কৃত্রিম উপগ্রহ

মহাকাশে উৎক্ষেপিত বৈজ্ঞানিক প্রক্রিয়ায় উদ্ভাবিত বস্তু

মহাকাশ যাত্রা প্রসঙ্গে উপগ্রহ এমন এক বস্তু যা ইচ্ছাকৃতভাবে কক্ষপথে স্থাপন করা হয়েছে। এই বস্তুগুলিকে পৃথিবীর চাঁদের মতো প্রাকৃতিক উপগ্রহগুলি থেকে পৃথক করার জন্য কৃত্রিম উপগ্রহ বলা হয়।

২০১৯ সালের জুন নাগাদ নাসার পৃথিবী পর্যবেক্ষণ বহর
পৃথিবী পর্যবেক্ষণ উপগ্রহ ইআরএস ২ এর একটি পূর্ণ আকারের মডেল

১৯৫৭ সালের ৪ অক্টোবর সোভিয়েত ইউনিয়ন বিশ্বের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ স্পুটনিক ১ উৎক্ষেপণ করে। সেই থেকে ৪০ টিরও বেশি দেশ থেকে প্রায় ৮,৯০০ উপগ্রহ উৎক্ষেপণ করা হয়েছে। ২০১৮ এর একটি অনুমান অনুসারে, প্রায় ৫০০০ টি এখনও কক্ষপথে রয়েছে। এর মধ্যে প্রায় ১,৯০০ চালু থাকলেও, বাকিরা তাদের জীবনকাল অতিক্রম করে মহাকাশ ধ্বংসাবশেষে পরিণত হয়েছে। প্রায় ৬৩% কার্যরত উপগ্রহ পৃথিবীর নিম্ন কক্ষপথে, ৬% পৃথিবীর মাঝারি কক্ষপথে (২০,০০০ কিলোমিটার), ২৯% ভূস্থির কক্ষপথে (৩৬,০০০ কিলোমিটার) এবং বাকী ২% বিভিন্ন উপবৃত্তাকার কক্ষপথে রয়েছে। সর্বাধিক উপগ্রহের দেশগুলির ক্ষেত্রে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সর্বাধিক ৮৫৯ টি উপগ্রহ রয়েছে, চীন ২২০ টি উপগ্রহ সহকারে দ্বিতীয় এবং রাশিয়া ১৪৬ টি উপগ্রহ নিয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছে। এরপরে রয়েছে ভারত (১১৮), জাপান (৭২) এবং যুক্তরাজ্য (৫২)।[১] আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন সহ কয়েকটি বড় মহাকাশ স্টেশন আংশিকভাবে উৎক্ষেপণ করা হয়েছিল এবং কক্ষপথে একত্রিত হয়েছিল। কয়েক ডজনেরও বেশি মহাকাশ প্রোব অন্যান্য বস্তুর চারদিকে কক্ষপথে স্থাপন করা হয়েছে এবং এগুলো চাঁদ, বুধ, শুক্র, মঙ্গল, বৃহস্পতি, শনি, কয়েকটি গ্রহাণু,[২] একটি ধূমকেতু এবং সূর্যের কৃত্রিম উপগ্রহে পরিণত হয়েছে।

কৃত্রিম উপগ্রহ বিভিন্ন উদ্দেশ্যে ব্যবহৃত হয়। বেশ কয়েকটি প্রয়োগের মধ্যে, কৃত্রিম উপগ্রহ তারা মানচিত্র এবং গ্রহের উপরিভাগের মানচিত্র তৈরি করতে এবং উপগ্রহটি যে গ্রহে উৎক্ষেপণ করা হয়েছে তার ছবি তুলতে ব্যবহার করা যেতে পারে। সাধারণ প্রকারভেদের মধ্যে সামরিক এবং বেসামরিক পৃথিবী পর্যবেক্ষণ উপগ্রহ, যোগাযোগ উপগ্রহ, দিকনির্ণয় উপগ্রহ, আবহাওয়া উপগ্রহ এবং স্পেস টেলিস্কোপ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। কক্ষপথে মহাকাশ স্টেশন এবং মহাকাশযানও কৃত্রিম উপগ্রহ।

উপগ্রহগুলি নিজেরাই বা কোনও বৃহত্তর সিস্টেমের অংশ হিসাবে একটি উপগ্রহ সংগঠন বা উপগ্রহমণ্ডলের জন্য কাজ করতে পারে।

কৃত্রিম উপগ্রহের কক্ষপথ স্যাটেলাইটের উদ্দেশ্য অনুসারে ব্যাপকভাবে পরিবর্তিত হয় এবং এসব কক্ষপথকে বিভিন্নভাবে শ্রেণিবদ্ধ করা হয়। সুপরিচিত শ্রেণীগুলোর (অধিক্রমণ) মধ্যে নিম্ন পৃথিবী কক্ষপথ, মেরু কক্ষপথ এবং ভূস্থির কক্ষপথ অন্তর্ভুক্ত।

একটি লঞ্চ যানটি একটি রকেট যা একটি উপগ্রহকে কক্ষপথে স্থাপন করে। সাধারণত, এটি জমিতে একটি লঞ্চ প্যাড থেকে সরে যায়। কিছু সমুদ্রের দিকে একটি সাবমেরিন বা একটি মোবাইল সামুদ্রিক প্ল্যাটফর্ম থেকে চালু করা হয়, বা একটি বিমানের উপরে (বিমান থেকে কক্ষপথে উৎক্ষেপণ)।

কৃত্রিম উপগ্রহগুলি সাধারণত আধা-স্বতন্ত্র কম্পিউটার-নিয়ন্ত্রিত সিস্টেম। স্যাটেলাইট সাবসিস্টেমগুলি বিদ্যুৎ উত্পাদন, তাপ নিয়ন্ত্রণ, টেলিমেট্রি, ভঙ্গি নিয়ন্ত্রণ, বৈজ্ঞানিক উপকরণ, যোগাযোগ ইত্যাদি অনেক কাজ সম্পন্ন করে থাকে।

ইতিহাসসম্পাদনা

 
কন্‌স্তান্তিন ৎসিওলকোভ্‌স্কি
 
পপুলার সাইন্সের একটি ১৯৪৯ সংখ্যায় একটি "কৃত্রিম চাঁদ" এর ধারণা চিত্রিত করা হয়েছিল
 
পৃথিবীর চারদিকে জিপিএস উপগ্রহের কক্ষপথের একটি এনিমেটেড চিত্র।
 
স্পুটনিক ১:পৃথিবীকে প্রদক্ষিণকারী প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ।
 
মূলত তারতু বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের তৈরি ১ইউ কিউবস্যাট ইএসটিকিউব -১, যা নিম্ন উচ্চতার কক্ষপথে টিথার স্থাপনার পরীক্ষা চালায়।

কৃত্রিম উপগ্রহের সম্ভাবনার প্রথম প্রকাশিত গাণিতিক অধ্যয়ন হলো নিউটনের কামানের গোলা, যা আইজ্যাক নিউটনের ফিলোসফিয়া ন্যাচারালিস প্রিন্সিপিয়া ম্যাথামেটিকাতে ​​(১৬৮৭) প্রাকৃতিক উপগ্রহের গতি ব্যাখ্যা করার জন্য একটি চিন্তামূলক গবেষণা হিসেবে প্রকাশিত হয়েছিল। কক্ষপথে কৃত্রিম উপগ্রহ উৎক্ষেপণের প্রথম কাল্পনিক চিত্রণ হলো এডওয়ার্ড এভারেট হ্যালের একটি ছোটগল্প, "দ্য ব্রিক মুন" (১৮৬৯)।[৩][৪] জুল ভার্নের বেগমের রত্নভান্ডারে (১৮৭৯) আবারও এই ধারণাটি প্রকাশ পেয়েছে।

১৯০৩ সালে কন্‌স্তান্তিন ৎসিওলকোভ্‌স্কি (১৮৫৭-১৯৩৫) এক্সপ্লোরিং স্পেস ইউজিং জেট প্রোপালশন ডিভাইসেস প্রকাশ করেছিলেন যা মহাকাশযান উৎক্ষেপণের জন্য রকেটরি ব্যবহারের প্রথম শিক্ষামূলক গ্রন্থ। তিনি সর্বনিম্ন কক্ষপথের জন্য প্রয়োজনীয় কক্ষপথের বেগ গণনা করেছিলেন এবং তরল প্রোপেল্যান্ট দ্বারা চালিত মাল্টিস্টেজ রকেটের এই বেগ অর্জন করার সক্ষমতাও গণনা করেছিলেন।

১৯২৮ সালে হারমান পোটোনিক (১৮৯২–১৯২৯) তাঁর একমাত্র বই, দ্য প্রব্লেম অফ স্পেস ট্র্যাভেল - দ্য রকেট মোটর প্রকাশ করেছিলেন। তিনি স্থল পর্যবেক্ষণের জন্য প্রদক্ষিণরত মহাকাশযান ব্যবহারের বর্ণনা দিয়েছিলেন এবং বর্ণনা করেছিলেন যে কীভাবে মহাকাশের বিশেষ শর্তগুলি বৈজ্ঞানিক পরীক্ষায় কার্যকর হতে পারে।

১৯৪৫ সালের ওয়্যারলেস ওয়ার্ল্ডের একটি নিবন্ধে ইংরেজি বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী লেখক আর্থার সি ক্লার্ক গণযোগাযোগের জন্য যোগাযোগ উপগ্রহের সম্ভাব্য ব্যবহারের বিস্তারিত বর্ণনা দিয়েছিলেন।[৫] তিনি পরামর্শ দিয়েছিলেন যে তিনটি ভূস্থির উপগ্রহ পুরো গ্রহের উপরে পরিষেবা সরবরাহ করবে।

১৯৪৬ সালের মে মাসে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিমানবাহিনীর প্রকল্প র‍্যান্ড একটি পরীক্ষামূলক বিশ্ব-চক্রকারী মহাকাশযানের প্রাথমিক ডিজাইন প্রকাশ করেছিল, যেখানে উল্লেখ করা হয়েছিল যে "উপযুক্ত উপকরণসহ একটি কৃত্রিম উপগ্রহ বিংশ শতাব্দীর অন্যতম শক্তিশালী বৈজ্ঞানিক সরঞ্জাম হতে পারে বলে আশা করা যায়।"[৬] মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৫৪ সাল থেকে যুক্তরাষ্ট্র নৌবাহিনীর বিমানচালনবিদ্যা ব্যুরোর অধীনে কক্ষপথে উপগ্রহ চালু করার বিষয়ে বিবেচনা করে আসছিল। প্রকল্প র‍্যান্ড শেষ পর্যন্ত প্রতিবেদনটি প্রকাশ করে, তবে কৃত্রিম উপগ্রহটিকে সম্ভাব্য সামরিক অস্ত্রের চেয়ে বিজ্ঞান, রাজনীতি এবং প্রচারের হাতিয়ার হিসাবে বিবেচনা করেছিল।[৭]

১৯৪৬ সালে, আমেরিকান তাত্ত্বিক জ্যোতির্বিজ্ঞানী লাইম্যান স্পিটজার একটি প্রদক্ষিণরত স্পেস টেলিস্কোপের প্রস্তাব দিয়েছিলেন।[৮]

১৯৫৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে প্রকল্প র‍্যান্ড আরআর কারহার্ট দ্বারা রচিত "কৃত্রিম উপগ্রহের বৈজ্ঞানিক ব্যবহার" প্রকাশ করেন।[৯] কৃত্রিম উপগ্রহের সম্ভাব্য বৈজ্ঞানিক ব্যবহার দ্বারা এটি প্রসারিত হয়েছিল এবং ১৯৫৫ সালের জুনে এইচ.কে. কলম্যান এবং ডব্লিউডব্লিউ. কেলোগ এর "কৃত্রিম উপগ্রহের বৈজ্ঞানিক ব্যবহার" প্রকাশিত হয়েছিল।[১০]

আন্তর্জাতিক ভূপ্রাকৃত বর্ষের (১৯৫৭–৫৮) পরিকল্পনামূলক কর্মকাণ্ডের প্রসঙ্গে, হোয়াইট হাউস ১৯৫৫ সালের ২৯ জুলাই ঘোষণা করেছিল যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৫৮ সালের বসন্তের মধ্যে উপগ্রহ উৎক্ষেপণের পরিকল্পনা করছে। এটি ভ্যানগার্ড প্রকল্প নামে পরিচিতি লাভ করে। ৩১ জুলাই সোভিয়েতরা ঘোষণা করেছিল যে তারা ১৯৫7 সালের শেষের দিকেই একটি উপগ্রহ উৎক্ষেপণ করবে।

প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ ছিল স্পুটনিক ১, যা ১৯৫৪ সালে সের্গেই কোরোলেভকে প্রধান ডিজাইনার হিসাবে নিয়ে স্পুটনিক প্রোগ্রামের আওতায় সোভিয়েত ইউনিয়ন উৎক্ষেপণ করেছিল। স্পুটনিক ১ তার কক্ষপথ পরিবর্তন পরিমাপের মাধ্যমে উচ্চ বায়ুমণ্ডলীয় স্তরগুলির ঘনত্ব সনাক্ত করতে সহায়তা করেছিল এবং আয়নমণ্ডলে রেডিও-সংকেত বিতরণের তথ্য সরবরাহ করেছিল। স্পুটনিক ১-এর সাফল্যের অপ্রত্যাশিত ঘোষণা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে স্পুটনিক সংকটকে উদ্বিগ্ন করেছিল এবং স্নায়ুযুদ্ধের মধ্যে তথাকথিত মহাকাশ প্রতিযোগিতাকে প্রজ্বলিত করেছিল।

১৯৫৫ সালের ৩ নভেম্বর স্পুটনিক ২ উৎক্ষেপণ করা হয়েছিল এবং এটি প্রথম জীবিত মহাকাশযাত্রী লাইকা নামে একটি কুকুরকে কক্ষপথে নিয়ে যায়।[১১]

১৯৫৫ এর গোড়ার দিকে আমেরিকান রকেট সোসাইটি, ন্যাশনাল সায়েন্স ফাউন্ডেশন এবং আন্তর্জাতিক ভূপ্রাকৃত বর্ষের চাপের পরে সেনাবাহিনী এবং নৌবাহিনী দুটি প্রতিযোগিতামূলক কর্মসূচি নিয়ে প্রজেক্ট অরবিটারে কাজ করছিল। সেনাবাহিনী জুপিটার সি রকেট ব্যবহার করেছিল, অন্যদিকে বেসামরিক/নৌবাহিনীর প্রোগ্রাম উপগ্রহ উৎক্ষেপণ করতে ভ্যানগার্ড রকেট ব্যবহার করেছিল। ১৯৫৮ সালের ৩১ জানুয়ারী এক্সপ্লোরার ১ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ হয়ে ওঠে।[১২]

১৯৬১ সালের জুনে, স্পুটনিক ১-এর উৎক্ষেপণের সাড়ে তিন বছর পরে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ নজরদারি নেটওয়ার্ক পৃথিবী প্রদক্ষিণকারী ১১৫ টি কৃত্রিম উপগ্রহের তালিকা প্রস্তুত করে।[১৩]

প্রাথমিক উপগ্রহগুলি অনন্য ডিজাইনে নির্মিত হয়েছিল। প্রযুক্তিতে অগ্রগতির সাথে সাথে একাধিক উপগ্রহ স্যাটেলাইট বাস নামে একক মডেল প্ল্যাটফর্মে নির্মিত হতে শুরু করে। প্রথম প্রমিত উপগ্রহ বাসের নকশাসম্পন্ন জিওসিনক্রোনাস (জিইও) যোগাযোগ উপগ্রহ এইচএস-৩৩৩ ১৯৭২ সালে চালু হয়েছিল।

বর্তমানে বৃহত্তম কৃত্রিম উপগ্রহ হলো আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন[১৪]

অনুসরণকরণসম্পাদনা

উপগ্রহগুলি গ্রাউন্ড স্টেশন এবং অন্যান্য উপগ্রহ থেকেও অনুসরণ করা যায়।

মহাকাশ নজরদারি নেটওয়ার্কসম্পাদনা

১৯৫৭ সালে সোভিয়েত ইউনিয়ন কর্তৃক স্পুটনিক ১ উৎক্ষেপণের মাধ্যমে মহাকাশ যুগের সূচনার পর থেকেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র স্ট্র্যাটেজিক কমান্ডের একটি বিভাগ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র মহাকাশ নজরদারি নেটওয়ার্ক (এসএসএন) পৃথিবীকে প্রদক্ষিণকারী বস্তুসমূহ অনুসরণ করছে। এরপর থেকে এসএসএন ২৬,০০০ এরও বেশি বস্তু ট্র্যাক করেছে। এসএসএন বর্তমানে ৮,০০০ টিরও বেশি কৃত্রিম উপগ্রহ ট্র্যাক করছে। বাকিগুলো পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে পুনরায় প্রবেশ করেছে এবং বিচ্ছিন্ন হয়েছে, বা পুনরায় প্রবেশের সময় অক্ষত রয়েছে এবং পৃথিবীতে আছড়ে পরেছে। এসএসএন ১০ সেন্টিমিটার বা তার বেশি ব্যাসসম্পন্ন বস্তুকে ট্র্যাক করে; বর্তমানে পৃথিবীকে প্রদক্ষিণরত বস্তুর মধ্যে থেকে কয়েক টন ওজনের কৃত্রিম উপগ্রহ থকে শুধু করে মাত্র ১০ পাউন্ড ওজনের রকেটের ব্যয়িত অংশবিশেষও অন্তর্ভুক্ত। প্রায় সাত শতাংশ কার্যকর উপগ্রহ (অর্থাত ~৫৬০টি উপগ্রহ), বাকী সবকিছুই মহাকাশ ধ্বংসাবশেষ[১৫] মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্ট্র্যাটেজিক কমান্ড মূলত সক্রিয় উপগ্রহগুলির প্রতি আগ্রহী, তবে মহাশূন্যের ধ্বংসাবশেষও ট্র্যাক করে যা পুনরায় প্রত্যাবর্তনের সময় আগত ক্ষেপণাস্ত্র মনে করে ভুল হতে পারে।

পরিষেবাসম্পাদনা

উপগ্রহ (বেসামরিক) পরিষেবার তিনটি প্রাথমিক বিভাগ রয়েছে:[১৬]

স্থির উপগ্রহ পরিষেবাসম্পাদনা

স্থির উপগ্রহ পরিষেবাগুলি সমস্ত দেশ এবং মহাদেশ জুড়ে পৃথিবী পৃষ্ঠের নির্দিষ্ট পয়েন্টের মধ্যে কয়েকশত বিলিয়ন বাচ্য, তথ্য এবং ভিডিও সঞ্চালনের কাজ পরিচালনা করে।

সচল উপগ্রহ পরিষেবাসম্পাদনা

সচল উপগ্রহ সিস্টেমগুলি নেভিগেশন সিস্টেম হিসাবে পরিবেশন করা ছাড়াও প্রত্যন্ত অঞ্চল, যানবাহন, জাহাজ, মানুষ এবং বিমানকে বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চল অথবা অন্যান্য সচল বা স্থির যোগাযোগ ইউনিটের সাথে সংযোগ করতে সহায়তা করে।

বৈজ্ঞানিক গবেষণা উপগ্রহ (বাণিজ্যিক এবং অবাণিজ্যিক)সম্পাদনা

বৈজ্ঞানিক গবেষণা উপগ্রহগুলি আবহাওয়া সম্পর্কিত তথ্য, ভূমি জরিপের তথ্য (যেমন দূরবর্তী সংবেদন), অপেশাদার (এইচএএম) রেডিও এবং অন্যান্য বৈজ্ঞানিক গবেষণা প্রয়োগ যেমন ভূবিজ্ঞান, সামুদ্রিক বিজ্ঞান এবং বায়ুমণ্ডলীয় গবেষণায় ভূমিকা প্রদান করে।

ধরণসম্পাদনা

কক্ষপথসম্পাদনা

 
আকার অনুযায়ী বিভিন্ন কক্ষপথ; নীল সবুজ অংশটি নিম্ন উচ্চতার কক্ষপথ নির্দেশ করছে, হলুদ নির্দেশ করছে মধ্যম উচ্চতার কক্ষপথ, কালো ড্যাশ লাইন ভূস্থির কক্ষপথ উপস্থাপন করে, সবুজ ড্যাশ লাইন হলো বিশ্বজনীন অবস্থান-নির্ণায়ক ব্যবস্থা (জিপিএস) উপগ্রহের কক্ষপথ, এবং লাল বিন্দুযুক্ত রেখাটি হলো আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনের (আইএসএস) কক্ষপথ।

প্রথম উপগ্রহ স্পুটনিক ১ পৃথিবীর চারপাশে একটি ভূ-কেন্দ্রিক কক্ষপথে স্থাপন করা হয়েছিল। এটি এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত কক্ষপথের ধরণ, যাতে প্রায় ২,৭৮৭ টি সক্রিয় উপগ্রহ পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করছে।[১৯] ভূ-কেন্দ্রিক কক্ষপথসমূহকে তাদের উচ্চতা, নতি এবং উৎকেন্দ্রিকতা দ্বারা শ্রেণিবদ্ধ করা যেতে পারে।

ভূ-কেন্দ্রিক কক্ষপথের সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত উচ্চতার শ্রেণিবিন্যাস হলো নিম্ন উচ্চতার কক্ষপথ (এলইও), মধ্যম উচ্চতার কক্ষপথ (এমইও) এবং অধিক উচ্চতার কক্ষপথ (এইচইও)। নিম্ন উচ্চতার কক্ষপথ হলো ২,০০০ কিলোমিটারের নীচে যে কোনও কক্ষপথ। মাঝারি উচ্চতার কক্ষপথ হলো ২,০০০ থেকে ৩৫,৭৮৬ কিলোমিটারের মধ্যে যে কোনও কক্ষপথ। ৩৫,৭৮৬ কিলোমিটারের চেয়ে বেশি যে কোনও কক্ষপথ হলো অধিক উচ্চতার কক্ষপথ।

কেন্দ্রিক শ্রেণিবিন্যাসসম্পাদনা

উচ্চতার শ্রেণিবিন্যাসসম্পাদনা

  • নিম্ন উচ্চতার কক্ষপথ: ১৮০ কিমি থেকে ২,০০০ কিমি (১,২০০ মা) উচ্চতায় অবস্থিত ভূ-কেন্দ্রিক কক্ষপথ।
  • মধ্যম উচ্চতার কক্ষপথ: ২,০০০ কিমি (১,২০০ মা) থেকে ৩৫,৭৮৬ কিমি (২২,২৩৬ মা) উচ্চতায় অবস্থিত ভূ-কেন্দ্রিক কক্ষপথ। এটি মধ্যবর্তী বৃত্তাকার কক্ষপথ হিসাবেও পরিচিত।
  • জিওসিঙ্ক্রোনাস কক্ষপথ: ভূস্থির কক্ষপথগুলি ৩৫,৭৮৬ কিলোমিটার (২২,২৩৬ মা) উচ্চতায় অবস্থিত। এই কক্ষপথের পর্যায়কাল এক পার্শ্ববর্তী দিনের সমান, যা পৃথিবীর আবর্তনের সময়ের সাথে মিলে যায়।। এই কক্ষপথের বেগ প্রতি সেকেন্ডে প্রায় ৩,০০০ মিটার প্রতি সেকেন্ড (৯,৮০০ ফুট/সে)।
  • অধিক উচ্চতার কক্ষপথ: ৩৫,৭৮৬ কিলোমিটার (২২,২৩৬ মা) উচ্চতার ভূস্থির কক্ষপথগুলির তুলনায় বেশি উচ্চতায় অবস্থিত ভূ-কেন্দ্রিক কক্ষপথ।
 
পৃথিবীর বেশ কয়েকটি উল্লেখযোগ্য উপগ্রহের কক্ষপথের উচ্চতা।

নতির শ্রেণিবিন্যাসসম্পাদনা

  • আনত কক্ষপথ: নিরক্ষীয় সমতলের সাপেক্ষে নতি ০ ডিগ্রি নয় এমন কক্ষপথ।
    • মেরু কক্ষপথ: এমন কক্ষপথ যা প্রতিটি আবর্তনের সময় গ্রহের উভয় মেরুর উপরে বা প্রায় উপর থেকে যায়। অতএব, এর নতি ৯০ ডিগ্রি (বা খুব কাছাকাছি)।
    • মেরুজ সৌরস্থির কক্ষপথ: একটি প্রায় মেরু কক্ষপথ যা সংযোগস্থলসংক্রান্ত অগ্রগমনের সুবিধা গ্রহণ করে যে এই জাতীয় কক্ষপথে একটি উপগ্রহ প্রতিটি পাসের সময় একই সময়ে স্থানীয় নিরক্ষরেখার পাশ দিয়ে যায়। ছবি তোলার উপগ্রহের জন্য কার্যকরী কারণ প্রতিটি পাসে ছায়া প্রায় একই হবে এবং সৌর পর্যবেক্ষণ উপগ্রহগুলির জন্যও কার্যকরী কারণ এগুলো সারা বছর ধরে একটানা সূর্যের দিকেই অবস্থান করে।

উৎকেন্দ্রিকতার শ্রেণিবিন্যাসসম্পাদনা

  • বৃত্তাকার কক্ষপথ: এমন কক্ষপথ যার উৎকেন্দ্রিকতা ০ এবং যার পথটি দ্বারা একটি বৃত্ত চিহ্নিত করে।
    • হোহমান স্থানান্তর কক্ষপথ: এমন কক্ষপথ যা একটি মহাকাশযানকে ইঞ্জিনের দুটি ঘাত ব্যবহার করে প্রায় একটি বৃত্তাকার কক্ষপথ, সাধারণত কোনো গ্রহের কক্ষপথ থেকে অন্য কক্ষপথে স্থানান্তরিত করে।
  • উপবৃত্তাকার কক্ষপথ: এমন কক্ষপথ যার উৎকেন্দ্রিকতা ০ এর থেকে বেশি এবং ১ এর থেকে কম, এবং যার পথটি দ্বারা একটি উপবৃত্ত চিহ্নিত করে।
    • জিওসিঙ্ক্রোনাস স্থানান্তর কক্ষপথ: এমন উপবৃত্তাকার কক্ষপথ যেখানে পেরিজি একটি নিম্ন উচ্চতার কক্ষপথ (এলইও) এর উচ্চতায় এবং অ্যাপোজি জিওসিঙ্ক্রোনাস কক্ষপথের উচ্চতায় থাকে। ভূস্থির কক্ষপথে স্থানান্তর করতে উপগ্রহগুলি এই কক্ষপথটি ব্যবহার করে।
    • ভূস্থির স্থানান্তর কক্ষপথ: জিওসিঙ্ক্রোনাস স্থানান্তর কক্ষপথ যা ভূস্থির কক্ষপথে স্থানান্তর করতে ব্যবহৃত হয়।
    • মোলনিয়া কক্ষপথ: ৬৩.৪° নতিসম্পন্ন এবং পার্শ্ববর্তী দিনের অর্ধেক (প্রায় ১২ ঘণ্টা) পর্যায়কালসম্পন্ন একটি অত্যন্ত উদ্ভট কক্ষপথ। এই ধরনের উপগ্রহ বেশিরভাগ সময় গ্রহের দুটি নির্ধারিত অঞ্চলে (সাধারণত রাশিয়া এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র) অবস্থান করে।
    • তুন্দ্রা কক্ষপথ: ৬৩.৪° নতিসম্পন্ন এবং পার্শ্ববর্তী দিনের সমান (প্রায় ২৪ ঘণ্টা) পর্যায়কালসম্পন্ন একটি অত্যন্ত উদ্ভট কক্ষপথ। এই ধরনের উপগ্রহ বেশিরভাগ সময় গ্রহের একটি নির্ধারিত অঞ্চলে অবস্থান করে।

সিঙ্ক্রোনাস শ্রেণিবিন্যাসসম্পাদনা

  • সিঙ্ক্রোনাস কক্ষপথ: এমন একটি কক্ষপথ যেখানে উপগ্রহের প্রদক্ষিণকাল এটি যে বস্তু প্রদক্ষিণ করছে তার গড় ঘূর্ণনকালের (পৃথিবী ক্ষেত্রে ২৩ ঘণ্টা, ৫৬ মিনিট, ৪.০৯১ সেকেন্ড) সমান এবং প্রদক্ষিণের দিক ও ঘূর্ণনের দিক একই দিক বরাবর। কোনও স্থল পর্যবেক্ষকের কাছে এ জাতীয় উপগ্রহ আকাশে একটি অ্যানালেমা উৎপন্ন করবে।
  • সেমি-সিঙ্ক্রোনাস কক্ষপথ: প্রায় ২০,২০০ কিমি (১২,৬০০ মা) উচ্চতার এবং উপগ্রহের প্রদক্ষিণকাল এটি যে বস্তু প্রদক্ষিণ করছে তার গড় ঘূর্ণনকালের (পৃথিবী ক্ষেত্রে প্রায় ১২ ঘণ্টা) অর্ধেক এমন একটি কক্ষপথ।
  • জিওসিঙ্ক্রোনাস কক্ষপথ: ভূস্থির কক্ষপথগুলি ৩৫,৭৮৬ কিলোমিটার (২২,২৩৬ মা) উচ্চতায় অবস্থিত। একটি জিওসিঙ্ক্রোনাস কক্ষপথ শূন্যের প্রবণতা সহ। ভূমিতে অবস্থিত পর্যবেক্ষকের কাছে এই উপগ্রহ আকাশে একটি নির্দিষ্ট পয়েন্ট হিসাবে উপস্থিত হবে।
    • ভূস্থির কক্ষপথ: এমন জিওসিঙ্ক্রোনাস কক্ষপথ যার নতি শূন্য। ভূমিতে অবস্থিত পর্যবেক্ষকের কাছে এই উপগ্রহ আকাশে একটি নির্দিষ্ট বিন্দুতে স্থির অবস্থায় থাকবে।[২০]
    • সুপারসিঙ্ক্রোনাস কক্ষপথ: জিএসও/জিইও এর উপরে একটি নিষ্পত্তি/সংরক্ষণ কক্ষপথ। এই কক্ষপথে উপগ্রহগুলি পশ্চিম দিকে সঞ্চারিত হয়। এছাড়া এটি নিষ্পত্তি কক্ষপথের প্রতিশব্দ।
    • সাবসিঙ্ক্রোনাস কক্ষপথ: জিএসও/জিইও এর নীচে কিন্তু পূর্ব দিকে সঞ্চারিত কক্ষপথ। উপগ্রহগুলি পূর্ব দিকে প্রবাহিত হয়।
    • কবরস্থান কক্ষপথ: জিওসিঙ্ক্রোনাস কক্ষপথের কয়েকশ কিলোমিটার উপরে অবস্থিত কক্ষপথ, যেখানে উপগ্রহগুলিকে তাদের জীবনকালের শেষে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।
      • নিষ্পত্তি কক্ষপথ: কবরস্থান কক্ষপথের প্রতিশব্দ।
      • জঞ্জাল কক্ষপথ: কবরস্থান কক্ষপথের প্রতিশব্দ।
  • অ্যারোসিঙ্ক্রোনাস কক্ষপথ: মঙ্গল গ্রহের চারপাশে একটি সিঙ্ক্রোনাস কক্ষপথ যার পর্যায়কাল মঙ্গল গ্রহের পার্শ্ববর্তী দিনের দৈর্ঘ্য, ২৪.৬২২৯ ঘণ্টার সমান।
  • অ্যারোস্টেশনারি কক্ষপথ: নিরক্ষীয় সমতল পৃষ্ঠের উপরে প্রায় ১৭,০০০ কিলোমিটার (১১,০০০ মা) উচ্চতায় একটি বৃত্তাকার অ্যারোসিঙ্ক্রোনাস কক্ষপথ। ভূমিতে অবস্থিত পর্যবেক্ষকের কাছে এই উপগ্রহ আকাশে একটি নির্দিষ্ট বিন্দুতে স্থির থাকবে।
  • হেলিওসিঙ্ক্রোনাস কক্ষপথ: একটি সৌরকেন্দ্রিক কক্ষপথ যেখানে উপগ্রহের কক্ষপথ সূর্যের ঘূর্ণণকালের সমান। এই কক্ষপথগুলি বুধের কক্ষপথের ব্যাসার্ধের অর্ধেকের চেয়ে কিছুটা কম, সূর্যের চারপাশে 24,360 গ্রাম (0.1628 এউ) ব্যাসার্ধে ঘটে।

বিশেষ শ্রেণিবিন্যাসসম্পাদনা

ছদ্ম-কক্ষপথ শ্রেণিবিন্যাসসম্পাদনা

উপব্যবস্থাসম্পাদনা

উপগ্রহের কার্যকরী বহুমুখিতা তার প্রযুক্তিগত উপাদান এবং এর কার্যকরী বৈশিষ্ট্যগুলির মধ্যে অনুবিদ্ধ করা রয়েছে। একটি সাধারণ উপগ্রহের "শরীরবিদ্যা" দেখলে দুটি মডিউল লক্ষ করা যায়।[১৬] দ্রষ্টব্য যে কিছু উপন্যাসের স্থাপত্য ধারণা যেমন ভগ্নাংশিক মহাকাশযান এই শৃঙ্খলাকে কিছুটা বিচলিত করে।

মহাকাশযান বাস বা পরিষেবা মডিউলসম্পাদনা

বাস মডিউলটি নিম্নলিখিত উপব্যবস্থা নিয়ে গঠিত:

কাঠামোসম্পাদনা

গাঠনিক উপব্যবস্থাটি পর্যাপ্ত কঠোরতার সাথে মূল যান্ত্রিক কাঠামো সরবরাহ করে যা উৎক্ষেপণের সময় অনুভুত চাপ এবং কম্পনকে সহ্য করে, কক্ষপথে অবস্থানের সময় কাঠামোগত অখণ্ডতা এবং স্থায়িত্ব বজায় রাখে এবং উপগ্রহটিকে চরম তাপমাত্রা পরিবর্তন এবং ক্ষুদ্রাকৃতির উল্কা থেকে রক্ষা করে।

দূরমাপনসম্পাদনা

দূরমাপন উপব্যবস্থা (কমান্ড এন্ড ডেটা হ্যান্ডলিং, সিঅ্যান্ডডিএইচ) উপস্থিত সরঞ্জামগুলি পরিচালনা করে, সরঞ্জাম সম্পর্কিত কার্যকরী তথ্য পৃথিবীতে নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রে প্রেরণ করে এবং সরঞ্জাম পরিচালনার সামঞ্জস্য সম্পাদনের জন্য নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রের আদেশ গ্রহণ করে।

বিদ্যুৎসম্পাদনা

বিদ্যুৎ উপব্যবস্থাটিতে সৌরশক্তিকে বৈদ্যুতিক শক্তি, নিয়ন্ত্রণ ও বিতরণ ফাংশনগুলিতে রূপান্তর এবং ব্যাটারিতে শক্তি সঞ্চয় করে, যা উপগ্রহ যখন পৃথিবীর ছায়ায় প্রবেশ করে তখন শক্তি সরবরাহ করে। নিম্বাস প্রোগ্রাম (১৯৬৪-১৯৭৮) সহ বেশ কয়েকটি সফল স্যাটেলাইট প্রোগ্রামে পারমাণবিক শক্তি উত্স (রেডিওআইসোটোপ থার্মোইলেক্ট্রিক জেনারেটর) ব্যবহৃত হয়েছে।[২১]

তাপ নিয়ন্ত্রণসম্পাদনা

তীব্র সূর্যের আলোকের ফলে চরম তাপমাত্রা বা উপগ্রহের অপর পার্শ্বে সূর্যের সংস্পর্শের অভাব থেকে তাপ নিয়ন্ত্রণ উপব্যবস্থাটি বৈদ্যুতিক সরঞ্জামগুলিকে রক্ষা করতে সহায়তা করে।

ভঙ্গী এবং কক্ষপথ নিয়ন্ত্রণসম্পাদনা

ভঙ্গি এবং কক্ষপথ নিয়ন্ত্রণ উপব্যবস্থাটিতে যানবাহন ওরিয়েন্টেশন পরিমাপ করার জন্য সেন্সর, উড্ডয়ন সফ্টওয়্যারটিতে অনুবিদ্ধ থাকা নিয়ন্ত্রণ আইন এবং অ্যাকচুয়েটর (প্রতিক্রিয়া চাকা, থ্রাস্টার) রয়েছে। এগুলি যানবাহনটিকে কাঙ্ক্ষিত ভঙ্গির দিকে পুনরায় অভিমুখী করতে, উপগ্রহটিকে সঠিক কক্ষপথে রাখার জন্য এবং অ্যান্টেনাকে সঠিক দিকে নির্দেশিত করার জন্য প্রয়োজনীয় টর্ক এবং বল প্রয়োগ করে।

যোগাযোগসম্পাদনা

দ্বিতীয় প্রধান মডিউলটি হলো যোগাযোগ পেলোড, যা ট্রান্সপন্ডারের সমন্বয়ে গঠিত। একজন ট্রান্সপন্ডারের সক্ষমতা হলো:

  • ভুমি উপগ্রহ প্রেরণ কেন্দ্র (অ্যান্টেনা) থেকে আপলিঙ্ক রেডিও সংকেত গ্রহণ।
  • প্রাপ্ত রেডিও সংকেতগুলি প্রশস্তকরণ।
  • ইনপুট সিগন্যালগুলি বাছাই করা এবং ইনপুট/আউটপুট সিগন্যাল মাল্টিপ্লেক্সারের মাধ্যমে আউটপুট সিগন্যালকে পৃথিবীর উপগ্রহ গ্রহণ কেন্দ্রগুলিতে (অ্যান্টেনা) পুনঃপ্রেরণের জন্য সঠিক ডাউনলিংক অ্যান্টেনার দিকে পরিচালিত করা।

জীবনের শেষসম্পাদনা

উপগ্রহগুলি যখন তাদের মিশনের শেষের দিকে পৌঁছায় (এটি সাধারণত উদ্বোধনের ৩ বা ৪ বছরের মধ্যেই ঘটে) তখন উপগ্রহ অপারেটরদের কাছে উপগ্রহটিকে কক্ষপথচ্যুত করা বা বর্তমান কক্ষপথে রেখে দেওয়া বা উপগ্রহটিকে কবরস্থানের কক্ষপথে স্থানান্তরিত করার সুযোগ থাকে। ঐতিহাসিকভাবে উপগ্রহ মিশনের শুরুতে বাজেটের সীমাবদ্ধতার কারণে খুব কম উপগ্রহকেই কক্ষপথচ্যুত হওয়ার জন্য ডিজাইন করা হয়েছিল। এমন উপগ্রহের একটি উদাহরণ হলো ভ্যানগার্ড ১। ১৯৫৮ সালে প্রবর্তিত ভ্যানগার্ড ১, ভূকেন্দ্রিক কক্ষপথে স্থাপন করা চতুর্থ কৃত্রিম উপগ্রহ, যা মার্চ ২০১৫ অবধি উৎক্ষেপণ রকেটের উপরের স্তরটি সহ কক্ষপথে ছিল।[২২][২৩]

কক্ষপথচ্যুত হওয়ার পরিবর্তে বেশিরভাগ উপগ্রহগুলি হয় তাদের বর্তমান কক্ষপথে ফেলে রাখা হয় বা একটি কবরস্থান কক্ষপথে স্থানান্তরিত করা হয়।[২৪] ২০০২ সাল থেকে এফসিসি সমস্ত ভূস্থির উপগ্রহকে উৎক্ষেপণের পূর্বে তাদের কার্যকরী জীবনের শেষে একটি কবরস্থান কক্ষপথে পাঠানোর জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়।[২৫] অনিয়ন্ত্রিত কক্ষপথচ্যুতির ক্ষেত্রে প্রধান নিয়ামক হলো সোলার ফ্লাক্স এবং গৌণ পরিবর্তনগুলি হলো উপগ্রহের উপাদান ও গঠন এবং সূর্য ও চাঁদ (পাশাপাশি সমুদ্রপৃষ্ঠের উপরে বা নীচে বৃহত্তর পর্বতশ্রেণী) দ্বারা উত্পন্ন মহাকর্ষীয় বিশৃঙ্খলা। পতনের সময় বায়ুসংক্রান্ত বল এবং তাপমাত্রার কারণে ৭২ থেকে ৮৪ কিলোমিটার সীমার মধ্যে, সাধারনত ৭৮কিমি উচ্চতায় বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। তবে সৌর প্যানেলগুলি ৯০ থেকে ৯৫ কিলোমিটার উচ্চতার মধ্যেই অন্য কোনও অংশের আগে ধ্বংস হয়ে যায়।[২৬]

উৎক্ষেপণে সক্ষম দেশসমূহসম্পাদনা

এই তালিকায় প্রয়োজনীয় উৎক্ষেপণ যানবাহন উত্পাদনসহ কক্ষপথে উপগ্রহ স্থাপনের স্বাধীন ক্ষমতা সম্পন্ন দেশগুলি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। দ্রষ্টব্য: আরও অনেক দেশ উপগ্রহ ডিজাইন ও নির্মাণের সক্ষমতা রাখে তবে এগুলি উৎক্ষেপণে অক্ষম বিধাত বিদেশী উৎক্ষেপণ পরিষেবাগুলোর উপর নির্ভর করতে হয়। এই তালিকাটিতে সেইসকল দেশ বিবেচনা করা হয় নি। এখানে কেবল সম্পূর্ণ নিজস্ব ক্ষমতায় উপগ্রহ উৎক্ষেপণ করতে সক্ষম এমন দেশগুলোকে প্রথম উৎক্ষেপণের তারিখ অনুযায়ী তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। এই তালিকায় ইউরোপীয় মহাকাশ সংস্থা, যা একটি বহু-রাষ্ট্রীয় সংস্থা অথবা ব্যক্তিগত সংস্থার অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি।


দেশভিত্তিক প্রথম উৎক্ষেপিত কৃত্রিম উপগ্রহ
ক্রমিক নং দেশ তারিখ রকেটের নাম উপগ্রহের নাম
  সোভিয়েত ইউনিয়ন ৪ অক্টোবর ১৯৫৭ স্পুটনিক-পিএস (রকেট) স্পুটনিক-১
  যুক্তরাষ্ট্র ১ ফেব্রুয়ারি ১৯৫৮ জুনো-১ এক্সপ্লোরার-১
  ফ্রান্স ২৬ নভেম্বর ১৯৬৫ ডায়ামান্ট এস্ট.রিক্স
  জাপান ১১ ফেব্রুয়ারি ১৯৭০ ল্যাম্বডা-৪এস (রকেট) ওসুমি
  চীন ২৪ এপ্রিল ১৯৭০ লং মার্চ-১ ডং ফ্যাং হং-১
  যুক্তরাজ্য ২৮ অক্টোবর ১৯৭১ ব্ল্যাক এ্যারো প্রোসপেরো এক্স-৩
  ভারত ১৮ জুলাই ১৯৮০ এসএলভি রোহিনি ডি১
  ইসরায়েল ১৯ সেপ্টেম্বর ১৯৮৮ শ্যভিত ওফেক-১
- [1]   রাশিয়া ২১ জানুয়ারি ১৯৯২ সোয়ুজ-ইউ কসমস-২১৭৫
- [1]   ইউক্রেন ১৩ জুলাই ১৯৯২ সাইক্লোন-৩ স্ট্রেলা
  ইরান ২ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ সাফির-১ ওমিড
১০   উত্তর কোরিয়া ১২ ডিসেম্বর ২০১২ উনহা-৩ কুয়াংমিওংজং ইউনিট ২
১১   দক্ষিণ কোরিয়া ৩০ জানুয়ারি ২০১৩ নারো-১ এসটিএসএটি-২সি
১২   ইরান ১২ নভেম্বর ২০১৮ ইলেকট্রন কিউবস্যাট

উৎক্ষেপণের প্রথম চেষ্টাসম্পাদনা

  • মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৫৭ সালে নিজস্ব উৎক্ষেপক ব্যবহার করে প্রথম উপগ্রহ উৎক্ষেপণের চেষ্টা করেছিল এবং ১৯৫৮ সালে সফলভাবে একটি উৎক্ষেপণ সম্পন্ন করেছিল।
  • জাপান ১৯৬৬-৬৯ সালে চারবার উপগ্রহ উৎক্ষেপণের চেষ্টা করেছিল এবং ১৯৭০ সালে নিজস্ব উৎক্ষেপক ব্যবহার করে সফল হয়েছিল।
  • চীন ১৯৬৯ সালে নিজস্ব উৎক্ষেপক ব্যবহার করে তাদের প্রথম উপগ্রহ উৎক্ষেপণের চেষ্টা করেছিল এবং ১৯৭০ সালে সফল হয়েছিল।
  • ভারত ১৯৭৫ সালে বিদেশী উৎক্ষেপক ব্যবহার করে প্রথম জাতীয় উপগ্রহ উৎক্ষেপণের পরে ১৯৭৯ সালে নিজস্ব উৎক্ষেপক ব্যবহার করে উৎক্ষেপণের চেষ্টা করেছিল এবং ১৯৮০ সালে সাফল্য অর্জন করেছিল।
  • ইরাক ১৯৮৯ সালে একটি কক্ষপথে একটি ওয়ারহেড উৎক্ষেপণের দাবি করেছিল, কিন্তু এই দাবিটি পরে প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে।[৩০]
  • ব্রাজিল ১৯৮৫ সালে বিদেশী উৎক্ষেপক ব্যবহার করে প্রথম জাতীয় উপগ্রহ উৎক্ষেপণের পরে নিজস্ব উৎক্ষেপক ভিএলএস ১ ব্যবহার করে ১৯৯৭, ১৯৯৯ এবং ২০০৩ সালে তিনবার উপগ্রহ উৎক্ষেপণ করার চেষ্টা করেছিল, তবে সবগুলো প্রচেষ্টাই ব্যর্থ হয়েছিল।
  • উত্তর কোরিয়া ১৯৯৮ এবং ২০০৯ সালে কুয়াংমিওংজং-১ এবং কুয়াংমিওংজং-২ উপগ্রহ উৎক্ষেপণ দাবি করেছিল, তবে মার্কিন, রাশিয়ান এবং অন্যান্য কর্মকর্তা এবং অস্ত্র বিশেষজ্ঞরা পরে জানিয়েছিলেন যে রকেটগুলির লক্ষ্য যদি কক্ষপথে উপগ্রহ প্রেরণ হয়ে থাকে, তবে সেগুলো তা করতে ব্যর্থ হয়েছিল। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, জাপান এবং দক্ষিণ কোরিয়া বিশ্বাস করে যে এটি আসলে একটি নিক্ষেপী ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা ছিল, যা উত্তর কোরিয়ার ১৯৯৮ সালের উপগ্রহ উৎক্ষেপণের পরেও দাবি করা হয়েছিল এবং পরে প্রত্যাখ্যান করা হয়েছিল।[৩১] কুয়াংমিওংজং-৩ এর প্রথম (এপ্রিল ২০১২) উৎক্ষেপণটি ব্যর্থ হয়েছিল, এবং এটি উত্তর কোরিয়া কর্তৃক প্রকাশ্যে স্বীকৃত। যদিও ২০১২ এর ডিসেম্বরে কুয়াংমিওংজং-৩ এর "দ্বিতীয় সংস্করণ" উৎক্ষেপণ সফল হয়েছিল, যা উত্তর কোরিয়ার প্রথম নিশ্চিত উপগ্রহকে কক্ষপথে স্থাপন করেছিল।
  • দক্ষিণ কোরিয়া (কোরিয়া অ্যারোস্পেস রিসার্চ ইনস্টিটিউট) ১৯৯২ সালে বিদেশী উৎক্ষেপক ব্যবহার করে প্রথম জাতীয় উপগ্রহ উৎক্ষেপণের পর ২০০৯ এবং ২০১০ সালে তাদের নিজস্ব উৎক্ষেপক, কেএসএলভি (নারো)-১ (রাশিয়ার সহায়তায় নির্মিত) উৎক্ষেপণের ব্যর্থ চেষ্টা করেছিল।২০১৩ সালে নারো-৩ উৎক্ষেপণ করে সাফল্য অর্জন করেছিল।
  • প্রথম ইউরোপীয় বহু-জাতীয় রাষ্ট্র সংস্থা ইএলডিও ১৯৬৮–১৯৭০ এবং ১৯৭১ সালে ইউরোপা ১ এবং ইউরোপা ২ রকেট কক্ষপথে উৎক্ষেপণ চেষ্টা করেছিল কিন্তু ব্যর্থতার পরে ক্রিয়াকলাপ বন্ধ করে দেয়।

টীকাসম্পাদনা

উৎক্ষেপণে সক্ষম বেসরকারী সত্তাসম্পাদনা

অরবিটাল সায়েন্সেস কর্পোরেশন ১৯৯০ সালে পেগাসাসের মাধ্যমে একটি উপগ্রহ উৎক্ষেপণ করেছিল। স্পেসএক্স ২০০৮ সালে ফ্যালকন ১ ব্যবহার করে একটি উপগ্রহ উৎক্ষেপণ করেছিল। রকেট ল্যাব ২০১৮ সালে ইলেকট্রন ব্যবহার করে তিনটি কিউবস্যাট কক্ষপথে প্রবর্তন করেছিল।

দেশের প্রথম উপগ্রহসম্পাদনা

 
  কক্ষীয় উৎক্ষেপণ এবং স্যাটেলাইট অপারেশন
  স্যাটেলাইট অপারেশন, বিদেশী সরবরাহকারী কর্তৃক উৎক্ষেপিত
  উপগ্রহ উন্নয়নশীল
  কক্ষীয় উৎক্ষেপণ প্রকল্প উন্নত পর্যায়ে বা দেশীয় নিক্ষেপী ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন

মহাকাশে উৎক্ষেপিত উপগ্রহ তৈরির দিক দিয়ে কানাডা তৃতীয় দেশ হলেও,[৩২] সেটি মার্কিন মহাশূন্য বিমানবন্দর থেকে মার্কিন রকেট ব্যবহার করে উৎক্ষেপণ করা হয়েছিল। একই বিষয় অস্ট্রেলিয়ার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য, তারা প্রথম উপগ্রহটি অনুদানপ্রাপ্ত মার্কিন রেডস্টোন রকেট এবং আমেরিকান সহায়তা কর্মীদের পাশাপাশি যুক্তরাজ্যের সাথে একটি যৌথ উৎক্ষেপণ সুবিধার সাথে জড়িত হয়ে উৎক্ষেপণ করেছিল।[৩৩] প্রথম ইতালীয় উপগ্রহ সান মার্কো ১ নাসা কর্তৃক প্রশিক্ষিত একটি ইতালীয় উৎক্ষেপণ দল নিয়ে ওয়ালপস দ্বীপ (ভার্জিনিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র) থেকে যুক্তরাষ্ট্রের স্কাউট রকেটে ১৯৬৪ সালের ১৯ ডিসেম্বর উৎক্ষেপণ করেছিল।

উপগ্রহ উৎক্ষেপণের প্রথম চেষ্টাসম্পাদনা

  • মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৫৭ সালে তাদের প্রথম উপগ্রহ উৎক্ষেপণের ব্যর্থ চেষ্টা করেছিল; তারা ১৯৫৮ সালে সফল হয়েছিল।
  • চীন ১৯৬৯ সালে প্রথম উপগ্রহ উৎক্ষেপণ করতে ব্যর্থ চেষ্টা করেছিল; তারা ১৯৭০ সালে সফল হয়েছিল।
  • চিলি ১৯৯৫ সালে বিদেশী রকেট ব্যবহার করে তাদের প্রথম উপগ্রহ ফ্যাস্যাট-আলফা চালু করার জন্য ব্যর্থ চেষ্টা করেছিল; ১৯৯৮ সালে তারা সফল হয়েছিল।
  • উত্তর কোরিয়া ১৯৯৯, ২০০৯, ২০১২ সালে উপগ্রহ উৎক্ষেপণের চেষ্টা করেছিল; ১২ ডিসেম্বর ২০১২ প্রথম সফল হয়েছিল।
  • লিবিয়া গাদ্দাফির পতনের পর স্থগিতকৃত টেলিযোগাযোগ এবং রিমোট সেন্সিং পরিষেবা পুনরায় চালু করার লক্ষ্যে ১৯৯৬ সাল থেকে তাদের নিজস্ব জাতীয় লিবস্যাট উপগ্রহ প্রকল্প বিকশিত করছে।[৩৪]
  • বেলারুশ ২০০৬ সালে বিদেশী রকেটের মাধ্যমে প্রথম উপগ্রহ বেলক্যা উৎক্ষেপণের ব্যর্থ চেষ্টা করেছিল।

চিলি এবং বেলারুশ উভয়ই তাদের উপগ্রহ তৈরিতে রাশিয়ান কোম্পানিকে প্রধান ঠিকাদার হিসাবে ব্যবহার করেছিল, তারা রাশিয়ান-ইউক্রেনীয় রকেট ব্যবহার করেছিল এবং রাশিয়া বা কাজাখস্তান থেকে উৎক্ষেপণ করেছিল।

পরিকল্পিত প্রথম উপগ্রহসম্পাদনা

  • আর্মেনিয়া ২০১২ সালে আর্মকসমোস সংস্থা প্রতিষ্ঠা করেছিল এবং প্রথম টেলিযোগাযোগ উপগ্রহ আর্মস্যাট উৎক্ষেপণের ঘোষণা করেছিল। প্রায় ২৫০ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করা হয়েছে এবং দেশটি ৪ বছরের মধ্যে উপগ্রহ নির্মাণের জন্য রাশিয়া, চীন এবং কানাডার মধ্যে ঠিকাদার বাছাই করছে।[৩৫][৩৬]

উপগ্রহে আক্রমণসম্পাদনা

২০০০ এর দশকের মাঝামাঝি থেকে জঙ্গি সংগঠনগুলি তাদের প্রজ্ঞাপন প্রচার করতে এবং সামরিক যোগাযোগের নেটওয়ার্কগুলি থেকে গুপ্ত তথ্য চুরি করার জন্য উপগ্রহ হ্যাক করছে।[৩৭][৩৮]

পরীক্ষণের উদ্দেশ্যে নিম্ন উচ্চতার কক্ষপথের উপগ্রহগুলি পৃথিবী থেকে নিক্ষিপ্ত নিক্ষেপী ক্ষেপণাস্ত্র দ্বারা ধ্বংস করা হয়েছে। রাশিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, চীনভারত উপগ্রহ ধ্বংস করার ক্ষমতা প্রদর্শন করেছে।[৩৯] ২০০৭ সালে চীনা সামরিক বাহিনী একটি প্রাক্তন আবহাওয়া উপগ্রহ ধ্বংস করলে,[৩৯] ২০০৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে যুক্তরাষ্ট্র নৌবাহিনী একটি অকেজো গোয়েন্দা উপগ্রহ ধ্বংস করে।[৪০] ২০১৯ সালের ২৭ মার্চ ভারত ৩ মিনিটের মধ্যে ৩০০ কিলোমিটার উচ্চতায় থাকা একটি সরাসরি পরীক্ষামূলক উপগ্রহ ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে ধ্বংস করে। এর ফলে ভারত সরাসরি উপগ্রহ ধ্বংস করার ক্ষমতাসম্পন্ন চতুর্থ দেশ হয়ে ওঠে।[৪১][৪২]

জ্যামিংসম্পাদনা

উপগ্রহ ট্রান্সমিশনে প্রাপ্ত কম শক্তিসম্পন্ন সংকেতের কারণে, তারা স্থল-ভিত্তিক ট্রান্সমিটার দ্বারা জ্যাম হওয়া দিক দিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ। এই জাতীয় জ্যামিং ট্রান্সমিটারের সীমার মধ্যে ভৌগলিক অঞ্চলব্যাপী সীমাবদ্ধ,[৪৩][৪৪] তবে উপগ্রহ ফোন এবং টেলিভিশনের সংকেতও জ্যামিংয়ের শিকার হচ্ছে।

এছাড়াও, কোনও ভূস্থির উপগ্রহে বাহক রেডিও সংকেত স্থানান্তর করা এবং উপগ্রহের ট্রান্সপন্ডারের বৈধ ব্যবহারগুলিতে হস্তক্ষেপ করা খুব সহজ। ভূকেন্দ্র কর্তৃক বাণিজ্যিক উপগ্রহ স্পেসে ভুল সময়ে বা ভুল ফ্রিকোয়েন্সিতে ট্রান্সমিট করা এবং ট্রান্সপন্ডারকে দ্বৈত-আলোকিত করা খুবই সাধারণ বিষয়, যা ফ্রিকোয়েন্সিটিকে অকেজো করে দেয়। উপগ্রহ অপারেটরগুলির এখন পরিশীলিত পর্যবেক্ষণ রয়েছে যা তাদের যে কোনও ক্যারিয়ারের উত্স চিহ্নিত করতে এবং ট্রান্সপন্ডার স্পেস কার্যকরভাবে পরিচালনা করতে সক্ষম করে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

পৃথিবী পর্যবেক্ষণসম্পাদনা

গত পাঁচ দশকে মহাকাশ সংস্থাগুলি হাজার হাজার মহাকাশযান, মহাকাশ ক্যাপসুল বা উপগ্রহ মহাবিশ্বে প্রেরণ করেছে। প্রকৃতপক্ষে আবহাওয়া পূর্বাভাসকারীরা এই উপগ্রহগুলির পর্যবেক্ষণের ভিত্তিতে আবহাওয়া এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগ সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বাণী করে।[৪৫]

মার্কিন জাতীয় বিমানচালনবিদ্যা ও মহাকাশ প্রশাসন (নাসা)[৪৬] জাতীয় একাডেমিকে মহাকাশ থেকে পৃথিবী পর্যবেক্ষণ; ২০০৮ সালে বৈজ্ঞানিক অর্জনের প্রথম ৫০ বছর শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশের জন্য অনুরোধ করেছে। এটি বর্ণনা করেছিল যে কীভাবে উপগ্রহ পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে পুরো পৃথিবীকে একযোগে দেখার ক্ষমতা পৃথিবী সম্পর্কে গবেষণায় বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটায়। এই উন্নতি পৃথিবীর সম্মিলিত বিজ্ঞানের এক নতুন যুগ নিয়ে আসে। জাতীয় একাডেমি রিপোর্টে উপসংহারে এসেছে যে ছায়াপথ থেকে পৃথিবীর অব্যাহত পর্যবেক্ষণ ভবিষ্যতে বৈজ্ঞানিক ও সামাজিক বাঁধাসমূহ সমাধান করার জন্য প্রয়োজনীয়।[৪৭]

নাসাসম্পাদনা

নাসা আর্থ অবজার্ভিং সিস্টেম ডেটা এন্ড ইনফর্মেশন সিস্টেম (ইওএসডিআইএস) হিসাবে বর্ণিত বিভিন্ন উপগ্রহ, বৈজ্ঞানিক উপকরণ এবং উপাত্ত ব্যবস্থার সমন্বয়ে গঠিত আর্থ অবজার্ভিং সিস্টেম (ইওএস) প্রবর্তন করেছিল।[৪৮] এটি অসংখ্য বৈজ্ঞানিক উপাত্তের পাশাপাশি আন্তঃশৃঙ্খলা শিক্ষার জন্য ডিজাইন করা পরিষেবাদি প্রচারিত করে। ইওএসডিআইএস এর উপাত্তসমূহ ফাইল স্থানান্তর প্রোটোকল (এফটিপি) এবং হাইপার টেক্সট ট্রান্সফার প্রোটোকল সিকিউর (এইচটিটিপিএস) এর মাধ্যমে অনলাইনে অ্যাক্সেস করা যায়।[৪৯] বিজ্ঞানী এবং গবেষকরা একাধিক আন্তঃসংযুক্ত নোড বা বিজ্ঞান তদন্তকারী-নেতৃত্বাধীন প্রসেসিং সিস্টেম (এসআইপিএস) এবং শৃঙ্খলা-সংক্রান্ত বিতরণকৃত সক্রিয় সংরক্ষণাগার কেন্দ্রগুলির (ডিএসিসি) বিতরণ প্ল্যাটফর্মের মধ্যে ইওএসডিআইএস বিজ্ঞান কার্যক্রম পরিচালনা করে।[৫০]

ইএসএসম্পাদনা

ইউরোপীয় মহাকাশ সংস্থা [৫১] ১৯৭৭ সালের নভেম্বরে মিটিওস্যাট ১ উৎক্ষেপণের পর থেকে পৃথিবী পর্যবেক্ষণ উপগ্রহ পরিচালনা করছে।[৫২] বর্তমানে ইএসএ একটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন (এআই) প্রসেসরের সাথে সজ্জিত একটি উপগ্রহ উৎক্ষেপণের পরিকল্পনা করছে যার মাধ্যমে মহাকাশযানটি চিত্র ধারণ করার এবং পৃথিবীতে উপাত্ত প্রেরণ করার সিদ্ধান্ত নেবে।[৫৩] ব্রেইনস্যাট ইনটেল মাইরিয়াদ এক্স ভিশন প্রসেসিং ইউনিট (ভিপিইউ) ব্যবহার করবে। ২০১৮ সালের নভেম্বরে ফাইউইক চলাকালীন ইএসএ পরিচালক জোসেফ অ্যাসকবাকার পৃথিবী পর্যবেক্ষণ কর্মসূচির ঘোষণাটি করেছিলেন।[৫৪] এটি হলো পাঁচ দিনের বৈঠক যা পৃথিবী পর্যবেক্ষণের ভবিষ্যতের দিকে দৃষ্টি নিবদ্ধ করে। ইতালির ফ্রেসকাটিতে ইএসএ সেন্টার ফর আর্থ অবজার্ভেশন-এ সম্মেলনটি অনুষ্ঠিত হয়েছিল।[৫৩] ইএসএ ফাইল্যাব চালু করেছে, যা দ্বারা ভবিষ্যত-দৃষ্টি নিবদ্ধ করা দলকে উল্লেখ করে যারা এআই এবং অন্যান্য বিঘ্নিত উদ্ভাবনের সম্ভাবনাকে ব্যবহারের জন্য কাজ করে।[৫৫] এদিকে, ইএসএ ঘোষণা করেছে যে ২০২১ সালে স্পেস রাইডার মহাকাশ বিমানের পরীক্ষণ ফ্লাইট শুরু করার আশা করছে। এটি বেশ কয়েকটি প্রদর্শনী মিশনের পরে হবে।[৫৬] স্পেস রাইডার হলো এজেন্সিটির ইন্টারমিডিয়েট এক্সপেরিমেন্টাল ভেহিকেল (আইএক্সভি) এর সিক্যুয়েল যা ২০১৫ সালে চালু হয়েছিল। এটি কক্ষপথের মিশনের জন্য ৮০০ কিলোগ্রাম পেডলোড ধারণক্ষমতা রয়েছে যা সর্বোচ্চ দুই মাস চলবে।[৫৭]

সংঘর্ষ ও ভূপাতিতসম্পাদনা

২০০৯ সালে ১০ ফেব্রুয়ারি আমেরিকার কৃত্রিম উপগ্রহ ইরিডিয়াম ৩৩ এবং রাশিয়ার কসমস ২২৫১ উপগ্রহের ধাক্কা লাগে। ঘটনাটি ঘটে সাইবেরিয়ার ৭৮৯ কিলোমিটার ওপরে। নাসা'র উপগ্রহ বিজ্ঞানি মার্ক ম্যাটনি এমএসএসবিসি চ্যানেল কে জানান[৫৮], দুটি গোটা কৃত্রিম উপগ্রহের সম্মুখ সংঘাতের ঘটনা এই প্রথম ঘটল।[৫৯]

মহাশুন্যের ব্ল্যাক হোল, নিউট্রন স্টারের ছবি তোলা, এক্স-রে ইত্যাদির উৎসস্থল খুঁজে বের করার জন্য ১৯৯০ সালে জার্মানির উপগ্রহ রোসাটকে মহাকাশে প্রেরণ করা হয়। কিন্তু মধ্যাকর্ষণজনিত কারণে বলয়ের মধ্যে চলে আসায় ২০১১ সালের ২২ কিংবা ২৩ অক্টোবরের মধ্যে এটি পৃথিবীর যে-কোন জায়গায় আঘাত হানতে পারে বলে জার্মানির মহাকাশ কেন্দ্র ডিএলআর জানিয়েছে।[৬০]

দূষণ ও নিয়ন্ত্রণসম্পাদনা

দায়বদ্ধতা কনভেনশন কর্তৃক সাধারণভাবে দায়বদ্ধতা নিয়ন্ত্রণ করা হয়। মহাশূন্য ধ্বংসাবশেষ, রেডিও ও আলো দূষণের মতো বিষয়গুলির পরিমাণ বাড়লেও জাতীয় বা আন্তর্জাতিক নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে অগ্রগতির অভাব রয়েছে।[৬১] আইএইউ এর মতো জ্যোতির্বৈজ্ঞানিক সম্প্রদায়ের মতে স্পেসএক্স এর স্টারলিঙ্ক এর মতো ভবিষ্যৎ উপগ্রহমন্ডলের বৃদ্ধির ফলে কক্ষপথে দূষণের পরিমাণ ব্যপকভাবে বৃদ্ধি পাবে।[৬২][৬৩] ২০২০-এ স্যাটকন ১ কর্মশালার একটি প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে যে বৃহত উপগ্রহমন্ডলের প্রভাব কিছু জ্যোতির্বিজ্ঞানের গবেষণামূলক প্রচেষ্টাকে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত করতে পারে এবং জ্যোতির্বিদ্যায় ক্ষয় প্রশমিত করার জন্য ছয়টি উপায় তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।[৬৪][৬৫] কিছু উল্লেখযোগ্য উপগ্রহ ব্যর্থতা যার ফলে দূষিত এবং তেজস্ক্রিয় পদার্থগুলি ছড়িয়ে পড়েছিল, তা হলো কসমোস ৯৫৪, কসমোস ১৪০২ এবং ট্রানজিট ৫-বিএন-৩। বায়ুমণ্ডলে পুনরায় প্রবেশকারী উপগ্রহ থেকে দূষণ ও ধ্বংসাবশেষ হ্রাস করার জন্য বিকল্প পদার্থ হিসাবে কাঠ ব্যবহার করা যেতে পারে।[৬৬]

মুক্ত উৎস উপগ্রহসম্পাদনা

মুক্ত উৎসের হার্ডওয়্যার এবং মুক্ত উৎসের সফ্টওয়্যার ব্যবহার করে বেশ কয়েকটি মুক্ত উৎস উপগ্রহ উৎক্ষেপণ করা হয়েছে বা বিকশিত হচ্ছে। উপগ্রহে সাধারণত কিউবস্যাট বা পকেটকিউব থাকে। ২০১৩ সালে একটি অপেশাদার রেডিও স্যাটেলাইট ওএসএসআই -১ চালু হয়েছিল এবং প্রায় ২ মাস ধরে কক্ষপথে ছিল।[৬৭] গ্রীক প্যাট্রাস বিশ্ববিদ্যালয় এবং লিব্রে স্পেস ফাউন্ডেশন কর্তৃক ২০১৭ সালে নির্মিত ইউপিস্যাট ১৮ মাস ধরে কক্ষপথে অবস্থান করেছিল। ২০১৯ সালে ফোসাস্যাট-১ উৎক্ষেপণ করা হয়েছিল।[৬৮][৬৯][৭০][৭১] ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারী অনুযায়ী পোর্টল্যান্ড স্টেট অ্যারোস্পেস সোসাইটি ওরেস্যাট নামে দুটি মুক্ত উৎস স্যাটেলাইট উপগ্রহ করছে [৭২][৭৩] এবং লিব্রে স্পেস ফাউন্ডেশনেও উপগ্রহ প্রকল্প চলমান রয়েছে।[৭৪][৭৫][৭৬]

কৃত্রিম উপগ্রহের সেবাসম্পাদনা

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "How many satellites are orbiting earth in 2018"Pixalytics। ২২ আগস্ট ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  2. "NASA Spacecraft Becomes First to Orbit a Dwarf Planet"NASA। ৬ মার্চ ২০১৫। 
  3. "Rockets in Science Fiction (Late 19th Century)"Marshall Space Flight Center। ১ সেপ্টেম্বর ২০০০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ নভেম্বর ২০০৮ 
  4. Bleiler, Everett Franklin; Bleiler, Richard (১৯৯১)। Science-fiction, the Early Years Kent State University Press। পৃষ্ঠা 325আইএসবিএন 978-0-87338-416-2 
  5. Rhodes, Richard (২০০০)। Visions of TechnologySimon & Schuster। পৃষ্ঠা 160আইএসবিএন 978-0-684-86311-5 
  6. "Preliminary Design of an Experimental World-Circling Spaceship"RAND। সংগ্রহের তারিখ ৬ মার্চ ২০০৮ 
  7. Rosenthal, Alfred (১৯৬৮)। Venture into Space: Early Years of Goddard Space Flight Center। NASA। পৃষ্ঠা 15। 
  8. "Hubble Essentials: About Lyman Spitzer, Jr."। Hubble Site। 
  9. R.R. Carhart, Scientific Uses for a Satellite Vehicle, Project RAND Research Memorandum. (Rand Corporation, Santa Monica) 12 February 1954.
  10. 2. H.K Kallmann and W.W. Kellogg, Scientific Use of an Artificial Satellite, Project RAND Research Memorandum. (Rand Corporation, Santa Monica) 8 June 1955.
  11. Gray, Tara; Garber, Steve (২ আগস্ট ২০০৪)। "A Brief History of Animals in Space"NASA 
  12. Chang, Alicia (৩০ জানুয়ারি ২০০৮)। "50th anniversary of first U.S. satellite launch celebrated"San Francisco ChronicleAssociated Press। ১ ফেব্রুয়ারি ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  13. Portree, David S. F.; Loftus, Jr, Joseph P. (১৯৯৯)। "Orbital Debris: A Chronology" (PDF)Lyndon B. Johnson Space Center। পৃষ্ঠা 18। ১ সেপ্টেম্বর ২০০০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ নভেম্বর ২০০৮ 
  14. Welch, Rosanne; Lamphier, Peg A. (২০১৯-০২-২২)। Technical Innovation in American History: An Encyclopedia of Science and Technology [3 volumes] (ইংরেজি ভাষায়)। ABC-CLIO। পৃষ্ঠা 126। আইএসবিএন 978-1-61069-094-2 
  15. "Orbital Debris Education Package" (PDF)Lyndon B. Johnson Space Center। ৮ এপ্রিল ২০০৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ মার্চ ২০০৮ 
  16. Grant, A.; Meadows, J. (২০০৪)। Communication Technology Update  (ninth সংস্করণ)। Focal Press। পৃষ্ঠা 284আইএসবিএন 978-0-240-80640-2 
  17. "Workshop on the Use of Microsatellite Technologies" (PDF)United Nations। ২০০৮। পৃষ্ঠা 6। সংগ্রহের তারিখ ৬ মার্চ ২০০৮ 
  18. "Earth Observations from Space" (PDF)National Academy of Sciences। ২০০৭। ১২ নভেম্বর ২০০৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  19. "UCS Satellite Database"। Union of Concerned Scientists। ১ আগস্ট ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১৫ অক্টোবর ২০২০ 
  20. Oberg, James (জুলাই ১৯৮৪)। "Pearl Harbor in Space"Omni। পৃষ্ঠা 42–44। 
  21. Schmidt, George; Houts, Mike (১৬ ফেব্রুয়ারি ২০০৬)। "Radioisotope-based Nuclear Power Strategy for Exploration Systems Development" (PDF)STAIF Nuclear Symposium813: 334–339। ডিওআই:10.1063/1.2169210বিবকোড:2006AIPC..813..334S 
  22. "Vanguard 1 – Satellite Information"Satellite database। Heavens-Above। সংগ্রহের তারিখ ৭ মার্চ ২০১৫ 
  23. "Vanguard 1 Rocket – Satellite Information"Satellite database। Heavens-Above। সংগ্রহের তারিখ ৭ মার্চ ২০১৫ 
  24. "Conventional Disposal Method: Rockets and Graveyard Orbits"। Tethers। 
  25. "FCC Enters Orbital Debris Debate"। Space.com। ২৪ জুলাই ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  26. "Object SL-8 R/B – 29659U – 06060B"Forecast for Space Junk Reentry। Satview। ১১ মার্চ ২০১৪। 
  27. "UNMOVIC report" (PDF)। United Nations Monitoring, Verification and Inspection Commission। পৃষ্ঠা 434 ff। 
  28. "Deception Activities – Iraq Special Weapons"। FAS। ২২ এপ্রিল ১৯৯৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  29. "Al-Abid LV" 
  30. The video tape of a partial launch attempt which was retrieved by UN weapons inspectors later surfaced showing that the rocket prematurely exploded 45 seconds after its launch.[২৭][২৮][২৯]
  31. Myers, Steven Lee (১৫ সেপ্টেম্বর ১৯৯৮)। "U.S. Calls North Korean Rocket a Failed Satellite"The New York Times। ৯ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 
  32. Burleson, Daphne (২০০৫)। Space Programs Outside the United StatesMcFarland & Company। পৃষ্ঠা 43। আইএসবিএন 978-0-7864-1852-7 
  33. Mike Gruntman (২০০৪)। Blazing the TrailAmerican Institute of Aeronautics and Astronautics। পৃষ্ঠা 426। আইএসবিএন 978-1-56347-705-8 
  34. Wissam Said Idrissi। "Libsat – Libyan Satellite Project"libsat.ly 
  35. "Canada's MDA Ready to Help Armenia Launch First Comsat"Asbarez News। ৯ আগস্ট ২০১৩। 
  36. "China keen on Armenian satellite launch project"arka.am 
  37. Morrill, Dan। "Hack a Satellite while it is in orbit"ITtoolbox। ২০ মার্চ ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ মার্চ ২০০৮ 
  38. "AsiaSat accuses Falungong of hacking satellite signals"Press Trust of India। ২২ নভেম্বর ২০০৪। 
  39. Broad, William J.; Sanger, David E. (১৮ জানুয়ারি ২০০৭)। "China Tests Anti-Satellite Weapon, Unnerving U.S."The New York Times 
  40. "Navy Missile Successful as Spy Satellite Is Shot Down"Popular Mechanics। ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২৫ মার্চ ২০০৮ 
  41. "India successfully tests anti-satellite weapon: Modi"The Week (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ মার্চ ২০১৯ 
  42. Diplomat, Harsh Vasani, The। "India's Anti-Satellite Weapons"The Diplomat (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ মার্চ ২০১৯ 
  43. Singer, Jeremy (২০০৩)। "U.S.-Led Forces Destroy GPS Jamming Systems in Iraq"Space.com। ২৬ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ মার্চ ২০০৮ 
  44. Brewin, Bob (২০০৩)। "Homemade GPS jammers raise concerns"Computerworld। ২২ এপ্রিল ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ মার্চ ২০০৮ 
  45. "Earth Observations from Space " Earth Observations from Space"nas-sites.org (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৮ নভেম্বর ২০১৮ 
  46. "Home | The National Academies of Sciences, Engineering, and Medicine | National-Academies.org | Where the Nation Turns for Independent, Expert Advice"www.nationalacademies.org। সংগ্রহের তারিখ ২৮ নভেম্বর ২০১৮ 
  47. Council, National Research (১৭ ডিসেম্বর ২০০৮)। Earth Observations from Space (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসবিএন 978-0-309-11095-2ডিওআই:10.17226/11991 
  48. "About EOSDIS | Earthdata"earthdata.nasa.gov (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৮ নভেম্বর ২০১৮ 
  49. "Earth Observation Data | Earthdata"earthdata.nasa.gov (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৮ নভেম্বর ২০১৮ 
  50. "EOSDIS Distributed Active Archive Centers (DAACs) | Earthdata"earthdata.nasa.gov (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৮ নভেম্বর ২০১৮ 
  51. esa। "ESA" (ইংরেজি ভাষায়)। European Space Agency। সংগ্রহের তারিখ ২৮ নভেম্বর ২০১৮ 
  52. "50 years of Earth Observation"ESA (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২১ আগস্ট ২০১৯ 
  53. "ESA preps Earth observation satellite with onboard AI processor"SpaceNews.com (ইংরেজি ভাষায়)। ১৩ নভেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৮ নভেম্বর ২০১৮ 
  54. "Movidius Myriad X VPU | Intel Newsroom"Intel Newsroom (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৮ নভেম্বর ২০১৮ 
  55. "The ESA Earth Observation Φ-week EO Open Science and FutureEO"phiweek.esa.int (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৮ নভেম্বর ২০১৮ 
  56. "ESA targets 2021 for Space Rider demo flight"SpaceNews.com (ইংরেজি ভাষায়)। ১৩ নভেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৮ নভেম্বর ২০১৮ 
  57. esa। "IXV" (ইংরেজি ভাষায়)। European Space Agency। সংগ্রহের তারিখ ২৮ নভেম্বর ২০১৮ 
  58. "MSN | Outlook, Office, Skype, Bing, Breaking News, and Latest Videos"www.msn.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-২৬ 
  59. "Nasa alert as Russian and US communication satellites collide over Siberia"the Guardian (ইংরেজি ভাষায়)। ২০০৯-০২-১২। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-২৬ 
  60. Welle (www.dw.com), Deutsche। "মহাকাশ থেকে আচমকা পতিত হচ্ছে কৃত্রিম উপগ্রহ | DW | 24.10.2011"DW.COM। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-২৬ 
  61. "Problem Weltraumschrott: Die kosmische Müllkippe – Wissenschaft"Der Spiegel। সংগ্রহের তারিখ ২২ এপ্রিল ২০১৭ 
  62. "IAU's statement on satellite constellations"International Astronomical Union। সংগ্রহের তারিখ ৩ জুন ২০১৯ 
  63. "Light pollution from satellites will get worse. But how much?"astronomy.com। ১৪ জুন ২০১৯। 
  64. Zhang, Emily। "SpaceX's Dark Satellites Are Still Too Bright for Astronomers"Scientific American (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  65. "Report Offers Roadmap to Mitigate Effects of Large Satellite Constellations on Astronomy | American Astronomical Society"aas.org। সংগ্রহের তারিখ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  66. Harper, Justin (২৯ ডিসেম্বর ২০২০)। "Japan developing wooden satellites to cut space junk"bbc.co.uk। সংগ্রহের তারিখ ২৯ ডিসেম্বর ২০২০ 
  67. "ossicode - Overview"GitHub (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-২৭ 
  68. Kulu, Erik। "FossaSat-1 @ Nanosats Database"Nanosats Database (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-২৭ 
  69. "FossaSat 1, 1b"Gunter's Space Page (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-২৭ 
  70. "FossaSat-1, an Open Source Satellite for the Internet of Things"Hackster.io (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-২৭ 
  71. "FOSSASystems/FOSSASAT-1"। ২০২১-০২-২৪। 
  72. "oresat"www.oresat.org (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-২৭ 
  73. "Oregon Small Satellite Project"GitHub (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-২৭ 
  74. "PocketQubes"Libre Space Foundation (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-২৭ 
  75. "QUBIK"Libre Space Foundation (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-২৭ 
  76. "Qubik"GitLab (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-২৭ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা