বর্ধমান জেলা

পশ্চিমবঙ্গের একটি অধুনালুপ্ত জেলা

বর্ধমান জেলা ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য পশ্চিমবঙ্গে অবস্থিত বর্ধমান বিভাগের অধুনালুপ্ত একটি জেলা। ২০১৭ খ্রিস্টাব্দের ৭ এপ্রিল এই জেলা বিভক্ত হয়ে পূর্ব বর্ধমান জেলাপশ্চিম বর্ধমান জেলা গঠিত হয়।

বর্ধমান জেলা
পশ্চিমবঙ্গের জেলা
পশ্চিমবঙ্গে বর্ধমানের অবস্থান
পশ্চিমবঙ্গে বর্ধমানের অবস্থান
দেশভারত
রাজ্যপশ্চিমবঙ্গ
প্রশাসনিক বিভাগবর্ধমান
সদরদপ্তরবর্ধমান
সরকার
 • লোকসভা কেন্দ্র৫টি
 • বিধানসভা আসন২৫টি
আয়তন
 • মোট৭,০২৪ বর্গকিমি (২,৭১২ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট৭৭,২৩,৬৬৩
 • জনঘনত্ব১,১০০/বর্গকিমি (২,৮০০/বর্গমাইল)
 • পৌর এলাকা৩৬.৯৪ %
জনতাত্ত্বিক
 • সাক্ষরতা৭৭.১৫ %[১]
 • লিঙ্গানুপাত৯২২
প্রধান মহাসড়কজাতীয় সড়ক ২, গ্র্যান্ড ট্রাঙ্ক রোড, পানাগড়-মোরগ্রাম হাইওয়ে, জাতীয় সড়ক ৬০
গড় বার্ষিক বৃষ্টিপাত১৪৪২ মিমি
ওয়েবসাইটদাপ্তরিক ওয়েবসাইট

এটি মূলত কৃষি প্রধান জেলা। একে পশ্চিম বঙ্গের শস্য ভান্ডার বলা হয়। জেলার বৃহত্তম শহর বর্ধমান মহানগর। ধান এ জেলার প্রধান ফসল। এ ছাড়া পাট, আলু, পেঁয়াজ, আখ হয়। জেলার রানিগঞ্জ এবং আসানসোল কয়লাখনির জন্য প্রসিদ্ধ। দুর্গাপুরে আছে লৌহ-ইস্পাত কারখানা। জেলা সদর বর্ধমান থেকে অল্প দূরে কাঞ্চন নগর ছুরি, কাচির জন্য প্রসিদ্ধ। ধাত্রিগ্রাম তাঁতের কাপড়ের জন্য প্রসিদ্ধ।

ইতিহাসসম্পাদনা

বর্ধমানের ইতিহাস শুরু খ্রীষ্টপূর্ব ৫০০ সন তথা মেসোলিথিক বা প্রস্তর যুগের অন্তিম সময়। Burdwan নামটি সংস্কৃত বর্ধমান থেকে ইংরেজ কর্তৃক প্রদত্ত। মার্কন্ডেয় পুরাণে বর্ধমানের উল্লেখ আছে। গলসি থানা সংলগ্ন "মল্লসরুল" গ্রামে প্রাপ্ত ষষ্ঠ শতকের একটি তাম্রলিপিতে প্রথম নামটির উল্লেখ পাওয়া যায়। নামের মূল নিয়ে দুটি মত রয়েছে। প্রথম মতানুযায়ী, নামটি ২৪ তম জৈন তীর্থাঙ্কর বা বর্ধমানস্বামী'র নামানুসারে প্রণীত হয়েছে। জৈন কল্পসূত্রাণুসারে, মহাবীর কিছুসময় অস্তিকগ্রামে কাটিয়েছিলেন, যা পরে বর্ধমান নামে পরিচিত হয়।অন্যমতানুযায়ী, বর্ধমানা অর্থ সম্পন্ন কেন্দ্র। গাঙ্গেয় উপত্যকায় আর্য সভ্যতার বিকাশের সময়ে, উন্নতি এবং সম্পনতার প্রতীক হিসেবে স্থানটি পরিচিত ছিল। রাজস্ব আদায়ের সুবিধার জন্য মুঘল সম্রাট আকবর বাংলা সুবাকে উনিশটি সরকারে ভাগ করেন। আইন-ই-আকবরী অনুযায়ী বর্ধমান জেলার সঙ্গে সম্পর্কিত যে তিনটি সরকারের নাম পাওয়া যায় তার মধ্যে একটি শরিফাবাদ। শরিফ শব্দের অর্থ সম্ভ্রান্ত। সেই অর্থে এলাকাটি ছিল অপেক্ষাকৃত সম্ভ্রান্ত অঞ্চল। পরে বর্ধমানের নাম হয় শরিফাবাদ। সেই সময় বীরভূমের দক্ষিণাংশ, মুর্শিবাদ জেলার কান্দি আর বর্ধমান জেলার মধ্য অংশ জুড়ে এর সীমানা ছিল। রাজা তিলকচাঁদ ছিলেন বর্ধমানের প্রথম মহারাজধিরাজ। তাদের বংশের অন্যতম রাজারা হলেন প্রতাপচাঁদ ও মহতাবচাঁদ। ব্রিটিশ আমলে রানী বেনদেয়ী তার দেওয়ান বনবিহারীর পুত্র বিজনবিহারীকে দত্তক নিয়ে বিজয়চাঁদ নাম দিয়ে বর্ধমানের সিংহাসনে বসান।          

জেলার বিখ্যাত ব্যক্তিসম্পাদনা

মহকুমা শহরসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "District-specific Literates and Literacy Rates, 2001"। Registrar General, India, Ministry of Home Affairs। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-১০-১০ 
  2. সংসদ বাঙালি চরিতাভিধান, প্রথম খণ্ড, সম্পাদনা সুবোধচন্দ্র সেনগুপ্ত ও অঞ্জলি বসু, সাহিত্য সংসদ, কলকাতা, ২০০২, পৃ. ১
  3. সংসদ বাঙালি চরিতাভিধান, প্রথম খণ্ড, পৃ. ১
  4. সংসদ বাঙালি চরিতাভিধান, প্রথম খণ্ড, পৃ. .৬
  5. "বর্ধমান জেলা প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট বিখ্যাত ব্যক্তিত্ব"। ১৭ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ এপ্রিল ২০০৮ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা