বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়

বরিশাল বিভাগে অবস্থিত বাংলাদেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের বরিশাল বিভাগে অবস্থিত অন্যতম একটি উচ্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং দেশের ৩৩ তম সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়।[১] বিশ্ববিদ্যালয়টিতে ২০১২ সালের ২৪ জানুয়ারি থেকে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়
বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের লোগো.svg
ধরনপাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়
স্থাপিত২০১১
আচার্যরাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ
উপাচার্যঅধ্যাপক ড. মো. ছাদেকুল আরেফিন
শিক্ষার্থী৭০০০ (প্রায়)
অবস্থান,
শিক্ষাঙ্গনউপশহর, ৫০ একর
সংক্ষিপ্ত নামববি
অধিভুক্তিবিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন
ওয়েবসাইটbu.ac.bd
বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবন

অবস্থানসম্পাদনা

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় মূল ক্যাম্পাস বরিশাল বিভাগ এর কীর্তনখোলা নদীর পূর্ব তীরে বরিশাল সদর উপজেলা এর কর্ণকাঠিতে শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত সেতু সংলগ্ন ঢাকা-পটুয়াখালী মহাসড়কের পাশে অবস্থিত।

ববি ক্যাম্পাস
বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় প্রবেশদ্বার
একাডেমিক ভবন থেকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণ
একাডেমিক ভবন
মহাসড়ক থেকে বিশ্ববিদ্যালয়
বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের রাতের দৃশ্য
বিশ্ববিদ্যালয় বাসসমূহ
শিক্ষার্থীদের দোতলা বাস
বঙ্গবন্ধু হল
শেখ হাসিনা হল

ইতিহাসসম্পাদনা

১৯৬০ সালে প্রথম বাংলাদেশ স্বাধীনতার আগে একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের চাহিদা তৈরি হয়। ১৯৭৩ সালে একটি শহর সমাবেশ অনুষ্ঠিত হওয়ার সময় তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ মুজিবুর রহমান ঘোষণা করেন, বরিশালে একটি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন যা আকাঙ্ক্ষিত ছিল তার। রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ১৯৭৮ সালে বরিশাল সার্কিট হাউস মধ্যে একটি সমাবেশে একটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার আকাঙ্ক্ষা প্রকাশ করেন। তিন দশক পরে বরিশাল মানুষের শক্তিশালী চাহিদা থেকে ২৯ নভেম্বর, ২০০৮ ECNEC (Executive Committee of National Economic Council) এই প্রস্তাব পাশ করে, তারপর তত্ত্বাবধায়ক সরকার দ্বারা। ২২ নভেম্বর, ২০১১, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভবনের নির্মাণ শুরু করেন। বরিশাল জিলা স্কুল অস্থায়ী ক্যাম্পাসে ২৪ জানুয়ারি, ২০১২ সালে বেলা পৌনে ১১টায় জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে শিক্ষা মন্ত্রী নুরুল ইসলাম এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষাগত কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। মুল ক্যাম্পাস ২০১৩ সালে কীর্তনখোলা নদীর পূর্ব তীরে সদর উপজেলার কর্ণকাঠিতে নির্ধারিত হয়। কীর্তনখোলা নদীর তীরে কর্ণকাঠি এলাকায় রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়টির পূর্ণাঙ্গ ক্যাম্পাস যেখানে সকল বিভাগের শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।

অনুষদ ও বিভাগ সমূহসম্পাদনা

২০১১-১২ শিক্ষাবর্ষের জন্য ক্লাস শুরু হয় ২০১২ সালের ২৪ জানুয়ারী; ছয়টি বিষয় নিয়েঃ

  1. ইংরেজি
  2. গণিত
  3. ব্যবস্থাপনা
  4. বিপণন
  5. অর্থনীতি
  6. সমাজবিজ্ঞান

বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়টিতে ৬টি অনুষদের অধীনে ২৪টি বিভাগ রয়েছে।

জীববিজ্ঞান অনুষদসম্পাদনা

  • সয়েল এন্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সেস বিভাগ;

প্রদত্ত ডিগ্রি: বিএস(সম্মান), এম.এস.। প্রতিষ্ঠাকাল: ২০১৩।

  • উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগ; প্রদত্ত ডিগ্রি: বি.এসসি. (সম্মান)। প্রতিষ্ঠাকাল: ২০১৪
  • কোস্টাল স্টাডিজ এন্ড ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট; প্রদত্ত ডিগ্রি: বি.এসসি (সম্মান)। প্রতিষ্ঠাকাল ২০১৭
  • বায়োকেমিস্ট্রি এন্ড বায়োটেকনোলজি; প্রদত্ত ডিগ্রি: বি.এসসি (সম্মান)। প্রতিষ্ঠাকাল ২০১৮

বিজ্ঞান ও প্রকৌশল অনুষদসম্পাদনা

  • গণিত বিভাগ; প্রদত্ত ডিগ্রি: বি.এসসি. (সম্মান), এম.এসসি.। প্রতিষ্ঠাকাল ২০১২।
  • কম্পিউটার সায়েন্স এবং ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ; প্রদত্ত ডিগ্রি: বি.এসসি. (সম্মান)। প্রতিষ্ঠাকাল ২০১৪।
  • রসায়ন বিভাগ; প্রদত্ত ডিগ্রি: বি.এসসি. (সম্মান)। প্রতিষ্ঠাকাল ২০১৪
  • পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ; প্রদত্ত ডিগ্রি: বি.এসসি. (সম্মান)। প্রতিষ্ঠাকাল ২০১৫
  • জিওলজি এন্ড মাইনিং বিভাগ; প্রদত্ত ডিগ্রি: বি.এসসি. (সম্মান)। প্রতিষ্ঠাকাল ২০১৫
  • পরিসংখ্যান (সম্মান); প্রতিষ্ঠাকাল ২০১৮

কলা এবং মানবিক অনুষদসম্পাদনা

  • ইংরেজি বিভাগ; প্রদত্ত ডিগ্রি: বি.এ. (সম্মান)। এম. এ; প্রতিষ্ঠাকাল ২০১২
  • বাংলা বিভাগ; প্রদত্ত ডিগ্রি: বি.এ. (সম্মান)। এম. এ; প্রতিষ্ঠাকাল ২০১৩
  • দর্শন বিভাগ; প্রদত্ত ডিগ্রি: বি.এ (সম্মান)। প্রতিষ্ঠাকাল ২০১৭
  • ইতিহাস ও সভ্যতা; প্রদত্ত ডিগ্রি: বি.এ (সম্মান)। প্রতিষ্ঠাকাল ২০১৮

সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদসম্পাদনা

  • অর্থনীতি বিভাগ; প্রদত্ত ডিগ্রি: বি.এস.এস (সম্মান), এম.এস.এস। প্রতিষ্ঠাকাল ২০১২
  • লোক প্রশাসন বিভাগ; প্রদত্ত ডিগ্রি: বি.এস.এস (সম্মান), এম.এস.এস। প্রতিষ্ঠাকাল ২০১৩
  • রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ; প্রদত্ত ডিগ্রি: বি.এস.এস (সম্মান)। প্রতিষ্ঠাকাল ২০১৪
  • সমাজ বিজ্ঞান বিভাগ; প্রদত্ত ডিগ্রি: বি.এস.এস (সম্মান), এম.এস.এস। প্রতিষ্ঠাকাল ২০১২
  • গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা। প্রদত্ত ডিগ্রি: বি.এস.এস (সম্মান)। প্রতিষ্ঠাকাল ২০১৮

ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদসম্পাদনা

  • একাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগ; প্রদত্ত ডিগ্রি: বি.বি.এ. (সম্মান) এম.বি.এ। প্রতিষ্ঠাকাল ২০১৩
  • ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগ; প্রদত্ত ডিগ্রি: বি.বি.এ. (সম্মান), এম.বি.এ। প্রতিষ্ঠাকাল ২০১২
  • মার্কেটিং বিভাগ; প্রদত্ত ডিগ্রি: বি.বি.এ. (সম্মান), এম.বি.এ। প্রতিষ্ঠাকাল ২০১২
  • ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং বিভাগ; প্রদত্ত ডিগ্রি: বি.বি.এ. (সম্মান), এম.বি.এ। প্রতিষ্ঠাকাল ২০১৪

আইন অনুষদসম্পাদনা

  • আইন বিভাগ; প্রদত্ত ডিগ্রি: এল.এল.বি. (সম্মান)। প্রতিষ্ঠাকাল ২০১৪।

ভবনসমূহসম্পাদনা

  • একাডেমিক ভবন ১

ভবনটির নাম বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর ভবন। এটি একটি ৬ তলা বিশিষ্ট ভবন। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ১২টি বিভাগের একাডেমিক কার্যক্রম এখানে পরিচালিত হয়।

  • একাডেমিক ভবন ২

ভবনটির নাম বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল ভবন। এটি একটি ৬ তলা বিশিষ্ট ভবন। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ১২টি বিভাগের একাডেমিক কার্যক্রম এখানে পরিচালিত হয়। ভবনটির ৫ম তলায় কীর্তনখোলা অডিটোরিয়াম অবস্থিত।

  • প্রশাসনিক ভবন ১

এটি একটি ৬ তলা ভবন। মাননীয় ভাইস চ্যান্সেলরের কার্যালয় এ ভবনে অবস্থিত। বিভিন্ন প্রশাসনিক দপ্তরের কার্যালয়ের পাশাপাশি এ ভবনের কিছু অংশ একাডেমিক কার্যক্রমের জন্য ব্যবহৃত হয়।

  • প্রশাসনিক ভবন ২

এটিও একটি ৬ তলা ভবন। এই ভবনে বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অফিস, কলা ও মানবিক অনুষদের ডিন অফিস, রেজিস্ট্রারের কার্যালয়, নেটওয়ার্কিং ও আইটি সেকশন, ব্যাংক অবস্থিত। এছাড়া কিছু অংশে একাডেমিক কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। ভবনটির ৬ষ্ঠ তলায় জীবনানন্দ দাশ কনফারেন্স হল অবস্থিত।

  • কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার

বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের নাম "শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার"। এটি একটি চারতলা ভবন। গ্রন্থাগার ভবনের নিচতলায় রিডিং রুম এর পাশাপাশি একটি মেডিকেল সেন্টার আছে, যেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা চিকিৎসা সেবা পেয়ে থাকেন।

  • কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়া ও ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) ভবন

বিশ্ববিদ্যালয়ের এটি একটি ৫ তলা বিশিষ্ট ভবন। ভবনটির নিচ তলায় কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়ার অবস্থান। ভবন এর উপরিঅংশে টিএসসি অবস্থিত।

  • মুক্তমঞ্চ

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তমঞ্চ কেন্দ্রীয় খেলার মাঠের উত্তর পাশে অবস্থিত। এখানে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

  • অন্যান্য ভবন

বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যান্য ভবন গুলোর মধ্যে রয়েছে উপাচার্যের বাসভবন, ২টি ডরমিটরি এবং একটি শিক্ষক আবাসিক ভবন। এছাড়া নিরাপত্তার জন্য রয়েছে একটি পুলিশ ক্যাম্প এবং বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য রয়েছে একটি সাবস্টেশন।

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারসম্পাদনা

বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারটি কেন্দ্রীয় খেলার মাঠের দক্ষিণ পাশে অবস্থিত। ২০১৬ সালে বিজয়ের মাসের প্রথম দিন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় (ববি) ক্যাম্পাসে উদ্বোধন করা হয় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার।

আবাসিক হলসম্পাদনা

ছাত্র হল:

  • বঙ্গবন্ধু হল

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামানুসারে এই হলের নামকরণ করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু হল ৫ তলা বিশিষ্ট ভবন যা দুইটি ব্লকে বিভক্ত। এখানে মোট ৮১টি আবাসিক কক্ষ রয়েছে। ব্লক ২ এর নিচতলা ডাইনিং, দ্বিতীয় তলা কমন রুম, ইনডোর গেমস ও টিভি রুম, ৩য় তলা রিডিং রুম ও নামাজ রুম হিসেবে ব্যবহৃত হয়। বঙ্গবন্ধু হলের মোট আসন সংখ্যা ৬১০।

  • শেরে বাংলা হল

শেরে বাংলা হল ৫ তলা বিশিষ্ট ভবন যা দুইটি ব্লকে বিভক্ত। এখানে মোট ৮১টি আবাসিক কক্ষ রয়েছে। ব্লক ২ এর নীচতলা ডাইনিং, দ্বিতীয় তলা কমন রুম, ইন্ডোর গেমস ও টিভি রুম, ৩য় তলা রিডিং রুম ও নামাজ রুম হিসেবে ব্যবহৃত হয়। শেরে বাংলা হলের মোট আসন সংখ্যা ৬১০।

ছাত্রী হল:

  • শেখ হাসিনা হল

শেখ হাসিনা হল ৫ তলা বিশিষ্ট ভবন যা দুইটি ব্লকে বিভক্ত। এখানে মোট ৮১টি আবাসিক কক্ষ রয়েছে। ব্লক ২ এর নীচতলা ডাইনিং, দ্বিতীয় তলা কমন রুম, ইন্ডোর গেমস ও টিভি রুম, ৩য় তলা রিডিং রুম ও নামাজ রুম হিসেবে ব্যবহৃত হয়। শেখ হাসিনা হলের মোট আসন সংখ্যা ৬১০।

  • বঙ্গমাতা শেখ ফজিলতুন্নেছা মুজিব হল

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় (ববি) শিক্ষার্থীদের আবাসন সংকট সমাধানকল্পে বিশ্ববিদ্যালয়ের চতুর্থ আবাসিক হল (ছাত্রীদের ২য়) নির্মিত হয় শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল। বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বাধুনিক এই আবাসিক হল তৈরিতে ব্যয় হয়েছে ১৩ কোটি ৭৩ লক্ষ ৪২ হাজার টাকা। যার ফলে প্রায় ৫০০ শিক্ষার্থীর আবাসন সমস্যা দূর হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

কেন্দ্রীয় জামে মসজিদসম্পাদনা

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের একাংশে ২০ শতাংশ জমির ওপর ৬ কোটি ৯৩ লাখ টাকা ব্যয়ে তিনটি দৃষ্টিনন্দন গম্বুজসহ তিনতলা বিশিষ্ট মসজিদ নির্মাণ করা হয়েছে। শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত মসজিদটিতে একইসঙ্গে প্রায় ২ হাজার মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারবেন। মসজিদের ফ্লোরে ব্যবহার করা হয়েছে মার্বেল পাথর। রয়েছে ডিজিটাল সাউন্ড সিস্টেম। কেন্দ্রীয় এ মসজিদটির নির্মান কাজ শুরু হয়েছিল ২০১৮ সালের জানুয়ারি মাসে।

পরিবহনসম্পাদনা

  • যাতায়াতের সুবিধার জন্য রয়েছে ৬টি ডাবল ডেকার ও দুইটি সিঙ্গেল ডেকার বিআরটিসি বাসসহ মোট ২০টি বাস।

শিক্ষার্থীদের জন্য বাসগুলো নগরীর ৩ টি রুটে চলাচল করে, রুট গুলো হলো:

  • বিশ্ববিদ্যালয় - বরিশাল ক্লাব
  • বিশ্ববিদ্যালয় - নতুন বাজার
  • বিশ্ববিদ্যালয় - নথুল্লাবাদ ব্রিজের ঢাল

বাস সমূহ:

  • লতা
  • পায়রা
  • কীর্তনখোলা
  • বৈকালি
  • চিত্রা
  • ধানসিড়ি
  • সন্ধ্যা
  • সুগন্ধা
  • আন্ধারমানিক
  • নয়াভাঙ্গানী
  • ইলিশা
  • বিআরটিসি- ৫, ৬ (সিঙ্গেল ডেকার)
  • বিআরটিসি- ৭, ৮, ৯, ১০, ১১, ১২ (ডাবল ডেকার)

সংগঠনসমূহসম্পাদনা

রাজনৈতিক ছাত্র সংগঠন


সাংবাদিক সংগঠন

  • বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস ক্লাব
  • বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি(ববিসাস)


দক্ষতা উন্নয়ন ও সামাজিক সংগঠন

  • বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় আইটি সোসাইটি
  • বিইউ রেডিও
  • বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটি
  • বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ফটোগ্রাফিক সোসাইটি
  • বাঁধন, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিট
  • প্রথম আলো বন্ধুসভা
  • সমকাল সুহৃদ সমাবেশ
  • পদাতিক সামাজিক ও সাংস্কৃতিক মঞ্চ
  • রংধনু
  • বিএনসিসি
  • রোভার স্কাউট
  • বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ক্যারিয়ার ক্লাব
  • একাত্তরের চেতনা
  • বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় নাট্যদল
  • রোটারি ক্লাব
  • কীর্তনখোলা ফিল্ম সোসাইটি
  • বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় কুইজ সোসাইটি
  • সোশ্যাল কেয়ার এন্ড ক্যারিয়ার ফাউন্ডেশন

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়"। ১৮ জুন ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ অক্টোবর ২০১২ 


বহিঃসংযোগসম্পাদনা