মদিনা

ইসলামের দ্বিতীয় পবিত্র শহর

মদিনা (আরবি: المدينة, সরকারী ভাবে: المدينة المنورة আল-মদিনা আল-মুনাওয়ারাহ‎‎) অথবা মদিনাহ হিসেবেও একে আনুবাদ করা হয়ে থাকে। পশ্চিমী সৌদি আরবের হেজাজ অঞ্চলের একটি শহর এবং আল মদিনাহ প্রদেশের রাজধানী। এইটি ইসলামের দ্বিতীয় পবিত্র শহর যেখানে মুসলমানদের শেষ নবী ও রাসুল হজরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর পবিত্র রওযা মোবারক। এইটি ঐতিহাসিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ কারণ হজরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হিজরতের পরে মদিনায় বসবাস করেছেন। নানান ঐতিহাসিক কারণে মদিনা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষ করে মুসলমানদের কাছে অত্যন্ত শ্রদ্ধেয় ও পবিত্র এই নগরীটি।

মদিনা
المدينة
The Prophet's City
مدينة النبي
The Prophetic City
المدينة النبوية
The Kind
طيبة
The Kindest of Kind
طيبة الطيبة
শহর
আল মাদিনা আল মানোওয়ারা
المدينة المنورة
Inside Masjid.e.Nabavi - panoramio.jpg
HAC 2010 MEDINE MESCIDI NEBEVI - panoramio.jpg
Jannat.ul.Baqi - Madina - panoramio.jpg
Mount Uhud.JPG
ঘড়িরকাটা দিকে উপরের বামে:
মসজিদে নববী ভিতর, মসজিদে নববী, মদীনার আকাশ, কুবা মসজিদ, উহুদ পর্বত
মদিনা সৌদি আরব-এ অবস্থিত
মদিনা
মদিনা
মদিনা এশিয়া-এ অবস্থিত
মদিনা
মদিনা
Location of Medina
স্থানাঙ্ক: ২৪°২৮′ উত্তর ৩৯°৩৬′ পূর্ব / ২৪.৪৬৭° উত্তর ৩৯.৬০০° পূর্ব / 24.467; 39.600
রাষ্ট্র সৌদি আরব
প্রদেশমদিনা অঞ্চল
প্রথমে বসতি স্থাপন9th century BC
হিজরত৬২২ এডি (১ এএইচ)
Saudi conquest of Hejaz৫ ডিসেম্বর ১৯২৫
নামকরণের কারণমুহাম্মাদ
Districts
  • Urban
    • Al Haram
    • Quba'a
    • Uhud
    • Al 'Awali
    • Al 'Uqaiq
    • Al 'Uyoon
    • Al Baidaa'
  • Suburban
    • Al 'Aqul
    • Al Mulayleeh
    • Al Mandasah
    • Abyar Al Mashi
    • Al Fareesh
সরকার
 • ধরনপৌরসভা
 • শাসকMadinah Regional Municipality
 • নগরপ্রধানFahad Al-Belaihshi[১]
 • প্রাদেশিক গভর্নররাজপুত্র ফয়সাল বিন সালমান আল সৌদ
আয়তন
 • শহর৫৮৯ বর্গকিমি (২২৭ বর্গমাইল)
 • পৌর এলাকা২৯৩ বর্গকিমি (১১৭ বর্গমাইল)
 • গ্রামীণ২৯৬ বর্গকিমি (১১৪ বর্গমাইল)
উচ্চতা৬২০ মিটার (২,০৩০ ফুট)
সর্বোচ্চ উচ্চতা (উহুদ পর্বত)১,০৭৭ মিটার (৩,৫৩৩ ফুট)
জনসংখ্যা (২০১০)
 • শহর১১,৮৩,২০৫
 • ক্রম4th
 • জনঘনত্ব২,০০৯/বর্গকিমি (৫,২১২/বর্গমাইল)
 • পৌর এলাকা৭,৮৫,২০৪
 • পৌর এলাকার জনঘনত্ব২,৬৮০/বর্গকিমি (৬,৯৪৯/বর্গমাইল)
 • গ্রামীণ৩,৯৮,০০১
বিশেষণMadani
مدني
সময় অঞ্চলArabia Standard Time (ইউটিসি+৩)
ওয়েবসাইটamana-md.gov.sa

ইসলামের প্রাচীনতম ও ঐতিহাসিক তিনটি মসজিদ যেমন মসজিদে নববী, কুবা মসজিদ (যেটি ইসলামের ইতিহাসে প্রথম মসজিদ ) এবং মসজিদ আল কিবলাতাইন (যে মসজিদে মুসলমানদের কিবলা পরিবর্তন হয়েছিল) অবস্থিত। হজরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ৬২২ খ্রিষ্টাব্দে তার সাহাবী আবু বকর রাদিআল্লাহু তাআ'লা আনহুকে নিয়ে পবিত্র মক্কা হতে মদিনার উদ্দেশ্যে হিজরত করেন। উমর রাদিআল্লাহু তাআ'লা আনহু এর খিলাফতকালে সে স্মৃতির উপর ভিত্তি করে ইসলামি বর্ষপঞ্জি প্রতিষ্ঠিত হয় যা হিজরী সাল নামে পরিচিতি লাভ করে। হজরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মদিনায় হিজরতের পরে যে পবিত্র কুরআনের বাণী নাযিল হয়েছিল তাকে মাদানী সূরা বলা হয়।

হেজাজের মতো, মদিনা তার তুলনামূলকভাবে সংক্ষিপ্ত অস্তিত্বের মধ্যে অনেকগুলো ক্ষমতার অধীনে ছিল। অঞ্চলটি ইহুদি-আরবীয় উপজাতিদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়েছে (৫ম খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত), আউসখাযরাজ (মুহাম্মদের আগমন পর্যন্ত), মুহাম্মাদ এবং রাশিদুন (৬২২-৬৬০ খ্রিস্টাব্দ), উমাইয়া (৬৬০-৭৪৯ খ্রিষ্টাব্দ), আব্বাসীয় (৭৪৯-১২৫৪ খ্রিস্টাব্দ), মিশরের মামলুক (১২৫৪-১৫১৭ খ্রিস্টাব্দ), উসমানীয় (১৫১৭–১৮০৫ খ্রিস্টাব্দ), প্রথম সৌদি রাষ্ট্র (১৮০৫-১৮১১ খ্রিস্টাব্দ), মুহাম্মদ আলি পাশা (১৮১১–১৮৪০ খ্রিস্টাব্দ), দ্বিতীয়বারের জন্য উসমানীয়রা (১৮৪০-১৯১৮), হাশিমদের অধীনে মক্কা শরিফাত (১৯১৮-১৯২৫ খ্রিস্টাব্দ) এবং অবশেষে বর্তমান সৌদি আরব সাম্রাজ্যের হাতে (১৯২৫-বর্তমান খ্রিস্টাব্দ)।[২]

জিয়ারতের জন্য পরিদর্শন করার পাশাপাশি, পর্যটকরা শহরের অন্যান্য বিশিষ্ট মসজিদ এবং ঐতিহাসিক নিদর্শন পরিদর্শন করতে আসে যেগুলো ধর্মীয় গুরুত্ব বহন করে যেমন উহুদ পর্বত, জান্নাতুল বাকি কবরস্থান এবং অন্যান্যদের মধ্যে সাত মসজিদ অন্যতম। সম্প্রতি, সৌদির হেজাজ বিজয়ের পর, সৌদিরা সুন্নি ইসলামের মধ্যে তাদের ওয়াহাবি বিশ্বাসের কারণে এই অঞ্চলে এবং এর আশেপাশে বেশ কয়েকটি সমাধি ও গম্বুজ ধ্বংস করে।[৩]

ইতিহাসসম্পাদনা

মদিনায় রয়েছে বেশ কয়েকটি উল্লেখযোগ্য অবকাঠামো ও স্থান, যার বেশিরভাগই মসজিদ ও ঐতিহাসিক তাৎপর্য ধারণ করে। এর মধ্যে রয়েছে উল্লিখিত তিনটি মসজিদ, মসজিদ আল-ফাত (মসজিদ আল-খন্দক নামেও পরিচিত), সাতটি মসজিদ, জান্নাতুল বাকি - যেখানে অনেক সাহাবা ও বিখ্যাত ইসলামিক ব্যক্তিত্বের কবর রয়েছে বলে ধারণা করা হয়; নবীর মসজিদের সরাসরি দক্ষিণ-পূর্বে উহুদ পর্বত, উহুদের যুদ্ধের স্থান এবং পবিত্র কোরআন মুদ্রণের জন্য বাদশাহ ফাহদ কমপ্লেক্স, যেখানে বেশিরভাগ আধুনিক কুরআনের মুসাহাফ মুদ্রিত হয়।

নামকরণসম্পাদনা

ইয়াসরিবসম্পাদনা

ইসলামের আবির্ভাবের আগে শহরটি ইয়াসরিব নামে পরিচিত ছিল (উচ্চারণ [ˈjaθrɪb]; يَثْرِب), ধারণা করা হয় একজন আমালেকীয় রাজা ইয়াসরিব মাহলাইলের নামে নামকরণ করা হয়েছে।[৪][৫] ইয়াসরিব শব্দটি হারানে পাওয়া একটি শিলালিপিতে পাওয়া যায়, যা ব্যাবিলনীয় রাজা নাবোনিডাসের (৬ষ্ঠ শতাব্দী খ্রিস্টপূর্বাব্দ) [৬] অন্তর্গত এবং পরবর্তী শতাব্দীতে বেশ কয়েকটি গ্রন্থে এটি ভালভাবে দাবি করা হয়েছে।[৭] আল-কুরআন এর সূরা আহযাব এর একটি আয়াতে ইয়সরিব শব্দটির উল্লেখ রয়েছে। [কুরআন ৩৩:১৩] এবং খন্দকের যুদ্ধ পর্যন্ত শহরের এই নাম ছিল বলে জানা যায়। ইসলামী ঐতিহ্য অনুসারে, হযরত মুহাম্মদ (স:) পরে এই নামে শহরটিকে ডাকতে নিষেধ করেছিলেন।[৮] রাসুলে করিম (সা.)–এর হিজরতের পর এই ইয়াসরিবের নাম পরিবর্তন করে ‘মদিনাতুন নবী’ বা ‘নবীর শহর’ এ নতুন নামকরণ করা হয়। সংক্ষেপে বলা হয় মদিনা। আরবিতে বলা হয় ‘মদিনা মুনাওয়ারা’ তথা ‘আলোক শহর’ বা আলোকিত নগরী।[৯]

প্রাথমিক ইতিহাস এবং ইহুদি নিয়ন্ত্রণসম্পাদনা

মুহাম্মদের হিজরতের অন্তত ১৫০০ বছর আগে বা আনুমানিক ৯ম শতাব্দীর খ্রিস্টপূর্বাব্দ থেকে মদিনাতে মানুষ বসবাস করে।[১০] খ্রিস্টীয় চতুর্থ শতাব্দীর মধ্যে, আরব উপজাতিরা ইয়েমেন থেকে প্রবেশ করা শুরু করে এবং মুহাম্মদের সময় শহরটিতে তিনটি বিশিষ্ট ইহুদি উপজাতি বাস করত: বনু কাইনুকা, বনু কুরাইজা এবং বনু নাদির[১১] ইবনে খোরদাদবেহ পরে জানিয়েছিলেন যে হেজাজে পারস্য সাম্রাজ্যের আধিপত্যের সময়, বনু কুরাইজা পারস্য শাহের কর আদায়কারী হিসাবে কাজ করেছিল।[১২]

বনু আউস এবং বনু খাযরাজ নামে দুটি নতুন আরব গোত্রের আগমনের পর পরিস্থিতি পাল্টে যায়। প্রথমে, এই উপজাতিগুলো এই অঞ্চলে শাসনকারী ইহুদি উপজাতিদের সাথে জোটবদ্ধ ছিল, কিন্তু পরে বিদ্রোহ করে এবং স্বাধীন হয়েছিল।[১৩]

 
১৭ শতকের খ্রিস্টাব্দ ব্রোঞ্জের টোকেন যা নবীর মসজিদকে চিত্রিত করে, নীচের শিলালিপিতে লেখা আছে 'মদিনা শরীফ'

মুহাম্মদ ও রাশিদুনের অধীনেসম্পাদনা

৬২২ খ্রিস্টাব্দে (১ হিজরি), মুহাম্মদ এবং আনুমানিক ৭০ জন মক্কার মুহাজিরুন ইয়াসরিবে গমনের জন্য মক্কা ত্যাগ করেন, এই ঘটনা শহরের ধর্মীয় ও রাজনৈতিক দৃশ্যপটকে সম্পূর্ণরূপে রূপান্তরিত করেছিল; আউস ও খাযরাজ গোত্রের মধ্যে দীর্ঘদিনের শত্রুতা ম্লান হয়ে যায় কারণ দুটি আরব গোত্রের এবং কিছু স্থানীয় ইহুদি নতুন ধর্ম ইসলাম গ্রহণ করে। মুহাম্মদ তার প্রপিতামহের মাধ্যমে খাজরাজ গোত্রের সাথে সম্পর্কিত ছিলেন এবং শহরের নেতা হিসাবে সম্মানিত হন। ইয়াসরিবের স্থানীয় অধিবাসীরা যারা যেকোন পটভূমিতে ইসলাম গ্রহণ করেছিল- পৌত্তলিক আরব বা ইহুদি- তাদেরকে আনসার ("পৃষ্ঠপোষক" বা "সহায়ক") বলা হত, যেখানে মুসলিমরা যাকাত কর দিতেন।

ইবনে ইসহাকের মতে, এলাকার সকল গোত্র মদিনার সনদে সম্মত হয়েছিল, যা মুহাম্মদের নেতৃত্বে সকল দলকে পারস্পরিক সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। ইবনে ইসহাক কর্তৃক লিপিবদ্ধ এবং ইবনে হিশাম কর্তৃক সংকলিত এই নথির প্রকৃতি নিয়ে আধুনিক পশ্চিমা ঐতিহাসিকদের মধ্যে বিতর্ক রয়েছে, যাদের মধ্যে অনেকেই মনে করেন যে এই "চুক্তি" সম্ভবত লিখিত নয় বরং বিভিন্ন তারিখের মৌখিক বিভিন্ন চুক্তির একটি মিশ্রণ এবং এগুলো কখন চুক্তি হয়েছিল তা স্পষ্ট নয়। অন্যান্য পণ্ডিতরা, যারা পশ্চিমা এবং মুসলিম, উভয়ই যুক্তি দেন যে চুক্তির পাঠ্য - একটি একক দলিল মূল বা একাধিক - যেটিই হোক না কেন, এটি সম্ভবত আমাদের কাছে থাকা প্রাচীনতম ইসলামী পাঠ্যগুলোর মধ্যে একটি।[১৪] ইয়েমেনি ইহুদি সূত্রে, মুহাম্মদ এবং তার ইহুদি প্রজাদের মধ্যে আরেকটি চুক্তির খসড়া তৈরি করা হয়েছিল, যা কিতাব দিম্মাত আল-নবী নামে পরিচিত, এটি হিজরির ৩য় বছরে (৬২৫ খ্রিস্টাব্দে) রচিত হয়েছিল এবং যা আরবে বসবাসকারী ইহুদিদের স্বাধীনতা দিয়েছিল সাবাথ করার এবং তাদের ঝুলপি লম্বা করার। বিনিময়ে, তাদের পৃষ্ঠপোষকদের দ্বারা সুরক্ষার জন্য তাদের প্রতি বছর জিজিয়া প্রদান করতে হয়েছিল।[১৫][২]

উহুদের যুদ্ধসম্পাদনা

 
উহুদ পর্বত, পুরানো শহীদদের দলনেতার মসজিদ (جامع سيد الشهداء) সহ, যা মুহাম্মদের চাচা হামযা ইবনে আবদুল মুত্তালিবের নামে নামকরণ করা হয়েছে। ২০১২ সালে মসজিদটি ভেঙে ফেলা হয় এবং এর জায়গায় একই নামের একটি নতুন, বড় মসজিদ তৈরি করা হয়।[১৬]

৬২৫ খ্রিস্টাব্দে (৩ হিজরি), আবু সুফিয়ান ইবনে হার্ব, মক্কার একজন প্রবীণ সর্দার যিনি পরে ইসলাম গ্রহণ করেছিলেন, মদিনার বিরুদ্ধে একটি মক্কা বাহিনীর নেতৃত্ব দেন। মুহাম্মদ আনুমানিক ১,০০০ সৈন্য নিয়ে কুরাইশ সেনাবাহিনীর সাথে যুদ্ধ করার জন্য যাত্রা করেছিলেন, কিন্তু সেনাবাহিনী যুদ্ধক্ষেত্রের কাছে আসার সাথে সাথে, আবদুল্লাহ ইবনে উবাই তার ৩০০ অনুসারী নিয়ে দলত্যাগ করে, যা মুসলিম সেনাবাহিনীর মনোবলের উপর মারাত্মক আঘাত করেছিল। এর ফলে মুহাম্মদ তার ৭০০ সৈন্য নিয়ে মুসলিমরা উহুদের দিকে অগ্রসর হতে থাকেন। তিনি আবদুল্লাহ ইবনে যুবায়ের ইবনে নুমানের নেতৃত্বে ৫০জন দক্ষ তীরন্দাজের একটি দলকে কানাত উপত্যকার দক্ষিণে মুসলিম শিবিরের পূর্বদক্ষিণে ১৫০ মিটার দূরে একটি ছোট পাহাড়ে উঠতে নির্দেশ দেন, যাকে এখন জাবালে রুমাত (তিরন্দাজদের পাহাড়) বলা হয়। তারা মক্কার অশ্বারোহী বাহিনীকে নজরদারি করার জন্য এবং পিছনের দিকের মুসলিম বাহিনীর সুরক্ষা দেওয়ার জন্য ছিল। মূল লড়াই শুরু হওয়ার পরে মক্কাবাসীরা পিছু হটতে বাধ্য হয়। যুদ্ধক্ষেত্রে মুসলিমরা সুবিধাজনক অবস্থান লাভ করে এবং বিজয়ের নিকটে পৌছে যায়। এসময় মুসলিম তীরন্দাজদের একটি বড় অংশ নির্দেশ অমান্য করে পাহাড় থেকে নেমে আসে এবং পশ্চাদপসরণকারী মক্কাবাসীদের ধাওয়া করতে থাকে। ফলে বাম পার্শ্বের প্রতিরক্ষা দুর্বল হয়ে পড়ে। তীরন্দাজদের একটি ছোট দল অবশ্য পাহাড়ের উপরে অবস্থান করে যুদ্ধ করে যেতে থাকে।

এই পরিস্থিতিতে খালিদ বিন ওয়ালিদের নেতৃত্বাধীন মক্কার অশ্বারোহীরা সুযোগ কাজে লাগায়। তারা মুসলিম বাহিনীর পার্শ্বভাগ ও পেছনের ভাগে আক্রমণ করতে সক্ষম হয়। এই বিশৃঙ্খল অবস্থায় অনেক মুসলিম মারা যায়। মক্কার সেনারা পর্বতের দিকে অগ্রসর হয় কিন্তু বেশি এগোতে সক্ষম হয়নি। ফলে লড়াই থেমে যায়। মক্কার বাহিনী মক্কাভিমুখী যাত্রা করে। যুদ্ধে মাদানীগণ (মদিনাবাসী) ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হয় এবং মুহাম্মাদ (স) আহত হন।[১৭]

আধুনিক ইতিহাসসম্পাদনা

সৌদি আরব অধীনেসম্পাদনা

সৌদি আরব শহরটির সম্প্রসারণ এবং আল-বাকি সমাধির মতো ইসলামিক নীতিইসলামিক আইন লঙ্ঘনকারী প্রাক্তন স্থানগুলো ধ্বংস করার উপর বেশি মনোযোগ দেয়। বর্তমানে, শহরটির বেশিরভাগই শুধুমাত্র ধর্মীয় তাৎপর্য ধারণ করে। মক্কার মতো ধর্মীয় আরও উল্লেখযোগ্য ঐতিহাসিক স্থানের জন্য মসজিদে নববীর আশেপাশে বেশ কয়েকটি হোটেল তৈরি হয়েছে। মসজিদ আল-হারামের জন্য একটি ভূগর্ভস্থ পার্কিং তৈরি করা হয়েছে। পুরানো শহরের দেয়াল ধ্বংস করা হয়েছে এবং তিনটি রিং রোড দিয়ে প্রতিস্থাপিত হয়েছে যা আজ মদিনাকে ঘিরে রেখেছে, দৈর্ঘ্য অনুসারে নামকরণ করা হয়েছে, কিং ফয়সাল রোড, কিং আবদুল্লাহ রোড এবং কিং খালিদ রোড। মক্কার চারটি রিং রোডের তুলনায় মদিনার রিং রোডগুলোতে সাধারণভাবে কম যানবাহন দেখা যায়।

প্রিন্স মোহাম্মদ বিন আব্দুল আজিজ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নামে একটি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, এখন শহরটিকে পরিষেবা দিচ্ছে এবং এটি হাইওয়ে ৩৪০-এ অবস্থিত, যা স্থানীয়ভাবে ওল্ড কাসিম রোড নামে পরিচিত। শহরটি এখন সৌদি আরবের দুটি প্রধান মহাসড়কের সংযোগস্থলে অবস্থিত, হাইওয়ে ৬০, যা কাসিম-মদিনা হাইওয়ে নামে পরিচিত, এবং হাইওয়ে ১৫ যা শহরটিকে দক্ষিণে মক্কা এবং উত্তরে তাবুককে সংযুক্ত করে আল হিজরা হাইওয়ে বা আল হিজরা রোড, যা মুহাম্মদের যাত্রার পরে নামাঙ্কিত।

 
আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন থেকে মদিনা, ২০১৭। মনে রাখবেন যে উত্তর ডানদিকে।

এই অঞ্চল থেকে তাদের চলে যাওয়ার পরে পুরানো উসমানীয় রেলওয়ে ব্যবস্থা বন্ধ হয়ে যায় এবং পুরানো রেলওয়ে স্টেশনটি এখন একটি জাদুঘরে রূপান্তরিত হয়েছে। সম্প্রতি মদিনা এবং মক্কার মধ্যে আরেকটি সংযোগ এবং পরিবহনের ব্যবস্থা হয়েছে, হারামাইন হাই-স্পিড রেললাইন দুটি শহরকে রাবিগের কাছে বাদশাহ আবদুল্লাহ ইকোনমিক সিটি, বাদশাহ আব্দুলআজিজ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এবং জেদ্দা শহরের মধ্যে ৩ ঘন্টা কমে সংযোগ করে।

যদিও পুরানো শহরের পবিত্র কেন্দ্রটিতে অমুসলিমদের যাওয়া নিষিদ্ধ, মদিনার হারাম এলাকাটি মক্কার তুলনায় অনেক ছোট এবং মদিনায় সম্প্রতি অন্যান্য দেশের মুসলিম ও অমুসলিম প্রবাসী কর্মী সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে, যাদের জাতীয়তা সাধারণত দক্ষিণ এশিয়ার মানুষ এবং উপসাগর সহযোগী সংস্থার অন্যান্য দেশের মানুষ। সৌদি যুগে ঐতিহাসিক শহরটির প্রায় পুরোটাই গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। পুনর্নির্মিত শহরটি মসজিদে নববীকে কেন্দ্র করে ব্যাপকভাবে সম্প্রসারিত হয়েছে।

ঐতিহ্য ধ্বংসসম্পাদনা

ঐতিহাসিক বা তাৎপর্যপূর্ণ ধর্মীয় স্থানের প্রতি শ্রদ্ধার প্রতি সৌদি আরব বিরুদ্ধমত পোষণ করে, এই ভয়ে যে এটি শির্‌কের (মূর্তিপূজা) জন্ম দিতে পারে। ফলস্বরূপ, সৌদি শাসনের অধীনে, মদিনা তার ভৌত ঐতিহ্যের যথেষ্ট ধ্বংসের সম্মুখীন হয়েছে যার মধ্যে হাজার বছরেরও বেশি পুরনো বহু ভবনের ক্ষতি হয়েছে।[৩] সমালোচকরা এটিকে "সৌদি ধ্বংসাত্মক" হিসাবে বর্ণনা করেছেন এবং দাবি করেছেন যে গত ৫০ বছরে মদিনা এবং মক্কায় মুহাম্মদ, তার পরিবার বা সঙ্গীদের সাথে যুক্ত ৩০০টি ঐতিহাসিক স্থান হারিয়ে গেছে।[১৮] এর সবচেয়ে বিখ্যাত উদাহরণ হল জান্নাতুল বাকি ধ্বংসযজ্ঞ

 
পবিত্র নিদর্শন পরিবহন করতে ফখরুদ্দিন পাশা যে ট্রেনটি মদিনা থেকে ইস্তাম্বুলে ব্যবহার করেছিলেন।

ভূগোলসম্পাদনা

 
উহুদ পর্বত রাতে। পর্বতটি বর্তমানে মদিনার সর্বোচ্চ শৃঙ্গ এবং ১,০৭৭ মিটার (৩,৫৩৩ ফুট) উচ্চতায় দাঁড়িয়ে আছে।

মদিনা হেজাজ অঞ্চলে অবস্থিত যা নুফূদ মরুভূমি এবং লোহিত সাগরের মধ্যে একটি ২০০ কিমি (১২৪ মাইল) প্রশস্ত স্ট্রিপ।[২] সৌদি মরুভূমির কেন্দ্রে অবস্থিত রিয়াদ থেকে প্রায় ৭২০ কিমি (৪৪৭ মাইল) উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিত, শহরটি সৌদি আরবের পশ্চিম উপকূল থেকে ২৫০ কিমি (১৫৫ মাইল) দূরে এবং সমুদ্রতল থেকে প্রায় ৬২০ মি (২,০৩০ ফু) উচ্চতায় অবস্থিত। এটি ৩৯º৩৬' দ্রাঘিমাংশ পূর্ব এবং ২৪º২৮' অক্ষাংশ উত্তরে অবস্থিত। এটি প্রায় ৫৮৯ কিমি (২২৭ মা) এলাকা জুড়ে রয়েছে। শহরটিকে বারোটি জেলায় ভাগ করা হয়েছে, যার মধ্যে ৭টি শহুরে জেলা হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়েছে, অন্য ৫টি শহরতলির শ্রেণীবদ্ধ করা হয়েছে।

উচ্চতাসম্পাদনা

হেজাজ অঞ্চলের বেশিরভাগ শহরের মতো মদিনাও অনেক উঁচুতে অবস্থিত। মক্কার থেকে প্রায় তিনগুণ উচ্চতায়, শহরটি সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৬২০ মি (২,০৩০ ফু)-এ অবস্থিত। উহুদ পর্বত মদিনার সর্বোচ্চ শৃঙ্গ এবং ১,০৭৭ মিটার (৩,৫৩৩ ফুট) লম্বা।

আবহাওয়াসম্পাদনা

কোপেন জলবায়ু শ্রেণীবিভাগের অধীনে, মদিনা একটি উষ্ণ মরুভূমি জলবায়ু অঞ্চলে (বিডব্লিউএইচ) পড়ে। গ্রীষ্মকাল অত্যন্ত গরম এবং শুষ্ক এবং দিনের তাপমাত্রা প্রায় ৪৩ °সে (১০৯ °ফা) এবং রাতের প্রায় ২৯ °সে (৮৪ °ফা)। জুন এবং সেপ্টেম্বরের মধ্যে ৪৫ °সে (১১৩ °ফা) এর উপরে তাপমাত্রা অস্বাভাবিক নয়। শীতকাল হালকা হয়, রাতে তাপমাত্রা ১২ °সে (৫৪ °ফা) থেকে দিনে ২৫ °সে (৭৭ °ফা) পর্যন্ত । এখানে খুব কম বৃষ্টিপাত হয়ে থাকে, যা প্রায় সম্পূর্ণভাবে নভেম্বর থেকে মে মাসের মধ্যে হয়। গ্রীষ্মকালে বাতাস উত্তর-পশ্চিম দিকে এবং যখন বসন্ত এবং শীতকাল তখন দক্ষিণ-পশ্চিম থেকে প্রবাহিত হয়।

মদিনা (১৯৮৫-২০১০)-এর আবহাওয়া সংক্রান্ত তথ্য
মাস জানু ফেব্রু মার্চ এপ্রিল মে জুন জুলাই আগস্ট সেপ্টে অক্টো নভে ডিসে বছর
সর্বোচ্চ রেকর্ড °সে (°ফা) ৩৩.২
(৯১.৮)
৩৬.৬
(৯৭.৯)
৪০.০
(১০৪.০)
৪৩.০
(১০৯.৪)
৪৬.০
(১১৪.৮)
৪৭.০
(১১৬.৬)
৪৯.০
(১২০.২)
৪৮.৪
(১১৯.১)
৪৬.৪
(১১৫.৫)
৪২.৮
(১০৯.০)
৩৬.৮
(৯৮.২)
৩২.২
(৯০.০)
৪৯.০
(১২০.২)
সর্বোচ্চ গড় °সে (°ফা) ২৪.২
(৭৫.৬)
২৬.৬
(৭৯.৯)
৩০.৬
(৮৭.১)
৩৫.৩
(৯৫.৫)
৩৯.৬
(১০৩.৩)
৪২.৯
(১০৯.২)
৪২.৯
(১০৯.২)
৪৩.৭
(১১০.৭)
৪২.৩
(১০৮.১)
৩৭.৩
(৯৯.১)
৩০.৬
(৮৭.১)
২৬.০
(৭৮.৮)
৩৫.২
(৯৫.৪)
দৈনিক গড় °সে (°ফা) ১৭.৯
(৬৪.২)
২০.২
(৬৮.৪)
২৩.৯
(৭৫.০)
২৮.৫
(৮৩.৩)
৩৩.০
(৯১.৪)
৩৬.৩
(৯৭.৩)
৩৬.৫
(৯৭.৭)
৩৭.১
(৯৮.৮)
৩৫.৬
(৯৬.১)
৩০.৪
(৮৬.৭)
২৪.২
(৭৫.৬)
১৯.৮
(৬৭.৬)
২৮.৬
(৮৩.৫)
সর্বনিম্ন গড় °সে (°ফা) ১১.৬
(৫২.৯)
১৩.৪
(৫৬.১)
১৬.৮
(৬২.২)
২১.২
(৭০.২)
২৫.৫
(৭৭.৯)
২৮.৪
(৮৩.১)
২৯.১
(৮৪.৪)
২৯.৯
(৮৫.৮)
২৭.৯
(৮২.২)
২২.৯
(৭৩.২)
১৭.৭
(৬৩.৯)
১৩.৬
(৫৬.৫)
২১.৫
(৭০.৭)
সর্বনিম্ন রেকর্ড °সে (°ফা) ১.০
(৩৩.৮)
৩.০
(৩৭.৪)
৭.০
(৪৪.৬)
১১.৫
(৫২.৭)
১৪.০
(৫৭.২)
২১.৭
(৭১.১)
২২.০
(৭১.৬)
২৩.০
(৭৩.৪)
১৮.২
(৬৪.৮)
১১.৬
(৫২.৯)
৯.০
(৪৮.২)
৩.০
(৩৭.৪)
১.০
(৩৩.৮)
অধঃক্ষেপণের গড় মিমি (ইঞ্চি) ৬.৩
(০.২৫)
৩.১
(০.১২)
৯.৮
(০.৩৯)
৯.৬
(০.৩৮)
৫.১
(০.২০)
০.১
(০.০০)
১.১
(০.০৪)
৪.০
(০.১৬)
০.৪
(০.০২)
২.৫
(০.১০)
১০.৪
(০.৪১)
৭.৮
(০.৩১)
৬০.২
(২.৩৭)
বৃষ্টিবহুল দিনগুলির গড় ২.৬ ১.৪ ৩.২ ৪.১ ২.৯ ০.১ ০.৪ ১.৫ ০.৬ ২.০ ৩.৩ ২.৫ ২৪.৬
আপেক্ষিক আদ্রতার গড় (%) ৩৮ ৩১ ২৫ ২২ ১৭ ১২ ১৪ ১৬ ১৪ ১৯ ৩২ ৩৮ ২৩
উৎস: জেদ্দা আঞ্চলিক আবহাওয়া কেন্দ্র[১৯]

জনসংখ্যাসম্পাদনা

চিত্র:Medina Age Structure Chart.jpg
২০১৮ সালের হিসাবে মদিনার জনসংখ্যা পিরামিড তালিকা[২০]

২০১৮ সালের হিসাবে, নথিভুক্ত জনসংখ্যা ছিল ২,১৮৮,১৩৮,[২০] বৃদ্ধির হার ২.৩২% সহ।[২১] সারা বিশ্ব থেকে মুসলিমদের একটি গন্তব্য হওয়ার কারণে, মদিনা সরকার কর্তৃক কঠোর নিয়ম জারি করা সত্ত্বেও হজ্জ বা উমরা করার পর অবৈধ অভিবাসন দেখা যায়। যাইহোক, কেন্দ্রীয় হজ কমিশনার প্রিন্স খালিদ বিন ফয়সাল বলেছেন যে ২০১৮ সালে অবৈধ অবস্থানকারী দর্শনার্থীদের সংখ্যা ২৯% কমেছে।[২২]

ধর্মসম্পাদনা

সৌদি আরবের বেশিরভাগ শহরের মতো, মদিনার অধিকাংশ জনসংখ্যা ইসলাম ধর্মাবলম্বী।

জনসংখ্যার মধ্যে বিভিন্ন (হানাফি, মালিকি, শাফিঈ এবং হাম্বলি) মাযহাবের সুন্নি সংখ্যাগরিষ্ঠ, যদিও মদিনা এবং তার আশেপাশে উল্লেখযোগ্য শিয়া সংখ্যালঘু রয়েছে, যেমন নাখাবিলা। হারাম শরিফের বাইরে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক অমুসলিম অভিবাসী শ্রমিক এবং প্রবাসী রয়েছে।

সংস্কৃতিসম্পাদনা

মক্কা-এর মতোই, মদিনা একটি প্রতিসাংস্কৃতিক পরিবেশ প্রদর্শন করে, এটি এমন একটি শহর যেখানে অনেক জাতীয়তার এবং সংস্কৃতির জনগণ পারস্পরিক সহযোগিতা ও সম্প্রীতির মাধ্যমে একত্রে বসবাস করে। ১৯৮৫ সালে এখানে বিশ্বের সবচেয়ে বড় কুরআন প্রকাশক পবিত্র কোরআন মুদ্রণের জন্য বাদশাহ ফাহদ কমপ্লেক্স প্রতিষ্ঠিত হয়, এখানে প্রায় ১১০০ জন কাজ করে এবং বিভিন্ন ভাষায় ৩৬১টি বিভিন্ন প্রকাশনা প্রকাশ করে। সারা বিশ্ব থেকে প্রায় ৪০০,০০০ এরও বেশি লোক প্রতি বছর কমপ্লেক্সটি পরিদর্শন করে।[২৩][২৪] কমপ্লেক্সটি পরিদর্শন শেষে প্রতিটি দর্শনার্থীকে কুরআনের একটি কপি বিনামূল্যে উপহার দেওয়া হয়।[২৪]

অর্থনীতিসম্পাদনা

 
১৮শতকের মদিনার মসজিদের প্রতিনিধিত্বকারী প্যানেল, ইজনিক, তুরস্ক

ঐতিহাসিকভাবে, মদিনার অর্থনীতি খেজুর এবং অন্যান্য কৃষিকাজের উপর নির্ভরশীল ছিল। ১৯২০ সাল পর্যন্ত, এই অঞ্চলে অন্যান্য সবজি সহ ১৩৯ জাতের খেজুর চাষ করা হচ্ছিল।[২৫] ধর্মীয় পর্যটন মদিনার অর্থনীতিতে একটি বড় ভূমিকা পালন করে। ইসলামের দ্বিতীয় পবিত্রতম শহর হওয়ায় এবং অনেক ঐতিহাসিক ইসলামিক স্থানের কারণে এটি হজের সময় হজ করতে আসা ৭ মিলিয়নেরও বেশি বার্ষিক দর্শনার্থীদের আকর্ষণ করে যারা হজের মৌসুমে হজ্জ করতে আসে এবং সারা বছর উমরা করতে আসে।[২৬]

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Fahad Al-Belaihshi Appointed Mayor of Madinah by a Royal Decree (Arabic)"Sabq Online Newspaper। সংগ্রহের তারিখ ২৯ ডিসেম্বর ২০২০ 
  2. Badr, Abdulbasit A. (২০১৫)। Madinah, The Enlightened City: History and Landmarks। Madinah। আইএসবিএন 9786039041474 
  3. Howden, Daniel (৬ আগস্ট ২০০৫)। "The destruction of Mecca: Saudi hardliners are wiping out their own heritage"The Independent। ৪ অক্টোবর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জানুয়ারি ২০১১ 
  4. "Tarikh Ibn Khaldun"। ১ জানুয়ারি ২০২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০২২ 
  5. "Al-Madeenah Al-Munawwarah"। ১ জানুয়ারি ২০২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০২২ 
  6. C. J. Gadd (১৯৫৮)। "The Harran Inscriptions of Nabonidus"Anatolian Studies8: 59। এসটুসিআইডি 162791503জেস্টোর 3642415ডিওআই:10.2307/3642415। ২১ এপ্রিল ২০২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জুন ২০২১ 
  7. "A Pre-Islamic Nabataean Inscription Mentioning The Place Yathrib"Islamic Awareness। ৫ এপ্রিল ২০২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জুন ২০২১ 
  8. <>.। Ibn Ḥanbal, ʻAbd Allāh ibn Aḥmad, 828–903.। 'Amman: Bayt al-Afkar al-Dawliyah। ২০০৩। আইএসবিএন 9957-21-049-1ওসিএলসি 957317429। ২৫ জুন ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুন ২০২০ 
  9. "হজ ও মদিনা রওজা শরিফ জিয়ারত"দৈনিক প্রথম আলো। আগস্ট ৪, ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ জুন ১৫, ২০২২ 
  10. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; :3 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  11. Jewish Encyclopedia Medina ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১১ তারিখে
  12. Peters 193
  13. "Al-Medina." Encyclopaedia of Islam
  14. Firestone 118. For opinions disputing the early date of the Constitution of Medina, see e.g., Peters 116; "Muhammad", "Encyclopaedia of Islam"; "Kurayza, Banu", "Encyclopaedia of Islam".
  15. Shelomo Dov Goitein, The Yemenites – History, Communal Organization, Spiritual Life (Selected Studies), editor: Menahem Ben-Sasson, Jerusalem 1983, pp. 288–299. আইএসবিএন ৯৬৫-২৩৫-০১১-৭
  16. "Jameh Syed al-Shohada Mosque"Madain Project। ৬ মে ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ মে ২০২০ 
  17. Esposito, John L. "Islam." Worldmark Encyclopedia of Religious Practices, edited by Thomas Riggs, vol. 1: Religions and Denominations, Gale, 2006, pp. 349–379.
  18. Islamic heritage lost as Makkah modernises ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২২ জুন ২০১৮ তারিখে, Center for Islamic Pluralism
  19. "Climate Data for Saudi Arabia"। জেদ্দা আঞ্চলিক আবহাওয়া কেন্দ্র। ৪ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  20. "Population in Madinah Region According to Gender and Age groups"Saudi Census। ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  21. "Saudi Census Releases"Saudi Census। ১৭ ডিসেম্বর ২০১৫। ৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  22. "Al-Faisal : The Number of Illegal Staying Visitors have Dropped by 29%(Arabic)"Sabq Newspaper। ১৫ আগস্ট ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৯ 
  23. "Publications of King Fahd Complex (Arabic)"King Fahd Complex for the Printing of the Holy Quran। ১৩ মে ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  24. "About King Fahd Complex"King Fahd Complex for the Printing of the Holy Quran। ১৩ মে ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  25. Prothero, G. W. (১৯২০)। Arabia। London: H.M. Stationery Office। পৃষ্ঠা 83। ২৭ ডিসেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
  26. "منصة البيانات المفتوحة"। ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

  •   "Medina"। New International Encyclopedia। ১৯০৫। [[Category:উইকিপিডিয়া নিবন্ধ যাতে নিউ ইন্টারন্যাশনাল এনসাইক্লোপিডিয়া থেকে একটি উদ্ধৃতি অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে]]