প্রধান মেনু খুলুন

জনি টিল্ডসলে

ইংরেজ ক্রিকেটার

জন টমাস জনি টিল্ডসলে (ইংরেজি: Johnny Tyldesley; জন্ম: ২২ নভেম্বর, ১৮৭৩ - মৃত্যু: ২৭ নভেম্বর, ১৯৩০) ল্যাঙ্কাশায়ারের ওরস্লি এলাকায় জন্মগ্রহণকারী বিখ্যাত ইংরেজ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট তারকা ছিলেন। ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের পক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন তিনি। ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ইংরেজ কাউন্টি ক্রিকেটে ল্যাঙ্কাশায়ারের প্রতিনিধিত্বি করেছেন তিনি। দলে মূলতঃ ব্যাটিংয়ে মনোনিবেশ ঘটানো পেশাদার ক্রিকেটার হিসেবে অংশ নিয়েছেন। এছাড়াও মাঝে-মধ্যে দলের প্রয়োজনে বোলিং করতেন ও সাধারণতঃ বাউন্ডারি সীমানায় ফিল্ডিং করতেন 'জনি' বা 'জন টমি' ডাকনামে পরিচিত জনি টিল্ডসলে

জনি টিল্ডসলে
Johnny Tyldesley.jpg
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামজন টমাস টিল্ডসলে
জন্ম(১৮৭৩-১১-২২)২২ নভেম্বর ১৮৭৩
ওরস্লি, ল্যাঙ্কাশায়ার, ইংল্যান্ড
মৃত্যু২৭ নভেম্বর ১৯৩০(1930-11-27) (বয়স ৫৭)
মনটন, একলেস, ল্যাঙ্কাশায়ার, ইংল্যান্ড
ডাকনাম"জনি" বা "জন টমি"
উচ্চতা৫ ফুট ৭ ইঞ্চি (১.৭০ মিটার)
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
ভূমিকামাঝারিসারির ব্যাটসম্যান
সম্পর্কজি. ই. টিল্ডসলে (ভ্রাতা)
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ১১৭)
১৪ ফেব্রুয়ারি ১৮৯৯ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
শেষ টেস্ট২৮ জুলাই ১৯০৯ বনাম অস্ট্রেলিয়া
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৮৯৫-১৯২৩ল্যাঙ্কাশায়ার
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ৩১ ৬০৮
রানের সংখ্যা ১,৬৬১ ৩৭,৮৯৭
ব্যাটিং গড় ৩০.৭৫ ৪০.৬৬
১০০/৫০ ৪/৯ ৮৬/১৯৩
সর্বোচ্চ রান ১৩৮ ২৯৫*
বল করেছে ২৯৬
উইকেট
বোলিং গড় - ৭০.৩৩
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং - ১/৪
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১৬/০ ৩৭৬/০
উৎস: ক্রিকইনফো, ১১ নভেম্বর ২০১৭

ল্যাঙ্কাশায়ারের ওরস্লি এলাকায় জন্মগ্রহণকারী টিল্ডসলে তার প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন শুরু করেন ১৮৯৫ সালে। ল্যাঙ্কাশায়ার দলের নিয়মিত সদস্যরূপে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরু হওয়ার পূর্ব-পর্যন্ত আগস্ট, ১৯১৪ সালে খেলতে থাকেন। ১৮৯৯ থেকে ১৯০৯ সাল পর্যন্ত টেস্ট ক্রিকেটে অংশ নিয়েছেন। যুদ্ধকালীন ব্রিটিশ সেনাবাহিনীতে কর্পোরাল হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এরপর ১৯১৯ সালে ল্যাঙ্কাশায়ারে যোগ দেন। ঐ মৌসুম শেষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট থেকে অবসরের কথা ঘোষণা করেন। তাস্বত্ত্বেও ১৯২৩ সালে পুণরায় খেলার জগতে ফিরে আসেন। ১৯২০-এর দশকে ম্যানচেস্টারের ডিনগেট এলাকায় ক্রীড়াসামগ্রী বিক্রয় প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করেন। পাশাপাশি ১৯২৬ সাল পর্যন্ত ল্যাঙ্কাশায়ার দ্বিতীয় একাদশের পক্ষে খেলতে থাকেন। এরপর কোচিংয়ের দিকে ধাবিত হন। ল্যাঙ্কাশায়ারের সাথে সম্পর্ক বজায় রাখেন ও মৃত্যু-পূর্ব পর্যন্ত ব্যবসা পরিচালনা করেন। ল্যাঙ্কাশায়ারের একলেসের মন্টনে অবস্থিত নিজ গৃহে ৫৭ বছর বয়সে তার দেহাবসান ঘটে।

প্রারম্ভিক জীবনসম্পাদনা

ওরস্লির রো গ্রীন এলাকায় জনি টিল্ডসলে ২২ নভেম্বর, ১৮৭৩ তারিখে জন্মগ্রহণ করেন। ল্যাঙ্কাশায়ার ক্লাব ক্রিকেটে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন।[১] ১৮৯২ ও ১৮৯৩ সালে ওরস্লি ক্রিকেট ক্লাবের পক্ষে খেলেন। এরপর ১৮৯৪ সালে ল্যাঙ্কাশায়ার দ্বিতীয় একাদশের সদস্য মনোনীত হন।[২] ১৮৯৫ সালে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। টিল্ডসলেকে প্রায়শঃই আনুষ্ঠানিকভাবে সংক্ষিপ্ত আকারে ডাকা হলেও সচরাচর তিনি জনি বা জন টমি নামে আখ্যায়িত হতেন।[৩][৪]

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটসম্পাদনা

২২ জুলাই, ১৮৯৫ তারিখে ল্যাঙ্কাশায়ারের সদস্যরূপে টিল্ডসলের প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অভিষেক ঘটে। ওল্ড ট্রাফোর্ডের ড্র হওয়া কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপের ঐ খেলায় দলের প্রতিপক্ষ ছিল গ্লুচেস্টারশায়ার। মাঝারিসারিতে ব্যাটিংয়ে নামেন তিনি এবং ১৩ ও অপরাজিত ৩৩ রান তুলেছিলেন।[৫] দ্বিতীয় খেলায় ওয়ারউইকশায়ারের বিপক্ষে অপরাজিত ১৫২ রানের দূর্দান্ত ইনিংস খেলেন তিনি। এজবাস্টনের বৃষ্টিবিঘ্নিত ঐ খেলায় তিনি ১৭টি চার ও ১টি ছক্কা হাঁকিয়েছিলেন। এরফলে ল্যাঙ্কাশায়ার ইনিংস ও ৫৪ রানের ব্যবধানে জয় তুলে নেয়।[৬] ঐ সময়কালে তার ইনিংসটি একমাত্র সেঞ্চুরি হিসেবে গণ্য ছিল। ১৮৯৬ সালে ছয়টি অর্ধ-শতক সংগ্রহ করেন। তন্মধ্যে, সর্বোচ্চ রান ছিল ৬৮।[৭]

পূর্ববর্তী ছয় মৌসুমের পাঁচটিতেই ল্যাঙ্কাশায়ার রানার আপ হয়েছিল। ১৮৯৭ সালে প্রথমবারের মতো আনুষ্ঠানিকভাবে কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপের শিরোপা জয়ে সমর্থ হয় তারা। টিল্ডসলে স্বভাববিরুদ্ধভাবে খেলা শুরু করেন। নিজস্ব চতুর্দশ খেলায় অর্ধ-শতক করতে সমর্থ হন। ওল্ড ট্রাফোর্ডে ১ জুলাই থেকে এ ধারা শুরু হয়। এসেক্সের বিপক্ষে ৫৪ ও ৫৩ রান তুলেন।[৮] এরপর এজবাস্টনে ওয়ারউইকশায়ারের বিপক্ষে একই খেলায় ১০৬ ও অপরাজিত ১০০ রান তুলেন।[৯] ওল্ড ট্রাফোর্ডে সাসেক্সের বিপক্ষে নিজস্ব সর্বোচ্চ ১৭৪ রান করেন।[১০] এরপর তার খেলার ধার অনেকাংশেই কমে যায়। কেবলমাত্র ওল্ড ট্রাফোর্ডে সমারসেটের বিপক্ষ ৬৮ রানের ইনিংসটি ব্যতিক্রম ছিল।[১১] মৌসুমের বাদ-বাকী সময়ে চারবার শূন্য রান করেন। ১৮৯৭ সালে ল্যাঙ্কাশায়ারের পক্ষে সচরাচর পাঁচ নম্বরে ব্যাটিংয়ে নামতেন তিনি। ঐ মৌসুমে ২৬ খেলায় অংশ নিয়ে ৩০.৮১ গড়ে ১,০১৭ রান সংগ্রহ করেন। তিনটি সেঞ্চুরি, তিনটি অর্ধ-শতক ও ১৩টি ক্যাচ তালুবন্দী করেন। প্রথমবারের মতো সহস্র রানের কোটা অতিক্রম করেন যা পরবর্তী উনিশ মৌসুম পর্যন্ত চলমান ছিল।

১৮৯৮ সালে ১,৯১৮ রান তুলেন। তন্মধ্যে, প্রথম দ্বি-শতক রানের ইনিংস ছিল তার। আর্চি ম্যাকলারেন ও রেজি স্পুনারকে সাথে নিয়ে ল্যাঙ্কাশায়ার কাউন্টি দলের অবিস্মরণীয় ব্যাটিংশৈলী গড়ে তুলেন। এ পর্যায়ে আগস্ট, ১৯০৩ থেকে জুলাই, ১৯০৫ সাল পর্যন্ত কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপের পঁয়তাল্লিশটি খেলায় দলটি অপরাজিত ছিল।

টেস্ট ক্রিকেটসম্পাদনা

১৮৯৮ সালে ১,৯১৮ রান তুলেন। তন্মধ্যে, প্রথম দ্বি-শতক রানের ইনিংস ছিল তার। পরবর্তী শীতকালে লর্ড হকের নেতৃত্বাধীন ইংল্যান্ড দলের সদস্যরূপে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের জন্য আমন্ত্রিত হন।

১৮৯৮-৯৯ মৌসুমে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ইংল্যান্ডের সদস্যরূপে প্রথম খেলেন। ১১২ রানের মূল্যবান ইনিংস খেলেন তিনি। ১৮৯৯ সালে ট্রেন্ট ব্রিজ ও লর্ডসে তার প্রথম অ্যাশেজ সিরিজ খেলেন। তবে শীর্ষ পর্যায়ের ব্যাটসম্যান হওয়া স্বত্ত্বেও খেলায় তিনি তেমন সফলতা পাননি।

১৯০১ মৌসুমের প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশ নিয়ে টিল্ডসলে ৩,০৪১ রান তুলেন। ফলশ্রুতিতে উইজডেনের ১৯০২ সালের সংস্করণে অন্যতম বর্ষসেরা ক্রিকেটাররূপে নির্বাচিত করা হয়। উইজডেন এ প্রসঙ্গে মন্তব্য করে যে, মৌসুমের শুরুর দিকে ওল্ড ট্রাফোর্ডের পিচ অনুপযুক্ত থাকায় তিনি আরও রান তুলতে পারেননি।[১২]

১৯০৩-০৪ মৌসুমে অস্ট্রেলিয়া সফরে যান। টেস্ট শতক না পেলেও মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডের অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় টেস্টে পোতানো উইকেটে অসাধারণ ইনিংস উপহার দেন। প্রথম ইনিংসে ৯৭ রানে ফেরৎ যান যাতে ইংরেজরা প্রথম দুই দিন ব্যাটিং করে ৩১৫ রান তুলে। তৃতীয় দিন বৃষ্টির কারণে পিচ খেলার অনুপযোগী হলে অস্ট্রেলিয়া ১২২ রানে অল-আউট হয় যাতে ভিক্টর ট্রাম্পার ৭৪ রান তুলেছিলেন। দিন শেষে ইংল্যান্ড ৭৪/৫ করে ও টিল্ডসলে ৪৮ রানে অপরাজিত ছিলেন। চতুর্থ দিন সকালে ৬২ রানে বিদায় নেন তিনি ও ইংল্যান্ডের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৯০/৮। ইংল্যান্ড ১০৩ রানে অল-আউট হয় ও পরবর্তীতে অস্ট্রেলিয়া ১১১ রান গুটিয়ে গেলে সফরকারী ইংল্যান্ড দল ১৮৫ রানে জয় পায়।[১৩] ইংরেজ অধিনায়ক পেলহাম ওয়ার্নার টিল্ডসলের ৬২ রানের প্রসঙ্গে মন্তব্য করেন যে, এ ধরনের বাজে উইকেটে নিশ্চিতরূপেই তিনি সেরা ইনিংসটি খেলেছেন।

১৯০০-এর দশকে উদীয়মান হবসের আবির্ভাব ঘটে। তাস্বত্ত্বেও টিল্ডসলে ব্যাটিং গড়ের প্রায় শীর্ষস্থানে ছিলেন। ১৯০৫ সালের অ্যাশেজ সিরিজে দুই সেঞ্চুরি করে সফলতা লাভ করেন। কিন্তু পরবর্তী বছরগুলোয় টিল্ডসলের খেলার মান ক্রমশঃই অবনতির দিকে যেতে থাকে। ১৯০৯ সালে সর্বশেষ টেস্টে অংশগ্রহণ করেন।

১৯০৬ সালে কেন্ট কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপের শিরোপা লাভ করে। ঐ দলের বিপক্ষেই তিনি তার নিজস্ব সর্বোচ্চ অপরাজিত ২৯৫ রান তুলেন। তবে অন্যান্য খেলোয়াড়ের চলে যাবার কারণে ত্রি-শতক হাঁকাতে পারেননি তিনি। ১৯০৭ থেকে ১৯১০ সময়কালে রেজি স্পুনারের ব্যবসায়িক দায়বদ্ধতা, আর্চি ম্যাকলারেনের দূর্বল ক্রীড়াশৈলীর কারণে ল্যাঙ্কাশায়ারের সফলতা অনেকাংশেই টিল্ডসলের ব্যাটিংয়ের উপর নির্ভরশীল ছিল।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধে অংশগ্রহণসম্পাদনা

প্রথম বিশ্বযুদ্ধে টিল্ডসলে ব্রিটিশ সেনাবাহিনীতে যোগ দেন। এ সময় তিনি কর্পোরাল পদবীধারী ছিলেন। বিশ্বযুদ্ধ ছড়িয়ে পড়ার পূর্ব-পর্যন্ত ল্যাঙ্কাশায়ারের প্রধান ব্যাটিং মেরুদণ্ডে তার ভূমিকা ছিল। ১৯১৯ সালে ডার্বিশায়ারের বিপক্ষে ২৭২ রান তুলেন।

মূল্যায়ণসম্পাদনা

নেভিল কারদাসের মতে, ল্যাঙ্কাশায়ারের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান ছিলেন জনি টিল্ডসলে। স্কয়ার কাটে তিনি প্রভূত্ব দেখিয়েছেন। দলের কঠিন পরিস্থিতিতে রুখে দাঁড়াতে বদ্ধ পরিকর ছিলেন। খেলা অনুপযোগী উইকেটেও অনেকগুলো স্মরণীয় ইনিংস খেলেছেন তিনি।

অসাধারণ ফিল্ডার হিসেবেও তিনি সুপরিচিত ছিলেন। ডিপ অঞ্চলে তিনি দক্ষতা প্রদর্শন করেছেন। অধিকাংশ সময়ই থার্ড ম্যান বা ডিপ লং অন অঞ্চলে অবস্থান করতেন। দ্রুতগতিতে দৌড়ানো ও বল তালুবন্দী করে নিখুঁতভাবে ফেরৎ পাঠানোয় তার জুড়ি মেলা ভার ছিল। এ. এ. থমসনের মতে, ঐ সময়ে ইংল্যান্ডের দুইজন সেরা আউটফিল্ডার ছিলেন টিল্ডসলে ও ডেভিড ডেন্টন

এ. এ. থমসন টিল্ডসলে সম্বন্ধে মন্তব্য করেন যে, তিনি দক্ষ, বুদ্ধিমান, দয়ালু প্রকৃতির মানব ছিলেন।[১৪] দীর্ঘ ভ্রমণে সঙ্গীদের সাথে তাস খেলতেন, বই পড়তেন।

অবসরসম্পাদনা

১৯১৯ মৌসুম শেষে ক্রিকেট থেকে অবসর নেন জনি টিল্ডসলে। এরপর তিনি ব্যবসায়ের দিকে মনোনিবেশ ঘটান। এরই মাঝে ল্যাঙ্কাশায়ারের কোচিংয়ের দায়িত্ব নেন তিনি। ১৯২৩ সালে ল্যাঙ্কাশায়ারের প্রথম পেশাদার অধিনায়ক হিসেবে একটি খেলায়ও অংশ নেন। তারপর থেকেই তার স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটতে থাকে। ১৯২০-এর দশকের শেষদিকে ল্যাঙ্কাশায়ারের কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপে ক্রিকেট কোচ হিসেবে ভূমিকা রাখেন। ল্যাঙ্কাশায়ারের খেলোয়াড় থাকাবস্থায় ১৮৯৭ ও ১৯০৪ সালে শিরোপা এনে দেন। তবে কোচ হিসেবে দলটিকে ১৯২৬ থেকে ১৯৩০ সালের মধ্যে পাঁচ মৌসুমের চারটিতে শিরোপা লাভে সহায়তা করেন। এছাড়াও, ১৯২৯ সালে দলটি দ্বিতীয় স্থান দখল করেছিল।

জ্যাক হবস ও হার্বার্ট সাটক্লিফের ন্যায় কিছু পেশাদার ক্রিকেটারের একজন হিসেবে তিনিও ক্রীড়াসামগ্রীর ব্যবসায় মনোনিবেশ ঘটিয়েছেন। ১৯২০-এর দশকে চলমান থাকা কেন্দ্রীয় ম্যানচেস্টারের ডিনসগেট এলাকায় একটি দোকান পরিচালনা করতেন তিনি।[১][১৫]

১৯০৬ সালে ল্যাঙ্কাশায়ার কর্তৃপক্ষ থেকে ওল্ড ট্রাফোর্ডে আর্থিক সুবিধাগ্রহণের খেলা থেকে অর্জিত অর্থ লাভ করেন যার পরিমাণ ছিল ৩,১০৫ পাউন্ড স্টার্লিং।

ব্যক্তিগত জীবনসম্পাদনা

ব্যক্তিগত জীবনে বিবাহিত টিল্ডসলে র‌্যাচেল জেন নাম্নী এক রমণীর পাণিগ্রহণ করেন। তাঁদের সংসারে আর্নল্ড ক্লিফোর্ড নামীয় পুত্র ও এডিথ এলিয়ানর নাম্নী এক কন্যা ছিল।

উইজডেন টিল্ডসলের স্মরণে উল্লেখ করে যে, বেশ কয়েক বছর তিনি দূর্বল শরীর নিয়ে চলাফেরা করতেন। ২৭ নভেম্বর, ১৯৩০ তারিখে মন্টনে অবস্থিত নিজ গৃহে তার দেহাবসান ঘটে। এ সময়ে তিনি ডিনসগেটের দোকানে যাবার প্রাক্কালে নিজ জুতা পরিধানের এক পর্যায়ে মাটিতে গড়াগড়ি খান। ওরস্লির পারিশ চার্চে তাকে সমাহিত করা হয়। একই স্থানে স্ত্রী ও সন্তানদেরকে চিরনিদ্রায় রাখা হয়।[১৬]

তার ছোট ভাই আর্নেস্ট টিল্ডসলে ল্যাঙ্কাশায়ারের শীর্ষসারির ব্যাটসম্যানসহ ইংল্যান্ডের পক্ষে ১৪ টেস্টে প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "John Tyldesley – Obituary"Wisden Cricketers' Almanack। John Wisden & Co। ১৯৩১। সংগ্রহের তারিখ ৩১ অক্টোবর ২০১২ 
  2. "Miscellaneous matches played by Johnny Tyldesley"। CricketArchive। ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ৩১ অক্টোবর ২০১২ 
  3. "The Growth of Lancashire Cricket"। Lancashire County Cricket Club। ৮ মে ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ মে ২০১৪ 
  4. "John Tommy and Ernest Tyldesley (plaques)"। Worsley Civic Trust। সংগ্রহের তারিখ ৭ মে ২০১৪ 
  5. "Lancashire v Gloucestershire 1895"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ৩১ অক্টোবর ২০১২ 
  6. "Warwickshire v Lancashire 1895"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ৩১ অক্টোবর ২০১২ 
  7. "Batting by Season – Johnny Tyldesley"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ৪ নভেম্বর ২০১২ 
  8. "Lancashire v Essex 1897"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০১৩ 
  9. "Lancashire v Warwickshire 1897"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০১৩ 
  10. "Lancashire v Sussex 1897"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০১৩ 
  11. "Lancashire v Somerset 1897"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০১৩ 
  12. "Johnny Tyldesley – Cricketer of the Year 1902"Wisden Cricketers' Almanack। John Wisden & Co। ১৯০২। সংগ্রহের তারিখ ২ ডিসেম্বর ২০১২ 
  13. "Australia v. England in 1903–04"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ৩০ ডিসেম্বর ২০১২ 
  14. Thomson, p.85.
  15. Cardus, Cricket all the Year, p.22.
  16. "Last resting place of Johnny Tyldesley"। CricketArchive। ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ৩১ অক্টোবর ২০১২ 

আরও দেখুনসম্পাদনা

গ্রন্থপঞ্জীসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা