প্রবেশদ্বার:মিয়ানমার

প্রবেশদ্বারএশিয়ামিয়ানমার

ကြိုဆိုပါတယ်။ / মিয়ানমার প্রবেশদ্বারে স্বাগতম

মিয়ানমার (বর্মী: မြန်မာ, [mjəmà]), যার দাফতরিক নাম মিয়ানমার সংঘ প্রজাতন্ত্র (বর্মী: ပြည်ထောင်စု သမ္မတ မြန်မာနိုင်ငံတော်‌, [pjìdàuɴzṵ θàɴmədaa̰ mjəmà nàiɴŋàɴdɔ̀]) এবং যা ব্রহ্মদেশ, বর্মা বা বার্মা নামেও পরিচিত, হল দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার একটি দেশ। এটি দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় মূলভূখণ্ডের বৃহত্তম দেশ এবং ২০১৭ সালের হিসেব মতে এর জনসংখ্যা প্রায় ৫৪ মিলিয়ন। মিয়ানমারের উত্তর-পশ্চিমে বাংলাদেশভারত, উত্তর-পূর্বে চীন, পূর্ব ও দক্ষিণ-পূর্বে লাওসথাইল্যান্ড এবং দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমে আন্দামান সাগরবঙ্গোপসাগর অবস্থিত। দেশটির রাজধানী নেপিডো এবং বৃহত্তম শহর ইয়াঙ্গুন

তৎকালীন বার্মার গণতান্ত্রিক সরকারের উৎখাতের পর ১৯৮৯ সালে সেখানকার সামরিক সরকার বার্মার নতুন নামকরণ করে "মিয়ানমার" এবং প্রধান শহর ও তৎকালীন রাজধানী রেঙ্গুনের নতুন নাম হয় "ইয়াঙ্গুন"। তবে গণতান্ত্রিক দলগুলোর অনেক অনুসারীই এই নামকরণের বিপক্ষে। ২১ অক্টোবর ২০১০ থেকে দেশটির জাতীয় সঙ্গীত ও নতুন জাতীয় পতাকা প্রবর্তন করা হয়। (সম্পূর্ণ নিবন্ধ...)

সূচীপত্র
নির্দিষ্ট বিষয় দেখতে লিঙ্কে ক্লিক করুন

নির্বাচিত নিবন্ধ - নতুন ভুক্তি দেখুন

ব্রিটিশদের তৈরি বার্মার ভূ-রাজনৈতিক মানচিত্র। ১৮৮৫ সালে কমলা রং দ্বারা উচ্চ বার্মাকে বোঝান হয়েছে; ব্রিটিশ বার্মা (নিম্ন বার্মা) এবং অন্যান্য ব্রিটিশ অঞ্চল গোলাপী রং দ্বারা চিহ্নিত করা হয়েছে।

উচ্চ বার্মা (বর্মী: အထက်မြန်မာပြည်, যা প্রকৃত মিয়ানমার নামেও পরিচিত) বলতে বোঝায় বার্মার (মিয়ানমার) একটি ভৌগোলিক অঞ্চল, যা ঐতিহ্যগতভাবে মান্দালয় এবং এর আশেপাশের এলাকা (আধুনিক মান্দলয়, সাগিং, ম্যাগওয়ে অঞ্চল) নিয়ে গঠিত। অনেক ক্ষেত্রে আরও বিস্তৃতভাবে বোঝাতে কাচিন এবং শান রাজ্যকে উচ্চ বার্মার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। বর্মী ভাষাতে উচ্চ বার্মার মানুষজন সাধারণত আয়ন-থা (အညာသား) হিসাবে পরিচিত হয়, তবে নিম্ন বার্মার মানুষজন আউক-থ (အောက် သား) নামে পরিচিত।

এই শব্দটিকে প্রথমে মিয়ানমার (বার্মা) দেশটির কেন্দ্রীয় ও উত্তর অঞ্চলকে উল্লেখ করার জন্য ব্রিটিশদের দ্বারা প্রথম ব্যবহৃত হয়। ১৮২৫ সালের দ্বিতীয় অ্যাংলো-বার্মিজ যুদ্ধের পর নিম্ন বার্মা ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের সঙ্গে সংযুক্ত ছিল, যখন উচ্চ বার্মা ১৮৮৫ সালের তৃতীয় অ্যাংলো-বার্মিজ যুদ্ধ পর্যন্ত বার্মার রাজত্বের অধীনে স্বাধীন ছিল। উচ্চ বার্মাকে যথাযথ বার্মা ও আভা রাজ্য নামেও পরিচিত ছিল। ঐতিহাসিকভাবে উচ্চ বার্মা প্রধানত বার্মার অন্তর্গত ছিল (যখন নিন্ম বার্মা ঐতিহাসিকভাবে ঊনবিংশ শতাব্দীর প্রথম দিকে মণিভাষী জনগণের এলাকা ছিল)। ঔপনিবেশিক প্রশাসন কর্তৃক মনোনীত ফ্রন্টিয়ার অঞ্চলগুলোতে শান রাজ্য এবং আধুনিক কাচিন রাজ্য হিসাবে জাতিগত সংখ্যালঘু এলাকাও উচ্চ বার্মা মধ্যে অন্তর্ভুক্ত ছিল। (সম্পূর্ণ নিবন্ধ...)
নির্বাচিত ভুক্তির তালিকা
১৯৬১-২০০৩ জনসংখ্যা বৃদ্ধির গ্রাফ

মায়ানমারের দুই-তৃতীয়াংশ লোক বর্মী জাতির লোক। এরা তিব্বতি ও চীনাদের সমগোত্রীয়। এছাড়াও দেশটিতে অনেকগুলি সংখ্যালঘু জাতি আছে, যাদের নিজস্ব ভাষা ও সংস্কৃতি আছে। এদের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল কারেন ও শান জাতি। দুইটি জাতিই জনসংখ্যার ১০%-এরও কম। এছাড়াও আরাকানি, মন, চিন, কাচিন, ইত্যাদি ছোট ছোট সম্প্রদায় আছে। কারেন জাতির লোকেরা মূলত থাইল্যান্ডের সাথে সীমান্তবর্তী অঞ্চলে ও ব-দ্বীপ অঞ্চলে গ্রামে বাস করে। শান জাতির লোকেরা বিস্তীর্ণ শান মালভূমিতে বাস করে। মন জাতির লোকেরা তেনাসসেরিম উপকূলে এবং আরাকানি জাতির লোকেরা বাংলাদেশের কাছে আরাকান উপকূলে বাস করে। চিন জাতির লোকেরা ভারতের সাথে সীমান্তবর্তী অঞ্চলে শানদের সাথে একত্রে বাস করে। কাচিন জাতির লোকেরা উত্তরে চীন সীমান্তের কাছে বাস করে। ব্রিটিশ আমলে (১৮২৬-১৯৪৮) মায়ানমারের শহর অঞ্চলে বেশ বড় সংখ্যক চীনা ও ভারতীয় লোক বাস করত। তবে অনেক চীনাই বর্মীদের সাথে আন্তঃবিবাহ করে মিশে গেছে। আর বেশির ভাগ ভারতীয়ই মায়ানমার ছেড়ে চলে গেছে। তবে অনেক টভারতীয় মুসলিম আরাকান উপকূলে তাদের ঐতিহ্যবাহী মাতৃভূমিতে এখনও বাস করে।

মায়ানমারের বেশির ভাগ সংখ্যালঘু জাতিই সীমান্তবর্তী এলাকায় বাস করে এবং ব্রিটিশ আমলে এদেরকে আলাদাভাবে শাসন করা হত। বার্মার স্বাধীনতার পর এরা অসহিষ্ণু হয়ে ওঠে। ১৯৪৮ সাল থেকে কারেন জাতির লোকেরা সশস্ত্র বিদ্রোহ শুরু করে এবং ১৯৫০-এর দশকে কাচিন জাতির লোকেরাও এদের সাথে যোগ দেয়। শানদের বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠনও মাঝে মাঝে বিদ্রোহী হয়ে উঠেছে। (সম্পূর্ণ নিবন্ধ...)

নগর, রাজ্য ও অঞ্চল - নতুন ভুক্তি দেখুন

ইয়াঙ্গুন (বর্মী: ရန်ကုန်; বর্মী উচ্চারণ: [jàɰ̃ɡòʊɰ̃ mjo̰]) দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার রাষ্ট্র মিয়ানমারের প্রাক্তন রাজধানী। এটি পূর্বে রেঙ্গুন নামেও পরিচিত ছিলো। প্রাক্তন নামটি রাখাইন উচ্চারণ রঙ্গুঁ থেকে আসে বলে ধারণা করা হয়। ২০০৬ সাল পর্যন্ত এটি বার্মার রাজধানী ছিলো, যখন সামরিক সরকার প্রশাসনিক কাজগুলি সহজ করার উদ্দেশ্য-নির্মিত শহর নাইপিদোতে [nèpjìdɔ̀] রাজধানী স্থানান্তরিত করে। ৭,০০০,০০০ জনেরও বেশি লোক নিয়ে ইয়াঙ্গুন হল মিয়ানমারের সবচেয়ে জনবহুল শহর এবং এর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্যিক কেন্দ্র। (সম্পূর্ণ নিবন্ধ...)

মিয়ানমারের ইতিহাস - নতুন ভুক্তি দেখুন

MyanmarEthnolinguisticMap1972

মিয়ানমারের ইতিহাস (পূর্বে দেশটি বার্মা নামে পরিচিত ছিল) ১৩,০০০ বছর পূর্বে এই ভূখণ্ডে প্রথম মানব বসতি স্থাপনের পর থেকে আধুনিক মিয়ানমারের সময়কাল পর্যন্ত ব্যাপ্ত। মায়ানমারের সবচেয়ে প্রাচীন অধিবাসি ছিল তিব্বতীয়-বার্মান ভাষাভাষি জনগোষ্ঠি। বৌদ্ধ ধর্মালম্বি এই জনগোষ্ঠি পাইয়ু নগর-রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করেছিল।

নবম শতকে বামার জনগোষ্ঠি নামে এর একদল মানুষ ইরাবতী উপত্যাকা থেকে এসে এই অঞ্চলে বসবাস শুরু করে এবং বেগান রাজ্য (১০৪৪-১২৮৭) স্থাপন করে। এই রাজ্য ছিল ইরাবতী এবং এর আশেপাশের অঞ্চলকে একিভূত করে গঠিত একটি স্বাধীন রাজ্য। এই সময়ে বর্মী ভাষা এবং বামার সাংস্কৃতি বিস্তার লাভ করে। ১২৮৭ সালে প্রথম মঙ্গল আগ্রাসনের পর আভা রাজ্য, হান্তাওয়ারি রাজ্য, এবং মারুক ইউ রাজ্য ছিল এই অঞ্চলের প্রধান রাজনৈতিক শক্তি। ১৬ শতকে টাউঙ্গু রাজবংশ (১৫১০-১৭৫২) পুনরায় বার্মাকে একিভূত করে দক্ষিণ এশিয়ার সর্ববৃহৎ সম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা করে। তবে এই সম্রাজ্য ছিল ক্ষনস্থায়ী। পরবর্তী টাউঙ্গু সম্রাটরা কিছু অর্থনৈতিক এবং প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করে যা ১৭ এবং ১৮ শতকে বার্মাকে একটি সমৃদ্ধশালী দেশ হিসাবে গড়ে তুলতে সাহায্য করে। (সম্পূর্ণ নিবন্ধ...)

নির্বাচিত জীবনী - নতুন ভুক্তি দেখুন

অং সান সু চি (বর্মী: အောင်ဆန်းစုကြည်, উচ্চারিত: [àʊɴ sʰáɴ sṵ tɕì] ঔঁ(অ) সাঁ সূ চী; জন্ম ১৯ জুন ১৯৪৫) একজন বর্মী রাজনীতিবিদ, কূটনীতিক, এবং লেখিকা যিনি মিয়ানমারের প্রথম রাষ্ট্রীয় উপদেষ্টা (প্রধানমন্ত্রীর সমমান) হিসেবে ২০১৬ সাল থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়া তিনি ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্র্যাসির প্রধান নেত্রী। মিয়ানমারের দে ফ্যাক্তো তথা অনানুষ্ঠানিক প্রধান হিসেবেই তিনি ব্যাপকভাবে পরিচিত ছিলেন। এছাড়াও প্রথম নারী হিসেবে তিনি মিয়ানমারের পররাষ্ট্র মন্ত্রী, রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের মন্ত্রী, বিদ্যুৎশক্তি ও ক্ষমতা বিষয়ক মন্ত্রী, এবং শিক্ষা মন্ত্রী হিসেবে প্রেসিডেন্ট তিন চওয়ের কেবিনেটে কাজ করেন; আর ২০১২ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত তিনি মিয়ানমারের হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভস তথা নিম্নকক্ষে কৌমু টাউনশিপের এমপি ছিলেন।

আধুনিক মিয়ানমারের জাতির জনক অং সান এবং খিন চী এর কন্যা সু চি এর জন্ম হয় ব্রিটিশ বার্মার রেঙ্গুনে। ১৯৬৪ সালে দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয় ও ১৯৬৮-তে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় হতে স্নাতক অর্জন করার পর তিনি জাতিসংঘে তিন বছর কাজ করেন। ১৯৭২ সালে মাইকেল অ্যারিসকে বিয়ে করেন এবং তাদের দুই ছেলে হয়। ১৯৮৮-র গণ আন্দোলনের সময় সু চি সবার নজর কাড়েন এবং ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্র্যাসির (এনএলডি) সাধারণ সম্পাদক হন; সেসময় সদ্যগঠিত দলটির প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন সামরিক জান্তার বিরোধী অবসরপ্রাপ্ত কয়েকজন সেনা কর্মকর্তা। ১৯৯০ সালের নির্বাচনে এনএলডি সংসদের ৮১% আসন পেলেও সেনাবাহিনী ক্ষমতা হস্তান্তরে অস্বীকৃতি জানায় যা আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে হৈ চৈ ফেলে দেয়। এদিকে নির্বাচনের আগে থেকেই সু চি-কে গৃহবন্দী করে রাখা হয়। ১৯৮৯ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত ২১ বছরের মধ্যে ১৫ বছরই তাকে গৃহবন্দী অবস্থায় কাটাতে হয়; ততদিনে তিনি বিশ্বের সবচেয়ে প্রখ্যাত রাজবন্দীদের একজন হয়ে উঠেছেন। (সম্পূর্ণ নিবন্ধ...)

গৃহবিবাদ ও গণহত্যা - নতুন ভুক্তি দেখুন

গণহত্যায় নিহত পরিবারের সদস্যদের মৃতদেহ শনাক্ত করতে হিন্দু গ্রামবাসীরা একটি গণ সমাধিতে জড়ো হয়েছে।
২৫ আগস্ট ২০১৭ সালে, আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মির জঙ্গিরা মায়ানমারের রাখাইন রাজ্যের মংডু জেলার ৩০ পুলিশ চৌকিতে এবং একটি সেনা ক্যাম্পে একযোগে আক্রমণ চালায়। কয়েক ঘণ্টার পরই রাতে, অজ্ঞাত মুখোশধারী জঙ্গিরা মংডু জেলার হিন্দু গ্রাম ইয়াই কি কি (রিক্তপাড়া নামেও পরিচিত) আক্রমণ করে। জঙ্গিরা ১০০ জনেরও বেশি হিন্দু জনগণকে আটক করে এবং তাদের নিকটবর্তী পাহাড়ে নিয়ে যায়, যখন তারা হিন্দুদের হত্যা করে। ২৪ এবং ২৫ শে সেপ্টেম্বর, মায়ানমারের সেনাবাহিনী ৪৫ জন হিন্দু, যাদের মধ্যে বেশিরভাগই নারী ও শিশুকে গণকবর দেখায়। মিয়ানমারের কর্তৃপক্ষ পরে হিন্দু গণহত্যার জন্য রোহিঙ্গা জঙ্গিদের অভিযুক্ত করেছে। আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি ক্রমাগত অভিযোগ অস্বীকার করে এবং ২৫ শে সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখে, একটি এআরএসএ (ARSA) মুখপাত্র দাবি করেন যে, রোহিঙ্গা জঙ্গি হিন্দু গ্রামের উপর হামলা একটি মিথ্যা খবর ছিল। (সম্পূর্ণ নিবন্ধ...)

নির্বাচিত চিত্র- নতুন চিত্র দেখুন

মিয়ানমার সম্পর্কিত বিভিন্ন নিবন্ধে ব্যবহৃত চিত্র

অন্যান্য প্রবেশদ্বার

বিষয়শ্রেণীসমূহ

বিষয়শ্রেণী ধাঁধা
বিষয়শ্রেণী ধাঁধা
উপবিষয়শ্রেণী দেখার জন্য [►] ক্লিক করুন

আপনি যা করতে পারেন

  • মিয়ানমার বিষয়ক নতুন নিবন্ধ তৈরি অথবা অন্য উইকিপ্রকল্প হতে অনুবাদ করতে পারেন।
  • বর্তমান নিবন্ধ অথবা মায়ানমার বিষয়ক বিভিন্ন (নিম্নের) টেমপ্লেট হতে লাল লিঙ্ক থাকা বিষয় নিয়ে নতুন নিবন্ধ রচনা করতে পারেন।
  • বিদ্যমান নিবন্ধসমূহ তথ্য দিয়ে সমৃদ্ধ, সম্প্রসারণ, রচনাশৈলীর উন্নয়ন ও তথ্যছক না থাকলে যুক্ত করতে পারেন।
  • নিবন্ধগুলিতে উইকিমিডিয়া কমন্স হতে দরকারী ও প্রাসঙ্গিক মুক্ত চিত্র যুক্ত করতে পারেন।
  • মিয়ানমার সংক্রান্ত নিবন্ধসমূহে বিষয়শ্রেণী না থাকলে যুক্ত করতে পারেন।
  • নিবন্ধসমূহে তথ্যসূত্রের ঘাটতি থাকলে, পর্যাপ্ত সূত্র যোগ করতে পারেন।
  • মিয়ানমার সম্পর্কিত নিবন্ধসমূহের শেষে {{প্রবেশদ্বার দণ্ড|মিয়ানমার}} যুক্ত করতে পারেন।

বিষয়

উইকিমিডিয়া


উইকিসংবাদে মিয়ানমার
উন্মুক্ত সংবাদ উৎস


উইকিউক্তিতে মিয়ানমার
উক্তি-উদ্ধৃতির সংকলন


উইকিসংকলনে মিয়ানমার
উন্মুক্ত পাঠাগার


উইকিবইয়ে মিয়ানমার
উন্মুক্ত পাঠ্যপুস্তক ও ম্যানুয়াল


উইকিবিশ্ববিদ্যালয়ে মিয়ানমার
উন্মুক্ত শিক্ষা মাধ্যম


উইকিমিডিয়া কমন্সে মিয়ানমার
মুক্ত মিডিয়া ভাণ্ডার


উইকিঅভিধানে মিয়ানমার
অভিধান ও সমার্থশব্দকোষ


উইকিউপাত্তে মিয়ানমার
উন্মুক্ত জ্ঞানভান্ডার


উইকিভ্রমণে মিয়ানমার
উন্মুক্ত ভ্রমণ নির্দেশিকা

সার্ভার ক্যাশ খালি করুন