জার্মানীর একটি চারনভূমিতে গবাদিপশু

মাংস, ডিম, দুধ, পশম, চামড়া এবং দুগ্ধ ও পশমজাত পণ্য উৎপাদনের জন্য কৃষিক্ষেত্রে গৃহপালিত প্রাণীকে প্রাণিসম্পদ হিসাবে সংজ্ঞায়িত করা হয়। যেমন গবাদি পশু এবং ছাগল[১]। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ঘোড়া প্রাণিসম্পদ হিসাবে বিবেচিত হয়[২]। যুক্তরাষ্ট্রের প্রাণীসম্পদ মন্ত্রনালয়ের মতে শুকরের মাংস, গরুর মাংস এবং মেষ শাবককে প্রাণিসম্পদ হিসাবে এবং সমস্ত প্রাণিসম্পদকে লাল মাংস হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়েছে। বিশ্বের প্রায় সব দেশেই জনগনের খাদ্যাভ্যাসের উপর নির্ভর করে কিছু প্রাণিকে প্রাণীসম্পদ হিসাবে গন্য করা হয়। তবে মুরগি এবং মাছ এ বিভাগে অন্তর্ভুক্ত নয়[৩]

গৃহপালিত পশুর বংশবৃদ্ধি, রক্ষণাবেক্ষণ এবং প্রয়োজনে আহার হিসাবে গ্রহন আধুনিক কৃষির একটি উপাদান, যা মানুষের শিকারী জীবনধারা থেকে মানবিকতার কৃষিতে রূপান্তরিত হওয়ার পর থেকে বহু সংস্কৃতিতে প্রচলিত ছিল। দীর্ঘ সময়কাল জুড়ে পশুপালন পদ্ধতি এবং এই সংস্কৃতি বিভিন্নভাবে পরিবর্তিত হয়েছে এবং অসংখ্য সম্প্রদায়ে এটি একটি বড় অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক ভূমিকা পালন করে চলেছে।

অধিক অর্থনৈতিক লভ্যাংশের ফলে প্রাণিসম্পদ চাষের হার ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এমনকি আধুনিক পদ্ধতিতে বানিজ্যিকভাবে গরু, ছাগলসহ অন্যান্য গবাদি পশুর খামার গড়ে উঠছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মত উন্নত দেশে ৯৯ শতাংশের বেশি প্রাণিসম্পদ এভাবেই উত্থাপিত হয়েছে[৪]। বানিজ্যিক উপায়ে গড়ে ওঠা গবাদি পশুর খামার অর্থনৈতিকভাবে উপকৃত করলেও নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে পরিবেশ এবং জনস্বাস্থ্যের উপর[৫]।  

শব্দতত্ত্বসম্পাদনা

সর্বপ্রথম ১৬৫০ থেকে ১৬৬০ সনের মধ্যে একটি প্রাণী হিসাবে প্রাণিসম্পদ ব্যবহৃত হয়েছিল[৬]। কখনো গবাদি পশু কিংবা গৃহপালিত পশু নামেও প্রাণিসম্পদকে সূচিত করা হয়।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি ফেডারেল আইন নির্দিষ্ট কৃষি পণ্যকে কোনো কর্মসূচী বা ক্রিয়াকলাপের জন্য যোগ্য বা অযোগ্য করার শর্তটিকে সংজ্ঞায়িত করে। উদাহরণস্বরূপ, ১৯৯৯ সালের প্রাণীসম্পদ আইন (পিএল ১০৬–৭৮, শিরোনাম ৯) এ কেবলমাত্র গবাদি পশু এবং ভেড়াকে হিসাবে প্রাণিসম্পদ সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে, ১৯৮৮ সালে দুর্যোগ সহায়তার আইনটিতে এই শব্দটিকে "গবাদি পশু, ভেড়া, ছাগল, হাঁস, মুরগি হিসাবে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে (ডিম উৎপাদনকারী হাঁস-মুরগী ​​সহ), খাবারের জন্য বা খাবারের উৎপাদনে ব্যবহৃত ঘোড়া, খাবারের জন্য ব্যবহৃত মাছ এবং সচিব কর্তৃক মনোনীত অন্যান্য প্রাণী[৭]

তবে পৃথিবীর অনেক দেশেই মানুষের আচরনের দ্বারা বা যেকোনো উপায়ে মৃত প্রাণী থেকে মাংস বিক্রি বা প্রক্রিয়াজাত করা অবৈধ[৮]

ইতিহাসসম্পাদনা

মানব সভ্যতার শিকারি জীবনধারা থেকে কৃষিজ সম্প্রদায়গুলিতে সাংস্কৃতিক উত্তরণের সময় পশুপালন শুরু হয়েছিল। কোনো প্রাণী যখন তাদের বংশবৃদ্ধি এবং জীবনযাপনের পরিস্থিতি মানুষের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয় তখন তা গৃহপালিত পশু। সময়ের সাথে, প্রাণিসম্পদের সম্মিলিত আচরণ, জীবনচক্র এবং শারীরবৃত্তিতে আমূল পরিবর্তন হয়েছে।

কুকুর সর্বপ্রথম গৃহপালিত পশু। প্রায় ১৫,০০০ বছর আগে ইউরোপ এবং সুদূর প্রাচ্যে গৃহপালিত পশু হিসাবে কুকুর দেখা গিয়েছে[৯]। দক্ষিণ-পশ্চিম এশিয়ায় ১১,০০০ থেকে ৫,০০০ বছর পূর্বে গৃহপালিত পশু হিসাবে ছাগল ও ভেড়ার অস্তিত্ব পাওয়া গিয়েছে[১০]। খ্রিস্টপূর্ব ৮,৫০০ এর ও পূর্বে শূকর এবং খ্রিস্টপূর্ব ৬,০০০ এর সময় চীনে গৃহপালিত পশু ছিল [১১]। গৃহপালিত পশু হিসেবে ঘোড়ার অন্তুর্ভূক্তিকরণ হয় খ্রিস্টপূর্ব ৪,০০০ সনে[১২]। মুরগি এবং অন্যান্য পোল্ট্রি প্রাণী খ্রিস্টপূর্ব ৭,০০০ সালের দিকে পোষা শুরু হতে পারে[১৩]

প্রকারভেদসম্পাদনা

প্রাণিসম্পদ বলতে দরকারী বা বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে রাখে এমন জাত বা প্রজাতির বা একটি প্রাণীকে বোঝায়। নিন্মে বিশ্বজুড়ে গৃহপালিদ কয়েকটি পশুর নাম এবং তাদের উত্থান সম্বন্ধে উল্লেখ করা হলঃ

প্রানী পূর্ব পুরুষ গৃহপালনের উৎপত্তিস্থল ব্যাবহার ছবি
ঘোড়া অজানা মঙ্গোলিয়া মালামাল ও যাত্রী পরিবহন  
গাধা আফ্রিকান বন্য গাধা আফ্রিকা মালামাল ও যাত্রী পরিবহন  
গরু অর্চস ইউরোপ, এশিয়া দুধ, মাংস, হালচাষ, পন্য পরিবহন  
তিব্বতি গরু বন্য তিব্বতি গরু তিব্বত দুধ, মাংস, পশম, চামড়া  
মহিষ বন্য মহিষ ভারত এবং দক্ষিন-পূর্ব এশিয়া দুধ, মাংস  
ভেড়া মৌফ্লন ইরান, এশিয়া মাংস, দুধ, পশম  
ছাগল বেজোয়ার আইবেক্স গ্রীস, পাকিস্তান দুধ, মাংস, চামড়া  
উট বুনো উট মধ্য এশিয়া, ইউরেশিয়া, আফ্রিকা মাংস, পরিবহন, প্রতিযোগিতা  
শুকর বন্য শুকর ইউরেশিয়া মাংস  
খরগোশ ইউরোপিয়ান খরগোশ ইউরোপ মাংস  

বন্য প্রাণির আক্রমনসম্পাদনা

গৃহপালিত পশু-পাখির মালিকেরা বন্য পশুর আক্রমন এবং চুরির শিকার হয়ে থাকেন। উত্তর আমেরিকাতে ধূসর নেকড়ে বাঘ, গ্রিজলি ভাল্লুক, বন বিড়ালের মতো প্রাণীকে গৃহপালিত পশুর জন্য হুমকি হিসাবে বিবেচনা করা হয়। ইউরেশিয়া এবং আফ্রিকাতে শিকারিদের মধ্যে নেকড়ে, চিতা, বাঘ, সিংহ, বন্য কুকুর, এশিয়ান কালো ভাল্লুক, কুমির, হায়েনা উল্লেখযোগ্য। দক্ষিণ আমেরিকাতে বন্য কুকুর, বাঘ, অজগর এবং ভাল্লুক প্রাণিসম্পদের জন্য হুমকিস্বরূপ। অস্ট্রেলিয়ায় কুকুর, শিয়াল এবং শিকারি ঈগল গৃহপালিত পশুর ক্ষতি করে[১৪][১৫]

রোগসম্পাদনা

প্রাণিসম্পদের যথাযথ পরিচর্যা, স্বাস্থ্যকর পরিবেশে লালন পালন এবং প্রয়োজনীয় পুষ্টিকর খাবার প্রদান অপরিহার্য। বিভিন্ন দেশে প্রাণির পরিচর্যার জন্য নীতিমালা রয়েছে। এছাড়াও প্রাণিসম্পদের চিকিৎসার জন্যে প্রতি জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে রয়েছে পশু হাসপাতাল, সেবা, পরিচর্যা ও প্রশিক্ষন কেন্দ্র। বিভিন্ন রকমের ফ্লু, অপুষ্টি ও পরিচ্ছন্নতার অভাবে পশু-পাখির দেহে বিভিন্ন রকম রোগের সৃষ্টি করে[১৬][১৭]। প্রাণিসম্পদ থেকে সোয়াইন ফ্লুর মত মানবদেহে সংক্রমিত রোগের সৃষ্টিও হতে পারে[১৮] । তবে প্রয়োজনীয় ভ্যাকসিন ও অ্যান্টিবায়োটিক প্রদানের ফলে এসব রোগ মোকাবেলা করা সম্ভব[১৯] । জলবায়ুর পরিবর্তন, তাপমাত্রা, বৃষ্টিপাত প্রাণিসম্পদ উন্নয়নের ওপর বেশ প্রভাব ফেলে[২০]

পরিবহন ও বাজারজাতকরনসম্পাদনা

 
শুকর পরিবহন

সাধারনত ট্রাক কিংবা লরিতে করে পশু-পাখি পরিবহন করা হয়[২১]। উন্নত দেশে এই কাজে ক্ষেত্র বিশেষে ট্রেন এবং জাহাজও ব্যাবহৃত হয়। বিভিন্ন দেশে সাধারন হাট বাজারে কিংবা সপ্তাহের বিশেষ দিনে নির্ধারিত স্থানে পশু-পাখি ক্রয় বিক্রয়ের জন্য নিয়ে আসা হয়। মুসলমান অধ্যুষিত অঞ্চলে বিশেষ করে কোরবানী ঈদের পূর্বে গৃহপালিত পশুর ব্যাপক চাহিদা দেখা দেয়। গৃহপালিত পশু-পাখির লালন পালন, পরিবহন, বাজারজাতকরন ও প্রক্রিয়াজাত করনে বিপুল জনসংখ্যার কর্মসংস্থানের সুজোগ হয়।


পরিবেশের ওপর প্রভাবসম্পাদনা

পশুপালন বিশ্বের পরিবেশের উপর উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলে[২২]। বিশ্বের বিশুদ্ধ পানির ২০ থেকে ৩৩% প্রাণিসম্পদ এর লালন-পালন এবং প্রক্রিয়াজাতকরনে ব্যাবহার হয়[২৩]। পশুসম্পদ এর খাদ্য সরবরাহের জন্য পৃথিবীর বরফমুক্ত জমির প্রায় এক তৃতীয়াংশ ব্যাবহার করা হয়[২৪]। প্রাণিসম্পদ উৎপাদনে বিভিন্ন প্রজাতির বিলুপ্তি, চারনভূমি মরুভূমিতে রুপান্তর, এবং আবাসস্থল ধ্বংসের প্রমান রয়েছে[২৫]। বন উজাড় করে পাহাড়ী ও বন্যভূমিকে ফসল চাষ এবং পশুচারণের ভূমির জন্য রূপান্তর করে বন্য পশুপাখির আবাসস্থল ধ্বংস করা হয়[২৬][২৭][২৮][২৯]

অর্থনৈতিক ও সামাজিক সুবিধাসমূহসম্পাদনা

 
২০১০ সালে প্রাণিসম্পদের ব্যাপ্তি

প্রাণিসম্পদ বিভিন্ন ধরণের খাবার এবং পণ্য সরবরাহ করে। চামড়া, পশম, ঔষধ উৎপাদনের কাচামাল, পশুখাদ্য, প্রোটিন এবং চর্বির যোগান দেয় প্রাণিসম্পদ[৩০] । প্রাণির দেহ থেকে আহরিত চর্বি ও মাংস মানুষ ও অন্যান্য প্রাণির খাদ্যের যোগান দেয়। গরু, ছাগল, মহিষ ও ভেড়ার চামড়া ও পশম থেকে শীত নিবারনকারী পোশাক এবং বিভিন্ন সামগ্রী পস্তুত হয়। বিভিন্ন জীবন রক্ষাকারী ঔষধের যোগান দেয় পশুর হাড় এবং মগজ। এমনকি জবাই করার পর পশু-পাখির অন্ত্রের অংশসমূহ সার হিসাবে ব্যবহার করা যায়। প্রাণিসম্পদ চারণভূমির উর্বরতা বজায় রাখতে সাহায্য করে। উল্লখ্য, ২০১৩ সালে বৈশ্বিক প্রাণিসম্পদ উৎপাদনের মূল্য ধরা হয়ে ছিলো প্রায় ৮৮৩ বিলিয়ন ডলার সমমূল্যের[৩১]। অর্থনৈতিক এবং আর্থ সামাজিক উন্নয়নে উন্নয়নশীল ও দরিদ্র রাষ্ট্রসমূহের প্রধান হাতিয়ার হতে পারে প্রাণিসম্পদ।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "livestock"Britannica.com 
  2. "Congress Clarifies That Horses are Not "Pets," Advances Landmark Livestock Health Measures"American Horse Council (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০১-১৯ 
  3. "Fresh Pork from Farm to Table"fsis.usda.gov 
  4. "NASS - Census of Agriculture - Publications - 2012"। USDA । সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১১-২৯ 
  5. Anomaly, Jonathan (২০১৫-১১-০১)। "What's Wrong With Factory Farming?"Public Health Ethics (ইংরেজি ভাষায়)। 8 (3): 246–254। doi:10.1093/phe/phu001hdl:10161/9733 আইএসএসএন 1754-9973 
  6. টেমপ্লেট:Cite dictionary
  7. "Agriculture: A Glossary of Terms, Programs, and Laws" (PDF)। ২০০৫। ২০১১-০২-১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১২-১০ 
  8. cbc.ca: "Police launch investigation into Aylmer Meat Packers", 28 Aug 2003
  9. Larson, G.; Bradley, D. G. (২০১৪)। "How Much Is That in Dog Years? The Advent of Canine Population Genomics"PLOS Genetics10 (1): e1004093। doi:10.1371/journal.pgen.1004093PMID 24453989পিএমসি 3894154  
  10. Chessa, B.; Pereira, F.; Arnaud, F.; Amorim, A.; Goyache, F.; Mainland, I.; Kao, R. R.; Pemberton, J. M.; Beraldi, D.; Stear, M. J.; Alberti, A.; Pittau, M.; Iannuzzi, L.; Banabazi, M. H.; Kazwala, R. R.; Zhang, Y.-p.; Arranz, J. J.; Ali, B. A.; Wang, Z.; Uzun, M.; Dione, M. M.; Olsaker, I.; Holm, L.-E.; Saarma, U.; Ahmad, S.; Marzanov, N.; Eythorsdottir, E.; Holland, M. J.; Ajmone-Marsan, P.; Bruford, M. W.; Kantanen, J.; Spencer, T. E.; Palmarini, M. (২০০৯-০৪-২৪)। "Revealing the History of Sheep Domestication Using Retrovirus Integrations"Science324 (5926): 532–536। doi:10.1126/science.1170587PMID 19390051পিএমসি 3145132 বিবকোড:2009Sci...324..532C 
  11. Vigne, J. D.; Zazzo, A.; Saliège, J. F.; Poplin, F.; Guilaine, J.; Simmons, A. (২০০৯)। "Pre-Neolithic wild boar management and introduction to Cyprus more than 11,400 years ago"Proceedings of the National Academy of Sciences of the United States of America106 (38): 16135–8। doi:10.1073/pnas.0905015106PMID 19706455পিএমসি 2752532 বিবকোড:2009PNAS..10616135V 
  12. Larson, Greger; Liu, Ranran; Zhao, Xingbo; Yuan, Jing; Fuller, Dorian; Barton, Loukas; Dobney, Keith; Fan, Qipeng; Gu, Zhiliang; Liu, Xiao-Hui; Luo, Yunbing; Lv, Peng; Andersson, Leif; Li, Ning (২০১০-০৪-১৯)। "Patterns of East Asian pig domestication, migration, and turnover revealed by modern and ancient DNA"Proceedings of the National Academy of Sciences107 (17): 7686–7691। doi:10.1073/pnas.0912264107PMID 20404179পিএমসি 2867865 বিবকোড:2010PNAS..107.7686L 
  13. "History of chickens – India and China"। ২০১৭-০৬-১২। 
  14. Northern Daily Leader, 20 May 2010, Dogs mauled 30 sheep (and killed them), p.3, Rural Press
  15. Simmons, Michael (২০০৯-০৯-১০)। "Dogs seized for killing sheep - Local News - News - General - The Times"। Victorharbortimes.com.au। ২০১২-০১-১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১২-১০ 
  16. "Scrapie Fact Sheet"। National Institute for Animal Agriculture। ২০০১। সংগ্রহের তারিখ ২০ মে ২০১৭ 
  17. "Foot-and-mouth"। The Cattle Site। সংগ্রহের তারিখ ২০ মে ২০১৭ 
  18. "Classical swine fever" (PDF)। The Center for Food Security and Public Health। সংগ্রহের তারিখ ২০ মে ২০১৭ 
  19. "EPRUMA | Responsible Use of Animal Medicines"www.epruma.eu। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ৮, ২০২০ 
  20. Mbow, C.; Rosenzweig, C.; Barioni, L. G.; Benton, T.; ও অন্যান্য (২০১৯)। "Chapter 5: Food Security" (PDF)IPCC SRCCL 2019 
  21. Chambers, Philip G.; Grandin, Temple; Heinz, Gunter; Srisuvan, Thinnarat (২০০১)। "Guidelines for Humane Handling, Transport and Slaughter of Livestock | CHAPTER 6: Transport of livestock"Food and Agriculture Organization। সংগ্রহের তারিখ ২৯ এপ্রিল ২০১৮ 
  22. Monteny, Gert-Jan; Andre Bannink; David Chadwick (২০০৬)। "Greenhouse Gas Abatement Strategies for Animal Husbandry, Agriculture, Ecosystems & Environment"। Agriculture, Ecosystems & Environment112 (2–3): 163–170। doi:10.1016/j.agee.2005.08.015 
  23. Mekonnen, Mesfin M.; Arjen Y. Hoekstra (২০১২)। "A Global Assessment of the Water Footprint of Farm Animal Products" (PDF)। Water Footprint Network। 
  24. "Livestock a major threat to environment"। Food and Agriculture Organizations of the United Nations। 
  25. Whitford, Walter G. (২০০২)। Ecology of desert systems। Academic Press। পৃষ্ঠা 277। আইএসবিএন 978-0-12-747261-4 
  26. "Biodiversity Decline"Annenberg Learner। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ৮, ২০২০ 
  27. Morell, Virginia (২০১৫)। "Meat-eaters may speed worldwide species extinction, study warns"। Sciencedoi:10.1126/science.aad1607 
  28. Machovina, B.; Feeley, K. J.; Ripple, W. J. (২০১৫)। "Biodiversity conservation: The key is reducing meat consumption"। Science of the Total Environment536: 419–431। doi:10.1016/j.scitotenv.2015.07.022PMID 26231772বিবকোড:2015ScTEn.536..419M 
  29. Williams, Mark; Zalasiewicz, Jan; Haff, P. K.; Schwägerl, Christian; Barnosky, Anthony D.; Ellis, Erle C. (২০১৫)। "The Anthropocene Biosphere"The Anthropocene Review2 (3): 196–219। doi:10.1177/2053019615591020 
  30. de Haan, Cees; Steinfeld, Henning; Blackburn, Harvey (১৯৯৭)। Livestock & the environment: finding a balance। European Commission Directorate-General for Development। 
  31. FAOSTAT. (Statistical database of the Food and Agriculture Organization of the United Nations.) http://faostat3.fao.org/