আজারবাইজান জাতীয় ফুটবল দল

আজারবাইজান জাতীয় ফুটবল দল (আজারবাইজানি: Azərbaycan milli futbol komandası, ইংরেজি: Azerbaijan national football team) হচ্ছে আন্তর্জাতিক ফুটবলে আজারবাইজানের প্রতিনিধিত্বকারী পুরুষদের জাতীয় দল, যার সকল কার্যক্রম আজারবাইজানের ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা আজারবাইজানী ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। এই দলটি ১৯৯৪ সাল হতে ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা ফিফার এবং একই বছর হতে তাদের আঞ্চলিক সংস্থা উয়েফার সদস্য হিসেবে রয়েছে। ১৯৯২ সালের ১৭ই সেপ্টেম্বর তারিখে, আজারবাইজান প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক খেলায় অংশগ্রহণ করেছে; জর্জিয়ার গুরজানিতে অনুষ্ঠিত উক্ত ম্যাচে আজারবাইজান জর্জিয়ার কাছে ৬–৩ গোলের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছে।

আজারবাইজান
দলের লোগো
ডাকনামমিল্লি
অ্যাসোসিয়েশনআজারবাইজানী ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন
কনফেডারেশনউয়েফা (ইউরোপ)
প্রধান কোচজান্নি দে বিয়াজি
অধিনায়কমাকসিম মেদভেদেভ
সর্বাধিক ম্যাচরাশাদ সাদিগভ (১১১)
শীর্ষ গোলদাতাগুরবান গুরবানভ (১৪)
মাঠবাকু অলিম্পিক স্টেডিয়াম
ফিফা কোডAZE
ওয়েবসাইটwww.affa.az
প্রথম জার্সি
দ্বিতীয় জার্সি
তৃতীয় জার্সি
ফিফা র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ১১০ অপরিবর্তিত (২৭ মে ২০২১)[১]
সর্বোচ্চ৭৩ (জুলাই ২০১৪)
সর্বনিম্ন১৭০ (জুন ১৯৯৪)
এলো র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ১০৬ বৃদ্ধি(২ জুন ২০২১)[২]
সর্বোচ্চ৫১ (জুন ১৯২৮)
সর্বনিম্ন১৫২ (জুন ২০০১)
প্রথম আন্তর্জাতিক খেলা
 জর্জিয়া ৬–৩ আজারবাইজান 
(গুরজানি, জর্জিয়া; ১৭ সেপ্টেম্বর ১৯৯২)[৩][৪]
বৃহত্তম জয়
 আজারবাইজান ৪–০ লিশটেনস্টাইন 
(বাকু, আজারবাইজান; ৫ জুন ১৯৯৯)
 আজারবাইজান ৫–১ সান মারিনো 
(বাকু, আজারবাইজান; ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭)
বৃহত্তম পরাজয়
 ফ্রান্স ১০–০ আজারবাইজান 
(অসের, ফ্রান্স; ৬ সেপ্টেম্বর ১৯৯৫)[৩]

৬৯,০০০ ধারণক্ষমতাবিশিষ্ট বাকু অলিম্পিক স্টেডিয়ামে মিল্লি নামে পরিচিত এই দলটি তাদের সকল হোম ম্যাচ আয়োজন করে থাকে। এই দলের প্রধান কার্যালয় আজারবাইজানের রাজধানী বাকুতে অবস্থিত। বর্তমানে এই দলের ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করছেন জান্নি দে বিয়াজি এবং অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছেন কারাবাখের রক্ষণভাগের খেলোয়াড় মাকসিম মেদভেদেভ

আজারবাইজান এপর্যন্ত একবারও ফিফা বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করতে পারেনি। অন্যদিকে, উয়েফা ইউরোপীয় চ্যাম্পিয়নশিপেও আজারবাইজান এপর্যন্ত একবারও অংশগ্রহণ করতে সক্ষম হয়নি।

রাশাদ সাদিগভ, আসলান কেরিমভ, কামরান আগায়েভ, গুরবান গুরবানভ এবং দিমিত্রি নাজারভের মতো খেলোয়াড়গণ আজারবাইজানের জার্সি গায়ে মাঠ কাঁপিয়েছেন।

র‌্যাঙ্কিংসম্পাদনা

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে, ২০১৪ সালের জুলাই মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে আজারবাইজান তাদের ইতিহাসে সর্বোচ্চ অবস্থান (৭৩তম) অর্জন করে এবং ১৯৯৪ সালের জুন মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে তারা ১৭০তম স্থান অধিকার করে, যা তাদের ইতিহাসে সর্বনিম্ন। অন্যদিকে, বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে আজারবাইজানের সর্বোচ্চ অবস্থান হচ্ছে ৫১তম (যা তারা ১৯২৮ সালে অর্জন করেছিল) এবং সর্বনিম্ন অবস্থান হচ্ছে ১৫২। নিম্নে বর্তমানে ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং এবং বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে অবস্থান উল্লেখ করা হলো:

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং
২৭ মে ২০২১ অনুযায়ী ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং[১]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
১০৮     গিনি-বিসাউ ১১৭১.১৯
১০৯     উত্তর কোরিয়া ১১৬৯.৯৬
১১০     আজারবাইজান ১১৬৮.৫৩
১১১     নামিবিয়া ১১৬৮.৪৪
১১২     নাইজার ১১৬৫.৯১
বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং
২ জুন ২০২১ অনুযায়ী বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং[২]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
১০৫     কুয়েত ১৩৮৯
১০৬     আজারবাইজান ১৩৮৭
১০৭     লেবানন ১৩৮৬
১০৭   ৩১   সুদান ১৩৮৬

প্রতিযোগিতামূলক তথ্যসম্পাদনা

ফিফা বিশ্বকাপসম্পাদনা

ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
সাল পর্ব অবস্থান ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো
সোভিয়েত ইউনিয়নের অংশ হিসেবে সোভিয়েত ইউনিয়নের অংশ হিসেবে
  ১৯৩০ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
  ১৯৩৪
  ১৯৩৮
  ১৯৫০
  ১৯৫৪
  ১৯৫৮ কোয়ার্টার-ফাইনাল ৬ষ্ঠ ১৬
  ১৯৬২ কোয়ার্টার-ফাইনাল ৬ষ্ঠ ১১
  ১৯৬৬ ৩য় স্থান নির্ধারণী ৪র্থ ১০ ১৯
  ১৯৭০ কোয়ার্টার-ফাইনাল ৫ম
  ১৯৭৪ প্রত্যাহার
  ১৯৭৮ উত্তীর্ণ হয়নি
  ১৯৮২ দ্বিতীয় পর্ব ৭ম ২০
  ১৯৮৬ ১৬ দলের পর্ব ১০ম ১২ ১৩
  ১৯৯০ গ্রুপ পর্ব ১৭তম ১১
আজারবাইজানের অংশ হিসেবে আজারবাইজানের অংশ হিসেবে
  ১৯৯৪ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
  ১৯৯৮ উত্তীর্ণ হয়নি ২২
    ২০০২ ১০ ১৭
  ২০০৬ ১০ ২১
  ২০১০ ১০ ১৪
  ২০১৪ ১০ ১১
  ২০১৮ ১০ ১০ ১৯
  ২০২২ অনির্ধারিত অনির্ধারিত
মোট ০/২১ ৫৮ ১৪ ৩৭ ২৯ ১০৪

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "ফিফা/কোকা-কোলা বিশ্ব র‍্যাঙ্কিং"ফিফা। ২৭ মে ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ২৭ মে ২০২১ 
  2. গত এক বছরে এলো রেটিং পরিবর্তন "বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং"eloratings.net। ২ জুন ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ২ জুন ২০২১ 
  3. World Football Elo Ratings: Azerbaijan
  4. "Pride in defeat on debut day"। UEFA.com। ২ ফেব্রুয়ারি ২০০৪। সংগ্রহের তারিখ ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ [অকার্যকর সংযোগ]

বহিঃসংযোগসম্পাদনা