কঙ্গো জাতীয় ফুটবল দল

কঙ্গো জাতীয় ফুটবল দল (ফরাসি: Équipe nationale de football du Congo, ইংরেজি: Congo national football team) হচ্ছে আন্তর্জাতিক ফুটবলে কঙ্গোর প্রতিনিধিত্বকারী পুরুষদের জাতীয় দল, যার সকল কার্যক্রম কঙ্গোর ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা কঙ্গোলীয় ফুটবল ফেডারেশন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। এই দলটি ১৯৬৪ সাল হতে ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা ফিফার এবং ১৯৬৫ সাল হতে তাদের আঞ্চলিক সংস্থা আফ্রিকান ফুটবল কনফেডারেশনের সদস্য হিসেবে রয়েছে। ১৯৫৪ সালে, কঙ্গো প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক খেলায় অংশগ্রহণ করেছে; ফরাসি কঙ্গোতে অনুষ্ঠিত উক্ত ম্যাচে কঙ্গো ক্যামেরুনকে ৫–১ গোলের ব্যবধানে পরাজিত করেছে।

কঙ্গো
দলের লোগো
ডাকনামদিয়াব্লে রুজ রেড ডেভিল
অ্যাসোসিয়েশনকঙ্গোলীয় ফুটবল ফেডারেশন
কনফেডারেশনক্যাফ (আফ্রিকা)
প্রধান কোচভালদো ফিলিয়ো
অধিনায়কআমুর লুসুকু
সর্বাধিক ম্যাচজোনাস বাহাম্বুলা (৫৬)
শীর্ষ গোলদাতাথিয়েভি বিফুমা (১৫)
মাঠকিন্তেলে পৌর স্টেডিয়াম
ফিফা কোডCGO
ওয়েবসাইটfecofoot.cg
প্রথম জার্সি
দ্বিতীয় জার্সি
ফিফা র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ১১২ অপরিবর্তিত (২১ ডিসেম্বর ২০২৩)[১]
সর্বোচ্চ৪২ (সেপ্টেম্বর ২০১৫)
সর্বনিম্ন১৪৪ (সেপ্টেম্বর ২০১১)
এলো র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ১৪৮ হ্রাস ১০ (১২ জানুয়ারি ২০২৪)[২]
সর্বোচ্চ৩৭ (জুলাই ১৯৭২)
সর্বনিম্ন১৩৩ (সেপ্টেম্বর ২০১১)
প্রথম আন্তর্জাতিক খেলা
ফ্রান্স ফরাসি কঙ্গো ৫–১ ক্যামেরুন ফ্রান্স
(ফরাসি কঙ্গো; ১৯৫৪)[৩]
বৃহত্তম জয়
 কঙ্গো ১১–০ চাদ 
(গণতান্ত্রিক কঙ্গো প্রজাতন্ত্র; ২৮ মার্চ ১৯৬৪)
 কঙ্গো ১১–০ সাঁউ তুমি ও প্রিন্সিপি 
(গ্যাবন; ৭ জুলাই ১৯৭৬)
বৃহত্তম পরাজয়
 মালাগাসি প্রজাতন্ত্র ৮–১ কঙ্গো 
(মাদাগাস্কার; ১৮ এপ্রিল ১৯৬০)
আফ্রিকা কাপ অফ নেশন্স
অংশগ্রহণ৭ (১৯৬৮-এ প্রথম)
সেরা সাফল্যচ্যাম্পিয়ন (১৯৭২)

৬০,০০০ ধারণক্ষমতাবিশিষ্ট কিন্তেলে পৌর স্টেডিয়ামে রেড ডেভিল নামে পরিচিত এই দলটি তাদের সকল হোম ম্যাচ আয়োজন করে থাকে। এই দলের প্রধান কার্যালয় কঙ্গো প্রজাতন্ত্রের রাজধানী ব্রাজাভিলে অবস্থিত। বর্তমানে এই দলের ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করছেন ভালদো ফিলিয়ো এবং অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছেন স্তাদ তিউনিসিয়েনের মধ্যমাঠের খেলোয়াড় আমুর লুসুকু

কঙ্গো এপর্যন্ত একবারও ফিফা বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করতে পারেনি। অন্যদিকে, আফ্রিকা কাপ অফ নেশন্সে কঙ্গো অন্যতম সফল দল, যেখানে তারা ১টি (১৯৭২) শিরোপা জয়লাভ করেছে।।

মারেল মুকো, দেস্তিন মাকিতা, লুক-আর্সেন দিয়ামেসো, থিয়েভি বিফুমা এবং জোনাস বাহাম্বুলার মতো খেলোয়াড়গণ কঙ্গোর জার্সি গায়ে মাঠ কাঁপিয়েছেন।

র‌্যাঙ্কিং

সম্পাদনা

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে, ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বর মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে কঙ্গো তাদের ইতিহাসে সর্বোচ্চ অবস্থান (৪২তম) অর্জন করে এবং ২০১১ সালের সেপ্টেম্বর মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে তারা ১৪৪তম স্থান অধিকার করে, যা তাদের ইতিহাসে সর্বনিম্ন। অন্যদিকে, বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে কঙ্গোর সর্বোচ্চ অবস্থান হচ্ছে ৩৭তম (যা তারা ১৯৭২ সালে অর্জন করেছিল) এবং সর্বনিম্ন অবস্থান হচ্ছে ১৩৩। নিম্নে বর্তমানে ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং এবং বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে অবস্থান উল্লেখ করা হলো:

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং
২১ ডিসেম্বর ২০২৩ অনুযায়ী ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং[১]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
১১০     কেনিয়া ১১৮১.৯২
১১১     মোজাম্বিক ১১৮০.৭২
১১২     কঙ্গো ১১৭৯.৮
১১৩     থাইল্যান্ড ১১৭৬.৭৫
১১৪     আজারবাইজান ১১৭৪.২২
বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং
১২ জানুয়ারি ২০২৪ অনুযায়ী বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং[২]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
১৪৬     কোমোরোস ১২৭৫
১৪৭   ১৬   গায়ানা ১২৭৪
১৪৮   ১০   কঙ্গো ১২৭১
১৪৯     কিরগিজস্তান ১২৬৮
১৫০   ১৫   ফ্যারো দ্বীপপুঞ্জ ১২৬৪

প্রতিযোগিতামূলক তথ্য

সম্পাদনা

ফিফা বিশ্বকাপ

সম্পাদনা
ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
সাল পর্ব অবস্থান ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো
  ১৯৩০ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
  ১৯৩৪
  ১৯৩৮
  ১৯৫০
  ১৯৫৪
  ১৯৫৮
  ১৯৬২
  ১৯৬৬
  ১৯৭০
  ১৯৭৪ উত্তীর্ণ হয়নি
  ১৯৭৮ ১০
  ১৯৮২ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
  ১৯৮৬
  ১৯৯০
  ১৯৯৪ উত্তীর্ণ হয়নি
  ১৯৯৮
    ২০০২ ১০ ১০ ১৭
  ২০০৬ ১২ ১২ ১৫
  ২০১০
  ২০১৪ ১৩
  ২০১৮ ১১ ১৬
  ২০২২ অনির্ধারিত অনির্ধারিত
মোট ০/২১ ৬২ ২১ ১৩ ২৮ ৭৪ ৭৮

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. "ফিফা/কোকা-কোলা বিশ্ব র‍্যাঙ্কিং"ফিফা। ২১ ডিসেম্বর ২০২৩। সংগ্রহের তারিখ ২১ ডিসেম্বর ২০২৩ 
  2. গত এক বছরে এলো রেটিং পরিবর্তন "বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং"eloratings.net। ১২ জানুয়ারি ২০২৪। সংগ্রহের তারিখ ১২ জানুয়ারি ২০২৪ 
  3. World Football Elo Ratings: Congo

বহিঃসংযোগ

সম্পাদনা