্তীর্ণ হয়নি
    ২০০২ ১৫
  ২০০৬ ১০ ১৮ ২৬
  ২০১০
  ২০১৪
  ২০১৮ ১৫ ১০
  ২০২২ অনির্ধারিত অনির্ধারিত
মোট ০/২১ ৩০ ১১ ১১ ৬৪ ৫৪

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. FIFA.com। "Member Association - St. Kitts and Nevis - FIFA.com"www.fifa.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০১-২৭ 
  2. "ফিফা/কোকা-কোলা বিশ্ব র‍্যাঙ্কিং"ফিফা। ২৭ মে ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ২৭ মে ২০২১ 
  3. গত এক বছরে এলো রেটিং পরিবর্তন "বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং"eloratings.net। ২ জুন ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ২ জুন ২০২১ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা