অশ্বত্থামা

মহাভারতের গুরু দ্রোণাচার্যের পুত্র

অশ্বত্থামা (সংস্কৃত:अश्वत्थामा) হল গুরু দ্রোণাচার্য ও কুলগুরু কৃপাচার্যের বোন কৃপির পুত্র। তিনি ছিলেন মহাভারতের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র । তিনি ঋষি ভরদ্বাজের নাতি ছিলেন। অশ্বত্থামা হস্তিনাপুরের শাসকদের অধীনস্থ হয়ে অহিছত্রকে রাজধানী করে পাঞ্চালার উত্তরাঞ্চল শাসন করেছিলেন। তিনি ছিলেন মহারথী,[১]  যিনি কুরুক্ষেত্র যুদ্ধে পাণ্ডবদের বিরুদ্ধে কৌরবের পক্ষে যুদ্ধ করেছিলেন। ভগবান শিব দ্বারা আশীর্বাদ পেয়ে তিনি চিরঞ্জীবী (অমর) হয়েছিলেন। অশ্বত্থামার কথিত মৃত্যুর প্রতারণামূলক চক্রান্ত তার শোকার্ত পিতা দ্রোণকে বধ করা হয়। তিনি কুরুক্ষেত্র যুদ্ধে কৌরবদের চূড়ান্ত সেনাপতি নিযুক্ত হন। শোক ও ক্রোধে কাবু হয়ে তিনি এক রাতের আক্রমণে পাণ্ডব শিবিরে উপস্থিত সমস্ত যোদ্ধাদের বধ করেন। তিনি মহাভারতের সবচেয়ে বিশিষ্ট যোদ্ধাদের মধ্যে ছিলেন।

অশ্বত্থামা
পূর্ণ নামদ্রৌনি (জন্ম নাম)
অস্ত্রতীর-ধনুক, তলোয়ার
পরিবারদ্রোণাচার্য (পিতা)
কৃপি (মাতা)
আত্মীয়কৃপাচার্য (মামা)
ভরদ্বাজ (পিতামহ)

অশ্বত্থামা এর পিতার নাম গুরু দ্রোণ আর তার মাতার নাম কৃপী। তিনি একটি বনের গুহায় জন্মগ্রহণ করেন (বর্তমানে তপকেশ্বর মহাদেব মন্দির, দেরাদুন। উত্তরাখণ্ড)। দ্রোণ ভগবান শিবকে সন্তুষ্ট করার জন্য বহু বছর ধরে কঠোর তপস্যা করেন যাতে ভগবান শিবের মতো পরাক্রমশালী পুত্র লাভ করেন। অশ্বত্থামা তার কপালে একটি মূল্যবান এবং শক্তিশালী রত্ন নিয়ে জন্মগ্রহণ করেন প্রভু শিব এর আশীর্বাদ হিসাবে যা তাকে মানুষের চেয়ে নীচের সমস্ত জীবের উপর ক্ষমতা দেয়; এটি তাকে ক্ষুধা, তৃষ্ণা, ক্লান্তি, বার্ধক্য এবং সকল প্রকার রোগ, অস্ত্র এবং দেবতাদের থেকে রক্ষা করে। ঐশ্বরিক রত্নটি প্রায় অশ্বত্থামাকে অজেয় এবং অমর করে তোলে। জন্মের সময় অশ্বত্থামা অশ্বের মত শব্দ করেছিলেন বলে তার এইরূপ নামকরণ করা হয়।

যুদ্ধ শিক্ষা

সম্পাদনা

অশ্বত্থামার পিতা গুরু দ্রোণ ছিলেন একজন ব্রাহ্মণ। ব্রাহ্মণ হয়েও তিনি ক্ষত্রিয়ের মতো যুদ্ধবিদ্যায় পারদর্শী ছিলেন। তিনি তার যুদ্ধ শিক্ষা শেখেন তার পিতা ভরদ্দাজ মুণির কাছ থেকে। তার পিতার দেওয়া শিক্ষাই তিনি তার ছাত্রদের শেখাতেন। যারা ব্রাহ্মণ কুলে জন্মগ্রহণ করে একই সাথে ব্রাহ্মণ্য এবং ক্ষাত্রধর্ম পালন করে, তাদের ব্রহ্মক্ষত্রিয় বলা হয়। এজন্য পরশুরামের মত অশ্বত্থামা, কৃপাচার্য এবং দ্রোণাচার্য তাদেরও ব্রহ্মক্ষত্রিয় বলা হয়। একবার তার বাল্যকালের মিত্র রাজা দ্রুপদের কাছে গেলে তিনি গুরু দ্রোণকে অপমান করেন। আর সেই অপমানের প্রতিশোধ নিতে তিনি হস্তিনাপুরে এসে তার যোগ্য শিষ্য খুঁজতে থাকেন। সেখানে তিনি কৌরব কুমারদের সাথে তার একমাত্র পুত্র অশ্বত্থামাকে যুদ্ধ শিক্ষা দিতে আরম্ভ করেন। গুরু দ্রোন দেখতে পেলেন সেখানে ধনু বিদ্যাতে অর্জুন বিশেষ দক্ষতা অর্জন করছে, তাই তিনি তার পুত্র অশ্বত্থামাকে সেরা ধনুর্বি‌দ হবার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করতে থাকেন। অশ্বত্থামা বহু গুপ্ত ঐশ্বরিক অস্ত্র প্রয়োগের কৌশল এবং বিদ্যা পিতার কাছ থেকে শিখেছিলেন। [২][৩]

কুরুক্ষেত্র যুদ্ধ ও অশ্বত্থামা

সম্পাদনা

কুরুক্ষেত্র যুদ্ধ এ অশ্বত্থামা কৌরবদের পক্ষ অবলম্বন করেন। আর তার পিতা গুরু দ্রোণ তার ছেলে অশ্বত্থামার স্নেহের কারণে কৌরবদের পক্ষে থাকেন। এই কুরুক্ষেত্রে যুদ্ধে অশ্বত্থামার বিশেষ অবদান রয়েছে। তিনি পাণ্ডবদের বহু সেনা হত্যা করেন। তাকে বধ করা প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ে। কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে দ্রোণাচার্য অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠলে দ্রোণকে বধ করার জন্য পাণ্ডবগণ শ্রীকৃষ্ণের সাথে পরামর্শ করেন। আর তখন শ্রীকৃষ্ণ পাণ্ডবদের বলেন কোন ভাবে যদি গুরু দ্রোণের কানে অশ্বত্থামার মৃত্যুর খবর পোঁছানো যায় তাহলে সে সময় ধৃষ্টদ্যুম্ন তাঁকে হত্যা করবে। শ্রীকৃষ্ণের পরামর্শ‌ মতো ভীম পাণ্ডবপক্ষের ইন্দ্রবর্মার অশ্বত্থামা নামক হাতিকে হত্যা করেন। আর সেখানে তখন উপস্থিত ছিলেন যুধিষ্ঠির। আর একমাত্র গুরু দ্রোণ যুধিষ্ঠিরের কথাকে বিশ্বাস করবেন। তাই যুধিষ্ঠির দ্রোণের উদ্দেশ্যে 'অশ্বত্থামা হতঃ- ইতি গজ' (অশ্বত্থামানামক হাতী নিহত হয়েছে) বাক্য উচ্চারণ করেন। ইতি গজ শব্দটি আস্তে বলাতে দ্রোণাচার্য মনে করেন যে তার পুত্র অশ্বত্থামার মৃত্যু সংবাদ দেওয়া হয়েছে। এরপর দ্রোণাচার্য অস্ত্র ত্যাগ করলে ধৃষ্টদ্যুম্ন তাঁকে হত্যা করেন। আর তাতে অশ্বত্থামা ভীষন খেপে যায়। [৪]

শেষ জীবনে অশ্বত্থামা

সম্পাদনা

অর্জুন কর্তৃক কর্ণের মৃত্যুর পরে দুর্যোধন অশ্বত্থামাকে সেনাপতি নিয়োগ করেন। কুরুক্ষেত্র যুদ্ধে যখন দুর্যোধনসহ কৌরবদের সবাই মারা যায় তখন শেষ সময়ে এসে অশ্বত্থামা দুর্যোধনকে বলেন কি করলে দুর্যোধন মৃত্যু কালে খুশিতে মৃত্যু বরণ করতে পারবেন। আর তার উত্তরে দুর্যোধন বলেন তিনি পাণ্ডবদের বংশকে নিশ্চিহ্ন দেখতে চান। তার মিত্রের কথা রক্ষার জন্য অশ্বত্থামা সাথে সাথে পাণ্ডবদের শিবিরে গমন করেন। তার সাথে ছিলেন কৌরবপক্ষীয় জীবিত আর দুইজন, কৃপাচার্য ও কৃতবর্মা। রাত্রে অশ্বত্থামা দেখেন গাছের ডালে কাকের বাসাকে প্যাঁচা আক্রমণ করছে। তিনি ঘুমন্ত অবস্থায় পাণ্ডবদের হত্যার ষড়যন্ত্র করেন। কৃপ আর কৃত এই নীচ কাজে আপত্তি জানালেও অশ্বত্থামা শুনলেন না। আর কোন উপায় না থাকায় অবশেষে তারা অশ্বত্থামার সাথে পান্ডবদের শিবির আক্রমণ করতে রাজি হলেন এবং পরিকল্পনা অনুযায়ী তারা একসাথে শিবিরের দিকে যেতে শুরু কর্লেন। যখন অশ্বত্থামা সেখানে পৌঁছান তখন তিনি ভগবান শিব এর মুখোমুখি হন যিনি পাণ্ডবদের শিবিরের পাহারা দিচ্ছিলেন একটি ভয়ঙ্কর ভূতের রূপ গ্রহণ করে, তাকে চিনতে না পেরে অশ্বত্থামা নির্ভয়ে তার সমস্ত শক্তিশালী অস্ত্র দিয়ে সেই ভয়ঙ্কর ভূতটিকে আক্রমণ করতে শুরু করেছিলেন কিন্তু তার সামান্য ক্ষতিও করতে অক্ষম হন। এর পরে অশ্বত্থামা আগুনের গর্তে বসে ভগবান শিব এর ধ্যান করতে শুরু করেন এবং অবশেষে তাকে মুগ্ধ করে তুলেন যার পরে ভগবান শিব তার আসল রূপে অশ্বত্থামার সামনে উপস্থিত হন এবং তাকে একটি ঐশ্বরিক তলোয়ার প্রদান করেন এবং স্বয়ং অশ্বত্থামার দেহে প্রবেশ করে তাকে সম্পূর্ণরূপে অপ্রতিরোধ্য করে তোলেন।

এরপর অশ্বত্থামা শিবিরে প্রবেশ করেন, শিবিরে গিয়ে ধৃষ্টদ্যুম্নকে দেখা মাত্র তাকে হত্যা করেন‌ অশ্বত্থামা। তারপরে অশ্বত্থামা দ্রৌপদীর পাঁচ পুত্রকে, শিখণ্ডী ও অন্যান্য পাণ্ডব বীরদের হত্যা করেন। বেশিরভাগ যোদ্ধা এমনকি ফিরে লড়াই করেছিলেন তবে অশ্বত্থামা এগারো জন রুদ্রের একজন হিসাবে তাঁর সক্রিয় দক্ষতার কারণে ক্ষতিগ্রস্থ ছিলেন না। উল্লেখ্য, এই সময় পঞ্চপাণ্ডব, কৃষ্ণ গঙ্গাতীরে অবস্থান করছিলেন।‌ হৃদয় বিদারক খবরটি পেয়ে শিবিরে ফিরে আসার পর পুত্রশোকাহত দ্রৌপদীকে শান্ত করতে তাকে যেকোনো প্রকারে বধ করতে যান অর্জুন। তাদের দেখে অশ্বত্থামা শক্তিশালী ব্রহ্মশির অস্ত্র প্রয়োগ করলে অর্জুন বাধ্য হন ব্রহ্মশির দিয়ে ব্রহ্মশির প্রতিরোধ করতে। বেদ ব্যাসের মধ্যস্থতায় বিপর্যয় নিবৃত্ত হয় কিন্তু সেটা গিয়ে উত্তরার গর্ভে থাকা সন্তানের উপর পড়ে।

অশ্বত্থামার শাস্তি

সম্পাদনা

অশ্বত্থামার এই পাপকর্মের কারণে শ্রীকৃষ্ণ অশ্বত্থামাকে ৩০০০ বছর ধরে অভিশাপ দিয়েছিলেন যে, তুমি যেভাবে তোমার পাপকর্মের দ্বারা দ্রৌপদীর এবং উত্তরার প্রেমকে চিরকালের জন্য দুঃখিত করেছ, ঠিক একইভাবে তোমার এই অমূল্য রত্নটির ব্যত্যয় তুমিও ভোগ করবে। ক্ষত নিয়ে বেঁচে থাকবে,মৃত্যু চাইবে কিন্তু মরবে না। শারীরিক এবং মানসিক আঘাত সহ্য করে অন্যদের যে যন্ত্রণা দিয়েছেন তা অনুভব করতে সক্ষম হবেন এবং কখনও শান্তি পাবেন না, এর পরেই অশ্বত্থামা কুষ্ঠ রোগে আক্রান্ত হয়েছিল।[৫] পবিত্র স্কন্দ পুরাণ অনুসারে, পরে ঋষি বেদ ব্যাসের পরামর্শে, অশ্বত্থামা বহু বছর ধরে ভগবান শিবের কঠোর তপস্যা করেন এবং তাঁর ভক্তি দ্বারা প্রভাবিত হয়ে অবশেষে ভগবান শিব অশ্বত্থামাকে শ্রী কৃষ্ণের অভিশাপ থেকে মুক্তি দেন। এবং এটিও বলা হয় যে এই মুহুর্তটি ছিল যখন অশ্বত্থামা শিবের আশীর্বাদে অমর হয়েছিলেন।

সাহিত্য

সম্পাদনা

সপ্ত চিরঞ্জীবী স্তোত্রম হল একটি মন্ত্র যা হিন্দু সাহিত্যে বৈশিষ্ট্যযুক্ত :

अश्वत्थामा बलिर्व्यासो हनुमांश्च विभीषण:।
कृप: परशुरामश्च सप्तैतै चिरजीविन:॥
सप्तैतान् संस्मरेन्नित्यं मार्कण्डेयमथाष्टमम्।
जीवेद्वर्षशतं सोपि सर्वव्याधिविवर्जितः॥

aśvatthāmā balirvyāsō hanumāṁśca vibhīṣaṇaḥ |
kṛpaḥ paraśurāmaśca saptaitē cirañjīvinaḥ ||
saptaitān saṁsmarēnnityaṁ mārkaṇḍēyamathāṣṭamam |

jīvēdvarṣaśataṁ prājñaḥ apamṛtyuvivarjitaḥ ||

— Sapta Chiranjivi Stotram

মন্ত্রটি বলে যে আটজন অমর (অশ্বত্থামা, মহাবলী, ব্যাস, হনুমান, বিভীষণ, কৃপা, পরশুরাম এবং মার্কণ্ডেয়) স্মরণে একজনকে অসুস্থতা এবং স্বল্পায়ু থেকে মুক্তি দেয়।

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. "The Mahabharata, Book 5: Udyoga Parva: Uluka Dutagamana Parva: section CLXVIII"www.sacred-texts.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-২৪ 
  2. অশ্বত্থামা
  3. দ্রোণাচার্য্য-অশ্বত্থামা সংবাদ
  4. অশ্বত্থামা কর্ত্তৃক কর্ণকে ভর্ৎসনা
  5. যুদ্ধশেষ

বহিঃসংযোগ

সম্পাদনা

Original text online (সংস্কৃত ভাষায়)