পটুয়াখালী জেলা

বাংলাদেশের বরিশাল বিভাগের একটি জেলা

পটুয়াখালী জেলা বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের বরিশাল বিভাগের একটি প্রশাসনিক অঞ্চল ও বাংলাদেশের একটি উপকূলীয় জেলা। অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমণ্ডিত পটুয়াখালী বরিশাল বিভাগের একটি সম্ভাবনাময় জেলা। পর্যটন নগরী কুয়াকাটা এ জেলার সবচেয়ে বড় আকর্ষণ। এখানে রয়েছে একসাথে সূর্যোদয় ও সূর্যাস্ত দেখার অপরূপ দৃশ্য যা বিশ্বে বিরল। তাই পর্যটকদের কাছে পটুয়াখালী "সাগরকন্যা" নামে পরিচিত। উপজেলা সংখ্যানুসারে পটুয়াখালী বাংলাদেশের একটি“এ”শ্রেণীভুক্ত জেলা।[১] মেঘনা নদীর অববাহিকায় পললভূমি এবং কিছু চরাঞ্চল নিয়ে এই জেলা গঠিত। পটুয়াখালী জেলা শহর একটি পূর্নাঙ্গ প্রশাসনিক অঞ্চল। এই জেলায় বিভিন্ন সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজসহ আছে প্রচুর সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান। পাকিস্তান আমলে ১৯৬৯ সালে পটুয়াখালী মহুকুমাকে একটি জেলায় উন্নীত করা হয়। দেশের সর্ববৃহৎ তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র, তৃতীয় বৃহৎ সমুদ্র বন্দর পায়রা বন্দর, সমুদ্র সৈকত কুয়াকাটা, দক্ষিণাঞ্চলের সর্বপ্রথম বিশ্ববিদ্যালয় পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, শেখ হাসিনা সেনানিবাস সহ এশিয়ার প্রথম পানি জাদুঘর পটুয়াখালী জেলায় অবস্থিত।

পটুয়াখালী
জেলা
ডান থেকে ঘড়ির কাঁটার দিকে: মজিদবাড়িয়া শাহী মসজিদ, গাজীপুর বন্দর বাজার, সোনারচর বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য, সূর্যাস্ত কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে
ডাকনাম: সাগরকন্যা
বাংলাদেশে পটুয়াখালী জেলার অবস্থান
বাংলাদেশে পটুয়াখালী জেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২২°২১′১৫″ উত্তর ৯০°১৯′৫″ পূর্ব / ২২.৩৫৪১৭° উত্তর ৯০.৩১৮০৬° পূর্ব / 22.35417; 90.31806 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশবাংলাদেশ
বিভাগবরিশাল বিভাগ
জেলা প্রতিষ্ঠা১ জানুয়ারি ১৯৬৯
জাতীয় সংসদের আসন৪টি
সরকার
 • জেলা প্রশাসকমোঃ নূর কুতুবুল আলম
আয়তন
 • মোট৩,২২১.৩১ বর্গকিমি (১,২৪৩.৭৫ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০২২)
 • মোট১৭,২৭,২৫৪
 • জনঘনত্ব৫৪০/বর্গকিমি (১,৪০০/বর্গমাইল)
সাক্ষরতার হার
 • মোট৬৫%
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
পোস্ট কোড৮৬০০ উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
প্রশাসনিক
বিভাগের কোড
১০ ৭৮
ওয়েবসাইটদাপ্তরিক ওয়েবসাইট উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন

ব্যুৎপত্তি

সম্পাদনা

প্রবন্ধকার ও বরিশালের ইতিহাস-গ্রন্থের লেখক সিরাজ উদ্দিন আহমেদ মতে,[২] স্থানীয়দের দ্বারা 'নটুয়া' নামে পরিচিত পর্তুগিজ জলদস্যুরা পটুয়াখালী শহরের উত্তরে অবস্থিত ভরণী খাল দিয়ে এসে আশেপাশের অঞ্চলে লুণ্ঠন চালাতো। 'নটুয়া' জলদস্যুরা এই খাল দিয়ে আসতো বলে খালটি 'নটুয়ার খাল' নামে পরিচিতি লাভ করে। কালক্রমে 'নটুয়ার খাল' নামটি 'পটুয়ার খাল' নামে বিবর্তিত হয়। এখান থেকেই 'পটুয়াখালী' নামটির উৎপত্তি বলে মনে করা হয়।[৩] ১৯৮০ সালে শেরেবাংলা টাউন হলে অনুষ্ঠিত "পটুয়াখালী জেলার ইতিহাস ও ঐতিহ্য" শীর্ষক সেমিনারে অধিকাংশ বক্তা সিরাজ উদ্দিন আহমেদ এই মতকে সমর্থন করেন।[২]

অপর সূত্রমতে, দেবেন্দ্রনাথ দত্তের পতুয়ার খাল কবিতাটির নাম থেকে 'পটুয়াখালী' নামটি এসেছে।[৩]

পটুয়াখালী নামকরণের অপর দুটি মত হচ্ছে– এই অঞ্চলে বসবাসকারী পটুয়াদের (যারা হাতে মৃৎপাত্র তৈরি করে তাতে নানা ধরনের পট বা ছবির সন্নিবেশ ঘটায়) থেকে 'পটুয়াখালী' নামের উৎপত্তি হয়ে থাকতে পারে অথবা পেট-আকৃতির খাল বেষ্টিত এলাকাই হয়তো 'পেটুয়াখালী' এবং পরবর্তীতে 'পটুয়াখালী' নামে অভিহিত হয়। তবে এই দুটি অভিমতের কোনো জোরালো সমর্থন মেলেনি।[২]

ইতিহাস

সম্পাদনা

১৬ শতকের প্রারম্ভে আজকের পটুয়াখালী অঞ্চল পর্তুগিজ জলদস্যুদের ডাকাতির অন্যতম এলাকা ছিল।[৩]

আধুনিক পটুয়াখালী শহরের বয়স প্রায় দেড়শ বছর। ১৮০৭ সালে বরিশালের জজ-ম্যাজিস্ট্রেট হয়ে আসেন মি. বেটি। দক্ষিণাঞ্চলের সুন্দরবন কেটে বসত বৃদ্ধি পাওয়ায় বেটির শাসন আমলেই ১৮১২ সালে পটুয়াখালীকে নিয়ে গঠন করা হয় মির্জাগঞ্জ থানা। পরবর্তীতে দেওয়ানী শাসন প্রসারের জন্য ১৮১৭ সালে বরিশালে স্থাপন করা হয় পৃথক ৪টি মুন্সেফী চৌকি। এগুলো হলো বাউফল, কাউখালী, মেহেন্দিগঞ্জ ও কোটের হাট চৌকি। বাউফল চৌকির প্রথম মুন্সেফ হয়ে আসেন ব্রজমোহন দত্ত। ১৮৬০ সালের ১ জুন বাউফল থেকে চৌকি স্থানান্তর করা হয় লাউকাঠীতে।[২]

ব্রজ মোহন দত্ত লাউকাঠী চৌকিরও মুন্সেফ ছিলেন। ব্রজ মোহন দত্ত প্রস্তাব করেন পটুয়াখালী নতুন মহকুমা প্রতিষ্ঠার।[২] ২৭ মার্চ ১৮৬৭ তারিখে কলিকাতা গেজেটের মাধ্যমে বাকেরগঞ্জ জেলার মহকুমা হিসেবে পটুয়াখালী মহকুমা সৃষ্টির ঘোষণা প্রকাশিত হয়। ১৮৭১ সালে পটুয়াখালী মহকুমায় রূপান্তরিত হয়। ১৯৬৯ সালে পটুয়াখালী মহকুমাকে জেলায় উন্নীত করা হয়। ১ জানুয়ারি ১৯৬৯ সাবেক পূর্ব পাকিস্তানের ১৮তম জেলা হিসেবে পটুয়াখালী জেলার প্রশাসনিক কার্যক্রম শুরু হয়।[৩] ১৯৬৯ সালের ৯ মার্চ পটুয়াখালী জেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর ভাইস এডমিরাল এস. এম. আহসান। পটুয়াখালীর প্রথম জেলা প্রশাসক ছিলেন হাবিবুল ইসলাম।[২] ২৮ ফেব্রুয়ারি ১৯৮৪ বরগুনা মহকুমাকে পটুয়াখালী জেলা থেকে পৃথক করে জেলায় উন্নীত করা হয়।[৩]

পাকিস্তান আমল থেকেই বৃহত্তর বরিশাল ও পটুয়াখালী ছিল খুলনা বিভাগের অন্তর্গত; পরবর্তীকালে সরকারের প্রশাসনিক পুনর্বিন্যাস কার্যক্রমের সূত্রে ১৯৯৩ সালে ১ জানুয়ারি বৃহত্তর বরিশাল ও পটুয়াখালীর ছয়টি জেলা বরগুনা, বরিশাল, পটুয়াখালী, ভোলা, পিরোজপুর ও ঝালকাঠি জেলা নিয়ে বাংলাদেশের পঞ্চম বিভাগ বরিশাল গঠিত হয়।[২]

মুক্তিযুদ্ধের সময়

সম্পাদনা

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় পটুয়াখালী ৯নং সেক্টরের অন্তর্ভুক্ত ছিল। ২৯ নভেম্বর বাউফল উপজেলা, ৫ ডিসেম্বর গলাচিপারাঙ্গাবালী উপজেলা, ৬ ডিসেম্বর কলাপাড়া উপজেলা এবং ৮ ডিসেম্বর দশমিনা, দুমকি, পটুয়াখালী সদরমির্জাগঞ্জ উপজেলা পাকিস্তানি বাহিনী মুক্ত হয়।[৩]

অবস্থান ও আয়তন

সম্পাদনা

পটুয়াখালী জেলার উত্তরে বরিশাল জেলা, দক্ষিণে বঙ্গোপসাগর, পূর্বে ভোলা জেলা, পশ্চিমে বরগুনা জেলা। জেলার আয়তন প্রায় ৩,২২১.৩১ বর্গ কিলোমিটার।

প্রশাসনিক এলাকাসমূহ

সম্পাদনা

পটুয়াখালী জেলা ৮টি উপজেলা, ৯টি থানা, ৫টি পৌরসভা, ৭৬টি ইউনিয়ন ও ৪টি সংসদীয় আসন নিয়ে গঠিত।

পটুয়াখালী জেলায় মোট ৮টি উপজেলা রয়েছে। উপজেলাগুলো হল:

ক্রম নং উপজেলা আয়তন
(বর্গ কিলোমিটারে)
প্রশাসনিক থানা আওতাধীন এলাকাসমূহ
০১ কলাপাড়া ৪৯১.৮৯ কলাপাড়া পৌরসভা (১টি): কলাপাড়া
ইউনিয়ন (৮টি): চাকামইয়া, টিয়াখালী, লালুয়া, মিঠাগঞ্জ, নীলগঞ্জ, ধানখালী, বালিয়াতলী এবং চম্পাপুর
মহিপুর পৌরসভা (১টি): কুয়াকাটা
ইউনিয়ন (৪টি): মহিপুর, লতাচাপলী, ধুলাসার এবং ডালবুগঞ্জ
০২ গলাচিপা ৯২৪.৬৮ গলাচিপা পৌরসভা (১টি): গলাচিপা
ইউনিয়ন (১২টি): আমখোলা, গোলখালী, গলাচিপা, পানপট্টি, রতনদী তালতলী, ডাকুয়া, চিকনিকান্দি, বকুলবাড়িয়া, কলাগাছিয়া, গজালিয়া, চর কাজল এবং চর বিশ্বাস
০৩ দশমিনা ৩৫১.৮৮ দশমিনা ইউনিয়ন (৭টি): রণগোপালদী, আলীপুর, বেতাগী সানকিপুর, দশমিনা, বহরমপুর, বাঁশবাড়িয়া এবং চর বোরহান
০৪ দুমকি ৯২.৪২ দুমকি ইউনিয়ন (৫টি): পাংগাশিয়া, লেবুখালী, মুরাদিয়া, আংগারিয়া এবং শ্রীরামপুর
০৫ পটুয়াখালী সদর ৩৬২.৪৭ পটুয়াখালী সদর পৌরসভা (১টি): পটুয়াখালী
ইউনিয়ন (১৩টি): লাউকাঠী, বদরপুর, ইটবাড়িয়া, লোহালিয়া, কমলাপুর, জৈনকাঠী, কালিকাপুর, মাদারবুনিয়া, ছোট বিঘাই, মরিচবুনিয়া, আউলিয়াপুর, ভুরিয়া এবং বড় বিঘাই
০৬ বাউফল ৪৮৭.১০ বাউফল পৌরসভা (১টি): বাউফল
ইউনিয়ন (১৫টি): কাছিপাড়া, কালিশুরী, ধুলিয়া, কেশবপুর, সূর্য্যমনি, কনকদিয়া, বগা, মদনপুরা, নাজিরপুর, কালাইয়া, দাশপাড়া, বাউফল, আদাবাড়িয়া, নওমালা এবং চন্দ্রদ্বীপ
০৭ মির্জাগঞ্জ ১৬৭.১৮ মির্জাগঞ্জ ইউনিয়ন (৬টি): মাধবখালী, মির্জাগঞ্জ, আমড়াগাছিয়া, দেউলী সুবিদখালী, কাঁকড়াবুনিয়া এবং মজিদবাড়িয়া
০৮ রাঙ্গাবালী ৩৪৩.৬৯ রাঙ্গাবালী ইউনিয়ন (৬টি): চালিতা বুনিয়া, রাঙ্গাবালী, ছোট বাইশদিয়া, বড় বাইশদিয়া, মৌডুবী এবং চরমোন্তাজ

সংসদীয় আসন

সম্পাদনা
সংসদীয় আসন জাতীয় নির্বাচনী এলাকা[৪] সংসদ সদস্য[৫][৬][৭][৮][৯] রাজনৈতিক দল
১১১ পটুয়াখালী-১ মির্জাগঞ্জ উপজেলা, দুমকি উপজেলা এবং পটুয়াখালী সদর উপজেলা এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি
১১২ পটুয়াখালী-২ বাউফল উপজেলা ও পটুয়াখালী সদর উপজেলার লোহালিয়া ও কমলাপুর ইউনিয়ন আ. স. ম. ফিরোজ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
১১৩ পটুয়াখালী-৩ দশমিনা উপজেলা এবং গলাচিপা উপজেলা এস এম শাহাজাদা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
১১৪ পটুয়াখালী-৪ কলাপাড়া উপজেলা এবং রাঙ্গাবালী উপজেলা মহিববুর রহমান বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ

জনসংখ্যার উপাত্ত

সম্পাদনা
ঐতিহাসিক জনসংখ্যা
বছরজন.ব.প্র. ±%
১৯৭৪ ৯,৩৭,০০৬—    
১৯৮১ ১১,৬৫,০৭৬+৩.১৬%
১৯৯১ ১২,৭৩,৮৭২+০.৯%
২০০১ ১৪,৬০,৭৮১+১.৩৮%
২০১১ ১৫,৩৫,৮৫৪+০.৫%
উৎস:[১০]

২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী পটুয়াখালী জেলার মোট জনসংখ্যা ১৫,৩৫,৮৫৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ৭,৫৩,৪৪১ জন এবং মহিলা ৭,৮২,৪১৩ জন। মোট পরিবার ৩,৪৬,৪৬২টি।[১১]

শিক্ষা

সম্পাদনা

২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী পটুয়াখালী জেলার সাক্ষরতার হার ৬৫%। জেলায় উচ্চ শিক্ষার জন্য একটি বিশ্ববিদ্যালয় পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, একটি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ পটুয়াখালী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট ও একটি মেডিকেল কলেজ পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ রয়েছে। এছাড়াও পটুয়াখালী শতবর্ষী চারটি স্কুল রয়েছে। এগুলো হলো

  • বাউফল সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়।
  • পটুয়াখালী সরকারি জুবিলী উচ্চবিদ্যালয়
  • লতিফ মিউনিসিপ্যাল সেমিনারি,পটুয়াখালী
  • পটুয়াখালী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

সম্পাদনা

উৎপাদিত ফল

সম্পাদনা

দেশের সর্বদক্ষিণের এই জেলায় তরমুজ,নারিকেল, গাব,কাঠাল,আম,লিচু,আনারস সহ নানান জাতের ফসল ফলে। সাম্প্রতিক সময়ে তরমুজের জন্য এই জেলা হয়ে উঠেছে অন্যতম গুরুত্বপূর্ন ফল উৎপাদন স্থান।

[১২]

অর্থনীতি

সম্পাদনা
মৎস্য সম্পদ

পটুয়াখালী জেলা মৎস্য সম্পদে সমৃদ্ধ। নদী বিধৌত পটুয়াখালী জেলার খাল-বিল, পুকুর, নালা, নিম্নভূমি গুলো মৎস্য সম্পদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই জেলার নদী মোহনাগুলো ইলিশ মাছের জন্য বিখ্যাত।

বনভূমি

পটুয়াখালী জেলার বনাঞ্চলের পরিমাণ খুবই কম। বনাঞ্চলের উল্লেখযোগ্য গাছের নাম কেওড়া, গেওয়া, কাকড়া, বাবুল, শিরিষ, করাই, হিজল, গাব, গোলপাতা ইত্যাদি।

শিল্প ও ব্যবসা বাণিজ্য
  • কুটির শিল্প
  • মৃৎশিল্প
  • পাট শিল্প
  • বিড়ি শিল্প
  • মাছের ব্যবসায়
  • গাছের ব্যবসায়
  • চাল ও ডালের ব্যবসায়।

পটুয়াখালীতে ব্যবসা-বাণিজ্য দিন দিন বিকশিত হচ্ছে। এখানে রয়েছে অটো রাইস মিল, রাইস মিল, ইট ভাটা, বিস্কুট ফ্যাক্টরী, সিনেমা হল, ফিলিং স্টেশন, ব্যাংক-বীমা প্রতিষ্ঠান।

চিত্তাকর্ষক স্থান

সম্পাদনা
 
পটুয়াখালীর কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকত

উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্ব

সম্পাদনা
  • শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হক।
  • শ্রী শিবন মজুমদার (অষ্টাদশ শতকের প্রথমভাগ), মুর্শিদকুলী খানের খাজাঞ্চি, গ্রাম- শ্রীরামপুর।
  • মোহাম্মদ কেরামত আলী (১ জানুয়ারি ১৯২৬ - ৪ জুন ২০০৪), বাংলাদেশ সরকারের বেশ কয়েকটি মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীসহ সরকারের প্রশাসনিক বিভাগে মন্ত্রীপরিষদ বিভাগের সচিবের দায়িত্বও পালন করেছেন; গ্রাম- শ্রীরামপুর।
  • রফিকুল ইসলাম (১৯৩৬ - ২৯ জুলাই ১৯৭১), শহীদ বুদ্ধিজীবী ও অধ্যাপক; গ্রাম- শ্রীরামপুর।
  • দীনেশচন্দ্র সেন (১৯০৩ - ৩ আগস্ট ১৯৭৪), বৃটিশ বিরোধী স্বাধীনতা সংগ্রামী।
  • লাবণ্যপ্রভা দাশগুপ্ত (জন্ম ১৯০৩ - ২১ ফেব্রুয়ারি ১৯৮৪), বৃটিশ বিরোধী স্বাধীনতা সংগ্রামী।
  • শেখ কবির মাহমুদ (১৮ শতক), ইসলাম ধর্ম প্রচারক; গ্রাম: লোহালিয়া।
  • গাজী পঞ্চম আলী হাওলাদার (১৯২৬ - ১০ ফেব্রুয়ারি ১৯৯৪), মুক্তিযুদ্ধকালে বাউফলের বেইজ কমান্ডার; গ্রাম: ধুলিয়া।
  • সৈয়দ আশরাফ হোসেন (১৩ডিসেম্বর ১৯২৯ - ৩ মে ২০০৮), রাজনীতিবিদ, ভাষাসৈনিক, ও এমপিএ; গ্রাম: ধুলিয়া।
  • আবদুল আজিজ খন্দকার, এডভোকেট (১৯২৩- ১৯৯১), রাজনীতিবিদ, ১৯৭০ সালে এমপিএ, ১৯৭৩ সালে এমপি; গ্রাম: বৌলতলা।
  • এম. এ. মুনএম (১৯৩৫ - ১৯৯৯), সাবেকমন্ত্রী; গ্রাম: কারখানা।
  • মনোরঞ্জন সিকদার (১৯১৩ - ২৭ ডিসেম্বর ১৯৭৬), ১৯৫৬ সনে প্রাদেশিক মন্ত্রীসভার স্বাস্থ্যমন্ত্রী; গ্রাম: কর্পুরকাঠী।
  • সাইয়েদুল আরেফিন (র.) (পঞ্চদশ শতক), সুফী-সাধক ও ইসলাম প্রচারক।
  • ডা. মোখলেছুর রহমান (১৯৩৪ - ৪ এপ্রিল ২০১৬), বরিশাল জেলা পরিষদের প্রশাসক; গ্রাম: কেশবপুর।

গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা

সম্পাদনা

আনুসঙ্গিক নিবন্ধ

সম্পাদনা

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. "জেলাগুলোর শ্রেণি হালনাগাদ করেছে সরকার"। বাংলানিউজ২৪। ১৭ আগস্ট ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০২০ 
  2. "পতুয়ার খাল থেকে পটুয়াখালী :: দৈনিক ইত্তেফাক"archive.ittefaq.com.bd (Bengali ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০৫ 
  3. উদ্দিন, জসিম; মামুন, রেজাউল করিম; খান, মো. ইউসুফ; ইসলাম, মো. সাবিরুল; রাব্বানী, গোলাম; হোসেন, জোনাইদ, সম্পাদকগণ (মে ২০২৩)। প্রফেসর’স কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স। মাসিক (২৮ সংস্করণ)। বাংলাবাজার, ঢাকা: প্রফেসর’স। পৃষ্ঠা ৯২। 
  4. "Election Commission Bangladesh - Home page"www.ecs.org.bd 
  5. "বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, জানুয়ারি ১, ২০১৯" (পিডিএফ)ecs.gov.bdবাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন। ১ জানুয়ারি ২০১৯। ২ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৯ 
  6. "সংসদ নির্বাচন ২০১৮ ফলাফল"বিবিসি বাংলা। ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  7. "একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ফলাফল"প্রথম আলো। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  8. "জয় পেলেন যারা"দৈনিক আমাদের সময়। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  9. "আওয়ামী লীগের হ্যাটট্রিক জয়"সমকাল। ২৭ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  10. "Zila Series: Patuakhali" (পিডিএফ)বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো। ২০১১। 
  11. "ইউনিয়ন পরিসংখ্যান সংক্রান্ত জাতীয় তথ্য" (পিডিএফ)web.archive.org। Wayback Machine। Archived from the original on ৮ ডিসেম্বর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৬ নভেম্বর ২০১৯ 
  12. Bangladesh District Gazetteers:Bogra. Government of Bangladesh. 1979, pp. 16-16
  13. "দশমিনায় এশিয়ার বৃহত্তম বীজ বর্ধন খামার"দৈনিক ইত্তেফাক। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০২১ 

বহিঃসংযোগ

সম্পাদনা