নিল আর্মস্ট্রং

চাঁদে অবতরণকারী প্রথম মানব

নিল এলডেন আর্মস্ট্রং (আগস্ট ৫, ১৯৩০ – আগস্ট ২৫, ২০১২) ছিলেন একজন মার্কিন মহাকাশচারী, বৈমানিক প্রকৌশলী এবং চন্দ্রপৃষ্ঠে অবতরণকারী প্রথম ব্যক্তি। তিনি একজন নৌ-বিমানচালক, পরীক্ষামূলক বৈমানিক, এবং একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ছিলেন।

নিল আর্মস্ট্রং
স্পেসস্যুট পরিহিত আর্মস্ট্রং
১৯৬৯ সালে নীল আর্মস্ট্রং
জন্ম
নিল এলডেন আর্মস্ট্রং

(১৯৩০-০৮-০৫)৫ আগস্ট ১৯৩০
মৃত্যু২৫ আগস্ট ২০১২(2012-08-25) (বয়স ৮২)
চিনচিনাটি, ওহাইও, U.S.
মাতৃশিক্ষায়তন
  • পারডিউ বিশ্ববিদ্যালয় (Bachelor of Science, ১৯৫৫)
  • ইউনিভার্সিটি অফ সাউথার্ন ক্যালিফর্নিয়া (Master of Science,১৯৭০)
দাম্পত্য সঙ্গী
  • জ্যানেট শ্যারন (বি. ১৯৫৬; বিচ্ছেদ. ১৯৯৪)
  • ক্যারোল নাইট (বি. ১৯৯৪)
সন্তান
পুরস্কার
  • ‘‘Presidential Medal of Freedom’’
  • ‘‘Congressional Space Medal of Honor’’
  • ‘‘Congressional Gold Medal’’
  • ‘‘NASA Distinguished Service Medal’’
  • ‘‘NASA Exceptional Service Medal’’
  • ‘‘Air Medal’’
মহাকাশযাত্রা
Man in Space Soonest/NASA astronaut
ক্রমUS-O2 insignia.svg Lieutenant (junior grade), মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নৌবাহিনী
মহাকাশে অবস্থানকাল
৮ দিন, ১৪ ঘণ্টা, ১২ মিনিট, ৩০ সেকেন্ড
মনোনয়ক
  • 1958 USAF Man In Space Soonest
  • 1960 USAF Dyna-Soar
  • 1962 NASA Group 2
সর্বমোট অভিযান
সর্বমোট অভিযানের সময়কাল
২ ঘণ্টা ৩১ মিনিট
অভিযানজেমিনি ৮, এপোলো ১১
অভিযানের প্রতীক
Gemini 8 logo Apollo 11 logo
স্বাক্ষর
Neil Armstrong Signature.svg

পারডিউ বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক আর্মস্ট্রং বৈমানিক প্রকৌশল-এ শিক্ষাগ্রহণ করেন। মার্কিন নৌবাহিনী তার পড়ার খরচ প্রদান করতেন ‘হলোওয়ে প্ল্যান’ এর তত্ত্বাবধানে। তিনি ১৯৪৯ সালে মিডশিপম্যান (মার্কিন নৌ ক্যাডেট) ও পরবর্তী বছরই একজন নৌ-বিমানচালক হন। তিনি "গ্রামম্যান এফ৯এফ" বিমান থেকে কোরিয়ার যুদ্ধ প্রত্যক্ষ করেন। ১৯৫১ সালের সেপ্টেম্বরে, "লো বম্বিং রান" করার সময় তার বিমান ক্ষতিগ্রস্ত হয় যখন বিমানটি একটি “আকাশযান প্রতিরোধী কেবলের” সাথে সংঘর্ষের শিকার হয়। বিমানটির একটি ডানা ধ্বংস হয় এবং তাকে বিমান থেকে প্যারাস্যুটের মাধ্যমে লাফ দিতে হয়। যুদ্ধের পর তিনি পারডিউ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ব্যাচেলর ডিগ্রি লাভ করেন এবং এডোয়ার্ডস এয়ার ফোর্স বেইজ, ক্যালিফোর্নিয়ায় -তে পরীক্ষামূলক বৈমানিক হন। তিনি “সেঞ্চুরি সিরিজ ফাইটার্সের” একজন প্রজেক্ট পাইলট ছিলেন এবং উত্তর আমেরিকার এক্স-১৫ বিমানটি সহ সাতবার উড্ডয়ন করেন। নিল আর্মস্ট্রং মার্কিন বিমানবাহিনীতে ‘বোয়িং এক্স-২০ ডায়না-সোয়ার হিউম্যান স্পেসফ্লাইট’ প্রোগ্রামগুলোতে এবং “ম্যান ইন স্পেস সুনেস্ট” হিসেবে প্রতিদ্বন্দিতা করেন।

আর্মস্ট্রং নাসা’র দ্বিতীয় মহাকাশচারী দলের মহাকাশচারী কর্পসে ১৯৬২ সালে নির্বাচিত হয়ে যোগদান করেন। তিনি তার প্রথম মহাকাশযাত্রা করেন জেমিনি-৮ মহাকাশযানের “কমান্ড পাইলট” হিসেবে। তিনি ছিলেন নাসা’র প্রথম বেসামরিক মহাকাশচারী। তিনি তার এই মিশনে বৈমানিক ডেভিড স্কটের সঙ্গে প্রথমবারের মতো “স্পেসক্রাফট ডকিং” অর্থাৎ মহাশূন্যে দুটি মহাকাশযানকে মিলিত করেন। মিশনটি অবশ্য বাতিল করা হয় যখন আর্মস্ট্রং বিপদজনক পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েছিলেন। আর্মস্ট্রং-এর শেষ এবং দ্বিতীয় মহাকাশযাত্রার প্রশিক্ষণের সময়, যেখানে তিনি ছিলেন এপোলো-১১ এর অধিনায়ক, তাকে দুর্ঘটনা থেকে বাঁচতে “লুনার ল্যান্ডিং রিসার্চ ভিহিকল” এর সাহায্যে অবতরণ করতে হয়েছিলো।

জুলাই ২০, ১৯৬৯ তারিখে আর্মস্ট্রং এবং চন্দ্রগামীযানের বৈমানিক বাজ আলড্রিন প্রথমবারের মতো চাঁদে পা রাখেন। তাঁরা পরের দিন দুই ঘণ্টা ত্রিশ মিনিট তাদের “ঈগল” নামক চন্দ্রযানটির বাইরে অবস্থান করেন। সহযাত্রী মাইকেল কলিন্স চন্দ্রযানটিতে অবস্থান করেন। চাঁদে পা ফেলেই আর্মস্ট্রং তার বিখ্যাত উক্তিটি করেন,

কলিন্স ও আলড্রিনের সাথে আর্মস্ট্রং মার্কিন রাষ্ট্রপতি রিচার্ড নিক্সনের কাছ থেকে “Presidential Medal of Freedom” পদক লাভ করেন। রাষ্ট্রপতি জিমি কার্টার তাকে ভূষিত করেন “Congressional Space Medal of Honor” পদক দিয়ে। ২০০৯ সালে আর্মস্ট্রং ও তার সহযাত্রীদের “Congressional Gold Medal” প্রদান করা হয়।

১৯৭১ সালে নাসা থেকে পদত্যাগ করে আর্মস্ট্রং চিনচিনাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের এরোস্পেস ইঞ্জিনিয়ারিং-এ অধ্যাপনা করেন। তিনি মহাকাশযান “চ্যালেঞ্জার” এর দুর্ঘটনার তদন্তের জন্য গঠিত ‘রজার্স কমিশনের’ সদস্য ছিলেন। বেশ কিছু ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মুখপাত্র হিসেবেও দায়িত্বপালন করেন এবং আর্মস্ট্রং ১৯৭৯ সালের জানুয়ারির শুরু থেকে ক্রিস্লার (Chrysler) নামক প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপনেও আবির্ভূত হয়েছিলেন।

প্রাথমিক জীবনসম্পাদনা

আর্মস্ট্রং ১৯৩০ সালের ৫ই আগস্ট ওয়াপাকোনেটা, ওহাইও-তে জন্মগ্রহণ করেন।[১] তিনি ভিওলা লাউসি (née Engel) ও স্টিফেন কনিগ আর্মস্ট্রং এর সন্তান। তিনি জার্মান, স্কটস-আইরিশ, স্কটিশ বংশোদ্ভূত। [২] তার ভাই ‘ডিন’ এবং বোন ‘জুন’। পিতা ওহাইও সরকারের একজন নিরীক্ষক।[৩] এবং তার পরিবার আবাসস্থল পরিবর্তনে অভ্যস্ত ছিলো, তারা ১৪ বছর সময়ে মোট ১৬টি শহরে অবস্থান করেন।[৪] আর্মস্ট্রং এর ওড়ার ইচ্ছা জাগ্রত হয় যখন দুই বছর বয়সী আর্মস্ট্রং-কে তার পিতা বিমান উড্ডয়ন প্রতিযোগীতা দেখাতে নিয়ে যেতেন। পাঁচ কি ছয় বছর বয়সে ওহাইওতে তার ফোর্ড ট্রিমোটর (Ford Trimotor) বা Tin Goose নামক বিমানে ওঠার অভিজ্ঞতা হয়।[৫][৬]

তার পরিবার সর্বশেষ আবাস পরিবর্তন করে ওয়াপাকোনেটায় ১৯৪৪ সালে যেখানে তিনি “ব্লুম হাই স্কুল"- এ ভর্তি হন এবং বিমান উড্ডয়নের শিক্ষা লাভ করেন।[১] তিনি “ছাত্র বিমান উড্ডয়ন সনদ” লাভ করেন তার ১৬ তম জন্মদিনে যা কিনা তিনি লাভ করেন ড্রাইভিং লাইসেন্স লাভেরও পূর্বে।[৭] তিনি একজন সক্রিয় স্কাউট ছিলেন এবং "ঈগল স্কাউট" পদবি অর্জন করেন।[৮] একজন স্কাউট হিসেবে নিল Distinguished Eagle Scout Award এবং Silver Buffalo Award –এ ভূষিত হয়েছিলেন।[৯][১০] ১৮ই জুলাই, ১৯৬৯ সালে চন্দ্রযাত্রার সময় তিনি ‘ইডাহো’তে অনুষ্ঠিত জাতীয় স্কাউট জাম্বুরি-তে অংশগ্রহণকারীদের প্রতি অভিবাদন প্রেরণ করেছিলেন।[১১] আর্মস্ট্রং তার চন্দ্রযাত্রায় যেসব ব্যক্তিগত জিনিস নিয়ে গিয়েছিলেন, তার মধ্যে অন্যতম ছিলো তার “ওয়ার্ল্ড স্কাউট ব্যাজ”টি [১২]

১৭ বছর বয়সে ১৯৪৭ সালে আর্মস্ট্রং পারডিউ বিশ্ববিদ্যালইয়ে এরোনটিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং অধ্যয়ন করতে শুরু করেন। পরিবারের দ্বিতীয় ব্যক্তি হিসেবে তিনি কলেজে কলেজে যোগ দিয়েছেন। তিনি ম্যাসাচুসেটস ইউনিভার্সিটি অফ টেকনোলজিতে (এম আই টি) অধ্যয়ন করারও সুযোগ পেয়েছিলেন। কিন্তু তিনি পারডিউ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হবার জন্য মনঃস্থির করেন ওহাইও স্টেডিয়ামে ১৯৪৫ সালে একটি ফুটবল ম্যাচ দেখার পর। খেলাটি ছিল, “Purdue Boilermakers” ও “Ohio State Buckeyes” – দুটি দলের মধ্যে। যেখানে খেলোয়াড় “বব ডি মস” এর নেতৃত্বে “Purdue Boilermakers” জিতে যায়।[১৩] তার চাচা, যিনি এম আই টি-তে অধ্যয়ন করতেন, আর্মস্ট্রং-কে পরামর্শ দেন কেমব্রিজে গিয়ে এম আই টি-তে যোগ না দেয়ার জন্য। চাচা আরো আশা ব্যক্ত করেন, এম আই টি-তে না গিয়েও আর্মস্ট্রং ভালো শিক্ষাগ্রহণ করতে পারবে। তার কলেজের বেতন “হলোওয়ে প্ল্যান” এর তত্ত্বাবধানে দেয়া হতো। তিনি নৌ-বিজ্ঞানে অধয়ন করেননি এবং তাকে নেভাল রিজার্ভ অফিসার্স ট্রেনিং কর্পসেও যোগ দিতে হয়নি।[১৪]

নৌবাহিনীতে যোগদানসম্পাদনা

 
নিল আর্মস্ট্রং, ১৯৫২ সালের ২৩শে মে

১৯৪৯ সালের ২৬শে জানুয়ারি নৌবাহিনীতে যোগদানের জন্য আর্মস্ট্রং-কে আহ্বান করা হয়। শারীরিক পরীক্ষার পর ২৪ শে ফেব্রুয়ারি, ১৯৪৯ আর্মস্ট্রং একজন মিডশিপম্যান (মার্কিন নৌবাহিনীর একজন নৌ ক্যাডেট) হন।[১৫]। তিনি তার জীবনের প্রথম এয়ারক্রাফট ক্যারিয়ার ল্যান্ডিং করেন ১৯৫০ সালের ২রা মার্চ। যা ছিলো তার প্রথম "Solo flight"[১৬]এরপরে তাকে গ্রামম্যান এফ 8 এফ বিয়ারকেট প্রশিক্ষণের জন্য টেক্সাসের নেভাল এয়ার স্টেশন কর্পস- এ প্রেরণ করা হয়েছিল। আগস্ট ১৬, ১৯৫০-এ আর্মস্ট্রংকে চিঠির মাধ্যমে জানানো হয়েছিল যে তিনি একজন পুরোপুরি যোগ্য নৌ-চালক হয়েছেন। তার মা এবং বোন ১৯৫০ সালের ২৩শে আগস্ট তার স্নাতক অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছিলেন।[১৭]

আর্মস্ট্রংকে সান দিয়েগোতে ফ্লিট এয়ারক্রাফ্ট সার্ভিস স্কোয়াড্রন এ নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল। ২৭শে নভেম্বর, ১৯৫০ সালে, তাকে ভিএফ -১১ এ নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল, তিনি সর্বকনিষ্ঠ অফিসার হয়ে সর্বকোটের স্কোয়াড্রন এবং ১৯৫১ সালের ৫ জানুয়ারী গ্রুমম্যান এফ 9 এফ প্যান্থারের জেটে প্রথম বিমান চালান। তাকে পদোন্নতি দেওয়া হয়েছিল ১৯৫১ সালের ৫ জুন, এবং তার প্রথম জেট ক্যারিয়ার দুই দিন পর অবতরণ করে। ১৯৮১ সালের ২৮ শে জুন গ্রামীণ আক্রমণ বিমান হিসাবে কাজ করার জন্য ভিএফ -১১ সমেত কোরিয়ার উদ্দেশ্যে যাত্রা করেছিলেন।

 
"Grumman F9F Panther" বিমান, বামেরটিতে আর্মস্ট্রং

২৯ শে আগস্ট, ১৯৫১ সালে আর্মস্ট্রং কোরিয়ার যুদ্ধে সোনজিনের উপরে একটি পথপ্রদর্শক পুনরুদ্ধার বিমানের এসকর্ট হিসাবে কাজ করেছিলেন। পাঁচ দিন পরে, ৩ সেপ্টেম্বর, তিনি গ্রামের দক্ষিণে প্রাথমিক পরিবহন এবং স্টোরেজ সুবিধাগুলি নিয়ে সশস্ত্র পুনরায় যোগাযোগ করেছিলেন। আর্মস্ট্রংয়ের মতে, তিনি ৫৬০ কিমি/ঘ বেগে বোমা ছোঁড়া চালাচ্ছিলেন, যখন তার পাখার ৬ ফুট অংশ, পাহাড়ের ওপারে ছড়িয়ে পড়া একটি তারের সাথে সংঘর্ষের পরে ছিঁড়ে যায়। যখন আঘাত ঘটনাটি ঘটে তখন তিনি মাটির ৫০০ ফুট (১৫০ মাইল) উপরে উড়ছিলেন। সে অঞ্চলে ভারী বিমানবিরোধী অগ্নিকাণ্ডের সময় আর্মস্ট্রংয়ের বিমানকে কেউ আঘাত করতে পারেনি। এসেক্সের কমান্ডিং অফিসারের কাছে প্রাথমিক রিপোর্টে বলা হয়েছে যে আর্মস্ট্রংয়ের এফ 9 এফ প্যান্থার বিমানবিরোধী অগ্নিকাণ্ডে আক্রান্ত হয়েছিল। প্রতিবেদনে ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে যে সে আবার নিয়ন্ত্রণ ফিরে পাওয়ার চেষ্টা করছে এবং একটি খুঁটির সাথে সংঘর্ষ হয়েছিল, যা প্যান্থারের ডান দিকের ২ ফুট (০.৬১ মি) কেটে ফেলেছিল। বিভিন্ন লেখকের গল্পের আরও বিভ্রান্তি যোগ করেছে যে তিনি মাটি থেকে মাত্র ২০ ফুট ছিলেন এবং তার পাখার ৩ ফুট (০.৯১ মি) ছাঁটাই করা হয়েছিল।

সব মিলিয়ে আর্মস্ট্রং কোরিয়ায় মোট ১২১ ঘণ্টা বাতাসে ৮ টি মিশন উড়েছিলেন।

কলেজে অধ্যয়নসম্পাদনা

নৌবাহিনীর সাথে তার দায়িত্ব নেওয়ার পরে আর্মস্ট্রং ফিরে এসেছিলেন পারডুতে। আর্মস্ট্রং ১৯৫৫ সালের জানুয়ারিতে অ্যারোনটিকাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। ১৯৭০ সালে তিনি স্নাতকোত্তর শেষ করেন ইউনিভার্সিটি অফ সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়া (ইউএসসি) এর এ্যারোস্পেস ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ডিগ্রি। বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় তাকে সম্মানসূচক ডক্টরেটস প্রদান করে।

আর্মস্ট্রং একটি পার্টিতে ঘরোয়া অর্থনীতিতে সর্বাধিক অগ্রণী জ্যানেট এলিজাবেথ শায়ারনের সাথে দেখা করেছিলেন। এই দম্পতির মতে, আসল বিবাহ-আদালত ছিল না, এবং তাদের বাগদানের সঠিক পরিস্থিতিও তারা স্মরণ করতে পারেনি। ইলিনয়ের উইলমেটের কংগ্রেশনাল চার্চে তারা বিবাহ করেছিলেন ১৯৫৮ সালের ২৮ জানুয়ারি। যখন তিনি এডওয়ার্ডস এয়ার ফোর্স বেসে চলে আসেন, তিনি ঘাঁটির ব্যাচেলর কোয়ার্টারে থাকতেন, এবং জ্যানেট লস অ্যাঞ্জেলেসের ওয়েস্টউড জেলায় থাকতেন। এক সেমিস্টারের পরে তারা এডওয়ার্ডস এএফবির কাছে অ্যান্টেলোপ ভ্যালির একটি বাড়িতে চলে যায়। জ্যানেট তার ডিগ্রি শেষ করেনি, যার জন্য তিনি পরবর্তী জীবনে দুঃখিত ছিলেন। দম্পতির তিনটি সন্তান ছিল: এরিক, কারেন এবং মার্ক। ১৯৬১ সালের জুনে কারেনের মস্তিষ্কে একটি মারাত্মক টিউমার শনাক্ত হয়। তার স্বাস্থ্যের এমন অবনতি ঘটে যেখানে সে আর হাঁটতে বা কথা বলতে পারে না। তার দুর্বল স্বাস্থ্যের সাথে নিউমোনিয়ায় তিনি মারা গিয়েছিলেন ২৮ জানুয়ারি ১৯৬২, দুই বছর বয়সে।

পরীক্ষামূলক বৈমানিকসম্পাদনা

 
১৯৫৬ সালে পরীক্ষামূলক বৈমানিক হিসেবে কর্মরত আর্মস্ট্রং

পারডু থেকে স্নাতক শেষ হওয়ার পরে আর্মস্ট্রং পরীক্ষামূলক গবেষণা পরীক্ষার পাইলট হন। তিনি ‘এডওয়ার্ডস এয়ার ফোর্স বেসে’ ‘ন্যাশনাল অ্যাডভাইসরি কমিটি ফর অ্যারোনটিকস (ন্যাকা)’ তে আবেদন করেছিলেন।

 
১৯৬০ সালে এক্স-১৫ বিমানের সাথে নিল আর্মস্ট্রং

আর্মস্ট্রং এমন বেশ কয়েকটি ঘটনার সাথে জড়িত ছিলেন যা লোককাহিনীতে পরিণত হয়েছিল বা সহকর্মীদের স্মৃতিতে রোমাঞ্চিত ছিল। ২০ এপ্রিল, ১৯৬২ তিনি তাঁর X-15 ফ্লাইট চলাকালীন আর্মস্ট্রং যখন তিনি ২,০৭,০০০ ফুট (৬৩ কিমি) এর উচ্চতায় পৌঁছান তখন তিনি এর নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা পরীক্ষা করছিলেন।

তিনি এম.এইচ-৯৯ এর পারফরম্যান্সটি প্রদর্শনের জন্য বিমানের নাকটি খুব বেশি সময় ধরে ধরে রেখেছিলেন এবং এক্স-১৫ প্রায় ১,৪০,০০০ ফুট পর্যন্ত উড়াল দিয়েছিল।

মহাকাশচারী নিল আর্মস্ট্রংসম্পাদনা

 
স্পেসস্যুট পরিহিত আর্মস্ট্রং

১৯৫৮ সালের জুনে আর্মস্ট্রং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এয়ার ফোর্সের ম্যান ইন স্পেস সুনেস্ট প্রোগ্রামের জন্য নির্বাচিত হয়েছিলেন, তবে অ্যাডভান্সড রিসার্চ প্রজেক্টস এজেন্সি এর অর্থায়ন বাতিল করে ১৯৮৮ সালের ১ আগস্ট, এবং ১৯৫৮ সালের ৫ নভেম্বর এটিকে বরখাস্ত করা হয়েছিল। নাসার বেসামরিক পরীক্ষার পাইলট হিসাবে, আর্মস্ট্রং এই সময়ে তার অন্যতম নভোচারী হওয়ার পক্ষে অযোগ্য ছিলেন, কারণ নির্বাচনটি সামরিক পরীক্ষামূলক বিমানচালকদের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল। ১৯৬০ সালের নভেম্বরে তিনি মার্কিন বিমান বাহিনীর বোয়িংয়ের দ্বারা পরামর্শক গোষ্ঠীর অংশ হিসাবে নির্বাচিত হয়েছিলেন। ১৯৬২ সালের ১৫ ই মার্চ তিনি নির্বাচিত হন বিমান বাহিনী সাতজন পাইলট-ইঞ্জিনিয়ারের একজন হিসাবে।

১৯৬২ সালের এপ্রিলে নাসা ঘোষণা করেছিল যে প্রস্তাবিত দ্বি-ব্যক্তি মহাকাশযান প্রকল্প Gemini'র জন্য নাসার নভোচারীদের দ্বিতীয় গ্রুপের জন্য আবেদন করা হচ্ছে। এবারের বাছাই বেসামরিক পরীক্ষামূলক পাইলটদের জন্য উন্মুক্ত ছিল। আর্মস্ট্রং ১৯৬২ সালের মে মাসে ‘সিয়াটল ওয়ার্ল্ডের’ মেলা পরিদর্শন করেছিলেন এবং সেখানে নাসার সহযোগিতায় নির্মিত মহাকাশ অনুসন্ধান বিষয়ক একটি সম্মেলনে অংশ নিয়েছিলেন। ৪ জুন সিয়াটল থেকে ফিরে আসার পরে, তিনি একজন নভোচারী হওয়ার জন্য আবেদন করেছিলেন। তার আবেদনটি ১ জুন, ১৯৬২ এর শেষ সময়সীমা প্রায় এক সপ্তাহ পরে পৌঁছেছিল, তবে আর্মস্ট্রং-এর সাথে এডওয়ার্ডসে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করেছিলেন এমন একজন ফ্লাইট সিমুলেটর বিশেষজ্ঞ, ডিক ডে আবেদনটির দেরিতে আগমন দেখে কারও নজরে আসার আগেই এটিকে গ্রহণ করে নেন। জুনের শেষের দিকে ‘ব্রুকস এয়ার ফোর্স বেসে’ আর্মস্ট্রংয়ের একটি মেডিকেল পরীক্ষা করানো হয়েছিল যা আবেদনকারীদের মধ্যে বেশিরভাগই বেদনাদায়ক এবং মাঝে মাঝে আপাত অর্থহীন বলে বর্ণনা করেছিলেন।

নাসার ফ্লাইট ক্রু অপারেশনসের ডিরেক্টর, ডেক স্লেটন, আর্মস্ট্রংকে ১৩ ই সেপ্টেম্বর, ১৯৬২ এ ডেকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন, প্রেস যে "নিউ নাইন" বলে অভিহিত করেছে তার অংশ হিসাবে তিনি নাসার অ্যাস্ট্রোনাট কর্পসে যোগ দিতে আগ্রহী কিনা; বিনা দ্বিধায় আর্মস্ট্রং হ্যাঁ বলেছিলেন। নির্বাচনগুলি তিন দিন অবধি গোপন রাখা হয়েছিল, যদিও সে বছরের শুরুর পর থেকে সংবাদপত্রের প্রতিবেদনগুলি প্রচারিত হয়েছিল যে তাকে "প্রথম বেসামরিক নভোচারী" নির্বাচিত করা হবে। আর্মস্ট্রং এই গ্রুপের জন্য নির্বাচিত দুটি বেসামরিক পাইলটের মধ্যে একজন ছিলেন; অন্যটি ছিলেন আরেক সাবেক বিমান চালক এলিয়ট সি। ১৯৬২ সালের ১২ সেপ্টেম্বর নাসা একটি সংবাদ সম্মেলনে দ্বিতীয় গ্রুপের নির্বাচনের ঘোষণা দেয়। তারা কম বয়সী ছিলেন এবং তাদের আরও প্রভাবশালী প্রাতিষ্ঠানিক শংসাপত্র ছিল।

জেমিনি প্রোগ্রামসম্পাদনা

জেমিনি-৫সম্পাদনা

১৯৬৫ সালের ৮ই ফেব্রুয়ারি আর্মস্ট্রং এবং এলিয়ট সি-কে জেমিনি-৫ মিশন এর ব্যাকআপ ক্রু হিসাবে ঘোষণা করা হয়। এবং আর্মস্ট্রংকে কমান্ডার হিসাবে পাঠানোর জন্য গর্ডন কুপার এবং পিট কনরাড সমর্থন করেছিলেন। মিশনের উদ্দেশ্য ছিল সেসব অনুশীলন করা যার সবকিছু চাঁদে অভিযানের জন্য প্রয়োজন হবে। আরও দুটি ফ্লাইট (জেমিনি ৩ এবং জেমিনি ৪) প্রস্তুতির সাথে, ছয় ক্রু সিমুলেটার সময়ের জন্য প্রতিযোগিতা করছিলেন, তাই জেমিনি-৫ স্থগিত করা হয়েছিল। শেষ অবধি এটি ২১ আগস্টে যাত্রা শুরু করে। তবে জ্বালানী কোষগুলির সাথে একটি সমস্যা থাকা সত্ত্বেও মিশনটি সফল হয়েছিল।

জেমিনি-৮সম্পাদনা

 
১৯৬৬সালের মার্চে আর্মস্ট্রং (৩৫) জেমিনি-৮ মিশনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন

জেমিনি ৮- মিশনের ক্রু নিয়োগের ঘোষণা দেয়া হয় ২০ সেপ্টেম্বর, ১৯৬৫ সালে। সাধারণ রোটেশন সিস্টেমের অধীনে, একটি মিশনের ব্যাকআপ ক্রু পরবর্তী তৃতীয় মিশনের প্রধান ক্রু হয়ে নিযুক্ত হন, জেমিনি 8 এর পাইলট হিসাবে ডেভিড স্কটকে মনোনীত করা হয়। স্কট ছিলেন নভোচারী তৃতীয় গোষ্ঠীর প্রথম সদস্য, যার নির্বাচন ১৮ অক্টোবর, ১৯৬৩ সালে প্রধান ক্রু ঘোষণা করা হয়েছিল। সী-কে জেমিনি ৯ এর অধিবেশন করার জন্য মনোনীত করা হয়েছিল প্রতিটি জেমিনি মিশনেই আর্মস্ট্রং সদস্য ছিলেন এবং স্কট, গ্রুপের সদস্য ছিলেন পাইলট হিসাবে। কনরাড এবার আর্মস্ট্রংয়ের ব্যাকআপ এবং তার পাইলট রিচার্ড এফ গর্ডন জুনিয়র। এ অভিযানে আর্মস্ট্রং মহাকাশে প্রথম আমেরিকান নাগরিক হন। (সোভিয়েত ইউনিয়নের ভ্যালেন্টিনা তেরেশকোভা প্রথম তিন বেসামরিক-প্রথম মহিলা হয়েছিলেন যিনি প্রায় তিন বছর আগে ভোস্টক ৬ মহাকাশযানে ১৬ জুন, ১৯৬৩ সালে যাত্রা শুরু করেছিলেন।) আবার এটি আর্মস্ট্রং-এর তাঁর দলটির সাথে শেষ মহাকাশ উড়ান ছিলো, কারণ সী ১৯৬৬ সালের ২৮ শে ফেব্রুয়ারি টি -৩৮ দুর্ঘটনায় মারা গিয়েছিলেন, যে ঘটনাক্রমে চার্লস বাসেট-ও মৃত্যুবরণ করেন। ফলে টম স্টাফর্ড এবং জিন সার্নানের ব্যাকআপ ক্রু দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়েছিলেন জিম লাভল এবং বাজ অলড্রিন, যারা জেমিনি ১০ এর ব্যাকআপ ক্রু থেকে সরে এসে জেমিনি ৯ এর ব্যাকআপ হয়েছিলেন এবং শেষ পর্যন্ত জেমিনি ১২ মিশনেও অংশ নেন।

 
প্রশান্ত মহাসাগরে জেমিনি ৮ মিশন ক্রুদের অবতরণ; ডান পাশে আর্মস্ট্রং

জেমিনি ৮, ১৯৬৬ সালের ১ মার্চ যাত্রা শুরু করেছিল যা এখন পর্যন্ত সবচেয়ে জটিল মিশন। মিশনটিতে ৭৫ ঘণ্টাকাল স্থায়ী এবং ৫৫ টি কক্ষপথে চলার পরিকল্পনা করা হয়েছিল। এ মিশনে দুটি মহাকাশযানকে মধ্যে প্রথমবারের মতো ডকিং অর্থাৎ মহাশুণ্যে থাকাকালে সংযুক্ত করা হয়েছিল। মিশন চলাকালে ট্র্যাকিং স্টেশনের অভাবে ক্রুদের সাথে যোগাযোগ বাধাগ্রস্ত হয়। ফলশ্রুতিতে পরস্পর যুক্ত মহাকাশযানটি ঘুরতে শুরু করে এবং আর্মস্ট্রং জেমিনির অ‌রবিট অ্যাটিচিউড এন্ড ম্যানুভারিং সিস্টেম (ওএএমএস) দিয়ে এটি সংশোধন করার চেষ্টা করেছিলেন। মিশনের পূর্বের পরামর্শ অনুসরণ করে মহাকাশযান দুটিকে বিচ্ছিন্ন করা হয়, তবে মহাকাশযান নিয়ন্ত্রণে সমস্যা দেখা দিয়েছিলো। আর্মস্ট্রং রিট্রি কন্ট্রোল সিস্টেম (আরসিএস) এবং ওএএমএস বন্ধ করে দেযন। মিশন-বিধি দ্বারা সমস্যা নির্ধারিত হয়েছিল যে একবার এই সিস্টেম চালু হওয়ার পরে, মহাকাশযানের পরবর্তী সম্ভাব্য সুযোগে আবার প্রবেশ করতে হবে। পরে এটি ভাবা হয়েছিল যে ক্ষতিগ্রস্ত তারের কারণে থ্রাস্টারগুলির মধ্যে একটি স্থিতিশীল অবস্থায় স্থির ছিল।

ওয়াল্টার কানিংহাম সহ এ্যাস্ট্রোনট অফিসের কয়েকজন লোক অনুভব করেছিলেন যে আর্মস্ট্রং এবং স্কট "তাদের প্রথম সফল মিশনে কাজ করেছেন"। জল্পনা ছিল যে আর্মস্ট্রং মিশনকে উদ্ধার করতে পারতেন যদি সে দুটি আরসিএসের রিংয়ের মধ্যে কেবল একটি চালু করে, অন্যটিকে মিশনের উদ্দেশ্যগুলির জন্য সংরক্ষণ করে। এই সমালোচনা ভিত্তিহীন ছিল; কোনও ত্রুটিযুক্ত পদ্ধতির পরিকল্পনা লেখা হয়নি, এবং কেবলমাত্র আরসিএসের দুটি রিং চালু করা সম্ভব হয়েছিল, একটি বা অন্যটি নয়। এ সম্পর্কে জিন ক্রানজ লিখেছেন, "ক্রুগণ প্রশিক্ষিত হওয়ার সাথে সাথে তাদের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিল এবং তারা ভুল প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিল, কারণ আমরা তাদের ভুল প্রশিক্ষিত করেছি।" মিশন পরিকল্পনাকারী এবং নিয়ন্ত্রণকারীরা বুঝতে পেরে ব্যর্থ হয়েছিল যে দুটি মহাকাশযান যখন ডক করা হয়েছিল তখন তাদের অবশ্যই একটি মহাকাশযান হিসাবে বিবেচনা করা উচিত। ক্র্যাঞ্জ এটিকে মিশনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পাঠ হিসাবে বিবেচনা করেছেন। আর্মস্ট্রং হতাশাগ্রস্থ হয়েছিলেন যে মিশনটি খুব ছোট হয়ে গেছে, বেশিরভাগ মিশনের উদ্দেশ্য অসম্পূর্ণ রাখা হয়েছে। পরবর্তীতে জেমিনি ১০ মিশনে ডকিং টার্গেট হিসাবে পুনরায় ব্যবহার করা হয়েছিল। আর্মস্ট্রং এবং স্কট নাসার ব্যতিক্রমী পরিষেবা পদক পেয়েছিল এবং বিমান বাহিনী স্কটকেও বিশিষ্ট উড়ন্ত ক্রস প্রদানপূর্বক স্কটকে লেফটেন্যান্ট কর্নেল হিসাবে পদোন্নতি দেওয়া হয়েছিল এবং আর্মস্ট্রংকে এক বছরে ২১৬৫৩ ডলার (২০১৯ সালের ১,৭০১,৬২৬ ডলারের সমতুল্য) বেতন পেয়েছিলেন, যা তাকে নাসার সর্বাধিক বেতনের নভোচারী করে তোলে।

জেমিনি-১১সম্পাদনা

জেমিনি প্রোগ্রামে আর্মস্ট্রংয়ের শেষ কার্যভারে, তিনি ছিলেন জেমিনি-১১'র ব্যাক-আপ কমান্ড পাইলট; জেমিনি ৮-এর অবতরণের দু'দিন পরে এটি ঘোষণা করা হয়েছিল। দুটি ফ্লাইটের জন্য প্রশিক্ষণ পেয়ে আর্মস্ট্রং সিস্টেম সম্পর্কে যথেষ্ট জ্ঞাত ছিলেন এবং উইলিয়াম অ্যান্ডার্সের নড়বড়ে ব্যাকআপ পাইলটের জন্য একটি শিক্ষামূলক ভূমিকা গ্রহণ করেছিলেন। কনভার্ট এবং গর্ডন বোর্ডে উপস্থিত ছিলেন, ১৯৬৬ সালের ১২ সেপ্টেম্বর লঞ্চটি সফলভাবে মিশনের উদ্দেশ্যগুলি সম্পন্ন করেছিল, আর আর্মস্ট্রং ক্যাপসুল যোগাযোগকারী (সিএপিকম) হিসাবে কাজ করেছিলেন।

মিশনটির পরে রাষ্ট্রপতি জনসন, আর্মস্ট্রং এবং তাঁর স্ত্রীকে ২৪ দিনের দক্ষিণ আমেরিকা সফর অনুষ্ঠানে অংশ নিতে বলেছিলেন। ১১ টি দেশ এবং ১৪ টি বড় শহর ঘুরে এই সফরে ছিলেন ডিক গর্ডন, জর্জ লো, তাদের স্ত্রী এবং অন্যান্য সরকারী কর্মকর্তা। প্যারাগুয়েতে আর্মস্ট্রং তাদের স্থানীয় ভাষায় গুরানির বিশিষ্টজনকে স্বাগত জানিয়েছেন; ব্রাজিলে তিনি ব্রাজিলিয়ান বংশোদ্ভূত আলবার্তো সান্টোস-ডুমন্টের শোষণের কথা বলেছিলেন।

এপোলো প্রোগ্রামসম্পাদনা

২রা জানুয়ারি, ১৯৬৮- অ্যাপোলো ১ অগ্নিকাণ্ডের দিন আর্মস্ট্রং জাতিসংঘের আউটার স্পেস চুক্তি স্বাক্ষরের জন্য কুপার, গর্ডন, লাভল এবং স্কট কার্পেন্টারের সাথে ওয়াশিংটন, ডি.সি.তে নভোচারীরা সমবেত হয়ে গণ্যমান্য ব্যক্তির সাথে আড্ডা দিয়েছিলেন। যখন কার্পেন্টার বিমানবন্দরে গিয়েছিল, এবং অন্যরা জর্জিটাউন ইন-এ ফিরে এসেছিল, যেখানে তারা প্রত্যেকে এমএসসিকে ফোন করার জন্য বার্তা পেয়েছিল। এই আহ্বানের সময়, তারা আগুনে গুস গ্রিসম, এড হোয়াইট এবং রজার চ্যাফির মৃত্যুর বিষয়টি জানতে পেরেছিল। আর্মস্ট্রং এবং গোষ্ঠীটি সারা রাত ধরে স্কচ পান করে এবং কী ঘটেছিল তা নিয়ে আলোচনা করে।

এপ্রিল ৫, ১৯৬৭ এ, একই দিন অ্যাপোলো ১ তদন্ত তার চূড়ান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করে, আর্মস্ট্রং এবং আরও ১৭ নভোচারী স্লেটনের সাথে বৈঠকের জন্য জড়ো হয়েছিল। স্লেটন প্রথম যে কথাটি বলেছিল তা হল "যে ছেলেরা প্রথম চন্দ্র মিশনগুলি উড়াতে চলেছে তারা এই ঘরের ছেলেরা"। কার্নানের মতে, কেবল আর্মস্ট্রং এই বক্তব্য নিয়ে কোনও প্রতিক্রিয়া দেখাননি। আর্মস্ট্রংয়ের কাছে এটি আশ্চর্য হওয়ার মতো ঘটনা ঘটেনি। ঘরটি জেমিনি মিশনেত প্রবীণদের দ্বারা পরিপূর্ণ ছিল, একমাত্র লোক যারা চন্দ্র মিশনগুলি উড়াতে পেরেছিল। স্লেটন পরিকল্পিত মিশনগুলির বিষয়ে কথা বলেছেন এবং আর্মস্ট্রংকে অ্যাপোলো ৯ এর জন্য ব্যাকআপ ক্রুতে নামকরণ করেছিলেন, এই পর্যায়ে সম্মিলিত চন্দ্র মডিউল এবং কমান্ড এবং পরিষেবা মডিউলটির মাঝারি পৃথিবী কক্ষপথ পরীক্ষা হিসাবে পরিকল্পনা করা হয়েছিল।

ক্রু নিয়োগটি আনুষ্ঠানিকভাবে ২০ নভেম্বর, ১৯৬৭ ঘোষণা করা হয়েছিল। ক্রেমীদের জন্য আর্মস্ট্রংকে লাভেল এবং অলড্রিনকে জেমিনি ১২ থেকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল। চন্দ্র মডিউলের নকশা ও উৎপাদন বিলম্বের পরে (লুনার মডিউল), অ্যাপোলো ৮ এবং ৯ জন প্রাইম এবং ব্যাকআপ ক্রুদের সরিয়ে নিয়েছিলেন। ক্রূর স্বাভাবিক ঘূর্ণনের উপর ভিত্তি করে আর্মস্ট্রং এক পরিবর্তন করে অ্যাপোলো ১১-এর কমান্ড দিতেন: অ্যাপোলো ৮ এর ক্রুতে মাইক কলিন্স তার পায়ে সমস্যায় পড়তে শুরু করেছিলেন। চিকিৎসা প্রয়োজন তার পঞ্চম এবং ষষ্ঠ ভার্চুয়ের মধ্যে হাড়ের বৃদ্ধি হিসাবে সমস্যাটি শনাক্ত করে। লাভল অ্যাপোলো ৮ এর ক্রুতে জায়গা করে নিয়েছিলেন এবং কলিন্স সুস্থ হয়ে উঠলে তিনি আর্মস্ট্রংয়ের ক্রুতে যোগ দেন।

 
আর্মস্ট্রং প্যারাস্যুটে অবতরণ করছেন

এলএনএমকে অবতরণ করার জন্য মহাকাশচারীদের অনুশীলন করার জন্য, নাসা বেল এয়ারক্র্যাফ্টকে দুটি চন্দ্র ল্যান্ডিং রিসার্চ ভেহিকেল (এলএলআরভি) নির্মাণের জন্য কমিশন দেয়, পরে তিনটি চন্দ্র অবতরণ প্রশিক্ষণ যানবাহন (এলএলটিভি) দ্বারা সংযোজন করা হয়। "ফ্লাইং বেডস্টিডস" ডাকনামযুক্ত, তারা নৈপুণ্যের ওজনের পাঁচ-ষষ্ঠটি সমর্থন করার জন্য টার্বোফান ইঞ্জিন ব্যবহার করে চাঁদের এক-ষষ্ঠ মহাকর্ষের সিমুলেশন করেছিলেন। ১৯শে মে, মাটি থেকে ১০০ ফুট (৩০ মিটার) উপরে আর্মস্ট্রংয়ের নিয়ন্ত্রণ হ্রাস পেতে শুরু করে এবং এলএলআরভি ঘূর্ণায়মান শুরু হয়। গাড়িটি মাটিতে পড়ার আগে এবং আগুনের শিখায় ফেটে যাওয়ার আগে তিনি নিরাপদে বেরিয়ে আসেন। পরবর্তী বিশ্লেষণে পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল যে, যদি তিনি পরে আধা সেকেন্ড পরে বের করে দিতেন, তবে তার প্যারাসুটটি সময়মতো খোলা হত না। তার একমাত্র আঘাত ছিল জিহ্বাকে কামড় দেওয়া থেকে। এলএলআরভি সম্পূর্ণরূপে ধ্বংস হয়েছিল। যদিও তিনি প্রায় নিহত হয়েছিলেন, আর্মস্ট্রং বলেছিলেন যে এলএলআরভি এবং এলএলটিভি না থাকলে চন্দ্র অবতরণ সফল হত না, কারণ তারা কমান্ডারদেরকে চান্দ্র অবতরণের কারুকাজ চালানোর ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় অভিজ্ঞতা প্রদান করেছিল।

এলএলআরভি প্রশিক্ষণ ছাড়াও অ্যাপোলো ১০ শেষ হওয়ার পরে নাসা চন্দ্র অবতরণ সিমুলেটর প্রশিক্ষণ শুরু করে। অ্যালড্রিন এবং আর্মস্ট্রং বিভিন্ন চিত্রে অবতীর্ণ হতে পারে যা বাস্তব চন্দ্র অবতরণের সময় বিকাশ করতে পারে। তারা নাসার ভূতাত্ত্বিকদের কাছ থেকে ব্রিফিংও পেয়েছিল।

এপোলো-১১সম্পাদনা

 
এপোলো-১১ মিশনের ক্রু: আর্মস্ট্রং, মাইকেল কলিন্স ও বাজ আলড্রিন

আর্মস্ট্রং অ্যাপোলো ৮ এর ব্যাকআপ কমান্ডারের দায়িত্ব পালন করার পরে, স্লেটন তাকে ২৩ ডিসেম্বর, ১৯৬৮-এ অ্যাপোলো-র কমান্ডারের পদে প্রস্তাব দিয়েছিল, কারণ অ্যাপোলো ৮ চাঁদ প্রদক্ষিণ করেছিল। আর্মস্ট্রংয়ের ২০০৫ সালের জীবনী অনুসারে স্লেটন তাকে বলেছিলেন যে পরিকল্পনাকারী কর্মী কমান্ডার আর্মস্ট্রং, লুনার মডিউল পাইলট বাজ অলড্রিন এবং কমান্ড মডিউল পাইলট মাইকেল কলিন্স ছিলেন, তিনি আর্মস্ট্রংকে জিম লাভলের পরিবর্তে অলড্রিনের পরিবর্তে সুযোগ দিচ্ছিলেন। একদিন ধরে চিন্তা করার পরে আর্মস্ট্রং স্লেটনকে বলেছিলেন যে তিনি অলড্রিনের সাথে থাকবেন, কারণ তাঁর সাথে কাজ করতে কোনও অসুবিধা হয়নি এবং ভেবেছিলেন লাভল তার নিজের কমান্ডের প্রাপ্য। লাভলকে অলড্রিনের পরিবর্তে লাভলকে চন্দ্র মডিউল পাইলট বানিয়ে দিতেন, বেসরকারীভাবে সর্বনিম্ন র‌্যাঙ্ক সদস্য, আর আর্মস্ট্রং ক্রুদের ৩ নম্বর পজিশনে জেমিনি ১২ এর কমান্ডার লাভলকে যথাযথ প্রমাণ করতে পারেন নি। অ্যাপোলো ১১ এর ক্রু আনুষ্ঠানিকভাবে জানুয়ারী ৯, ১৯৬৯ এ আর্মস্ট্রং, কলিন্স এবং অলড্রিন হিসাবে লাভল, অ্যান্ডারস এবং ফ্রেড হাইসকে ব্যাকআপ ক্রু হিসাবে ঘোষণা করেছিলেন।

ক্রিস ক্রাফ্টের মতে, ১৯৬৯ সালের মার্চ স্লেটন, জর্জ লো, বব গিলারথ এবং ক্রাফটের মধ্যে অনুষ্ঠিত বৈঠকটি স্থির করেছিল যে আর্মস্ট্রং চাঁদে প্রথম ব্যক্তি হবেন, কারণ নাসা পরিচালন তাকে এমন ব্যক্তি হিসাবে দেখেছে যার বড় অহংকার ছিল না। ১৪ ই এপ্রিল একটি সংবাদ সম্মেলনে আর্মস্ট্রংয়ের প্রথম হওয়ার কারণ হিসাবে এলএম কেবিনের নকশা দেওয়া হয়েছিল; হ্যাচটি ভিতরে এবং ডানদিকে খোলে, ডান হাতের এলএম পাইলটকে প্রথমে প্রস্থান করা কঠিন করে তোলে। তাদের বৈঠকের সময়, এই চার ব্যক্তি হ্যাচ বিবেচনা সম্পর্কে জানতেন না। ছোট গ্রুপের বাইরে সভার প্রথম জ্ঞান এলো যখন ক্র্যাফট তাঁর বইটি লিখেছিলেন। এই অসুবিধা দূর করার পদ্ধতিগুলি বিদ্যমান ছিল, তবে সেগুলি এই সময়ে বিবেচনা করা হয়েছিল কিনা তা জানা যায়নি। স্লেটন আরও বলেছিলেন, "দ্বিতীয়ত, খাঁটি প্রোটোকলের ভিত্তিতে আমি বুঝতে পেরেছিলাম যে কমান্ডারকে প্রথম লোক হওয়া উচিত ... আমি যখনই দেখলাম যে তারা সময়সীমা পেয়েছিল যে এটি দেখিয়েছিল। বব গিলারথ আমার সিদ্ধান্তকে অনুমোদন করেছিলেন। "

চাঁদে যাত্রাসম্পাদনা

একটি স্যাটার্ন-৫ রকেট ১৬ জুলাই, ১৯৬৯, কেনেডি স্পেস সেন্টারে লঞ্চ কমপ্লেক্স ৩৯ এ থেকে অ্যাপোলো ১১ চালু করেছিল। এই উড্ডয়ন আর্মস্ট্রংয়ের স্ত্রী জ্যানেট এবং দুই ছেলে ব্যানানা নদীর তীরে এক নৌকা থেকে দেখেন। মিশন আরম্ভের সময় আর্মস্ট্রংয়ের হার্ট রেট প্রতি মিনিটে ১১০ বীট পৌঁছেছিল। তিনি প্রথম পর্যায়টি সবচেয়ে কষ্টকর বলে অনুভব করেছিলেন। পূর্বেকার জেমিনি মহাকাশযানের তুলনায় অ্যাপোলো কমান্ড মডিউলটি তুলনামূলকভাবে প্রশস্ত ছিল। পূর্ববর্তী ক্রুদের কিছু সদস্যের মতো অ্যাপোলো ১১ ক্রুদের কেউই অসুস্থতায় ভুগেনি। আর্মস্ট্রং এ সম্পর্কে বিশেষভাবে আনন্দিত ছিলেন, কারণ তিনি ছোটবেলায় গতি অসুস্থতার প্রবণ ছিলেন এবং দীর্ঘকাল বায়বায়োটিকের পরে বমি বমি ভাব করতে পারেন।

 
লুনার মডিউলের ভেতর আর্মস্ট্রং

অ্যাপোলো ১১-এর উদ্দেশ্য ছিল সুনির্দিষ্ট স্থানে স্পর্শ না করে চাঁদে নিরাপদে অবতরণ করা। আর্মস্ট্রং লক্ষ করেছেন যে লুনার মডিউল ঈগল সম্ভবত পরিকল্পিত অবতরণ অঞ্চল ছাড়িয়ে কয়েক মাইল (কিলোমিটার) ছুঁয়ে যাবে। ঈগলের অবতরণ রাডারটি পৃষ্ঠটি অধিগ্রহণ করার সাথে সাথে বেশ কয়েকটি কম্পিউটার ত্রুটির এলার্ম বাজে। প্রথমটি ছিল একটি কোড ১২০২ এলার্ম এবং এমনকি তাদের ব্যাপক প্রশিক্ষণ নিয়েও আর্মস্ট্রং বা অ্যালড্রিন উভয়ই এই কোডটির অর্থ কী তা জানতেন না। তারা তাত্ক্ষণিকভাবে হিউস্টনের চার্লস ডিউকের কাছ থেকে এই বার্তাটি পেয়েছিল যে অ্যালার্মগুলি কোনও উদ্বেগ নয়; ১২০২ এবং ১২০১ অ্যালার্মগুলি চান্দ্র মডিউল গাইডেন্স কম্পিউটারে এক্সিকিউটিভ ওভারফ্লো দ্বারা সৃষ্ট হয়েছিল। ২০০৭ সালে, অ্যালড্রিন বলেছিলেন যে অবতরণ প্রক্রিয়া চলাকালীন ডকিং রাডারটি তার নিজস্ব কাউন্টার-চেকলিস্ট পছন্দ করার কারণে ওভারফ্লো হয়েছিল, যার ফলে কম্পিউটার অপ্রয়োজনীয় রাডার তথ্য প্রক্রিয়াকরণ করতে পারে। যখন সমস্ত কার্য সম্পাদন করার জন্য পর্যাপ্ত সময় ছিল না তখন কম্পিউটারটি নিম্ন-অগ্রাধিকারগুলি বাদ দিয়ে অ্যালার্মগুলি ট্রিগার করে। অ্যালড্রিন বলেছিলেন যে অ্যাপোলো কমান্ড মডিউলটির সাথে পুনরায় ডকিংয়ের সময় প্রয়োজন হলে তিনি রাডারটি ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন; তিনি বুঝতে পারেন নি যে এটি উপচে পড়বে। আর্মস্ট্রং যখন লক্ষ্য করলেন যে তারা কোনও অবতরণ অঞ্চলের দিকে যাচ্ছেন যা নিরাপদ বলে মনে হচ্ছে, তখন তিনি এলএমের ম্যানুয়াল নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করেছিলেন এবং একটি নিরাপদ অঞ্চল সন্ধান করার চেষ্টা করেছিলেন। এটি প্রত্যাশার চেয়ে বেশি সময় নিয়েছে এবং বেশিরভাগ সিমুলেশনের চেয়ে বেশি সময় নিয়েছে। এই কারণে, মিশন কন্ট্রোল উদ্বিগ্ন যে এলএম জ্বালানির কম চলছিল। অবতরণ করার সময়, অ্যালড্রিন এবং আর্মস্ট্রং বিশ্বাস করেছিলেন যে তাদের ৪০ সেকেন্ড জ্বালানী বাকি ছিল, ২০ সেকেন্ডের মূল্য সহ যা কোনও নিঃসরণের ঘটনায় সংরক্ষণ করতে হবে। প্রশিক্ষণ চলাকালীন আর্মস্ট্রং বেশ কয়েকটি উপলক্ষে ১৫ সেকেন্ডেরও কম জ্বালানী নিয়ে অবতরণ করেছিল; তিনি আশ্বস্তও ছিলেন যে এলএম ৫০ ফুট (১৫ মিটার) অবধি পড়ে যেতে পারে। মিশন-পরবর্তী বিশ্লেষণে দেখা গেছে যে স্পর্শডাউনে প্রোপেলান্ট বার্নের সময় ৪৫ থেকে ৫০ সেকেন্ড বাকি ছিল।

আর্মস্ট্রং চাঁদে অবতরণ করছেন

এলএম এর চারটি পায়ে তিনটির সাথে সংযুক্ত তিনটি-৬৭ ইঞ্চি (১৭০ সেমি) প্রোবগুলির মধ্যে একটি পৃষ্ঠের সাথে যোগাযোগ করেছিল, একটি এলএমের প্যানেল আলো আলোকিত করে, এবং অ্যালড্রিন বলে, "যোগাযোগের আলো"। আর্মস্ট্রং ইঞ্জিনটি বন্ধ করে দিয়ে বললেন, "শাটডাউন"। এলএম তলদেশে স্থির হওয়ার সাথে সাথে অ্যালড্রিন বলেছিলেন, "ঠিক আছে, ইঞ্জিন স্টপ"; তারপরে তারা দুজনেই কিছু অবতরণকারী চেকলিস্ট আইটেম ডেকে আনে। ১০ সেকেন্ড বিরতি দেওয়ার পরে ডিউক এই অবতরণটিকে স্বীকৃতি দিয়ে জানিয়েছিলেন, "আমরা আপনাকে কপি করে দেই, ঈগল।" আর্মস্ট্রং মিশন কন্ট্রোল এবং বিশ্বকে অবতরণের ঘোষণা দিয়েছিলেন, "হিউস্টন, প্রশান্তি এখানে। ঈগল অবতরণ করেছে।" অলড্রিন এবং আর্মস্ট্রং পিঠে একটি দুর্দান্ত হ্যান্ডশেক দিয়ে উদ্‌যাপন করলেন। এরপরে তারা জরুরী কাজগুলির চেকলিস্টে ফিরে আসে, যদি জরুরী উত্তোলনের প্রয়োজনীয়তা তৈরি হয়। আর্মস্ট্রং স্পর্শ ডাউন হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করার পরে, ডিউক পুনরায় স্বীকৃতি জানালেন, বিমানের ক্রুদের ত্রাণ সম্পর্কে একটি মন্তব্য যুক্ত করে: "রজার, প্রশান্তি! আমরা আপনাকে মাটিতে কপি করেছি অনেক." অবতরণের সময় আর্মস্ট্রংয়ের হার্টের হার প্রতি মিনিটে ১০০ থেকে ১৫০ বীট পর্যন্ত ছিল।

চাঁদে অবতরণসম্পাদনা
আর্মস্ট্রং চাঁদের পৃষ্ঠদেশের বর্ণনা দিচ্ছেন

উড়ানের পরিকল্পনায় মডিউলটি ছাড়ার আগে ক্রূর বিশ্রামের সময়ের কথা বলা হয়েছিল, তবে আর্মস্ট্রং সন্ধ্যার আগেই সময়টি স্থানান্তরিত করার জন্য বলেছিলেন। যখন তিনি এবং অলড্রিন বাইরে যেতে প্রস্তুত ছিলেন, তখন "ঈগল" যানটি খুলে যায় এবং আর্মস্ট্রং সিঁড়ি দিয়ে চাঁদে নামা শুরু করেন। মইয়ের নীচে আর্মস্ট্রং বলেছিল, "আমি এখন এলএম [চন্দ্র মডিউল] সরিয়ে নেব"। তিনি তার বাম বুটটি চন্দ্র পৃষ্ঠের উপরে স্থাপন করলেন ২১ জুলাই, ১৯৬৯ সালে, তারপর বলেছিলেন, "এটি [একটি] মানুষের পক্ষে একটি ছোট পদক্ষেপ, মানবজাতির জন্য একটি বিশাল অগ্রযাত্রা।" আর্মস্ট্রংয়ের চাঁদে প্রথম পদক্ষেপের সঠিক সময়টি অস্পষ্ট।

আর্মস্ট্রং নিজের বিখ্যাত উক্তিটি নিজেই প্রস্তুত করেছিলেন চন্দ্র অভিযানের পরে একটি সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছিলেন যে তিনি "এলএম ছাড়ার ঠিক আগে" এই শব্দটি বেছে নিয়েছিলেন। ১৯৮৩ এর এস্কায়ার ম্যাগাজিনের একটি সাক্ষাৎকারে তিনি জর্জ প্লিম্পটনের কাছে ব্যাখ্যা করেছিলেন: "আমি সর্বদা জানতাম যে পৃথিবীতে প্রত্যাবর্তনের পক্ষে একটি ভাল সম্ভাবনা রয়েছে, তবে আমি ভেবেছিলাম চাঁদের পৃষ্ঠের উপরে একটি সফল স্পর্শের সম্ভাবনা ছিল — ফিফটি-ফিফটি ... বেশিরভাগ লোকেরা বুঝতে পারে না যে মিশনটি কতটা কঠিন ছিল। সুতরাং আমার কাছে মনে হয়নি যে আমরা অবতরণ করতে চাইলে কিছু বলার চিন্তাভাবনা করার খুব একটা বিষয় ছিল।" ২০১২ সালে, তার ভাই ডিন আর্মস্ট্রং বলেছিলেন যে নীল তাকে লঞ্চের কয়েক মাস আগে একটি খসড়া দেখিয়েছিল। ঐতিহাসিক অ্যান্ড্রু চইকিন, যিনি আর্মস্ট্রংকে ১৯৮৮ সালে তাঁর ম্যান অন দ্য মুন বইয়ের জন্য সাক্ষাৎকার দিয়েছিলেন, তিনি বিতর্ক করেছেন যে আর্মস্ট্রং মিশনের সময়ই এই লাইনটি ধারণ করেছিলেন বলে দাবি করেছিলেন।

আর্মস্ট্রংয়ের চাঁদ থেকে পাঠানো রেকর্ডিংগুলি "man" শব্দটির আগে "a" এর অনির্দিষ্টবাচক পদাশ্রিত নির্দেশকেত প্রমাণ সরবরাহ করে না।

আর্মস্ট্রং বলেছিলেন যে তিনি কখনও এ জাতীয় ভুল করবেন না, তবে রেকর্ডিংয়ের কথা বারবার শোনার পরে অবশেষে তিনি স্বীকার করেছেন যে তিনি অবশ্যই "a" বাদ দিয়েছেন। পরে তিনি বলেছিলেন যে তিনি আশাবাদী যে "ইতিহাস আমাকে উচ্চারণ ছাড়ার জন্য শিগগির ছাড়িয়ে দেবে এবং বুঝতে হবে যে এটি অবশ্যই উদ্দেশ্যযুক্ত ছিল, যদিও এটি বলা না-থাকলেও এটি সম্ভবত ছিল"। এরপরে রেকর্ডিংয়ের শব্দ বিশ্লেষণ অনুপস্থিত "a" উপস্থিতি প্রকাশ করে কিনা তা নিয়ে দাবি ও পাল্টা দাবি রয়েছে; অস্ট্রেলিয়ান কম্পিউটার প্রোগ্রামার, পিটার শান ফোর্ড একটি ডিজিটাল অডিও বিশ্লেষণ পরিচালনা করেছিলেন এবং দাবি করেছেন যে আর্মস্ট্রং "a man" বলেছিলেন, কিন্তু "যোগাযোগ" তখনকার যোগাযোগ প্রযুক্তির সীমাবদ্ধতার কারণে শ্রবণযোগ্য ছিল না। আর্মস্ট্রংয়ের অনুমোদিত জীবনীবিদ ফোর্ড এবং জেমস আর হ্যানসেন এই গবেষণাগুলি আর্মস্ট্রং এবং নাসার প্রতিনিধিদের সামনে উপস্থাপন করেছেন, যারা তাদের নিজস্ব বিশ্লেষণ করেছিলেন। আর্মস্ট্রং ফোর্ডের বিশ্লেষণকে "প্ররোচক" বলে মনে করেন। ভাষাবিদ ডেভিড বিভার এবং মার্ক লিবারম্যান তাদের ফোর্ডের দাবী সম্পর্কে সন্দেহের কথা লিখেছিলেন ব্লগ ল্যাঙ্গুয়েজ লগে। পিয়ার পর্যালোচিত একটি সমীক্ষা আবার শেষ করেছে যে আর্মস্ট্রং নিবন্ধটি অন্তর্ভুক্ত করেছিল। নাসার অনুলিপিতে বন্ধনীতে "a" শব্দটি প্রদর্শন করা চালিয়ে যাচ্ছে।

আর্মস্ট্রং যখন ঘোষণা দিয়েছিলেন, তখন ভয়েস অফ আমেরিকা বিবিসি এবং বিশ্বব্যাপী আরও অনেক স্টেশন সরাসরি সম্প্রচার করেছিল। আনুমানিক ৫৩০ মিলিয়ন মানুষ এই ইভেন্টটি দেখেছিল, বিশ্বের প্রায় ৩.৬ বিলিয়ন জনসংখ্যার মধ্যে ২০ শতাংশ।

আর্মস্ট্রংয়ের প্রথম পদক্ষেপের প্রায় ১৯ মিনিটের পরে, অলড্রিন তার সাথে যোগ দিয়েছিলেন, তিনি চাঁদে হাঁটার দ্বিতীয় মানুষ হয়েছিলেন। চাঁদের পৃষ্ঠে কোনও ব্যক্তি কীভাবে সহজেই কাজ করতে পারে তার তদন্তের কাজটি তারা শুরু করেছিলেন। আর্মস্ট্রং বিমানের স্মরণে একটি ফলক উন্মোচন করেছিলেন এবং অ্যালড্রিনের সাথে আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের পতাকা লাগিয়েছিলেন। যদিও আর্মস্ট্রং চেয়েছিল যে পতাকাটি চন্দ্রপৃষ্ঠের উপরে ছড়িয়ে দেওয়া হোক, এটি আনুভূমিকভাবে ধরে রাখতে ধাতব রড ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। পতাকা লাগানোর অল্প সময়ের মধ্যেই রাষ্ট্রপতি রিচার্ড নিকসন তাঁর কার্যালয় থেকে টেলিফোনে তাদের সাথে কথা বলেছেন। তিনি প্রায় এক মিনিট কথা বলেছিলেন, তার পরে আর্মস্ট্রং প্রায় ত্রিশ সেকেন্ড সাড়া ফেলেছিল। অ্যাপোলো ১১ ফটোগ্রাফিক রেকর্ডে আর্মস্ট্রংয়ের কেবল পাঁচটি চিত্রই আংশিকভাবে প্রদর্শিত বা প্রতিফলিত হয়েছে। আর্মস্ট্রংয়ের একক হাসেলব্ল্যাড ক্যামেরা দিয়ে বেশিরভাগ ফটোগ্রাফিক কাজ সম্পাদন করে এই মিশনের পরিকল্পনা করা হয়েছিল।

প্রাথমিক অ্যাপোলো বৈজ্ঞানিক পরীক্ষা প্যাকেজ স্থাপনে সহায়তা করার পরে, আর্মস্ট্রং এলএম থেকে ৬৫ গজ (৫৯ মিটার) পূর্বে ইস্ট ক্রেটার নামে পরিচিত, যেখানে সবচেয়ে বেশি দূরত্ব মিশনে এলএম থেকে যাত্রা করেছিল। তাঁর চূড়ান্ত কাজটি ছিল অলড্রিনকে স্মরণার্থ আইটেমগুলির একটি ছোট প্যাকেজ সোভিয়েত মহাকাশচারী ইউরি গাগারিন এবং ভ্লাদিমির কোমারভ এবং অ্যাপোলো ১ নভোচারী গ্রিসম, হোয়াইট এবং চ্যাফির কাছে স্মরণ করিয়ে দেওয়া। অ্যাপোলো ১১'র EVA আড়াই ঘণ্টা চলল। পরবর্তী পাঁচটি ল্যান্ডিংয়ের প্রত্যেককেই ক্রমবর্ধমান দীর্ঘকালীন EVA সময়ের বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিল; অ্যাপোলো ১৭ এর ক্রু চন্দ্র পৃষ্ঠটি অন্বেষণে ২২ ঘণ্টা বেশি সময় ব্যয় করেছিল। ২০১০ সালের একটি সাক্ষাৎকারে আর্মস্ট্রং ব্যাখ্যা করেছিলেন যে নাসা তাদের চাঁদের পদচারণাকে সীমাবদ্ধ করেছে কারণ তারা স্পষ্ট নয় যে কীভাবে মহাকাশ স্যুট চাঁদের অত্যন্ত উচ্চ তাপমাত্রা মোকাবেলা করতে পারে।

পৃথিবীতে ফিরে আসাসম্পাদনা

তাঁরা লুনার মডিউলে পুনরায় প্রবেশের পরে তা বন্ধ করে সিল করে দেওয়া হয়। পৃথিবীতে আগমনের প্রস্তুতি নেওয়ার সময় আর্মস্ট্রং এবং অ্যালড্রিন আবিষ্কার করেছিলেন যে তাদের অত্যন্ত ভারী স্পেসস্যুটের জ্বলন স্যুইচটি ভেঙে গিয়েছে; একটি কলমের অংশ ব্যবহার করে তারা সার্কিট ব্রেকারে চাপ দেয়। এরপরে চন্দ্রযান ঈগল চন্দ্র কক্ষপথে তার উপস্থাপিত অব্যাহত রাখে, যেখানে এটি কলাম্বিয়া, কমান্ড এবং পরিষেবা মডিউলটি দিয়ে কাজ করেছিল। তিন নভোচারী পৃথিবীতে ফিরে এসে প্রশান্ত মহাসাগরে অবতরণ করেন। ইউএসএস হর্নেট তাদের উদ্ধার করে।

তারা চাঁদ থেকে কোন সংক্রমণ বা রোগ বহন করেছেন কিনা তা নিশ্চিত করার জন্য ১৮ দিনের কোয়ারেন্টিন থেকে মুক্তি পাওয়ার পরে, ক্রুটিকে ৩৮-দিনের "জায়ান্ট লিপ" সফরের অংশ হিসাবে আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র এবং সারা বিশ্বে ভ্রমণ করানো হয়েছিল।

১৩ই আগস্ট, তিনজন নভোচারীর নিউইয়র্ক এবং শিকাগোতে "টিকার-টেপ প্যারেডে" বক্তৃতার মাধ্যমে এই ভ্রমণ শুরু হয়েছিল, যেখানে আনুমানিক মিলিয়নসংখ্যক অংশগ্রহণকারী ছিল। একই সন্ধ্যায় লস অ্যাঞ্জেলেসে বিমানের আনুষ্ঠানিকভাবে একটি রাষ্ট্রীয় নৈশভোজ অনুষ্ঠিত হয়েছিল, এতে কংগ্রেসের সদস্য, ৪৪ জন গভর্নর, আমেরিকার প্রধান বিচারপতি এবং ৮৩ টি দেশের রাষ্ট্রদূত উপস্থিত ছিলেন। রাষ্ট্রপতি নিক্সন এবং সহ-রাষ্ট্রপতি অ্যাগনিউ প্রতিটি মহাকাশচারীকে প্রেসিডেন্সিয়াল মেডেল অফ ফ্রিডম উপহার দিয়েছিলেন।

ট্যুরের পরে আর্মস্ট্রং মূলত ভিয়েতনামে বব হোপের ১৯৬৯ সালের ইউএসও শো-তে অংশ নিয়েছিলেন। ১৯৭০ সালের মে মাসে আর্মস্ট্রং সোভিয়েত ইউনিয়নে ভ্রমণ করেছিলেন আন্তর্জাতিক মহাকাশ গবেষণা কমিটির ১৩ তম বার্ষিক সম্মেলনে একটি বক্তব্য উপস্থাপনের জন্য; পোল্যান্ড থেকে লেনিনগ্রাদ পৌঁছানোর পরে তিনি মস্কো ভ্রমণ করেছিলেন যেখানে তিনি প্রিমিয়ার আলেক্সি কোসিগিনের সাথে দেখা করেছিলেন। দিনের শেষে, তিনি সয়ুজ ৯-এর প্রবর্তনের একটি ভিডিও দেখে অবাক হয়েছিলেন কারণ আর্মস্ট্রং তা পূর্বে এত কাছ থেকে দেখেননি। ভ্যালেন্টিনা তেরেশকোভা এবং তার স্বামী আন্দ্রিয়ান নিকোল্যায়েভ তাঁর অভ্যর্থনা বোর্ডে ছিলেন।

চন্দ্রযাত্রার পরের জীবনসম্পাদনা

 
প্রথম নারী মহাকাশচারী ভ্যালেন্টিনা তেরেসকোভা আর্মস্ট্রং-কে ব্যাজ পরিয়ে দিচ্ছেন।

শিক্ষকতাসম্পাদনা

অ্যাপোলো ১১ এর অল্প সময় পর, আর্মস্ট্রং ঘোষণা করেন যে তিনি আবার মহাকাশে উড়বার পরিকল্পনা করবেন না। তিনি এ.আর.পি.এ.-তে অ্যাডভান্সড রিসার্চ অ্যান্ড টেকনোলজির অফিসের জন্য অ্যারোনটিক্সের ডেপুটি অ্যাসোসিয়েট অ্যাডমিনিস্ট্রেটর নিযুক্ত হন, এক বছরের জন্য এই পদে দায়িত্ব পালন করেন, তারপরে পদত্যাগ করেন এবং ১৯৭১ সালে নাসা থেকেও পদত্যাগ করেন। তিনি সিনসিনাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের মহাকাশ প্রকৌশল বিভাগে একটি শিক্ষকতা করেছিলেন। সিনমিনাটি বিশ্ববিদ্যালয়কে তিনি শিক্ষকতার জন্য বেছে নিয়েছিলেন কারণ সিনসিনটির একটি ছোট মহাকাশ বিভাগ ছিল। তিনি বলেছিলেন যে তিনি আশা করেছিলেন যে সেখানকার অনুষদ বিরক্ত হবে না যে তিনি কেবলমাত্র ইউএসসি স্নাতকোত্তর ডিগ্রি নিয়ে সরাসরি অধ্যাপকত্বের পদে এসেছেন। বছরখানেক আগে তিনি স্নাতকোত্তর ডিগ্রি শুরু করেছিলেন এবং অ্যাপোলো ১১ এর পরে এটি সম্পন্ন করেছিলেন। এপোলো-১১ সম্পর্কিত থিসিসের পরিবর্তে অ্যাপোলোর বিভিন্ন দিক নিয়ে একটি প্রতিবেদন উপস্থাপন করেই তিনি স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন।

সিনসিনাটিতে, আর্মস্ট্রং ছিলেন অ্যারোস্পেস ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের অধ্যাপক। তিনি ভারী শিক্ষার বোঝা নিয়েছিলেন, ক্লাস করিয়েছিলেন এবং দুটি স্নাতক-স্তরের বিভাগ সৃজন করেছিলেন: বিমানের নকশা এবং পরীক্ষামূলক ফ্লাইট মেকানিক্স- বিষয়দুটি। তিনি একজন ভাল শিক্ষক হিসাবে বিবেচিত ছিলেন। আট বছর পড়াশোনা করার পরে, আর্মস্ট্রং ১৯৮০ সালে পদত্যাগ করেন। বিশ্ববিদ্যালয়টি যখন একটি স্বাধীন পৌর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একটি রাজ্য বিদ্যালয়ে পরিবর্তিত হয়। তিনি অনুষদে অর্ধ-সময় শেখানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। আর্মস্ট্রংয়ের মতে, তিনি একই পরিমাণ কাজ করেছিলেন তবে অর্ধেক বেতন পেয়েছিলেন। ১৯৭৯ সালে, তার আয়ের ১০% এরও কম এসেছিল তাঁর বিশ্ববিদ্যালয়ের বেতন থেকে। তিনি কেন চলে গেলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারীরাও তা জানতেন না।

'নাসা’ কমিশনসমূহসম্পাদনা

১৯৭০ সালে, অ্যাপোলো ১৩-এর একটি বিস্ফোরণে এর চন্দ্র অবতরণ বাতিল করে দেওয়ার পরে, আর্মস্ট্রং এর তদন্তের অংশ ছিলেন। তিনি নির্ধারণ করেছিলেন যে অক্সিজেন ট্যাঙ্কের একটি ২৮-ভোল্টের তাপস্থাপী সুইচ, যা ৬৫-ভোল্ট সংস্করণে প্রতিস্থাপন করা হয়েছিল বলে ধারণা করা হয়েছিল, তাতে বিস্ফোরণ ঘটে। প্রতিবেদনে ৪০ মিলিয়ন ডলার ব্যয়ে পুরো ট্যাঙ্কটি নতুন করে ডিজাইন করার পরামর্শ দেওয়া হয়। আর্মস্ট্রং সহ অনেক নাসার পরিচালক এই সুপারিশটির বিরোধিতা করেছিলেন, যেহেতু কেবলমাত্র থার্মোস্ট্যাট স্যুইচই সমস্যা তৈরি করেছিল। তারা যুক্তিটি হারিয়েছিল এবং ট্যাঙ্কগুলি নতুনভাবে নকশাকৃত হয়েছিল।

১৯৮৬ সালে, রাষ্ট্রপতি রোনাল্ড রেগান আর্মস্ট্রংকে স্পেস শাটল চ্যালেঞ্জার ধ্বংস তদন্তে রজার্স কমিশনে যোগ দিতে বলেছিলেন। আর্মস্ট্রংকে কমিশনের ভাইস চেয়ারম্যান করা হয়েছিল এবং বিপর্যয়ের কারণ নির্ধারণে সহায়তা করার জন্য তিনি বছরের পর বছর ধরে ব্যক্তিগত সাক্ষাৎকার নিয়েছিলেন। তিনি কমিটির সুপারিশগুলিকে নয়টিতে সীমাবদ্ধ করতে সহায়তা করেছিলেন, বিশ্বাস করে যে সেখানে যদি অনেক বেশি হত, নাসা তাদের উপর কোনও পদক্ষেপ নেবে না।

 
২০০৪ সালের ২১শে জুলাই, এপোলো-১১ উড্ডয়নের ৩৫ তম বার্ষিকীতে হোয়াইট হাউজে মাইকেল কলিন্স, রাষ্ট্রপতি জর্জ বুশ, নিল আর্মস্ট্রং এবং বাজ আলড্রিন

মাইকেল কলিনস, রাষ্ট্রপতি জর্জ ডাব্লিউ বুশ, নীল আর্মস্ট্রং এবং বাজ অ্যালড্রিন ২১ জুলাই, ২০০৪, অ্যাপোলো ১১ বিমানের ৩৫ তম বার্ষিকী উদ্‌যাপনের সময় আর্মস্ট্রংকে একবিংশ শতাব্দীতে আমেরিকান বেসামরিক স্পেসফ্লাইটের পরিকল্পনা তৈরি করার জন্য রাষ্ট্রপতি রেগান চৌদ্দ সদস্যের কমিশনে নিযুক্ত করেছিলেন। কমিশনের সভাপতিত্ব ছিলেন নাসার প্রাক্তন প্রশাসক ডঃ থমাস ও. পেইন, যার সাথে আর্মস্ট্রং অ্যাপোলো প্রোগ্রাম চলাকালীন কাজ করেছিলেন। এই কমিশনটি Pioneering the Space Frontier: The Report on the National Commission on Space নামে একটি বই প্রকাশ করেছিল, এতে ২০০৬ সালের মধ্যে স্থায়ী চন্দ্র ঘাঁটির প্রস্তাব করা হয় এবং ২০১৫ সালের মধ্যে মঙ্গল গ্রহে মানুষ প্রেরণ করার সুপারিশ করা হয়। অবশ্য সুপারিশগুলি বেশিরভাগই উপেক্ষিত হয়েছিল।

আর্মস্ট্রং এবং তার স্ত্রী ২০০৩ সালে প্রেসিডেন্ট জর্জ ডাবলিউ. বুশের আমন্ত্রণে স্পেস শাটল কলম্বিয়া বিপর্যয়ের শিকার মানুষের জন্য স্মৃতিসৌধে যোগ দিয়েছিলেন।

ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ডসম্পাদনা

১৯৭১ সালে আর্মস্ট্রং নাসা থেকে অবসর নেওয়ার পরে তিনি বেশ কয়েকটি ব্যবসায়ের মুখপাত্র হিসাবে কাজ করেছিলেন। তাঁর সাথে সফলতার সাথে যোগাযোগ করা প্রথম সংস্থাটি হলেন ক্রাইসলার, যার জন্য তিনি ১৯৭৯ সালের জানুয়ারিতে শুরু হয়ে বিজ্ঞাপনে উপস্থিত হয়েছিলেন। আর্মস্ট্রং ভেবেছিলেন তাদের একটি শক্তিশালী প্রকৌশল বিভাগ রয়েছে। পড়ে সংস্থাটি আর্থিক সমস্যায় পড়েছিলেন। পরে তিনি জেনারেল টাইম কর্পোরেশন এবং আমেরিকার ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশন সহ অন্যান্য আমেরিকান সংস্থার মুখপাত্র হিসাবে কাজ করেছিলেন। তিনি কেবল আমেরিকান সংস্থার মুখপাত্র হিসাবে কাজ করেছিলেন।

মুখপাত্র হিসাবে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি তিনি বেশ কয়েকটি সংস্থার পরিচালনা পর্ষদেও দায়িত্ব পালন করেছিলেন। আর্মস্ট্রংয়ে Gates Learjet নামক কোম্পানির বোর্ডে যোগ দিয়েছিল তাদের প্রযুক্তিগত কমিটির সভাপতি হিসেবে। তিনি তাদের নতুন এবং পরীক্ষামূলক জেটবিমান উড়িয়ে আরোহণ এবং উচ্চতার রেকর্ডও স্থাপন করেছিলেন। আর্মস্ট্রং ১৯৭৩ সালে সিনসিনাটি গ্যাস অ্যান্ড ইলেকট্রিক কোম্পানির বোর্ডের সদস্য হন। তারা পারমাণবিক শক্তিতে আগ্রহী ছিলেন এবং সংস্থার প্রযুক্তিগত দক্ষতা বাড়াতে চেয়েছিলেন। তিনি সিনসিনাটিতে অবস্থিত টাফ্ট ব্রডকাস্টিংয়ের বোর্ডেও কাজ করেছিলেন। আর্মস্ট্রং রজার্স কমিশনের ভাইস-চেয়ারম্যান হওয়ার পরে ১৯৮৯ সালে থিয়োকলের বোর্ডে যোগদান করেছিলেন স্পেস শাটল চ্যালেঞ্জারের দুর্ঘটনার পর। তিনি এ্যারোস্পেস বোর্ডে, ১৯৭৮ সালে প্রথম ইউনাইটেড এয়ারলাইনস এবং পরে ১৯৮০ সালে ইটন কর্পোরেশনে দায়িত্ব পালন করেন। ইটনের একটি সহযোগী সংস্থা, এআইএল সিস্টেমস-এর পরিচালনা পর্ষদের সভাপতির দায়িত্ব নিতেও তাকে বলা হয়েছিল। তিনি ২০০২ সালে অবসর গ্রহণের আগ পর্যন্ত ইডিও কর্পোরেশনের সংস্থার সভাপতিত্ব করেছিলেন।

উত্তর মেরুতে গমনসম্পাদনা

১৯৮৫ সালে, পেশাদার অভিযাত্রী 'মাইক ডান' উত্তর মেরুতে "সর্বশ্রেষ্ঠ অভিযাত্রী" বলে বিবেচিত পুরুষদের নিয়ে যাওয়ার জন্য একটি ট্রিপ আয়োজন করেছিলেন। এই গ্রুপের মধ্যে আর্মস্ট্রং, এডমন্ড হিলারি, হিলারির ছেলে পিটার, স্টিভ ফসেট, এবং প্যাট্রিক মোরও ছিল। তারা ১৯৮৫ সালের এপ্রিলে মেরুতে এসে পৌঁছেছিল। আর্মস্ট্রং বলেছিলেন যে এটি কেবল চাঁদ থেকেই দেখেছিলেন তাই এটি মাটি থেকে দেখতে কেমন, তা দেখার জন্য তিনি আগ্রহী।

পাবলিক প্রোফাইলসম্পাদনা

 
১৯৯৯ সালে আর্মস্ট্রং

আর্মস্ট্রংয়ের পরিবার তাকে "লাজুক আমেরিকান নায়ক" হিসাবে বর্ণনা করেছিলেন। তিনি পরবর্তী জীবনে তাঁর জীবনকে নীচু করে রেখেছিলেন এবং বিশ্বাস করেছিলেন যে তিনি একজন নিঃসঙ্গ ব্যক্তি। আর্মস্ট্রংয়ের নম্রতার কথা স্মরণ করে, পৃথিবী প্রদক্ষিণকারী প্রথম আমেরিকান জন গ্লেন সিএনএনকে বলেছিলেন:

আর্মস্ট্রং সাক্ষাৎকার এবং সর্বজনীন উপস্থিতির জন্য বেশিরভাগ অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করেছিল। মাইকেল কলিন্স তাঁর কেয়ারিং দ্য ফায়ার বইয়ে আর্মস্ট্রং-এর নম্রতার কথা বলেছিলেন।

অ্যান্ড্রু চইকিন অ্যা ম্যান অন মুন বইতে বলেছেন যে আর্মস্ট্রং একটি প্রোফাইল রেখেছিলেন তবে তিনি কোনও স্বীকৃতিপ্রাপ্ত ছিলেন না, তিনি সাক্ষাৎকারে অংশ নেওয়ার কথা বলেছিলেন, ক্রাইস্লারের বিজ্ঞাপনে এবং একটি কেবল টেলিভিশন সিরিজ হোস্ট করেছিলেন।

বহু বছর ধরে, তিনি তাদের সাফল্যের জন্য নতুন ইগল স্কাউটকে অভিনন্দন জানিয়ে চিঠি লিখেছিলেন, তবে ১৯৯০ এর দশকে এই অনুশীলনটি ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন কারণ তিনি অনুভব করেছিলেন যে এই চিঠিগুলি স্কাউট জানেন তাদের দ্বারা লেখা উচিত। (২০০৩ সালে তিনি ৯৫০ টি অভিনন্দনের অনুরোধ পেয়েছিলেন) এটি তাঁর পুনরাবৃত্তির কল্পকাহিনীকে অবদান রাখে আর্মস্ট্রং প্রথম দিনের প্রচ্ছদ ব্যতীত সবকিছু অটোগ্রাফ দিয়ে ব্যবহার করতেন। ১৯৯৩ সালের দিকে, তিনি জানতে পারেন যে তার স্বাক্ষরগুলি অনলাইনে বিক্রি হচ্ছে এবং তাদের বেশিরভাগই প্রতারণা। তারপর তিনি অটোগ্রাফ দেওয়া বন্ধ করে দিয়েছিলেন।

ব্যক্তিগত জীবনসম্পাদনা

 
২০১২ সালে আর্মস্ট্রং

গ্লেন এবং হ্যারিসন স্মিট সহ কিছু প্রাক্তন নভোচারী নাসা ছেড়ে যাওয়ার পরে রাজনৈতিক কেরিয়ার সন্ধান করেছিলেন। ডেমোক্র্যাটিক এবং রিপাবলিকান উভয় পক্ষের দলই আর্মস্ট্রংয়ের কাছে যোগাযোগ করেছিল, কিন্তু অফার প্রত্যাখ্যান করে। তিনি রাষ্ট্রের অধিকারকে সমর্থন করেছিলেন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে "বিশ্বের পুলিশ" হিসাবে অভিনয় করার বিরোধিতা করেছিলেন।

আর্মস্ট্রং যখন ১৯৫০ এর দশকের শেষের দিকে বয় স্কাউট সৈন্যদের নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য স্থানীয় মেথোডিস্ট গির্জার কাছে আবেদন করেছিলেন, তখন তিনি তাঁর ধর্মীয় অনুষঙ্গকে "ডিস্ট" বলে দিয়েছেন। তাঁর মা পরে বলেছিলেন যে তাঁর ধর্মীয় দৃষ্টিভঙ্গি পরবর্তী জীবনে তাঁর দুঃখ ও সঙ্কটের কারণ হয়েছিল। তিনি আরও ধার্মিক ছিলেন। চাঁদ থেকে ফিরে আসার পরে আর্মস্ট্রং মার্কিন কংগ্রেসের সামনে একটি ভাষণ দিয়েছিলেন যাতে তিনি তাকে "স্রষ্টার দুর্দান্ত কিছু দৃষ্টিভঙ্গি" দেখার সুযোগ দেওয়ার জন্য তাদের ধন্যবাদ জানান। ১৯৮০ এর দশকের গোড়ার দিকে, তিনি একটি গুজবের শিকার হন যাতে দাবি করা হয়, তিনি চাঁদে হেঁটে যাওয়ার সময় আজান শুনে ইসলাম গ্রহণ করেছিলেন। ইন্দোনেশীয় গায়ক সুহেমি "গেমার সুরা আদজান দি বুলান"(চাঁদে আজানের প্রতিধ্বনি) নামে একটি গান লিখেছিলেন যা আর্মস্ট্রংয়ের কথিত রূপান্তরকে বর্ণনা করে এবং গানটি ১৯৮৩ সালে জাকার্তা নিউজলেটে ব্যাপক আলোচিত হয়েছিল। মিশর ও মালয়েশিয়ায় একই রকম প্রতারণার গল্প দেখা গিয়েছিল। ১৯৮৩ সালের মার্চ মাসে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতর মুসলিম দেশগুলিতে দূতাবাস এবং কনস্যুলেটের উদ্দেশ্যে একটি বার্তা জারি করে বলেছিল যে আর্মস্ট্রং ইসলাম গ্রহণ করেন নি।

১৯৭২ সালে, আর্মস্ট্রং ক্ল্যান আর্মস্ট্রংয়ের ঐতিহ্যবাহী আসন স্কটিশ শহর ল্যাংহোলম সফর করেছিলেন। তাকে বার্গের প্রথম স্বাধীন ব্যক্তি করা হয়েছিল, এবং আনন্দের সাথে শহরটিকে তার বাড়ি ঘোষণা করা হয়েছিল। জনতার মনোরঞ্জনের জন্য, জাস্টিস অফ পিস একটি অনির্দিষ্ট প্রত্নতাত্ত্বিক প্রত্নতাত্ত্বিক ৪০০ বছরের পুরানো আইন থেকে পড়েছিলেন, যাতে তাকে কোনও আর্মস্ট্রং পাওয়া যায়নি। শহরে।

আর্মস্ট্রং আনন্দের জন্য বিমান চালনা করতেন। আন্তর্জাতিক গ্লাইডিং কমিশন থেকে চঁন্দ্রাভিযানটি 'দুটি হীরা-খচিত' সোনার ব্যাজ অর্জন করার আগে তিনি গ্লাইডারসমূহ উপভোগ করতেন। তিনি তার 70 এর দশকেও ইঞ্জিনবিহীন বিমান চালিয়ে যেতে লাগলেন।

১৯৭৮ সালের নভেম্বরে তাঁর খামারে কাজ করার সময় আর্মস্ট্রং তার শস্যের ট্রাকের পিছন থেকে ঝাঁপিয়ে পড়ে এবং তার বিয়ের আংটিটি তার চাকাতে ধরে, বামের আংটির আঙুলটি ছিঁড়ে ফেলে। তিনি এই বিচ্ছিন্ন টিপটি সংগ্রহ করেছিলেন, তা বরফের মধ্যে রেখেছিলেন এবং কেনটাকি লুইভিলির ইহুদি হাসপাতালে সার্জনদের সাথে এটি পুনরায় সংযুক্ত করেছিলেন। ১৯৯১ সালের ফেব্রুয়ারিতে কলোরাডোতে এস্পেনে বন্ধুদের সাথে স্কি করতে গিয়ে তিনি হালকা হার্ট অ্যাটাক করেন।

আর্মস্ট্রং এবং তার প্রথম স্ত্রী জ্যানেট ১৯৯০ সালে আলাদা হয়ে গিয়েছিলেন এবং বিয়ের ৩৮ বছর পর ১৯৯৪ সালে তার বিবাহবিচ্ছেদ ঘটে। 1992 সালে গল্ফ টুর্নামেন্টে যখন তিনি একসাথে বসেছিলেন তখন তিনি তাঁর দ্বিতীয় স্ত্রী ক্যারল হেল্ড নাইটের সাথে দেখা করেছিলেন। প্রাতঃরাশ তিনি আর্মস্ট্রংকে একটু বললেন, কিন্তু তিনি কী করছেন সে জিজ্ঞাসা করার জন্য তিনি দুই সপ্তাহ পরে তাকে ফোন করেছিলেন। তিনি জবাব দিয়েছিলেন যে তিনি একটি চেরি গাছ কাটছিলেন এবং তিনি ৩৫ মিনিট পরে তার বাড়িতে পৌঁছেছিলেন সহায়তা করার জন্য। ওহাইওতে তাদের বিয়ে হয়েছিল ১৯৯৪ সালের ১২ ই জুন, এবং ক্যালিফোর্নিয়ার সান ইয়সিড্রো রাঞ্চে তাদের দ্বিতীয় অনুষ্ঠান হয়েছিল। তারা ওহাইও ইন্ডিয়ান হিলে বাস করত। ক্যারোলের সাথে তার বিবাহের মধ্য দিয়ে তিনি ভবিষ্যতের নিউইয়র্ক মেটসের জেনারেল ম্যানেজার ব্রোডি ভ্যান ওয়াগেনেনের শ্বশুর ছিলেন।

২০০৫ সালের মে মাসে, আর্মস্ট্রং তার ২০ বছরের নাপিত মার্ক সাইজমোরের সাথে একটি আইনি বিবাদে জড়িয়ে পড়েন। আর্মস্ট্রংয়ের চুল কাটার পরে, সাইজমোর আর্মস্ট্রংয়ের অজান্তে এটির কিছু সংগ্রহকারীকে ৩০০০ ডলারে বিক্রি করেছিলেন আর্মস্ট্রং যখন চুল না ফেরায় বা আর্মস্ট্রংয়ের বাছাইয়ের কোনও দাতব্য হিসাবে অর্থ প্রদান না করে তবে সাইজমোরের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার হুমকি দেন। সাইজমোর, চুল পুনরুদ্ধার করতে অক্ষম, উপার্জনটি দান করে।

অসুস্থতা ও মৃত্যুসম্পাদনা

 
আর্মস্ট্রং-এর শিশু বয়সের ছবি

কর্নারি ধমনীর রোগ থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য আর্মস্ট্রংয়ের বাইপাস সার্জারি করা হয়েছিল যদিও তিনি সুস্থ হয়ে উঠছেন বলে জানা গিয়েছিল, তিনি হাসপাতালে জটিলতা তৈরি করেছিলেন এবং ২৫ আগস্ট, ওহাইওর ওপেনের সিনসিনাটিতে তাঁর মৃত্যু হয়েছিল। হোয়াইট হাউস একটি বিবৃতি প্রকাশ করেছে যাতে রাষ্ট্রপতি ওবামা আর্মস্ট্রংকে "আমেরিকান নায়কদের মধ্যে শ্রেষ্ঠতম-কেবল তাঁর সময়ের নয়, সর্বকালের" হিসাবে বর্ণনা করেছিলেন। আরও বলা হয় যে আর্মস্ট্রং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকদের আকাঙ্ক্ষা বহন করেছিল এবং "মানবিক অর্জনের এমন একটি মুহূর্ত যা কখনও ভুলে যাবে না" প্রদান করেছিল।

আর্মস্ট্রংয়ের পরিবার তাকে একটি বিবৃতি প্রকাশ করেছিল যে "একজন অনিচ্ছুক আমেরিকান নায়ক [যিনি] তাঁর জাতির গর্বের সাথে সেবা করেছিলেন, নৌবাহিনী যোদ্ধা, পরীক্ষামূলক পাইলট এবং মহাকাশচারী হিসাবে ... আমরা যখন খুব ভাল লোকের মৃত্যুর জন্য শোক করেছি, আমরাও উদ্‌যাপন করেছি। তাঁর অসাধারণ জীবন এবং আশা যে এটি বিশ্বজুড়ে তরুণদের স্বপ্ন বাস্তবায়িত করার জন্য কঠোর পরিশ্রম করা, সীমা সন্ধান করতে ইচ্ছুক হতে এবং নিঃস্বার্থভাবে নিজের চেয়ে বড় কারণকে সেবা করতে উদাহরণ হিসাবে কাজ করে। নীলকে সম্মান জানাতে তারা কী করতে পারে জিজ্ঞাসা করতে পারে, আমাদের কাছে একটি সহজ অনুরোধ। তাঁর সেবা, সিদ্ধি ও বিনয়ের উদাহরণটিকে সম্মান করুন এবং পরের বার আপনি যখন একটি পরিষ্কার রাতে বাইরে হাঁটবেন এবং চাঁদটি আপনার দিকে তাকিয়ে দেখছেন, নীল আর্মস্ট্রংয়ের কথা ভাবুন"

 
সমুদ্রে আর্মস্ট্রং-এর মৃতদেহ

বাজ অ্যালড্রিন আর্মস্ট্রংকে "একজন সত্যিকারের আমেরিকান নায়ক এবং আমি জানতাম যে সেরা পাইলট" বলেছিলেন এবং বলেছেন যে তিনি হতাশ হয়েছিলেন যে তারা ২০১৯ সালে চাঁদের অবতরণের ৫০ তম বার্ষিকী উদ্‌যাপন করতে সক্ষম হবে না। মাইকেল কলিন্স বলেছিলেন, "তিনিই সেরা ছিলেন এবং আমি তাকে ভীষণ মিস করব।" নাসার প্রশাসক চার্লস এফ বোলডেন, বলেছিলেন, "যতক্ষণ ইতিহাসের বই থাকবে ততক্ষণ নীল আর্মস্ট্রং তাদের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত থাকবে, আমাদের নিজস্ব ছাড়িয়ে পৃথিবীতে মানবজাতির প্রথম ছোট পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য স্মরণ করা হয়েছে "।

ওয়াশিংটন ন্যাশনাল ক্যাথেড্রালে ১৩ ই সেপ্টেম্বর আর্মস্ট্রংয়ের জন্য একটি শ্রদ্ধাঞ্জলি অনুষ্ঠিত হয়েছিল, যার স্পেস উইন্ডোটি অ্যাপোলো ১১ মিশনের চিত্রিত করে এবং তার দাগযুক্ত কাচের প্যানেলের মধ্যে মুন রকের একটি স্লাইভ ধরেছিল। উপস্থিতিতে আর্মস্ট্রংয়ের অ্যাপোলো ১১ এর ক্রুমেট, কলিনস এবং উপস্থিত ছিলেন আলড্রিন; জিন সার্নান, অ্যাপোলো ১৭ মিশনের কমান্ডার এবং চাঁদে চলার শেষ ব্যক্তি; এবং প্রাক্তন সিনেটর এবং নভোচারী জন গ্লেন, প্রথম আমেরিকান পৃথিবী প্রদক্ষিণকারী। চার্লস বোলডেন তাঁর প্রশংসায়, আর্মস্ট্রংয়ের "সাহস, অনুগ্রহ এবং নম্রতার" প্রশংসা করেছিলেন। আর্মস্ট্রংয়ের স্বরাষ্ট্র রাজ্য ওহাইও থেকে আসা কংগ্রেসম্যান বিল জনসনের নেতৃত্বে প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাকে তাঁর আজীবন ওয়াশিংটন ডিসিতে রাষ্ট্রীয় জানাজার অনুমতি দেওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছিল। আর্মস্ট্রং প্রচার ত্যাগ করেছেন এবং খুব কমই সাক্ষাৎকার দিয়েছেন। আর্মস্ট্রং রাষ্ট্রীয় অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া নিয়ে আপত্তি জানানো উচিত মনে করে, তাঁর পরিবার সিনসিনাটিতে একটি ব্যক্তিগত জানাজা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। ১৪ ই সেপ্টেম্বর, আর্মস্ট্রংয়ের দাফন করা অবশেষ আটলান্টিক মহাসাগরে ইউএসএস ফিলিপিন সমুদ্র থেকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিল। পতাকা উড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল আর্মস্ট্রংয়ের শেষকৃত্যের দিন অর্ধ-কর্মচারীতে।

জুলাই ২০১৯ সালে, চাঁদের অবতরণের ৫০ তম বার্ষিকীর পরে, নিউইয়র্ক টাইমস রিপোর্ট করেছে যে আর্মস্ট্রংয়ের পরিবার "মেডিকেল পলিটিক্স" মামলাটি মের্সি হেলথ-ফেয়ারফিল্ড হাসপাতালের বিরুদ্ধে দায়ের করেছিল, যেখানে তিনি মারা গিয়েছিলেন। আর্মস্ট্রং যখন তাঁর বাইপাস সার্জারি থেকে সেরে উঠছেন বলে মনে হয়েছিল, নার্সরা তার অস্থায়ী পেসমেকারের সাথে যুক্ত তারগুলি সরিয়ে ফেললেন। সে অভ্যন্তরীণভাবে রক্তক্ষরণ শুরু করে এবং তার রক্তচাপ কমে যায়। চিকিৎসকরা তাকে হাসপাতালের ক্যাথেটারাইজেশন পরীক্ষাগারে নিয়ে যান এবং কেবল পরে চালনা শুরু করেন। মামলা চলাকালীন যে তিনজন চিকিৎসক মেডিকেল ফাইলগুলি পর্যালোচনা করেছিলেন তাদের মধ্যে দুজন একে গুরুতর ত্রুটি বলেছিলেন, বলেছিলেন যে অবিলম্বে অস্ত্রোপচার শুরু করা উচিত ছিল।

কৃতিত্বসম্পাদনা

 
ভাষণদানরত আর্মস্ট্রং, নৌ-বিমান যাদুঘর, ফ্লোরিডা

১৯ নভেম্বর ১৯৬৯ সালে যখন অ্যাপোলো ১২ এর পিট কনরাড চাঁদে চলার তৃতীয় ব্যক্তি হয়েছিলেন, তখন তাঁর প্রথম কথাগুলোতে আর্মস্ট্রংকে উল্লেখ করেন। কনরাড চন্দ্রযান থেকে চাঁদে অবতরণ করে করেছিলেন "এটি নীলের পক্ষে খুব ছোট ছিল, তবে এটি আমার পক্ষে দীর্ঘকালীন।"

আর্মস্ট্রং বিভিন্ন পুরষ্কারে ভূষিত হন। রাষ্ট্রপতি নিক্সনের কাছ থেকে "প্রেসিডেন্সিয়াল মেডেল অফ স্পিড (স্বতন্ত্রতার সাথে)", আমেরিকান ভৌগোলিক সোসাইটি থেকে "কুলাম ভৌগোলিক পদক", এবং ন্যাশনাল অ্যারোনটিক অ্যাসোসিয়েশনের "কলিয়ার ট্রফি", নাসার "বিশিষ্ট পরিষেবা মেডেল" এবং ডঃ রবার্ট এইচ "গড্ডার্ড মেমোরিয়াল ট্রফি", মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক একাডেমির "সিলেভানাস থায়ার অ্যাওয়ার্ড" কংগ্রেসনাল রাষ্ট্রপতি জিমি কার্টারের কাছ থেকে "স্পেস মেডেল অফ অনার", ন্যাশনাল অ্যারোনটিক অ্যাসোসিয়েশন (২০০১) থেকে "রাইট ব্রাদার্স মেমোরিয়াল ট্রফি" এবং কংগ্রেসনাল গোল্ড মেডেল (২০১১) সহ অনেক সম্মান এবং পুরষ্কার পেয়েছিলেন তিনি।

আর্মস্ট্রং এবং তার অ্যাপোলো ১১ ক্রূ-মেটগণ ছিলেন স্মিথসোনিয়ান ইনস্টিটিউশন থেকে "ল্যাংলি স্বর্ণপদক" প্রাপ্ত। ১৮ এপ্রিল, ২০০৬ সালে তিনি নাসার এক্সপ্লোরেশন অ্যাওয়ার্ড পেয়েছিলেন। স্পেস ফাউন্ডেশন এর প্রাপক হিসাবে আর্মস্ট্রং নামকরণ করেছিল। ২০১৩ সালে আর্মস্ট্রংকে "স্পেস অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড", "এয়ারস্পেস ওয়াক অফ অনার"ও প্রদান করা হয়।

 
রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামার সাথে এপোলো-১১ মিশনের সদস্যগণ

অ্যাপোলো ১১ এর অবতরণের স্থানে চন্দ্রখাত, এবং গ্রহাণু Asteroid-648699 এর নামকরণ করা হয়েছে আর্মস্ট্রংয়ের নামে। যুক্তরাষ্ট্রে আর্মস্ট্রংয়ের নামে এক ডজনেরও বেশি প্রাথমিক, মধ্য ও উচ্চ বিদ্যালয় রয়েছে। বিশ্বের অনেক জায়গাতেই রাস্তাঘাট, বিল্ডিং, স্কুল এবং তার অথবা অ্যাপোলো নামকরণ করা হয়েছে। আর্মস্ট্রং এর আবাসিক শহর ওয়াপাকোনেটায় আর্মস্ট্রং এয়ার অ্যান্ড স্পেস যাদুঘর রয়েছে এবং তার নামে ওহাইওর নিউ নক্সভিলের আর্মস্ট্রং বিমানবন্দরটির নামকরণ করা হয়েছে।

পারডিউ বিশ্ববিদ্যালয় ২০০৪ সালের অক্টোবরে ঘোষণা করেছিল যে এর নতুন ইঞ্জিনিয়ারিং বিল্ডিংয়ের নাম হবে নীল আর্মস্ট্রং হল অফ ইঞ্জিনিয়ারিং; বিল্ডিং উৎসর্গ করা হয়েছিল ২৭ অক্টোবর, ২০০৪, এ, যেখানে আর্মস্ট্রং আরও চৌদ্দ নভোচারী যোগ দিয়েছিলেন। ২০১৪ সালে নাসা ড্রাইডেন ফ্লাইট রিসার্চ সেন্টারটির নামকরণ করা হয়েছিল "নাসা নীল"। আর্মস্ট্রং ফ্লাইট রিসার্চ সেন্টার। ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে মার্কিন নৌবাহিনী ঘোষণা করেছিল যে প্রথম আর্মস্ট্রং-শ্রেণীর জাহাজটির নাম। ২৩ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৫ এ নেভিতে বিতরণ করা হয়েছে, এটি একটি আধুনিক সমুদ্রবিজ্ঞান গবেষণা প্ল্যাটফর্ম যা একাডেমিক গোষ্ঠীগুলির বিস্তৃত ক্রিয়াকলাপকে সমর্থন করে। ২০১৯ সালে, পারডিউ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ নীল আর্মস্ট্রংয়ের ৫০ তম বার্ষিকী উদ্‌যাপন করেছে। নীল আর্মস্ট্রং বিশিষ্ট ভিজিটিং ফেলো প্রোগ্রাম চালু করে চাঁদ, যা কলেজটিতে অত্যন্ত দক্ষতা অর্জনকারী পণ্ডিত এবং অনুশীলনকারীদের অনুষদ এবং শিক্ষার্থীদের সহযোগিতা অনুঘটক করতে নিয়ে আসে।

আর্মস্ট্রংয়ের অনুমোদিত জীবনী, ফার্স্ট ম্যান: দ্য লাইফ অফ নীল এ আর্মস্ট্রং 2005 সালে প্রকাশিত হয়েছিল। বহু বছর ধরে তিনি স্টিফেন অ্যামব্রোস এবং জেমস এ মাইকেলারের মতো লেখকদের জীবনী অফার প্রত্যাখ্যান করেছিলেন, তবে জেমস আর হ্যানসেনের সাথে কাজ করতে রাজি হন। হানসেনের অন্য একটি জীবনী পড়ার পরে। তিনি অ্যাপোলো ১১ মিশন সম্পর্কে তাঁর প্রাথমিক উদ্বেগের কথা স্মরণ করেছিলেন, যখন তিনি বিশ্বাস করেছিলেন যে চাঁদে অবতরণের মাত্র ৫০% সম্ভাবনা রয়েছে। "আমি আনন্দিত, আনন্দিত এবং অত্যন্ত সফল হয়েছিলাম যে আমরা সফল হয়েছি"। রায়ান গসলিং অভিনীত এবং ড্যামিয়েন চ্যাজেল পরিচালিত বইটির একটি চলচ্চিত্র অক্টোবরে 2018 সালে প্রকাশিত হয়েছিল।

জুলাই ২০১৮ এ, আর্মস্ট্রংয়ের ছেলেরা তাঁর বয় স্কাউট ক্যাপ সহ তাঁর স্মারক সংগ্রহগুলি বিক্রয়ের জন্য রেখেছিল, এবং তার মহাকাশ মিশনে বিভিন্ন পতাকা এবং মেডেল প্রবাহিত করেছিল। নিলামের একটি সিরিজ ১ থেকে ৩ নভেম্বর, ২০১৮ এ অনুষ্ঠিত হয়েছিল, যার মূল্য হয়েছিল $ 5,276,320।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Hansen 2005, পৃ. 49–50।
  2. "A Giant Leap For An Ulsterman" 
  3. "Neil Armstrong grants rare interview to accountants organization"। CBC News। মে ২৪, ২০১২। জানুয়ারি ৭, ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ৮, ২০১৮ 
  4. Hansen 2005, পৃ. 29।
  5. "Project Apollo: Astronaut Biographies"। NASA। এপ্রিল ২৮, ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ১২, ২০১১ 
  6. Hansen 2005, পৃ. 45. "ওহাইওর ওয়ারেনের এক স্বেচ্ছাসেবক গ্রুপের মতে, তারা ওয়ারেন বিমানবন্দরকে ঐতিহাসিক প্রদর্শনীতে রূপান্তরিত করতে ২০০০ এর দশক ধরে কাজ করেছেন, নীলের প্রথম আকাশযাত্রার তারিখে; ২রা জুলাই, ১৯৩৬। যদি এই তারিখটি সঠিক হয়, নিল যখন তাঁর প্রথম বিমানের যাত্রাটি অনুভব করেছিলেন, তখন তখন তাঁর বয়স মাত্র পাঁচ বছর, তাঁর ষষ্ঠ জন্মদিনের তখন আর দশদিন বাকি।"
  7. Koestler-Grack 2010, পৃ. 14।
  8. Hansen 2012, পৃ. 38।
  9. Airgood, Glenn (ফেব্রুয়ারি ১৬, ১৯৭৩)। "1st Man on the Moon Gets National Eagle Award"The Morning Call। Allentown, Pennsylvania। পৃষ্ঠা 5 – Newspapers.com-এর মাধ্যমে। 
  10. "Silver Buffalo Award Winners 1979–1970"। Boy Scouts of America। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ২, ২০১৮ 
  11. "Apollo 11 – Day 3, part 2: Entering Eagle – Transcript"। NASA। এপ্রিল ১১, ২০১০। জানুয়ারি ৪, ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ১০, ২০১১I'd like to say hello to all my fellow Scouts and Scouters at Farragut State Park in Idaho having a National Jamboree there this week; and Apollo 11 would like to send them best wishes". Capsule communicator Charles Duke replied: "Thank you, Apollo 11. I'm sure that, if they didn't hear that, they'll get the word through the news. Certainly appreciate that." অর্থাৎ, "আমি এই সপ্তাহে ফারডাগুট স্টেট পার্কে একটি ন্যাশনাল স্কাউট জাম্বুরিতে আমার সমস্ত সহকর্মী স্কাউটস এবং স্কাউটারকে হ্যালো বলতে চাই; এবং অ্যাপোলো 11'র পক্ষ থেকে তাদের শুভেচ্ছা পাঠাতে চাই "। ক্যাপসুল যোগাযোগকারী চার্লস ডিউক জবাব দিয়েছেন: "আপনাকে ধন্যবাদ, অ্যাপোলো ১১। আমি নিশ্চিত যে তারা যদি তা নাও শোনে তবে তারা তা নিউজের মাধ্যমে জানতে পারবেন। অবশ্যই সেটির প্রশংসা করবেন। 
  12. "World Scouting salutes Neil Armstrong"। World Organization of the Scout Movement। সেপ্টেম্বর ৪, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ২৭, ২০১৫ 
  13. "The untold story of how Neil Armstrong chose Purdue"www.wlfi.com। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ৫, ২০১৯ 
  14. Hansen 2005, পৃ. 58।
  15. Hansen 2005, পৃ. 68–69।
  16. Hansen 2005, পৃ. 71।
  17. Hansen 2005, পৃ. 76–79।

বইসমূহসম্পাদনা

আরও দেখুনসম্পাদনা

  বহিঃ ভিডিও
  After Words interview with Jay Barbree on Neil Armstrong: A Life of Flight, July 19, 2014, C-SPAN