১৯৮৮ সাল ছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতার ১৭তম বছর। এটি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সরকারের সপ্তম বছরও ছিল।

১৯৮৮
-এ
বাংলাদেশ
শতাব্দী:
দশক:
আরও দেখুন:১৯৮৮-এর অন্যান্য ঘটনা
বছরের তালিকা অনুযায়ী বাংলাদেশ

দায়িত্বপ্রাপ্ত

সম্পাদনা

জনসংখ্যা

সম্পাদনা
১৯৮৮সালে বাংলাদেশের জনসংখ্যার সূচক[১]
জনসংখ্যা, মোট ৯৮,১৮৬,৩৫০
জনসংখ্যার ঘনত্ব (প্রতি কিমি ) ৭৫৪.৩
জনসংখ্যা বৃদ্ধি (বার্ষিক %) ২.৬%
পুরুষ থেকে মহিলা অনুপাত (প্রতি ১,০০ জন মহিলা) ১০৬.৭
শহুরে জনসংখ্যা (মোট %) ১৮.৯%
জন্মহার, অপরিশোধিত (প্রতি ১,০০০ জনে) ৩৭
মৃত্যুর হার, অপরিশোধিত (প্রতি ১,০০০ জন) ১১.২
মৃত্যুর হার, ৫ বছরের কম (প্রতি ১,০০০ জীবিত জন্মে) ১৫৬
জন্মের সময় আয়ু, মোট (বছর) ৫৭
উর্বরতার হার, মোট (প্রতি মহিলার জন্ম) ৪.৯

জলবায়ু

সম্পাদনা
১৯৮৮-এ বাংলাদেশ-এর আবহাওয়া সংক্রান্ত তথ্য
মাস জানু ফেব্রু মার্চ এপ্রিল মে জুন জুলাই আগস্ট সেপ্টে অক্টো নভে ডিসে বছর
দৈনিক গড় °সে (°ফা) ১৯.৫
(৬৭.১)
২১.৭
(৭১.১)
২৫.১
(৭৭.২)
২৮.২
(৮২.৮)
২৮.
(৮২)
২৮.
(৮২)
২৮.১
(৮২.৬)
২৮.৩
(৮২.৯)
২৮.৭
(৮৩.৭)
২৭.৫
(৮১.৫)
২৪.৪
(৭৫.৯)
২১.১
(৭০.০)
২৫.৭
(৭৮.৩)
অধঃক্ষেপণের গড় মিমি (ইঞ্চি) ১.
(০.০)
৩০.৭
(১.২১)
৭১.২
(২.৮০)
২১১.
(৮.৩)
৪১৭.৬
(১৬.৪৪)
৫৩৫.৬
(২১.০৯)
৫৭৪.৯
(২২.৬৩)
৫২৩.৭
(২০.৬২)
৩০০.৭
(১১.৮৪)
১৬০.৫
(৬.৩২)
৯২.৪
(৩.৬৪)
১৬.৪
(০.৬৫)
২,৯৩৫.৯
(১১৫.৫৯)
উৎস: Climatic Research Unit (CRU) of University of East Anglia (UEA)[২]

আগস্টের শেষ দুই সপ্তাহে বাংলাদেশে ভারী বৃষ্টিপাত ও বন্যা হয়। সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহে পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়। প্রায় ২৫ মিলিয়ন মানুষ গৃহহীন হয়ে পড়ে এবং সরকারীভাবে মৃতের সংখ্যা ৫০০ ছাড়িয়েছে বলে জানানো হয়। প্রায় ৩০০০০ কিমি রাস্তা আংশিক ধ্বংস হয় এবং তিন দশমিক পাঁচ মিলিয়ন হেক্টর ফসলী ধান ধ্বংস বা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। সেপ্টেম্বরের শেষের দিকে পরিস্থিতির উন্নতি হতে শুরু করে, কিন্তু বন্যার কারণে মানুষ গৃহহীন হয়ে পড়েছিল। অস্ট্রেলিয়া, ডেনমার্ক, যুক্তরাজ্য, জাপান, আয়ারল্যান্ড, কানাডা, নরওয়ে, সুইডেন, বেলজিয়াম, ভারত, ইরাক, কুয়েত, নেদারল্যান্ডস, তুরস্ক, ফ্রান্স, পাকিস্তান, কাতার, কেএসএ এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পাশাপাশি ইউএনডিআরও, ডব্লিউএইচও সহ বিভিন্ন সংস্থা, ইউএনডিপি, ইইসি, কারিতাস, এসসিএফ-ইউএস, ওয়ার্ল্ড ভিশন, এলআরসিএস, সিসিডিবি, রেড ক্রস, ডব্লিউএফপি ত্রাণ কার্যক্রমে বাংলাদেশ সরকারের সাথে যোগ দিয়েছিলো।[৩]

ঘূর্ণিঝড়

সম্পাদনা

১৯৮৮ সালের বাংলাদেশ ঘূর্ণিঝড় ( যৌথ টাইফুন সতর্কীকরণ কেন্দ্র দ্বারা ক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড় 04B হিসাবে মনোনীত) ছিল বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে খারাপ গ্রীষ্মমণ্ডলীয় ঘূর্ণিঝড়গুলির মধ্যে একটি। ১৯৮৮ সালের নভেম্বরে আঘাত হানা গ্রীষ্মমণ্ডলীয় বিপর্যয় ক্ষয়ক্ষতিকে আরও বাড়িয়ে তোলে যা তখন বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যা হিসাবে বিবেচিত হয়েছিল। গ্রীষ্মমণ্ডলীয় ঘূর্ণিঝড়টি ২১ নভেম্বর মালাক্কা প্রণালীতে বিকশিত একটি নিম্নচাপ থেকে উদ্ভূত হয়েছিল। ধীরে ধীরে পশ্চিম দিকে যাত্রা করে, প্রাথমিক গ্রীষ্মমণ্ডলীয় নিম্নচাপটি আন্দামান সাগরে গ্রীষ্মমণ্ডলীয় ঝড়ের অবস্থানে পৌঁছেছিল। ২৬ নভেম্বর, ঝড়টি একটি বর্তমানকালের তীব্র ঘূর্ণিঝড়ের সমান তীব্রতায় পৌঁছে এবং পরবর্তীতে উত্তর দিকে মোড় নেয়। এটি পূর্বের মতো ধীরে ধীরে তীব্র হয়, গ্রীষ্মমণ্ডলীয় ঘূর্ণিঝড়টি ১২৫ mph (200 কিমি/ঘণ্টা) এর বাতাসের সাথে সর্বোচ্চ তীব্রতায় পৌঁছায়। এটি ২৯ নভেম্বর বাংলাদেশ- পশ্চিমবঙ্গ সীমান্তের কাছে ঘূর্ণিঝড়টি ভূমি স্পর্শ করে। যদিও ঝড়টি অভ্যন্তরীণভাবে শক্তিশালী বাতাস বজায় রেখেছিল, তবে এটি সর্বশেষ ৩০ নভেম্বর এ বাংলাদেশের উপর মধ্যম ঘূর্ণিঝড় এ পরিণত হয়।

অর্থনীতি

সম্পাদনা
১৯৮৮ সালে বাংলাদেশের জন্য প্রধান অর্থনৈতিক সূচক[১]
জাতীয় আয়
বর্তমান মার্কিন ডলার বর্তমান বিডিটি জিডিপির %
জিডিপি $২৬.৬ বিলিয়ন BDT৮২৯.৩বিলিয়ন
জিডিপি প্রবৃদ্ধি (বার্ষিক %) ২.৪%
মাথাপিছু জিডিপি $২৭০.৭ BDT৮,৪৪৬
কৃষি, মূল্য সংযোজন $৮.৩ বিলিয়ন BDT২৫৯.৭ বিলিয়ন ৩১.৩%
শিল্প, মূল্য সংযোজন $৫.৩ বিলিয়ন BDT১৬৫.৩ বিলিয়ন ১৯.৯%
সেবা, ইত্যাদি, মূল্য সংযোজন $১২.৩ বিলিয়ন BDT৩৮৪.৭ বিলিয়ন ৪৬.৪%
পরিশোধের হিসাব
বর্তমান মার্কিন ডলার বর্তমান বিডিটি জিডিপির %
বর্তমান অ্যাকাউন্ট ব্যালেন্স - $২৭২.৮ মিলিয়ন -১.০%
পণ্য ও সেবা আমদানি $৩৩৪৭.৫ মিলিয়ন BDT১০১.৬ বিলিয়ন ১২.২%
পণ্য ও সেবা রপ্তানি $১৫৬৮.৭ মিলিয়ন BDT৪৫.0 বিলিয়ন ৫.৪%
সরাসরি বিদেশী বিনিয়োগ, নেট প্রবাহ $১.৮ মিলিয়ন ০.০%
ব্যক্তিগত রেমিটেন্স, প্রাপ্ত $৭৬৩.৬ মিলিয়ন ২.৯%
বছরের শেষে মোট রিজার্ভ (স্বর্ণ সহ) $১০৭৬.৫ মিলিয়ন
আমদানির মাসগুলিতে মোট রিজার্ভ ৩.৭

দ্রষ্টব্য: ১৯৮৮ সালের জন্য গড় সরকারি বিনিময় হার ছিল BDT প্রতি US$ ৩১.৭৩।

  • ২৪ জানুয়ারী - চট্টগ্রামের রাজপথে আওয়ামী লীগের কর্মী সমাবেশে পুলিশের হামলা হয়। চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মির্জা রকিবুল হুদা পুলিশকে সমাবেশে গুলি চালানোর নির্দেশ দেন যাতে অন্তত ২৪ জন নিহত হয়।[৪]
  • ০৩ মার্চ - সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়, জাতীয় পার্টি ৬৮.৪৪% ভোট নিয়ে অপ্রতিরোধ্য সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়।
  • ০২ ডিসেম্বর - ২০ বছরের সবচেয়ে ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় বাংলাদেশে আঘাত হানে।[৫] ঘূর্ণিঝড় শেষ পর্যন্ত ০৫ মিলিয়ন মানুষ গৃহহীন হয়ে পড়ে এবং হাজার খানেক মানুষ মারা যায়।

পুরস্কার এবং স্বীকৃতি

সম্পাদনা

আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি

সম্পাদনা

স্বাধীনতা দিবস পুরস্কার

সম্পাদনা
প্রাপক এলাকা বিঃদ্রঃ
আমিনুল ইসলাম চারুকলা
মোঃ নুরুল আলম সামাজিক কাজ মরণোত্তর

একুশে পদক

সম্পাদনা
  1. বন্দে আলী মিয়া (সাহিত্য)
  2. আশরাফ সিদ্দিকী (সাহিত্য)
  3. ফজল শাহাবুদ্দিন (সাহিত্য)
  4. আনোয়ার হোসেন (নাটক)
  5. সুধীন দাস (সঙ্গীত)

খেলাধুলা

সম্পাদনা

আরো দেখুন

সম্পাদনা

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. "World Development Indicators"। The World Bank। সংগ্রহের তারিখ ৯ ডিসে ২০২১ 
  2. "Climate Change Knowledge Portal"। The World Bank Group। ২৭ মে ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ মে ২০১৮ 
  3. "Bangladesh – Floods Aug 1988 UNDRO Situation Reports 1–13"। UN Department of Humanitarian Affairs। সংগ্রহের তারিখ ৪ নভেম্বর ২০১৮ 
  4. চট্টগ্রাম গণহত্যা দিবস আজChannel 24। ২৪ জানুয়ারি ২০১৫। ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  5. "1988: Bangladesh cyclone 'worst for 20 years'"BBC News 
  6. "Awardees who worked in Bangladesh"। Ramon Magsaysay Award Foundation। ১ জুলাই ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ নভেম্বর ২০১৮ 
  7. "List of Champions"। Atsushi Fujioka for Rec.Sport.Soccer Statistics Foundation। সংগ্রহের তারিখ ১৬ অক্টোবর ২০১৮ 
  8. "Bangladesh – List of Cup Winners"। Ian King, Hans Schöggl and Erlan Manaschev for Rec.Sport.Soccer Statistics Foundation। সংগ্রহের তারিখ ৩০ অক্টোবর ২০১৮