প্রধান মেনু খুলুন

ল্যাঙ্কাশায়ার কাউন্টি ক্রিকেট ক্লাব

ইংরেজ ক্রিকেট ক্লাব

ল্যাঙ্কাশায়ার ক্রিকেট ক্লাব (ইংরেজি: Lancashire County Cricket Club) ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসের ঘরোয়া ক্রিকেটে আঠারোটি প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট ক্লাবের অন্যতম। ঐতিহাসিক কাউন্টি ল্যাঙ্কাশায়ারের প্রতিনিধিত্বকারী দল এটি। ক্লাবটির টি২০ দলকে ল্যাঙ্কাশায়ার লাইটনিং নামে পরিচিতি ঘটানো হয়েছে।

ল্যাঙ্কাশায়ার কাউন্টি ক্রিকেট ক্লাব
ওডিআই নামল্যাঙ্কাশায়ার লাইটনিং
কর্মীবৃন্দ
অধিনায়কলিয়াম লিভিংস্টোন
কোচগ্লেন চ্যাপেল
দলীয় তথ্য
রঙ            
প্রতিষ্ঠাকাল১৮৬৪
স্বাগতিক ভেন্যুএমিরেটস ওল্ড ট্রাফোর্ড
ধারণক্ষমতা২৫,০০০
ইতিহাস
প্রথম-শ্রেণী অভিষেকমিডলসেক্স
 ১৮৬৫
 ওল্ড ট্রাফোর্ড
চ্যাম্পিয়নশীপ জয়৯ (যৌথভাবে ১বার)
প্রো৪০ জয়৫ (যৌথ রেকড)
এফপি ট্রফি জয়৭ (রেকর্ড)
টুয়েন্টি২০ কাপ জয়
বেনসন এন্ড হেজেস কাপ জয়৪ (রেকর্ড)
অফিসিয়াল ওয়েবসাইটল্যাঙ্কাশায়ার ক্রিকেট
Kit left arm redborder.png
Kit right arm redborder.png

First-class

First-class

Kit left arm redborder.png
Kit right arm redborder.png

First-class

ম্যানচেস্টার ক্রিকেট ক্লাবের উত্তরাধিকারী হিসেবে ১৮৬৪ সালে ল্যাঙ্কাশায়ার ক্রিকেট ক্লাব প্রতিষ্ঠা করা হয়। ওল্ড ট্রাফোর্ডে ল্যাঙ্কাশায়ার দল তাদের প্রধান মাঠ হিসেবে ব্যবহার করে থাকে। ১৮৬৫ সালে দলটি প্রথম খেলায় অংশ নেয়। ১৮৯৪ সাল পর্যন্ত নির্ভরযোগ্য সূত্রমূলে অনুষ্ঠিত খেলাগুলো গুরুত্বপূর্ণ খেলার মর্যাদা লাভ করে।[১][২] ১৮৯৫ সালে মেরিলেবোন ক্রিকেট ক্লাব (এমসিসি) ও কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপের ক্লাবগুলো কর্তৃক আনুষ্ঠানিকভাবে প্রথম-শ্রেণীর দলরূপে স্বীকৃতিলাভ করে।[৩] ১৯৬৩ সালে সীমিত ওভারের ক্রিকেট খেলার প্রচলন থেকে লিস্ট এ দল হিসেবে শ্রেণীভূক্ত হয়।[৪] এরপর ২০০৩ সালে বড়দের টুয়েন্টি২০ দল হিসেবে শ্রেণীভূক্ত হয়।[৫]

ইতিহাসসম্পাদনা

১৮৭৯ থেকে ১৮৮৯ সালের মধ্যে চারবার অনানুষ্ঠানিকভাবে চ্যাম্পিয়ন কাউন্টি হিসেবে বৈশ্বিকভাবে স্বীকৃতি পেয়েছিল। ডিসেম্বর, ১৮৮৯ সালে কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপ আনুষ্ঠানিকভাবে আয়োজনের ব্যবস্থা করা হয়। ১৮৯০ সালে প্রথম মৌসুমে আটটি ক্লাব নিয়ে প্রবর্তিত এ প্রতিযোগিতার অন্যতম দল ছিল তারা। ১৮৯৫ সালে ল্যাঙ্কাশায়ারের পক্ষে আর্চি ম্যাকলারেন ৪২৪ রানের ব্যক্তিগত ইনিংস খেলেন। অদ্যাবধি তাঁর এ সংগ্রহটি প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে যে-কোন ইংরেজ ক্রিকেটারের ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ সংগ্রহরূপে বিবেচিত হয়ে আসছে। ১৮৯৭ ও ১৯০৪ সালে ল্যাঙ্কাশায়ার তাদের প্রথম দুইটি কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপের শিরোপা লাভ করে। ১৯২৬ থেকে ১৯৩৪ সালের মধ্যে দলটি কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপের শিরোপা পাঁচবার লাভ করে। ১৯৫০ সালে দলটি সারে ক্লাবের সাথে যৌথভাবে শিরোপা জয়ে সক্ষমতা দেখায়। ১৯৫৪ সালে সিরিল ওয়াশব্রুক ল্যাঙ্কাশায়ারের প্রথম পেশাদার অধিনায়ক হিসেবে নিযুক্ত হন। ৭৭ বছর পর ২০১১ সালে ল্যাঙ্কাশায়ার দল তাদের পরবর্তী কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপের শিরোপা লাভে সক্ষম হয়।

১৮৭৯ থেকে ১৯০০ সাল পর্যন্ত জনি ব্রিগস ল্যাঙ্কাশায়ারের পক্ষে খেলেছেন। ল্যাঙ্কাশায়ারের প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে ১০,০০০ রান ও ১,০০০ উইকেট পেয়েছেন। জনি টিল্ডসলের কনিষ্ঠ ভ্রাতা আর্নেস্ট টিল্ডসলে ১৯০৯ থেকে ১৯৩৬ সাল পর্যন্ত ল্যাঙ্কাশায়ারের পক্ষে খেলেছেন। এ সময়ে তিনি ৫৭৩টি খেলায় অংশ নিয়ে ৩৪,২২২ রান তুলে ক্লাবের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক হন। ফাস্ট বোলার ব্রায়ান স্ট্যাদাম ১৯৫০ থেকে ১৯৬৮ সাল পর্যন্ত প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশ নিয়ে ল্যাঙ্কাশায়ারের পক্ষে ১,৮১৬ উইকেট লাভ করে ক্লাব রেকর্ড গড়েন।

১৯৬০-এর দশকের শেষ দিক থেকে ১৯৭০-এর দশকের সূচনাকাল পর্যন্ত জ্যাক বন্ড দলকে নেতৃত্ব দেন। এ সময়ে ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ব্যাটসম্যান ক্লাইভ লয়েডকে সাথে নিয়ে সীমিত ওভারের ক্রিকেটে প্রভূত সফলতা নিয়ে আসেন। দলটি ১৯৬৯ ও ১৯৭০ সালে সানডে লীগ এবং ১৯৭০ থেকে ১৯৭৫ সালের মধ্যে চারবার জিলেট কাপের শিরোপা জয় করে। ১৯৮৪ সালে ল্যাঙ্কাশায়ার দল বেনসন এন্ড হেজেস কাপ জয়সহ ১৯৯০ থেকে ১৯৯৬ সালের মধ্যে তিনবার এবং ১৯৮৯, ১৯৯৮ ও ১৯৯৯ সালে সানডে লীগের শিরোপা পায়। ২০০০ সালে কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপের খেলার ধরন পরিবর্তিত হলে দলটি প্রথম বিভাগে খেলার সুযোগ পায়। এরপর থেকে তিনবার অবনমন ঘটলেও প্রত্যেকবারই পরের মৌসুমে উত্তরণ ঘটে।

সম্মাননাসম্পাদনা

আরও দেখুন: ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসের কাউন্টি ক্রিকেট ক্লাবসমূহের প্রতিযোগিতামূলক সম্মাননা লাভের তালিকা
প্রথম একাদশের সম্মাননা[৬]
  • কাউন্টি চ্যাম্পিয়ন[ল ১] (১) – ১৮৮১; যৌথভাবে (৩) – ১৮৭৯, ১৮৮২, ১৮৮৯
  • কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপ (৮) – ১৮৯৭, ১৯০৪, ১৯২৬, ১৯২৭, ১৯২৮, ১৯৩০, ১৯৩৪, ২০১১; যৌথভাবে (১) – ১৯৫০
দ্বিতীয় বিভাগ (২) – ২০০৫, ২০১৩
  • ন্যাটওয়েস্ট টি২০ ব্লাস্ট (১) – ২০১৫
  • জিলেট/ন্যাটওয়েস্ট/সিএন্ডজি/এফপি ট্রফি[ল ২] (৭) – ১৯৭০, ১৯৭১, ১৯৭২, ১৯৭৫, ১৯৯০, ১৯৯৬, ১৯৯৮
  • সানডে/ন্যাশনাল/প্রো৪০ লীগ[ল ৩] (৫) – ১৯৬৯, ১৯৭০, ১৯৮৯, ১৯৯৮, ১৯৯৯
দ্বিতীয় বিভাগ (১) – ২০০৩
  • বেনসন এন্ড হেজেস কাপ (৪) – ১৯৮৪, ১৯৯০, ১৯৯৫, ১৯৯৬
দ্বিতীয় একাদশের সম্মাননা
  • দ্বিতীয় একাদশ চ্যাম্পিয়নশীপ (৪) – ১৯৬৪, ১৯৮৬, ১৯৯৭, ২০১৭; যৌথভাবে (১) - ২০১৩
  • মাইনর কাউন্টিজ চ্যাম্পিয়নশীপ (৭) – ১৯০৭, ১৯৩৪, ১৯৩৭, ১৯৪৮, ১৯৪৯, ১৯৬০, ১৯৬৪
অন্যান্য সম্মাননা
  • রিফিউজ কাপ (১) – ১৯৮৮
  • ল্যাম্বার্ট এন্ড বাটলার ফ্লাডলিট কম্পিটিশন (১) – ১৯৮১[৭]

ল্যাঙ্কাশায়ারে ক্রিকেটের সূচনাকালসম্পাদনা

১৭৮১ সালে ল্যাঙ্কাশায়ারে ক্রিকেট খেলার প্রচলন ঘটেছিল বলে জানা যায়।[৮] ১৮১৬ সালে ম্যানচেস্টার ক্রিকেট ক্লাব প্রতিষ্ঠিত হয়। এরপর থেকে ইয়র্কশায়ার ও নটিংহ্যামশায়ারের প্রতিনিধিত্বকারী শেফিল্ড ক্রিকেট ক্লাব ও নটিংহাম ক্রিকেট ক্লাবের ন্যায় এ ক্লাবটিও ল্যাঙ্কাশায়ার কাউন্টির প্রতিনিধিত্বকারী দলের মর্যাদা পায়। ২৩-২৫ জুলাই, ১৮৪৯ তারিখে শেফিল্ড ও ম্যানচেস্টার ক্লাব শেফিল্ডের হাইড পার্কে একে-অপরের বিপক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অবতীর্ণ হয়েছিল। তবে, খেলায় ইয়র্কশায়ার বনাম ল্যাঙ্কাশায়ারের কথা তুলে ধরা হয়। এটিই প্রথম খেলা হিসেবে ল্যাঙ্কাশায়ারের নাম ব্যবহার করা হয় ও গোলাপের খেলা নামে প্রথমবারের মতো পরিচিতি লাভ করে। ইয়র্কশায়ার দল পাঁচ উইকেটে জয় পায়।[৯] শেফিল্ড ক্লাব নামে ইয়র্কশায়ার দলটি ১৮৩৩ সাল থেকে খেলায় অংশ নিতো।[১০] গোলাপের খেলা ক্রিকেটের অন্যতম প্রাচীন ও সর্বাপেক্ষ জনপ্রিয় প্রতিপক্ষ হিসেবে পরিচিতি পায়। ১৮৫৭ সালে ম্যানচেস্টার ক্লাব ওল্ড ট্রাফোর্ডে চলে যায়। এরপর থেকেই ল্যাঙ্কাশায়ারের নিজস্ব মাঠরূপে চিহ্নিত হয়।[১১]

অধিনায়কসম্পাদনা

রেকর্ডসম্পাদনা

খেলোয়াড়ী রেকর্ডসম্পাদনা

ব্যাটিং
খেলোয়াড় তথ্য
সর্বোচ্চ রান[১২] ১। আর্চি ম্যাকলারেন
২। নীল ফেয়ারব্রাদার
৩। এডি পেন্টার
৪২৪ ব সমারসেট, কাউন্টি গ্রাউন্ড, টানটন , ১৮৯৫
৩৬৬ ব সারে , ওভাল, লন্ডন , ১৯৯০
৩২২ ব সাসেক্স , কাউন্টি কাউন্টি গ্রাউন্ড, হোভ , ১৯৩৭
মৌসুমে সর্বাধিক রান[১৩] ১। জনি টিল্ডসলে
২। এডি পেন্টার
৩। চার্লি হলোস
২,৬৩৩, ১৯০১
২,৬২৬, ১৯৩৭
২,৫৬৪, ১৯২৮
বোলিং
খেলোয়াড় তথ্য
ইনিংসে সেরা বোলিং[১৪] ১। উইলিয়াম হিকটন
২। জনি ব্রিগস
৩। বব বেরি
১০/৪৬, হ্যাম্পশায়ার, ওল্ড ট্রাফোর্ড, ম্যানচেস্টার , ১৮৭০
১০/৫৫, ওরচেস্টারশায়ার, ওল্ড ট্রাফোর্ড, ম্যানচেস্টার, ১৯০০
১০/১০২, ওরচেস্টারশায়ার , স্ট্যানলি পার্ক, ব্ল্যাকপুল, ১৯৫৩
খেলায় সেরা বোলিং পরিসংখ্যান[১৫] ১। হ্যারি ডিন
২। ওয়াল্টার ব্রিয়ারলি
৩। হ্যারি ডিন
১৭/৯১, ইয়র্কশায়ার, আইগবার্থ, লিভারপুল , ১৯১৩
১৭/১৩৭, সমারসেট, ওল্ড ট্রাফোর্ড, ম্যানচেস্টার , ১৯০৫
১৬/১০৩, সমারসেট, রিক্রিয়েশন গ্রাউন্ড, বাথ , ১৯১০
মৌসুমে সর্বাধিক উইকেট[১৬] ১। টেড ম্যাকডোনাল্ড
২। সেসিল পার্কিন
৩। আর্থার মোল্ড
১৯৮ (১৯২৫)
১৯৪ (১৯২৪)
১৯২ (১৮৯৫)
উইকেট-রক্ষণ
খেলোয়াড় তথ্য
ইনিংসে সর্বাধিক ডিসমিসাল[১৭] ১। বিল ফারিমন্ড
২। ওয়ারেন হেগ
৭, কেন্ট, ওল্ড ট্রাফোর্ড, ম্যানচেস্টার , ১৯৩০
৭, ডার্বিশায়ার , কুইন্স পার্ক, চেস্টারফিল্ড, ১৯৮৯
মৌসুমে সর্বাধিক ডিসমিসাল[১৮] ১। জর্জ ডাকওয়ার্থ
২। জিওফ ক্লেটন
৯৭ (১৯২৮)
৯২ (১৯৬২)

সর্বমোট দলীয় সংগ্রহসম্পাদনা

সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ[২১] – ৮৬৩, সারে, ওভাল, লন্ডন, ১৯৯০

প্রতিপক্ষের সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ[২২] – ৭০৭/৯ ডি., সারে, ওভাল, লন্ডন, ১৯৯০

সর্বনিম্ন দলীয় সংগ্রহ[২৩] – ২৫, ডার্বিশায়ার, ওল্ড ট্রাফোর্ড, ম্যানচেস্টার, ১৮৭১

প্রতিপক্ষের সর্বনিম্ন দলীয় সংগ্রহ[২৪] – ২০, এসেক্স, কাউন্টি ক্রিকেট গ্রাউন্ড, চেমসফোর্ড, ২০১৩

প্রত্যেক উইকেটে জুটিতে রেকর্ডসম্পাদনা

উইকেট[২৫] রান জুটি প্রতিপক্ষ মাঠ শহর সাল
১ম ৩৬৮ আর্চি ম্যাকলারেন - রেজি স্পুনার গ্লুচেস্টারশায়ার আইগবার্থ লিভারপুল ১৯০৩
২য় ৩৭১ ফ্রাঙ্ক ওয়াটসন - আর্নেস্ট টিল্ডসলে সারে ওল্ড ট্রাফোর্ড ম্যানচেস্টার ১৯২৮
৩য় ৫০১ আলভিরো পিটারসন - অ্যাশওয়েল প্রিন্স গ্ল্যামারগন পেনরিন অ্যাভিনিউ কলিন বে ২০১৫
৪র্থ ৩৫৮ স্টিফেন টিচার্ড - গ্রাহাম লয়েড এসেক্স কাউন্টি গ্রাউন্ড চেমসফোর্ড ১৯৯৬
৫ম ৩৬০ স্টুয়ার্ট ল - কার্ল হুপার ওয়ারউইকশায়ার এজবাস্টন বার্মিংহাম ২০০৩
৬ষ্ঠ ২৭৮ জ্যাক ইডন -হেনরি বাটারওয়ার্থ সাসেক্স ওল্ড ট্রাফোর্ড ম্যানচেস্টার ১৯৩২
৭ম ২৪৮ গ্রাহাম লয়েড-ইয়ান অস্টিন ইয়র্কশায়ার হেডিংলি লিডস ১৯৯৭
৮ম ১৫৮ জন লায়ন-বব র‌্যাটক্লিফ ওয়ারউইকশায়ার ওল্ড ট্রাফোর্ড ম্যানচেস্টার ১৯৭৯
৯ম ১৪২ লেস পয়ডেভিন-আলেকজান্ডার কারমোড সাসেক্স দ্য সাফরন্স ইস্টবোর্ন ১৯০৭
১০ম ১৭৩ জনি ব্রিগস -ডিক পিলিং সারে আইগবার্থ লিভারপুল ১৮৮৫

পাদটীকাসম্পাদনা

  1. An unofficial seasonal title sometimes proclaimed by consensus of media and historians prior to December 1889 when the official County Championship was constituted. Although there are ante-dated claims prior to 1873, when residence qualifications were introduced, it is only since that ruling that any quasi-official status can be ascribed.
  2. Formerly known as the Gillette Cup (1963–1980), NatWest Trophy (1981–2000) and C&G Trophy (2001–2006).
  3. Formerly known as the Sunday League (1969–1998).

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. ACS (১৯৮১)। A Guide to Important Cricket Matches Played in the British Isles 1709 – 1863। Nottingham: ACS। 
  2. ACS (১৯৮২)। A Guide to First-Class Cricket Matches Played in the British Isles। Nottingham: ACS। 
  3. Birley, p. 145.
  4. "List A events played by Lancashire"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ৬ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  5. "Twenty20 events played by Lancashire"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ৬ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  6. Playfair Cricket Annual, 2008 edition, p.56.
  7. https://cricketarchive.com/Archive/Events/5/Lambert_and_Butler_Floodlit_Competition_1981.html
  8. Bowen, p. 266.
  9. Scorecard of Yorkshire v Lancashire in July 1849
  10. List of early Yorkshire matches
  11. "LCCC Origins"। Lancashire CCC.co.uk। ১৪ অক্টোবর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা।  Retrieved on 20 October 2007.
  12. "Most Runs in an Innings for Lancashire"। Cricket Archive।  Retrieved on 17 October 2007.
  13. "Most Runs in a Season for Lancashire"। Cricket Archive।  Retrieved on 17 October 2007.
  14. "Most Wickets in an Innings for Lancashire"। Cricket Archive।  Retrieved on 17 October 2007.
  15. "Most Wickets in a Match for Lancashire"। Cricket Archive।  Retrieved on 17 October 2007.
  16. "Most Wickets in a Season for Lancashire"। Cricket Archive।  Retrieved on 17 October 2007.
  17. "Most Victims in an Innings for Lancashire"। Cricket Archive।  Retrieved on 17 October 2007.
  18. "Most Victims in a Season for Lancashire"। Cricket Archive।  Retrieved on 17 October 2007.
  19. "Most first class runs in career for Lancashire"। Cricket Archive।  Retrieved on 20 October 2007.
  20. "Most first class wickets in career for Lancashire"। Cricket Archive।  Retrieved on 20 October 2007.
  21. "Highest Team Totals for Lancashire"। Cricket Archive।  Retrieved on 12 November 2007.
  22. "Highest Team Totals against Lancashire"। Cricket Archive।  Retrieved on 12 November 2007.
  23. "Lowest Team Totals for Lancashire"। Cricket Archive।  Retrieved on 12 November 2007.
  24. "Chapple & Hogg bowl out hosts for 20"। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুন ২০১৩ 
  25. "Highest Partnership for Each Wicket for Lancashire"। Cricket Archive। ১১ অক্টোবর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা।  Retrieved on 17 October 2007.

আরও পড়ুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা