ওয়েল্‌স্‌

উত্তর-পশ্চিম ইউরোপের দেশ, যুক্তরাজ্যের অংশ
(ওয়েল্‌স থেকে পুনর্নির্দেশিত)

ওয়েলস (ওয়েলশ: Cymru টেমপ্লেট:IPA-cy) হলো গ্রেট ব্রিটেন দ্বীপের একটি দেশ যা যুক্তরাজ্যের অংশ। এর পূর্বে ইংল্যান্ড, উত্তর ও পশ্চিমে আইরিশ সাগর, দক্ষিণ-পশ্চিমে সেল্টিক সাগর এবং দক্ষিণে ব্রিস্টল চ্যানেল অবস্থিত। ২০২১ সালে এর জনসংখ্যা ছিল ৩,১০৭,৫০০ এবং এর মোট এলাকা ২০,৭৭৯ কিমি (৮,০২৩ মা)। ওয়েলসের ১,৬৮০ মাইল (২,৭০০ কিমি) এরও বেশি উপকূলরেখা রয়েছে এবং স্নোডন (ইয়ার ওয়াইডফা) সহ উত্তর ও মধ্য অঞ্চলে এর উচ্চতর চূড়াগুলোর কারণে এটি মূলত পার্বত্য এলাকা। দেশটি উত্তর নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চলের মধ্যে অবস্থিত এবং একটি পরিবর্তনশীল, সামুদ্রিক জলবায়ু রয়েছে। রাজধানী এবং বৃহত্তম শহর কার্ডিফ

ওয়েল্‌স্‌

ওয়েল্‌স্‌ জাতীয় পতাকা
Flag
ওয়েল্‌স্‌
জাতীয় মর্যাদাবাহী নকশা
জাতীয় সঙ্গীত: "Hen Wlad Fy Nhadau"
("Land of My Fathers")
 ওয়েল্‌স্‌-এর অবস্থান (dark green) – Europe-এ (green & dark grey) – the United Kingdom-এ (green)
 ওয়েল্‌স্‌-এর অবস্থান (dark green)

– Europe-এ (green & dark grey)
– the United Kingdom-এ (green)

অবস্থাদেশ
রাজধানী
ও বৃহত্তম নগরী বা বসতি
কার্ডিফ
৫১°২৯′ উত্তর ৩°১১′ পশ্চিম / ৫১.৪৮৩° উত্তর ৩.১৮৩° পশ্চিম / 51.483; -3.183
দাপ্তরিক ভাষা
নৃগোষ্ঠী
ধর্ম
(2021)
জাতীয়তাসূচক বিশেষণওয়েলশ
সরকার [সংসদীয় ব্যবস্থা|সংসদীয় সাংবিধানিক রাজতন্ত্র এর মধ্যে সংসদীয় আইনসভা
• Monarch
তৃতীয় চার্লস
মার্ক ড্রেকফোর্ড
Parliament of the United Kingdom
• Secretary of Stateডেভিড টিসি ডেভিস
• House of Commons40 MPs (of 650)
আইন-সভাসেনেড
গঠন
• গ্রুফিড আপ লিওয়েলিন কর্তৃক একীভূত
1057[১]
3 March 1284
1543
27 July 1967
31 July 1998
আয়তন
• Total
২০,৭৭৯ কিমি (৮,০২৩ মা)
জনসংখ্যা
• 2022 আনুমানিক
নিরপেক্ষ বৃদ্ধি 3,267,501[৬]
• 2021 আদমশুমারি
নিরপেক্ষ বৃদ্ধি 3,107,500[৭]
• ঘনত্ব
১৫০/কিমি (৩৮৮.৫/বর্গমাইল)
GVA2020[৯] estimate
 • Total£67 billion
 • Per capita£21,010[৮]
জিডিপি (মনোনীত)আনুমানিক
• মোট
£75.7 billion (2020)[১০]
মানব উন্নয়ন সূচক (2019)বৃদ্ধি 0.901[১১]
অতি উচ্চ
মুদ্রাPound sterling (GBP£)
সময় অঞ্চলইউটিসি (GMT)
• গ্রীষ্মকালীন (ডিএসটি)
ইউটিসি+1 (British Summer Time)
তারিখ বিন্যাসdd/mm/yyyy (AD)
গাড়ী চালনার দিকleft
কলিং কোড+44
ইন্টারনেট টিএলডি.wales .cymru [a]
ওয়েবসাইট
wales.com
  1. ^ Both .wales and .cymru are not ccTLDs, but GeoTLDs, open to use by all people in Wales and related to Wales. .uk as part of the United Kingdom is also used. ISO 3166-1 is GB, but .gb is unused.

২০২১ সালে এর জনসংখ্যা ছিল ৩,১০৭,৫০০ এবং এর মোট আয়তন ২০,৭৭৯ কিমি২ (৮,০২৩ বর্গ মাইল)। ওয়েলসের ১,৬৮০ মাইল (২,৭০০ কিমি) দেশটি উত্তর নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চলের মধ্যে অবস্থিত এবং একটি পরিবর্তনযোগ্য, সামুদ্রিক জলবায়ু রয়েছে। রাজধানী এবং বৃহত্তম শহর কার্ডিফ।

৫ম শতাব্দীতে ব্রিটেন থেকে রোমানদের প্রত্যাহারের পর সেল্টিক ব্রিটেনদের মধ্যে ওয়েলশ জাতীয় পরিচয় উদ্ভূত হয় এবং ১০৫৫ সালে গ্রুফিড এপি লিওয়েলিনের অধীনে ওয়েলস একটি রাজ্য হিসেবে গঠিত হয়। ওয়েলসকে কেল্টিক দেশগুলোর মধ্যে একটি হিসাবে গণ্য করা হয়। ২০০ বছরেরও বেশি যুদ্ধের পর, ১২৮৩ সালের মধ্যে ইংল্যান্ডের রাজা প্রথম এডওয়ার্ডের ওয়েলস বিজয় সম্পন্ন হয়। যদিও ১৫ শতকের গোড়ার দিকে ওওয়েন গ্লিন্ডর ইংরেজ শাসনের বিরুদ্ধে ওয়েলশ বিদ্রোহের নেতৃত্ব দেন এবং সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য একটি স্বাধীন ওয়েলশ রাষ্ট্র পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করেন। এর নিজস্ব জাতীয় সংসদ সেনেড্ড (ওয়েলশ: senedd) ছিল। ১৬ শতকে ইংল্যান্ড সমগ্র ওয়েলসকে নিজেদের সাথে সংযুক্ত করে এবং ১৫৩৫ ও ১৫৪২ সালের ওয়েলস আইনের অধীনে ইংরেজী আইনি ব্যবস্থার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল দেশটি। ১৯ শতকে স্বতন্ত্র ওয়েলশ রাজনীতির বিকাশ ঘটে। ডেভিড লয়েড জর্জ দ্বারা ২০ শতকের প্রথম দিকে স্বতন্ত্র ওয়েলশ রাজনীতির উদাহরণ হিসেবে ছিল ওয়েলশ লিবারেলিজম। সমাজতন্ত্রলেবার পার্টির ক্রমবর্ধমান বৃদ্ধির ফলে পরবর্তী কালে এটি অজনপ্রিয় হয়ে গিয়েছিল। ওয়েলশ জাতীয় অনুভূতি শতাব্দী ধরে বেড়েছে। এর ধারাবাহিকয়াউ ১৯২৫ সালে প্লেইড সিমরু এনামের কটি জাতীয়তাবাদী দল এবং ১৯৬২ সালে ওয়েলশ ভাষা সোসাইটি গঠিত হয়। ওয়েলশ বিকেন্দ্রীকরণের একটি শাসন ব্যবস্থা ওয়েলসে নিযুক্ত করা হয়। এর মধ্যে সবচেয়ে বড় পদক্ষেপ ছিল ১৯৯৮ সালে ওয়েলশ পার্লামেন্ট (Senedd; পূর্বে ওয়েলসের জাতীয় পরিষদ) গঠন। এটি ওয়েলসের বিভিন্ন নীতিগত বিষয়ের সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য দায়ী।

শিল্প বিপ্লবের প্রারম্ভে, খনি ও ধাতুবিদ্যা শিল্পের বিকাশ দেশটিকে একটি কৃষি সমাজ থেকে একটি শিল্প সমাজে রূপান্তরিত করে। সাউথ ওয়েলসের কয়লাক্ষেত্রের শোষণ ওয়েলসের জনসংখ্যার দ্রুত সম্প্রসারণ ঘটায়। জনসংখ্যার দুই-তৃতীয়াংশ কার্ডিফ, সোয়ানসি, নিউপোর্ট এবং নিকটবর্তী উপত্যকা সহ সাউথ ওয়েলসে বাস করে। উত্তর ওয়েলসের পূর্বাঞ্চলে মোট জনসংখ্যার প্রায় এক ষষ্ঠাংশ রয়েছে। রেক্ সহ্যাম হচ্ছে উত্তরের বৃহত্তম শহর। ওয়েলসের অবশিষ্ট অংশগুলো খুব কম জনবহুল। এখন যেহেতু দেশের ঐতিহ্যবাহী নিষ্কাশন এবং ভারী শিল্প চলে গেছে বা হ্রাস পাচ্ছে, তাই এর অর্থনীতি সরকারি খাত, হালকা এবং পরিষেবা শিল্প এবং পর্যটনের উপর ভিত্তি করে পরিচালিত। ওয়েলসের কৃষি মূলত পশুসম্পদ ভিত্তিক। এটি ওয়েলসকে পশু উৎপাদনের একটি বড় রপ্তানিকারক করে তোলে। এর ফলে অঞ্চলটি জাতীয় কৃষি স্বয়ংসম্পূর্ণতার দিকে অবদান রাখে।

দেশটির একটি স্বতন্ত্র জাতীয় ও সাংস্কৃতিক পরিচয় রয়েছে। ১৯ শতকের শেষের দিক থেকে ওয়েলস তার কিছু অংশে ইস্টেডফোড ঐতিহ্য ও উত্তেজনাপূর্ণ গায়কদলের গানের কারণে জনপ্রিয় উপাধি "গানের দেশ" অর্জন করে। ওয়েলশ এবং ইংরেজি উভয়ই ওয়েলসের সরকারি ভাষা। বেশিরভাগ এলাকার জনসংখ্যার একটি সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশ ইংরেজিতে কথা বলে। উত্তর ও পশ্চিমের কিছু অংশের জনসংখ্যার অধিকাংশই ওয়েলশ ভাষায় কথা বল। সমগ্র দেশে মোট ৫৩৮,৩০০ জন ওয়েলশ ভাষাভাষী ।

ব্যুৎপত্তি সম্পাদনা

ইংরেজি শব্দ "ওয়েলস" এবং "ওয়েলশ" একই পুরাতন ইংরেজি মূল (একবচন Wealh , বহুবচন Wēalas) থেকে এসেছে। এটি প্রোটো-জার্মানিক *Walhaz শব্দটির উত্তরসূরী। এই শব্দটি আবার রোমানদের কাছে ভলকা নামে পরিচিত গলদের নাম থেকে উদ্ভূত হয়েছিল। এই শব্দটি পরে পশ্চিম রোমান সাম্রাজ্যের বাসিন্দাদের নির্বিচারে উল্লেখ করতে ব্যবহৃত হয়েছিল।[১২] অ্যাংলো-স্যাক্সনরা বিশেষ করে ব্রিটিশদের বোঝাতে এই শব্দটি ব্যবহার করতে এসেছিল। বহুবচন রূপ Wēalas তাদের ভূখণ্ড, ওয়েলসের নামে বিকশিত হয়েছে।[১৩][১৪] ঐতিহাসিকভাবে ব্রিটেনে, শব্দগুলো আধুনিক ওয়েলস বা ওয়েলশের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল না তবে ব্রিটেনের অন্যান্য অ-জার্মানিক অঞ্চল সহ ব্রিটেনের সাথে যুক্ত অ্যাংলো-স্যাক্সনদের (যেমন কর্নওয়াল) এবং ব্রিটিশদের সাথে যুক্ত অ্যাংলো-স্যাক্সন অঞ্চলের স্থানগুলো (যেমন কাউন্টি ডারহামের ওয়ালওয়ার্থ এবং ওয়েস্ট ইয়র্কশায়ারের ওয়ালটন) বোঝাতে ব্যবহৃত হত ।[১৫] ওয়েলশ জাতিভূক্তদের নিজেদের জন্য আধুনিক ওয়েলশ নাম Cymry , এবং Cymru ওয়েলসের ওয়েলশ নাম। এই শব্দগুলো (উভয়ই [ˈkəm.rɨ]) উচ্চারিত এবং ব্রাইথোনিক শব্দ কমব্রোগি থেকে এসেছে। এর অর্থ " সহ-দেশবাসী"।[১৬][১৭] এটি সম্ভবত ৭ম শতাব্দীর আগে ব্যবহার করা হয়েছিল।[১৮] সাহিত্যে তাদের Kymry বানান করা যেতে পারে। অথবা Cymry শব্দটার ওয়েলশ জাতি বা তাদের স্বদেশ নির্বিশেষে উল্লেখ করা হয়ে থাকে।[১৬] ক্যামব্রিয়ান, ক্যামব্রিক এবং ক্যামব্রিয়া নামের ল্যাটিনাইজড রূপ গুলো ক্যামব্রিয়ান পর্বতমালা এবং ক্যামব্রিয়ান ভূতাত্ত্বিক সময়কালের মতো নাম হিসাবে টিকে আছে।[১৯]

ইতিহাস সম্পাদনা

প্রাগৈতিহাসিক উত্স সম্পাদনা

 
ব্রাইন সেলি ডু- তে একটি প্রয়াত নিওলিথিক চেম্বার সমাধি
 
থমাস প্রিডার্চের ক্যারাডগ । কারাডোগ উত্তর ওয়ালিয়ান সেল্টিক উপজাতি, অর্ডোভিসেসের নেতা ছিলেন।
 
ওয়েলসে রোমান আক্রমণের মানচিত্র

ওয়েলসে অন্তত ২৯,০০০ বছর ধরে আধুনিক মানুষের বসবাস রয়েছে।[২০] গত বরফ যুগের শেষ থেকে ১২,০০০ থেকে ১০,০০০ সালের মধ্যে এখানে একটানা মানুষের বসবাসের তারিখ পাওয়া যায়। বর্তমান (খ্রিষ্টপূর্ব) বছর আগে, যখন মধ্য ইউরোপ থেকে মেসোলিথিক শিকারী-সংগ্রাহকরা গ্রেট ব্রিটেনে অভিবাসন শুরু করেছিল, তখন থেকেই অই অঞ্চলে জনবসতি আছে। সে সময় সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা আজকের তুলনায় অনেক কম ছিল। ওয়েলস প্রায় ১০,২৫০ খ্রিষ্টপূর্ব পর্যন্ত হিমবাহ মুক্ত ছিল। সেসময় এখানকার উষ্ণ জলবায়ু এলাকাটিকে প্রচন্ডভাবে বনভূমিতে পরিণত করতে দেয়। হিমবাহ পরবর্তী সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি ওয়েলস এবং আয়ারল্যান্ডকে আলাদা করে আইরিশ সাগর তৈরি করে। ৮,০০০ খ্রিষ্টপূর্ব নাগাদ ব্রিটিশ উপদ্বীপ একটি দ্বীপে পরিণত হয়েছিল।[২১] নিওলিথিকের শুরুতে (আনু. ৬০০০ ) ব্রিস্টল চ্যানেলে সমুদ্রের স্তর তখনও আজকের চেয়ে প্রায় ৩৩ ফুট (১০ মিটার) কম ছিল।[২২] ঐতিহাসিক জন ডেভিস তত্ত্ব দিয়েছিলেন যে মাবিনোজিওনে ক্যান্ট্রের গোয়েলোডের ডুবে যাওয়ার গল্প এবং ওয়েলস এবং আয়ারল্যান্ডের মধ্যে জল সরু এবং অগভীর হওয়ার গল্প এই সময়ের দূরবর্তী লোক-স্মৃতি হতে পারে।[২৩]

খ্রিষ্টপূর্ব নিওলিথিক বিপ্লবের সময় নিওলিথিক ঔপনিবেশিকরা আদিবাসীদের সাথে একত্রিত হয়। তারা ধীরে ধীরে শিকার এবং সংগ্রহের যাযাবর জীবন থেকে তাদের জীবনধারা পরিবর্তন করে। তাদের প্রায় ৬,০০০ জন বসতি স্থাপনকারী কৃষক হয়ে ওঠে।[২৩][২৪] তারা চারণভূমি স্থাপন করতে এবং জমি চাষ করার জন্য বন পরিষ্কার করে। সিরামিক এবং বস্ত্র উত্পাদনের মতো নতুন প্রযুক্তির বিকাশ করে। এবং প্রায় ৫,৮০০ খ্রিষ্টপূর্ব এবং ৫,৫০০ খ্রিষ্টপূর্বের মধ্যে পেন্ট্রে ইফান, ব্রাইন সেলি ডিডু এবং পার্ক সিডব্লিউএম লং কেয়ারনের মতো ক্রোমলেচ তৈরি করেছিল।।[২৫] পরবর্তী শতাব্দীগুলিতে তারা অভিবাসীদের একীভূত করেছিল এবং ব্রোঞ্জ যুগ এবং লৌহ যুগের সেল্টিক সংস্কৃতি থেকে ধারণা গ্রহণ করেছিল। কিছু ইতিহাসবিদ, যেমন জন টি কোচ, ব্রোঞ্জ যুগের শেষের দিকে ওয়েলসকে একটি সামুদ্রিক বাণিজ্য-নেটওয়ার্কযুক্ত সংস্কৃতির অংশ হিসাবে বিবেচনা করেন যা অন্যান্য সেল্টিক দেশগুলিকে অন্তর্ভুক্ত করে।[২৬] এই "আটলান্টিক-সেল্টিক" দৃষ্টিভঙ্গির বিরোধিতা করে অন্যরা মনে করেন যে সেল্টিক ভাষাগুলি আরও পূর্বাঞ্চলীয় হলস্ট্যাট সংস্কৃতি থেকে তাদের হয়েছে।[২৭] ব্রিটেনে রোমান আক্রমণের সময় আধুনিক ওয়েলসের অঞ্চলটি ডেকাংলি (উত্তর-পূর্ব), অর্ডোভিস (উত্তর-পশ্চিম), ডেমেটে (দক্ষিণ-পশ্চিম), সিলুরেস (দক্ষিণ-পূর্ব) এবং কর্নোভি (পূর্ব), শতাব্দীর উপজাতিদের মধ্যে বিভক্ত ছিল।[২৮][২৯]

অর্ডোভিস নেতা ক্যারাক্টাকাস বা কারাডোগের সময়ে একটি সময়ের জন্য উত্তর ওয়েলসে রোমান আক্রমণ প্রতিরোধে সফল ছিল।[৩০] অবশেষে তিনি পরাজিত হন। তাকে রোমে নিয়ে যাওয়া হয়। রোমান সিনেটে একটি বিখ্যাত বক্তৃতার পরে, তার জীবন রক্ষা করা হয় এবং তাকে রোমে শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করার অনুমতি দেওয়া হয়।[৩১]

রোমান যুগ সম্পাদনা

রোমানদের ওয়েলস বিজয় ৪৮ খ্রিস্টাব্দে শুরু হয়েছিল এবং তা সম্পূর্ণ হতে ৩০ বছর সময় লেগেছিল। ওয়েলসে রোমানদের এই দখলদারি মোটা ৩০০ বছরেরও বেশি সময় ধরে চলেছিল। বিজয় অভিযান দুটি স্থানীয় উপজাতি দ্বারা বিরোধিতা করেছিল। তারা হলো সিলুরস এবং অর্ডোভিসেস । ওয়েলসে রোমান শাসন ছিল একটি সামরিক পেশা। তবে দক্ষিণ ওয়েলসের দক্ষিণ উপকূলীয় অঞ্চলে এর ব্যতিক্রম ছিল। সেখানে রোমানীকরণ বা রোমানাইজেশনের উত্তরাধিকার রয়েছে।[৩২] রোমানদের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত ওয়েলসের একমাত্র শহর ক্যারভেন্ট দক্ষিণ পূর্ব ওয়েলসে অবস্থিত।[৩৩] দক্ষিণ ওয়েলসের ক্যারভেন্ট এবং কারমার্থেন উভইয়ের জনগণই তখন রোমান নাগরিক হয়ে ওঠে।[৩৪] সেসময় ওয়েলসের প্রচুর খনিজ সম্পদ ছিল। রোমানরা তাদের প্রকৌশল প্রযুক্তি ব্যবহার করে প্রচুর পরিমাণে সোনা, তামা এবং সীসা, সেইসাথে কম পরিমাণে জিঙ্ক এবং রৌপ্য আহরণ করত।[৩৫] এই সময়ে ওয়েলসে কোন উল্লেখযোগ্য শিল্প ছিল না।[৩৫] এটি মূলত পরিস্থিতির কারণে হয়ে ছিল। কারণ ওয়েলসের উপযুক্ত সংমিশ্রণে প্রয়োজনীয় কোনো উপকরণ ছিল না এবং সেখানকার বনভূমি, পাহাড়ী গ্রামাঞ্চল শিল্পায়নের জন্য উপযুক্ত ছিল না। সেসময় লাতিন ওয়েলসের সরকারি ভাষা হয়ে ওঠে। যদিও সাধারণ লোকেরা স্থানীয় ব্রাইথনিক ভাষায় কথা বলতে থাকে। যদিও তখন রোমানাইজেশন পুরোপুরি সম্পূর্ণ হয়নি, তবুও সেখানকার উচ্চ শ্রেণির মানুষেরা নিজেদেরকে রোমান ভাবতে শুরু করেছিল। বিশেষ করে ২১২ সালের শাসনের পরে রোমানরা তাদের সমগ্র সাম্রাজ্য জুড়ে দাস-দাসী ব্যতীত সকল মুক্ত মানুষকে রোমান নাগরিকত্ব প্রদান করেছিল।[৩৬] খ্রিস্টধর্মের বিস্তারের এই এলাকা আরও রোমান প্রভাবের অধীনে এসেছিল। এটি অনেক অনুসারী অর্জন করেছিল যখন খ্রিস্টানদের অবাধে উপাসনা করার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। ৪র্থ শতাব্দীর ৩১৩ সালে রোমান সম্রাট কনস্টানটাইনের খ্রিষ্ঠান ধর্ম গ্রহণ ও এর রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠ পোষকতা করার কারণে ওয়েলস সহ পুরো রোমান সাম্রাজ্য জুড়ে খ্রিষ্ঠান দের উপর দীর্ঘদিন ধরে চালানো রাষ্ট্রীয় নিপীড়ন বন্ধ হয়। তিনিসেসময় ধর্মীয় সহনশীলতার একটি আদেশ জারি করেছিলেন।[৩৬]

৬ তম শতাব্দীর ধর্মগুরু গিলডাস সহ প্রাথমিক ইতিহাসবিদরা ৩৮৩ সালকে কে ওয়েলশ ইতিহাসের একটি উল্লেখযোগ্য পয়েন্ট হিসাবে উল্লেখ করেছেন।[৩৭] সেই বছরে, রোমান জেনারেল ম্যাগনাস ম্যাক্সিমাস অথবা ম্যাকসেন ওয়েলেডিগ সাম্রাজ্যিক ক্ষমতার জন্য একটি সফল বিড শুরু করার জন্য ব্রিটেনের সৈন্য ছিনিয়ে নিয়েছিলেন। এছাড়াও তিনি সম্রাট হিসাবে তৎকালীন গল তথা বর্তমান ফ্রান্স থেকে ব্রিটেনের শাসন অব্যাহত রেখেছিলেন এবং স্থানীয় নেতাদের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করেছিলেন।[৩৮] প্রাচীনতম ওয়েলশ বংশের তালিকায় ম্যাক্সিমাসকে বেশ কয়েকটি রাজবংশের প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছ।[৩৯] এছাড়াও তাকে অনেক ক্ষেত্রেই ওয়েলশ জাতির পিতা হিসেবে বিবেচনা করা হয়।[৩৭] তিনি ব্রিটেন ছেড়ে যাওয়ার প্রায় ৫০০ বছর পরে নির্মিত এলিসেগের স্তম্ভে তাকে ওয়েলশ রাজার পূর্বপুরুষ হিসাবে স্থান দেওয়া হয় এবং তিনি ওয়েলসের পনেরটি উপজাতির তালিকায় স্থান পান।[৪০]

রোমান-পরবর্তী যুগ সম্পাদনা

 
৫০০ খ্রিস্টাব্দে ব্রিটেন: মানচিত্রের গোলাপী ছায়াযুক্ত অঞ্চলগুলো ব্রিটিশদের দ্বারা বসবাস করত, এখানে ওয়েলশ লেবেল দেওয়া হয়েছে। পূর্বের ফ্যাকাশে নীল অঞ্চলগুলো জার্মানিক উপজাতিদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত ছিল, যখন উত্তরের ফ্যাকাশে সবুজ অঞ্চলগুলো গেলস এবং পিক্টদের দ্বারা বসবাস করত।

রোমান শাসনের পতনের পর ৪০০ বছরের সময়কাল ওয়েলসের ইতিহাসে ব্যাখ্যা করা সবচেয়ে কঠিন।[৩৬] ৪১০ খ্রিস্টাব্দে রোমানদের প্রস্থানের পর, পূর্ব এবং দক্ষিণ-পূর্বে ব্রিটেনের বেশিরভাগ নিম্নভূমি বিভিন্ন জার্মানিক জনগণ দ্বারা দখল করা হয়েছিল। এই জনগোষ্ঠী সাধারণত অ্যাংলো-স্যাক্সন নামে পরিচিত। কেউ কেউ তত্ত্ব দিয়েছেন যে অ্যাংলো-স্যাক্সনদের সাংস্কৃতিক আধিপত্য বর্ণবৈষম্য-সদৃশ সামাজিক অবস্থার কারণে সেখানে ব্রিটিশরা অসুবিধার মধ্যে ছিল।[৪১] ৫০০ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে যে ভূমিটি ওয়েলস হয়ে উঠে, তা অ্যাংলো-স্যাক্সন শাসন থেকে মুক্ত বেশ কয়েকটি রাজ্যে বিভক্ত হয়েছিল।[৩৬] গ্উইনেড, পোয়িস, ডাইফেড, ক্যারিডিজিওন, মরগাননওয়াগ, ইস্ট্রাড টাইউই ও গভেন্ট এর রাজ্যগুলো স্বাধীন ওয়েলশ উত্তরাধিকারী রাজ্য হিসাবে আবির্ভূত হয়েছিল।[৩৬] নিম্ন দেশগুলোতে এবং যা পরে ইংল্যান্ডে পরিণত হয়েছিল, সেসব অঞ্চলের ক্ষেত্রে বিভিন্ন প্রত্নতাত্ত্বিক প্রমাণে দেখা যায় যে, গ্রেট ব্রিটেনে প্রাথমিক অ্যাংলো-স্যাক্সন অভিবাসন ৫০০ থেকে ৫৫০ সালের মধ্যে বিপরীত হয়েছিল। এটি ফ্রাঙ্কিশ ইতিহাসের সাথে একমত।[৪২] জন ডেভিস এটিকে স্যাক্সনদের বিরুদ্ধে ব্যাডন হিলে সেল্টিক ব্রিটেনদের জয়ের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ বলে উল্লেখ করেছেন। এটি নেনিয়াস দ্বারা আর্থারকে দায়ী করা হয়েছিল।[৪২]

৬ ম এবং ৭ ম শতাব্দীর শুরুতে মার্সিয়ার কাছে এখন যা ওয়েস্ট মিডল্যান্ডস নামে পরিচিত তার অনেক কিছু হারিয়ে ফেলে তারা। ৭ ম শতাব্দীর শেষের দিকে একজন পুনরুত্থিত পাউইস মারসিয়ান এই অগ্রগতি পরীক্ষা করেছিল। মার্সিয়ার এথেলবাল্ড তখন অধিগ্রহণ করা জমি রক্ষার জন্য ওয়াটস ডাইক তৈরি করেছিলেন। ডেভিসের মতে, এটি পোয়িস এর রাজা এলিসেড আপ গ্ওয়াইলগের এর চুক্তির সাথে ছিল। কারণ এই সীমানা উত্তরে সেভারন নদীর উপত্যকা থেকে ডি নদীর মোহনা পর্যন্ত বিস্তৃত। এই সীমানা ওসওয়েস্টরি নির্ধারণ করে দিয়েছিল।[৪৩] কার্বন ডেটিং ৩০০ বছর আগে ডাইকের অস্তিত্ব স্থাপন করার পরে আরেকটি তত্ত্ব হলো যে, এটি রক্সেটারের উত্তর-রোমান শাসকদের দ্বারা নির্মিত হয়েছিল।[৪৪] মার্সিয়ার রাজা ওফা এই উদ্যোগটি অব্যাহত রেখেছেন বলে মনে হয়। তখন তিনি একটি বৃহত্তর আর্থওয়ার্ক তৈরি করেছিলেন। এটি এখন ওফারের ডাইক (Clawdd Offa) নামে পরিচিত। ডেভিস সিরিল ফক্সের অফফা'স ডাইকের অধ্যয়ন সম্পর্কে লিখেছেন: "এটির পরিকল্পনা করার সময়, পাউইস এবং গোয়েন্টের রাজাদের সাথে পরামর্শ করা হয়েছিল। ট্রেলিস্তানের কাছে লং মাউন্টেনে ডাইক পূর্ব দিকে চলে যায়। উর্বর ঢালগুলো ওয়েলশদের হাতে রেখে যায়; রিওয়াবনের কাছে এটি নিশ্চিত করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছিল যে, ক্যাডেল এপি ব্রোচওয়েল পেনিগডেনের দুর্গের দখল ধরে রেখেছে।" এবং গোয়েন্টের জন্য, ওফা "গর্জের পূর্ব চূড়ায় ডাইক তৈরি করেছিলেন, স্পষ্টতই স্বীকৃতি দেওয়ার উদ্দেশ্যে যে ওয়াই নদী এবং এর ট্র্যাফিক গভেন্ট রাজ্যের অন্তর্গত।"[৪৩] যাইহোক, ডাইকের দৈর্ঘ্য এবং উদ্দেশ্য উভয় বিষয়ে ফক্সের ব্যাখ্যা সাম্প্রতিক গবেষণার দ্বারা প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে।[৪৫]

৮৫৩ সালে, ভাইকিংসরা অ্যাঙ্গেলসি আক্রমণ করেছিল। তবে ৮৫৬ সালে রোড্রি মাওর তাদের নেতা গর্মকে পরাজিত করে হত্যা করা হয়েছিল।[৪৬] ওয়েলসের সেল্টিক ব্রিটিশরা ভাইকিংসের সাথে শান্তি স্থাপন করেছিল এবং আনারাওদ আপ রোড্রি উত্তর জয় করার জন্য নরসেমেন দখলকারী নরসেমেনদের সাথে জোট বেঁধেছিল।[৪৭] এই জোটটি পরে ভেঙে যায় এবং আনারাওদ ওয়েসেক্সের রাজা আলফ্রেডের সাথে একটি চুক্তিতে আসেন। এর সাথে তিনি পশ্চিম ওয়েলশের বিরুদ্ধে লড়াই করেছিলেন। আনালেস ক্যামব্রিয়ার মতে, ৮৯৪ সালে, "আনারাওদ অ্যাঙ্গেলস নিয়ে এসেছিলেন এবং সেরেডিজিওন এবং ইস্ট্রাড টাইউইকে বর্জ্য রেখেছিলেন।[৪৮]

 
ওয়েলশ রাজ্যের মধ্যযুগীয় মানচিত্র
 
হাইয়েল ডিডিএ সিংহাসনে বসলেন

গ্রেট ব্রিটেনের দক্ষিণ ও পূর্ব অংশই ইংরেজ বসতির কাছে হেরে গিয়েছিল এবং ওয়েলশ ভাষায় লোয়েগির (আধুনিক ওয়েলশ ভাষায়: লোয়েগর) নামে পরিচিতি লাভ করেছিল। এটি মূলত মার্সিয়া রাজ্যকে উল্লেখ করেছিল এবং যা সামগ্রিকভাবে ইংল্যান্ডকে উল্লেখ করেছিল।[ক] জার্মান উপজাতিদের মধ্যে যারা তখন এই জমিগুলোতে আধিপত্য বিস্তার করেছিল তাদের সর্বদা সাইসন বলা হত। এর অর্থ "স্যাক্সনস"। অ্যাংলো-স্যাক্সনরা রোমানো-ব্রিটিশ *ওয়ালহা নামে অভিহিত করেছিল। এর অর্থ 'রোমানাইজড বিদেশী' বা 'অপরিচিত'।[৪৯] ওয়েলশরা মধ্যযুগে নিজেদের ব্রাইথোনিয়াইড (ব্রাইথনস বা ব্রিটিশ) বলে অভিহিত করতে থাকে, যদিও সিমরু এবং ওয়াই সিমরি ব্যবহারের প্রথম লিখিত প্রমাণ ক্যাডওয়ালন এপি ক্যাডফান (মোলিয়ান্ট ক্যাডওয়ালন, আফান ফার্ডিগ দ্বারা) এর একটি প্রশংসা কবিতায় পাওয়া যায়।[১৩] আর্মস প্রাইডাইনে ৯৩০-৯৪২ এর কাছাকাছি লেখা হয়েছিল বলে বিশ্বাস করা হয়। সিমরি এবং সিমরো শব্দগুলো প্রায়শই ১৫ বার ব্যবহৃত হয়।[৫০] যাইহোক, অ্যাংলো-স্যাক্সন বসতি থেকে লোকেরা ধীরে ধীরে ব্রাইথোনিয়াডের পরিবর্তে সিমরি নামটি গ্রহণ করতে শুরু করে।[৫১]

৮০০ সাল থেকে রাজবংশীয় বিবাহের একটি ধারা রোড্রি মাওয়ারের (রাজত্বকাল ৮৪৪-৭৭) গ্উইনেড এবং পোয়েসের উত্তরাধিকারের দিকে পরিচালিত করে। তাঁর পুত্ররা তিনটি রাজবংশ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন (গ্উইনেডের জন্য আবের্ফফ্রাউ, ডেহিউবার্থের জন্য ডিনেফার এবং পোউইসের জন্য মাথরাফাল)। রোড্রির নাতি হিয়েল ডিডা (রাজত্বকাল ৯০০-৯৫০) ৯৩০ সালে ডিফেড এবং সিসিলওয়াগের মাতৃ ও পৈতৃক উত্তরাধিকার থেকে দেহিউবার্থ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। তারা গ্উইনেড এবং পোয়িস থেকে আবের্ফফ্রাউ রাজবংশকে উৎখাত করেছিলেন এবং তারপরে ৯৪০ এর দশকে ওয়েলশ আইনকে বিধিবদ্ধ করেছিলেন। মারেডুডের প্রপৌত্র (তার কন্যা রাজকুমারী আঙ্গারাদ) গ্রুফিড এপ লিওয়েলিন (রাজত্বকাল ১০৩৯-৬৩) তার চাচাতো ভাইদের রাজ্য জয় করেছিলেন এবং ইংল্যান্ডে তার কর্তৃত্ব প্রসারিত করেছিলেন।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

উচ্চ থেকে মধ্য বয়স পর্যন্ত সম্পাদনা

গ্রুফিড এপ লিওয়েলিন ছিলেন একমাত্র শাসক যিনি তার শাসনের অধীনে পুরো ওয়েলসকে একত্রিত করেছিলেন এবং এর মাধ্যমে তিনি ওয়েলসের রাজা হয়েছিলেন। ১০৫৫ সালে গ্রুফিড এপ লিওয়েলিন যুদ্ধে তার প্রতিদ্বন্দ্বী গ্রুফিড এপ রাইডডার্চকে হত্যা করেছিলেন এবং দেহিউবার্থ পুনরায় দখল করেছিলেন।[৫২] মূলত গ্উইনেডের রাজা ১০৫৭ সালের মধ্যে তিনি ওয়েলসের শাসক ছিলেন এবং সীমান্তের চারপাশে ইংল্যান্ডের কিছু অংশ সংযুক্ত করেছিলেন। তিনি কোনও অভ্যন্তরীণ যুদ্ধ ছাড়াই ওয়েলস শাসন করেছিলেন।[৫৩] তার অঞ্চলগুলো আবার ঐতিহ্যবাহী রাজ্যে বিভক্ত হয়েছিল।[৫৪] জন ডেভিস বলেছেন যে গ্রুফিড "ওয়েলসের পুরো অঞ্চলের উপর শাসন করা একমাত্র ওয়েলশ রাজা ছিলেন ... সুতরাং, প্রায় ১০৫৭ সাল থেকে ১০৬৩ সালে তাঁর মৃত্যুর আগ পর্যন্ত পুরো ওয়েলস গ্রুফিড এপি লিওয়েলিনের রাজত্বকে স্বীকৃতি দেয়। প্রায় সাত বছর ধরে ওয়েলস এক শাসকের অধীনে ছিল। এটি এমন একটি কীর্তি যার কোনও নজির বা উত্তরসূরি নেই।"[১] আবের্ফফ্রাউ লাইনের ওয়েন গ্উইনেড (১১০০–৭০) ছিলেন প্রথম ওয়েলশ শাসক যিনি প্রিন্সেস ওয়ালেনসিয়াম (ওয়েলসের রাজপুত্র) উপাধি টি ব্যবহার করেছিলেন, ডেভিসের মতে বার্উইন পর্বতমালায় তার বিজয়ের পরে পদার্থের একটি শিরোনাম।[৫৫] এই সময়ে, অর্থাৎ ১০৫৩ এবং ১০৬৩ এর মধ্যে ওয়েলসে যেকোনও অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের অভাব ছিল এবং এই অঞ্চলটি পুরোপুরি শান্তিতে ছিল।[৫৬]

হেস্টিংসের যুদ্ধের চার বছরের মধ্যে (১০৬৬) ইংল্যান্ড সম্পূর্ণরূপে নর্মানদের দ্বারা পরাধীন ছিল।[১] ইংল্যান্ডের উইলিয়াম প্রথম ওয়েলশ সীমান্ত বরাবর তার সবচেয়ে শক্তিশালী যোদ্ধাদের জন্য বরাদ্দকৃত একটি সিরিজ প্রভুত্ব প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। তাদের সীমানা শুধুমাত্র পূর্বে স্থির ছিল (যেখানে তারা ইংল্যান্ডের অভ্যন্তরে অন্যান্য সামন্ত সম্পত্তির সাথে মিলিত হয়েছিল)।[৫৭] ১০৭০ এর দশক থেকে, এই প্রভুরা ওয়াই নদীর পশ্চিমে দক্ষিণ এবং পূর্ব ওয়েলসের জমি জয় করতে শুরু করে। সীমান্ত অঞ্চল এবং ওয়েলসের যেকোন ইংরেজ-আধিপত্য মার্চিয়া ওয়ালি বা ওয়েলশ মার্চেস নামে পরিচিতি লাভ করে। সেখানে মার্চার লর্ডরা ইংরেজি বা ওয়েলশ আইনের অধীন ছিল না।[৫৮] মার্চের প্রভু এবং ওয়েলশ রাজপুত্রদের ভাগ্য হ্রাস এবং প্রবাহিত হওয়ায় মার্চের ব্যাপ্তি পরিবর্তিত হয়েছিল।[৫৯]

ওয়েইন গ্উইনেডের নাতি লিওয়েলিন দ্য গ্রেট (দ্য গ্রেট, ১১৭৩–১২৪০) ১২১৬ সালে অ্যাবারডিফির কাউন্সিলে অন্যান্য ওয়েলশ লর্ডদের মর্যাদা পেয়েছিলেন। তিনি কার্যত ওয়েলসের প্রথম যুবরাজ হয়েছিলেন।[৬০] তার নাতি লিওয়েলিন এপ গ্রুফুড ১২৬৭ সালে মন্টগোমারির চুক্তির মাধ্যমে তৃতীয় হেনরির কাছ থেকে প্রিন্স অফ ওয়েলস উপাধির স্বীকৃতি অর্জন করেছিলেন।[৬১] লিওয়েলিনের স্ত্রী এলিয়েনরের কারাবাস সহ পরবর্তী বিরোধগুলো ইংল্যান্ডের রাজা প্রথম এডওয়ার্ডের প্রথম আক্রমণে শেষ হয়েছিল।[৬২] সামরিক পরাজয়ের ফলস্বরূপ, অ্যাবারকনভির চুক্তির মাধ্যমে ১২৭৭ সালে ইংল্যান্ডে লিওয়েলিনের প্রত্যাবর্তনকে সঠিক করে তোলে।[৬২] এই শান্তি-অবস্থা স্বল্পস্থায়ী ছিল এবং ১২৮২ এডওয়ার্ডিয়ান বিজয়ের সাথে সাথে ওয়েলশ রাজকুমারদের শাসন স্থায়ীভাবে শেষ হয়েছিল। লিওয়েলিনের মৃত্যু এবং তার ভাই প্রিন্স ড্যাফিডের মৃত্যুদণ্ডের সাথে সাথে কয়েকজন অবশিষ্ট ওয়েলশ লর্ড প্রথম এডওয়ার্ডকে শ্রদ্ধা জানান।[৬৩] ১২৮৪ সালে রুডলানের সংবিধি ১২৮৪ থেকে ১৫৩৫/৩৬ সাল পর্যন্ত উত্তর ওয়েলসের রাজত্বের বিজয়-পরবর্তী সরকারের সাংবিধানিক ভিত্তি সরবরাহ করেছিল।[৬৪]

এটি ওয়েলসকে ইংরেজ মুকুটের সাথে "সংযুক্ত এবং ঐক্যবদ্ধ" হিসাবে সংজ্ঞায়িত করেছিল। অর্থাৎ, ওয়েলস প্রশাসনিকভাবে ইংল্যান্ড থেকে পৃথক কিন্তু একই রাজার অধীনে পরিচালিত। রাজা সরাসরি দুটি অঞ্চলে শাসন করেছিলেন। এই সংবিধিটি উত্তরকে বিভক্ত করেছিল এবং উত্তর ওয়েলসের চেস্টার এবং জাস্টিসিয়ারের কাছে প্রশাসনিক দায়িত্ব অর্পণ করেছিল এবং পশ্চিম ওয়েলসের আরও দক্ষিণে রাজার কর্তৃত্ব দক্ষিণ ওয়েলসের জাস্টিসিয়ারের কাছে অর্পণ করা হয়েছিল। মন্টগোমেরি এবং বিল্টের বিদ্যমান রাজকীয় আধিপত্য অপরিবর্তিত ছিল। তার আধিপত্য বজায় রাখার জন্য এডওয়ার্ড বেশ কয়েকটি দুর্গ নির্মাণ করেছিলেন। সেগুলোর মধ্যে আছে বিউমারিস, কেরনারফন, হারলেচ এবং কনভি। তার পুত্র ভবিষ্যতের দ্বিতীয় এডওয়ার্ড ১৯৯২ সালে কেরনারফনে জন্মগ্রহণ করেছিলেন।[৬৫] তিনি ১৯০১ সালে ওয়েলসের প্রথম ইংরেজ যুবরাজ হয়েছিলেন। এটি সেই সময় ওয়েলসের প্রিন্সিপ্যালিটি নামে পরিচিত উত্তর-পশ্চিম ওয়েলস থেকে আয় সরবরাহ করেছিল।[৬৬]

১২৯৪-৯৫ সালে ম্যাডোগ আপ লিওয়েলিনের ব্যর্থ বিদ্রোহের পরে তিনি নিজেকে পেনমাচনো ডকুমেন্টে প্রিন্স অফ ওয়েলস হিসাবে অভিহিত করেছিলেন। এবং লিওয়েলিন ব্রেনের উত্থান (১৩১৬) ইংল্যান্ডের চতুর্থ হেনরির বিরুদ্ধে ওওয়েন গ্লিনডার সর্বশেষ অভ্যুত্থানের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন । ১৪০৪ সালে ফ্রান্স, স্পেন (ক্যাস্টিল) এবং স্কটল্যান্ডের দূতদের উপস্থিতিতে ওওয়েনকে ওয়েলসের যুবরাজেরর মুকুট দেওয়া হয়েছিল।[৬৭] গ্লিনডার বেশ কয়েকটি ওয়েলশ শহরে সংসদীয় সমাবেশ করেছিলেন। এর মধ্যে রয়েছে ম্যাকিনলেথে একটি ওয়েলশ সংসদ (ওয়েলশ: সেনেডড)। বিদ্রোহটি শেষ পর্যন্ত ১৪১২ সালের মধ্যে পরাজিত হয়েছিল। ব্যর্থ হওয়ার পরে ওয়েইন আত্মগোপনে চলে যান এবং ১৪১৩ সালের পরে তার সম্পর্কে কিছুই জানা যায়নি।[৬৮][৬৯]

 
Owain Glyndŵr মূর্তি (আনু. 1354 বা ১৩৫৯ – আনু. 1416) কার্ডিফ সিটি হলে

হেনরি টিউডর (১৪৫৭ সালে ওয়েলসে জন্মগ্রহণ করেন) ১৪৮৫ সালে তৃতীয় রিচার্ডের কাছ থেকে ইংল্যান্ডের সিংহাসন দখল করেন। এর মাধ্যমে তিনি ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসকে এক রাজকীয় পরিবারের অধীনে একত্রিত করেন। কেল্টিক ঐতিহ্য ওয়েলশ আইনের শেষ অবশিষ্টাংশগুলো হেনরি সপ্তম হেনরির পুত্র হেনরি অষ্টম এর রাজত্বকালে ১৫৩৫ এবং ১৫৪২ সালে ওয়েলসের আইন দ্বারা ইংরেজ আইন দ্বারা বিলুপ্ত এবং প্রতিস্থাপিত হয়।[৭০] ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসের আইনি এখতিয়ারে ওয়েলস ইংল্যান্ডের রাজ্যের সাথে একীভূত হয়। "প্রিন্সিপ্যালিটি অফ ওয়েলস" নামটি দ্বারা তখন এই সমগ্র দেশকে বোঝানো শুরু হয়। যদিও এটি শুধুমাত্র একটি আনুষ্ঠানিক অর্থে একটি "রাজত্ব" হিসেবে রয়ে যায়।[৬৪][৭১] সসময় মার্চার লর্ডশিপ বিলুপ্ত করা হয় এবং ওয়েলস ওয়েস্টমিনস্টার পার্লামেন্টের সদস্য নির্বাচন করা শুরু করে।[৭২]

প্রারম্ভিক আধুনিক যুগ সম্পাদনা

 
Dowlais Ironworks (১৮৪০) জর্জ চাইল্ডস দ্বারা (১৭৯৮-১৮৭৫)

১৫৩৬ সালে ওয়েলসের প্রায় ২৭৮,০০০ বাসিন্দা ছিল। এটি ১৬২০ সাল নাগাদ প্রায় ৩৬০,০০০ জনে বেড়েছে। এটি প্রাথমিকভাবে গ্রামীণ বসতির কারণে হয়েছিল। সেখানে পশু চাষ ওয়েলশ অর্থনীতির কেন্দ্রবিন্দু ছিল। ওয়েলশ অর্থনীতির বর্ধিত বৈচিত্র্যের কারণে বাণিজ্য বৃদ্ধি এবং অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা বৃদ্ধি পেয়েছে। যদিও জনসংখ্যা বৃদ্ধি অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিকে ছাড়িয়ে গেছে এবং জীবনযাত্রার মান কমে গেছে।[৭৩]

ওয়েলসে শিল্প বিপ্লবের আগে, ওয়েলসের সর্বত্র ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিল ছোট আকারের শিল্প।[৭৪] এগুলো কৃষির সাথে যুক্ত, যেমন মিলিং এবং উলেন টেক্সটাইল তৈরি থেকে শুরু করে খনন এবং খনন পর্যন্ত।[৭৪] সম্পদের প্রধান উৎস কৃষিই ছিল।[৭৪] উদীয়মান শিল্প যুগে সোয়ানসি এলাকায় তামার গন্ধের বিকাশ ঘটেছিল। স্থানীয় কয়লা সঞ্চয় এবং একটি পোতাশ্রয় যা এটিকে দক্ষিণে কর্নওয়ালের তামার খনি এবং অ্যাঙ্গেলসির প্যারিস মাউন্টেনের বৃহৎ তামার মজুদের সাথে সংযুক্ত করে, সোয়ানসি ১৯ শতকে অ লৌহঘটিত ধাতু গলানোর জন্য বিশ্বের প্রধান কেন্দ্রে পরিণত হয়েছিল।[৭৪] ওয়েলসে প্রসারিত দ্বিতীয় ধাতু শিল্প ছিল লোহা গলানো, এবং লোহা উৎপাদন দেশের উত্তর ও দক্ষিণ উভয় স্থানেই প্রচলিত হয়ে ওঠে।[৭৫] উত্তরে, বারশামে জন উইলকিনসনের আয়রনওয়ার্কস ছিল একটি প্রধান কেন্দ্র, যখন দক্ষিণে, মের্থাইর টাইডফিলে, ডাওলাইস, সাইফার্থফা, প্লাইমাউথ এবং পেনিডারেন এর লোহাওয়ার্কগুলো ওয়েলসের লোহা তৈরির সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য কেন্দ্র হয়ে ওঠে।[৭৫] ১৮২০ সালের মধ্যে, দক্ষিণ ওয়েলস ব্রিটেনের সমস্ত পিগ আয়রনের ৪০ শতাংশ উত্পাদন করত।[৭৫]

১৮ শতকের মধ্যে, আইনজীবী, ডাক্তার, এস্টেট এজেন্ট এবং সরকারি কর্মকর্তারা বড় বড় ঘর নিয়ে একটি বুর্জোয়া শ্রেণি গঠন করে।[৭৩] ১৮ শতকের শেষের দিকে, স্লেট খনন দ্রুত প্রসারিত হতে শুরু করে, বিশেষ করে উত্তর ওয়েলসে। পেনরিন কোয়ারি, ১৭৭০ সালে রিচার্ড পেনান্ট দ্বারা খোলা হয়েছিল, ১৯ শতকের শেষের দিকে ১৫,০০০ জন লোক নিয়োগ করেছিল,[৭৬] এবং ডিনোরউইক কোয়ারির সাথে এটি ওয়েলশ স্লেট ব্যবসায় আধিপত্য বিস্তার করেছিল। যদিও স্লেট খননকে "ওয়েলশ শিল্পের সবচেয়ে ওয়েলশ" হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে,[৭৭] এটি কয়লা খনন যা ওয়েলস এবং এর জনগণের শিল্পের সমার্থক হয়ে উঠেছে। প্রাথমিকভাবে, স্থানীয় ধাতু শিল্পের জন্য শক্তি সরবরাহ করার জন্য কয়লা সীমগুলোকে কাজে লাগানো হয়েছিল কিন্তু, খাল ব্যবস্থা এবং পরে রেলপথ খোলার সাথে সাথে ওয়েলশ কয়লা খনির চাহিদার বিস্ফোরণ দেখা যায়। যেহেতু সাউথ ওয়েলস কয়লাক্ষেত্র শোষণ করা হয়েছিল, কার্ডিফ, সোয়ানসি, পেনার্থ এবং ব্যারি বিশ্বব্যাপী কয়লা রপ্তানিকারক হিসেবে বেড়েছে। ১৯১৩ সালে তার উচ্চতা দ্বারা, ওয়েলস প্রায় ৬১ মিলিয়ন টন কয়লা উত্পাদন করছিল।[৭৮]

আধুনিক যুগ সম্পাদনা

 
ক্রিস্টোফার উইলিয়ামস দ্বারা ম্যামেটজ উডে যুদ্ধ (১৯১৮)
 
১৯৪৯ সালে মাচিনলেথে একটি প্লেইড সিমরু সমাবেশ। সেখানে "৫ বছরে ওয়েলসের জন্য সংসদ " প্রচারণা শুরু হয়েছিল

ইতিহাসবিদ কেনেথ মরগান প্রথম বিশ্বযুদ্ধের প্রাক্কালে ওয়েলসকে "অপেক্ষাকৃত শান্ত, আত্মবিশ্বাসী এবং সফল জাতি" হিসাবে বর্ণনা করেছিলেন। কয়লাক্ষেত্র থেকে আউটপুট বাড়তে থাকে, রোন্ডদা উপত্যকায় ৯.৬ সর্বোচ্চ রেকর্ড করা হয় ১৯১৩ সালে মিলিয়ন টন কয়লা উত্তোলন করা হয়েছিল[৭৯] প্রথম বিশ্বযুদ্ধে (১৯১৪-১৯১৮) মোট ২৭২,৯২৪ জন ওয়েলশম্যান অস্ত্রের অধীনে ছিল। এটি পুরুষ জনসংখ্যার ২১.৫ শতাংশ প্রতিনিধিত্ব করে। এর মধ্যে, মোটামুটি ৩৫,০০০ জন নিহত হয়েছিল,[৮০] বিশেষ করে সোমে এবং পাসচেন্ডেলের যুদ্ধে ম্যামেটজ উডে ওয়েলশ বাহিনীর ব্যাপক ক্ষতি।[৮১] ২০ শতকের প্রথম ত্রৈমাসিকে ওয়েলসের রাজনৈতিক ল্যান্ডস্কেপেও পরিবর্তন দেখা যায়। ১৮৬৫ সাল থেকে, লিবারেল পার্টি ওয়েলসে সংসদীয় সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করেছিল এবং ১৯০৬ সালের সাধারণ নির্বাচনের পরে, শুধুমাত্র একজন অলিবারেল সংসদ সদস্য, মের্থাইর টাইডফিলের কেয়ার হার্ডি ওয়েস্টমিনস্টারে একটি ওয়েলশ নির্বাচনী এলাকার প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন। তথাপি ১৯০৬ সাল নাগাদ, শিল্পগত বিভেদ এবং রাজনৈতিক জঙ্গিবাদ দক্ষিণ কয়লাক্ষেত্রে উদারপন্থী ঐক্যমত্যকে দুর্বল করতে শুরু করেছিল।[৮২] ১৯১৬ সালে, ডেভিড লয়েড জর্জ প্রথম ওয়েলশম্যান যিনি ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী হন।[৮৩] ১৯১৮ সালের ডিসেম্বরে, লয়েড জর্জ একটি রক্ষণশীল-প্রধান জোট সরকারের প্রধান হিসেবে পুনরায় নির্বাচিত হন এবং ১৯১৯ সালের কয়লা খনি শ্রমিকদের ধর্মঘটের তার দুর্বল পরিচালনা দক্ষিণ ওয়েলসে লিবারেল পার্টির সমর্থনকে ধ্বংস করার একটি মূল কারণ ছিল।[৮৪] ওয়েলসের শিল্প শ্রমিকরা লেবার পার্টির দিকে সরে যেতে শুরু করে। যখন ১৯০৮ সালে গ্রেট ব্রিটেনের মাইনার্স ফেডারেশন লেবার পার্টির সাথে অধিভুক্ত হয়, তখন খনি শ্রমিকদের দ্বারা স্পনসর করা চারজন লেবার প্রার্থী সকলেই এমপি নির্বাচিত হন। ১৯২২ সাল নাগাদ, ওয়েস্টমিনিস্টারের অর্ধেক ওয়েলশ আসন লেবার রাজনীতিবিদদের দখলে ছিল- ওয়েলশ রাজনীতিতে শ্রমের আধিপত্যের সূচনা যা ২১ শতকে অব্যাহত ছিল।[৮৫]

২০ শতকের প্রথম দুই দশকে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির পর, ওয়েলসের প্রধান শিল্পগুলো ১৯২০-এর দশকের শুরু থেকে ১৯৩০-এর দশকের শেষভাগ পর্যন্ত দীর্ঘায়িত মন্দা সহ্য করে। এর ফলে ব্যাপক বেকারত্ব এবং দারিদ্র্য দেখা দেয়।[৮৬] কয়েক শতাব্দীতে প্রথমবারের মতো, ওয়েলসের জনসংখ্যা হ্রাস পায়; বেকারত্ব হ্রাস শুধুমাত্র দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের উৎপাদন চাহিদা সঙ্গে.[৮৭] এই যুদ্ধে ওয়েলশ সার্ভিসম্যান এবং মহিলারা সমস্ত বড় থিয়েটারে লড়াই দেখেছিল, তাদের মধ্যে প্রায় ১৫,০০০ নিহত হয়েছিল। জার্মান বিমান বাহিনী সোয়ানসি, কার্ডিফ এবং পেমব্রোকে ডকগুলোকে লক্ষ্যবস্তু করার কারণে বোমা হামলায় প্রাণহানি ঘটে। ১৯৪৩ সালের পর, ১৮ বছর বয়সী ওয়েলশের ১০ শতাংশকে কয়লা খনিতে কাজ করার জন্য পাঠানো হয়েছিল। সেখানে শ্রমিকের অভাব ছিল; তারা বেভিন বয়েজ নামে পরিচিত হয়ে ওঠে। উভয় বিশ্বযুদ্ধের সময় শান্তিবাদী সংখ্যা মোটামুটি কম ছিল, বিশেষ করে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে। এটি ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে লড়াই হিসাবে দেখা হয়েছিল।[৮৮]

১৯২৫ সালে প্লেড সিমরু গঠিত হয়েছিল, যুক্তরাজ্যের বাকি অংশ থেকে বৃহত্তর স্বায়ত্তশাসন বা স্বাধীনতার জন্য।[৮৯] " ইংল্যান্ড এবং ওয়েলস " শব্দটি ইংরেজি আইন প্রয়োগ করা এলাকা বর্ণনা করার জন্য সাধারণ হয়ে ওঠে এবং ১৯৫৫ সালে কার্ডিফকে ওয়েলসের রাজধানী হিসাবে ঘোষণা করা হয়। ওয়েলশ ভাষা সোসাইটি ১৯৬২ সালে গঠিত হয়েছিল, এই ভয়ের প্রতিক্রিয়ায় যে ভাষাটি শীঘ্রই মারা যেতে পারে।[৯০] ১৯৬৫ সালে ট্রাইওয়েন উপত্যকার বন্যার পর জাতীয়তাবাদী মনোভাব বৃদ্ধি পায় ইংরেজ শহর লিভারপুলকে জল সরবরাহ করার জন্য একটি জলাধার তৈরি করার জন্য।[৯১] যদিও ৩৬ জন ওয়েলশ সাংসদের মধ্যে ৩৫ জন বিলটির বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছেন (একজন বিরত), সংসদ বিলটি পাস করে এবং ক্যাপেল সেলিন গ্রামটি নিমজ্জিত হয়। এটি সংসদে ইংরেজ এমপিদের সংখ্যাগত শ্রেষ্ঠত্বের মুখে ওয়েলসের নিজস্ব বিষয়ে তার ক্ষমতাহীনতাকে তুলে ধরে।[৯২] বিচ্ছিন্নতাবাদী দলগুলো, যেমন ফ্রি ওয়েলস আর্মি এবং মুদিয়াদ আমডিফিন সিমরু গঠিত হয়েছিল, ১৯৬৩ থেকে প্রচারণা চালায়[৯৩] ১৯৬৯ সালে চার্লসের তদন্তের আগে, এই গ্রুপগুলো অবকাঠামোতে বেশ কয়েকটি বোমা হামলার জন্য দায়ী ছিল।[৯৪] ১৯৬৬ সালে একটি উপ-নির্বাচনে, এভান্স এর সংসদীয় আসন, প্লেইড সিমরু-এর প্রথম সংসদীয় আসন জিতেছিল।[৯৫]

 
২০২০ সালের অক্টোবরে পুনর্নির্মাণের পরে " কফিউচ ড্রাইওয়ারিন " ম্যুরাল, ইংল্যান্ডে জল সরবরাহের জন্য ট্রাইওয়ারিন বন্যার প্রতিবাদ করে

১৯৬০-এর দশকের শেষের দিকে, আর্থিক প্রণোদনার মাধ্যমে ওয়েলসের সুবিধাবঞ্চিত এলাকায় ব্যবসা নিয়ে আসার নীতি শিল্প অর্থনীতিকে বহুমুখীকরণে অত্যন্ত সফল প্রমাণিত হয়েছিল।[৯৬] এই নীতি, ১৯৩৪ সালে শুরু হয়েছিল, শিল্প এস্টেট নির্মাণ এবং পরিবহন যোগাযোগের উন্নতির দ্বারা উন্নত করা হয়েছিল,[৯৬] বিশেষত এম৪ মোটরওয়ে দক্ষিণ ওয়েলসকে সরাসরি লন্ডনের সাথে সংযুক্ত করে। এটা বিশ্বাস করা হয়েছিল যে এই সময়ের মধ্যে ওয়েলসে স্থিতিশীল অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির ভিত্তি দৃঢ়ভাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, কিন্তু ১৯৮০-এর দশকের প্রথম দিকের মন্দার পরে এটিকে আশাবাদী হিসাবে দেখানো হয়েছিল যা পূর্ববর্তী সময়ে তৈরি করা অনেক উত্পাদন ভিত্তির পতন দেখেছিল। চল্লিশ বছর[৯৭]

বিকেন্দ্রীকরণ সম্পাদনা

ওয়েলশ ভাষা আইন ১৯৬৭ ওয়েলস এবং বারউইক আইনের একটি ধারা বাতিল করেছে এবং এইভাবে "ওয়েলস" আর ইংল্যান্ডের আইনি সংজ্ঞার অংশ ছিল না। এটি মূলত ওয়েলসকে আইনগতভাবে একটি পৃথক সত্তা হিসাবে সংজ্ঞায়িত করেছে (কিন্তু যুক্তরাজ্যের মধ্যে), প্রথমবারের মতো ওয়েলস আইন ১৫৩৫ এবং ১৫৪২ এর আগে যা ওয়েলসকে ইংল্যান্ডের রাজ্যের একটি অংশ হিসাবে সংজ্ঞায়িত করেছিল। ওয়েলশ ল্যাঙ্গুয়েজ অ্যাক্ট ১৯৬৭ কিছু আইনি পরিস্থিতি সহ যেখানে ওয়েলশ ব্যবহারের অনুমতি দেওয়া হয়েছিল সেগুলোকেও প্রসারিত করেছে।[৯৮]

 
কফিয়া (মনে রাখবেন) ১২৮২, "প্রিন্স অফ ওয়েলস" এর বিনিয়োগের বিরুদ্ধে একটি প্রতিবাদ

১৯৭৯ সালে একটি গণভোটে, ওয়েলস ৮০ শতাংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে একটি ওয়েলশ সমাবেশ গঠনের বিরুদ্ধে ভোট দেয়। ১৯৯৭ সালে, একই ইস্যুতে দ্বিতীয় গণভোটে খুব সংকীর্ণ সংখ্যাগরিষ্ঠতা (৫০.৩ শতাংশ) পেয়েছে।[৯৯] ওয়েলসের জন্য ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলি (Cynulliad Cenedlaethol Cymru) ১৯৯৯ সালে (ওয়েলস সরকারের আইন ১৯৯৮ এর অধীনে) ওয়েলস কেন্দ্রীয় সরকারের বাজেট কীভাবে ব্যয় ও পরিচালনা করা হয় তা নির্ধারণ করার ক্ষমতা দিয়ে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, যদিও ইউকে পার্লামেন্ট সীমা নির্ধারণের অধিকার সংরক্ষণ করে। এর ক্ষমতার উপর।[৯৯] ইউনাইটেড কিংডম এবং ওয়েলসের সরকারগুলো প্রায় সবসময়ই ওয়েলসকে একটি দেশ হিসাবে সংজ্ঞায়িত করে।[১০০] ওয়েলশ সরকার বলে: "ওয়েলস একটি প্রিন্সিপালিটি নয়। যদিও আমরা স্থলপথে ইংল্যান্ডের সাথে যুক্ত হয়েছি, এবং আমরা গ্রেট ব্রিটেনের অংশ, ওয়েলস তার নিজস্ব একটি দেশ।"[১০১] [খ]

ওয়েলস সরকার আইন ২০০৬ (c ৩২) হলো যুক্তরাজ্যের সংসদের একটি আইন যা ওয়েলসের জন্য ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিকে সংস্কার করেছে এবং এটিকে আরও সহজে আরও ক্ষমতা প্রদানের অনুমতি দেয়। আইনটি আইনসভার কাছ থেকে নেওয়া এবং দায়বদ্ধ একটি পৃথক নির্বাহী সহ সরকারের একটি ব্যবস্থা তৈরি করে।[১০৩] ২০১১ সালে ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলির আইন প্রণয়নের ক্ষমতা বাড়ানোর বিষয়ে একটি সফল গণভোটের পর এটি এখন যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্টের চুক্তির প্রয়োজন ছাড়াই ডিভলভ বিষয় এলাকায় সমস্ত বিষয়ে আইন প্রণয়ন করতে সক্ষম হয়। এটি অ্যাক্টস অফ অ্যাসেম্বলি নামে পরিচিত।[১০৩]

২০১৬ গণভোটে, ওয়েলস ইউরোপীয় ইউনিয়ন ছাড়ার সমর্থনে ভোট দেয়, যদিও জনসংখ্যাগত পার্থক্য স্পষ্ট হয়ে ওঠে। অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির ভূগোল বিভাগের অধ্যাপক ড্যানি ডরলিং এর মতে, "আপনি যদি আরও সত্যিকারের ওয়েলশ অঞ্চলের দিকে তাকান, বিশেষ করে ওয়েলশ-ভাষী, তারা ইইউ ছেড়ে যেতে চায়নি।"[১০৪]

সেনেড অ্যান্ড ইলেকশনস (ওয়েলস) অ্যাক্ট ২০২০ এর পরে, জাতীয় পরিষদের নাম পরিবর্তন করা হয় " Senedd Cymru " (ওয়েলশ ভাষায়) এবং "ওয়েলশ পার্লামেন্ট" (ইংরেজিতে)। এটি শরীরের প্রসারিত আইনী ক্ষমতার একটি ভাল প্রতিফলন হিসাবে দেখা হয়েছিল[১০৫]

 
ওয়েলশ স্বাধীনতার জন্য সমাবেশ, কার্ডিফ ২০১৯।

২০১৬ সালে, YesCymru চালু হয়েছিল। একটি স্বাধীন ওয়েলসের জন্য একটি অ-দলীয়-রাজনৈতিক প্রচারণা যা ২০১৯ সালে কার্ডিফে প্রথম সমাবেশ করেছিল[১০৬] ২০২১ সালের মার্চ মাসে একটি জনমত জরিপ ওয়েলশ স্বাধীনতার জন্য রেকর্ড ৩৯ শতাংশ সমর্থন দেখিয়েছিল যখন জানি না।[১০৭]

ওয়েলশ ভাষা সম্পাদনা

 
" Cymdeithas yr Iaith " (ভাষার জন্য সোসাইটি) দ্বিভাষিক সড়ক চিহ্ন প্রতিবাদ, ১৯৭২।

ওয়েলশ ভাষা (ওয়েলশ: Cymraeg ) কেল্টিক পরিবারের একটি ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষা ;[১০৮] সবচেয়ে ঘনিষ্ঠভাবে সম্পর্কিত ভাষাগুলো হলো কর্নিশ এবং ব্রেটন । বেশিরভাগ ভাষাবিদ বিশ্বাস করেন যে কেল্টিক ভাষাগুলো ৬০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে ব্রিটেনে এসেছিল। [১০৯] ব্রাইথনিক ভাষাগুলো ইংল্যান্ডে কথা বলা বন্ধ করে দেয় এবং ইংরেজি ভাষা দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়। এটি অষ্টম শতাব্দীর শেষের দিকে পাউইস রাজ্যের পরাজয়ের কারণে ওয়েলসে আসে। [১০৯]

ওয়েলশ এবং প্রোটেস্ট্যান্ট রিফর্মেশনে বাইবেলের অনুবাদ। এটি ধর্মীয় সেবায় স্থানীয় ভাষার ব্যবহারকে উৎসাহিত করেছিল, পঞ্চদশ ও ষোড়শ শতাব্দীতে ওয়েলশ অভিজাতরা ইংরেজির পক্ষে এটি পরিত্যাগ করার পরে ভাষাটিকে টিকে থাকতে সাহায্য করেছিল। [১০৯]

ধারাবাহিক ওয়েলশ ভাষা আইন, ১৯৪২, ১৯৬৭ এবং ১৯৯৩ সালে, ওয়েলশের আইনি অবস্থার উন্নতি করেছে। [১০৯] ওয়েলশ ভাষা (ওয়েলস) পরিমাপ ২০১১ ১৯৯৩ ওয়েলশ ভাষা আইনকে আধুনিক করে এবং ওয়েলশকে প্রথমবারের মতো ওয়েলসে একটি সরকারি মর্যাদা দেয়। এটি ভাষার জন্য একটি প্রধান ল্যান্ডমার্ক। দ্য মেজার ওয়েলশ ল্যাঙ্গুয়েজ বোর্ডের পরিবর্তে ওয়েলশ ভাষা কমিশনারের পদও তৈরি করেছে।[১১০] ২০১১ সালে গণভোটের পর, সরকারি ভাষা আইনটি ৬০০ বছরে তৈরি করা প্রথম ওয়েলশ আইন হয়ে ওঠে, তৎকালীন ফার্স্ট মিনিস্টার কারউইন জোন্সের মতে। এই আইনটি শুধুমাত্র ওয়েলশ অ্যাসেম্বলি সদস্যদের (এএম) দ্বারা পাস করা হয়েছিল এবং ওয়েলশকে ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলির একটি অফিসিয়াল ভাষা বানিয়েছিল।[১১১]

১৯৬০ এর দশক থেকে শুরু করে, অনেক রাস্তার চিহ্ন দ্বিভাষিক সংস্করণ দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়েছে। [১০৯] বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি সেক্টরের সংস্থাগুলো বিভিন্ন মাত্রায় দ্বিভাষিকতা গ্রহণ করেছে এবং (২০১১ সাল থেকে) গ্রেট ব্রিটেনের যেকোনো অংশে ওয়েলশই একমাত্র সরকারি (বিচারক) ভাষা। [১০৯]

সরকার এবং রাজনীতি সম্পাদনা

 
রিচার্ড রজার্স দ্বারা ডিজাইন করা সেনেড বিল্ডিং, সেন্ট ডেভিড ডে ২০০৬-এ খোলা হয়েছিল।

ওয়েলস হলো একটি দেশ যেটি যুক্তরাজ্যের সার্বভৌম রাষ্ট্রের অংশ।[১১২] সাংবিধানিকভাবে, ওয়েস্টমিনস্টারে পার্লামেন্ট এবং সরকার সহ যুক্তরাজ্য একটি বিচারিক একক রাষ্ট্র[১১৩] ওয়েলসের একটি হস্তান্তরিত, এককক্ষ বিশিষ্ট আইনসভা রয়েছে যা সেনেড (সেনেড সিমরু - ওয়েলশ পার্লামেন্ট) নামে পরিচিত যা একটি সংরক্ষিত ক্ষমতা মডেলের মাধ্যমে যুক্তরাজ্যের সংসদ থেকে হস্তান্তরিত ক্ষমতা ধারণ করে।[১১৪] স্থানীয় সরকারের উদ্দেশ্যে, ১৯৯৬ সাল থেকে ওয়েলসকে ২২টি কাউন্সিল এলাকায় বিভক্ত করা হয়েছে। এই "প্রধান এলাকা"[১১৫] সমস্ত স্থানীয় সরকার পরিষেবার বিধানের জন্য দায়ী।[১১৬]

হাউস অফ কমন্সে - যুক্তরাজ্যের সংসদের ৬৫০ সদস্যের নিম্নকক্ষ - ৪০ জন সংসদ সদস্য (এমপি) আছেন যারা ওয়েলশ নির্বাচনী এলাকার প্রতিনিধিত্ব করেন ৷ ২০১৯ সালের সাধারণ নির্বাচনে, ২২ জন লেবার এবং লেবার কো-অপ এমপি নির্বাচিত হয়েছেন, সঙ্গে ১৪ জন কনজারভেটিভ এমপি এবং ৪ প্লেইড সিমরু ওয়েলস থেকে এমপি নির্বাচিত হয়েছেন।[১১৩] ওয়েলস অফিস হলো ওয়েলসের জন্য দায়ী যুক্তরাজ্য সরকারের একটি বিভাগ। এর মন্ত্রী, ওয়েলসের সেক্রেটারি অফ স্টেট (ওয়েলশ সেক্রেটারি), যুক্তরাজ্যের মন্ত্রিসভায় বসেন।[১১৭]

সেনেড সম্পাদনা

First Minister Mark Drakeford during St David's Day speech, ২০২১.

১৯৯৭ সালে বিকেন্দ্রীকরণের পর, ওয়েলস সরকার আইন ১৯৯৮ একটি ওয়েলশ ডিভলড অ্যাসেম্বলি তৈরি করে যা এখন সেনেড নামে পরিচিত (আনুষ্ঠানিকভাবে " Senedd Cymru " বা "ওয়েলশ পার্লামেন্ট", এবং পূর্বে ২০২০ সাল পর্যন্ত "ওয়েলসের জাতীয় পরিষদ" নামে পরিচিত ছিল।[১১৮] ১ জুলাই ১৯৯৯-এ ওয়েলশ সচিবের ক্ষমতা হস্তান্তরিত সরকারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছিল। এর মাধ্যমে ওয়েস্টমিনস্টার সরকারের বাজেট কীভাবে ব্যয় ও পরিচালনা করা হয় তা নির্ধারণ করার ক্ষমতা ওয়েলসের আইনসভাকে প্রদান করে।[১১৯] ১৯৯৮ আইনটি "ওয়েলস সরকার আইন ২০০৬" দ্বারা সংশোধিত হয়েছিল। এটি প্রতিষ্ঠানের ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। এটিকে স্কটিশ পার্লামেন্ট এবং উত্তর আয়ারল্যান্ড অ্যাসেম্বলির মতো আইন প্রণয়ন ক্ষমতা প্রদান করে। সেনেড (এমএসএস) এর ৬০ জন সদস্য একটি অতিরিক্ত সদস্য ব্যবস্থার অধীনে পাঁচ বছরের মেয়াদে (২০১১ সালের আগে চার বছরের মেয়াদে) নির্বাচিত হন। ৪০টি একক-সদস্যের নির্বাচনী এলাকা রয়েছে। সেখানে মেম্বার অফ সেনেড গণ সরাসরি ফার্স্ট-পাস্ট-দ্য-পোস্ট ভোটদান পদ্ধতি ব্যবহার করে নির্বাচিত হয়। বাকি ২০ জন মেম্বার অফ সেনেড আনুপাতিক প্রতিনিধিত্ব ব্যবহার করে পাঁচটি নির্বাচনী অঞ্চলের প্রতিনিধিত্ব করে। এর প্রতিটিতে সাত থেকে নয়টি নির্বাচনী এলাকা রয়েছে।[১২০] সেনেডকে অবশ্যই একজন প্রথম মন্ত্রী (prif weinidog) নির্বাচন করতে হবে। তিনি ঘুরে ঘুরে ওয়েলশ সরকার গঠনের জন্য মন্ত্রীদের নির্বাচন করেন।[১২১]

"সাবজেক্ট" হিসাবে পরিচিত ওয়েলশ সরকারের কাছে দায়িত্ব অর্পিত বিশটি ক্ষেত্রগুলোর মধ্যে রয়েছে কৃষি, অর্থনৈতিক উন্নয়ন, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, আবাসন, স্থানীয় সরকার, সামাজিক পরিষেবা, পর্যটন, পরিবহন এবং ওয়েলশ ভাষা।[১২২] ১৯৯৯ সালে এর সৃষ্টির সময়, ওয়েলসের জাতীয় পরিষদের কোন প্রাথমিক আইনী ক্ষমতা ছিল না।[১২৩] ২০০৭ সালে, গভর্নমেন্ট অফ ওয়েলস অ্যাক্ট ২০০৬ (জিওডব্লিউএ ২০০৬) পাস করার পর, অ্যাসেম্বলিটি প্রাথমিক আইন পাস করার ক্ষমতা তৈরি করে। এটি সেই সময়ে অ্যাসেম্বলি মেজারস নামে পরিচিত ছিল। এবং এর দায়িত্বের ক্ষেত্রগুলোর মধ্যে কিছু নির্দিষ্ট "সাবজেক্ট" এর উপরেই এর প্রভাব ছিল। পরবর্তীতে আরও সাবজেক্ট সমূহ যুক্ত করা হয়েছে। এটি সরাসরি যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্ট দ্বারা বা ইউকে পার্লামেন্ট একটি লেজিসলেটিভ কম্পিটেন্স অর্ডার (এলসিও, অতিরিক্ত ক্ষমতার জন্য অ্যাসেম্বলি থেকে একটি অনুরোধ) অনুমোদন করে। গভর্নমেন্ট অফ ওয়েলস অ্যাক্ট ২০০৬ সেনেডকে একটি গণভোটে অনুমোদিত হলে একই বিস্তৃত এলাকার মধ্যে আরও বিস্তৃত বিষয়ে প্রাথমিক আইন প্রণয়নের ক্ষমতা লাভের অনুমতি দেয়।[১২৪] তৎকালীন জাতীয় পরিষদের আইন প্রণয়নের ক্ষমতা বাড়ানোর বিষয়ে একটি গণভোট ২০১১ সালের ৩ মার্চ তারিখে অনুষ্ঠিত হয় এবং ওয়েলসের আইন পরিষদ সেনেডের ক্ষমতা ও কার্যাবলী বর্ধিতকরণের পক্ষে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে। ফলস্বরূপ, যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্টের চুক্তির প্রয়োজন ছাড়াই, বিষয়বস্তুর ক্ষেত্রে সমস্ত বিষয়ে আইন প্রণয়নের জন্য ওয়েলসের আইন পরিষদ ক্ষমতাপ্রাপ্ত হয়। এটি এখন অ্যাক্টস অফ সেনেড সিমরু (ওয়েলসের সেনেড আইন) নামে পরিচিত।[১২৫]

এই সেনেড বিদেশেও ওয়েলশ স্বার্থ প্রচার করে। আমেরিকাতে এর নিজস্ব দূত রয়েছে। প্রাথমিকভাবে এর উদ্দেশ্য হচ্ছে সেখানে ওয়েলসের নির্দিষ্ট ব্যবসায়িক স্বার্থ প্রচার করা। নিউ ইয়র্ক সিটি, শিকাগো, সান ফ্রান্সিসকো এবং আটলান্টায় স্যাটেলাইট সহ ওয়াশিংটন ব্রিটিশ দূতাবাসে প্রাথমিক ওয়েলশ সরকারি কার্যালয় অবস্থিত।[১২৬] যুক্তরাষ্ট্র ওয়েলসের সাথে সরাসরি সম্পর্ক গড়ে তোলার জন্য এটি একটি ককাসও প্রতিষ্ঠা করেছে।[১২৭] ইউনাইটেড স্টেটসের কংগ্রেসে ওয়েলশ ঐতিহ্য এবং ওয়েলসের আগ্রহ সহ আইনপ্রণেতারা "ফ্রেন্ডস অফ ওয়েলস ককাস" প্রতিষ্ঠা করেছেন।[১২৮]

আইন সম্পাদনা

 
ওওয়েন গ্লিন্ডারের শহরে আক্রমণের পর ১৪০১ সালে ওল্ড কোর্ট হাউস, রুথিন, ডেনবিগশায়ার নির্মিত হয়েছিল
 
হাইয়েল ডিডিএর আইন থেকে একজন ওয়েলশ বিচারকের দৃষ্টান্ত

ঐতিহ্য অনুসারে, ৯৪২ সাল থেকে ৯৫০ সালে রাজা হিয়েল ডিডার মৃত্যুর মধ্যবর্তী সময়ে ওয়েলসের আইনের বেশিরভাগই সংকলিত হয়। ৯৩০ সালের দিকে হিয়েল ডিডা হুইটল্যান্ডে অনুষ্ঠিত একটি সমাবেশের সময় ওয়েলশ প্রধান আইনটি সংকলন করেছিলেন। এটি 'হিয়েল ডিডার আইন' (ওয়েলশ: Cyfraith Hywel) হিসেবে পরিচিত হয়ে ওঠে। এর মাধ্যমে তিনি পূর্বে বিদ্যমান লোক আইন এবং আইনী রীতিনীতি গুলিকে কোডেড করেছিলেন। এই প্রচলিত ব্যবস্থা পূর্বে কয়েক শতাব্দী ধরে ওয়েলসে বিকশিত হয়েছিল। ওয়েলসের এই আইন শাসক কর্তৃক শাস্তির পরিবর্তে ভুক্তভোগী বা ভুক্তভোগীর আত্মীয়দের কোনও অপরাধের জন্য ক্ষতিপূরণ প্রদানের উপর জোর দিয়েছিল।[১২৯] তবে এটি মার্চ আইন ব্যতীত বাকিগুলোর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য ছিল। মার্চ আইন টি মার্চার লর্ডস দ্বারা আরোপিত হয়েছিল। এটি ২৮৪ সালে রুডলানের সংবিধি পর্যন্ত ওয়েলস আইন হিসবে ওয়েলসে কার্যকর ছিল। ইংল্যান্ডের প্রথম এডওয়ার্ড লিওয়েলিন এপ গ্রুফুডের মৃত্যুর পরে ওয়েলসের প্রিন্সিপ্যালিটি সংযুক্ত করেছিলেন এবং সংবিধির অধীনে ফৌজদারি মামলার জন্য ওয়েলশ আইন প্রতিস্থাপিত হয়েছিল। মার্চার আইন এবং ওয়েলশ আইন (সিভিল মামলার জন্য) বলবৎ ছিল যতক্ষণ না ইংল্যান্ডের হেনরি অষ্টম ওয়েলস অ্যাক্টস ১৫৩৫ এবং ১৫৪২ (প্রায়শই ১৫৩৬ এবং ১৫৪৩ সালের আইনের আইন হিসাবে উল্লেখ করা হয়) এর অধীনে সমগ্র ওয়েলসকে সংযুক্ত করে। আইন সমগ্র ওয়েলস প্রযোজ্য.[১৩০][১৩১] ওয়েলস এবং বারউইক অ্যাক্ট ১৭৪৬ প্রদান করেছে যে ইংল্যান্ডে প্রযোজ্য সমস্ত আইন স্বয়ংক্রিয়ভাবে ওয়েলসে (এবং অ্যাংলো-স্কটিশ সীমান্ত শহর বারউইক) প্রযোজ্য হবে যদি না আইনটি স্পষ্টভাবে অন্যথায় বলা হয়; এই আইনটি ১৯৬৭ সালে ওয়েলসের ক্ষেত্রে বাতিল করা হয়েছিল। ইংরেজি আইন ১৫৩৬ সাল থেকে ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসের আইনি ব্যবস্থা[১৩২]

ইংরেজী আইন একটি সাধারণ আইন ব্যবস্থা হিসাবে বিবেচিত হয়। সেখানে আইনের কোন প্রধান কোডিফিকেশন নেই এবং আইনী নজিরগুলো প্ররোচিত করার বিপরীতে বাধ্যতামূলক। আদালত ব্যবস্থাটি ইউনাইটেড কিংডমের সুপ্রিম কোর্টের নেতৃত্বে রয়েছে যা ফৌজদারি এবং দেওয়ানী মামলাগুলোর জন্য দেশের আপিলের সর্বোচ্চ আদালত। ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসের সিনিয়র কোর্ট হলো প্রথম দৃষ্টান্তের সর্বোচ্চ আদালতের পাশাপাশি একটি আপিল আদালত । তিনটি বিভাগ হলো আপিল আদালত ; হাইকোর্ট অফ জাস্টিস এবং ক্রাউন কোর্ট । ম্যাজিস্ট্রেট আদালত বা কাউন্টি আদালতের মাধ্যমে ছোটখাটো মামলার শুনানি হয়। ২০০৭ সালে ওয়েলস এবং চেশায়ার অঞ্চল (২০০৫ সালের আগে ওয়েলস এবং চেশায়ার সার্কিট নামে পরিচিত) শেষ হয় যখন চেশায়ার উত্তর-পশ্চিম ইংল্যান্ড অঞ্চলের সাথে সংযুক্ত হয়। সেই বিন্দু থেকে, ওয়েলস তার নিজের অধিকারে একটি আইনি ইউনিট হয়ে ওঠে, যদিও এটি ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসের একক এখতিয়ারের অংশ।[১৩৩]

সেনেডের ওয়েলসের নির্দিষ্ট চাহিদা মেটানোর জন্য যুক্তরাজ্যের সংসদীয় ব্যবস্থার বাইরে আইন প্রণয়ন ও অনুমোদন করার ক্ষমতা রয়েছে। মার্চ ২০১১ সালে অনুষ্ঠিত একটি গণভোটের দ্বারা অনুমোদিত ক্ষমতার অধীনে, এটি প্রাথমিক আইন পাস করার ক্ষমতাপ্রাপ্ত হয়, সেই সময়ে ওয়েলসের জন্য ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলির একটি আইন হিসাবে উল্লেখ করা হয়েছিল কিন্তু এখন তালিকাভুক্ত বিশটি বিষয় সম্পর্কিত সেনেড সিমরু আইন হিসাবে পরিচিত। ওয়েলস সরকার আইন ২০০৬ যেমন স্বাস্থ্য ও শিক্ষা। এই প্রাথমিক আইনের মাধ্যমে, ওয়েলশ সরকার আরও নির্দিষ্ট অধস্তন আইন প্রণয়ন করতে পারে।[১৩৪]

ওয়েলসে চারটি আঞ্চলিক পুলিশ বাহিনী, ডায়ফিয়েড-পউস পুলিশ, গোয়েন্ট পুলিশ, নর্থ ওয়েলস পুলিশ এবং সাউথ ওয়েলস পুলিশ ।[১৩৫] ওয়েলসে পাঁচটি কারাগার রয়েছে। এগুলোর মধ্যে চারটিই দেশের দক্ষিণাঞ্চলে অবস্থিত এবং অপর কারাগারটি একটি রেক্ সহ্যামে অবস্থিত। ওয়েলসে নারীদের জন্য বিশেষায়িত কোনো নারী কারাগার নেই। তাই মহিলা অপরাধীদের ইংল্যান্ডের কারাগারে বন্দী রাখা হয়।[১৩৬]

ভূগোল এবং প্রাকৃতিক ইতিহাস সম্পাদনা

 
স্নোডন, গুইনেড, ওয়েলসের সর্বোচ্চ পর্বত

ওয়েলস মধ্য দক্ষিণ গ্রেট ব্রিটেনের পশ্চিম দিকে একটি সাধারণত পাহাড়ী দেশ[১৩৭] এটি প্রায় ১৭০ মাইল (২৭০ কিমি) উত্তর থেকে দক্ষিণ[১৩৮] বারবার উদ্ধৃত ' ওয়েলসের আকার ' প্রায় ২০,৭৭৯ কিমি (৮,০২৩ মা) ।[১৩৯] ওয়েলস পূর্বে ইংল্যান্ডের সীমানা এবং অন্য সব দিক দিয়ে সমুদ্রপথে: উত্তর ও পশ্চিমে আইরিশ সাগর, দক্ষিণ-পশ্চিমে সেন্ট জর্জ চ্যানেল এবং সেল্টিক সাগর এবং দক্ষিণে ব্রিস্টল চ্যানেল[১৪০] ওয়েলসের প্রায় ১,৬৮০ মাইল (২,৭০০ কিমি) উপকূলরেখা (গড় উচ্চ জলের চিহ্ন বরাবর), মূল ভূখণ্ড, অ্যাঙ্গেলসি এবং হলিহেড সহ।[১৪১] ৫০টিরও বেশি দ্বীপ ওয়েলশের মূল ভূখণ্ডে অবস্থিত; উত্তর-পশ্চিমে সবচেয়ে বড় হচ্ছে অ্যাঙ্গেলসি ।[১৪২]

ওয়েলসের বৈচিত্র্যময় ল্যান্ডস্কেপের বেশিরভাগই পাহাড়ি, বিশেষ করে উত্তর ও মধ্য অঞ্চলে। শেষ বরফ যুগে, ডেভেনসিয়ান হিমবাহের সময় পর্বতগুলোর আকার ছিল। ওয়েলসের সর্বোচ্চ পর্বতগুলো স্নোডোনিয়াতে রয়েছে (Eryri)। এর মধ্যে পাঁচটি ১,০০০ মি (৩,৩০০ ফু) এর বেশি৷ । এর মধ্যে সর্বোচ্চ স্নোডন (Yr Wyddfa), ১,০৮৫ মি (৩,৫৬০ ফু) এ ।[১৪৩][১৪৪] ১৪ ওয়েলশ পর্বত, অথবা ১৫ যদি কার্নেড গোয়েনলিয়ান সহ – কম টপোগ্রাফিক প্রাধান্যের কারণে প্রায়ই ছাড় দেওয়া হয় – ৩,০০০ ফুট (৯১০ মিটার) এর বেশি উচ্চতা সম্মিলিতভাবে ওয়েলশ ৩০০০ হিসাবে পরিচিত এবং উত্তর-পশ্চিমে একটি ছোট এলাকায় অবস্থিত।[১৪৫] ৩০০০-এর দশকের বাইরে সর্বোচ্চ হলো আরান ফাউডউই, ৯০৫ মিটার (২,৯৬৯ ফুট), স্নোডোনিয়ার দক্ষিণে।[১৪৬] ব্রেকন বীকনস (Bannau Brycheiniog) দক্ষিণে রয়েছে (সর্বোচ্চ বিন্দু পেন ওয়াই ফ্যান, ৮৮৬ মিটার (২,৯০৭ ফুট)),[১৪৭] এবং মিড ওয়েলসের ক্যামব্রিয়ান পর্বতমালার সাথে যুক্ত হয়েছে (সর্বোচ্চ বিন্দু পুমলুমন, ৭৫২ মিটার (২,৪৬৭ ফুট))।[১৪৮]

 
ওয়েলসের ত্রাণ মানচিত্র

ওয়েলসের তিনটি জাতীয় উদ্যান রয়েছে: স্নোডোনিয়া, ব্রেকন বিকনস এবং পেমব্রোকেশায়ার কোস্ট (Arfordir Penfro) এর অসামান্য প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের পাঁচটি ক্ষেত্র রয়েছে; অ্যাঙ্গেলসি, ক্লউইডিয়ান রেঞ্জ এবং ডি ভ্যালি, গাওয়ার উপদ্বীপ, লন উপদ্বীপ এবং ওয়াই উপত্যকা ।[১৪৯] গাওয়ার উপদ্বীপ ছিল যুক্তরাজ্যের প্রথম এলাকা যা ১৯৫৬ সালে অসামান্য প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের এলাকা হিসাবে মনোনীত হয়েছিল। ২০১৯ সাল পর্যন্ত, ওয়েলসের উপকূলরেখায় ৪০টি ব্লু ফ্ল্যাগ সৈকত, তিনটি ব্লু ফ্ল্যাগ মেরিনা এবং একটি ব্লু ফ্ল্যাগ বোট অপারেটর ছিল।[১৫০] তার ঐতিহ্য এবং পুরস্কার বিজয়ী সৈকত সত্ত্বেও; ওয়েলসের দক্ষিণ ও পশ্চিম উপকূল, আইরিশ এবং কর্নিশ উপকূল সহ, প্রায়শই আটলান্টিক পশ্চিমাঞ্চল /দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চল দ্বারা বিস্ফোরিত হয় যা বছরের পর বছর ধরে অনেক জাহাজ ডুবিয়েছে এবং ধ্বংস করেছে। ১৮৫৯ সালে একটি হারিকেনে ওয়েলস উপকূলে ১১০ টিরও বেশি জাহাজ ধ্বংস হয়েছিল যা ব্রিটেন জুড়ে ৮০০ টিরও বেশি প্রাণ হারিয়েছিল।[১৫১] সবচেয়ে বড় একক ক্ষতি হয়েছিল অ্যাঙ্গেলসির রয়্যাল চার্টার ডুবে যাওয়ার সাথে যেখানে ৪৫৯ জন মারা গিয়েছিল।[১৫২] ১৯ শতকে প্রতি বছর গড়ে ৭৮ জন নাবিকের ক্ষতির সাথে ১০০ টিরও বেশি জাহাজ হারিয়েছে।[১৫৩] যুদ্ধকালীন ক্রিয়াকলাপ হলিহেড, মিলফোর্ড হ্যাভেন এবং সোয়ানসির কাছে ক্ষতির কারণ হয়েছিল।[১৫৩] উপকূলীয় শিলা এবং অপ্রকাশিত দ্বীপের কারণে, অ্যাঙ্গেলসি এবং পেমব্রোকেশায়ার এখনও জাহাজডুবির জন্য কুখ্যাত, বিশেষ করে ১৯৯৬ সালে সমুদ্র সম্রাজ্ঞী তেল ছড়িয়ে পড়ে[১৫৪]

ওয়েলস এবং ইংল্যান্ডের মধ্যে প্রথম সীমানাটি ছিল জোনাল, ওয়াই নদীর চারপাশের বাদে। এটি ছিল প্রথম স্বীকৃত সীমানা।[১৫৫] ওফার ডাইকে একটি প্রাথমিক স্বতন্ত্র রেখা তৈরি করার কথা ছিল কিন্তু গ্রুফুড এপ লেওয়েলিনডাইকের ওপারে বেশ কিছু জমি পুনরুদ্ধার করলেও এক্ষেত্রে তার প্রচেষ্টা এটি ব্যর্থ হয়েছিল।[১৫৫] ১৫৩৬ সালের ইউনিয়ন আইনটি ডি-এর মুখ থেকে ওয়াইয়ের মুখ পর্যন্ত প্রসারিত একটি রৈখিক সীমানা তৈরি করেছিল।[১৫৫] এমনকি ইউনিয়নের আইনের পরেও, ১৮৮১ সালের ওয়েলশ সানডে ক্লোজিং অ্যাক্ট পর্যন্ত অনেক সীমানা অস্পষ্ট এবং স্থানান্তরযোগ্য ছিল। এটি স্থানীয় ব্যবসাগুলোকে সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য করেছিল যে তারা ওয়েলশ বা ইংরেজী আইন মেনে নিতে কোন দেশের মধ্যে পড়বে।[১৫৫]

ভূতত্ত্ব সম্পাদনা

প্যালিওজোয়িক যুগের প্রাচীনতম ভূতাত্ত্বিক সময়কাল ক্যামব্রিয়ান। ক্যামব্রিয়ান পর্বত থেকে এর নাম নেওয়া হয়েছিল। সেখানে ভূতাত্ত্বিকরা প্রথম ক্যামব্রিয়ান অবশিষ্টাংশ সনাক্ত করেছিলেন।[১৫৬][১৫৭] ১৯ শতকের মাঝামাঝি সময়ে রডারিক মুর্চিসন এবং অ্যাডাম সেডগউইক স্ট্র্যাটিগ্রাফি এবং প্যালিওন্টোলজির নির্দিষ্ট নীতিগুলো প্রতিষ্ঠা করতে ওয়েলশ ভূতত্ত্বের অধ্যয়ন ব্যবহার করেছিলেন। প্যালিওজোয়িক যুগের পরবর্তী দুটি সময়কাল অর্ডোভিসিয়ান এবং সিলুরিয়ান। এগুলো এই অঞ্চলের প্রাচীন কেল্টিক উপজাতিদের নামে নামকরণ করা হয়েছিল।[১৫৮][১৫৯]

জলবায়ু সম্পাদনা

ওয়েলস
জলবায়ু লেখচিত্র
জাফেমামেজুজুসেডি
 
 
১৫৯
 
 
 
১১৪
 
 
 
১১৯
 
 
 
৮৬
 
১১
 
 
৮১
 
১৫
 
 
৮৬
 
১৭
 
 
৭৮
 
১৯
১১
 
 
১০৬
 
১৯
১১
 
 
১২৪
 
১৬
 
 
১৫৩
 
১৩
 
 
১৫৭
 
 
 
১৭৩
 
সেলসিয়াস তাপমাত্রায় সর্বোচ্চ এবং সর্বোনিম্ন গড়
মিলিমিটারে বৃষ্টিপাতের মোট পরিমাণ
 
একটি লাল ঘুড়ি, ওয়েলসের জাতীয় প্রতীকগুলোর মধ্যে একটি হিসাবে বিবেচিত এবং দেশের প্রিয় পাখিকে ভোট দেয়[১৬০]

ওয়েলস উত্তর নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চলের মধ্যে অবস্থিত। অঞ্চলটির একটি পরিবর্তনশীল, সামুদ্রিক জলবায়ু রয়েছে এবং এটি ইউরোপের অন্যতম আর্দ্র দেশ।[১৬১][১৬২] ওয়েলশ আবহাওয়া প্রায়শই মেঘলা, আর্দ্র এবং বাতাসযুক্ত, উষ্ণ গ্রীষ্ম এবং হালকা শীত দেখা যায়।[১৬১][১৬৩]

  • সর্বোচ্চ সর্বোচ্চ তাপমাত্রা: ৩৭.১ °সে (৯৯ °ফা) ১৮ জুলাই ২০২২-এ হাওয়ার্ডেন, ফ্লিন্টশায়ারে[১৬৪]
  • সর্বনিম্ন সর্বনিম্ন তাপমাত্রা: −২৩.৩ °সে (−১০ °ফা)[১৬৫] জানুয়ারী ১৯৪০-এ র‍্যাডর, রাডনরশায়ার (বর্তমানে পাউইস) এ
  • এক মাসে সর্বাধিক সূর্যালোকের সংখ্যা: ১৯৫৫ সালের জুলাই মাসে ডেল ফোর্ট, পেমব্রোকেশায়ারে ৩৫৪.৩ ঘন্টা[১৬৬]
  • এক মাসে ন্যূনতম সংখ্যক ঘন্টা সূর্যালোক: ১৯৬২ সালের জানুয়ারীতে ব্রেকনকশায়ারের লিউইননে ২.৭ ঘন্টা[১৬৬]
  • একদিনে সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত (০৯০০ ইউটিসি − ০৯০০ ইউটিসি): ২১১ মিলিমিটার (৮.৩ ইঞ্চি) রোন্ডডা, গ্ল্যামারগানে, ১১ নভেম্বর ১৯২৯ সালে।[১৬৭]
  • আর্দ্রতম স্থান - গড় ৪,৪৭৩ মিলিমিটার (১৭৬ ইঞ্চি) স্নোডোনিয়া, গুইনেডের ক্রিব গোচ- এ বছরে বৃষ্টি (এটিকে যুক্তরাজ্যের সবচেয়ে আর্দ্র স্থানও করে তোলে)।[১৬৮]


উদ্ভিদ ও প্রাণীজগত সম্পাদনা

ওয়েলসের বন্যপ্রাণী বিভিন্ন পার্থক্য সহ ব্রিটেনের আদর্শ। দীর্ঘ উপকূলরেখার কারণে ওয়েলস বিভিন্ন ধরনের সামুদ্রিক পাখি রয়েছে। উপকূল এবং পার্শ্ববর্তী দ্বীপগুলো গ্যানেট, ম্যাঙ্কস শিয়ারওয়াটার, পাফিন, কিটিওয়াক, শ্যাগ এবং রেজারবিলের উপনিবেশের আবাসস্থল। এর তুলনায় ১৫০ মিটার কনট্যুরের উপরে ওয়েলসের ৬০ শতাংশ এলাকা দেশটি কাক এবং রিং ওজেল সহ বিভিন্ন উচ্চভূমির আবাসিক পাখিদের আবাস্থল।[১৬৯][১৭০] শিকারী পাখির মধ্যে রয়েছে মেরলিন, হেন হ্যারিয়ার এবং লাল ঘুড়ি। শেষোক্ত পাখিটি ওয়েলশ বন্যপ্রাণীর জাতীয় প্রতীক।[১৭১] মোট, ২০০ টিরও বেশি বিভিন্ন প্রজাতির পাখি কনওয়েতে আরএসপিবি রিজার্ভে দেখা গেছে। এর মধ্যে মৌসুমী দর্শকও রয়েছে।[১৭২] বাদামী ভাল্লুক, নেকড়ে এবং বন্য বিড়াল সহ বৃহত্তর স্তন্যপায়ী প্রাণীরা নরম্যান আমলে মারা গিয়েছিল। বর্তমানে, স্তন্যপায়ী প্রাণীর মধ্যে রয়েছে শ্রু, ভোল, ব্যাজার, ওটার, স্টোটস, উইসেল, হেজহগ এবং বাদুড়ের পনেরটি প্রজাতি। দুটি প্রজাতির ছোট ইঁদুর, হলুদ-গলাযুক্ত ইঁদুর এবং ডরমাউস, ঐতিহাসিকভাবে অবিচ্ছিন্ন সীমান্ত এলাকায় পাওয়া যাচ্ছে, যা ।[১৭৩] বিশেষ ভাবে উল্লেখ্য যে, বর্তমানে ওয়েলসে পাইন মার্টেন মাঝে মাঝে দেখা যায়। ২০১৫ সাল থেকে ওয়েলসের কিছু অংশে এটি পুনরায় দেখতে পাওয়া গেছে। এর আগে ১৯৫০ এর দশক থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে এর অস্তিত্ব রেকর্ড করা সম্ভব হয়নি।[১৭৪] পোলেক্যাটটি ব্রিটেনে প্রায় বিলুপ্তির দিকে চালিত হয়েছিল। কিন্তু এটি ওয়েলসে আটকে ছিল এবং বর্তমান সময়ে এটি দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। স্নোডোনিয়াতে ফেরাল ছাগল পাওয়া যায়।[১৭৫] ২০২১ সালের মার্চ মাসে, ন্যাচারাল রিসোর্সেস ওয়েলস (এনআরডব্লিউ) ডায়ফি ভ্যালিতে ছয়টি পর্যন্ত বিভার ছাড়ার লাইসেন্স দিয়েছে। এটি ওয়েলসে প্রথম আনুষ্ঠানিক বিভার রিলিজ।[১৭৬]

দক্ষিণ-পশ্চিম ওয়েলসের গোওয়ার, পেমব্রোকেশায়ার এবং কার্ডিগান উপসাগরের জল সামুদ্রিক প্রাণীদের আকর্ষণ করে। এর মধ্যে রয়েছে বাস্কিং হাঙ্গর, আটলান্টিক গ্রে সিল, লেদারব্যাক কচ্ছপ, ডলফিন, পোরপোইস, জেলিফিশ, কাঁকড়া এবং লবস্টার। পেমব্রোকেশায়ার এবং সেরেডিজিয়ন, বিশেষ করে বোতল-নাক ডলফিনের জন্য আন্তর্জাতিক গুরুত্বের একটি এলাকা হিসেবে স্বীকৃত। সমগ্র যুক্তরাজ্যে বোতল-নাক ডলফিনের গ্রীষ্মকালীন আবাসস্থল নিউ কোয়েই রয়েছে। উল্লেখযোগ্য নদীর মাছের মধ্যে রয়েছে চর, ঈল, স্যামন, শ্যাড, স্পার্লিং এবং আর্কটিক চর। মাছের মধ্যে গুইনিয়াড ওয়েলসের জন্য অনন্য। এটি শুধুমাত্র ওয়েলসের বালা হ্রদে পাওয়া যায়। ওয়েলস তার শেলফিশের জন্য পরিচিত। এর মধ্যে রয়েছে ককল, লিম্পেট, ঝিনুক এবং পেরিউইঙ্কলস । হেরিং, ম্যাকেরেল এবং হেক দেশের সামুদ্রিক মাছের মধ্যে বেশি সাধারণ।[১৭৭] স্নোডোনিয়ার উত্তরমুখী উঁচু ভূমি আইকনিক স্নোডন লিলি - গ্যাগিয়া সেরোটিনা - এবং স্যাক্সিফ্রাগা সেসপিটোসা, স্যাক্সিফ্রাগা অপজিটিফোলিয়া এবং সিলেন অ্যাকাউলিসের মতো অন্যান্য আল্পাইন প্রজাতি সহ একটি অবশেষ প্রাক-হিমবাহী উদ্ভিদের এলাকা। ওয়েলসের অনেকগুলো উদ্ভিদ প্রজাতি রয়েছে যা যুক্তরাজ্যের অন্য কোথাও পাওয়া যায় না। এর মধ্যে অ্যাঙ্গেলসির উপর দাগযুক্ত শিলা-গোলাপ টিউবেরিয়া গুটাটা এবং গাওয়ারে ড্রাবা আইজোয়েডস রয়েছে।[১৭৮]

অর্থনীতি সম্পাদনা

 
২০১২ সালে ওয়েলসের অর্থনীতির একটি প্রোফাইল
A ২০২১ introduction to some of the largest companies based in Wales, including: Airbus, bipsync, HCI Pharmaceutical, ReNeuron, Deloitte, Coaltown Coffee, DMM International and Freudenberg

গত ২৫০ বছরে, ওয়েলস একটি প্রধানত কৃষিপ্রধান দেশ থেকে একটি শিল্প এবং তারপর একটি শিল্পোত্তর অর্থনীতিতে রূপান্তরিত হয়েছে।[১৭৯] ১৯৫০-এর দশকে ওয়েলসের জিডিপি আয়ারল্যান্ডের চেয়ে দ্বিগুণ বড় ছিল; ২০২০-এর দশকে আয়ারল্যান্ডের অর্থনীতি ওয়েলসের চেয়ে চারগুণ ছিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে, পরিষেবা খাত সংখ্যাগরিষ্ঠ চাকরির জন্য দায়ী, একটি বৈশিষ্ট্য যা সর্বাধিক উন্নত অর্থনীতিকে টাইপ করে।[১৮০] ২০১৮ সালে, ওইসিডি এবং ইউরোস্ট্যাট তথ্য অনুসারে, ওয়েলসে মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) ছিল £৭৫ বিলিয়ন, ২০১৭ থেকে ৩.৩ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০১৮ সালে ওয়েলসে মাথাপিছু জিডিপি ছিল £২৩,৮৬৬। এটি ২০১৭-এ ২.৯ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। এটি ইতালির ২৫,০০০ পাউন্ড, স্পেনের ২২,০০০ পাউন্ড, স্লোভেনিয়ার ২০,০০০ পাউন্ড এবং নিউজিল্যান্ডের ৩০,০০০ পাউন্ডের জিডিপি/মাথার সাথে তুলনা করে।[১৮১][১৮২] ডিসেম্বর ২০১৭ থেকে তিন মাসে, ৭২.৭ শতাংশ কর্মক্ষম বয়সী প্রাপ্তবয়স্কদের নিযুক্ত করা হয়েছে। এটি সমগ্র যুক্তরাজ্য জুড়ে ৭৫.২ শতাংশের তুলনায়।[১৮৩] ২০১৮-১৯ অর্থবছরের জন্য, ওয়েলশের রাজস্ব ঘাটতি ওয়েলসের আনুমানিক জিডিপির ১৯.৪ শতাংশ।[১৮৪]

২০১৯ সালে, ওয়েলস বিদ্যুতের একটি নেট রপ্তানিকারক ছিল। এটি ২৭.৯ টিডাব্লিউএইচ বিদ্যুত উৎপন্ন করেছে যখন শুধুমাত্র ১৪.৭ TWh ব্যবহার করেছে।[১৮৫] ২০২১ সালে, ওয়েলশ সরকার বলেছিল যে দেশের অর্ধেকেরও বেশি শক্তির চাহিদা পুনর্নবীকরণযোগ্য উত্স দ্বারা পূরণ করা হচ্ছে। এর ২ শতাংশ ৩৬৩টি জলবিদ্যুৎ প্রকল্প থেকে।[১৮৬]

যুক্তরাজ্যের আইন অনুসারে, ওয়েলস এমন আইটেমগুলোতে অবদান রাখে যা ওয়েলসকে সরাসরি উপকৃত করে না যেমন HS২ এর জন্য £৫ বিলিয়নের বেশি "যা ওয়েলশ অর্থনীতিকে £২০০m পাউন্ডের ক্ষতি করবে", যুক্তরাজ্য এবং ওয়েলশ সরকারের পরিবহন উপদেষ্টা মার্ক ব্যারির মতে। ওয়েলস সামরিক ব্যয়ের ক্ষেত্রেও বেশিরভাগ একই আকারের দেশগুলোর তুলনায় বেশি অর্থ প্রদান করে যেমন আয়ারল্যান্ড যে পরিমাণ সামরিক খাতে ব্যয় করে তার দ্বিগুণ অর্থ দেয় ওয়েলস।[১৮৭] যুক্তরাজ্য সরকার ওয়েলসের সামরিক বাহিনীতে প্রতি বছর ১.৭৫ বিলিয়ন পাউন্ড ব্যয় করে। এটি ওয়েলস প্রতি বছর শিক্ষার জন্য ব্যয় করে প্রায় সমান (২০১৮/১৯ সালে £১.৮ বিলিয়ন) এবং পুলিশে মোট ব্যয়ের পাঁচগুণ। ওয়েলস (£৩৬৫ মিলিয়ন)।[১৮৮]

১৯ শতকের মাঝামাঝি থেকে যুদ্ধ-পরবর্তী যুগ পর্যন্ত কয়লা খনন এবং রপ্তানি ছিল প্রধান শিল্প। ১৯১৩ সালে উৎপাদনের সর্বোচ্চ পর্যায়ে, সাউথ ওয়েলসের কয়লাক্ষেত্রে প্রায় ২৩৩,০০০ পুরুষ ও মহিলা নিযুক্ত ছিল, ৫৬ মিলিয়ন টন কয়লা খনন করা হয়েছিল।[১৮৯] কার্ডিফ একসময় বিশ্বের বৃহত্তম কয়লা রপ্তানিকারক বন্দর ছিল এবং প্রথম বিশ্বযুদ্ধের কয়েক বছর আগে, লন্ডন বা লিভারপুলের চেয়েও বেশি টন মাল বহন করত।[১৯০] ১৯২০-এর দশকে, ওয়েলশ জনসংখ্যার ৪০ শতাংশেরও বেশি পুরুষ ভারী শিল্পে কাজ করত।[১৯১] ফিল উইলিয়ামসের মতে, "কয়লা ও ইস্পাতের উপর অত্যধিক নির্ভরতার" কারণে মহামন্দা "উত্তর ও দক্ষিণ ওয়েলসকে ধ্বংস করেছে"।[১৯১] ১৯৭০-এর দশকের মাঝামাঝি থেকে, ওয়েলশ অর্থনীতি ব্যাপক পুনর্গঠনের সম্মুখীন হয় এবং ভারী শিল্পে বিপুল সংখ্যক চাকরি অদৃশ্য হয়ে যায় এবং অবশেষে হালকা শিল্প এবং পরিষেবাগুলোতে নতুনদের দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়। ১৯৭০-এর দশকের শেষের দিকে এবং ১৯৮০-এর দশকের গোড়ার দিকে, ওয়েলস যুক্তরাজ্যে সরাসরি বিদেশী বিনিয়োগের গড় অংশ আকর্ষণ করতে সফল হয়েছিল।[১৯২] নতুন শিল্পের বেশিরভাগই মূলত একটি "শাখা (বা "স্ক্রু ড্রাইভার") ফ্যাক্টরি" টাইপের ছিল যেখানে একটি উৎপাদন কারখানা বা কল সেন্টার ওয়েলসে আছে কিন্তু কোম্পানির সবচেয়ে বেশি বেতনের চাকরি অন্যত্র।[১৯৩][১৯৪]

ওয়েলসের বেশিরভাগ অংশে নিম্নমানের মাটি শস্য-উৎপাদনের জন্য অনুপযুক্ত, তাই পশুপালন চাষের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে দাঁড়িয়েছে। ভূমি পৃষ্ঠের প্রায় ৭৮ শতাংশ কৃষিতে ব্যবহৃত হয়।[১৯৫] তিনটি জাতীয় উদ্যান এবং ব্লু ফ্ল্যাগ সৈকত সহ ওয়েলশ ল্যান্ডস্কেপ বিপুল সংখ্যক পর্যটকদের আকর্ষণ করে। এরা গ্রামীণ এলাকার অর্থনীতিকে শক্তিশালী করে।[১৯৬] উত্তর আয়ারল্যান্ডের মতো ওয়েলসে অর্থ এবং গবেষণা ও উন্নয়নের মতো খাতে তুলনামূলকভাবে কম উচ্চ মূল্য সংযোজন কর্মসংস্থান রয়েছে। এটি "অর্থনৈতিক ভর" (অর্থাৎ জনসংখ্যা)-এর তুলনামূলক অভাবের জন্য দায়ী - ওয়েলসে একটি বড় মেট্রোপলিটন কেন্দ্রের অভাব রয়েছে।[১৯৪] উচ্চ মূল্য সংযোজন কর্মসংস্থানের অভাব যুক্তরাজ্যের অন্যান্য অঞ্চলের তুলনায় মাথাপিছু নিম্ন অর্থনৈতিক আউটপুট দ্বারা প্রতিফলিত হয়: ২০০২ সালে এটি ইইউ ২৫ গড়ের ৯০ শতাংশ এবং ইউকে গড়ের প্রায় ৮০ শতাংশে দাঁড়িয়েছিল।[১৯৪] জুন ২০০৮ সালে, ওয়েলস ফেয়ারট্রেড স্ট্যাটাস প্রাপ্ত প্রথম জাতি হয়ে ইতিহাস তৈরি করে।[১৯৭]

পাউন্ড স্টার্লিং হলো ওয়েলসে ব্যবহৃত মুদ্রা। ১৯ শতকে অসংখ্য ওয়েলশ ব্যাংক তাদের নিজস্ব নোট জারি করেছিল। এটি করার জন্য শেষ ব্যাঙ্কটি ১৯০৮ সালে বন্ধ হয়ে গিয়েছিল; সেই থেকে ওয়েলসে ব্যাঙ্কনোট ইস্যুতে ব্যাঙ্ক অফ ইংল্যান্ডের একচেটিয়া আধিপত্য রয়েছে৷[১৯৮] ১৯৭১ সালে স্যার জুলিয়ান হজ কার্ডিফে স্থাপিত বাণিজ্যিক ব্যাংক অফ ওয়েলস, ১৯৮৮ সালে ব্যাঙ্ক অফ স্কটল্যান্ড দ্বারা অধিগ্রহণ করা হয় এবং ২০০২ সালে এর মূল কোম্পানিতে গৃহীত হয়[১৯৯] রয়্যাল মিন্ট। এটি সমগ্র যুক্তরাজ্য জুড়ে মুদ্রার প্রচলন জারি করে, ১৯৮০ সাল থেকে ল্যানট্রিসেন্ট-এর একটি একক সাইটে অবস্থিত[২০০] দশমিকীকরণের পর থেকে, ১৯৭১ সালে, প্রচলিত মুদ্রাগুলোর মধ্যে অন্তত একটি ওয়েলসের উপর জোর দেয় যেমন ১৯৯৫ এবং ২০০০ এক পাউন্ড মুদ্রা (উপরে)। ২০১২-এর মতো, ওয়েলসের জন্য নিবেদিত সর্বশেষ ডিজাইনগুলো ২০০৮ সালে উৎপাদন করা হয়েছিল[২০১]

২০২০-এর সময় এবং ২০২১ সাল পর্যন্ত, কোভিড-১৯ মহামারী দ্বারা প্রয়োজনীয় বিধিনিষেধ এবং লকডাউনগুলো অর্থনীতির সমস্ত ক্ষেত্রকে প্রভাবিত করেছিল এবং "পর্যটন এবং আতিথেয়তা মহামারী থেকে উল্লেখযোগ্য ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছিল" যুক্তরাজ্য জুড়ে।[২০২] ৬ এপ্রিল ২০২১ থেকে, "লাল তালিকার" দেশগুলোর দর্শকদের প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়নি যদি না তারা যুক্তরাজ্যের বাসিন্দা হয়। নিষেধাজ্ঞাগুলো "সম্ভবত গ্রীষ্ম পর্যন্ত থাকবে", একটি প্রতিবেদনে ভবিষ্যদ্বাণী করা হয়েছে, জুন মাসে অন্যান্য দেশ থেকে পর্যটনের প্রত্যাবর্তন শুরু করার সবচেয়ে সম্ভাবনাময় সময়।[২০৩] ১২ এপ্রিল ২০২১-এ, অনেক পর্যটন সুবিধা এখনও ওয়েলসে বন্ধ ছিল কিন্তু ওয়েলস এবং ইংল্যান্ডের মধ্যে অ-প্রয়োজনীয় ভ্রমণের অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। ওয়েলস অ-প্রয়োজনীয় খুচরা দোকান খোলার অনুমতি দিয়েছে।[২০৪] 


পরিবহন সম্পাদনা

 
ওয়েলসের রেল নেটওয়ার্ক; ২০২১

পশ্চিম লন্ডন থেকে সাউথ ওয়েলস পর্যন্ত চলমান M৪ মোটরওয়ে নিউপোর্ট, কার্ডিফ এবং সোয়ানসিকে সংযুক্ত করে। সেকেন্ড সেভারন ক্রসিং থেকে পন্ট আব্রাহাম সার্ভিস পর্যন্ত ওয়েলসের মধ্যে মোটরওয়ের অংশের দায়িত্ব ওয়েলশ সরকারের সাথে।[২০৫] এ-৫৫ এক্সপ্রেসওয়ের নর্থ ওয়েলস উপকূলে একই ভূমিকা রয়েছে, হলিহেড এবং ব্যাঙ্গরকে রেক্ সহ্যাম এবং ফ্লিন্টশায়ারের সাথে সংযুক্ত করে। এটি উত্তর-পশ্চিম ইংল্যান্ডের সাথেও লিঙ্ক করে, প্রধানত চেস্টার ।[২০৬] প্রধান উত্তর-দক্ষিণ ওয়েলসের লিঙ্ক হলো এ-৪৭০। এটি কার্ডিফ থেকে লান্ডুডনো পর্যন্ত চলে।[২০৭]

ওয়েলশ সরকার ওয়েলস অ্যান্ড বর্ডার ফ্র্যাঞ্চাইজি তত্ত্বাবধান করে, বেশিরভাগ যাত্রী পরিষেবাগুলো ট্রান্সপোর্ট ফর ওয়েলস রেল ট্রেন অপারেটিং কোম্পানি দ্বারা পরিচালিত৷[২০৮] কার্ডিফ অঞ্চলের নিজস্ব শহুরে রেল নেটওয়ার্ক রয়েছে। ১৯৬০-এর দশকে বিচিং কাটার মানে হলো যে বাকি নেটওয়ার্কের বেশিরভাগই পূর্ব-পশ্চিম ভ্রমণের দিকে তৈরি করা হয়েছে যা আয়ারল্যান্ডে ফেরির জন্য আইরিশ সাগর বন্দরগুলোর সাথে সংযোগ স্থাপন করে৷[২০৯] উত্তর ও দক্ষিণ ওয়েলসের মধ্যে পরিষেবাগুলো ইংরেজি শহর চেস্টার এবং হেয়ারফোর্ড এবং শ্রুসবারি শহরগুলোর মধ্যে দিয়ে পরিচালিত হয়, অসওয়েস্ট্রির জন্য গোবোয়েন এবং ওয়েলশ মার্চেস লাইন বরাবর, হার্ট অফ ওয়েলস লাইনে সোয়ানসি থেকে ল্যান্ডোভারি, ল্যান্ডরিন্ডোড এবং নাইটন পর্যন্ত ট্রেনগুলো ওয়েলশ মার্চের সাথে সংযোগ স্থাপন করে৷ ক্রেভেন আর্মস এ লাইন। ওয়েলসের ট্রেনগুলো মূলত ডিজেল চালিত কিন্তু লন্ডন প্যাডিংটন থেকে কার্ডিফ পর্যন্ত পরিষেবাগুলোর দ্বারা ব্যবহৃত গ্রেট ওয়েস্টার্ন মেইন লাইনের সাউথ ওয়েলস মেন লাইন শাখায় বিদ্যুতায়ন চলছে, যদিও প্রোগ্রামটি উল্লেখযোগ্য বিলম্ব এবং খরচ-অতিরিক্ত অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হয়েছে।[২১০] উত্তর ও সাউথ ওয়েলসকে আরও ভালোভাবে যুক্ত করার জন্য একটি উত্তর-দক্ষিণ রেলওয়ের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।[২১১][২১২][২১৩]

কার্ডিফ বিমানবন্দর হলো ওয়েলসের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর। ইউরোপীয়, আফ্রিকান এবং উত্তর আমেরিকার গন্তব্যগুলোর লিঙ্ক প্রদান করে, এটি প্রায় ১২ মাইল (১৯ কিমি) কার্ডিফ শহরের কেন্দ্রের দক্ষিণ-পশ্চিমে, গ্ল্যামারগান উপত্যকায়। ইন্ট্রা-ওয়েলস ফ্লাইটগুলো অ্যাঙ্গেলসি[২১৪] এবং কার্ডিফের মধ্যে চলত এবং ২০১৭ সাল থেকে ইস্টার্ন এয়ারওয়েজ দ্বারা পরিচালিত হয়েছিল। অন্যান্য অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট উত্তর ইংল্যান্ড, স্কটল্যান্ড এবং উত্তর আয়ারল্যান্ডে চলাচল করে।[২১৫] ওয়েলসের চারটি বাণিজ্যিক ফেরি বন্দর রয়েছে। আয়ারল্যান্ডে নিয়মিত ফেরি পরিষেবাগুলো হলিহেড, পেমব্রোক ডক এবং ফিশগার্ড থেকে কাজ করে৷ সোয়ানসি থেকে কর্ক পরিষেবা ২০০৬ সালে বাতিল করা হয়েছিল, মার্চ ২০১০ সালে পুনঃস্থাপন করা হয়েছিল এবং ২০১২ সালে আবার প্রত্যাহার করা হয়েছিল[২১৬]

শিক্ষা সম্পাদনা

 
সেন্ট ডেভিড বিল্ডিং, ল্যাম্পেটার ক্যাম্পাস, ইউনিভার্সিটি অফ ওয়েলস, ট্রিনিটি সেন্ট ডেভিড (Prifysgol Cymru, Y Drindod Dewi Sant) ১৮২২ সালে প্রতিষ্ঠিত, এটি ওয়েলসের প্রাচীনতম ডিগ্রি প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান।

ওয়েলসে একটি স্বতন্ত্র শিক্ষা ব্যবস্থা গড়ে উঠেছে।[২১৭] ১৮ শতকের আগে আনুষ্ঠানিক শিক্ষা ছিল অভিজাতদের সংরক্ষণ। রুথিন, ব্রেকন এবং কাউব্রিজের মতো ওয়েলশ শহরে প্রথম ব্যাকরণ স্কুল স্থাপিত হয়েছিল।[২১৭] প্রথম সফল স্কুলিং সিস্টেমগুলোর মধ্যে একটি গ্রিফিথ জোন্স দ্বারা শুরু হয়েছিল, যিনি ১৭৩০-এর দশকে প্রচলনকারী স্কুলগুলো চালু করেছিলেন; এগুলো দেশের অর্ধেক জনসংখ্যাকে পড়তে শিখিয়েছে বলে মনে করা হয়।[২১৮] ১৯ শতকে, শিক্ষায় ক্রমবর্ধমান রাষ্ট্রের সম্পৃক্ততার সাথে, ওয়েলসকে এমন একটি শিক্ষা ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য করা হয়েছিল যা নীতিগতভাবে ইংরেজি ছিল যদিও দেশটি প্রধানত অ-অনুকরণবাদী, ওয়েলশ-ভাষী এবং দক্ষিণে অর্থনৈতিক বিস্তারের কারণে জনসংখ্যার দিক থেকে অসম ছিল।[২১৮] কিছু স্কুলে, ওয়েলশ শিশুরা স্কুলে ইংরেজিতে কথা বলতে পারে তা নিশ্চিত করার জন্য, ওয়েলশ নটকে সংশোধনমূলক শাস্তি হিসাবে নিযুক্ত করা হয়েছিল; এটি অনেক ক্ষুব্ধ ছিল,[২১৯] যদিও এর ব্যবহার কতটুকু তা নির্ধারণ করা কঠিন।[২২০] রাজ্য এবং স্থানীয় সরকারি আদেশের ফলে ইংরেজি ভাষায় স্কুলে পড়াশুনা হয় যা, ১৮৪৭ সালে ওয়েলসের রাজ্যের শিক্ষার তদন্তের পরে - একটি ঘটনাকে পরবর্তীকালে ব্লু বুকের বিশ্বাসঘাতকতা (ওয়েলশ: Brad y Llyfrau Gleision হিসাবে উল্লেখ করা হয়) - শিশুদের জন্য আরও বেশি একাডেমিক এবং সার্থক হিসাবে দেখা হয়েছিল।[২২১]

১৮৭২ সালে Aberystwyth-এ ইউনিভার্সিটি কলেজ অফ ওয়েলস খোলা হয়। কার্ডিফ এবং ব্যাঙ্গর অনুসরণ করে, এবং তিনটি কলেজ ১৮৯৩ সালে একত্রিত হয়ে ওয়েলস বিশ্ববিদ্যালয় গঠন করে।[২১৮] ১৮৮৯ সালের ওয়েলশ ইন্টারমিডিয়েট এডুকেশন অ্যাক্ট ৯৫টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় তৈরি করেছিল। শিক্ষা বোর্ডের জন্য ওয়েলশ বিভাগ ১৯০৭ সালে অনুসরণ করে। এটি ওয়েলসকে তার প্রথম উল্লেখযোগ্য শিক্ষাগত বিবর্তন দেয়।[২১৮] নার্সারি এবং প্রাথমিক স্তরে ২০ শতকের শেষার্ধে ওয়েলশ-ভাষা স্কুলগুলোর পুনরুত্থানের ফলে ওয়েলশের মাধ্যমে শিক্ষাদানের দিকে মনোভাব পরিবর্তিত হয়েছে।[২২২] ৫-১৬ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের জন্য ওয়েলশ রাজ্যের সমস্ত স্কুলে ওয়েলশ একটি বাধ্যতামূলক বিষয়।[২২৩] যদিও সেখানে কখনোই একচেটিয়াভাবে ওয়েলশ-ভাষা কলেজ ছিল না, ওয়েলশ-মাঝারি উচ্চশিক্ষা স্বতন্ত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের মাধ্যমে প্রদান করা হয় এবং ২০১১ সাল থেকে কোলেগ সিমরাগ সেনেডল্যাথল (ওয়েলশ ন্যাশনাল কলেজ) একটি অস্থানীয় ফেডারেল প্রতিষ্ঠান হিসাবে সমর্থিত। ২০২১-২০২২ সালে, ওয়েলসে ১,৪৭০টি রক্ষণাবেক্ষণ করা স্কুল ছিল।[২২৪] ২০২১-২২ সালে, দেশে ৪৭১,১৩১ জন শিক্ষার্থী ছিল ২৫,২১০ জন পূর্ণ-সময়ের সমতুল্য শিক্ষক দ্বারা পড়ানো হয়েছিল।[২২৫][২২৬]

স্বাস্থ্যসেবা সম্পাদনা

 
ওয়েলস বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতাল, কার্ডিফ

ওয়েলসে জনস্বাস্থ্য পরিষেবা এনএইচএস ওয়েলস (GIG Cymru), সাতটি স্থানীয় স্বাস্থ্য বোর্ড এবং তিনটি অল-ওয়েলস ট্রাস্টের মাধ্যমে। এটি মূলত ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস অ্যাক্ট ১৯৪৬ দ্বারা ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসের জন্য NHS কাঠামোর অংশ হিসাবে গঠিত হয়েছিল, কিন্তু ১৯৬৯ সালে ওয়েলসের সেক্রেটারি অফ স্টেটের অধীনে আসা ওয়েলসের NHS-এর উপর ক্ষমতা দিয়ে[২২৭] এনএইচএস ওয়েলসের দায়িত্ব ১৯৯৯ সালে বিকেন্দ্রীকরণের অধীনে ওয়েলশ অ্যাসেম্বলিতে পাস হয় এবং এখন স্বাস্থ্য ও সমাজসেবা মন্ত্রীর দায়িত্ব।[২২৮] ঐতিহাসিকভাবে, ওয়েলস স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান হিসাবে নির্মিত ছোট 'কটেজ' হাসপাতাল দ্বারা পরিবেশিত হয়েছিল।[২২৯] যেহেতু নতুন, আরো ব্যয়বহুল, ডায়াগনস্টিক কৌশল এবং চিকিত্সা উপলব্ধ হয়েছে, ক্লিনিকাল কাজ নতুন, বড় জেলা হাসপাতালে কেন্দ্রীভূত হয়েছে।[২২৯] ২০০৬ সালে, ওয়েলসে ১৭টি জেলা হাসপাতাল ছিল।[২২৯] NHS ওয়েলস সরাসরি ৯০,০০০ কর্মী নিয়োগ করে, এটিকে ওয়েলসের সবচেয়ে বড় নিয়োগকর্তা করে তোলে।[২৩০] ২০২১-২২ সালের ন্যাশনাল সার্ভে ফর ওয়েলস রিপোর্ট করেছে যে জরিপ করা প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে ৭২ শতাংশের সাধারণ স্বাস্থ্য ভাল বা খুব ভাল ছিল, ১৯ শতাংশের সাধারণ স্বাস্থ্য ভাল এবং ৮ জনের সাধারণ স্বাস্থ্য খারাপ বা খুব খারাপ ছিল।[২৩১] জরিপে রেকর্ড করা হয়েছে যে ওয়েলশ প্রাপ্তবয়স্কদের ৪৬ শতাংশের একটি দীর্ঘস্থায়ী অসুস্থতা ছিল, যেমন বাত, হাঁপানি, ডায়াবেটিস বা হৃদরোগ।[২৩২] সমীক্ষাটি আরও জানিয়েছে যে প্রাপ্তবয়স্ক জনসংখ্যার ১৩ শতাংশ ধূমপায়ী, ১৬ শতাংশ সাপ্তাহিক সুপারিশকৃত নির্দেশিকাগুলোর উপরে অ্যালকোহল পান করার কথা স্বীকার করেছে, যখন ৫৬ শতাংশ প্রতি সপ্তাহে প্রস্তাবিত ১৫০ মিনিটের শারীরিক কার্যকলাপ গ্রহণ করেছে।[২৩৩] জরিপ অনুসারে, ওয়েলসের ৩০ শতাংশ প্রাপ্তবয়স্করা আগের দিন অন্তত ৫ অংশ ফল বা শাকসবজি খেয়েছে এবং ৩৬ শতাংশ স্বাস্থ্যকর ওজনের রিপোর্ট করেছে।[২৩৪]

জনসংখ্যা সম্পাদনা

জনসংখ্যার ইতিহাস সম্পাদনা

ঐতিহাসিক জনসংখ্যা
বছরজন.±%
1536২,৭৮,০০০—    
1620৩,৬০,০০০+২৯.৫%
1770৫,০০,০০০+৩৮.৯%
1801৫,৮৭,০০০+১৭.৪%
1851১১,৬৩,০০০+৯৮.১%
1911২৪,২১,০০০+১০৮.২%
1921২৬,৫৬,০০০+৯.৭%
1939২৪,৮৭,০০০−৬.৪%
1961২৬,৪৪,০০০+৬.৩%
1991২৮,১১,৮৬৫+৬.৩%
2001২৯,১০,২০০+৩.৫%
2011৩০,৬৩,৪৫৬+৫.৩%
2021৩১,০৭,৫০০+১.৪%

ওয়েলসের জনসংখ্যা ১৮০১ সালে ৫৮৭,০০০ থেকে দ্বিগুণ হয়ে ১৮৫১ সালে ১,১৬৩,০০০-এ পৌঁছে এবং ১৯১১ সালের মধ্যে ২,৪২১,০০০-এ পৌঁছেছিল। বেশিরভাগ বৃদ্ধি কয়লা খনির জেলাগুলোতে, বিশেষ করে গ্ল্যামারগানশায়ারে। এটি ১৮০১ সালে ৭১,০০০ থেকে ১৮৫১ সালে ২৩২,০০০ এবং ১৯১১ সালে ১,১২২,০০০-এ উন্নীত হয়েছিল[২৩৫] এই বৃদ্ধির একটি অংশকে দায়ী করা যেতে পারে শিল্প বিপ্লবের সময় বেশিরভাগ শিল্পায়নকারী দেশে দেখা জনসংখ্যাগত পরিবর্তনের জন্য, কারণ মৃত্যুর হার কমে গিয়েছিল এবং জন্মহার স্থিতিশীল ছিল। যাইহোক, শিল্প বিপ্লবের সময় ওয়েলসে বড় আকারের অভিবাসনও হয়েছিল। ইংরেজরা ছিল সর্বাধিক অসংখ্য গোষ্ঠী, তবে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক আইরিশ এবং অল্প সংখ্যক অন্যান্য জাতিগোষ্ঠীও ছিল,[২৩৬] ইতালীয়রা সহ। এরা সাউথ ওয়েলসে স্থানান্তরিত হয়েছিল।[২৩৭] ২০ শতকে ওয়েলস ব্রিটিশ কমনওয়েলথ অফ নেশনস- এর বিভিন্ন অংশ থেকেও অভিবাসন পেয়েছিল এবং আফ্রিকান-ক্যারিবিয়ান এবং এশীয় সম্প্রদায়গুলো নৃ-সাংস্কৃতিক সংমিশ্রণে যোগ করে, বিশেষ করে শহুরে ওয়েলসে। এর মধ্যে অনেকেই নিজেকে ওয়েলশ হিসেবে পরিচয় দেয়।[২৩৮]

১৯৭২ সালে জনসংখ্যা ছিল ২.৭৪ মিলিয়ন এবং বাকি দশকের জন্য ব্যাপকভাবে স্থির ছিল। যাইহোক, ১৯৮০ এর দশকের গোড়ার দিকে, ওয়েলসের বাইরে নেট মাইগ্রেশনের কারণে জনসংখ্যা হ্রাস পায়। ১৯৮০ এর দশক থেকে, নেট মাইগ্রেশন সাধারণত অভ্যন্তরীণ হয়েছে, এবং প্রাকৃতিক পরিবর্তনের চেয়ে জনসংখ্যা বৃদ্ধিতে বেশি অবদান রেখেছে।[২৩৯] ২০২১ সালের আদমশুমারি অনুসারে ওয়েলসের বাসিন্দা জনসংখ্যা ছিল ৩,১০৭,৫০০ (১,৫৮৬,৬০০ মহিলা এবং ১,৫২১,০০০ পুরুষ), ২০১১ এর তুলনায় ১.৪ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০০১ এবং ২০১১ এর মধ্যে ৫ শতাংশ বৃদ্ধির থেকে একটি হ্রাস পরিবর্তন[২৪০] ২০২১ সালে ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসের জনসংখ্যার ৫.২ শতাংশ ওয়েলস। ওয়েলসের সাতটি শহর রয়েছে। সেগুলো হলো কার্ডিফ, নিউপোর্ট, সোয়ানসি এবং রেক্ সহ্যাম, ব্যাঙ্গর, সেন্ট আসফ এবং সেন্ট ডেভিডস সম্প্রদায়ের সাথে যুক্তরাজ্যে শহরের মর্যাদা রয়েছে।[২৪১] রেক্ সহ্যাম, উত্তর ওয়েলসের বৃহত্তম বসতি, ২০২২ সালের সেপ্টেম্বরে ওয়েলসের নতুন এবং সপ্তম শহর হয়ে ওঠে।[২৪২]

 
ওয়েলসের বৃহত্তম শহরসমূহ বা নগরসমূহ
ক্রম কাউন্সিল এলাকা জনসংখ্যা ক্রম কাউন্সিল এলাকা জনসংখ্যা
 
কার্ডিফ
 
সোয়ানসি
কার্ডিফ কার্ডিফ শহর ও কাউন্টি ৩৩৫,১৪৫ ১১ কেয়ারফিলি কেরফিলি কাউন্টি বরো 41,402 নিউপোর্ট
নিউপোর্ট
রেক্সহ্যাম
রেক্সহ্যাম
সোয়ানসি সোয়ানসি শহর ও কাউন্টি ২৩৯,০০০ ১২ পোর্ট টালবোট নেথ পোর্ট টালবোট ৩৭,২৭৬
নিউপোর্ট নিউপোর্ট সিটি ১২৮,০৬০ ১৩ পন্টিপ্রিড রোন্ডা সাইনন তাফ ৩০,৪৫৭
রেক্সহ্যাম রেক্সহ্যাম কাউন্টি বরো ৬১,৬০৩ ১৪ অ্যাবারডার রোন্ডা সাইনন তাফ ২৯,৭৪৮
ব্যারি ভ্যাল অফ গ্ল্যামরগান ৫৪,৬৭৩ ১৫ কলউইন বে কনউই কাউন্টি বরো ২৯,৪০৫
নিচে নেথ পোর্ট টালবোট ৫০,৬৫৮ ১৬ পন্টিপুল টরফাইন 28,334
উইকিপিডিয়া টরফাইন 46,915 ১৭ পেনার্থ ভ্যাল অফ গ্ল্যামরগান 27,226
ব্রিজেড ব্রিজেন্ড কাউন্টি বরো 46,757 ১৮ রাইল ডেনবিগশায়ার ২৫,১৪৯
লানেলি কারমার্থেনশায়ার 43,878 ১৯ ব্ল্যাকউড কেরফিলি কাউন্টি বরো 24,042
১০ মার্থির টাইডফিল মার্থির টাইডফিল ৪৩,৮২০ ২০ মায়েস্টেগ ব্রিজেন্ড কাউন্টি বরো 18,888

ভাষা সম্পাদনা

 
২০১১ সালের আদমশুমারিতে উত্তরদাতাদের অনুপাত যারা বলেছিলেন যে তারা ওয়েলশ ভাষায় কথা বলতে পারে

ওয়েলশ ওয়েলশ ভাষা (ওয়েলস) পরিমাপ ২০১১ দ্বারা আইন প্রণীত ওয়েলসের একটি সরকারি ভাষা[২৪৪] ওয়েলশ এবং ইংরেজি উভয়ই সেনেডের অফিসিয়াল ভাষা।[২৪৫] ওয়েলশ ভাষায় কথা বলতে সক্ষম ওয়েলশ জনসংখ্যার অনুপাত ১৯০১ সালে মাত্র ৫০ শতাংশের নিচে থেকে ১৯১১ সালে ৪৩.৫ শতাংশে নেমে আসে এবং ১৯৮১ সালে ১৮.৯ শতাংশে সর্বনিম্নভাবে নেমে আসে[২৪৬] ২০০১ সালের আদমশুমারির ফলাফলে দেখা গেছে ওয়েলশ ভাষাভাষীদের সংখ্যা ৩ বছর বা তার বেশি বয়সের জনসংখ্যার ২১ শতাংশে বৃদ্ধি পেয়েছে। সেখানে ১৯৯১ সালে ১৮.৭ শতাংশ এবং ১৯৮১ সালে ১৯ শতাংশের তুলনায়। এটি ২০ শতকের আদমশুমারির ফলাফল দ্বারা নির্দেশিত অবিচলিত পতনের একটি প্যাটার্নের সাথে তুলনা করে।[২৪৭] ২০১১ সালের আদমশুমারিতে এটি রেকর্ড করা হয়েছিল যে ওয়েলশ ভাষায় কথা বলতে সক্ষম মানুষের অনুপাত ২০.৮ শতাংশ থেকে ১৯ শতাংশে নেমে এসেছে (এখনও ১৯৯১ এর চেয়ে বেশি)। ওয়েলশ জনসংখ্যার সামগ্রিক আকার বৃদ্ধি সত্ত্বেও এর মানে হলো যে ওয়েলসে ওয়েলশ ভাষাভাষীদের সংখ্যা ২০০১ সালে ৫৮২,০০০ থেকে ২০১১ সালে ৫৬২,০০০-এ নেমে এসেছে। যাইহোক, এই সংখ্যাটি এখনও ৫০৮,০০০ বা ১৮.৭ শতাংশ লোকের চেয়ে অনেক বেশি ছিল যারা ১৯৯১ সালের আদমশুমারিতে ওয়েলশ ভাষায় কথা বলতে পারে।[২৪৮]

২০২১ সালের আদমশুমারি অনুসারে, ওয়েলসের তিন বা তার বেশি বয়সী ওয়েলশ-ভাষী জনসংখ্যা ছিল ১৭.৮ শতাংশ (৫৩৮,৩০০ জন) এবং ওয়েলসের জনসংখ্যার প্রায় তিন চতুর্থাংশ বলে যে তাদের কোনো ওয়েলশ ভাষার দক্ষতা নেই।[২৪৯] অন্যান্য অনুমানগুলো পরামর্শ দেয় যে ওয়েলসের তিন বা তার বেশি বয়সী ২৯.৭ শতাংশ (৮৯৯,৫০০) জন ২০২২ সালের জুন মাসে ওয়েলশ ভাষায় কথা বলতে পারে[২৫০]

ওয়েলসের প্রায় সকল মানুষ ইংরেজিতে কথা বলে এবং বেশিরভাগ দেশের প্রধান ভাষা। কোড-স্যুইচিং ওয়েলসের সমস্ত অংশে সাধারণ এবং বিভিন্ন পদ দ্বারা পরিচিত, যদিও পেশাদার ভাষাবিদদের দ্বারা কোনটিই স্বীকৃত নয়।[২৫১] " ইংলিশ " হলো ওয়েলশ ইংরেজি ভাষার উপভাষা। এটি ওয়েলশ ব্যাকরণ দ্বারা উল্লেখযোগ্যভাবে প্রভাবিত হয়েছে এবং ওয়েলশ থেকে উদ্ভূত শব্দ অন্তর্ভুক্ত করেছে।[২৫২] উত্তর এবং পশ্চিম ওয়েলস এমন অনেক এলাকা ধরে রেখেছে যেখানে অধিকাংশ জনসংখ্যার দ্বারা ওয়েলশ একটি প্রথম ভাষা হিসেবে কথা বলা হয় এবং ইংরেজি দ্বিতীয় ভাষা হিসেবে শেখে। যদিও ছোট বাচ্চাদের মধ্যে মনোগ্লোটিজম চলতে থাকে, তবে ওয়েলশে জীবনব্যাপী মনোগ্লোটিজম আর ঘটে না।[২৫৩]

পোল্যান্ড ইউরোপীয় ইউনিয়নে যোগদানের পর থেকে, ওয়েলস পোলিশ অভিবাসীদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি পেয়েছে। এটি জনসংখ্যার ০.৭ শতাংশে পোলিশকে ইংরেজি বা ওয়েলশের পরে ওয়েলসের সবচেয়ে সাধারণ প্রধান ভাষাতে পরিণত করেছে।[২৫৪]

ধর্ম সম্পাদনা

 
সেন্ট ডেভিড ক্যাথেড্রাল, পেমব্রোকেশায়ার

২০২১ সালের আদমশুমারি রেকর্ড করা হয়েছে ৪৬.৫ শতাংশের "কোন ধর্ম নেই"। যে কোনও একক ধর্মীয় অনুষঙ্গের চেয়ে বেশি এবং ২০১১ সালে ৩২.১ শতাংশ থেকে বেশি[২৫৫] ওয়েলসের বৃহত্তম ধর্ম হলো খ্রিস্টান ধর্ম। সেখানে ২০২১ সালের আদমশুমারিতে জনসংখ্যার ৪৩.৬ শতাংশ নিজেদের খ্রিস্টান হিসাবে বর্ণনা করেছে।[২৫৫]

৫৬,০০০ অনুগামীদের সাথে ওয়েলসের চার্চে সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বেশি উপস্থিতি রয়েছে।[২৫৬] এটি অ্যাংলিকান কমিউনিয়নের একটি প্রদেশ, এবং ১৯২০ সালে ওয়েলশ চার্চ অ্যাক্ট ১৯১৪ এর অধীনে প্রতিষ্ঠা না হওয়া পর্যন্ত চার্চ অফ ইংল্যান্ডের অংশ ছিল। ওয়েলসের প্রথম স্বাধীন চার্চটি ১৬৩৮ সালে উইলিয়াম রথ দ্বারা লানভাচেসে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। প্রেসবিটারিয়ান চার্চ অফ ওয়েলস ১৮ শতকে ওয়েলশ মেথডিস্ট পুনরুজ্জীবন থেকে জন্মগ্রহণ করে এবং ১৮১১ সালে চার্চ অফ ইংল্যান্ড থেকে বিচ্ছিন্ন হয়[২৫৭] ওয়েলসে দ্বিতীয় বৃহত্তম উপস্থিতি বিশ্বাস হলো রোমান ক্যাথলিক, আনুমানিক ৪৩,০০০ অনুগামী।[২৫৬]

ওয়েলসের পৃষ্ঠপোষক সাধু হলেন সেন্ট ডেভিড (Dewi Sant), সেন্ট ডেভিড ডে এর সাথে (Dydd Gŵyl Dewi Sant) প্রতি বছর ১ মার্চ পালিত হয়।[২৫৮] ১৯০৪ সালে, একটি ধর্মীয় পুনরুজ্জীবন হয়েছিল (কেউ কেউ ১৯০৪-১৯০৫ ওয়েলশ পুনরুজ্জীবন, বা কেবল ১৯০৪ পুনরুজ্জীবন নামে পরিচিত) যা ইভান রবার্টসের সুসমাচার প্রচারের মাধ্যমে শুরু হয়েছিল এবং প্রচুর সংখ্যক লোককে নন-অ্যাংলিকান খ্রিস্টধর্মে রূপান্তরিত হতে দেখেছিল, কখনও কখনও পুরো সম্প্রদায়গুলো .[২৫৯] রবার্টসের প্রচারের শৈলী পেন্টেকোস্টালিজম এবং অ্যাপোস্টলিক চার্চের মতো নতুন ধর্মীয় সংস্থাগুলোর নীলনকশা হয়ে ওঠে।[২৬০]

ওয়েলসে অ-খ্রিস্টান ধর্মগুলো ছোট, জনসংখ্যার প্রায় ২.৭ শতাংশ।[২৬১] ২০১১ সালের আদমশুমারিতে ২৪,০০০ (০.৮ শতাংশ) মুসলমানের সাথে ইসলাম সবচেয়ে বড়।[২৬১] এছাড়াও হিন্দু ও শিখ সম্প্রদায় রয়েছে, প্রধানত দক্ষিণ ওয়েলসের নিউপোর্ট, কার্ডিফ এবং সোয়ানসি শহরে। সেখানে বৌদ্ধদের সবচেয়ে বেশি ঘনত্ব পশ্চিমের গ্রামীণ কাউন্টি সেরডিজিয়নে ।[২৬২] ইহুদি ধর্ম ছিল রোমান আমল থেকে ওয়েলসে প্রতিষ্ঠিত প্রথম অ-খ্রিস্টান বিশ্বাস, যদিও ২০০১ সাল নাগাদ সম্প্রদায়টি প্রায় ২,০০০-এ নেমে এসেছিল[২৬৩] এবং ২০১৯ সাল পর্যন্ত সংখ্যা ছিল শত শত।[২৬৪]

জাতিসত্তা সম্পাদনা

২০২১ সালের আদমশুমারি দেখায় যে ওয়েলসের জনসংখ্যার ৯৩.৮ শতাংশ "সাদা" হিসাবে চিহ্নিত হয়েছে। এটি ২০১১ সালের ৯৫.৬ শতাংশের তুলনায়। জনসংখ্যার ৯০.৬ শতাংশ "সাদা: ওয়েলশ, ইংরেজ, স্কটিশ, উত্তর আইরিশ বা ব্রিটিশ" ২০২১। ২০২১ সালে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ জাতিসত্তা ছিল "এশীয়, এশিয়ান ওয়েলশ বা এশিয়ান ব্রিটিশ" জনসংখ্যার ২.৯ শতাংশ। এটি ২০১১ সালের ২.৩ শতাংশের তুলনায়। ১.০ এর তুলনায় জনসংখ্যার ১.৬ শতাংশ "মিশ্র বা একাধিক জাতিগোষ্ঠী" হিসাবে চিহ্নিত ২০১১ সালে শতাংশ। জনসংখ্যার ০.৯ শতাংশ "ব্ল্যাক, ব্ল্যাক ওয়েলশ, ব্ল্যাক ব্রিটিশ, ক্যারিবিয়ান বা আফ্রিকান" হিসাবে চিহ্নিত হয়েছে ২০১১ সালের ০.৬ শতাংশের তুলনায় এবং ০.৯ শতাংশকে "অন্যান্য জাতিগোষ্ঠী" হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে যা ০.৫ শতাংশের তুলনায় ২০১১। "শ্বেতাঙ্গ" ব্যতীত "উচ্চ-স্তরের" জাতিগত গোষ্ঠীর সর্বোচ্চ অনুপাতের স্থানীয় কর্তৃপক্ষগুলো ছিল প্রধানত কার্ডিফ, নিউপোর্ট এবং সোয়ানসি সহ শহরাঞ্চল। ওয়েলসের ৫.৩ শতাংশ পরিবার একাধিক জাতিগত গোষ্ঠীর পরিবার ছিল। এটি ২০১১ সালে ৪.২ শতাংশ ছিল[২৬৫]

জাতীয় পরিচয় সম্পাদনা

২০২১ সালের আদমশুমারি দেখায় যে ৫৫.২ শতাংশ "শুধুমাত্র ওয়েলশ" হিসাবে চিহ্নিত, ৮.১ শতাংশ "ওয়েলশ এবং ব্রিটিশ" হিসাবে চিহ্নিত এবং ৬৩.৩ শতাংশে ওয়েলশ হিসাবে চিহ্নিত লোকদের সম্মিলিত অনুপাত।[২৬৬] ওয়েলশ বার্ষিক জনসংখ্যা জরিপ দেখায় যে ওয়েলশ বনাম অন্য পরিচয় হিসাবে চিহ্নিত লোকদের অনুপাত ২০০১ সালে ৬৯.২ শতাংশের তুলনায় ২০২২ সালে ছিল ৬২.৩ শতাংশ[২৬৭] একটি ২০২২ YouGov জরিপে দেখা গেছে যে ২১ শতাংশ নিজেদেরকে ব্রিটিশ নয় ওয়েলশ, ব্রিটিশদের তুলনায় ১৫ শতাংশ বেশি ওয়েলশ, ২৪ শতাংশ সমানভাবে ওয়েলশ এবং ব্রিটিশ, ৭ শতাংশ বেশি ওয়েলশ এবং ২০ শতাংশ ব্রিটিশ এবং ওয়েলশ নয় এবং ৮ শতাংশ অন্যান্য মোট ৬৭ শতাংশ নিজেদেরকে কিছু মাত্রায় ওয়েলশ বলে মনে করেন।[২৬৮]

সংস্কৃতি সম্পাদনা

ওয়েলসের নিজস্ব ভাষা, রীতিনীতি, ছুটির দিন এবং সঙ্গীত সহ একটি স্বতন্ত্র সংস্কৃতি রয়েছে। ওয়েলসে চারটি ইউনেস্কো ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট রয়েছে: গুইনেডের কিং এডওয়ার্ড I-এর দুর্গ এবং টাউন ওয়াল ; পন্টসিলিল্টে অ্যাকুইডাক্ট এবং খাল; ব্লেনাভন ইন্ডাস্ট্রিয়াল ল্যান্ডস্কেপ এবং নর্থওয়েস্টওয়েলসের স্লেট ল্যান্ডস্কেপ ।[২৬৯]

পুরাণ সম্পাদনা

প্রাক-খ্রিস্টান ব্রিটিশদের স্থানীয় কেল্টিক পৌরাণিক কাহিনীর অবশিষ্টাংশগুলো মৌখিকভাবে সিনফেইর্ড (প্রাথমিক কবিদের) দ্বারা প্রেরণ করা হয়েছিল।[২৭০] তাদের কিছু কাজ পরবর্তী মধ্যযুগীয় ওয়েলশ পাণ্ডুলিপিতে টিকে আছে: কারমার্থেন ব্ল্যাক বুক এবং অ্যানেরিনের বই (উভয়ই ১৩ শতক); তালিসিনের বই এবং রাইডারচের হোয়াইট বুক (উভয়ই ১৪ শতক); এবং হারজেস্টের রেড বুক (সি. ১৪০০)।[২৭০] সাদা এবং লাল বইয়ের গদ্য গল্পগুলো ম্যাবিনোজিয়ন নামে পরিচিত।[২৭১] ক্যাড গডেউ (গাছের যুদ্ধ) এর মতো কবিতা এবং ওয়েলশ ট্রায়াডস এবং ব্রিটেনের দ্বীপের তেরটি ট্রেজারসের মতো স্মৃতির তালিকা-পাঠগুলোতেও পৌরাণিক উপাদান রয়েছে।[২৭২] এই পাঠ্যগুলোতে আর্থারিয়ান কিংবদন্তির প্রাচীনতম রূপ এবং রোমান-পরবর্তী ব্রিটেনের ঐতিহ্যগত ইতিহাস অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।[২৭০] ওয়েলশ লোককাহিনীর অন্যান্য উত্সগুলোর মধ্যে রয়েছে ৯ম শতাব্দীর ল্যাটিন ঐতিহাসিক সংকলন হিস্টোরিয়া ব্রিটোনাম (ব্রিটনের ইতিহাস) এবং জিওফ্রে অফ মনমাউথের ১২ শতকের ল্যাটিন ক্রনিকল হিস্টোরিয়া রেগুম ব্রিটানিয়া (ব্রিটেনের রাজাদের ইতিহাস), এবং পরে লোককাহিনী, যেমন ডব্লিউ জেনকিন থমাসের ওয়েলশ ফেইরি বুক[২৭৩]

সাহিত্য সম্পাদনা

 
১৩ শতকের কারমার্থেন ব্ল্যাক বুক থেকে ওয়েলশ কবিতা।

ওয়েলসে ইউরোপের প্রাচীনতম অবিচ্ছিন্ন সাহিত্য ঐতিহ্যগুলোর মধ্যে একটি রয়েছে[২৭৪] ষষ্ঠ শতাব্দীতে ফিরে যাওয়া এবং মনমাউথের জিওফ্রে এবং ওয়েলসের জেরাল্ড সহ, মধ্যযুগের সেরা ল্যাটিন লেখকদের মধ্যে বিবেচিত।[২৭৪] ওয়েলশ শ্লোকের প্রাচীনতম অংশ, কবি তালিসিন এবং অ্যানিরিন, তাদের মূল আকারে নয়, বরং অনেক পরিবর্তিত, মধ্যযুগীয় সংস্করণে টিকে আছে।[২৭৪] ওয়েলশ কবিতা এবং দেশীয় বিদ্যা এবং শিক্ষা অন্ধকার যুগে টিকে ছিল, রাজপুত্রের কবিদের যুগে (আনুমানিক ১১০০ - ১২৮০) এবং তারপর পোয়েটস অফ দ্য জেন্ট্রি (আনু. ১৩৫০ - ১৬৫০)। প্রাক্তনরা পেশাদার কবি ছিলেন যারা তাদের পৃষ্ঠপোষকদের জন্য প্রশংসা এবং উপাখ্যান রচনা করেছিলেন এবং পরবর্তীরা সাইওয়াইড মিটারের পক্ষে ছিলেন।[২৭৫] এই সময়কালটি ওয়েলসের অন্যতম সেরা কবি, ড্যাফিড এপি গুইলিম তৈরি করেছিল।[২৭৬] ভদ্রলোকের ইংরেজীকরণের পর ঐতিহ্যটি হ্রাস পায়।[২৭৫]

পেশাদার কবির বিলুপ্তি সত্ত্বেও, একটি বৃহত্তর সাংস্কৃতিক জগতে স্থানীয় অভিজাতদের একীকরণ অন্যান্য সাহিত্যিক সুবিধা নিয়ে আসে।[২৭৭] উইলিয়াম সেলসবারি এবং জন ডেভিসের মতো রেনেসাঁর পণ্ডিতরা ইংরেজি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মানবতাবাদী আদর্শ নিয়ে এসেছিলেন।[২৭৭] ১৫৮৮ সালে উইলিয়াম মর্গান ওয়েলশ ভাষায় বাইবেল অনুবাদ করার প্রথম ব্যক্তি হন।[২৭৭] ১৬ শতক থেকে 'ফ্রি-মিটার' শ্লোকের বিস্তার ওয়েলশ কবিতায় সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিকাশ হয়ে ওঠে, কিন্তু ১৭ শতকের মাঝামাঝি থেকে ইংল্যান্ড থেকে আমদানি করা উচ্চারণ মিটারের একটি হোস্ট খুব জনপ্রিয় হয়ে ওঠে।[২৭৭] ১৯ শতকের মধ্যে একটি ওয়েলশ মহাকাব্যের সৃষ্টি, eisteddfod দ্বারা ইন্ধন, ওয়েলশ ভাষার লেখকদের একটি আবেশে পরিণত হয়।[২৭৮] এই সময়ের আউটপুট পরিমাণে প্রচুর কিন্তু গুণমানের দিক থেকে অসম ছিল।[২৭৯] প্রাথমিকভাবে বাদ দেওয়া হয়েছিল, ধর্মীয় সম্প্রদায়গুলো প্রতিযোগিতায় আধিপত্য বিস্তার করে, বার্ডিক থিমগুলো শাস্ত্রীয় এবং শিক্ষামূলক হয়ে ওঠে।[২৭৯]

১৯ শতকের ওয়েলশ সাহিত্যের বিকাশের মধ্যে রয়েছে লেডি শার্লট গেস্টের ম্যাবিনোজিয়নের ইংরেজিতে অনুবাদ। এটি সেল্টিক পুরাণের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মধ্যযুগীয় ওয়েলশ গদ্য রচনাগুলোর মধ্যে একটি। ১৮৮৫ সালে ড্যানিয়েল ওয়েনের রাইস লুইসের প্রকাশনা দেখা যায়, যাকে ওয়েলশ ভাষায় লেখা প্রথম উপন্যাস হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়। ২০ শতকে থমাস গুইন জোনসের ইমাদাউইয়াড আর্থার- এর মতো কাজের সাথে ভার্বস ভিক্টোরিয়ান ওয়েলশ শৈলী থেকে একটি সরানো দেখা যায়।[২৭৮] TH প্যারি-উইলিয়ামস এবং আর. উইলিয়ামস প্যারি দ্বারা চ্যাম্পিয়ন করা আরও হতাশাবাদী শৈলীর সাথে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ ওয়েলশ সাহিত্যের উপর গভীর প্রভাব ফেলেছিল।[২৭৮] সাউথ ওয়েলসের শিল্পায়ন রাইডওয়েন উইলিয়ামসের পছন্দের সাথে আরও একটি পরিবর্তন দেখেছিল যারা একটি বিগত গ্রামীণ ওয়েলসের কবিতা এবং মিটার ব্যবহার করেছিলেন কিন্তু একটি শিল্প ভূদৃশ্যের প্রেক্ষাপটে। আন্তঃযুদ্ধের সময়কাল সন্ডার্স লুইস দ্বারা প্রাধান্য পায়, তার রাজনৈতিক এবং প্রতিক্রিয়াশীল দৃষ্টিভঙ্গির জন্য যতটা তার নাটক, কবিতা এবং সমালোচনা।[২৭৮]

১৯৩০-এর দশকের কিছু লেখকের কর্মজীবন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরেও অব্যাহত ছিল। এর মধ্যে রয়েছে গুইন থমাস, ভার্নন ওয়াটকিন্স এবং ডিলান থমাস, যাদের সবচেয়ে বিখ্যাত কাজ আন্ডার মিল্ক উড প্রথম ১৯৫৪ সালে সম্প্রচারিত হয়েছিল। থমাস ২০ শতকের সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য এবং জনপ্রিয় ওয়েলশ লেখকদের একজন এবং তার সময়ের সবচেয়ে উদ্ভাবনী কবিদের একজন।[২৮০] ওয়েলসের প্রতি ইংরেজিতে ওয়েলশ লেখকদের যুদ্ধ-পরবর্তী প্রজন্মের মনোভাব পূর্ববর্তী প্রজন্মের থেকে আলাদা, ওয়েলশ জাতীয়তাবাদ এবং ওয়েলশ ভাষার প্রতি বেশি সহানুভূতি রয়েছে। পরিবর্তনটি সন্ডার্স লুইসের জাতীয়তাবাদ এবং ১৯৩৬ সালে লন উপদ্বীপে বোম্বিং স্কুল পুড়িয়ে দেওয়ার সাথে যুক্ত[২৮১] কবিতায় আরএস টমাস (১৯১৩-২০০০) বিংশ শতাব্দীর দ্বিতীয়ার্ধে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব ছিলেন। তিনি "৩০ বছর বয়স পর্যন্ত ওয়েলশ ভাষা শেখেননি এবং তার সমস্ত কবিতা ইংরেজিতে লিখেছিলেন"।[২৮২] বিংশ শতাব্দীর দ্বিতীয়ার্ধে প্রধান লেখকদের মধ্যে রয়েছে এমির হামফ্রেস (জন্ম ১৯১৯), যিনি তার দীর্ঘ লেখার ক্যারিয়ারে বিশটিরও বেশি উপন্যাস প্রকাশ করেছেন,[২৮৩] এবং রেমন্ড উইলিয়ামস (১৯২১-১৯৮৮)।[২৮৪]

জাদুঘর এবং গ্রন্থাগার সম্পাদনা

 
ওয়েলসের ন্যাশনাল লাইব্রেরি, অ্যাবেরিস্টউইথ

আমগুয়েড্ফা সিমরু - ১৯০৭ সালে রাজকীয় সনদ দ্বারা ন্যাশনাল মিউজিয়াম ওয়েলস প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল এবং এখন এটি ওয়েলশ সরকারের স্পনসরড বডি । জাতীয় জাদুঘরটি সারা দেশে সাতটি স্থান নিয়ে গঠিত। এর মধ্যে রয়েছে ন্যাশনাল মিউজিয়াম কার্ডিফ, সেন্ট ফাগানস ন্যাশনাল হিস্ট্রি মিউজিয়াম এবং বিগ পিট ন্যাশনাল কয়লা জাদুঘর । এপ্রিল ২০০১ সালে, জাতীয় জাদুঘরের সাথে সংযুক্ত আকর্ষণগুলোকে অ্যাসেম্বলি দ্বারা বিনামূল্যে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়েছিল, এবং এই ক্রিয়াকলাপের ফলে ২০০১-২০০২ এর মধ্যে সাইটগুলোতে দর্শনার্থীদের সংখ্যা ৮৭.৮ শতাংশ বেড়ে ১,৪৩০,৪২৮ হয়েছে৷[২৮৫] অ্যাবেরিস্টউইথ হলো ন্যাশনাল লাইব্রেরি অফ ওয়েলসের বাড়ি। সেখানে ওয়েলসের কিছু গুরুত্বপূর্ণ সংগ্রহ রয়েছে। এর মধ্যে স্যার জন উইলিয়ামস কালেকশন এবং শিরবার্ন ক্যাসেল কালেকশন রয়েছে।[২৮৬] এর মুদ্রিত সংগ্রহের পাশাপাশি লাইব্রেরিতে পোর্ট্রেট এবং ফটোগ্রাফ, ক্ষণস্থায়ী যেমন পোস্টকার্ড, পোস্টার এবং অর্ডন্যান্স সার্ভে ম্যাপ সহ গুরুত্বপূর্ণ ওয়েলশ শিল্প সংগ্রহ রয়েছে।[২৮৬]

দৃশ্যমান অংকন সম্পাদনা

ওয়েলসে কেল্টিক শিল্পের কাজ পাওয়া গেছে।[২৮৭] প্রারম্ভিক মধ্যযুগীয় সময়ে, ওয়েলসের সেল্টিক খ্রিস্টধর্ম ছিল ব্রিটিশ দ্বীপপুঞ্জের ইনসুলার শিল্পের অংশ। অষ্টম শতাব্দীর হেয়ারফোর্ড গসপেলস এবং লিচফিল্ড গসপেলস সহ ওয়েলসের বেশ কয়েকটি আলোকিত পাণ্ডুলিপি টিকে আছে। ১১ শতকের রাইসমার্চ সাল্টার (এখন ডাবলিনে) অবশ্যই ওয়েলশ। এটি সেন্ট ডেভিড- এ তৈরি, এবং অস্বাভাবিক ভাইকিং প্রভাব সহ একটি দেরী ইনসুলার শৈলী দেখায়।[২৮৮]

১৬-১৮ শতকের কিছু ওয়েলশ শিল্পীরা কাজ করার জন্য দেশ ছেড়ে লন্ডন বা ইতালিতে চলে যাওয়ার প্রবণতা দেখায়। রিচার্ড উইলসন (১৭১৪-১৭৮২) তর্কযোগ্যভাবে প্রথম প্রধান ব্রিটিশ ল্যান্ডস্ক্যাপিস্ট। যদিও তার ইতালীয় দৃশ্যের জন্য আরো উল্লেখযোগ্য, তিনি লন্ডন থেকে সফরে বেশ কিছু ওয়েলশ দৃশ্য এঁকেছেন। ১৮ শতকের শেষের দিকে, ল্যান্ডস্কেপ শিল্পের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পায় এবং বৃহত্তর ওয়েলশ শহরে ক্লায়েন্ট পাওয়া যায়। এর ফলে আরও বেশি ওয়েলশ শিল্পীদের তাদের জন্মভূমিতে থাকার অনুমতি দেওয়া হয়। সেল্টিক পুনরুজ্জীবনের কারণে ওয়েলসের বাইরের শিল্পীরাও প্রথমে ওয়েলশের দৃশ্য আঁকার জন্য আকৃষ্ট হয়েছিল।[২৮৯]

 
দ্য বার্ড, ১৭৭৪, টমাস জোন্স (১৭৪২-১৮০৩) দ্বারা।

১৮৫৭ সালে পার্লামেন্টের একটি আইন সমগ্র যুক্তরাজ্য জুড়ে বেশ কয়েকটি আর্ট স্কুল প্রতিষ্ঠার জন্য প্রদান করে এবং ১৮৬৫ সালে কার্ডিফ স্কুল অফ আর্ট খোলা হয়। স্নাতকদের এখনও প্রায়ই কাজ করার জন্য ওয়েলস ছেড়ে যেতে হত, কিন্তু বেটউস-ই-কোড শিল্পীদের জন্য একটি জনপ্রিয় কেন্দ্র হয়ে ওঠে এবং এর শিল্পীদের উপনিবেশ ১৮৮১ সালে রয়্যাল ক্যামব্রিয়ান একাডেমি অফ আর্ট গঠনে সহায়তা করে[২৯০] ভাস্কর স্যার উইলিয়াম গোসকম্ব জন ওয়েলশ কমিশনের জন্য কাজ করেছিলেন, যদিও তিনি লন্ডনে স্থায়ী ছিলেন। ক্রিস্টোফার উইলিয়ামস। এর বিষয়গুলো বেশিরভাগ দৃঢ়ভাবে ওয়েলশ ছিল, তিনিও লন্ডনে ছিলেন। টমাস ই. স্টিফেনস[২৯১] এবং অ্যান্ড্রু ভিকারির যথাক্রমে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ফ্রান্সে অবস্থিত প্রতিকৃতিবিদ হিসাবে অত্যন্ত সফল ক্যারিয়ার ছিল।[২৯২]

ওয়েলশ চিত্রশিল্পীরা ইউরোপের শিল্প রাজধানীগুলোর দিকে অভিকর্ষিত হয়েছিল। অগাস্টাস জন এবং তার বোন গুয়েন জন বেশিরভাগই লন্ডন এবং প্যারিসে থাকতেন। যাইহোক, ল্যান্ডস্ক্যাপিস্ট স্যার কিফিন উইলিয়ামস এবং পিটার প্রেন্ডারগাস্ট বৃহত্তর শিল্প জগতের সাথে যোগাযোগ রেখে তাদের জীবনের বেশিরভাগ সময় ওয়েলসে বসবাস করেছিলেন। সেরি রিচার্ডস ওয়েলশ শিল্পের দৃশ্যে খুব নিযুক্ত ছিলেন কার্ডিফে এবং এমনকি লন্ডনে যাওয়ার পরেও। তিনি পরাবাস্তবতা সহ আন্তর্জাতিক শৈলীতে একজন আলংকারিক চিত্রশিল্পী ছিলেন। এরিক গিল, লন্ডন-ওয়েলসম্যান ডেভিড জোনস এবং ভাস্কর জোনা জোনস সহ বিভিন্ন শিল্পী ওয়েলসে চলে গেছেন। কার্ডোমাহ গ্যাং ছিল একটি বুদ্ধিজীবী বৃত্ত যা সোয়ানসিতে কবি ডিলান থমাস এবং কবি ও শিল্পী ভার্নন ওয়াটকিন্সকে কেন্দ্র করে। এর মধ্যে চিত্রশিল্পী আলফ্রেড জেনসও অন্তর্ভুক্ত ছিল।[২৯৩]

সাউথ ওয়েলসে বেশ কয়েকটি উল্লেখযোগ্য মৃৎপাত্র ছিল, প্রথম গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোর মধ্যে একটি হলো ব্রিজন্ডের ইওয়েনি মৃৎপাত্র। এটি ১৭ শতকে মাটির পাত্র তৈরি করা শুরু করে।[২৯৪] ১৮ এবং ১৯ শতকে, আরও বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি উপলব্ধ হওয়ার সাথে সাথে ক্যামব্রিয়ান মৃৎপাত্র (১৭৬৪-১৮৭০। এটি "সোয়ানসি মৃৎপাত্র" নামেও পরিচিত) এবং পরে কার্ডিফের কাছে নান্টগার্উ মৃৎপাত্রের নেতৃত্বে আরও পরিশ্রুত সিরামিক তৈরি করা হয়েছিল। এটি ১৮১৩ সাল থেকে চালু ছিল। ১৮২২ সূক্ষ্ম চীনামাটির বাসন তৈরি এবং তারপর ১৯২০ সাল পর্যন্ত উপযোগী মৃৎপাত্র[২৯৪] পোর্টমেইরিয়ন পটারি, ১৯৬০ সালে সুসান উইলিয়ামস-এলিস, ক্লো উইলিয়ামস-এলিসের কন্যা, পোর্টমেইরিওন, গুইনেডের ইতালীয় গ্রামের স্রষ্টা দ্বারা প্রতিষ্ঠিত, এটি ইংল্যান্ডের স্টোক-অন-ট্রেন্টে অবস্থিত।[২৯৫]

জাতীয় প্রতীক ও পরিচয় সম্পাদনা

 
লাল ড্রাগন, ওয়েলসের একটি জনপ্রিয় প্রতীক।

লাল ড্রাগন ওয়েলসের জাতীয় পরিচয় এবং গর্বের একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রতীক এবং বলা হয় ওয়েলশ জাতির নির্ভীকতাকে ব্যক্ত করে।[২৯৬] ড্রাগনকে সর্বপ্রথম সাহিত্যে হিস্টোরিয়া ব্রিটোনামে মানুষের প্রতীক হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। Vortigern (ওয়েলশ: Gwrtheyrn ) কেল্টিক ব্রিটিশদের রাজা দিনাস এমরিসে একটি দুর্গ নির্মাণের চেষ্টা করার সময় বাধাপ্রাপ্ত হয়। অ্যামব্রোসিয়াস [গ] তাকে দুর্গের নীচে দুটি ড্রাগন খনন করতে বলে। তিনি সেল্টিক ব্রিটিশদের প্রতিনিধিত্বকারী একটি লাল ড্রাগন এবং অ্যাংলো-স্যাক্সনদের প্রতিনিধিত্বকারী একটি সাদা ড্রাগন আবিষ্কার করেন। অ্যামব্রোসিয়াস ভবিষ্যদ্বাণী করে যে সেল্টিক ব্রিটিশরা দ্বীপটি পুনরুদ্ধার করবে এবং অ্যাংলো-স্যাক্সনদের সমুদ্রের দিকে ঠেলে দেবে।[২৯৮] প্রতীক হিসেবে, ওয়েলসের লাল ড্রাগনটি প্রায় ৬৫৫ খ্রিস্টাব্দ থেকে গুইনেডের রাজা ক্যাডওয়ালাডারের রাজত্বকাল থেকে ব্যবহৃত হয়ে আসছে এবং ওয়েলসের জাতীয় পতাকায় উপস্থিত রয়েছে। এটি ১৯৫৯ সালে একটি সরকারি পতাকা হয়ে ওঠে[২৯৯]

১ মার্চ, ওয়েলশ লোকেরা সেন্ট ডেভিড দিবস উদযাপন করে, যিনি ওয়েলশ পরিচয়ের আইকন।[৩০০] যুক্তরাজ্য সরকারের অস্বীকৃতি সত্ত্বেও সেন্ট ডেভিড ডেকে ওয়েলসে ব্যাঙ্ক ছুটির দিন করার জন্য ওয়েলসে একাধিক কল এবং সংখ্যাগরিষ্ঠ সমর্থন করা হয়েছে।[৩০১][৩০২][৩০৩] ওয়েলস জুড়ে স্কুল এবং সাংস্কৃতিক সমাজ দ্বারা দিবসটি উদযাপন করা হয় এবং কাস্টমসের মধ্যে রয়েছে একটি লিক বা ড্যাফোডিল পরা যা ওয়েলসের দুটি জাতীয় প্রতীক। শিশুরাও জাতীয় পোশাক পরে।[৩০৪] লিকের উৎপত্তি ১৬ শতকে খুঁজে পাওয়া যায়, যখন ডেভিড লয়েড জর্জ দ্বারা উত্সাহিত ড্যাফোডিল ১৯ শতকে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে।[৩০৫] এটি লিক, সেনহিনেন এবং ড্যাফোডিল, সেনহিনেন বেডর বা সেন্ট পিটারস লিকের জন্য ওয়েলশের মধ্যে বিভ্রান্তির (বা সংযোগ) জন্য দায়ী।[১৩৭] ১৯১৬ সালে একটি প্রতিবেদন লিককে অগ্রাধিকার দেয়। এটি ব্রিটিশ পাউন্ড মুদ্রায় উপস্থিত হয়েছে।[৩০৫]

Owain Glyndŵr- এর ব্যানারটি ওয়েলশ জাতীয়তার সাথে যুক্ত।[৩০৬] এটি ইংরেজদের বিরুদ্ধে গ্লিন্ডারের যুদ্ধের সময় ওয়েলশ বাহিনীর দ্বারা যুদ্ধে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল, লাল এবং সোনার উপর চারটি সিংহ রয়েছে। মানটি ইংল্যান্ডের এডওয়ার্ড I দ্বারা ওয়েলস বিজয়ের আগে ওয়েলসের শেষ যুবরাজ, Llywelyn ap Gruffudd (Llywelyn the Last) এর অস্ত্রের অনুরূপ। ডিজাইনটি গ্লিন্ডওয়ারের বাবা-মায়ের বাহু দ্বারাও প্রভাবিত হতে পারে, যাদের উভয়ের বাহুতে সিংহ ছিল।[৩০৭] Owain Glyndŵr Day ১৬ সেপ্টেম্বর ওয়েলসে উদযাপিত হয় এবং এটিকে একটি জাতীয় ব্যাঙ্কের ছুটিতে পরিণত করার আহ্বান জানানো হয়েছে৷[৩০৮][৩০৯]

" হেন ব্লাড ফাই নাদাউ " (ইংরেজি: Land of My Fathers ) হলো ওয়েলসের জাতীয় সঙ্গীত, এবং ওয়েলস জাতীয় দলের সাথে জড়িত ফুটবল বা রাগবি ম্যাচের সাথে সাথে সেনেডের উদ্বোধন এবং অন্যান্য অফিসিয়াল অনুষ্ঠানে বাজানো হয়।[৩১০]

" Cymru am byth " ("ওয়েলস চিরকাল") একটি জনপ্রিয় ওয়েলশ নীতিবাক্য।[৩১১] আরেকটি ওয়েলশ নীতিবাক্য "Y Ddraig Goch Ddyry Cychwyn" (" লাল ড্রাগন ক্রিয়াকে অনুপ্রাণিত করে") ১৯৫৩ সালে তৈরি হওয়ার সময় ওয়েলসের রয়্যাল ব্যাজে ব্যবহার করা হয়েছে[৩১২]

ব্রিটিশ প্রতীক সম্পাদনা

এর সৃষ্টিতে ইউনিয়ন জ্যাক স্কটল্যান্ড, আয়ারল্যান্ড এবং সেন্ট জর্জের ক্রস রাজ্যের পতাকাগুলোকে অন্তর্ভুক্ত করে যা তখন ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসের রাজ্যের প্রতিনিধিত্ব করে।[৩১৩] ১৫৪৩ সাল নাগাদ ওয়েলস ইংল্যান্ডের মুকুট দ্বারা সংযুক্ত এবং অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল।[৩১৪] বর্তমান মিডিয়া ব্যাখ্যা করেছে কেন ওয়েলস পতাকায় প্রতিনিধিত্ব করা হয় না।[৩১৫]

ডিউক অফ কর্নওয়ালের হেরাল্ডিক ব্যাজ, বা ব্রিটিশ রাজতন্ত্রের উত্তরাধিকারী (সাধারণত প্রিন্স অফ ওয়েলসের পালক হিসাবে পরিচিত) ওয়েলসেও ব্যবহৃত হয়।[৩১৬] এটি একটি সোনার কোরোনেট থেকে উদ্ভূত তিনটি সাদা পালক এবং জার্মান নীতিবাক্য Ich dien (আমি পরিবেশন করছি) নিয়ে গঠিত। ওয়েলশ রাগবি ইউনিয়ন সহ বেশ কিছু ওয়েলশ প্রতিনিধি দল এবং ব্রিটিশ সেনাবাহিনীর ওয়েলশ রেজিমেন্ট (উদাহরণস্বরূপ রয়্যাল ওয়েলশ) ব্যাজ বা এর একটি স্টাইলাইজড সংস্করণ ব্যবহার করে। বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে প্রতীকটির ব্যবহার কমানোর চেষ্টা করা হয়েছে এবং প্রিন্স অফ ওয়েলসের দ্বারা অনুমোদিত ব্যক্তিদের জন্য এর ব্যবহার সীমাবদ্ধ করার চেষ্টা করা হয়েছে।[৩১৭]

 
মিলেনিয়াম স্টেডিয়াম, কার্ডিফ

৫০ টিরও বেশি জাতীয় পরিচালনা সংস্থা ওয়েলসে তাদের খেলাধুলা নিয়ন্ত্রণ ও সংগঠিত করে।[৩১৮] যারা প্রতিযোগিতামূলক খেলাধুলায় জড়িত তাদের অধিকাংশই অন্য দেশের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক ইভেন্টে বা ফিক্সচারে তাদের দেশের প্রতিনিধিত্ব করার জন্য ব্যক্তি বা দল নির্বাচন, সংগঠিত এবং পরিচালনা করে। ফিফা বিশ্বকাপ, রাগবি বিশ্বকাপ, রাগবি লীগ বিশ্বকাপ এবং কমনওয়েলথ গেমসের মতো প্রধান বিশ্ব ক্রীড়া ইভেন্টে ওয়েলসের প্রতিনিধিত্ব করা হয়। অলিম্পিক গেমসে, ওয়েলশ ক্রীড়াবিদরা গ্রেট ব্রিটেন দলের অংশ হিসাবে স্কটল্যান্ড, ইংল্যান্ড এবং উত্তর আয়ারল্যান্ডের সাথে প্রতিযোগিতা করে। ওয়েলস বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক ক্রীড়া ইভেন্টের আয়োজন করেছে।[৩১৯] এর মধ্যে রয়েছে ১৯৫৮ সালের কমনওয়েলথ গেমস,[৩২০] ১৯৯৯ সালের রাগবি বিশ্বকাপ, ২০১০ সালের রাইডার কাপ এবং ২০১৭ সালের উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনাল ।[৩১৯][৩২১]

যদিও ফুটবল ঐতিহ্যগতভাবে উত্তর ওয়েলসের জনপ্রিয় খেলা, রাগবি ইউনিয়নকে ওয়েলশ পরিচয়ের প্রতীক এবং জাতীয় চেতনার প্রকাশ হিসেবে দেখা হয়।[৩২২] ওয়েলস জাতীয় রাগবি ইউনিয়ন দল বার্ষিক সিক্স নেশনস চ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নেয় এবং ১৯৯৯ সালে টুর্নামেন্টের আয়োজন করে প্রতিটি রাগবি বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করে। যে পাঁচটি পেশাদার দল ২০০৩ সালে বড় প্রতিযোগিতায় ঐতিহ্যবাহী ক্লাব পক্ষের পরিবর্তে ২০০৪ সালে চারটি অঞ্চল দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়েছিল: কার্ডিফ ব্লুজ, ড্রাগন, অসপ্রে এবং স্কারলেট ।[৩২৩] ওয়েলশ আঞ্চলিক দলগুলো ইউনাইটেড রাগবি চ্যাম্পিয়নশিপ,[৩২৪] যোগ্যতা অর্জন করলে হাইনেকেন চ্যাম্পিয়ন্স কাপ খেলে[৩২৫] এবং ইউরোপীয় রাগবি চ্যালেঞ্জ কাপ, আবার যোগ্যতার ওপর নির্ভর করে।[৩২৬] ওয়েলসের রাগবি লিগ ১৯০৭ সালে শুরু হয়। একটি পেশাদার ওয়েলশ লীগ ১৯০৮ থেকে ১৯১০ পর্যন্ত বিদ্যমান ছিল[৩২৭]

১৯৯২ সাল থেকে ওয়েলসের নিজস্ব ফুটবল লীগ, ওয়েলশ প্রিমিয়ার লিগ রয়েছে[৩২৮] ঐতিহাসিক কারণে, পাঁচটি ওয়েলশ ক্লাব ইংলিশ ফুটবল লীগ পদ্ধতিতে খেলে; কার্ডিফ সিটি, সোয়ানসি সিটি, নিউপোর্ট কাউন্টি, রেক্ সহ্যাম এবং মের্থাইর টাউন ।[৩২৯] বছরের পর বছর ধরে বিখ্যাত ওয়েলশ খেলোয়াড়দের মধ্যে রয়েছে জন চার্লস, জন তোশ্যাক, গ্যারি স্পিড, ইয়ান রাশ, রায়ান গিগস, গ্যারেথ বেল, অ্যারন রামসে এবং ড্যানিয়েল জেমস ।[৩৩০] ইউএফা ইউরো ২০১৬ এ, ওয়েলস জাতীয় দল তাদের সর্বকালের সেরা ফিনিশিং অর্জন করে, সেমিফাইনালে পৌঁছে যেখানে তারা চূড়ান্ত চ্যাম্পিয়ন পর্তুগালের কাছে পরাজিত হয়েছিল।[৩৩১]

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে, ওয়েলস এবং ইংল্যান্ড একটি একক প্রতিনিধি দল। এটি ইংল্যান্ড এবং ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড (ইসিবি) দ্বারা পরিচালিত হয়, যাকে বলা হয় ইংল্যান্ড ক্রিকেট দল, বা কেবল 'ইংল্যান্ড'।[৩৩২] মাঝে মাঝে, একটি পৃথক ওয়েলস দল সীমিত ওভারের প্রতিযোগিতা খেলে। গ্ল্যামারগান কাউন্টি ক্রিকেট ক্লাব ইংল্যান্ড এবং ওয়েলস কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশিপে একমাত্র ওয়েলশ অংশগ্রহণকারী।[৩৩৩] ওয়েলস স্নুকার খেলোয়াড় রে রিয়ার্ডন, টেরি গ্রিফিথস, মার্ক উইলিয়ামস এবং ম্যাথিউ স্টিভেনস সহ ব্যক্তিগত এবং দলগত খেলায় বেশ কিছু উল্লেখযোগ্য অংশগ্রহণকারী তৈরি করেছে।[৩৩৪] ট্র্যাক অ্যাথলিট যারা বিশ্ব মঞ্চে একটি চিহ্ন তৈরি করেছেন তাদের মধ্যে রয়েছে হার্ডলার কলিন জ্যাকসন এবং প্যারালিম্পিয়ান ট্যানি গ্রে-থম্পসন ।[৩৩৫] চ্যাম্পিয়ন সাইক্লিস্টদের মধ্যে রয়েছে নিকোল কুক[৩৩৬] এবং জেরাইন্ট থমাস ।[৩৩৭] ওয়েলসের বিশ্বমানের বক্সার তৈরির ঐতিহ্য রয়েছে। Joe Calzaghe WBO বিশ্ব সুপার-মিডলওয়েট চ্যাম্পিয়ন ছিলেন এবং তারপর ডব্লিউবিএ, ডব্লিউবিসি এবং রিং ম্যাগাজিন সুপার মিডলওয়েট এবং রিং ম্যাগাজিন লাইট-হেভিওয়েট শিরোনাম জিতেছিলেন।[৩৩৮] অন্যান্য প্রাক্তন বক্সিং বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের মধ্যে রয়েছে এনজো ম্যাকারিনেলি, ফ্রেডি ওয়েলশ, হাওয়ার্ড উইনস্টোন, পার্সি জোন্স, জিমি ওয়াইল্ড, স্টিভ রবিনসন এবং রবি রেগান ।[৩৩৯] টমি ফার, "টনিপ্যান্ডি টেরর", ১৯৩৭ সালে বিশ্ব হেভিওয়েট চ্যাম্পিয়ন জো লুইকে তার খ্যাতির উচ্চতায় পরাজিত করার কাছাকাছি এসেছিলেন[৩৪০]

মিডিয়া সম্পাদনা

 
ডক্টর হু এবং টর্চউডের মতো বিবিসি প্রযোজনার একটি সংখ্যা ওয়েলসে চিত্রায়িত হয়েছে।

ওয়েলস যুক্তরাজ্যের প্রথম ডিজিটাল টেলিভিশন দেশ হয়ে উঠেছে।[৩৪১] বিবিসি সিমরু ওয়েলস হলো জাতীয় সম্প্রচারকারী,[৩৪২] কার্ডিফের সেন্ট্রাল স্কয়ারে অবস্থিত বেস থেকে ওয়েলশ এবং ইংরেজিতে টেলিভিশন এবং রেডিও উভয় অনুষ্ঠানই তৈরি করে।[৩৪৩] সম্প্রচারকটি যুক্তরাজ্য জুড়ে বিবিসির নেটওয়ার্ক দর্শকদের জন্য লাইফ অন মার্স, ডক্টর হু এবং টর্চউডের মতো অনুষ্ঠানও তৈরি করে।[৩৪২][৩৪৪] আইটিভি, যুক্তরাজ্যের প্রধান বাণিজ্যিক সম্প্রচারকারী, আইটিভি সিমরু ওয়েলস নামে একটি ওয়েলশ-ভিত্তিক পরিষেবা রয়েছে। এর স্টুডিওগুলো কার্ডিফ উপসাগরে রয়েছে৷[৩৪৫] কারমার্থেন ভিত্তিক S৪C, প্রথম সম্প্রচারিত হয় ১ নভেম্বর ১৯৮২ সালে। এটির আউটপুট বেশিরভাগ সময় ওয়েলশে ছিল তবে অন্যান্য সময়ে চ্যানেল ৪ এর সাথে ইংরেজি ভাষার সামগ্রী ভাগ করে নেয়। এপ্রিল ২০১০ সালে ডিজিটাল সুইচওভারের পর থেকে, চ্যানেলটি একচেটিয়াভাবে ওয়েলশে সম্প্রচার করেছে।[৩৪৬] বিবিসি রেডিও কাইম্রু হলো বিবিসি-এর ওয়েলশ-ভাষা রেডিও পরিষেবা। এটি সমগ্র ওয়েলসে সম্প্রচার করে।[৩৪২] ওয়েলশ অঞ্চলে বেশ কয়েকটি স্বাধীন রেডিও স্টেশন সম্প্রচার করে, প্রধানত ইংরেজিতে। ২০০৬ সালে, বেশ কয়েকটি আঞ্চলিক রেডিও স্টেশন ওয়েলশে সম্প্রচার করে: আউটপুট প্রতি সপ্তাহের দিনে দুটি দুই মিনিটের নিউজ বুলেটিন (রেডিও মালডউইন) থেকে শুরু করে ১৪ ঘণ্টার বেশি ওয়েলশ-ভাষা অনুষ্ঠানের সাপ্তাহিক (সোয়ানসি সাউন্ড) থেকে মূলত দ্বিভাষিক স্টেশন যেমন হার্ট সিমরু এবং রেডিওতে সম্প্রচার করা হয়। সেরেডিজিয়ন ।[৩৪৭]

ওয়েলসে বিক্রি হওয়া এবং পঠিত বেশিরভাগ সংবাদপত্র ব্রিটেন জুড়ে পাওয়া জাতীয় সংবাদপত্র। ওয়েস্টার্ন মেইল হলো ওয়েলসের একমাত্র মুদ্রিত জাতীয় দৈনিক সংবাদপত্র,[৩৪৮] তবে একটি নতুন অনলাইন এবং মাঝে মাঝে প্রিন্ট জাতীয় সংবাদপত্র, দ্য ন্যাশনাল, ২০২১ সালে সেন্ট ডেভিড দিবসে চালু হয়[৩৪৯] ওয়েলস-ভিত্তিক আঞ্চলিক দৈনিক সংবাদপত্রের মধ্যে রয়েছে ডেইলি পোস্ট (যা উত্তর ওয়েলস কভার করে), সাউথ ওয়েলস ইভিনিং পোস্ট (সোয়ানসি), সাউথ ওয়েলস ইকো (কার্ডিফ), এবং সাউথ ওয়েলস আরগাস (নিউপোর্ট)।[৩৪৮] ওয়েলশ ম্যান (Y Cymro) হচ্ছে একটি ওয়েলশ-ভাষা সংবাদপত্র, সাপ্তাহিক প্রকাশিত হয়।[৩৫০] ওয়েলস অন সানডে একমাত্র ওয়েলশ সানডে সংবাদপত্র যা পুরো ওয়েলসকে কভার করে।[৩৫১] বুকস কাউন্সিল অফ ওয়েলস (BCW, পূর্বে ওয়েলশ বুকস কাউন্সিল নামে পরিচিত) হলো ওয়েলশ-সরকার-অর্থায়িত সংস্থা যা ওয়েলশ এবং ইংরেজিতে ওয়েলশ সাহিত্যের প্রচারের দায়িত্বপ্রাপ্ত।[৩৫২] BCW ইংরেজি- এবং ওয়েলশ-ভাষা প্রকাশনার যোগ্যতা অর্জনের জন্য প্রকাশনা অনুদান প্রদান করে।[৩৫৩] প্রতি বছর প্রায় ৬০০-৬৫০টি বই প্রকাশিত হয়, কয়েক ডজন ওয়েলশ প্রকাশকদের দ্বারা।[৩৫৪][৩৫৫] ওয়েলসের প্রধান প্রকাশনা সংস্থাগুলোর মধ্যে রয়েছে গোমার প্রেস, গওয়াসগ ক্যারেগ গোয়ালচ, হোনো, ইউনিভার্সিটি অফ ওয়েলস প্রেস এবং ওয়াই লোলফা ।[৩৫৪] ক্যামব্রিয়া, ইংরেজিতে দ্বি-মাসিক প্রকাশিত ওয়েলশ বিষয়ক ম্যাগাজিন, আন্তর্জাতিকভাবে গ্রাহক রয়েছে।[৩৫৬] ইংরেজিতে ত্রৈমাসিক প্রকাশিত শিরোনামের মধ্যে রয়েছে প্ল্যানেট এবং পোয়েট্রি ওয়েলস[৩৫৭] ওয়েলশ-ভাষার ম্যাগাজিনগুলোর মধ্যে রয়েছে কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স শিরোনাম Golwg ("ভিউ"), প্রকাশিত সাপ্তাহিক, এবং বার্ন ("মতামত"), মাসিক প্রকাশিত।[৩৫০] বিশেষজ্ঞ ম্যাগাজিনগুলোর মধ্যে, ওয়াই ওয়াওর ("দ্য ডন") ত্রৈমাসিকভাবে প্রকাশিত হয় মার্চড ওয়াওর, মহিলাদের জন্য জাতীয় সংস্থা।[৩৫০] Y Traethodydd ("The Essayist"), প্রেসবিটারিয়ান চার্চ অফ ওয়েলসের একটি ত্রৈমাসিক প্রকাশনা, প্রথম প্রকাশিত হয়েছিল ১৮৪৫ সালে এবং এটি ওয়েলশের প্রাচীনতম প্রকাশনা এখনও মুদ্রিত।[৩৫০]

রন্ধনপ্রণালী সম্পাদনা

 
কাউল, ওয়েলসের একটি ঐতিহ্যবাহী মাংস এবং উদ্ভিজ্জ খাবার।

ঐতিহ্যবাহী ওয়েলশ খাবারের মধ্যে রয়েছে ল্যাভারব্রেড (পোরফাইরা আম্বিলিকালিস থেকে তৈরি, একটি ভোজ্য সামুদ্রিক শৈবাল); বারা ব্রিথ (ফলের রুটি); কাউল (একটি ভেড়ার স্টু); কাউল কেন্নিন (লিক স্যুপ); এবং ওয়েলশ কেক ।[৩৫৮] ককল কখনও কখনও বেকন এবং লেভারব্রেডের সাথে একটি ঐতিহ্যবাহী প্রাতঃরাশ হিসাবে পরিবেশন করা হয়।[৩৫৯] যদিও ওয়েলসের নিজস্ব ঐতিহ্যবাহী খাবার রয়েছে এবং ইংল্যান্ডের রান্নার অনেকটাই শুষে নিয়েছে, ওয়েলশ ডায়েট এখন ভারত, চীন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দেশগুলোর কাছে বেশি ঋণী। চিকেন টিক্কা মসলা দেশের প্রিয় খাবার যখন হ্যামবার্গার এবং চাইনিজ খাবার মাছ এবং চিপসকে টেকওয়ে হিসাবে বিক্রি করে।[৩৬০]

শিল্পকলা ও প্রদর্শন সম্পাদনা

সঙ্গীত এবং উত্সব সম্পাদনা

ওয়েলসকে প্রায়ই "গানের দেশ" হিসেবে উল্লেখ করা হয়।[৩৬১] অঞ্চলটি এর বীণাবাদক, পুরুষ গায়ক এবং একক শিল্পীদের জন্য উল্লেখযোগ্য। সঙ্গীত এবং কবিতার প্রধান উত্সব হলো বার্ষিক জাতীয় ইস্টেডফোডল্যাঙ্গোলেন ইন্টারন্যাশনাল আইস্টেডফোড বিশ্বের গায়ক এবং সঙ্গীতশিল্পীদের পরিবেশন করার একটি সুযোগ প্রদান করে। ওয়েলশ ফোক গান সোসাইটি বেশ কিছু গান ও সুরের সংকলন প্রকাশ করেছে।[৩৬২] ওয়েলসের ঐতিহ্যবাহী যন্ত্রের মধ্যে রয়েছে টেলিন ডিয়ারস (ট্রিপল হার্প), বেহালা, ক্রুথ (বোড লিয়ার), পিবগর্ন (হর্নপাইপ) এবং অন্যান্য যন্ত্র।[৩৬৩] ১৯ শতকে পুরুষ কণ্ঠ শিল্পীদের আবির্ভাব ঘটে। এটি চ্যাপেল গায়কদের টেনার এবং বেস বিভাগ হিসাবে গঠিত হয়েছিল এবং সেকালের জনপ্রিয় ধর্মনিরপেক্ষ স্তবকে গ্রহণ করেছিল।[৩৬৪] ওয়েলশ মণ্ডলী এবং গায়কদলগুলো একটি উত্সাহী চার ভয়েস শৈলীতে গান গাওয়ার জন্য পরিচিত ছিল। এটি দেশের বৈশিষ্ট্য হয়ে উঠেছে।[৩৬৫] অনেক ঐতিহাসিক গায়ক আধুনিক ওয়েলসে টিকে আছে। তারা ঐতিহ্যবাহী এবং জনপ্রিয় গানের মিশ্রণে গাইছে।[৩৬৪]

 
ওয়েলশ গায়িকা ক্যাথরিন জেনকিন্স ২০১১ সালে পারফর্ম করছেন।

বিবিসি ন্যাশনাল অর্কেস্ট্রা অফ ওয়েলস ওয়েলসে এবং আন্তর্জাতিকভাবে পারফর্ম করে। ওয়েলশ ন্যাশনাল অপেরা কার্ডিফ উপসাগরের ওয়েলস মিলেনিয়াম সেন্টারে অবস্থিত। সেখানে ন্যাশনাল ইয়ুথ অর্কেস্ট্রা অফ ওয়েলস বিশ্বের প্রথম ধরনের।[৩৬৬] ওয়েলসের উল্লেখযোগ্য গায়ক তৈরি করার ঐতিহ্য রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে জেরাইন্ট ইভান্স, গুইনেথ জোন্স, অ্যান ইভান্স, মার্গারেট প্রাইস, টম জোন্স, বনি টাইলার, ব্রাইন টেরফেল, মেরি হপকিন, শার্লট চার্চ, ডোনা লুইস, ক্যাথরিন জেনকিন্স, এবং শিররিন ব্যাসি ।[৩৬৭] ওয়েলস থেকে আবির্ভূত জনপ্রিয় ব্যান্ডগুলোর মধ্যে রয়েছে ব্যাডফিঙ্গার,[৩৬৮] ম্যানিক স্ট্রিট প্রিচারার্স,[৩৬৯] স্টেরিওফোনিক্স এবং ফিডার, সুপার ফুরি অ্যানিমালস এবং ক্যাটাটোনিয়া ।[৩৭০] ওয়েলশ ঐতিহ্যবাহী এবং লোকসংগীত দৃশ্য সিয়ান জেমসের মতো অভিনয়শিল্পীদের সাথে পুনরুত্থান করছে[৩৭১]

নাটক এবং নৃত্য সম্পাদনা

 
হ্যানিবল লেক্টারের অ্যান্থনি হপকিন্সের চরিত্রকে এএফআই সিনেমার ইতিহাসে এক নম্বর ভিলেন হিসেবে ঘোষণা করেছে।[৩৭২]

প্রাচীনতম বেঁচে থাকা ওয়েলশ নাটকগুলো হলো দুটি মধ্যযুগীয় অলৌকিক নাটক ওয়াই ট্রাই ব্রেনিন ও গোলেন ("দ্য থ্রি কিংস ফ্রম কোলোন") এবং ওয়াই ডিওডেফেইন্ট আ'আর অ্যাটগিফোডিয়াড ("দ্য প্যাশন অ্যান্ড দ্য রিসারেকশন")।[৩৭৩] ১৮ শতকে থিয়েটারের একটি স্বীকৃত ওয়েলশ ঐতিহ্যের আবির্ভাব ঘটে। এগুলো একটি ইন্টারলিউড আকারে মেলা ও বাজারে একটি ছন্দবদ্ধ নাটক আকারে পরিবেশিত হয়।[৩৭৪] ২০ শতকের গোড়ার দিকে নাটকের উন্নতি হয়েছিল। কিন্তু দেশটি তখনো একটিও ওয়েলশ ন্যাশনাল থিয়েটার বা একটি জাতীয় ব্যালে কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেনি।[৩৭৫] দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর পর্যাপ্ত সংখ্যক অপেশাদার কোম্পানিগুলোর যেগুলো শত্রুতা শুরু হওয়ার আগে বিদ্যমান ছিল, সেগুলোর দুই-তৃতীয়াংশ কমে যায়।[৩৭৬] ২০ শতকের মাঝামাঝি টেলিভিশন থেকে প্রতিযোগিতা থিয়েটারে বৃহত্তর পেশাদারিত্বের দিকে পরিচালিত করে।[৩৭৬] এমলিন উইলিয়ামস এবং অ্যালুন ওয়েন এবং অন্যান্যদের নাটক মঞ্চস্থ করা হয়েছিল। তখন রিচার্ড বার্টন এবং স্ট্যানলি বেকার সহ ওয়েলশ অভিনেতারা নিজেদের শৈল্পিক প্রতিভা হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করছিলেন।[৩৭৬] অ্যান্থনি হপকিন্স হলেন রয়্যাল ওয়েলশ কলেজ অফ মিউজিক অ্যান্ড ড্রামার প্রাক্তন ছাত্র,[৩৭৭] এবং অন্যান্য উল্লেখযোগ্য ওয়েলশ অভিনেতাদের মধ্যে রয়েছেন মাইকেল শিন এবং ক্যাথরিন জেটা-জোনস[৩৭৮] ওয়েলস রব ব্রাইডন, টমি কুপার, টেরি জোন্স, এবং হ্যারি সেকম্বে সহ সুপরিচিত কমেডিয়ান তৈরি করেছে৷[৩৭৯]

ঐতিহ্যবাহী নৃত্যের মধ্যে রয়েছে ওয়েলশ লোক নাচ এবং ক্লগ নাচ । ওয়েলসে নাচের প্রথম উল্লেখ রয়েছে ১২ শতকের জিরাল্ডাস ক্যামব্রেনসিসের একটি বিবরণে। কিন্তু ১৯ শতকের মধ্যে ঐতিহ্যগত নৃত্যটি ধর্মীয় বিরোধিতার কারণে লুপ্ত হয়ে গিয়েছিল।[৩৭৫] ২০ শতকে লোইস ব্লেক (১৮৯০-১৯৭৪) এর নেতৃত্বে নাচটির পুনরুজ্জীবন হয়েছিল।[৩৭৫] হাইয়েল উড (১৮৮২-১৯৬৭) এবং অন্যরা যারা স্থানীয় এবং জাতীয় পর্যায়ে শিল্পটিকে চিরস্থায়ী করেছিল, তাদের দ্বারা ক্লগ নাচ সংরক্ষণ ও বিকাশ করা হয়েছিল।[৩৮০] ওয়েলশ ফোক ড্যান্স সোসাইটি ১৯৪৯ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল;[৩৮০] এটি জাতীয় অপেশাদার নৃত্য দলগুলোর মধ্যে সংযোগ সমর্থন করে এবং তাদের সমর্থনের উপাদান প্রকাশ করে। ১৯৭০-এর দশকে কার্ডিফ থেকে সমসাময়িক ধারার নৃত্য বেড়ে ওঠে। সমসাময়িক ধারার নৃত্যের প্রথম দিকের একটি কোম্পানি মুভিং বিয়িং ১৯৭৩ সালে লন্ডন থেকে কার্ডিফে এসেছিল[৩৮০] ডাইভারশনস নামক নৃত্য কোম্পানিটি ১৯৮৩ সালে গঠিত হয়। এটি অবশেষে ন্যাশনাল ডান্স কোম্পানি ওয়েলস হয়ে ওঠে। এটি এখন ওয়েলস মিলেনিয়াম সেন্টারের আবাসিক কোম্পানি।[৩৮১]

ছুটির দিন সম্পাদনা

ওয়েলসের কিছু অনন্য উদযাপনের দিন রয়েছে। একটি প্রাথমিক উত্সব ছিল ম্যাবসান্ট। এই উৎসবে স্থানীয় প্যারিশগুলো তাদের স্থানীয় গির্জার পৃষ্ঠপোষক সাধুকে উদযাপন করে।[৩৮২] ওয়েলসের জাতীয় দিবস হলো সেন্ট ডেভিড দিবস। প্রতিবছর ১ মার্চে এটি পালন করা হয়। এটি ৫৮৯ সালে ডেভিডের মৃত্যুর তারিখ বলে মনে করা হয়[৩৮৩] সেন্ট ডোয়াইন'স ডেতে মানুষ বন্ধুত্ব ও ভালোবাসার স্থানীয় পৃষ্ঠপোষক সাধুকে স্মরণ করে। এটি সেন্ট ভ্যালেন্টাইন্স ডে-র অনুরূপভাবে ২৫ জানুয়ারী পালিত হয়।[৩৮৪] ক্যালান গাইফ হচ্ছে কেল্টিক ঐতিহ্যে শীতের প্রথম দিন। উৎসবটি অতিপ্রাকৃত এবং মৃতদের সাথে যুক্ত। ১ নভেম্বরে(অল সেন্টস ডে) এটি পালন করা হয়। এটি মূলত হ্যালোয়েন দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়েছে। অন্যান্য উৎসবের মধ্যে রয়েছে গ্রীষ্মের শুরুতে উদযাপন করা ক্যালান মাই (মে দিবস); ক্যালান আউস্ট (লাম্মাস ডে); এবং মোমবাতি মেলা উৎসব (Candlemas Day)।[৩৮৫]

মন্তব্য সম্পাদনা

  1. The earliest instance of Lloegyr occurs in the early 10th-century prophetic poem Armes Prydein. It seems comparatively late as a place name, the nominative plural Lloegrwys, "men of Lloegr", being earlier and more common. The English were sometimes referred to as an entity in early poetry (Saeson, as today) but just as often as Eingl (Angles), Iwys (Wessex-men), etc. Lloegr and Sacson became the norm later when England emerged as a kingdom. As for its origins, some scholars have suggested that it originally referred only to Mercia – at that time a powerful kingdom and for centuries the main foe of the Welsh. It was then applied to the new kingdom of England as a whole (see for instance Rachel Bromwich (ed.), Trioedd Ynys Prydein, University of Wales Press, 1987). "The lost land" and other fanciful meanings, such as Geoffrey of Monmouth's monarch Locrinus, have no etymological basis. (See also Discussion in Reference 40)
  2. The title Prince of Wales is still conferred on the heir apparent to the British throne, currently Prince William, but he has no constitutional role in modern Wales.[১০২] According to the Welsh Government in 2008: "Our Prince of Wales at the moment is Prince Charles, who is the present heir to the throne. But he does not have a role in the governance of Wales, even though his title might suggest that he does."[১০১]
  3. "লাতিন: Ambrosius vocor, id est, Embreis Guletic..[২৯৭] Embreis Guletic is probably Emrys Gwledig.

উদ্ধৃতি সম্পাদনা

  1. Davies (1994) p. 100
  2. "রুডলানের সংবিধি"। Oxford Reference। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১৪ 
  3. "Laws in Wales Act 1535 (repealed 21.12.1993)"। legislation.gov.uk। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১৪ 
  4. "Welsh Language Act"। legislation.gov.uk। সংগ্রহের তারিখ ১১ সেপ্টেম্বর ২০২২ 
  5. "Government of Wales Act 1998"। legislation.gov.uk। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১৪ 
  6. "Population estimates for the UK, England and Wales, Scotland and Northern Ireland: mid-2020"। ২৫ জুন ২০২১। 
  7. "Phase one - Census 2021 first results"Census 2021 
  8. "Regional gross value added (balanced) per head and income components"। Office for National Statistics। ৩০ মে ২০২২। 
  9. Fenton, Trevor। "Regional gross value added (balanced) per head and income components"www.ons.gov.uk 
  10. "Regional gross domestic product and gross value added: 1998 to 2020" 
  11. "Sub-national HDI – Area Database – Global Data Lab"hdi.globaldatalab.org। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুলাই ২০২১ 
  12. Miller, Katherine L. (২০১৪)। "The Semantic Field of Slavery in Old English: Wealh, Esne, Þræl" (পিডিএফ) (Doctoral dissertation)। University of Leeds। সংগ্রহের তারিখ ৮ আগস্ট ২০১৯ 
  13. Davies (1994) p. 71
  14. Tolkien, J. R. R. (১৯৬৩)। Angles and Britons: O'Donnell Lectures। University of Wales Press। English and Welsh, an O'Donnell Lecture delivered at Oxford on 21 October 1955। 
  15. Rollason, David (২০০৩)। "Origins of a People"। Northumbria, 500–1100। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 60। আইএসবিএন 978-0-521-04102-7 
  16. Davies (1994) p. 69
  17. Lloyd, John Edward (১৯১১)। A History of Wales from the Earliest Times to the Edwardian Conquest (Note to Chapter VI, the Name "Cymry") (2nd সংস্করণ)। Longmans, Green, and Co. (প্রকাশিত হয় ১৯১২)। পৃষ্ঠা 191–192। 
  18. Phillimore, Egerton (১৮৯১)। "Note (a) to The Settlement of Brittany"Y CymmrodorHonourable Society of Cymmrodorion (প্রকাশিত হয় ১৮৯২)। পৃষ্ঠা 97–101। 
  19. Chambers 21st Century DictionaryChambers Dictionary (Revised সংস্করণ)। Allied Publishers। ২০০৮। পৃষ্ঠা 203। আইএসবিএন 978-81-8424-329-1 
  20. "Welsh skeleton re-dated: even older!"archaeology.co.uk website। Current Archaeology। ৬ নভেম্বর ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  21. Pollard, Joshua (২০০১)। "Wales' Hidden History, Hunter-Gatherer Communities in Wales: The Neolithic"। History of Wales, 25,000 BC AD 2000Tempus Publishing। পৃষ্ঠা 13–25। আইএসবিএন 978-0-7524-1983-1 
  22. Evans, Edith; Lewis, Richard (২০০৩)। "The Prehistoric Funerary and Ritual Monument Survey of Glamorgan and Gwent: Overviews. A Report for Cadw by Edith Evans BA PhD MIFA and Richard Lewis BA" (পিডিএফ): 4। সংগ্রহের তারিখ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০০৯ 
  23. Davies (1994) pp. 4–6
  24. "GGAT 72 Overviews" (পিডিএফ)A Report for Cadw by Edith Evans BA PhD MIFA and Richard Lewis BA। Glamorgan-Gwent Archaeological Trust। ২০০৩। পৃষ্ঠা 47। সংগ্রহের তারিখ ৩০ ডিসেম্বর ২০০৮ 
  25. "Parc le Breos Burial Chamber; Parc CWM Long Cairn"The Royal Commission on the Ancient and Historical Monuments of Wales website। Royal Commission on the Ancient and Historical Monuments of Wales। ২০০৬। ৬ এপ্রিল ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ অক্টোবর ২০০৮ 
  26. Koch, John (২০০৯)। "Tartessian: Celtic from the Southwest at the Dawn of History in Acta Palaeohispanica X Palaeohispanica 9 (2009)" (পিডিএফ)। Palaeohispanica: 339–351। আইএসএসএন 1578-5386। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মে ২০১০ 
  27. Koch, John T. (২০০৯)। "A CASE FOR TARTESSIAN AS A CELTIC LANGUAGE" (পিডিএফ) 
  28. Davies (1994) pp. 4–6
  29. "Who were the Celts?"Museum Wales (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৯-২৬ 
  30. Tacitus (১৯৪২)। Annals। Random House। পৃষ্ঠা 12:33–38 
  31. Tacitus, The Annals, translated by A. J. Woodman, 2004; see also Church & Brodribb's translation
  32. Jones, Barri; Mattingly, David (১৯৯০)। "The Development of the Provinces"। An Atlas of Roman Britain। Blackwell Publishers (প্রকাশিত হয় ২০০৭)। পৃষ্ঠা 151আইএসবিএন 978-1-84217-067-0 
  33. "RCAHMW Coflein: Caerwent Roman City; Venta Silurum"। সংগ্রহের তারিখ ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  34. Jones, Barri; Mattingly, David (১৯৯০)। "The Development of the Provinces"। An Atlas of Roman Britain। Blackwell Publishers (প্রকাশিত হয় ২০০৭)। পৃষ্ঠা 154আইএসবিএন 978-1-84217-067-0 
  35. Jones, Barri; Mattingly, David (১৯৯০)। "The Economy"। An Atlas of Roman Britain। Blackwell Publishers (প্রকাশিত হয় ২০০৭)। পৃষ্ঠা 179–196। আইএসবিএন 978-1-84217-067-0 
  36. Davies (2008) p. 915
  37. Davies (2008) p. 531
  38. Frere, Sheppard Sunderland (১৯৮৭)। "The End of Roman Britain"। Britannia: A History of Roman Britain (3rd, revised সংস্করণ)। Routledge & Kegan Paul। পৃষ্ঠা 354আইএসবিএন 978-0-7102-1215-3 
  39. "Pedigrees from Jesus College MS. 20"Y CymmrodorHonourable Society of Cymmrodorion। ১৮৮৭। পৃষ্ঠা 83–92। 
  40. Rachel Bromwich, editor and translator.
  41. Ravilious, Kate (২১ জুলাই ২০০৬)। "Ancient Britain Had Apartheid-Like Society, Study Suggests"। National Geographic News। ৪ জুন ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  42. Davies (1994) pp. 56
  43. Davies (1994) pp. 65–66
  44. Davies (2008) p. 926
  45. David Hill and Margaret Worthington, Offa's Dyke: history and guide, Tempus, 2003, আইএসবিএন ৯৭৮-০-৭৫২৪-১৯৫৮-৯
  46. Davies (2008) p. 911
  47. Charles-Edwards, T M (২০০১)। "Wales and Mercia, 613–918"। Mercia: an Anglo-Saxon kingdom in EuropeLeicester University Press। পৃষ্ঠা 104। আইএসবিএন 978-0-7185-0231-7। সংগ্রহের তারিখ ২৭ নভেম্বর ২০১০ 
  48. Hill, David (২০০১)। "Wales and Mercia, 613–918"। Mercia: an Anglo-Saxon kingdom in EuropeLeicester University Press। পৃষ্ঠা 176। আইএসবিএন 978-0-7185-0231-7। সংগ্রহের তারিখ ২৭ নভেম্বর ২০১০ 
  49. Davies (1994) p. 2
  50. Davies (2008) p. 714
  51. Davies (2008) p. 186
  52. "GRUFFUDD ap LLYWELYN (died 1063), king of Gwynedd and Powys, and after 1055 king of all Wales | Dictionary of Welsh Biography"biography.wales। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জানুয়ারি ২০২২ 
  53. K. L. Maund (১৯৯১)। Ireland, Wales, and England in the Eleventh Century। Boydell & Brewer Ltd। পৃষ্ঠা 216–। আইএসবিএন 978-0-85115-533-3 
  54. Maund, Kari The Welsh kings p.87-97
  55. Davies (1994) p. 128
  56. Maund, KL। Ireland, Wales, and England in the eleventh century 
  57. Davies (1994) p. 101
  58. Lieberman, Max (২০১০)। The Medieval March of Wales: The Creation and Perception of a Frontier, 1066–1283Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 6। আইএসবিএন 978-0-521-76978-5। সংগ্রহের তারিখ ৪ অক্টোবর ২০১০ 
  59. "Chapter 6: The Coming of the Normans"BBC Cymru Wales websiteBBC Cymru Wales। ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ৪ অক্টোবর ২০১০ 
  60. Davies (1994) pp. 133–134
  61. Davies (1994) pp. 143–144
  62. Davies (1994) pp. 151–152
  63. "Tribute to lost Welsh princess"BBC News। ১২ জুন ২০০০। সংগ্রহের তারিখ ৫ মার্চ ২০০৭ 
  64. Illustrated Encyclopedia of Britain। Reader's Digest। ১৯৯৯। পৃষ্ঠা 459। আইএসবিএন 978-0-276-42412-0 
  65. Davies (1994) p. 162
  66. Davies (2008) p. 711
  67. Davies (1994) p. 194
  68. Davies (1994) p. 203
  69. "RCAHMW: In the steps of Owain Glyndwr" 
  70. "Wales under the Tudors"। BBC। ৫ নভেম্বর ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ২১ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  71. Lieberman, Max (২০১০)। The Medieval March of Wales: The Creation and Perception of a Frontier, 1066–1283Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 4। আইএসবিএন 978-0-521-76978-5। সংগ্রহের তারিখ ৪ অক্টোবর ২০১০ 
  72. Davies (1994) p. 232
  73. "BBC Wales - History - Themes - Chapter 13: Society and politics in early modern Wales"www.bbc.co.uk। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৯-১৩ 
  74. Davies (2008) p. 392
  75. Davies (2008) p. 393
  76. Davies (2008) p. 818
  77. Attributed to historian A. H. Dodd: Davies (2008) p. 819
  78. "Wales – the first industrial nation of the World"Amgueddfa Cymru – National Museum Wales। ৫ অক্টোবর ২০০৮। ৩ অক্টোবর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  79. John, Arthur H. (১৯৮০)। Glamorgan County History, Volume V, Industrial Glamorgan from 1700 to 1970। University of Wales Press। পৃষ্ঠা 183। 
  80. Davies (2008) p. 284
  81. Davies (2008) p. 285
  82. Davies (2008) p. 461
  83. "David Lloyd George (1863–1945)"BBC Cymru Wales websiteBBC Cymru Wales। সংগ্রহের তারিখ ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  84. Davies (2008) p. 515
  85. Davies (2008) p. 439
  86. Morgan, Kenneth O. (১৯৮২)। Rebirth of a Nation: Wales 1880–1980। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 208–210আইএসবিএন 978-0-19-821760-2 
  87. Davies (2008) p. 918
  88. Davies (2008) p. 807
  89. "Disestablishment, Cymru Fydd and Plaid Cymru"National Library of Wales। llgc.org.uk। ৬ ডিসেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১০ 
  90. "Cymdeithas yr Iaith Gymraeg's first protest, 1963"Gathering the Jewels। gtj.org.uk। ১৮ জানুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১০ 
  91. "Wales on Air: The drowning of Tryweryn and Capel Celyn"BBc.co.uk। BBC। ৬ ডিসেম্বর ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১০ 
  92. "Flooding Apology"BBC website। BBC। ১৯ অক্টোবর ২০০৫। সংগ্রহের তারিখ ১৮ অক্টোবর ২০০৮ 
  93. Clews, Roy (১৯৮০)। To Dream of Freedom – The story of MAC and the Free Wales Army। Y Lolfa Cyf., Talybont। পৃষ্ঠা 15, 21 & 26–31। আইএসবিএন 978-0-86243-586-8 
  94. "Our history – Clywedog Dam, Wales −1967"Halcrow websiteHalcrow Group Ltd। ২০১১। ৩০ ডিসেম্বর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ জানুয়ারি ২০১২ 
  95. Gwynfor, Evans (২০০০)। The Fight for Welsh Freedom। Y Lolfa Cyf., Talybont। পৃষ্ঠা 152আইএসবিএন 978-0-86243-515-8 
  96. Davies (2008) p. 236
  97. Davies (2008) p. 237
  98. "The Constitution Series: 1 – Wales in the United Kingdom" (পিডিএফ)। National Assembly for Wales। জুলাই ২০১১। ২০ এপ্রিল ২০১৬ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ এপ্রিল ২০১৬ 
  99. Powys, Betsan (১২ জানুয়ারি ২০১০)। "The long Welsh walk to devolution"BBC News website। BBC। সংগ্রহের তারিখ ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  100. "Countries within a country"10 Downing Street website10 Downing Street। ১০ জানুয়ারি ২০০৩। ৯ সেপ্টেম্বর ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ নভেম্বর ২০১০The United Kingdom is made up of four countries: England, Scotland, Wales and Northern Ireland. 
  101. "Wales.com FAQs"Wales.com websiteWelsh Government। ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০১৫ 
  102. Bogdanor, Vernon (১৯৯৫)। The Monarchy and the Constitution। London: Oxford University Press। পৃষ্ঠা 52। আইএসবিএন 978-0-19-827769-9। সংগ্রহের তারিখ ৫ নভেম্বর ২০১০In his autobiography, the Duke of Windsor complained that, as Prince of Wales, there was 'no specific routine job in the sense, for example, that a vice-president has a job ... Though I was next in line to the Throne, with all that position implied, I actually possessed no formal state duties or responsibilities.' 'This constitutional vacuum', Jonathan Dimbleby, biographer of the Prince of Wales, has noted, 'was not an oversight, but documentary evidence of the peculiar position that the heir apparent occupies; there is no formal "role", except to wait.' 
  103. "StackPath"www.instituteforgovernment.org.uk। ১১ এপ্রিল ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জানুয়ারি ২০২২ 
  104. "English people living in Wales tilted it towards Brexit, research finds"The Guardian। ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জানুয়ারি ২০২২ 
  105. "History of devolution"senedd.wales (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-৩১ 
  106. Harries, Robert (৮ নভেম্বর ২০২০)। "The rise of Yes Cymru and why people are joining in their thousands"WalesOnline। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জানুয়ারি ২০২২ 
  107. "Westminster warned as poll shows record backing for Welsh independence"The Guardian। ৪ মার্চ ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জানুয়ারি ২০২২ 
  108. Davies, Janet (২০১৪)। The Welsh Language: A History (2 সংস্করণ)। University of Wales Press। পৃষ্ঠা 1, 4। আইএসবিএন 978-1-78316-019-8 
  109. Davies 2014
  110. "Welsh Language (Wales) Measure 2011 | Law Wales"law.gov.wales। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০২-০৩ 
  111. "First Welsh law 'for 600 years'"ITV News (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১২-১১-১২। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০২-০৩ 
  112. "The Countries of the UK"। statistics.gov.uk। সংগ্রহের তারিখ ২৬ নভেম্বর ২০২২ 
  113. Jones, Ciaran (৯ জুন ২০১৭)। "These are the 40 MPs who have been elected across Wales"Wales Online 
  114. "Powers"senedd.wales। সংগ্রহের তারিখ ২৭ মে ২০২২ 
  115. Part 1, Local Government (Wales) Act 1994
  116. "Local Authorities"Welsh Government। ৩০ মে ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  117. "About us"GOV.UK 
  118. "UK Parliament -Parliament's role"United Kingdom Parliament websiteUnited Kingdom Parliament। ২৯ জুন ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০০৯ 
  119. "The role of the Secretary of State for Wales" (পিডিএফ)Welsh Government websiteWelsh Government। ২০০৫। ৩ সেপ্টেম্বর ২০১১ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  120. "How the Assembly is elected"National Assembly for Wales websiteNational Assembly for Wales। ২০১০। ৯ জানুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ অক্টোবর ২০১০ 
  121. Birrell, Derek (২০১২)। Comparing Devolved GovernmentPalgrave Macmillan। পৃষ্ঠা 45। আইএসবিএন 978-0-230-38978-6 
  122. "Making laws for Wales"। National Assembly for Wales। ২০১০। ২২ সেপ্টেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ অক্টোবর ২০১০ 
  123. "Government of Wales Act 1998"The National Archives websiteHM Government। ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ৬ অক্টোবর ২০১০ 
  124. "Government of Wales Act 2006"The National Archives websiteHM Government। ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ৬ অক্টোবর ২০১০ 
  125. "Wales says Yes in referendum vote"। BBC। ৪ মার্চ ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ৩ নভেম্বর ২০১১ 
  126. "USA"। wales.com। ২৮ আগস্ট ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  127. "Congressional Friends of Wales Caucus Welcomes First Minister Carwyn Jones | Congressman Morgan Griffith"। Morgangriffith.house.gov। ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  128. "Welsh First Minister visits Washington and New York City"GOV.UK। সংগ্রহের তারিখ ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 
  129. "History and Development of the Welsh Language in the Courts"Her Majesty's Courts Service websiteHer Majesty's Courts Service। ১১ জুন ২০০৭। ৬ জুন ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ অক্টোবর ২০১০ 
  130. "History and Development of the Welsh Language in the Courts"Her Majesty's Courts Service websiteHer Majesty's Courts Service। ১১ জুন ২০০৭। ৬ জুন ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ অক্টোবর ২০১০ 
  131. Davies (1994) p. 225
  132. Davies (1994) p. 263
  133. Davies (2008) p. 453
  134. "Subordinate legislation"law.gov.wales। Welsh Government। ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। ১৯ জুন ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জুলাই ২০২০ 
  135. "Two of the four Welsh police forces 'require improvement' in the way they prevent and investigate crime"ITV News। ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  136. "MPs urge UK government to build north Wales prison"BBC News। ৩ মার্চ ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১০ 
  137. UK 2005 – The Official Yearbook of the United Kingdom of Great Britain and Northern Ireland (পিডিএফ)Office for National Statistics। ২০০৪। পৃষ্ঠা 2 & 30। আইএসবিএন 978-0-11-621738-7। সংগ্রহের তারিখ ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  138. "Geography: About Wales"Visit Wales websiteWelsh Government। ২০১০। ২৮ অক্টোবর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ অক্টোবর ২০১০ 
  139. "England and Wales"European Land Information Service। ২০ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ অক্টোবর ২০১০ 
  140. "Limits of Oceans and Seas, 3rd edition + corrections" (পিডিএফ)International Hydrographic Organization। ১৯৭১। পৃষ্ঠা 42 [corrections to page 13]। ৮ অক্টোবর ২০১১ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ ডিসেম্বর ২০২০ 
  141. Darkes, Giles (জানুয়ারি ২০০৮)। "How long is the UK coastline?"। The British Cartographic Society। ২২ মে ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ অক্টোবর ২০১৫ 
  142. "Discover Welsh islands with unique scenery, wildlife and heritage"। VisitWales। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০২০ 
  143. Glancey, Jonathan (২ আগস্ট ২০০৯)। "High tea: Mount Snowdon's magical mountaintop cafe"The Guardian। London। সংগ্রহের তারিখ ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  144. "Mountain upgraded to 'super' status"WalesOnline websiteMedia Wales Ltd। ২২ সেপ্টেম্বর ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  145. "The Welsh 3000s Challenge"। welsh3000s.co.uk। সংগ্রহের তারিখ ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  146. "Aran Fawddwy"। snowdoniaguide.com। সংগ্রহের তারিখ ২ অক্টোবর ২০১০ 
  147. Nuttall, John & Anne (1999).
  148. "Ordnance Survey"। সংগ্রহের তারিখ ৬ জুন ২০২০ 
  149. "Areas of Outstanding Natural Beauty"Welsh Government websiteWelsh Government। ২৫ জুন ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ অক্টোবর ২০১০ 
  150. Knapman, Joshua (১৪ মে ২০১৯)। "All of Wales' Blue Flag beaches in 2019"walesonline। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০২০ 
  151. Davies (2008) p.778
  152. "Stormy Weather"BBC North West Wales website। BBC। ২৮ এপ্রিল ২০০৬। ২৬ জানুয়ারি ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  153. Davies (2008) p.814
  154. "In detail: The Sea Empress disaster"BBC News website। BBC। ২০০০। সংগ্রহের তারিখ ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  155. Davies (2008) p. 75
  156. "The Cambrian Period of the Paleozoic Era: 542 to 488 Million Years Ago"palaeos.com। ১১ এপ্রিল ২০০২। ২৬ নভেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ অক্টোবর ২০১০ 
  157. Sedgwick, A. (১৮৫২)। "On the classification and nomenclature of the Lower Paleozoic rocks of England and Wales": 136–138। ডিওআই:10.1144/GSL.JGS.1852.008.01-02.20 
  158. "The Silurian: The Silurian Period of the Paleozoic Era: 444 to 416 Mya"palaeos.com। ১১ এপ্রিল ২০০২। ৯ মার্চ ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  159. "The Ordovician: The Ordovician Period of the Paleozoic Era: 488 to 444 million years ago"palaeos.com। ১১ এপ্রিল ২০০২। ৭ মার্চ ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  160. "National symbols of Wales"Wales (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৯-০৭-০৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৯-০৫ 
  161. "Met Office: Regional Climate: Wales"Met Office websiteMet Office। ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  162. Davies (2008) pp. 148–150
  163. Turner, Robert (২৬ জুলাই ২০১০)। "Soggiest city in Britain pays high price for rain"Media Wales Ltd। সংগ্রহের তারিখ ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  164. "Heatwave latest: Wales sees hottest day on record, provisional figures show"BBC News (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৭-১৮ 
  165. "Wales: climate"Met Office। ১৩ জানুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  166. "Met Office:Regional Climate: Wales"Met Office websiteMet Office। ২০০৯। ১৩ জানুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ অক্টোবর ২০০৯ 
  167. "Digital Archive of Extreme UK Rainfall Events" (পিডিএফ)। Hydro-GIS Ltd.। ১২ মার্চ ২০১২ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ অক্টোবর ২০১০ 
  168. Clark, Ross (২৮ অক্টোবর ২০০৬)। "The wetter, the better"The Independent। London। ২৮ জানুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ সেপ্টেম্বর ২০০৯ 
  169. Green, Mick (২০০৭)। "Wales Ring Ouzel Survey 2006" (পিডিএফ)। Ecology Matters Ltd.। ১১ মার্চ ২০১২ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  170. "Black ravens return to the roost"। BBC। ২৪ জানুয়ারি ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ৬ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  171. "Red kite voted Wales' Favourite Bird"Royal Society for the Protection of Birds। ১১ অক্টোবর ২০০৭। ২৩ আগস্ট ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  172. "About Conwy"। RSPB.org.uk। ১৬ এপ্রিল ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ৬ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  173. Davies (2008) p. 533
  174. "Pine marten spotted on Anglesey after 30 years"BBC News। ১২ জুলাই ২০২২। সংগ্রহের তারিখ ২ ডিসেম্বর ২০২২ 
  175. Vidal, John (১৩ নভেম্বর ২০০৬)। "Goats have roamed Snowdonia for 10,000 years; now they face secret cull"guardian.co.uk। London। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১১ 
  176. Grug, Mari (৩০ মার্চ ২০২১)। "Licensed beavers released in Wales for the first time"। BBC News। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মার্চ ২০২১ 
  177. Davies (1994) pp. 286–288
  178. Atlas of the British Flora। BSBI। ১৯৯০। পৃষ্ঠা 43। আইএসবিএন 978-0-901158-19-2 
  179. Davies (2008), pp. 233, 697; Day, Graham (২০০২)। Making sense of Wales। University of Wales Press। পৃষ্ঠা 87আইএসবিএন 978-0-7083-1771-6 
  180. Davies (2008), p. 233–234
  181. Barry, Mark (৪ জানুয়ারি ২০২১)। "The Environment, Tax and Wales"swalesmetroprof.blog। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জানুয়ারি ২০২১ 
  182. Lloyd, Dai (১৪ নভেম্বর ২০২০)। "Wales is not a global anomaly – it can be independent just like every other nation"। Nation Cymru। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জানুয়ারি ২০২১ 
  183. "Llywodraeth Cymru | Welsh Government"gov.wales। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  184. "Shortfall in public finances in Wales due to lower revenues, report finds"Cardiff University। ২ জুলাই ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২৩ এপ্রিল ২০২০ 
  185. Energy Generation in Wales 2019 (পিডিএফ)। Regen; Welsh Government 
  186. Duggan, Craig (২ মার্চ ২০২১)। "Climate change: Private hydropower schemes 'on cliff edge'"। BBC News। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০২১ 
  187. Barry, Mark (৭ জানুয়ারি ২০২০)। "Wales and HS2…"Mark Barry। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জানুয়ারি ২০২১ 
  188. "IISS Military Balance 2020"। International Institute for Strategic Studies। ৩ আগস্ট ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ এপ্রিল ২০২৩ 
  189. "South Wales coalfield timeline"। University of Wales Swansea। ২০০২। সংগ্রহের তারিখ ১১ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  190. "Coal Exchange to 'stock exchange'"BBC News website। BBC। ২৬ এপ্রিল ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ১১ অক্টোবর ২০০৮ 
  191. Williams, Phil (সেপ্টেম্বর ২০০৩)। The psychology of distance: Wales: one nation। Papurau Gregynog। Institute of Welsh Affairs (প্রকাশিত হয় ২০০৩)। পৃষ্ঠা 31। আইএসবিএন 978-1-86057-066-7 
  192. Massey, Glenn (আগস্ট ২০০৯)। "Review of International Business Wales" (পিডিএফ)Welsh Government। পৃষ্ঠা 10। ৪ ডিসেম্বর ২০০৯ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  193. "A Review of Local Economic and Employment Development Policy Approaches in OECD Countries" (পিডিএফ)OECD Local Economic and Employment Development (LEED) Programme। OECD। পৃষ্ঠা 8। ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১১ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  194. "Wales A Vibrant Economy" (পিডিএফ)Welsh Government। ২০০৫। পৃষ্ঠা 12, 22, 40, 42। ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১০ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ অক্টোবর ২০১০ 
  195. "Area of agricultural land, by type of crop and grass (Thousand Hectares)"StatsWales। ৩ মার্চ ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ অক্টোবর ২০১০ 
  196. "Tourism hope over record 45 beach flags in Wales"BBC News website। BBC। ১১ মে ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ৭ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  197. "Welsh Government | Written – Wales – the world's first 'Fair Trade Nation'"Welsh Government websiteWelsh Government। ৬ জুন ২০০৮। ২২ জানুয়ারি ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুন ২০১০ 
  198. Carradice, Phil। "The collapse of the Welsh banks"BBC Cymru Wales website। BBC। সংগ্রহের তারিখ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  199. "Commercial Bank of Wales, Carmarthen Branch, Papers"। Archives Wales। ১৬ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  200. "www.royalmint.gov.uk"Royal Mint websiteRoyal Mint। ২০১০। ১২ অক্টোবর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  201. "The New Designs Revealed"Royal Mint websiteRoyal Mint। ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১২। ২২ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ অক্টোবর ২০০৮ 
  202. "Covid-19 impact on the Tourism and Hospitality Sector, an insight from the latest Economic Commentary"। University of Strathclyde। ১৮ মার্চ ২০২১। ... health and economic crisis ... In particular, tourism and hospitality suffered notable losses from the pandemic. 
  203. "Travel to the UK during Covid-19: What you need to know before you go"। CNN। সংগ্রহের তারিখ ৮ এপ্রিল ২০২১It is too early to say which countries will be on the green list when non-essential international travel resumes 
  204. "Covid lockdown eases: Celebrations as pub gardens and shops reopen"। BBC News। ১৩ এপ্রিল ২০২১। 
  205. "Responsibilities of the Minister for Economy, Transport and North Wales"। Welsh Government। ২১ জুলাই ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুলাই ২০২০ 
  206. "One of the most important roads in Wales"। Roads.org.uk। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুলাই ২০২০ 
  207. Owen, Cathy (৬ জুন ২০১৪)। "The A470 is Britain's favourite road"। Wales Online। 
  208. "Transport for Wales – Design of Wales and Borders Rail Service Including Metro" (পিডিএফ)। Welsh Government। ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জুলাই ২০২০ 
  209. "Ferry connections"। Transport for Wales। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুলাই ২০২০ 
  210. Barry, Sion (১৯ মার্চ ২০২০)। "Final bill for electrifying the Great Western Mainline from South Wales to London £2bn over original budget"। Business Live। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুলাই ২০২০ 
  211. Crump, Eryl (২০২০-০৩-২১)। "Campaigners want these two railway lines reopened to link North and South Wales"North Wales Live (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১০-৩১ 
  212. "Plan to outline rail link between the south of Wales and Aberystwyth by 2027"Nation.Cymru (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২২-০৭-২১। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১০-৩১ 
  213. "New Welsh Government rail map raises campaigners' hope for a north-south railway"Nation.Cymru (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২১-০৯-১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১০-৩১ 
  214. Harding, Nick (১১ মার্চ ২০১৭)। "Eastern Airways take over Cardiff to Anglesey route"UK Aviation News। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জুলাই ২০২০ 
  215. "Cardiff Airport-Destinations"। Cardiff Airport – maes awyr caerdydd। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুলাই ২০২০ 
  216. "Revived Swansea-Cork ferry service sets sail"BBC News website। BBC। ১০ মার্চ ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুন ২০১০ 
  217. Davies (2008) p. 238
  218. Davies (2008) p. 239
  219. "The Welsh language in 19th century education"BBC Cymru Wales history websiteBBC Cymru Wales। ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ২৪ নভেম্বর ২০১০ 
  220. Fitz, John (২০০১)। Local identity and national systems: the case of WalesEthnicity, race, and nationality in education: a global perspective। Lawrence Erlbaum Associates, Inc.। পৃষ্ঠা 248। আইএসবিএন 978-0-8058-3837-4। সংগ্রহের তারিখ ২৪ নভেম্বর ২০১০ 
  221. Davies (1994) pp. 378–381
  222. Davies (2008) p. 240
  223. Jones, Megan। "Welsh-medium education and Welsh as a subject" (পিডিএফ)National Assembly for Wales। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  224. "Schools by local authority, region and type of school"statswales.gov.wales। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১১-০৬ 
  225. "Pupils by Assembly constituency and sector"statswales.gov.wales। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-০৩ 
  226. "Full-time equivalent teachers by Assembly constituency and category"statswales.gov.wales। ২০২২-১২-০৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-০৩ 
  227. "health in Wales – 1960s"NHS Wales websiteNHS Wales। ২৩ অক্টোবর ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ৮ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  228. "Edwina Hart MBE AM"Welsh Government websiteWelsh Government। ১৩ জানুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  229. Davies (2008), p.361
  230. "Staff directly employed by the NHS: as at 30 June 2022"GOV.WALES (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-০৩ 
  231. "Adult general health and illness - additional variables, 2020-21 onwards"statswales.gov.wales। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০১-০১ 
  232. "Adult general health and illness (National survey for Wales): April 2021 to March 2022"GOV.WALES (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০১-০১ 
  233. "Adult lifestyles – additional variables, 2020-21 onwards"statswales.gov.wales। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০১-০১ 
  234. "Adult lifestyle (National Survey for Wales): April 2021 to March 2022"GOV.WALES (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০১-০১ 
  235. Brian R. Mitchell and Phyllis Deane, Abstract of British Historical Statistics (Cambridge, 1962) pp 20, 22
  236. "Industrial Revolution"। BBC। সংগ্রহের তারিখ ১৭ অক্টোবর ২০০৯ 
  237. "BBC Wales – History – Themes – Italian immigration"। BBC। সংগ্রহের তারিখ ১৭ অক্টোবর ২০০৯ 
  238. "Socialist Unity | Debate & analysis for activists & trade unionists"। ১৮ অক্টোবর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ অক্টোবর ২০১৬ 
  239. "Wales's Population: A Demographic Overview 1971–2005" (পিডিএফ)New.wales.gov.uk। ১৯ জুলাই ২০০৮ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০১৭ 
  240. "2011 Census: Population Estimates for the United Kingdom, 27 March 2011" (পিডিএফ)। Office for National Statistics। ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১৯ ডিসেম্বর ২০১২ 
  241. "This is Wales: Cities in Wales"। ১৯ জুন ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০২০ 
  242. "Record number of city status winners announced to celebrate Platinum Jubilee"GOV.UK (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৬-২৮ 
  243. টেমপ্লেট:United Kingdom district population citation
  244. "Welsh Language (Wales) Measure 2011"legislation.gov.ukThe National ArchivesThe Welsh language has official status in Wales. 
  245. "Official Languages Scheme" (পিডিএফ)Senedd.Wales 
  246. Results of the 2001 Census: Country of birth (www.statistics.gov.uk)
  247. "Results of the 2001 Census from www.statistics.gov.uk" 
  248. "Welsh Government | 2011 Census: First Results on the Welsh Language"। ৭ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  249. "Welsh language in Wales (Census 2021)"GOV.WALES (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-০৬ 
  250. "Welsh language data from the Annual Population Survey: July 2021 to June 2022"GOV.WALES (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১০-২৮ 
  251. Davies (2008) p. 262
  252. Davies (1994) p. 623; Hill, Claire (২ অক্টোবর ২০০৬)। "Why butty rarely leaves Wales"WalesOnline websiteMedia Wales Ltd। সংগ্রহের তারিখ ১৫ নভেম্বর ২০১০ 
  253. Davies (2008) p. 940
  254. "What do the 2021 Census results tell us so far?"research.senedd.wales (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০১-০১ 
  255. "Ethnic group, national identity, language and religion in Wales (Census 2021)"GOV.WALES (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১১-২৯ 
  256. "Faith in Wales, Counting for Communities" (পিডিএফ)। ২০০৮। পৃষ্ঠা 21। ২৪ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  257. "Glamorgan Archives, Glamorgan Presbyterian Church Marriage registers"। Archives Wales। ২৭ এপ্রিল ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  258. "Catholic Encyclopedia: St. David"। Newadvent.org। সংগ্রহের তারিখ ২২ মে ২০১৫ 
  259. Davies (2008), p. 739
  260. "Evan Roberts (1878–1951)"National Library of Wales। ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ৩ ডিসেম্বর ২০২২ 
  261. "Statistical bulletin: 2011 Census: Key Statistics for Wales, March 2011"। Office for National Statistics। ১১ ডিসেম্বর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১১ ডিসেম্বর ২০১২ 
  262. "Religion in Britain"। diversiton.com। ২৪ এপ্রিল ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  263. "History of religion: Multicultural Wales"। BBC। ১৫ জুন ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুন ২০১০ 
  264. Prior, Neil (২০ জুলাই ২০১৯)। "Recording Wales' disappearing Jewish history"। সংগ্রহের তারিখ ১৯ নভেম্বর ২০১৯ 
  265. "Ethnic group, national identity, language and religion in Wales (Census 2021)"GOV.WALES (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-০২ 
  266. "Ethnic group, national identity, language and religion in Wales (Census 2021)"GOV.WALES (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১১-৩০ 
  267. "National identity by year and identity"statswales.gov.wales। ২০১৮-০৮-১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১১-২২ 
  268. "YouGov / The Sunday Times Survey Results" (পিডিএফ)YouGov 
  269. Centre, UNESCO World Heritage। "UNESCO World Heritage Centre - World Heritage List"UNESCO World Heritage Centre (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৬-২৮ 
  270. Snyder, Christopher Allen (২০০৩)। The BritonsWiley-Blackwell। পৃষ্ঠা 258–261। আইএসবিএন 978-0-631-22260-6। সংগ্রহের তারিখ ২৬ নভেম্বর ২০১০ 
  271. Davies (2008) p. 525
  272. Ford, Patrick K (২০০৮)। The Mabinogi and Other Medieval Welsh Tales (2nd সংস্করণ)। University of California Press। পৃষ্ঠা 183। আইএসবিএন 978-0-520-25396-4। সংগ্রহের তারিখ ২৬ নভেম্বর ২০১০ 
  273. Koch, John Thomas (২০০৬)। Celtic culture: a historical encyclopediaABC-CLIO। পৃষ্ঠা 925–927। আইএসবিএন 978-1-85109-440-0। সংগ্রহের তারিখ ২৬ নভেম্বর ২০১০ 
  274. Davies (2008) p. 464
  275. Davies (2008) pp. 688–689
  276. Davies (2008) p. 191
  277. Davies (2008) p. 465
  278. Davies (2008) p. 466
  279. Williams, David (১৯৬১)। A Short History of Modern Wales। John Murray। পৃষ্ঠা 121। 
  280. Davies (2008) p. 861
  281. The Pocket Guide, p. 122.
  282. Los Angeles Times, "Obituary", 27 September 2000
  283. Emyr Humphreys: Conversations and Reflections, ed.
  284. Maurice Cowling (১ ফেব্রুয়ারি ১৯৯০)। "Raymond Williams in retrospect"। New Criterion। সংগ্রহের তারিখ ৩ মে ২০২০ 
  285. Davies (2008) p. 597
  286. Davies (2008) p. 594
  287. "Celtic Art in Iron Age Wales, NMOW"Amgueddfa Cymru – National Museum Wales। সংগ্রহের তারিখ ৯ মে ২০২০ 
  288. Moody, Theodore William; Cróinín, Dáibhí Ó (২০০৫)। A New History of Ireland: Prehistoric and early IrelandOxford University Press। পৃষ্ঠা 540। আইএসবিএন 978-0-19-821737-4। সংগ্রহের তারিখ ২১ নভেম্বর ২০১০ 
  289. "NMOW, Art in 18th Century Britain"Amgueddfa Cymru – National Museum Wales। ২৫ জানুয়ারি ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ জুন ২০১০ 
  290. "Royal Cambrian Academy"Royal Cambrian Academy of Art। ২৩ মে ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুন ২০১০ 
  291. "Charles Davenport Lockwood 1877–1949"। stamfordhistory.org। সংগ্রহের তারিখ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  292. "I am the king of painters"The Guardian। London। ১৬ নভেম্বর ২০০১। সংগ্রহের তারিখ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  293. "Dylan Thomas and the Kardomah set"The Independent। ১১ ফেব্রুয়ারি ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জুলাই ২০২০ 
  294. Davies (2008) pp. 701–702
  295. Cooper, Emmanuel (২৮ জানুয়ারি ২০০৮)। "Obituary-Susan Williams-Ellis"The Guardian website। London। সংগ্রহের তারিখ ২৯ নভেম্বর ২০১০ 
  296. "National symbols of Wales"Wales (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৯-০৭-০৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৯-০৬ 
  297. Historia Brittonum। 42। সংগ্রহের তারিখ ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ 
  298. Historia Brittonum by Nennius (translated by J.A.Giles)
  299. "Wales history: Why is the red dragon on the Welsh flag?"BBC News (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৯-০৭-০৬। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৯-০৬ 
  300. Bergsagel, John; Riis, Thomas (২০১৫-১২-০৯)। Of Chronicles and Kings: National Saints and the Emergence of Nation States in the High Middle Ages (ইংরেজি ভাষায়)। Museum Tusculanum Press। পৃষ্ঠা 307। আইএসবিএন 978-87-635-4260-9 
  301. Mosalski, Ruth (২০২২-০২-১৫)। "10,000 want St David's Day to be a bank holiday but UK gov says no"WalesOnline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০২-২২ 
  302. "Poll backs St David's Day holiday" (ইংরেজি ভাষায়)। ২০০৬-০৩-০১। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০২-২২ 
  303. "Should patron saint's days be bank holidays? | YouGov"yougov.co.uk (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০২-২৩ 
  304. "St David's Day"Museum Wales (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-০২ 
  305. Davies (2008) p. 189
  306. WalesOnline (২০০৪-০৯-১৫)। "Flying the flag to remember Glyndwr"WalesOnline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৮-১২ 
  307. "BBC Wales - History - Themes - Welsh flag: Banner of Owain Glyndwr"www.bbc.co.uk। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৭-২৯ 
  308. "Calls for 'Glyndwr Day' on anniversary"। BBC News। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৯-২০ 
  309. "Glyndŵr Day is worthy of a new national holiday"The National Wales (ইংরেজি ভাষায়)। ২ ডিসেম্বর ২০২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৯-১৫ 
  310. "Welsh National Anthem: History: About Wales"Visit Wales websiteWelsh Government। ২০১০। ১ জানুয়ারি ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ অক্টোবর ২০১০ 
  311. "Cymru am byth! The meaning behind the Welsh motto"WalesOnline। ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২২ মার্চ ২০১৬ 
  312. "BBC - Wales - History - Themes - Welsh Flag: An official emblem"www.bbc.co.uk। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৯-০৬ 
  313. "Union Jack"। ৯ মে ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০১৮ 
  314. "Acts of Union: Uniting the United Kingdom | Britannica"www.britannica.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৯-১৫ 
  315. Deacon, Thomas (২০১৮-০৯-১২)। "Why Wales isn't represented on the Union Jack"WalesOnline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৯-১৫ 
  316. Williams, Nino (২০১৮-১১-২৫)। "The uncomfortable truth about the three feathers symbol embraced by Wales"WalesOnline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৮-১২ 
  317. Burson, Sam (২ মার্চ ২০০৭)। "Stop using my Three Feathers"Western Mail। Cardiff: Media Wales Ltd। সংগ্রহের তারিখ ১১ নভেম্বর ২০১০ 
  318. "NGB websites: About us: Sport Wales – Chwaraeon Cymru"Sport Wales websiteSport Wales। ২০১০। ১০ মার্চ ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ নভেম্বর ২০১০ 
  319. "How Wales became a magnet for major sports events"BBC Sport। BBC। ১ জুলাই ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৫ 
  320. "1958 British Empire and Commonwealth Games"। Commonwealth Games Federation। ১৪ এপ্রিল ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৫ 
  321. "Highlights: Juventus 1–4 Real Madrid"। ITV plc। ৩ জুন ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুন ২০১৭ 
  322. Davies (2008) p. 782
  323. "Questions facing Wales' regional plans"BBC Sport website। BBC। ৩ এপ্রিল ২০০৩। সংগ্রহের তারিখ ২ অক্টোবর ২০১০ 
  324. "Pro14 Clubs"। ১৩ আগস্ট ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ এপ্রিল ২০২০ 
  325. "Heineken Champions Cup"। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০২০ 
  326. Nick Verier (১০ এপ্রিল ২০১৪)। "European Rugby Statement"। The Rugby Paper। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০২০ 
  327. Lush, Peter; Farrar, Dave (১৯৯৮)। Tries in the Valley: A History of Rugby League in Wales। London League Publications। পৃষ্ঠা 19আইএসবিএন 978-0-9526064-3-7 
  328. Evans, Alun। "A Brief History of the League"। Welsh Premier League। ২০ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ নভেম্বর ২০১০ 
  329. "The Cardiff and Swansea Derby"BBC Cymru Wales website। BBC। ৫ নভেম্বর ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ২৩ নভেম্বর ২০১০ 
  330. "Gareth Bale: Ryan Giggs says winger can be Wales' greatest"BBC Sport। BBC। ১৩ অক্টোবর ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৫ 
  331. "UEFA 2016" (পিডিএফ)। সংগ্রহের তারিখ ৩০ এপ্রিল ২০২০ 
  332. "What we do at the ECB"England and Wales Cricket Board। ২৪ জুন ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ নভেম্বর ২০১০ 
  333. "History of Welsh county cricket"Glamorgan Cricket। ২৮ মার্চ ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ নভেম্বর ২০১০ 
  334. "Snooker"BBC Wales south east। BBC। সংগ্রহের তারিখ ২৩ নভেম্বর ২০১০ 
  335. "Colin Jackson, Record breaking 110m hurdler"BBC Wales south east। BBC। ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ২৩ নভেম্বর ২০১০ 
  336. "Nicole Cooke Retires"। Cardiff Ajax Cycling Club। ১৫ জানুয়ারি ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ 
  337. "Geraint Thomas seals maiden Tour de France title with Paris procession"Guardian। ২৯ জুলাই ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জুলাই ২০১৮ 
  338. "Joe Calzaghe, Wales's greatest ever boxer?"BBC Wales south east। BBC। সংগ্রহের তারিখ ২৩ নভেম্বর ২০১০ 
  339. Davies, Sean (২৫ মার্চ ২০০৮)। "Wales' boxing world champions"BBC Sport website। BBC। সংগ্রহের তারিখ ২৩ নভেম্বর ২০১০ 
  340. Crowd Yells Fury as Louis Gets the Verdict Daily News, 31 August 1937, at Trove
  341. Turner, Helen (১ এপ্রিল ২০১০)। "Celebration for UK's first digital country"WalesOnline websiteMedia Wales Ltd। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১০ 
  342. "About BBC Cymru Wales"BBC website। BBC। ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  343. "About the BBC"www.bbc.co.uk। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০২০ 
  344. "Bafta TV award nominees announced"WalesOnline websiteMedia Wales Ltd। ১৮ মার্চ ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  345. "ITV begins broadcasting from new Wales HQ in Cardiff Bay"ITV News। ৩০ জুন ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০২০ 
  346. ap Dyfrig, Rhodri; Jones, George (২০০৬)। "The Welsh Language in the Media" (পিডিএফ)Mercator Institute for Media, Languages and CultureAberystwyth University। পৃষ্ঠা 13–14। ১১ জুন ২০১১ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১০ 
  347. ap Dyfrig, Rhodri; Jones, George (২০০৬)। "The Welsh Language in the Media" (পিডিএফ)Mercator Institute for Media, Languages and CultureAberystwyth University। পৃষ্ঠা 16–18। ১১ জুন ২০১১ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১০ 
  348. "Concern over newspapers' decline in Wales"BBC News website। BBC। ২৮ আগস্ট ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১০ 
  349. Fairclough, Steven (১ মার্চ ২০২১)। "The National: New online news service launches in Wales"। BBC News। সংগ্রহের তারিখ ১ মার্চ ২০২১ 
  350. ap Dyfrig, Rhodri; Jones, George (২০০৬)। "The Welsh Language in the Media" (পিডিএফ)Mercator Institute for Media, Languages and CultureAberystwyth University। পৃষ্ঠা 22–23। ১১ জুন ২০১১ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১০ 
  351. Luft, Oliver (১২ নভেম্বর ২০১০)। "Wales on Sunday to unveil redesign this weekend"Press Gazette websitePress Gazette। ১৬ জুন ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১০ 
  352. Jones, Alun Ffred AC/AM (৪ মার্চ ২০১০)। "Remit letter for the Welsh Books Council 2010–11" (পিডিএফ)Welsh Government। ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১১ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১০ 
  353. "What is the Welsh Books Council?"Welsh Books Council websiteWelsh Books Council। ২০০৯। ৩ জুলাই ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১০ 
  354. ap Dyfrig, Rhodri; Jones, George (২০০৬)। "The Welsh Language in the Media" (পিডিএফ)Mercator Institute for Media, Languages and CultureAberystwyth University। পৃষ্ঠা 34। ১১ জুন ২০১১ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১০ 
  355. "Y Fasnach Lyfrau Ar-Lein – Welsh Book Trade Info"Welsh Books Council websiteWelsh Books Council। ২২ নভেম্বর ২০১০। ১ অক্টোবর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১০ 
  356. "Phone fault hits Welsh magazine"BBC News website। BBC। ২৪ অক্টোবর ২০০৫। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১০ 
  357. "About"Poetry Wales websitePoetry Wales। ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১০ 
  358. Ross, Cai। "Top 10 foods to try in Wales"BBC Good Food। BBC। সংগ্রহের তারিখ ৮ আগস্ট ২০২০ 
  359. Turner, Robin (৩ নভেম্বর ২০০৪)। "laverbread"WalesOnline websiteMedia Wales Ltd। সংগ্রহের তারিখ ২৭ নভেম্বর ২০১০ 
  360. Davies (2008) p.293
  361. Britannica 
  362. "Welsh Folk Song Society"। canugwerin.com। ৪ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ জানুয়ারি ২০১৫ 
  363. Davies (2008) pp. 179, 281, 353, 677
  364. Davies (2008), p. 532.
  365. Jenkins, Geraint H. (২০০৭)। A Concise History of Wales (ইংরেজি ভাষায়)। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 209। আইএসবিএন 978-0-521-82367-8 
  366. "Music Preview: National Youth Orchestra of Wales"WalesOnline websiteMedia Wales Ltd। ৩ আগস্ট ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  367. "Wales' finest: 15 of the best Welsh musicians"। Classic FM। সংগ্রহের তারিখ ৮ আগস্ট ২০২০ 
  368. Heatley, Michael (এপ্রিল ২০১৭)। "Badfinger: bad breaks, dumb luck and sheer tragedy"। Classic Rock Magazine। সংগ্রহের তারিখ ৮ আগস্ট ২০২০ 
  369. "Manic Street Preachers"www.bbc.co.uk। BBC। সংগ্রহের তারিখ ৮ আগস্ট ২০২০ 
  370. "The best Welsh bands of all time"। Radio X। সংগ্রহের তারিখ ৮ আগস্ট ২০২০ 
  371. Aaron, Martin (২৪ অক্টোবর ২০১৩)। "Ten of the best: A history of Welsh folk music tradition"BBC News। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুলাই ২০২০ 
  372. "AFI's 100 Years... 100 Heroes and Villains" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৪ মার্চ ২০১৬ তারিখে.
  373. Davies (2008) p. 222
  374. Davies (2008) p. 223
  375. Davies (2008) p. 192
  376. Davies (2008) p. 224
  377. "Actor Sir Anthony Hopkins inspires students at old college"BBC News। ৫ অক্টোবর ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ৪ নভেম্বর ২০২০ 
  378. Price, Karen (২২ জানুয়ারি ২০১০)। "Movers and shakers revitalising our arts – Cont."WalesOnline websiteMedia Wales Ltd। সংগ্রহের তারিখ ২৭ নভেম্বর ২০১০ 
  379. "Why so funny? – The top 10 Welsh comedians"WalesOnline websiteMedia Wales Ltd। ১৮ এপ্রিল ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  380. Davies (2008) p. 193
  381. Smith, Mike (২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৩)। "30th birthday celebrations for National Dance Company Wales"। walesonline.co.uk। সংগ্রহের তারিখ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ 
  382. "The forgotten festivals of Wales"Amgueddfa Cymru – National Museum Wales websiteAmgueddfa Cymru – National Museum Wales। ৭ সেপ্টেম্বর ২০০৭। ২২ জানুয়ারি ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ অক্টোবর ২০১০ 
  383. Robin Gwyndaf, Margaret Dorothy Jones (১৯৮৯)। Welsh Folk Tales / Chwedlau gwerin Cymru। Welsh Folk Museum। পৃষ্ঠা 47। 
  384. "St. Dwynwen's Day-Diwrnod Santes Dwynwen January 25th"Amgueddfa Cymru – National Museum Wales websiteAmgueddfa Cymru – National Museum Wales। ৬ মে ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ২৯ নভেম্বর ২০১০ 
  385. Wood, Hilaire (২০০০)। "Welsh Customs for Calan Haf"Celtic Well। applewarrior.com। Archived from the original on ২৫ অক্টোবর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ৩ অক্টোবর ২০১০ 

সাধারণ সূত্র সম্পাদনা

বহিঃসংযোগ সম্পাদনা

টেমপ্লেট:Wales topics