বরিশাল

বিভাগীয় ও জেলা শহর

বরিশাল বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের একটি প্রধান শহর। এটি বরিশাল বিভাগের অন্তর্গত ও একই সাথে জেলা ও বিভাগীয় সদর দপ্তর। কীর্তনখোলা নদীর তীরে মোগল আমলে স্থাপিত লবণচৌকি গিরদে বন্দর কে কেন্দ্র করে এ শহর গড়ে ওঠে ও ১৮০১ সালে বরিশালে তৎকালীন বাকেরগঞ্জ জেলার সদর দপ্তর স্থাপিত হলে, শহর হিসেবে এর ব্যাপক গুরুত্ব বাড়ে। দেশের খাদ্যশস্য উৎপাদনের একটি মূল উৎস এই বৃহত্তর বরিশাল। বরিশালে একটি নদীবন্দর রয়েছে যেটি দেশের অন্যতম প্রাচীন, দ্বিতীয় বৃহত্তম ও গুরুত্বপূর্ণ একটি নদীবন্দর।

বরিশাল
বাকলা, চন্দ্রদ্বীপ, বাকেরগঞ্জ
মহানগরী
বরিশাল
ডাকনাম: বাংলার ভেনিস
বরিশাল বরিশাল বিভাগ-এ অবস্থিত
বরিশাল
বরিশাল
বরিশাল বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
বরিশাল
বরিশাল
বরিশাল এশিয়া-এ অবস্থিত
বরিশাল
বরিশাল
বরিশাল পৃথিবী-এ অবস্থিত
বরিশাল
বরিশাল
বরিশালের অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২২°৪৮′০″ উত্তর ৯০°৩০′০″ পূর্ব / ২২.৮০০০০° উত্তর ৯০.৫০০০০° পূর্ব / 22.80000; 90.50000
দেশবাংলাদেশ
বিভাগবরিশাল বিভাগ
জেলাবরিশাল জেলা
পৌরসভা প্রতিষ্ঠা১৮৭৬; ১৪৭ বছর আগে (1876)
সিটি কর্পোরেশন প্রতিষ্ঠা২০০২; ২২ বছর আগে (2002)
শহর হিসাবে মর্যাদা প্রাপ্তি১৯ এপ্রিল ২০০৩ (2003-04-19)
সরকার
 • ধরনমেয়র-কাউন্সিল
 • শাসকবরিশাল সিটি কর্পোরেশন
 • মেয়রআবুল খায়ের আবদুল্লাহ
আয়তন
 • পৌর এলাকা৫৮ বর্গকিমি (২২ বর্গমাইল)
উচ্চতা১ মিটার (৪ ফুট)
জনসংখ্যা (২০২৩)
 • মহানগরী৬,৩০,৩৪৪
 • জনঘনত্ব১০,৫২৪/বর্গকিমি (২৭,২৬০/বর্গমাইল)
 • মহানগর৬,৬০,৫৬৭
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
পোস্ট কোড৮২০০
কলিং কোড০৪৩১
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট

নামকরণ সম্পাদনা

বরিশাল নামকরণ সম্পর্কে বিভিন্ন মতভেদ রয়েছে। এক কিংবদন্তি থেকে জানা যায় যে, পূর্বে এখানে খুব বড় বড় শাল গাছ জন্মাতো, আর এই বড় শাল গাছের কারণে (বড়+শাল) বরিশাল নামের উৎপত্তি। খাল বিল জলাভূমিতে ভরা বরিশালে যাতায়াতের অসুবিধাকে মাথায় রেখে চালু হয়েছে কথা "আইতে শাল যাইতে শাল, তার নাম বরিশাল"।[১] কেউ কেউ দাবি করেন, পর্তুগীজ বেরি ও শেলির প্রেমকাহিনীর জন্য বরিশাল নামকরণ করা হয়েছে। অন্য এক কিংবদন্তি থেকে জানা যায় যে, গিরদে বন্দরে (গ্রেট বন্দর) ঢাকার নবাবদের বড় বড় লবণের গোলা ও চৌকি ছিল। ইংরেজ ও পর্তুগীজ বণিকরা বড় বড় লবণের চৌকিকে 'বরিসল্ট' বলতো। অথাৎ বরি (বড়) + সল্ট (লবণ) = বরিসল্ট। আবার অনেকের ধারণা এখানকার লবণের দানাগুলো বড় বড় ছিল বলে বরিসল্ট বলা হতো। পরবর্তিতে বরিসল্ট শব্দটি পরিবর্তিত হয়ে বরিশাল নামে পরিচিতি লাভ করে।

ভৌগোলিক সীমারেখা সম্পাদনা

বরিশাল জেলা ২১ ডিগ্রি থেকে ২৩ ডিগ্রি উত্তর অক্ষাংশ এবং ৮৯ ডিগ্রি থেকে ৯১ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমায় অবস্থিত। বরিশাল শহর এর আয়তন ৯৩.৬৩ বর্গ কিমি।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

জনসংখ্যা সম্পাদনা

২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী বরিশাল মহানগরীয় অঞ্চলে বসবাসরত জনসংখ্যা ৩,২৮,২৭৮ জন। মোট জনসংখ্যার ৫১.৬৩% পুরুষ এবং ৪৮.৩৭% নারী।[২] বরিশালের নগরবাসীর মধ্যে সাক্ষরতার হার ৭৫.৩%,[৩] যা জাতীয় গড় সাক্ষরতা ৫৬.৫% এর তুলনায় অনেক বেশি।

ধর্ম সম্পাদনা

২০১১ সালে বরিশাল শহরে ধর্মবিশ্বাস[৪]
ধর্ম শতাংশ
ইসলাম
  
৮৯.৩%
হিন্দু
  
৯.৭%
অন্যান্য
  
১%

বরিশালের মোট জনসংখ্যার ৮৯.৩০% মুসলিম, যার মধ্যে অধিকাংশ সুন্নি ইসলামের হানাফি মাযহাবের অনুসারী, ৯.৭% হিন্দু, ০.৯৮% খ্রিষ্টান এবং ০.০১% বৌদ্ধ ধর্মের অনুসারী।[৪] বরিশাল শহরে মসজিদের সংখ্যা ৩৫০, গির্জার সংখ্যা ৫, এবং মন্দিরের সংখ্যা ২০ এর বেশি।

২০১৫ সাল থেকে বরিশালের সংখ্যালঘু ক্যাথলিকদের নিজস্ব রোমান ক্যাথলিক ডায়োসিজ (বিশপের এলাকা) রয়েছে।

প্রকাশনা সম্পাদনা

দৈনিক দক্ষিণাঞ্চল, দৈনিক পল্লী অঞ্চল, দৈনিক শাহনামা, দৈনিক বাংলার বনে, দৈনিক আজকের বার্তা, দৈনিক আজকের পরিবর্তন, দৈনিক মতবাদ, দৈনিক সত্য সংবাদ, দৈনিক বরিশাল বার্তা, দৈনিক ভোরের অঙ্গিকার, দৈনিক বরিশাল প্রতিদিন, দৈনিক বিপ্লবী বাংলাদেশ, দৈনিক আজকের বরিশাল, দৈনিক আজকের সময়ের বার্তা, দৈনিক বাংলাদেশ বানী, দৈনিক আজকের তালাশ, দৈনিক বরিশালের ভোরের আলো, দৈনিক বরিশালের আজকাল, দৈনিক কলমের কণ্ঠ, বরিশাল ক্রাইম নিউজ, দৈনিক বরিশালের আলো।

সাপ্তাহিকীর / সাময়িকী

বাকেরগঞ্জ পরিক্রমা, চিরন্তন বাংলা, উপকূল

উল্লেখযোগ্য স্থান ও স্থাপনা সম্পাদনা

উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্ব সম্পাদনা

আরও দেখুন সম্পাদনা

তথ্যসূত্র সম্পাদনা

  1. পবিত্র কুমার গুপ্ত (২০০০)। পূণ্যক্ষেত্র হরিহর ক্ষেত্রে। কলকাতা: স্বদেশ চর্চা কেন্দ্র। পৃষ্ঠা ১৯। 
  2. "বরিশাল সিটি কর্পোরেশন"। বরিশাল সিটি কর্পোরেশন। ২০১৩-০৭-২৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৯-১৯ 
  3. "Bangladesh Bureau of Statistics Region Census 2011 page 30" (পিডিএফ)। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো। ২০১৪-১১-১৩ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৯-২০ 
  4. "Bangladesh Bureau of Statistics Region Census 2011 page 28" (পিডিএফ)। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো। ২০১৪-০৯-২৪ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৯-২০ 

বহিঃসংযোগ সম্পাদনা