গবেষণা (ইংরেজি: Research) হল মানুষের বুদ্ধিবৃত্তিক অনুসন্ধান প্রক্রিয়া এবং নতুন কিছু আবিষ্কারের নেশায় বিজ্ঞানীদের কার্যাবলী। যিনি গবেষণা করেন বা গবেষণা কর্মের সাথে জড়িত, তিনি গবেষক বা গবেষণাকারী নামে পরিচিত। গবেষণার মূল উদ্দেশ্য হল বাস্তবিক কোনো সমস্যার সমাধান করা। গবেষণা একটি ধারাবাহিক কার্যপ্রক্রিয়া যা নির্দিষ্ট ধাপ অনুসরণ এর মাধ্যমে সম্পাদিত হয়ে থাকে।

গবেষণা ধাপসমূহসম্পাদনা

গবেষণা সাধারণত বালিঘড়ি মডেল-কাঠামোর ভিত্তিতে পরিচালিত হয়।[১] এই মডেল-কাঠামো অনুসারে গবেষণা শুরু হয় একটি বিস্তৃত কাঠামোকে কেন্দ্র করে যেখানে নির্দিষ্ট প্রজেক্ট বা উদ্দেশ্যের আওতায় প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহের মাধ্যমে তথ্য বিশ্লেষণ, ফলাফল উপস্থাপন এবং প্রাসঙ্গিক আলোচনা সন্নিবেশিত করা হয়। গবেষণার প্রধান ধাপসমূহ হচ্ছে:[২]

  • গবেষণার সমস্যা চিহ্নিতকরণ
  • প্রাসঙ্গিক গবেষণা ও তথ্য পর্যালোচনা
  • গবেষণার সমস্যা নির্দিষ্টকরণ
  • অনুমিত সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও গবেষণার প্রশ্ন নির্দিষ্টকরণ
  • তথ্য সংগ্রহ
  • তথ্য বিশ্লেষণ ও বর্ণনাকরণ
  • প্রতিবেদন তৈরি।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Trochim, W.M.K, (2006). Research M। ২.উপাত্ত অবশ্যই বৈধ হতে হবে। ৩. পর্যাপ্ত উপাত্ত বিশ্লেষণ করতে হবে। ৪. গবেষণার উদ্দেশ্য হবে সুনির্দিষ্ট ৫.গবেষণার প্রতিটি অংশ স্পষ্ট থাকতে হবে ৬.গবেষণায় নমনীয়তা থাকতে হবে। ৭. গবেষণার প্রাপ্ত ফলাফল পুনঃব্যবহারযোগ্য হতে হবে। thods Knowledge Base.
  2. Creswell, J.W. (2008). Educational research: Planning, conducting, and evaluating quantitative and qualitative research (3rd). Upper Saddle River, NJ: Prentice Hall. 2008 আইএসবিএন ০-১৩-৬১৩৫৫০-১ (pages 8-9)

আরও পড়ুনসম্পাদনা

  • Freshwater, D., Sherwood, G. & Drury, V. (2006) International research collaboration. Issues, benefits and challenges of the global network. Journal of Research in Nursing, 11 (4), pp 9295–303.
  • Cohen, N. & Arieli, T. (2011) Field research in conflict environments: Methodological challenges and snowball sampling. Journal of Peace Research 48 (4), pp. 423–436.

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

উত্তম গবেষণার কৌশল

১. গবেষণার কোন অংশে ধোঁয়াশা রাখা যাবেনা। ২. উপাত্ত অবশ্যই বৈধ হতে হবে। ৩. পর্যাপ্ত উপাত্ত বিশ্লেষণ করতে হবে। ৪. গবেষণার উদ্দেশ্য হবে সুনির্দিষ্ট। ৫. গবেষণায় প্রতিটি অংশ স্পষ্ট থাকতে হবে। ৫. নমনীয়তা রক্ষা করতে হবে ৬.গবেষণায় প্রাপ্ত ফলাফল পুনঃব্যবহারযোগ্য হতে হবে।