শাহ আজিজুর রহমান

বাংলাদেশী রাজনীতিবিদ

শাহ আজিজুর রহমান (১৯২৫-১৯৮৮) বাংলাদেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী। মুক্তিযুদ্ধে তিনি পাকিস্তান সেনাবাহিনীকে সমর্থন করে বিতর্কিত ভূমিকা পালন করেন।

শাহ আজিজুর রহমান
শাহ আজিজুর রহমান.jpg
বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
১৫ এপ্রিল, ১৯৭৯ – ২৪ মার্চ, ১৯৮২
রাষ্ট্রপতিজিয়াউর রহমান
পূর্বসূরীমশিউর রহমান (ভারপ্রাপ্ত)
উত্তরসূরীআতাউর রহমান খান
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম১৯২৫
কুষ্টিয়া, বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি, ব্রিটিশ ভারত (বর্তমানে বাংলাদেশ)
মৃত্যু১৯৮৮ (বয়স ৬২–৬৩)
রাজনৈতিক দলবিএনপি

জন্মসম্পাদনা

শাহ আজিজুর রহমান কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর উপজেলায় জন্মগ্রহণ করেন।

বাংলাদেশ পূর্ববর্তী রাজনৈতিক অবস্থানসম্পাদনা

ছাত্র নেতা হিসেবে তিনি ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনে মুসলিম লীগের আন্দোলনে অংশ নেন। পূর্ব পাকিস্তানের (বর্তমান বাংলাদেশ) স্বায়ত্বশাসনের ব্যাপারে তিনি শেখ মুজিবুর রহমানের বিরোধিতা করেন।

মুক্তিযুদ্ধ কালীন ভূমিকাসম্পাদনা

মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে শাহ আজিজুর রহমান পাকিস্তান সরকারকে সমর্থন দেন এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের বিরোধিতা করে নুরুল আমিন, গোলাম আজম, মতিউর রহমান নিজামীর পক্ষ নেন। নভেম্বর ১৯৭১ সালে তিনি জাতিসংঘে পাকিস্তান কুটনৈতিক দলের নেতৃত্ব দেন এবং বাংলাদেশে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর গনহত্যার কথা অস্বীকার করেন। তিনি অন্যান্য মুসলিম দেশকে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি না দিতে আহবান জানান।[১]

স্বাধীনতার পর অবস্থানসম্পাদনা

১৯৭৩ সালে দালাল আইনে শাহ আজিজুর রহমান গ্রেফতার হন। ঐ বছরই শেখ মুজিবুর রহমান ‘সাধারণ ক্ষমা’ ঘোষণা করলে তাকে মুক্তি দেওয়া হয়।[২][৩] শাহ আজিজুর রহমান শেখ মুজিব হত্যার পর খন্দকার মোশতাক আহমেদের প্ররোচনায় ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ সমর্থন করেন। বিএনপি গঠনের পূর্বে ১৯৭৮ সালে জাতীয়তাবাদী ফ্রন্ট নামক একটি দল গঠিত হয়। এই দলে তৎকালীন মুসলিম লীগের একটি অংশ নিয়ে শাহ আজিজুর রহমান যোগদান করেন। এই জাতীয়তাবাদী ফ্রন্টের প্রার্থী হিসেবে জিয়াউর রহমান ৩ জুন , ১৯৭৮ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অংশ নিয়ে জয়লাভ করেন। পরে জাতীয়টাবাদী ফ্রন্ট এবং আরো কয়েকটি রাজনৈতিক সংগঠন মিলে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল গঠিত হলে তিনি এই দলে বেশ প্রভাবশালী নেতায় পরিণত হন। ১৯৭৯ সালে জিয়াউর রহমান প্রেসিডেন্ট থাকাকালীন তাকে দেশের প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ করা হয়। শাহ আজিজুর রহমান ছিলেন বাংলাদেশে বিএনপি সরকারের প্রথম প্রধানমন্ত্রী। জিয়ার মৃত্যুর পর বিচারপতি আবদুস সাত্তার প্রেসিডেন্ট হলে শাহ আজিজুর রহমান প্রধানমন্ত্রীর পদে অসীন থাকেন। ১৯৮২ সালে হুসাইন মুহাম্মদ এরশাদ ক্ষমতা গ্রহণ করে শাহ আজিজুর রহমানকে পদচ্যূত করেন।[৪]

মৃত্যুসম্পাদনা

শাহ আজিজুর রহমান ১৯৮৮ সালে মৃত্যু বরণ করেন।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "নিউ এজ পত্রিকায় প্রকাশিত নিবন্ধ"। ৩০ সেপ্টেম্বর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ নভেম্বর ২০০৬ 
  2. "প্রথম আলো ২৬ শে মার্চ,২০০৮-সবুর-শাহ আজিজদের মুক্ত করেছিলেন বঙ্গবন্ধু"। ২০১৩-০৪-২১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৪-২১ 
  3. নুরুল, মোমিন (১৯৮০)। Bangladesh, the First Four Years: From 16 December 1971 to 15 December 1975 [বাংলাদেশ, প্রথম চার বছর: ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ থেকে ১৫ ডিসেম্বর ১৯৭৫ পর্যন্ত] (ইংরেজি ভাষায়)। বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অফ ল অ্যান্ড ইন্টারন্যাশনাল এফেয়ার্স। ওসিএলসি 499570532 
  4. "বাংলাদেশ অবজারভার পত্রিকায় প্রকাশিত নিবন্ধ"। ১১ অক্টোবর ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ নভেম্বর ২০০৬ 
পূর্বসূরী:
মশিউর রহমান
বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী
এপ্রিল ১৫, ১৯৭৯ - মার্চ ২৪, ১৯৮২
উত্তরসূরী:
আতাউর রহমান খান