জিবুতি জাতীয় ফুটবল দল

জিবুতি জাতীয় ফুটবল দল (ইংরেজি: Djibouti national football team) হচ্ছে আন্তর্জাতিক ফুটবলে জিবুতির প্রতিনিধিত্বকারী পুরুষদের জাতীয় দল, যার সকল কার্যক্রম জিবুতির ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা জিবুতীয় ফুটবল ফেডারেশন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। এই দলটি ১৯৯৪ সাল হতে ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা ফিফার এবং একই বছর হতে তাদের আঞ্চলিক সংস্থা আফ্রিকান ফুটবল কনফেডারেশনের সদস্য হিসেবে রয়েছে। ১৯৪৭ সালের ৫ই ডিসেম্বর তারিখে, জিবুতি প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক খেলায় অংশগ্রহণ করেছে; ইথিওপিয়ায় অনুষ্ঠিত উক্ত ম্যাচে জিবুতি ইথিওপিয়ার কাছে ৫–০ গোলের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছে।

জিবুতি
ডাকনামলোহিত সাগরের তীরবর্তী ব্যক্তি
অ্যাসোসিয়েশনজিবুতীয় ফুটবল ফেডারেশন
কনফেডারেশনক্যাফ (আফ্রিকা)
প্রধান কোচজুলিয়েঁ মেতে
অধিনায়কদাউদ ওয়াইস
সর্বাধিক ম্যাচমুসা হিরির (২৫)
শীর্ষ গোলদাতামাহদি হুসাইন মাহাবিহ (৬)
মাঠআল-হাজ হাসান গুলিদ আবতিদুন স্টেডিয়াম
ফিফা কোডDJI
ওয়েবসাইটwww.fdf.dj
প্রথম জার্সি
দ্বিতীয় জার্সি
ফিফা র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ১৮৫ হ্রাস ৩ (১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১)[১]
সর্বোচ্চ১৬৯ (ডিসেম্বর ১৯৯৪)
সর্বনিম্ন২০৭ (এপ্রিল–জুলাই ২০১৫, নভেম্বর ২০১৫)
এলো র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ২০১ বৃদ্ধি ১ (১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১)[২]
সর্বোচ্চ৯৪ (১৯৪৭)
সর্বনিম্ন২১৪ (২০১৬)
প্রথম আন্তর্জাতিক খেলা
 ইথিওপিয়া ৫–০ ফরাসি সোমালিল্যান্ড
(ইথিওপিয়া; ৫ ডিসেম্বর ১৯৪৭)
বৃহত্তম জয়
 জিবুতি ৪–১ দক্ষিণ ইয়েমেন 
(জিবুতি সিটি, জিবুতি; ২৬ ফেব্রুয়ারি ১৯৮৮)
বৃহত্তম পরাজয়
 উগান্ডা ১০–১ জিবুতি 
(কিগালি, রুয়ান্ডা; ৯ ডিসেম্বর ২০০১)
 রুয়ান্ডা ৯–০ জিবুতি 
(দারুস সালাম, তানজানিয়া; ১৩ ডিসেম্বর ২০০৭

২০,০০০ ধারণক্ষমতাবিশিষ্ট আল-হাজ হাসান গুলিদ আবতিদুন স্টেডিয়ামে লোহিত সাগরের তীরবর্তী ব্যক্তি নামে পরিচিত এই দলটি তাদের সকল হোম ম্যাচ আয়োজন করে থাকে। এই দলের প্রধান কার্যালয় জিবুতির রাজধানী জিবুতিতে অবস্থিত। বর্তমানে এই দলের ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করছেন জুলিয়েঁ মেতে এবং অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছেন জিবুতি টেলিকমের রক্ষণভাগের খেলোয়াড় দাউদ ওয়াইস

জিবুতি এপর্যন্ত একবারও ফিফা বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করতে পারেনি। অন্যদিকে, আফ্রিকা কাপ অফ নেশন্সেও জিবুতি এপর্যন্ত একবারও অংশগ্রহণ করতে সক্ষম হয়নি।

মুহাম্মদ লিবান, সামির কদর, মিয়াদ চার্মারে, আব্দি ইদলাহ হামজা এবং মাহদি হুসাইন মাহাবিহের মতো খেলোয়াড়গণ জিবুতির জার্সি গায়ে মাঠ কাঁপিয়েছেন।

র‌্যাঙ্কিংসম্পাদনা

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে, ১৯৯৪ সালের ডিসেম্বর মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে জিবুতি তাদের ইতিহাসে সর্বোচ্চ অবস্থান (১৬৯তম) অর্জন করে এবং ২০১৫ সালের এপ্রিল মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে তারা ২০৭তম স্থান অধিকার করে, যা তাদের ইতিহাসে সর্বনিম্ন। অন্যদিকে, বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে জিবুতির সর্বোচ্চ অবস্থান হচ্ছে ৯৪তম (যা তারা ১৯৪৭ সালে অর্জন করেছিল) এবং সর্বনিম্ন অবস্থান হচ্ছে ২১৪। নিম্নে বর্তমানে ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং এবং বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে অবস্থান উল্লেখ করা হলো:

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং
১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ অনুযায়ী ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং[১]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
১৮৩     ডোমিনিকা ৯১৬.৭২
১৮৪     মঙ্গোলিয়া ৯১৬.৬৮
১৮৫     জিবুতি ৯১২.৫৭
১৮৬     লাওস ৯১২.০৭
১৮৭     ভুটান ৯১০.৯৬
বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং
১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ অনুযায়ী বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং[২]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
১৯৯     চীনা তাইপেই ৯০৫
২০০     মোনাকো ৯০৩
২০১     জিবুতি ৮৯৭
২০২     সেশেলস ৮৯৪
২০৩     কেইম্যান দ্বীপপুঞ্জ ৮৯৩

প্রতিযোগিতামূলক তথ্যসম্পাদনা

ফিফা বিশ্বকাপসম্পাদনা

ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
সাল পর্ব অবস্থান ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো
  ১৯৩০ ফ্রান্সের অংশ ছিল ফ্রান্সের অংশ ছিল
  ১৯৩৪
  ১৯৩৮
  ১৯৫০
  ১৯৫৪
  ১৯৫৮
  ১৯৬২
  ১৯৬৬
  ১৯৭০
  ১৯৭৪
  ১৯৭৮ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
  ১৯৮২
  ১৯৮৬
  ১৯৯০
  ১৯৯৪
  ১৯৯৮
    ২০০২ উত্তীর্ণ হয়নি ১০
  ২০০৬ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
  ২০১০ উত্তীর্ণ হয়নি ৩০
  ২০১৪
  ২০১৮
  ২০২২ অনির্ধারিত অনির্ধারিত
মোট ০/২১ ১৩ ১২ ৫৬

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "ফিফা/কোকা-কোলা বিশ্ব র‍্যাঙ্কিং"ফিফা। ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ 
  2. গত এক বছরে এলো রেটিং পরিবর্তন "বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং"eloratings.net। ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা