২০১৩ বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ

২০১৩ বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ বা ২০১৩ বিপিএল বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগের ২য় আসর। ২০১২ সালে বিসিবি প্রথমবারের মত বিপিএল আয়োজন করে। ২০১৩ সালের ১৭ জানুয়ারি হয় উদ্বোধনী অনুষ্ঠান[১] টুর্নামেন্টটি ১৮ জানুয়ারি ২০১৩ তে শুরু হয় এবং শেষ হয় ১৯ ফেব্রুয়ারি তে। এই টুনামেন্টে ৭টি দল অংশগ্রহণ করে। সপ্তম দলটি হচ্ছে রংপুর রাইডার্স[২] ফাইনালে চিটাগং কিংসকে ৪৩ রানে হারিয়ে ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস দ্বিতীয়বার বিপিএল চ্যাম্পিয়ন হয়।[৩][৪]

২০১৩ বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ
বিপিএল লোগো.png
২০১৩ বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগের লোগো
ব্যবস্থাপকবিসিবি
ক্রিকেটের ধরনটুয়েন্টি২০
প্রতিযোগিতার ধরনডাবল রাউন্ড-রোবিন এবং প্লেঅফ
আয়োজক বাংলাদেশ
বিজয়ী ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস (২য় শিরোপা)
অংশগ্রহণকারী
খেলার সংখ্যা৪৬
প্রতিযোগিতার সেরা
খেলোয়াড়
বাংলাদেশ সাকিব আল হাসান (ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস)
সর্বোচ্চ রানবাংলাদেশ মুশফিকুর রহিম (৪৪০ রান)
সর্বোচ্চ উইকেটইংল্যান্ড আলফনসো টমাস
(২০ উইকেট)
প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইটBPL

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানসম্পাদনা

বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ জিল্লুর রহমান আনুষ্ঠানিকভাবে ঘরোয়া টি-টুয়েন্টি ক্রিকেট বিপিএল ২০১৩-এর উদ্বোধন ঘোষণা করেন।[৫] তার আগে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের প্রধান আফজালুর রহমান সিনহার বক্তৃতার মধ্য দিয়ে শুরু হয় বিপিএলের দ্বিতীয় আসরের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। এতে বক্তব্য রাখেন বিসিবির প্রধান নাজমুল হাসান পাপন। অনুষ্ঠানে গান পরিবেশন করেন রুনা লায়লা, মমতাজ, জেমস, আতিফ আসলাম। এছাড়া সাত ফ্র্যাঞ্চাইজির সাতটি বিভাগকে প্রতিনিধিত্ব করে সাতটি গান ও সঙ্গে আঞ্চলিক নৃত্য পরিবেশন করা হয়। এছাড়াও শ্রীলঙ্কান নায়িকা জ্যাকুলিন ফার্নান্দেজ নৃত্য পরিবেশন করেন।[৬] অনুষ্ঠানে ‘ম্যাজিক শো’ দেখানো হয়। আতশবাজির মধ্য দিয়ে বিপিএল ২০১৩ এর উদ্বোধনী শেষ করা হয়।

মাঠসমূহসম্পাদনা

মাঠসমূহের অবস্থান

বিপিএল ২০১৩ মোট ৩টি মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। এবারই প্রথমবারের মত শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে বিপিএলের ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয় এবং চট্টগ্রামে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের পরিবর্তে এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। মোট ৪৬টি ম্যাচের মধ্যে ২৮টি ম্যাচ হয় শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে, ১০টি এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে এবং ৮টি শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে

খেলোয়াড় নিলামসম্পাদনা

শ্রেণী ভিত্তি মূল্য (ইউএস) চূড়ান্ত মূল্য (সীমাবদ্ধতা) (ইউএস)
গোল্ডেন ৫০,০০০ ৭৫,০০০
গোল্ডেন (বিদেশী) ৭৫,০০০ ১৫০,০০০
এ (স্থানীয়) ৩০,০০০ ৫০,০০০
বি (স্থানীয়) ২০,০০০ ৩০,০০০
সি (স্থানীয়) ১০,০০০ ২০,০০০
এ (বিদেশী) ৫০,০০০ ৭৫,০০০
বি (বিদেশী) ৩০,০০০ ৫০,০০০
সি (বিদেশী) ১৫,০০০ ৩০,০০০

দলসমূহ এবং অবস্থানসম্পাদনা

দল খেলেছে জয় হার ড্র এনআরআর
  ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস ১২ ১৮ +০.৯২৮
  সিলেট রয়্যালস ১২ ১৮ +০.০৮১
  চিটাগং কিংস ১২ ১২ +১.১৭০
  দুরন্ত রাজশাহী ১২ ১০ -০.৫৫৭
  রংপুর রাইডার্স ১২ ১০ -০.৫০৬
  বরিশাল বার্নার্স ১২ ১০ -০.০৪০
  খুলনা রয়েল বেঙ্গলস ১২ -১.০৬০

সর্বশেষ হালনাগাদ: ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৩[৭]

লীগ অগ্রগতিসম্পাদনা

 
দল
  বরিশাল বার্নার্স
  চিটাগং কিংস
  ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস
  দুরন্ত রাজশাহী
  খুলনা রয়েল বেঙ্গলস
  রংপুর রাইডার্স
  সিলেট রয়্যালস
গ্রুপ ম্যাচ
১০ ১১ ১২
১০
১০ ১০ ১২ ১২
১০ ১০ ১২ ১৪ ১৬ ১৬ ১৮
১০ ১০ ১০ ১০
১০ ১০
১০ ১০ ১২ ১২ ১৪ ১৪ ১৬ ১৮
প্লেঅফ
রে সে১ সে২
 
  হা
   
  হা    
 
 
হা   হা  
জয় হার ফলাফল হয়নি
দলটি গ্রুপ পর্যায়ে বাদ।

নোট:

  • প্রতিটি গ্রুপ ম্যাচ শেষে মোট পয়েন্ট তালিকাভুক্ত করা।
  • পয়েন্টে ক্লিক করুন (গ্রুপ ম্যাচগুলি) অথবা জ/হা (প্লেঅফ) ম্যাচের সারসংক্ষেপ দেখার জন্য।

ফলাফলসম্পাদনা

গ্রুপ পর্বসম্পাদনা

বরিশাল চিটাগং ঢাকা রাজশাহী খুলনা রংপুর সিলেট
  বরিশাল বার্নার্স চিটাগং
২১ রান
ঢাকা
৮ উইকেট
রাজশাহী
৪ রান
বরিশাল
৮ উইকেট
রংপুর
৭ রান
সিলেট
৩৩ রান
  চিটাগং কিংস বরিশাল
৬ রান
চিটাগং
৫৪ রান
রাজশাহী
২ রান
চিটাগং
৮ উইকেট
রংপুর
৬ উইকেট
সিলেট
৩ উইকেট
  ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস বরিশাল
৭ উইকেট
ঢাকা
২৯ রান
প্রথম প্রতিদ্বন্দ্বিতা → ঢাকা
১৩ রান
ঢাকা
৬২ রান
ঢাকা
৩৫ রান
সিলেট
৭ উইকেট
  দুরন্ত রাজশাহী রাজশাহী
৪ উইকেট
চিটাগং
৩৩ রান
ঢাকা
১৩ রান
খুলনা
৬৮ রান
রাজশাহী
৭ উইকেট
সিলেট
৪ উইকেট
  খুলনা রয়েল বেঙ্গলস বরিশাল
৭ উইকেট
খুলনা
৮৩ রান
ঢাকা
৬ উইকেট
খুলনা
৭ উইকেট
← দ্বিতীয় প্রতিদ্বন্দ্বিতা খুলনা
৯ রান
সিলেট
৬ উইকেট
  রংপুর রাইডার্স বরিশাল
২৬ রান
রংপুর
৫ উইকেট
ঢাকা
৮৮ রান
রংপুর
১৯ রান
রংপুর
৩৩ রান
সিলেট
৫ উইকেট
  সিলেট রয়্যালস সিলেট
১ উইকেট
চিটাগং
১১৯ রান
ঢাকা
৩১ রান
রাজশাহী
৫ উইকেট
সিলেট
৬১ রান
সিলেট
৬ উইকেট
টীকা: ম্যাচের সারাংশ দেখার জন্য ফলাফলের উপর ক্লিক করুন।

প্লেঅফ পর্বসম্পাদনা

প্রাথমিক পর্ব ফাইনাল
  ১৯ ফেব্রুয়ারি — শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
১৫ ফেব্রুয়ারি — শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
  ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস ১৯৭/৯
  সিলেট রয়্যালস ১৯৩/৬     ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস ১৭২/৯
  ঢাকা ৪ রানে বিজয়ী      চিটাগং কিংস ১২৯/১০
  ঢাকা ৩ উইকেটে বিজয়ী 
১৮ ফেব্রুয়ারি — শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
    সিলেট রয়্যালস ১৪৯/৭
    চিটাগং কিংস ১৫০/৭
  চিটাগাং ৩ উইকেটে বিজয়ী 
১৬ ফেব্রুয়ারি — শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
  চিটাগং কিংস ১০৮/৬
  দুরন্ত রাজশাহী ১০৭/৭
  চিটাগাং ৪ উইকেটে বিজয়ী 

খেলার সূচিসম্পাদনা

সকল সময় বাংলাদেশ মান সময় (ইউটিসি+০৬:০০) অনুযায়ী।[৮]

গ্রুপ পর্বসম্পাদনা

১৮ জানুয়ারি
১৪:০০
স্কোরকার্ড
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস  
২০৪/৪ (২০ ওভার)
  খুলনা রয়েল বেঙ্গলস
১৪২/৮ (২০ ওভার)
ওয়াইস শাহ ৮৪ (৪৮)
ডলার মাহমুদ ৩/৪০ (৪ ওভার)
রিকি ওয়েসেলস ৩০ (২৩)
মোশাররফ হোসেন ৪/৯ (৪ ওভার)
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস ৬২ রানে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ (ইংল্যান্ড) ও মাসুদুর রহমান (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: ওয়াইস শাহ (ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস)

১৮ জানুয়ারি
১৮:০০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
সিলেট রয়্যালস  
১৭৫/৭ (২০ ওভার)
  বরিশাল বার্নার্স
১৪২/৯ (২০ ওভার)
পল স্টার্লিং ৫০ (২৯)
অলোক কাপালি ২/২০ (৩ ওভার)
কবির আলী ৫০ (২১)
সোহরাওয়ার্দী শুভ ৩/২৩ (৪ ওভার)
সিলেট রয়্যালস ৩৩ রানে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: আনিসুর রহমান (বাংলাদেশ) ও জেরেমি লয়েডস (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: পল স্টার্লিং (সিলেট রয়্যালস)

১৯ জানুয়ারি
১৪:০০
স্কোরকার্ড
দুরন্ত রাজশাহী  
৯৯/৯ (২০ ওভার)
  চিটাগং কিংস
৯৭ (১৯.৩ ওভার)
মুক্তার আলী ২২ (৩১)
রবি বোপারা ২/১৯ (৪ ওভার)
মাহমুদুল্লাহ ৪০ (৪২)
আবুল হাসান ৩/২০ (৪ ওভার)
দুরন্ত রাজশাহী ২ রানে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: জেরেমি লয়েডস (ইংল্যান্ড) এবং মাহফুজুর রহমান (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: শন আরভিন (দুরন্ত রাজশাহী)

১৯ জানুয়ারি
১৮:০০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস  
২০২/৫ (২০ ওভার)
  রংপুর রাইডার্স
১৬৭/৪ (২০ ওভার)
নাসির হোসেন ৮০ (৪৯)
সাকিব আল হাসান ২/১৭ (৪ ওভার)
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস ৩৫ রানে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: মাসুদুর রহমান (বাংলাদেশ) এবং তানভির আহমেদ (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: মোহাম্মদ আশরাফুল (ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস)

২০ জানুয়ারি
১৪:০০
স্কোরকার্ড
খুলনা রয়েল বেঙ্গলস  
১৪২/৮ (২০ ওভার)
  বরিশাল বার্নার্স
১৪৬/২ (১৮.২ ওভার)
রিকি ওয়েসেলস ৪৮ (৪৪)
অলোক কাপালি ১/১৮ (৪ ওভার)
ব্র্যাড হজ ৫৩ (৪০)
ডলার মাহমুদ ১/২২ (২ ওভার)
বরিশাল বার্নার্স ৮ উইকেটে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: আনিসুর রহমান (বাংলাদেশ) এবং রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: ব্র্যাড হজ (বরিশাল বার্নার্স)

২০ জানুয়ারি
১৮:০০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
দুরন্ত রাজশাহী  
১৪৭/৮ (২০ ওভার)
  সিলেট রয়্যালস
১৫০/৬ (১৯.১ ওভার)
সিলেট রয়্যালস ৪ উইকেটে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: জেরেমি লয়েডস (ইংল্যান্ড) এবং তানভির আহমেদ (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: এলটন চিগুম্বুরা (সিলেট রয়্যালস)

২২ জানুয়ারি
১৪:০০
স্কোরকার্ড
চিটাগং কিংস  
১৩২/৫ (২০ ওভার)
  রংপুর রাইডার্স
১৩৫/৪ (১৯.৩ ওভার)
ব্রেন্ডন টেলর ৬৫* (৫১)
জ্যাকব ওরাম ২/২১ (৩.৩ ওভার)
রংপুর রাইডার্স ৬ উইকেটে জয়ী
শেখ আবু নাসের স্টেডিয়াম, খুলনা
আম্পায়ার: আনিসুর রহমান (বাংলাদেশ) এবং রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: নাসির হোসেন (রংপুর রাইডার্স)

২২ জানুয়ারি
১৮:০০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস  
১৫৬/৮ (২০ ওভার)
  দুরন্ত রাজশাহী
১৪৩/৩ (২০ ওভার)
লুক রাইট ৫১ ৩৭
মঈন আলী ৩/১৯ (৪ ওভার)
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস ১৩ রানে জয়ী
শেখ আবু নাসের স্টেডিয়াম, খুলনা
আম্পায়ার: গাজী সোহেল (বাংলাদেশ) এবং মাসুদুর রহমান (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: সাকিব আল হাসান (ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস)

২৩ জানুয়ারি
১৪:০০
স্কোরকার্ড
রংপুর রাইডার্স  
১৭৪/৪ (২০ ওভার)
  বরিশাল বার্নার্স
১৬৭/৮ (২০ ওভার)
শামসুর রহমান ৬৬ (৪০)
ইলিয়াস সানি ২/২১ (৪ ওভার)
সাব্বির রহমান ৬৯ (৩৫)
আব্দুর রাজ্জাক ৪/৩৩ (৪ ওভার)
রংপুর রাইডার্স ৭ রানে জয়ী
শেখ আবু নাসের স্টেডিয়াম, খুলনা
আম্পায়ার: মাহফুজুর রহমান (বাংলাদেশ) এবং রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: শামসুর রহমান (রংপুর রাইডার্স)

২৩ জানুয়ারি
১৮:০০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
খুলনা রয়েল বেঙ্গলস  
১৪৫/৭ (২০ ওভার)
  সিলেট রয়্যালস
১৪৬/৪ (১৬.২ ওভার)
রিকি ওয়েসেলস ৬৩* (৪৪)
ডার্ক ন্যানেস এবং সোহাগ গাজী ২/২০ (৪ ওভার)
হ্যামিল্টন মাসকাদজা ৫২ (৩০)
নাবিল সামাদ ২/২৩ (৪ ওভার)
সিলেট রয়্যালস ৬ উইকেটে জয়ী
শেখ আবু নাসের স্টেডিয়াম, খুলনা
আম্পায়ার: মাহফুজুর রহমান (বাংলাদেশ) এবং আনিসুর রহমান (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: হ্যামিল্টন মাসকাদজা (সিলেট রয়্যালস)

২৪ জানুয়ারি
১০:০০
স্কোরকার্ড
চিটাগং কিংস  
১২৯/৭ (২০ ওভার)
  বরিশাল বার্নার্স
১০৮/৯ (২০ ওভার)
রবি বোপারা ৩৮ (২৯)
আজহার মাহমুদ ২/২২ (৪ ওভার)
চিটাগং কিংস ২১ রানে জয়ী
শেখ আবু নাসের স্টেডিয়াম, খুলনা
আম্পায়ার: গাজী সোহেল (বাংলাদেশ) এবং রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: রবি বোপারা (চিটাগং কিংস)

২৪ জানুয়ারি
১৮:০০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
খুলনা রয়েল বেঙ্গলস  
১৯৭/০ (২০ ওভার)
  দুরন্ত রাজশাহী
১২৯ (১৮.৩ ওভার)
জহুরুল ইসলাম ২৬ (২৩)
ফরহাদ রেজা ৩/২২ (৩ ওভার)
খুলনা রয়েল বেঙ্গলস ৬৮ রানে জয়ী
শেখ আবু নাসের স্টেডিয়াম, খুলনা
আম্পায়ার: তানভির আহমেদ (বাংলাদেশ) এবং আনিসুর রহমান (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: শাহরিয়ার নাফীস (খুলনা রয়েল বেঙ্গলস)

২৫ জানুয়ারি
১৪:০০
স্কোরকার্ড
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস  
১৫২/৮ (২০ ওভার)
  সিলেট রয়্যালস
১৫৭/৩ (১৮.৪ ওভার)
মোহাম্মদ আশরাফুল ৩৮ (৩৫)
ডার্ক ন্যানেস ২/২৭ (৪ ওভার)
মুশফিকুর রহিম ৭৫* (৫০)
আলফনসো টমাস ২/২৭ (৩ ওভার)
সিলেট রয়্যালস ৭ উইকেটে জয়ী
শেখ আবু নাসের স্টেডিয়াম, খুলনা
আম্পায়ার: রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ (ইংল্যান্ড) এবং মাহফুজুর রহমান (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: মুশফিকুর রহিম (সিলেট রয়্যালস)

২৫ জানুয়ারি
১৮:০০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
খুলনা রয়েল বেঙ্গলস  
১৫০/৭ (২০ ওভার)
  রংপুর রাইডার্স
১৪১/৭ (২০ ওভার)
শাহরিয়ার নাফীস ৫৩ (৫০)
মোহাম্মদ শরীফ ৩/২২ (৪ ওভার)
নাসির হোসেন ৭০* (৪৯)
শাপুর জাদরান ৩/২১ (৪ ওভার)
খুলনা রয়েল বেঙ্গলস ৯ রানে জয়ী
শেখ আবু নাসের স্টেডিয়াম, খুলনা
আম্পায়ার: মাহফুজুর রহমান (বাংলাদেশ) এবং মাসুদুর রহমান (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: ড্যানিয়েল হ্যারিস (খুলনা রয়েল বেঙ্গলস)

২৮ জানুয়ারি
১৪:০০
স্কোরকার্ড
চিটাগং কিংস  
১৭২/৬ (২০ ওভার)
  সিলেট রয়্যালস
১৭৬/৭ (১৯.৩ ওভার)
নাঈম ইসলাম ৭২ (৫২)
সোহাগ গাজী ২/২১ (৩.১ ওভার)
মোহাম্মদ নবী ৪৩ (২৬)
কেভন কুপার ৩/২১ (৪ ওভার)
সিলেট রয়্যালস ৩ উইকেটে জয়ী
এম এ আজিজ স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
আম্পায়ার: তানভির আহমেদ (বাংলাদেশ) এবং জেরেমি লয়েডস (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: মোহাম্মদ নবী (সিলেট রয়্যালস)

২৮ জানুয়ারি
১৮:০০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
দুরন্ত রাজশাহী  
২১৩/৬ (২০ ওভার)
  বরিশাল বার্নার্স
২০৯/৭ (২০ ওভার)
তামিম ইকবাল ৬৬ (৪৭)
অলোক কাপালি ৩/২৩ (৪ ওভার)
আজহার মাহমুদ ৫৪ (২৮)
আবুল হাসান ২/৪৩ (৪ ওভার)
দুরন্ত রাজশাহী ৪ রানে জয়ী
এম এ আজিজ স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
আম্পায়ার: আনিসুর রহমান (বাংলাদেশ) এবং গাজী সোহেল (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: চার্লস কভেন্ট্রি (দুরন্ত রাজশাহী)

২৯ জানুয়ারি
১৪:০০
স্কোরকার্ড
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস  
১৫৮/৫ (২০ ওভার)
  সিলেট রয়্যালস
১২৭/৮ (২০ ওভার)
ড্যারেন স্টিভেন ৫৫* (৩৫)
সুলাইমান বেন ১/২৩ (৪ ওভার)
মুশফিকুর রহিম ৪১ (৩৭)
আলফনসো থমাস ২/১২ (৪ ওভার)
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস ৩১ রানে জয়ী
এম এ আজিজ স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
আম্পায়ার: মাসুদুর রহমান (বাংলাদেশ) এবং জেরেমি লয়েডস (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: ড্যারেন স্টিভেন (ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস)

২৯ জানুয়ারি
১৮:০০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
রংপুর রাইডার্স  
১২২ (২০ ওভার)
কেভিন ও’ব্রায়েন ২৪* (৩০)
ড্যানিয়েল হ্যারিস ৩/২২ (৪ ওভার)
আসিফ আহমেদ ১৯ (১৮)
ফিদেল এডওয়ার্ডস 8/১১ (৩.৪ ওভার)
রংপুর রাইডার্স ৩৩ রানে জয়ী
এম এ আজিজ স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
আম্পায়ার: মাহফুজুর রহমান (বাংলাদেশ) এবং আনিসুর রহমান (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: ফিদেল এডওয়ার্ডস (রংপুর রাইডার্স)

৩১ জানুয়ারি
১৪:০০
স্কোরকার্ড
রংপুর রাইডার্স  
১২২ (১৯.৩ ওভার)
  সিলেট রয়্যালস
১২৬/৫ (১৯.৩ ওভার)
শামসুর রহমান ৫২ (৪৬)
ডোয়াইন স্মিথ ৩/২৩ (৩.৩ ওভার)
নাজমুল হোসেন মিলন ৪৫* (২৯)
নাসির হোসেন ২/১৯ (৪ ওভার)
সিলেট রয়্যালস ৫ উইকেটে জয়ী
এম এ আজিজ স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
আম্পায়ার: জেরেমি লয়েডস (ইংল্যান্ড) এবং তানভির আহমেদ (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: নাজমুল হোসেন মিলন (সিলেট রয়্যালস)

৩১ জানুয়ারি
১৮:০০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
বরিশাল বার্নার্স  
১৮২/৫ (২০ ওভার)
  চিটাগং কিংস
১৭৬/৬ (২০ ওভার)
সাব্বির রহমান ৪০ (২৭)
কেভন কুপার ২/২৭ (৪ ওভার)
বরিশাল বার্নার্স ৬ রানে জয়ী
এম এ আজিজ স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
আম্পায়ার: আনিসুর রহমান (বাংলাদেশ) এবং তানভির আহমেদ (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: আজহার মাহমুদ (বরিশাল বার্নার্স)

১ ফেব্রুয়ারি
১৪:৩০
স্কোরকার্ড
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস  
১৩৭/৫ (২০ ওভার)
  দুরন্ত রাজশাহী
১২৪/৯ (২০ ওভার)
ওয়াইস শাহ ৪৩* (৪০)
তাইজুল ইসলাম ২/২৪ (৪ ওভার)
তামিম ইকবাল ৩৩ (১৮)
আলফনসো টমাস ২/১৫ (৪ ওভার)
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস ১৩ রানে জয়ী
এম এ আজিজ স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
আম্পায়ার: জেরেমি লয়েডস (ইংল্যান্ড) এবং গাজী সোহেল (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: আলফনসো টমাস (ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস)

১ ফেব্রুয়ারি
১৮:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
চিটাগং কিংস  
১৩৭/২ (১৮ ওভার)
  খুলনা রয়েল বেঙ্গলস
১৩৬/৫ (২০ ওভার)
ব্রেন্ডন টেলর ৬৯* (৪৯)
এনামুল হক জুনিয়র ৩/২৮ (৪ ওভার)
রিকি ওয়েসেলস ৩৫ (৩২)
সাঞ্জামুল ইসলাম ১/২৬ (৪ ওভার)
চিটাগং কিংস ৮ উইকেটে জয়ী
এম এ আজিজ স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
আম্পায়ার: মাসুদুর রহমান (বাংলাদেশ) এবং মাহফুজুর রহমান (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: ব্রেন্ডন টেলর (চিটাগং কিংস)

২ ফেব্রুয়ারি
১৪:৩০
স্কোরকার্ড
বরিশাল বার্নার্স  
১৫২/৬ (২০ ওভার)
  দুরন্ত রাজশাহী
১৫৩/৬ (১৯.৪ ওভার)
আজহার মাহমুদ ৫৭ (৩৪)
দিলশান মুনাভেরা ২/১৮ (৪ ওভার)
জহুরুল ইসলাম ৫৭ (৩৮)
আজহার মাহমুদ ২/২০ (৪ ওভার)
দুরন্ত রাজশাহী ৪ উইকেটে জয়ী
এম এ আজিজ স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
আম্পায়ার: গাজী সোহেল (বাংলাদেশ) এবং জেরেমি লয়েডস (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: জহুরুল ইসলাম (দুরন্ত রাজশাহী)

২ ফেব্রুয়ারি
১৮:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
চিটাগং কিংস  
১৪২ (২০ ওভার)
নাঈম ইসলাম ৫০ (৩৮)
আলফনসো থমাস ২/১১ (৪ ওভার)
চিটাগং কিংস ৫৪ রানে জয়ী
এম এ আজিজ স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
আম্পায়ার: মাহফুজুর রহমান (বাংলাদেশ) এবং মাসুদুর রহমান (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: নাঈম ইসলাম (চিটাগং কিংস)

৪ ফেব্রুয়ারি
১৫:৩০
স্কোরকার্ড
রংপুর রাইডার্স  
১৬৩/৩ (২০ ওভার)
  দুরন্ত রাজশাহী
১৬৮/৩ (১৯ ওভার)
শামসুর রহমান ৬৮ (৫৭)
মনির হোসেন ১/২৩ (৪ ওভার)
তামিম ইকবাল ৫০ (৩৬)
কেভিন ও'ব্রাইন ১/১৭ (৩ ওভার)
দুরন্ত রাজশাহী ৭ উইকেটে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: এনামুল হক (বাংলাদেশ) এবং রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: তামিম ইকবাল (দুরন্ত রাজশাহী)

৪ ফেব্রুয়ারি
১৯:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
খুলনা রয়েল বেঙ্গলস  
১৪৫/৭ (২০ ওভার)
  বরিশাল বার্নার্স
১৪৮/৩ (১৭.৫ ওভার)
শাহরিয়ার নাফীস ৬৬ (৫০)
আজহার মাহমুদ ৩/২৩ (৪ ওভার)
আজহার মাহমুদ ৫২* (৩৩)
স্যামুয়েল ব্যাডরি ১/২৫ (৪ ওভার)
বরিশাল বার্নার্স ৭ উইকেটে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: গাজী সোহেল (বাংলাদেশ) এবং জেরেমি লয়েডস (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: আজহার মাহমুদ (বরিশাল বার্নার্স)

৫ ফেব্রুয়ারি
১৫:৩০
স্কোরকার্ড
সিলেট রয়্যালস  
১৪৭/৮ (২০ ওভার)
  দুরন্ত রাজশাহী
১৫২/৫ (১৯.৪ ওভার)
মুশফিকুর রহিম ৩৪ (২৩)
মনির হোসেন ২/৩৫ (৪ ওভার)
জহুরুল ইসলাম ৪৯* (৩৭)
ডোয়াইন স্মিথ ২/২৫ (৩.৪ ওভার)
দুরন্ত রাজশাহী ৫ উইকেটে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: এনামুল হক (বাংলাদেশ) এবং মাসুদুর রহমান (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: জহুরুল ইসলাম (দুরন্ত রাজশাহী)

৫ ফেব্রুয়ারি
১৯:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস  
২১৭/৪ (২০ ওভার)
  রংপুর রাইডার্স
১২৯ (১৯.৫ ওভার)
এনামুল হক ৮৩ (৪৬)
মুরাদ খান ২/২৯ (৪ ওভার)
ধীমান ঘোষ ৩৬* (২৭)
সাকিব আল হাসান ৩/১৯ (৪ ওভার)
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস ৮৮ রানে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: এনামুল হক (বাংলাদেশ) এবং তানভির আহমেদ (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: এনামুল হক (ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস)

৭ ফেব্রুয়ারি
১৫:৩০
স্কোরকার্ড
চিটাগং কিংস  
১৫৬/৫ (২০ ওভার)
শাহরিয়ার নাফীস ১৫ (১৭)
কেভন কুপার ৪/১০ (৩.২ ওভার)
চিটাগং কিংস ৮৯ রানে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: মাসুদুর রহমান (বাংলাদেশ) এবং জেরেমি লয়েডস (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: রায়ান টেন ডেসকাট (চিটাগং কিংস)

৭ ফেব্রুয়ারি
১৯:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
রংপুর রাইডার্স  
১৯৭/৪ (২০ ওভার)
  সিলেট রয়্যালস
১৯৮/৪ (১৯ ওভার)
শামসুর রহমান ৯৮* (৫০)
নাজমুল হোসেন ২/৪২ (৪ ওভার)
সিলেট রয়্যালস ৬ উইকেটে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: এনামুল হক (বাংলাদেশ) এবং রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: শামসুর রহমান (রংপুর রাইডার্স)

৮ ফেব্রুয়ারি
১৫:৩০
স্কোরকার্ড
দুরন্ত রাজশাহী  
১৩৮/৯ (২০ ওভার)
  খুলনা রয়েল বেঙ্গলস
১৪০/৩ (১৯.২ ওভার)
মুক্তার আলী ৪১* (৩০)
কৃষমার সান্টোকি ৩/১৮ (৪ ওভার)
শাহরিয়ার নাফীস ৭১ (৫১)
বেন এডমন্ডসন ২/২৯ (৪ ওভার)
খুলনা রয়েল বেঙ্গলস ৭ উইকেটে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: এনামুল হক (বাংলাদেশ) এবং জেরেমি লয়েডস (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: শাহরিয়ার নাফীস (খুলনা রয়েল বেঙ্গলস)

৮ ফেব্রুয়ারি
১৯:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
চিটাগং কিংস  
১৯৩/৪ (২০ ওভার)
  সিলেট রয়্যালস
৭৪ (১৩.৫ ওভার)

৯ ফেব্রুয়ারি
১৫:৩০
স্কোরকার্ড
চিটাগং কিংস  
১৬০/৬ (২০ ওভার)
  রংপুর রাইডার্স
১৬১/৫ (২০ ওভার)
রায়ান টেন ডেসকাট ৫০ (৩২)
নাসির হোসেন ২/২৫ (৪ ওভার)
ইমরুল কায়েস ৪৮ (৪০)
শন টেইট ২/২৫ (৪ ওভার)
রংপুর রাইডার্স ৫ উইকেটে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: এনামুল হক (বাংলাদেশ) এবং রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: ড্যানজা হায়াট (রংপুর রাইডার্স)

৯ ফেব্রুয়ারি
১৯:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
বরিশাল বার্নার্স  
১১৪/৯ (২০ ওভার)
  ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস
১১৫/২ (১২.৪ ওভার)
আজহার মাহমুদ ৩০ (৩৩)
ক্রিস লিডল ১৬/২ (৪ ওভার)
সাকিব আল হাসান ৫৪ (৩১)
শুভাগত হোম ১/৫ (১ ওভার)
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস ৮ উইকেটে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: মাসুদুর রহমান (বাংলাদেশ) এবং জেরেমি লয়েডস (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: সাকিব আল হাসান (ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস)

১১ ফেব্রুয়ারি
১৫:৩০
স্কোরকার্ড
খুলনা রয়েল বেঙ্গলস  
১৭৬/৬ (২০ ওভার)
  ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস
১৮০/৪ (১৯.২ ওভার)
ট্রাভিস বার্ট ৯৪* (৫৬)
আলফনসো টমাস ৩/৩৪ (৪ ওভার)
মোহাম্মদ আশরাফুল ১০৩* (৫৮)
জিহান মুবারক ১/৮ (১ ওভার)
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস ৬ উইকেটে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: গাজী সোহেল (বাংলাদেশ) এবং জেরেমি লয়েডস (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: মোহাম্মদ আশরাফুল (ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস)

১১ ফেব্রুয়ারি
১৯:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
রংপুর রাইডার্স  
১৭৯/৮ (২০ ওভার)
  দুরন্ত রাজশাহী
১৬০ (১৮.৪ ওভার)
শামসুর রহমান ৫১ (৩৬)
মুক্তার আলী ৩/২৫ (৪ ওভার)
জিয়াউর রহমান ৩৬ (১৮)
কেভিন ও'ব্রাইন ৩/১৭ (৩ ওভার)
রংপুর রাইডার্স ১৯ রানে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: এনামুল হক (বাংলাদেশ) এবং জেরেমি লয়েডস (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: কেভিন ও'ব্রাইন (রংপুর রাইডার্স)

১২ ফেব্রুয়ারি
১৫:৩০
স্কোরকার্ড
সিলেট রয়্যালস  
১৯৬/৩ (২০ ওভার)
  খুলনা রয়েল বেঙ্গলস
১৩৫/৭ (২০ ওভার)
পল স্টার্লিং ৬৬ (৩৯)
কৃষমার সান্টোকি ১/২১ (৪ ওভার)
মিথুন আলী ৬০ (৪৭)
মোহাম্মদ নবী ৩/২৮ (৪ ওভার)
সিলেট রয়্যালস ৬১ রানে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: জেরেমি লয়েডস (ইংল্যান্ড) এবং তানভির আহমেদ (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: পল স্টার্লিং (সিলেট রয়্যালস)

১২ ফেব্রুয়ারি
১৯:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস  
১১৪ (১৯.২ ওভার)
  বরিশাল বার্নার্স
১১৭/৩ (১৩.৩ ওভার)
ব্র্যাড হজ ৭০* (৪৪)
সাকিব আল হাসান ১/১৮ (৪ ওভার)
বরিশাল বার্নার্স ৭ উইকেটে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: এনামুল হক (বাংলাদেশ) এবং রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: ব্র্যাড হজ (বরিশাল বার্নার্স)

১৩ ফেব্রুয়ারি
১৫:৩০
স্কোরকার্ড
চিটাগং কিংস  
১৯৩/৩ (২০ ওভার)
  দুরন্ত রাজশাহী
১৬০/৬ (২০ ওভার)
জেসন রয় ৯২* (৫৫)
মনির হোসেন ১/৩০ (৩ ওভার)
সাইমন ক্যাটিচ ৫৩ (৩৯)
রুবেল হোসেন ২/২৩ (৩ ওভার)
চিটাগং কিংস ৯৩ রানে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: গাজী সোহেল (বাংলাদেশ) এবং রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: জেসন রয় (চিটাগং কিংস)

১৩ ফেব্রুয়ারি
১৯:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
বরিশাল বার্নার্স  
১৪৪/৯ (২০ ওভার)
  সিলেট রয়্যালস
১৪৫/৯ (১৯.৪ ওভার)
ব্র্যাড হজ ৪৬ (৪০)
মমিনুল হক ২/১৪ (৩ ওভার)
পল স্টার্লিং ৪২ (২৯)
হামিদ হাসান ৩/৩১ (৪ ওভার)
সিলেট রয়্যালস ১ উইকেটে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: এনামুল হক (বাংলাদেশ) এবং জেরেমি লয়েডস (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: পল স্টার্লিং (সিলেট রয়্যালস)

১৪ ফেব্রুয়ারি
১৫:৩০
স্কোরকার্ড
বরিশাল বার্নার্স  
১৩৯/৭ (২০ ওভার)
  রংপুর রাইডার্স
১১৩ (২০ ওভার)
পারভেজ মাহারুফ ৩৪* (৩৪)
সাজু দত্ত ৩/২৩ (৪ ওভার)
ক্যামেরুন বোরগাস ৩২ (৩০)
হামিদ হাসান ৩/২২ (৪ ওভার)
বরিশাল বার্নার্স ২৬ রানে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: এনামুল হক (বাংলাদেশ) এবং জেরেমি লয়েডস (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: হামিদ হাসান (বরিশাল বার্নার্স)

১৪ ফেব্রুয়ারি
১৯:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস  
১৬৮/৬ (২০ ওভার)
  চিটাগং কিংস
১৩৯/৯ (২০ ওভার)
সাকিব আল হাসান ৫৯* (২৯)
এনামুল হক জুনিয়র ১/২৩ (৪ ওভার)
নুরুল হাসান ৪৩ (৩০)
তিলকরত্নে দিলশান ২/৬ (২ ওভার)
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস ২৯ রানে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: জেরেমি লয়েডস (ইংল্যান্ড) এবং আনিসুর রহমান (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: সাকিব আল হাসান (ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস)

প্লেঅফ পর্বসম্পাদনা

রেস টু দ্য ফাইনাল
১৫ ফেব্রুয়ারি
১৮:০০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস  
১৯৭/৯ (২০ ওভার)
  সিলেট রয়্যালস
১৯৩/৬ (২০ ওভার)
ক্রিস গেইল ১১৪ (৫১)
সাজিদুল ইসলাম ৩/২৩ (৪ ওভার)
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস ৪ রানে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: এনামুল হক (বাংলাদেশ) এবং জেরেমি লয়েডস (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: ক্রিস গেইল (ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস)
১ম সেমি-ফাইনাল
১৬ ফেব্রুয়ারি
১৮:০০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
দুরন্ত রাজশাহী  
১০৭/৭ (২০ ওভার)
  চিটাগং কিংস
১০৮/৬ (১৭.২ ওভার)
শন আরভিন ৪৭* (৪৮)
তাসকিন আহমেদ ৪/৩১ (৩ ওভার)
রভি বোপারা ৩৪* (৩০)
নাঈম ইসলাম জুনিয়র ২/২৫ (৪ ওভার)
চিটাগং কিংস ৪ উইকেটে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: আনিসুর রহমান (বাংলাদেশ) এবং রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: তাসকিন আহমেদ (চিটাগং কিংস )
২য় সেমি-ফাইনাল
১৭ ফেব্রুয়ারি
১৮:০০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
সিলেট রয়্যালস  
১৪৯/৭ (২০ ওভার)
  চিটাগং কিংস
১৫০/৭ (১৯.১ ওভার)
এলটন চিগুম্বুরা ৪৪* (২৫)
এনামুল হক জুনিয়র ২/২৪ (৪ ওভার)
  • চিটাগং কিংস টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়।
  • চিটাগং কিংস ফাইনালের জন্য যোগ্যতা অর্জন করে এবং সিলেট রয়্যালস বাদ হয়ে যায়।
ফাইনাল
১৯ ফেব্রুয়ারি
১৭:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস  
১৭২/৯ (২০ ওভার)
  চিটাগং কিংস
১২৯ (১৬.৫ ওভার)
এনামুল হক ৫৮ (৩৬)
রুবেল হোসেন ৪/৪৪ (৪ ওভার)
মাহমুদুল্লাহ ৪৪ (২৮)
আলফনসো টমাস ৩/১৯ (২.৫ ওভার)
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস ৪৩ রানে জয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম, মিরপুর
আম্পায়ার: এনামুল হক (বাংলাদেশ) এবং রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: মোশাররফ হোসেন (ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস)

পরিসংখ্যানসম্পাদনা

দলীয় সর্বোচ্চ রানসম্পাদনা

নিম্নলিখিত টেবিলটি এই আসরের দলীয় সর্বোচ্চ রানের তালিকা (পাঁচটি)।

দল মোট রান বিপক্ষ মাঠ
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস ২১৭/৪ (২০ ওভার) রংপুর রাইডার্স শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম
দুরন্ত রাজশাহী ২১৩/৬ (২০ ওভার) বরিশাল বার্নার্স এম এ আজিজ স্টেডিয়াম
বরিশাল বার্নার্স ২০৯/৭ (২০ ওভার) দুরন্ত রাজশাহী এম এ আজিজ স্টেডিয়াম
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস ২০৪/৪ (২০ ওভার) খুলনা রয়েল বেঙ্গলস শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম
ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস ২০২/৫ (২০ ওভার) রংপুর রাইডার্স শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম

সর্বশেষ হালনাগাদ: ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৩[৯]

সর্বাধিক রানসম্পাদনা

নিম্নলিখিত টেবিলটি এই আসরের সর্বাধিক রান সংগ্রাহকের তালিকা।

খেলোয়াড় দল রান ইনিংস গড় স্ট্রাইক রেট সর্বোচ্চ রান ১০০ ৫০
  মুশফিকুর রহিম   সিলেট রয়্যালস ৪৪০ ১৩ ৪০.৪০ ১২৯.৯০ ৮৬ ৩০ ১৪
  রায়ান টেন ডেসকাট   চিটাগং কিংস ৪৩২ ১২ ৪২.৮৮ ১৫০.১৯ ৯৫* ২৪ ১৭
  শামসুর রহমান   রংপুর রাইডার্স ৪১৬ ১২ ৪৫.১০ ১৫০.৭৪ ৯৮* ৪৫ ১৬
  ব্র্যাড হজ   বরিশাল বার্নার্স ৪১০ ১১ ৪১.০০ ১৩৫.৭৬ ৭০* ৪৯ ১৪
  শাহরিয়ার নাফীস   খুলনা রয়েল বেঙ্গলস ৩৯৫ ১২ ৩৫.৯০ ১১৭.৯১ ১০২* ৫২

সর্বশেষ হালনাগাদ: ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৩[১০]

সর্বাধিক উইকেটসম্পাদনা

নিম্নলিখিত টেবিলটি এই আসরের সর্বাধিক উইকেট সংগ্রাহকের তালিকা।[১১]

খেলোয়াড় দল উইকেট ম্যাচ গড় স্ট্রাইক রেট ইকো বিবিআই
  আলফনসো টমাস   ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস ২০ ১২ ১৪.৯০ ১৩.১ ৬.৭৯ ৩/১৯
  আজহার মাহমুদ   বরিশাল বার্নার্স ১৯ ১২ ১৪.৮৪ ১৩.২ ৬.৭১ ৩/৭
  এনামুল হক জুনিয়র   চিটাগং কিংস ১৮ ১৫ ১৭.১৬ ১৬.৬ ৬.২০ ৩/১৪
  মোহাম্মদ নবী   সিলেট রয়্যালস ১৮ ১৩ ১৯.০৬ ১৬.১ ৭.০৯ ৩/২৭
  মোশাররফ হোসেন   ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস ১৭ ১২ ১৬.০০ ১৫.০০ ৬.৪০ ৪/৯

বিশেষ পুরস্কারসম্পাদনা

সাংবাদিকদের ভোটে টুর্নামেন্টের সেরা উদীয়মান ক্রিকেটারের পুরস্কার জিতেন ১২ ম্যাচে ৬টি অর্ধশতকসহ ৪২১ রান করা শামসুর রহমান শুভ[১২]

আরো দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "পর্দা উঠল বিপিএলের" 
  2. "বিপিএলের সপ্তম দল রংপুরের মালিক আই স্পোর্টস"বিডিনিউজ। ১৫ ডিসেম্বর ২০১২। ১৮ ডিসেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ ডিসেম্বর ২০১২ 
  3. "Favourites Dhaka win second BPL title"। ক্রিকইনফো। ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ 
  4. "Dhaka Gladiators retain BPL title"দ্য ডেইলি স্টার। ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ 
  5. "অব্যবস্থাপনার উদ্বোধন"দৈনিক প্রথম আলো। ১৮ জানুয়ারি ২০১৩। 
  6. "বিপিএলের পর্দা উঠল"বিডিনিউজ। ১৭ জানুয়ারি ২০১৩। 
  7. "বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ, ২০১২/১৩ /পয়েন্ট টেবিল"। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জানুয়ারি ২০১৩ 
  8. "বিপিএল ফিক্সচার এবং সময়তালিকা"। ক্রিকইনফো। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০১-১৭ 
  9. "বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ, ২০১২/১৩ / রেকর্ডস /দলীয় সর্বোচ্চ রান"। সংগ্রহের তারিখ ২০ জানুয়ারি ২০১৩ 
  10. "বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ, ২০১২/১৩ / রেকর্ডস /সর্বাধিক রান"। সংগ্রহের তারিখ ২০ জানুয়ারি ২০১৩ 
  11. "বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ, ২০১২/১৩ / রেকর্ডস /সর্বাধিক উইকেট"। সংগ্রহের তারিখ ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ 
  12. "শিরোপা ধরে রাখল ঢাকা"। সংগ্রহের তারিখ ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৩