পিরোজপুর

বরিশাল বিভাগের পিরোজপুর জেলার শহর

পিরোজপুর বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের বরিশাল বিভাগের একটি শহর। এটি পিরোজপুর জেলার সদরদপ্তর ও জেলা শহর। এটি পিরোজপুর সদর উপজেলারও প্রশাসনিক সদরদপ্তর।

পিরোজপুর
ফিরোজপুর
শহর
পিরোজপুর বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
পিরোজপুর
পিরোজপুর
বাংলাদেশে ছাগলনাইয়া শহরের অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২২°৩৫′০৬″ উত্তর ৮৯°৫৮′১৯″ পূর্ব / ২২.৫৮৫০৫৬° উত্তর ৮৯.৯৭১৮৯৮° পূর্ব / 22.585056; 89.971898স্থানাঙ্ক: ২২°৩৫′০৬″ উত্তর ৮৯°৫৮′১৯″ পূর্ব / ২২.৫৮৫০৫৬° উত্তর ৮৯.৯৭১৮৯৮° পূর্ব / 22.585056; 89.971898
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগবরিশাল বিভাগ
জেলাপিরোজপুর জেলা
উপজেলাপিরোজপুর সদর উপজেলা
শহর প্রতিষ্ঠা১৮৬৫
মহকুমা শহর২৮ অক্টোবর ১৮৫৯ সাল
পৌরশহর১৮৮৫
জেলা শহর১৯৮৪
সরকার
 • ধরনপৌরসভা
 • শাসকপিরোজপুর পৌরসভা
 • পৌরমেয়রমোঃ হাবিবুর রহমান মালেক [১]
আয়তন
 • মোট২৯.৪৯ বর্গকিমি (১১.৩৯ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা
 • মোট৬০,০৫৬
 • জনঘনত্ব২,০০০/বর্গকিমি (৫,৩০০/বর্গমাইল)
সময় অঞ্চলবাংলাদেশ সময় (ইউটিসি+৬)

নামকরণসম্পাদনা

পটভূমি পিরোজপুর নাম কবে কিভাবে কিসের ভিত্তিতে নিরুপিত বা নির্দিষ্ট হয়েছে তার কোন সুনির্দিষ্ট তথ্য বা ইতিহাস জানা যায়নি। তবে অধিকাংশ অনুসন্ধান বা ইতিহাস গবেষণালব্ধ উপসংহারে অনুমিত হয়েছে যে, ফিরোজ নামের এক ঐতিহাসিক ব্যক্তিত্বের নামকে স্মৃতিময় করে রাখার প্রয়াসে এই জায়গার নাম ফিরোজপুর হয়েছিল। ফিরোজ শাহের আমল থেকে ভাটির দেশের ফিরোজপুর, বেনিয়া চক্রের ছোঁয়া লেগে পাল্টে হলো পিরোজপুর।’’ পিরোজপুর নামকরণের একটা সূত্র খুঁজে পাওয়া যায়। নাজিরপুর উপজেলার শাখারী কাঠির জনৈক হেলালউদ্দীন মোঘল নিজেকে মোঘল বংশের শেষ বংশধর হিসেবে দাবী করেছিলেন। তাঁর মতে বাংলার সুবেদার শাহ্ সুজা আওরঙ্গজেবের সেনাপতি মীর জুমলার নিকট পরাজিত হয়ে বাংলার দক্ষিণ অঞ্চলে এসেছিলেন এবং আত্মগোপনের এক পর্যায়ে নলছিটি উপজেলার সুগন্ধা নদীর পারে একটি কেল্লা তৈরি করে কিছুকাল অবস্থান করেন। মীর জুমলার বাহিনী এখানেও হানা দেয় এবং শাহ্ সুজা তার দুই কন্যাসহ আরাকানে পালিয়ে যান। সেখানে তিনি অপর এক রাজার চক্রান্তে নিহত হন। পালিয়ে যাওয়ার সময় তার স্ত্রী  এক শিশু পুত্রসহ থেকে যায়। পরবর্তীতে তারা অবস্থান পরিবর্তন করে ধীরে ধীরে পশ্চিমে চলে এসে বর্তমান পিরোজপুরের পার্শ্ববর্তী দামোদর নদীর মুখে আস্তানা তৈরি করেন। এ শিশুর নাম ছিল ফিরোজ এবং তার নাম অনুসারে নাম হয় ফিরোজপুর। দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের আঞ্চলিক কথ্য ভাষার উচ্চারণগত বিচ্যুতিতে এক সময়ের ফিরোজপুর নামটি পিরোজপুর নামে প্রবর্তিত হয়ে গেছে। [২]

ইতিহাসসম্পাদনা

সুন্দরবনের কোলঘেঁষা কালীগঙ্গা, বলেশ্বর, দামোদর, সন্ধ্যা বিধৌত প্রাকৃতিক সবুজের লীলাভূমি পিরোজপুর। ঊনবিংশ শতাব্দীর প্রথম দিক থেকে বাকেরগঞ্জ জেলার বিভিন্ন নদী গর্ভে, মোহনায় ছোট ছোট দ্বীপাঞ্চল সৃষ্টি এবং এর দ্রুত বৃদ্ধি হতে থাকে। দক্ষিণাঞ্চলের সুন্দরবনের জঙ্গল কাটা হলে আবাদযোগ্য ভূমির আয়তনও ক্রমশ বৃদ্ধি পেতে থাকে। এ সময় ভূমি সংক্রান্ত বিরোধ, দক্ষিণাঞ্চলের কৃষক বিদ্রোহ, পিরোজপুরের কালীগঙ্গা, কচাঁ, বলেশ্বর প্রভৃতি নদীতে মগ জলদস্যুদের উপদ্রব, বিশেষত: ঐ সকল নদীতে চুরি, ডাকাতি, লুন্ঠনসহ বিভিন্ন ফৌজদারি অপরাধ বৃদ্ধি পেতে থাকে। ফলে সাধারণ প্রশাসন এবং ভূমি প্রশাসনের সুবিধাজনক অধ্যায় সৃষ্টির উদ্দেশ্যে এবং ফৌজদারি ও দেওয়ানি বিরোধের বিচারকার্য তড়িৎ সম্পাদনের লক্ষ্যে পিরোজপুর মহকুমা স্থাপনের প্রয়োজনীয়তা অনুভূত হয়। বাকেরগঞ্জ তদানীন্তন জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এইচ.এ.আর. আলেকজান্ডার ১৮৫৬ সালের ২৪ এপ্রিল পিরোজপুরে মহকুমা স্থাপনের প্রস্তাব দেন। ১৮৫৯ সালের ২৮ অক্টোবর পিরোজপুর মহকুমা স্থাপিত হয়। দামোদর নদের দক্ষিণ পাড় চরভুমি, আবাদি জমি ও বিক্ষিপ্ত জনবসতির মধ্যেই ১৮৬৫ সাল থেকে শহর নির্মানের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয় এবং সরকারী ভবন, রাস্তাঘাট, হাসপাতাল, থানা প্রভৃতি নির্মিত হতে থাকে। গড়ে উঠতে থাকে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান দোকানপাঠ। ১৭৯০ সনে তৎকালীন বাখরগঞ্জ জেলায় ১০টি থানা স্থাপিত হয়। যার একটি পিরোজপুর সদরের পাড়েরহাট নিকটবর্তী টগরা গ্রামে টগরা থানা। ১৮৫৯ সালে পিরোজপুর মহকুমা ঘোষিত হলে পিরোজপুর শহরকে মহকুমা শহর করা হয় এবং টগরা থেকে থানা স্থানান্তর করে পিরোজপুর থানা হিসেবে নামকরণ করা হয়। পিরোজপুর মহকুমা স্থাপনের সংগে সংগে প্রশাসনিক সুবিধার জন্য পাড়েরহাট বন্দর সংশ্লিষ্ট টগড়া হতে থানা এবং কাউখালী হতে মুন্সেফি আদালত পিরোজপুর সদরে স্থানান্তর করা হয়। ১৮৬৫ সালে পিরোজপুর মিনিসিপ্যালিটি স্থাপিত হয়। ১৮৮৫ সালে পিরোজপুর পৌরসভা প্রতিষ্ঠিত হয় ফলে এটি পৌরশহর হিসেবেও প্রতিষ্ঠিত হয়। পিরোজপুর মহকুমা ১৯৮৪ সালে জেলায় রূপান্তরিত হলে পিরোজপুর শহর জেলা শহরের মর্যাদা লাভ করে। [৩]

মুক্তিযুদ্ধে পিরোজপুরসম্পাদনা

১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ভাষণের প্রেক্ষিতে দেশের অন্যান্য স্থানের মত তৎকালীন পিরোজপুর মহকুমার প্রতিটি গ্রামে গড়ে ওঠে প্রতিরোধের দুর্গ। পিরোজপুর শহরতলীতে রায়েরকাঠী জমিদারবাড়ির পরিত্যক্ত ভবনে গড়ে ওঠে একটি মুক্তিযোদ্ধা ক্যাম্প। শত্রুর বিরুদ্ধে ৩ মার্চ বিকালে ঢাকা থেকে আগত সামসুল হক, ছাত্রলীগ নেতা ওমর ফারুক ও আওয়ামীলীগ নেতা বদিউল আলমের নেতৃত্বে ছাত্রলীগের কর্মীরা পিরোজপুরে পাকিস্তানী পতাকায় অগ্নিসংযোগ করতে করতে মিছিল সহকারে শহর প্রদক্ষিণ করে। এর আগে ২মার্চ ছাত্র ইউনিয়ন শহরে বাঁশের লাঠি ও ডামি রাইফেল নিয়ে সদর রাস্তায় সকাল দিকে সুশৃঙ্খল মহড়া প্রদর্শন করলে পথচারী জনসাধারণ করতালি দিয়ে তাঁদের অভিনন্দন জানায়। ছাত্রলীগ নেতা ওমর ফারুক ২৩ মার্চ শত শত জনতার উপস্থিতিতে স্থানীয় টাউন হল মাঠের শহীদ মিনারে বাংলাদেশের মানচিত্র খচিত পতাকা উড়িয়ে দেন। ২৫ মার্চ দিবাগত রাতে বরিশাল থেকে নূরুল ইসলাম মঞ্জুর টেলিফোনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীনতা ঘোষণা পিরোজপুরে পাঠান। এসময় পিরোজপুরে আওয়ামীলীগের নির্বাচিত এম.এন.এ (মেম্বর অব ন্যাশনাল এসেম্বলি) ছিলেন এ্যাডভোকেট এনায়েত হোসেন খান। ২৬ মার্চ বিকেলে পিরোজপুর টাউনহল ময়দানের জনসভায় অস্ত্র সংগ্রহের আহবান জানালে এ্যাডভোকেট এনয়েত হোসেন খান, ডাঃ আব্দুল হাই, ডাঃ ক্ষিতীষ চন্দ্র মন্ডল, এ্যাডভোকেট আলী হায়দার খান, ফজলুল হক খোকন, জামালুল হক মনু প্রমূখ স্বাধীনাতা প্রেমী জনতা টাউন হলের অদূরে পিরোজপুর মহকুমা প্রশাসকের অফিস সংলগ্ন অস্ত্রাগারটি আক্রমণ করে সমস্ত রাইফেল, বুলেট সংগ্রহ করেন। ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চে সংগ্রাম পরিষদের জনসভা চলছিল গোপাল কৃষ্ণ টাউন ক্লাব মাঠে। এই সভায় তদানীন্তর এম, এন,এ অ্যাডভোকেট এনায়েত হোসেন খান ঢাকায় পাকিস্তানি সৈন্যদের নৃশংস, নির্মম হত্যাকান্ডের বিবরন দিয়ে ভাষন দেয়ার সময় স্বাধীনতাকামী উপস্থিত জনতা উত্তেজিত হয়ে ‘ অস্ত্র চাই অস্ত্র চাই’ ধ্বনি দিতে থাকলে তিনি জনতাকে আশ্বস্ত করে বলেন আজ এখনই অস্ত্রাগার লুন্ঠন করে তোমাদের হাতে স্বাধীনতা যুদ্ধের জন্য অস্ত্র তুলে দেয়া হবে। বক্তব্য শেষ হওয়ার সাথে সাথে উত্তেজিত জনতা অস্ত্রাগারের দিকে এগিয়ে যায়। পিরোজপুরের মহকুমা প্রশাসকের অফিস সংলগ্ন অস্ত্রাগারটি লুণ্ঠনে নেতৃত্ব দেন অ্যাডভোকেট এনায়েত হোসেন খান, ডাঃ আব্দুল হাই, ডাঃ ক্ষিতীশ চন্দ্র মন্ডল, অ্যাডেভোকেট আলী হায়দার খান, ফজলুল হক খোকন প্রমুখ। সুশৃংখলভাবে এখান থেকে অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। তারমধ্যে ৪২ টি রাইফেল হস্তগত করে নকশালপন্থীরা, ২২ টি বন্দুক চলে যায় শান্তি কমিটির হাতে। ২৮ মার্চ পিরোজপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে একটি ক্যাম্প স্থাপন করা হয়। এখানে সাধারণ মানুষদের অস্ত্র প্রশিক্ষণ শুরু হয়।[৪] ১৯ মে ১৯৭১ অস্ত্রাগারের আর.এস.আই. গোলাম মাওলা বাদী হয়ে পিরোজপুর থানায় ৫৫ জনকে আসামী করে এই ৫নং মামলা দায়ের করেন। ২১ মার্চ লাহোর থেকে পিরোজপুরে আসেন পিরোজপুরের সন্তান লেঃ জিয়াউদ্দিন। ২৭ মার্চ বিকাল ৪টা থেকে পিরোজপুর সরকারী হাইস্কুল মাঠে তাঁর প্রচেষ্টায় মুক্তিফৌজ গঠন পূর্বক অস্থায়ীভাবে গঠিত বিপ্লবী সরকারের স্থানীয় প্রধান এ্যাডভোকেট এনায়েত হোসেন খান এম.এন.এ-কে গার্ড অব অনার প্রদান করে। জনাব এনায়েত হোসেন খান (এ্যাডভোকেট), ডাঃ আঃ হাই, আলী হায়দার খান (এ্যাডভোকেট), ডাঃ ক্ষিতীশ চন্দ্র মন্ডল, এই চারজন উচু পর্যায়ের রাজনৈতিক  নেতা হিসাবে পিরোজপুর মহকুমার মুক্তি সংগ্রামে নেতৃত্ব দেন। ৪ মে পিরোজপুরে প্রথমে হানাদার পাকবাহিনী প্রবেশ করে। হুলারহাট বন্দরে প্রথম পাক-বাহিনীর গানবোট ভিড়ে ৩ মে ১৯৭১। ১৭ এপ্রিল নগর সরকার গঠন হওয়ার পর পিরোজপুর মহাকুমা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করে পাকিস্তান সরকারের সাথে সর্বপ্রকার সম্পর্ক ছিন্ন করে। এসময় পিরোজপুর স্কুল মাঠ ও কালেক্টরেট মাঠে মুক্তি বাহিনীর সদস্যরা প্রশিক্ষণ নেয়। পুরোদমে চালু হয়ে গেলো স্বাধীন বাংলাদেশের সীল, তখন পিরোজপুর ট্রেজারি অফিসার সাইফ মিজানুর রহমান ট্রেজারীর অস্ত্র ও সমস্ত টাকা পয়সা তুলে দেন মুক্তি বাহিনীর হাতে। পিরোজপুরে তখন এসডিও ছিলেন ফয়জুর রহমান। তিনি তার পুলিশ বাহিনী নিয়ে সর্বাত্মক সহযোগিতা করেন পিরোজপুরের মুত্তিযোদ্ধাদের। হুলারহাট থেকে শহরে প্রবেশের পথে তারা মাছিমপুর আর কৃষ্ণনগর গ্রামে শুরু করে হত্যাযজ্ঞ। স্থানীয় রাজাকারদের সহায়তায় হিন্দু আর স্বাধীনতার পক্ষের মুসলমানদের বাড়িঘরে দেয়া হয় আগুন, হত্যা করা হয় অসংখ্য মানুষ। ৫ মে ৭১ বলেশ্বর খেয়াঘাটে দাড় করিয়ে এক সঙ্গে বেশ কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধাকে হত্যা করে তাদের লাশ ফেলে দেওয়া হয় বলেশ্বর নদীতে। বলেশ্বর নদীর পাড়ে পুরানো খেয়াঘাট ও তার আশেপাশের ঘাট ছিল হত্যাযজ্ঞের প্রধান কেন্দ্রবিন্দু। পিরোজপুরের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে বলেশ্বর খেয়াঘাটের গুরুত্ব অত্যধিক।  ৫ মে ৭১ বলেশ্বর খেয়াঘাটে গুলি করে হত্যা করা হয় তারমধ্যে যেসব শহীদদের নাম পাওয়া গেছে তাদের মধ্যে শহীদ আঃ রাজ্জাক, শহীদ সাইফ মিজানুর রহমান ও শহীদ ফয়জর রহমান আহমেদও ছিলেন। বলেশ্বর খেয়াঘাট বধ্যভূমিতে এরাই প্রথম হত্যাকান্ডের শিকার হন। ৬ মে রাজাকারদের সহায়তায় ধৃত পিরোজপুরের তৎকালীন এস.ডি.ও(ভারপ্রাপ্ত) আব্দুর রাজ্জাক , ম্যাজিস্ট্রেট সাইফ মিজানুর রহমান (নড়াইল), এস.ডি.পি.ও ফয়জুর আহমেদকে গুলি করে হত্যা করা হয়। ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে পিরোজপুরের অদূরে চালিতাখালী গ্রাম থেকে এক দড়িতে বেধে আনা হয় মোসলেম আলী শেখ, আব্দুর রহমান সরদার, খাউলবুনিয়ার আব্দুল গফ্ফার মাস্টার, জলিল হাওলাদার, জুজখোলার সতীশ মাঝি এবং শামছু ফরাজীসহ ১২ জন স্বাধীনতাকামীকে। তাঁদেরকে বলেশ্বরের বধ্যভূমিতে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। ১৯৭১ সালের ৮ ডিসেম্বর দুপুর ১২ টায় তৎকালীন পিরোজপুর মহকুমা শহর শত্রুমুক্ত হয় এবং সমাপ্তি ঘটে দীর্ঘ ৯ মাসের সশস্ত্র যুদ্ধের। পিরোজপুরের ঘরে ঘরে উত্তোলিত হয় বিজয়ের পতাকা। [৫]

ভাষা ও সংস্কৃতিসম্পাদনা

পিরোজপুরের ভাষা ও সংস্কৃতির ইতিহাস বেশ প্রাচীন এবং সমৃদ্ধ। বরিশালখুলনার মাঝখানে অবস্থিত হওয়ায় এই দুই অঞ্চলের ভাষার দ্যোতনা পরিলক্ষিত হয় পিরোজপুরের ভাষায়। তবে পিরোজপুরের কোন আঞ্চলিক ভাষা নেই, নেই কোন বিশেষ ভাষা-ভাষী গোষ্ঠী। ১৭শ ও ১৮শ শতকে বাকলার পান্ডিত্য গৌরব সমগ্র ভারতে প্রসিদ্ধি লাভ করে। এখানকার প্রখ্যাত কবিদের মধ্যে আহসান হাবীব, আবুল হাসান,  ক্ষেত্রগুপ্ত, বিশ্বজিৎ ঘোষ,  মুহম্মদ হাবিবুর রহমান, এমদাদ আলী ফিরোজী, এম এ বারী,শেখ শহীদুল ইসলাম, খান মোহাম্মদ মোসলেহ্ উদ্দিনের নাম স্ব-মহিমায় দোদীপ্যমান।প্রবাদ প্রবচন ও বিয়ের গানের জন্য পিরোজপুর বিখ্যাত। বর্তমানে উদীচি শিল্পী গোষ্ঠী, দিশারী শিল্পী গোষ্ঠী,সংগীতা, ধ্বনি শিল্পী গোষ্ঠী, রুপান্তর নাট্য গোষ্ঠী, পিরোজপুর থিয়েটার, কৃষ্ণচুড়া থিয়েটার, বলাকা নাট্যম্ প্রভৃতি সাংস্কৃতিক গোষ্ঠী আঞ্চলিক ঐতিহ্য লালন পালন ও প্রচারে একাগ্র প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। পিরোজপুর অফিসার্স ক্লাব,  গোপাল কৃষ্ণ টাউন ক্লাব, বলাকা ক্লাব সহ প্রভৃতি অঙ্গসংগঠন পিরোজপুরে ভাষা ও সংস্কৃতির অগ্রযাত্রায় বিশেষ ভুমিকা রাখছে।  [৬] রায়েরকাঠী জমিদারদের চেষ্টায় শহর পিরোজপুরের পত্তন হয় । অবসরকালীন চিত্তবিনোদনের জন্য থিয়েটার, যাত্রা, কবিগান, জারীগান, পুতুল নাচ, ঘোড়ার দৌড়, ষাড়ের লড়াই, নৌকাবাইচ, মেলা বহুরূপীর খেলা ইত্যাদির আসর বসতো রায়েরকাঠীতে। এখানে শিবচতুর্দশীতে এমনই এক ঊৎসবের পরিবেশ সৃষ্টি হত যা সারা দক্ষিণ বাংলার মানুষের স্মৃতিতে অম্লান হয়ে আছে। রায়েরকাঠির মাঠে এই মেলা ৫/৬ দিন ধরে চলত। দূরদুরান্ত থেকে মানুষ এই মেলায় আসার জন্য বছর ধরে অপেক্ষায় থাকত। কত বছর পূর্বে এ মেলা শুরু হয় তার সঠিক ইতিহাস জানা যায়নি। কদমতলার জগদাত্রী পূজা উপলক্ষে যাত্রা, জারীগান, কবিগান, ষাড়ের লড়াই, লাঠি খেলা প্রতিবছর অনুষ্ঠিত হয় । এখানে কৃষ্ণলীলা, রাস উৎসবকে কেন্দ্র করে যাত্রা থিয়েটার হয়। পিরোজপুরের মাছিমপুরে ধোপা বাড়ির নিকটবর্তী মাঠে ধানকাটা মৌসুম শেষ হলেই ঘোড়ার দৌড় প্রচলন ছিল। এই খেলায় অংশ নেওয়ার জন্য বিত্তবান লোকেরা বিভিন্ন জাতের ঘোড়া সংগ্রহ করতেন। ১৯২১ সালে গোপালকৃষ্ণ টাউন হল নামে পাবলিক হলটি নির্মিত হয় । এই হলটিকে কেন্দ্র করে খেলাধুলার জন্য টাউন ক্লাব ও একটি পাঠাগার প্রতিষ্ঠা করা হয়। বর্তমানে এটি শেরেবাংলা পাবলিক লাইব্রেরী নামে পরিচিত।১৯২৫-২৭ সালের দিকে কতিপয় মুসলিম তরুণ বর্তমান ঈদগার পূর্ব পাশে মুসলিম ক্লাব নামে আর একটি ক্লাব গঠন করে। পরবর্তী সময়ে শেরেবাংলা ফজলুল হকের খালার নামে সামছুন্নেছা মুসলিম হল নামে একটি মিলনায়তন তৈরী হলে মুসলমান তরুণ যুবকেরা এখানে আর একটি পাঠাগার গড়ে তোলে। এখানে সাপ্তাহিক বিতর্ক, সভা কবিতা পাঠ, ইসলামী গান বিশেষ করে মিলাদুন্নবী ঊপলক্ষে বিভিন্ন প্রতিযোগিতামূলক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এ কেন্দ্রেই কবি আহসান হাবিব প্রথম তার কবিতা পাঠ করেন। এই কেন্দ্রের প্রত্যক্ষ পৃষ্ঠপোষকাতায় শংকরপাশার মকবুল বয়াতীর নাম দিনে দিনে ছড়িয়ে পড়ে। ইসলামী গান, নজরুল ইসলামের গান ছাড়া ও তিনি ব্রিটিশ বিরোধী বিভিন্ন গান হাটে হাটে গাইতেন। কলিকাতার হিজ মাস্টার ভয়েজ তাঁর এজিদের কারাগারে, জয়নালের কান্না গানটি রেকর্ড করে। গানটি গ্রাম বাংলার যথেষ্ট জনপ্রিয়তা পায়। ১৯৩৫ সালে রাজা ৮ম এডওয়ার্ডের সিংহাসন আরোহণের রজতজয়ন্তী পালন উপলক্ষে পিরোজপুর বাসীও উৎসবের আনন্দে মেতে ওঠে । পিরোজপুরের বলেশ্বর নদে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যে প্রায় ২০ খানা নৌকার বাইচ অনুষ্ঠিত হত। চলিসা গ্রামের লেহাজ উদ্দীনের ছিপ নৌকা ঢোলের উম্মাতাল তালে দুলে দুলে সর্বাগ্রে গন্তব্যে পৌছে বৃহৎ এক পিতলের কলসী উপহার পায়। রায়েরকাঠী প্রদর্শনী ময়দানে তারিনী মিস্ত্রী ও চুঙ্গাপাশার রাশেদ মল্লিকের ষাড়ের মধ্যে চুড়ান্ত লড়াই শুরু হলে প্রচন্ড উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। দুইদল সমর্থকদের মধ্যে এসময় লড়াই বেঁধে যায়, অবশ্য জমিদার সত্যেন্দ্রনাথ রায়ের প্রচেষ্টায় হাঙ্গামার দ্রুত নিস্পত্তি ঘটে। বিভিন্ন উৎসবে বাজিকার উমাচারণ, গঙ্গাচরণ চমৎকার আতসবাজির কারুকাজ প্রদর্শন করেন। সঠিকভাবে জানা না গেলেও গঙ্গাচরণ মাছিমপুরে বসতি স্থাপন করে তার বিদ্যালয় লক্ষীকান্তসহ অনেককে পারদর্শী করে তোলেন এই বাজিকরেরা ১৯৬৬ সাল পর্যন্ত পিরোজপুরের বিভিন্ন জাতীয় অনুষ্ঠানে রঙ-বেরঙের বাজি দেখিয়ে আনন্দ দিয়েছেন। বাংলাদেশের খ্যাতিমান অভিনেতা গোলাম মুস্তফা ও তার জ্যেষ্ঠ ভ্রাতা মোহাম্মদ মুসার ছেলেবেলা কেটেছে পিরোজপুরে। তাঁর অভিনয়, আবৃত্তি ও সংগীত বেশ কিছুকাল পিরোজপুরের সাংস্কৃতিক অঙ্গনকে সমৃদ্ধ করেছে । ঢাকায় ২/১ টি সিনেমা হল নির্মিত হলেও মফস্বলে তেমন ছবি দেখানোর ব্যবস্থা হয়নি । কৃষ্ণনগরের আবছার তালুকদার ও তাঁর বন্ধুরা মিলে কলিকাতা থেকে ভ্রাম্যমান সিনেমা নিয়ে আসেন। সারা শহরের পার্শ্ববর্তী হাটে বাজারে টিনের তৈরী চোঙ্গা দিয়ে চলমান এবং কথা বলা সিনেমা দেখানোর প্রচার করলে গোপালকৃষ্ণ টাউন হলে প্রচুর ভিড় জমে। ছবি দেখানো শুরু হওয়ার কিছুক্ষনের মধ্যেই নারী দর্শকদের অত্যধিক চাপে হলের দোতালা ভেঙ্গে পড়ে এবং অনেকে আহত হয়। ব্রিটিশ শাসনামলে পিরোজপুর শহরে চিত্রবানী নামে একটি সিনেমা হল চালু হলেও অল্প দিনের মধ্যে তা বন্ধ হয়ে যায়। ১৯৪৭ সালের পর ইরাটকিস ও আলেয়া নামে দুটি সিনেমা হল চালু হয়। ১৯৬২-৬৩ সালে আলেয়া সিনেমা হল বন্ধ হয়ে যায় । ১৯৯১ সালে ইরাটকীস সিনেমা হলটি ও বন্ধ হয়ে যায়। এতদঞ্চলের মধ্যে সর্বপ্রথম মুসলমানদের মধ্যে যুক্ত অপেরা নামে একটি পূর্ণাঙ্গ যাত্রা দল গড়েন। কবি নজরুলের বিষের বাঁশি পালাটি যুক্ত অপেরার সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় পালার স্বীকৃতি পায়।  নুরুল ইসলাম, নিরোধ বরণ সরকার, বিজয় বকশি, জিন্নাত আলী মোক্তার এদের প্রচেষ্টায় ওয়াই,সি,এ, নামে একটি সাংস্কৃতিক সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন। তারা প্রায় নিয়মিতভাবে টাউন হল মঞ্চে বিভিন্ন নাটক অভিনয় করতেন। নুরুল ইসলাম, বিজয়ী বকশী, মোদাচ্ছের মিয়া, সুধীর বাবুরা মিলে ‘নিউ মিনার্ভা  অপেরা’ নামে আর একটি যাত্রাদল গড়ে তোলেন। যা এখন কোলকাতায় মিনার্ভা থিয়েটার নামে সমাধিক পরিচিত। পিরোজপুরের প্রায় প্রত্যেকটি বিদ্যালয়ে তখন শিক্ষাবর্ষ শেষে ‘শিক্ষা সপ্তাহ’ উদযাপিত হত। নাট্যাভিনয়, কবিতা আবৃত্তি, সংগীত, কমিকস উপস্থাপনা করে আমন্ত্রিত অতিথিদের আনন্দ দিত। স্কুলে স্কুলে ফাতেহা ইয়াজদহম, মিলাদুন্নবী, স্বরসতীপূজা উপলক্ষে বিভিন্ন বিষয়ে প্রতিযোগিতা লেগেই থাকত। বিশেষ করে পূজামন্ডবের ধোঁয়ায় আছন্ন ও ধূপের গন্ধ ছড়ানো আরতি নৃত্য প্রতিযোগিতা দেখার জন্য প্রচুর দর্শক সমাগত হত। পাড়ায়-মহল্লায় নিয়মিত নজরুল-রবীন্দ্র জন্ম-জয়ন্তী পালিত হত। ১৯৬৯ সালে গণঅভ্যুথানের সময় প্রায় সব জনসভা শেষে গণসংগীত গেয়ে দীপক মজুমদার, আঃ হাকিম, শংকর মসিদ, রবীনদাস, আবুল কালাম মহিউদ্দিন সাংস্কৃতিক আন্দোলনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন। ১৯৬৪,৬৫,৬৬ সালে পিরোজপুর কলেজের সংস্কৃতিবান ছাত্র-ছাত্রীদের প্রচেষ্টায় ‘দায়ী কে’ ‘টাকা আনা পাই’ ও ‘ফেরিওয়ালা’ নাটক মঞ্চস্থ হয়। পিরোজপুর কলেজের বেশ কয়েকজন তরুণ ছাত্র ও অধ্যাপক মিলে ‘লিটলম্যান’ নামক ইংরেজি নাটক কলেজ মিলায়তনে সাফল্যের সাথে মঞ্চায়ণ করে। পিরোজপুরে অভিনীত এটিই একমাত্র ইংরেজি নাটক। ওই সময় আর্টস কাঊন্সিল, অফিসার ক্লাবের প্রায় নিয়মিত নাটক মঞ্চস্থ হত। তখনকার অফিসার্স ক্লাবের কর্মকর্তা পি, আর, দত্ত চেীধুরী, শহীদ ফয়জুর রহমান (সাহিত্যিক হুমায়ুন আহম্মেদের পিতা), সরকারি কাজের অবসরে নাটকের মহড়া দেখতে প্রায় প্রতিদিন লেডিস ক্লাবে উপস্থিত থাকতেন। ৭০ দশকের শেষে লুৎফুল কবীর, আবুল কালাম, আঃ হালিমরা মিলে ‘মঞ্চমালঞ্চ’ নামে একটি নাট্য ও সাংস্কৃতিক সংগঠন গড়ে তোলেন। লুৎফুল কবীর তার নাটক ‘শতাব্দীর আবিস্কার’ লিখে প্রশংসিত হন। ১৯৭২ সালে বাদল কুমার মিত্র ও তার বন্ধুরা মিলে প্রথমে ক্রান্তি ও পরে ঝংকার শিল্পীগোষ্ঠী নামে ২টি সংগঠন গড়ে তোলেন এবং কিছুকাল পরে ২টি সংগঠনই বিলুপ্ত হয়ে যায়। ১৯৭৩ সালে মাহমুদ সেলিম, মুনিরুল করিম, সিরাজুল ইসলাম হিরণ প্রমুখ ‘যুব সাংস্কৃতিক দল’ গঠন করে তৎকালীন তথ্য মজলিস মিলায়তনে সপ্তাহব্যাপী সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। ১৯৭৪ সাল সারাদেশে দুর্ভিক্ষ দেখা যায়। পিরোজপুরে ও লঙ্গরখানা খুলে ক্ষুধার্ত জনতার মুখে খাদ্য তুলে ঐকান্তিক প্রচেষ্টা চলেছে। আঃ হালিম খান, জামালুল হকসহ বেশ কিছু রাজনীতি সচেতন সাংস্কৃতিক কর্মী মুকাভিনয়ের মাধ্যমে টাউন হল ময়দানে একটি নাটক মঞ্চস্থ করে। সমাজের অসংগতিগুলো ব্যাঙ্গ ও বিদ্রুপের মাধ্যমে তুলে ধরাই এই নাটকের মুখ্য উদ্দেশ্য ছিল। এই মূক নাটকের গৌরাঙ্গ লাল আইচ (জুয়েল আইচ) শুধুমাত্র মুখের সাহায্যে আবহসংগীতের ব্যঞ্জনা দিয়ে পরিবেশনা মানের সমৃদ্ধি ঘটান । নাটকটি পরে আরো পরিশীলিত করে টাউন হল মঞ্চে ৭২ এর স্ফুলিঙ্গ নামে অভিণীত হয়। হুলারহাট মঞ্চে নাটকটি মঞ্চায়ন করতে গেলে রক্ষীবাহিনীর হস্তক্ষেপে নাটকটি অভিনয় করতে ব্যর্থ হয়ে অভিনেতা ও নাট্যকর্মীরা নাটকের সাজপোষাকেই পিরোজপুরে হেঁটে আসেন। পথিমধ্যে রক্ষীবাহিনী নাটকের অভিনেতা সামছুদ্দোহা মিলনকে স্থানীয় এম,পি, ভেবে স্যালুট দিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে। ১৯৭৬ সালে উদীচী ও দিশারী শিল্পীগোষ্ঠি রবীন্দ্রনাথের‘ রক্তকরবী’ নাটক মঞ্চস্থ করে। প্রয়াত যাদুকর জে, এন, সাহা মঠবাড়িয়ার মোঃ মোশারফ হোসেন একুশে প্রভাত ফেরী গানের রচয়িতা ও বিশ্বখ্যাত যাদুকর জুয়েল আইচ ছাড়াও অভিনয়শিল্পী হিসাবে বেশ খ্যাতি অর্জন করেছেন রাজ, আবুয়াল হোসেন প্রমুখ। সংগীতা শিল্পীগোষ্ঠী পিরোজপুর উদীচী, দিশারী শিল্পীগোষ্ঠী, রূপান্তর নাট্যগোষ্ঠী, নাট্যচক্র, পিরোজপুর থিয়েটার, কৃষ্ণচুড়া থিয়েটার, বলাকা নাট্য নীড়সহ কয়েকটি নাট্যসংগঠন নিয়মিত নাট্যচর্চা করছে। অভিনেতা গোলাম মুস্তফা পিরোজপুরে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। পিরোজপুরে প্রখ্যাত শিল্পী খালিদ হাসান মিলুর ছেলে প্রতীক হাসান, মাহতাব উদ্দিন টুলু, শিপ্রা রানী কর্মকার, পঙ্কজ কর্মকার ও মিহির রায় সঙ্গীত শিল্পী হিসেবে জনপ্রিয়তা পেয়েছেন। পিরোজপুরের অরুন কর্মকার নৃত্যশিল্পী হিসাবে ভূমিকা রেখেছেন। পিরোজপুরের জায়েদ খান চলচ্চিত্রে নায়ক হিসেবে যথেষ্ট খ্যাতি অর্জন করেন। আবৃত্তি, নাট্যকার, নির্দেশক ও অভিনেতা হিসাবে আ,ফ,ম, রেজাউল করিম, নাট্যনির্দেশক ও অভিনেতা খান দেলোয়ার, সালেহউদ্দিন সেলিম ও আতিকুর রহমান হিরু বেশ পরিচিত নাম। পিরোজপুর অফিসার্স ক্লাব,  গোপাল কৃষ্ণ টাউন ক্লাব, বলাকা ক্লাবসহ প্রভৃতি অংগসংগঠন ভাষা ও সংস্কৃতির অগ্রযাত্রায় বিশেষ ভুমিকা রাখছে। পিরোজপুর শহরে ২টি সিনেমা হল রয়েছে । বলেশ্বর ব্রীজের পাশ্বে ডিসি পার্ক এ জেলার একমাত্র পার্ক। শহরের ৪টি কমিউনিটি সেন্টারে বিভিন্ন জাতীয় ও ব্যক্তিগত অনুষ্ঠানের আয়োজন হয়ে থাকে। [৭]

খেলাধুলাসম্পাদনা

খেলাধুলা ও বিনোদন প্রাচীন যুগে পিরোজপুর অঞ্চলের অধিকাংশ সাধারণ মানুষ ছিল কর্মক্লান্ত চাষী, তারা আনন্দ বা বিনোদনের অবসর পেত সামান্যই। তথাপিও পিরোজপুরের ক্রীড়া জগতের ইতিহাস যথেষ্ট সমৃদ্ধ। ঐতিহ্যবাহী ও উল্লেখযোগ্য খেলার মধ্যে ফুটবল, ক্রিকেট, হকি, এ্যাথলেটিকস্, টেবিল টেনিস, ভলিবল, কাবাডি, ঘুড়ি উড়ানো ইত্যাদি। পিরোজপুরের ক্রীড়াজগতে ফুটবলের কথা স্ব-মহিমায় ভাস্বর। পঞ্চাশের দশক থেকে শুরু করে বর্তমান পর্যন্ত যারা ফুটবলে প্রতিভার স্বাক্ষর রাখতে সক্ষম হয়েছেন তারা হলেন মুহম্মদ মিনা, বেলায়েত, সানাউল্লাহ, শংকর সিংহ, ফারুক, এনায়েত, মানিক, আব্দুস সালাম মধু , তোতা, বাহাদুর, লাবু , নান্না, লিটন , মেরাজ, এমিলি, এমেকা প্রমুখ। ক্রিকেটার হিসাবে আব্দুল হাদী রতন ও জাতীয় দলের শাহরিয়ার নাফিস সহ ১ম শ্রেণীর অনেক ক্রিকেটার এ জেলার মুখ উজ্জ্বল করেছে। এ্যাথলেট হিসাবে আনসার শিকদার(শর্টপুট), পনু(সাইক্লিং), তানিয়া (উচ্চ লাফ), বাহাদুর(দৌড়) প্রমুখের নাম উল্লেখ করা যেতে পারে। টেবিল টেনিসে আঃ মান্নান, কবির, সাব্বির, ইকবাল, আলমগীর, বাবু, শাহজাহান, মুন্না, সোহেল, লিটন, রিয়াজ, নিলু, তহমিনা (রৌপ পদক প্রাপ্ত)। হকিতে তুষার, মালেক , বাবু, রকিব, বাদল, রেজা, মিলন, মুসা । দাবায় চুন্নু, শহীদ , রকিবুল। ব্যাডমিন্টনে খসরু, লুৎফুল হামিদ। লন টেনিসে মাহবুবুল আলম, মোশাররফ হোসেন প্রমুখ পিরোজপুরের ক্রীড়াঙ্গনকে সমৃদ্ধ করেছেন। পিরোজপুর শহরে একটি জাতীয় মানের মাঠ রয়েছে। পিরোজপুরে প্রাক শীত মওসুমে (অক্টোবর-নভেম্বর) বাৎসরিক আন্তঃ জেলা ও আন্তঃ উপজেলা ফুটবল প্রতিযোগিতা ,শীত মৌসুমে আন্তঃ স্কুল ও আন্তঃ উপজেলা ক্রিকেট প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।এছাড়া ব্যাডমিন্টন, ভলিবল, টেবিল টেনিস ,হাডুডু প্রতিযোগিতা নিয়মিতভাবে অনুষ্ঠিত হয়।

        ==কৃতী ব্যক্তিত্ত্ব==

কবি আহসান হাবীব(১৯১৭-১৯৮৫)একজন খ্যাতিমান বাংলাদেশী কবি ও সাহিত্যিক। বিখ্যাত টিভি অভিনেতা মমতাজ হোসেন নাজিরপুরের মানুষ। জনপ্রিয় লেখক হুমায়ুন আহমেদ, অভিনেতা ও আবৃত্তিকার গোলাম মোস্তফার ছেলেবেলা কেটেছে এই পিরোজপুরেই। বিশ্ব বিখ্যাত জাদুকর জুয়েল আইচের বাড়ী পিরোজপুর শহরে।বিখ্যাত সংগীত শিল্পী খালিদ হাসাণ মিলুর জন্ম পিরোজপুরে।

দর্শনীয় স্থানসম্পাদনা

পিরোজপুর জেলার পর্যটন  ঐতিয্য পিরোজপুরের প্রাচীন মসজিদঃপিরোজপুর কেন্দ্রীয় জামে মসজিদটি আজ থেকে প্রায় ২শত ২০ বছর পূর্বে স্থাপিত হয়। ১৮৮২ সালে ভারতবর্ষের উত্তর প্রদেশের হাফেজ মোহাম্মদ সোলায়মান এই মসজিদের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। শহরের প্রাণকেন্দ্রে প্রায় ২০ শতাংশ জমি ক্রয় করে গোলপাতার ছাউনী দিয়ে মসজিদ নির্মাণ করা হয়েছিল।  গোলপাতার তৈরি মসজিদটি ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের আপ্রাণ চেষ্টায় র আর্থিক সাহায্যে ১৮৯৪ সালের দিকে পর্যায়ক্রমে দালানে উন্নীত হয়। ইয়াসিন সর্দার নামক এক ব্যক্তির কবর এখনর মসজিদের ভিতরে অবস্থিত। তিনি এই মসজিদের অন্যতম একজন খাদেম ছিলেন। [৮]

শিক্ষাসম্পাদনা

পিরোজপুর শহরের স্বাক্ষরতার হার হলো শতকরা ৭৭.৮ ভাগ। ১৮৬৫ সালে স্থাপিত মাইনর স্কুল ১৮৮২ সালে উচ্চ ইংরেজি বিদ্যালয়ে রূপান্তর এবং ১৮৯৩ সালে নারী শিক্ষার জন্য আরবান ইংলিশ গালর্স হাইস্কুল প্রতিষ্ঠিত হয়।

মঠবাড়িয়া উপজেলায় ১৯২৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়, নলী ভীমচন্দ্র মাধ্যমিক বিদ্যালয়

ভৌগোলিক উপাত্তসম্পাদনা

পিরোজপুর শহরের অবস্থানের অক্ষাংশ ও দ্রাঘিমাংশ হল ২২°৩৫′০৬″ উত্তর ৮৯°৫৮′১৯″ পূর্ব / ২২.৫৮৫০৫৬° উত্তর ৮৯.৯৭১৮৯৮° পূর্ব / 22.585056; 89.971898। সমুদ্র সমতল থেকে শহরটির গড় উচ্চতা ৩ মিটার

জনসংখ্যাসম্পাদনা

বাংলাদেশের আদমশুমারি ও গৃহগণনা-২০১১ অনুযায়ী পিরোজপুর শহরের মোট জনসংখ্যা ৬০,০৫৬ জন যার মধ্যে ৩০,০৪৮ জন পুরুষ এবং ৩০,০০৮ জন নারী। এ শহরের পুরুষ এবং নারী অনুপাত ১০১:১০০। [৯]

প্রশাসনসম্পাদনা

পিরোজপুর শহর পিরোজপুর পৌরসভা নামক একটি স্থানীয় সরকার সংস্থা(পৌরসভা) দ্বারা পরিচালিত হয় যা ৯টি ওয়ার্ড এবং ৩০টি মহল্লায় বিভক্ত। ২৯.৪৯ বর্গ কি.মি. আয়তনের পিরোজপুর শহরের পুরোটাই পিরোজপুর পৌরসভা দ্বারা শাসিত হয়। এ পৌর শহরের নাগরিকদের পৌরসেবা ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা প্রদান করাই এ সংস্থার কাজ। [১০]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "পিরোজপুর পৌরসভার মেয়র"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০২ 
  2. "পিরোজপুর নামকরণের পটভূমি"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০২ 
  3. "পিরোজপুর শহরের ইতিহাস"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০২ 
  4. "অস্ত্রাগার লুণ্ঠন"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০২ 
  5. "মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধা"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০২ 
  6. "পিরোজপুর অঞ্চলের ভাষা, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০২ 
  7. "পিরোজপুর-ইতিহাস,ঐতিহ্য পরিচিতি"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০২ 
  8. "পুরাকীর্তির সংক্ষিপ্ত বর্ণনা"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০২ 
  9. "Urban Centers in Bangladesh"। Population & Housing Census-2011 [আদমশুমারি ও গৃহগণনা-২০১১] (PDF) (প্রতিবেদন)। জাতীয় প্রতিবেদন (ইংরেজি ভাষায়)। ভলিউম ৫: Urban Area Rport, 2011। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো। মার্চ ২০১৪। পৃষ্ঠা ১৭৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০২ 
  10. "এক নজরে পৌরসভা"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০২