২০১২ (চলচ্চিত্র)

২০০৯ সালের মার্কিন দুর্যোগ চলচ্চিত্র

২০১২ হল ২০০৯ সালের মার্কিন দুর্যোগ চলচ্চিত্র,[৩] যেটি রচনা এবং পরিচালনা করেছেন রোলান্ড এমেরিখ। চলচ্চিত্রটি প্রযোজনা করেছেন হ্যারাল্ড ক্লোজার, মার্ক গর্ডন এবং ল্যারি জে. ফ্রাঙ্কো। ক্লোসার এবং এমেরিখ যৌথভাবে চলচ্চিত্রটির চিত্রনাট্য রচনা করেছেন এবং এটির প্রযোজনা ও পরিবেশনা করেছে যথাক্রমে সেন্ট্রোপলিস এন্টারটেইনমেন্টকলাম্বিয়া পিকচার্স[৪] মূল চরিত্রসমূহের অভিনয়ে ছিলেন জন কিউস্যাক, চুয়াটেল এজিওফর, অ্যামান্ডা পিট, অলিভার প্লাট, ট্যান্ডি নিউটন, ড্যানি গ্লোভার এবং উডি হ্যারেলসন

২০১২
২০১২ (চলচ্চিত্র).jpg
প্রেক্ষাগৃহে মুক্তির পোস্টার
মূল শিরোনাম2012
পরিচালকরোলান্ড এমেরিখ
প্রযোজক
রচয়িতা
  • হ্যারাল্ড ক্লোজার
  • রোলান্ড এমেরিখ
কাহিনিকার
  • রোলান্ড এমেরিখ
  • হ্যারাল্ড ক্লোজার
উৎসগ্রাহাম হ্যানকক কর্তৃক 
ফিঙ্গারপ্রিন্ট অব দ্য গড্‌স
শ্রেষ্ঠাংশে
সুরকার
চিত্রগ্রাহকডিন স্মেলার
সম্পাদক
প্রযোজনা
কোম্পানি
পরিবেশককলাম্বিয়া পিকচার্স
মুক্তি
  • ১৩ নভেম্বর ২০০৯ (2009-11-13)
দৈর্ঘ্য১৫৮ মিনিট
দেশমার্কিন যুক্তরাষ্ট্র[১]
ভাষাইংরেজি
নির্মাণব্যয়$২০০ মিলিয়ন[২]
আয়$৭৬৯.৭ মিলিয়ন[২]

চলচ্চিত্রটিতে ভূতাত্ত্বিক অ্যাড্রিয়ান হেল্মস্‌লে (চুয়াটেল এজিওফর) আবিষ্কার করেন যে গ্রহগুলির দূরত্বের কারণে সৃষ্ট বিশাল সৌর বিস্তারণ ঘটার কারণে পৃথিবীর ভূত্বক অস্থিতিশীল হয়ে উঠেছে এবং এর ফলে সৃষ্ট চরম প্রাকৃতিক দুর্যোগে বিশ্ব ধ্বংস হওয়ার মুহূর্তে ঔপন্যাসিক জ্যাকসন কার্টিসের (জন কুস্যাক) তার পরিবারকে নিরাপদ অবস্থানে আনার কাহিনি চিত্রায়ন করা হয়েছে। চলচ্চিত্রে মায়াবাদমেসোআমেরিকান লং কাউন্ট পঞ্জিকা থেকে সূত্র অন্তর্ভুক্ত হয়েছে এবং ২০১২ সালের রাহস্যিক বিষয়ের আকস্মিক ও প্রচণ্ড পরিবর্তনের ঘটনা বর্ণনাকারে উন্মোচিত হয়েছে।

শুরুতে লস অ্যাঞ্জেলেসে চিত্রধারণের পরিকল্পনা থাকলেও ২০০৮ সালের আগস্ট মাসে ভ্যানকুভারে এটির চিত্রধারণ শুরু হয়।[৫] বিপণন প্রচারাভিযানের অংশ হিসেবে প্রধান চরিত্রের দৃষ্টিভঙ্গি থেকে একটি ভাইরাল বাজারজাতকরণ ওয়েবসাইট[৬] তৈরি করা হয়েছিল, যেখানে চলচ্চিত্রের দর্শকেরা আসন্ন বিপর্যয় থেকে নিজেদের রক্ষা করতে একটি লটারি সংখ্যার জন্য নিবন্ধন করার সুযোগ পেয়েছিল।[৭] দীর্ঘসময়ব্যাপী এই প্রচারাভিযানের পর চলচ্চিত্রটি আন্তর্জাতিকভাবে ২০০৯ সালের ১৩ নভেম্বর মুক্তি পায়। $২০০ মিলিয়ন বাজেটের[৮] চলচ্চিত্রটি বিশ্বজুড়ে বক্স অফিসে $৭৬৯.৭ মিলিয়ন আয়ের মাধ্যমে ২০০৯ সালের পঞ্চম সর্বোচ্চ-উপার্জনকারী চলচ্চিত্র হয়ে উঠে।[২] সমালোচকদের অধিকাংশই চলচ্চিত্রটির নেতিবাচক সমালোচনা করেন। তারা বিশেষ আবহের প্রশংসা করলেও এর চিত্রনাট্য এবং দৈর্ঘ্যের (১৫৮ মিনিট) সমালোচনা করেন।

কাহিনিসংক্ষেপসম্পাদনা

২০০৯ সালে মার্কিন ভূতাত্ত্বিক অ্যাড্রিয়ান হেল্মস্‌লে ভারতীয় জ্যোতির্বস্তুবিদ সাতনাম সুরুতানির সঙ্গে সাক্ষাত করেন। সেখানে তিনি জানতে পারেন যে, বিশাল সৌর বিস্তারণ থেকে নির্গত প্রতিনিউট্রিনো ভূগর্ভের ভেতরের তাপমাত্রাকে চক্রাকারে বৃদ্ধি করছে। ওয়াশিংটন, ডিসির এক অনুষ্ঠানে, হেল্মস্‌লে হোয়াইট হাউজের প্রধান কর্মকর্তা কার্ল অ্যানহিউজারের নিকট তার তথ্য প্রদর্শন করেন, যিনি তাকে রাষ্ট্রপতির সাথে সাক্ষাতের ব্যবস্থা করেন।

২০১০ সালে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি থমাস উইলসন এবং অন্যান্য আন্তর্জাতিক নেতা মিলে মানবজাতির টিকে থাকার জন্য একটি গোপন প্রকল্প শুরু করেন। চীন সহ জি৮ রাষ্ট্রসমূহ নয়টি বিশাল আর্ক নির্মাণ করে, যার প্রতিটি চাও মিঙ, তিব্বত, হিমালয় এবং চীনের নিকটবর্তী ১০০,০০০ মানুষ বহন করতে সমর্থ। সেখানে বসবাসকারী তেনজিং নামক আর্ক প্রকল্প নির্মাণে অংশ নেওয়া এক ব্যক্তির ভাই নিমা, যিনি একজন বৌদ্ধ সন্ন্যাসী। প্রতিজনের জন্যে ১ বিলিয়ন পাউন্ড ব্যয়ে টিকিট বিক্রির মাধ্যমে বৃহৎ অর্থের যোগান হয়। ২০১১ সালের দিকে ডক্টর লারা উইলসনের শিল্পবিশেষজ্ঞ প্রথম কন্যার সাহায্যে মূল্যবান জিনিসপত্র নৌকায় স্থানান্তরিত করা হয়।

২০১২ সালে বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনি লেখক জ্যাকসন কার্টিস লস অ্যাঞ্জেলেসে রুশ ধনকুবের ইয়ুরি কার্পোভের গাড়িচালকের কাজ নেন। জ্যাকসনের প্রাক্তন স্ত্রী কেট এবং তাদের সন্তান নোয়া ও লিলি, কেটের প্রেমিক ও একজন প্লাস্টিক সার্জন গর্ডন সিলবারম্যানের সাথে বসবাস করতেন। জ্যাকসন নোয়া এবং লিলিকে ইয়েলোস্টোন জাতীয় উদ্যানে এক প্রচারাভিযান নিয়ে যান। সেখানে মার্কিন সেনাবাহিনী কর্তৃক "বিপদজনক" চিহ্নিত একটি বেড়াবেষ্টিত এলাকা খুঁজে পেয়ে জ্যাকসন বিপদ এড়াতে তার সন্তানদের বেড়ার উপর দিয়ে নিয়ে যান, যেখানে তারা হেল্মসের চোখে ধরা পড়ে। সামরিক প্রহরা থেকে মুক্তির পর তারা চার্লি ফ্রস্টের সাথে দেখা করে, যিনি উদ্যানের একজন বেতার অনুষ্ঠানের আয়োজক ছিলেন।

সেই রাতেই, সামরিক বাহিনী ইয়েলোস্টোন ত্যাগ করার পরে, জ্যাকসন চার্লির হ্যাপগুডের তত্ত্ব বিষয়ক চার্লির ভিডিওতে দেখেন যে মেরু পরিবর্তন এবং মেসোআমেরিকান লং কাউন্ট পঞ্জিকা ২০১২ রহস্য ও বিশ্বে ধ্বংসের পূর্বাভাস দেয়। চার্লি লক্ষ্য করেন যে বিষয়টি যে কেউ জনসাধারণকে অবহিত করার চেষ্টা করলে তাকে হত্যা করা হয়। জ্যাকসন ও তার সন্তানেরা ঘরে ফেরার পরপরই ক্যালিফোর্নিয়ায় ভূমিকম্প শুরু হয়। জ্যাকসন একটি বেসরকারি বিমান ভাড়া করে এবং আর্থ-ক্রাস্টের স্থানচ্যুতি শুরু হওয়ার সাথে সাথে তার পরিবারকে উদ্ধার করেন, যার ফলে ১০.৯ মাত্রার ভূমিকম্প হয়েছিল। জ্যাকসন এবং তার পরিবার লস অ্যাঞ্জেলেস থেকে পালিয়ে যাওয়ার সময় দেখতে পায় শহরটি প্রশান্ত মহাসাগরে ধসে পড়েছে।

দলটি আর্কের অবস্থানের সাথে চার্লির কাছ থেকে একটি মানচিত্র পুনরুদ্ধার করতে ইয়েলোস্টোন অভিমুখে উড়ে যায়। তারা চলে যাওয়ার পরপরই ইয়েলোস্টোন ক্যালডেরা বিস্ফোরিত হয়; বিস্ফোরণে চার্লি মারা যায়। দলটি একটি বৃহত্তর বিমান খুঁজে পেতে এবং ইউরি ও তার যমজ পুত্র আলেক ও ওলেগ, ইউরির বান্ধবী তামারা এবং তাদের পাইলট সাশার সাথে দেখা করার জন্য লাস ভেগাসে অবতরণ করে। ইয়েলোস্টোন ভস্ম মেঘে আচ্ছন্ন লাস ভেগাসে শাশা এবং গর্ডন এন্টোনভ আন-৫০০ বিমানে তাদের পৌছে দিয়েছিল।

অ্যাড্রিয়ান, কার্ল এবং লরা এয়ার ফোর্স ওয়ান থেকে আর্কের দিকে উড়ে যায়। উইলসন ওয়াশিংটন, ডি.সি. থেকে জাতির প্রতি ভাষণ দেয়ায় নিয়োজিত ছিলেন এবং ভূমিকম্পেমেগাসুনামিতে কয়েক লক্ষ মানুষের সাথে তিনিও মারা যান। রাষ্ট্রপতির উত্তরাধিকার ভাঙ্গার সাথে-সাথে কার্ল ভারপ্রাপ্ত সর্বাধিনায়কের পদ গ্রহণ করেন।

জ্যাকসনের দল চীন পৌঁছানোর পরপর তাদের বিমানের জ্বালানি ফুরিয়ে যায়। কার্ভা হোল্ডে থাকা বেন্টলি কন্টিনেন্টাল ফ্লাইং স্পারে অন্যরা পালানোর কারণে সাশা বিমানটি উড়িয়ে নিতে থাকে। বিমানটি একটি পর্বতচূড়ার সাথে ধাক্কা লেগে উপর থেকে পিছলে পড়ে যাওয়ায় সাশার মৃত্যু ঘটে। বাকিদের অন্য একটি চীনা বিমানবাহিনীর হেলিকপ্টার দ্বারা চিহ্নিত করা হয়। ইউরি ও তার ছেলেদের, যাদের টিকিট রয়েছে, আর্কে আনা হয়েছিল কিন্তু তমারা ও গর্ডন সহ কার্টিস পরিবারকে আর্কে নেয়ার পরিবর্তে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল। বাকি দলটি নিমাকে ধরে নিয়ে যায় এবং তার দাদা-দাদির সাথে আর্কে নিয়ে আসে। তেনজিংয়ের সহায়তায় তারা আর্ক ৪ থেকে অদূরে অবস্থান নিয়েছিল, যেখানে মার্কিন সেনাবাহিনী অবস্থান করছিল। একটি মেগাসুনামি হিমালয় ভেঙে সেদিকে তেড়ে আসার মুহূর্তে একজন প্রভাবশালী চালক আর্কের দরজার গিয়ারে বসে বোর্ডিং গেটটি খোলা রাখে, যা আর্কের ইঞ্জিনগুলো চালু হতে বাধা দেয়। পরবর্তী বিশৃঙ্খলায় গর্ডন, ইউরি এবং তমারা নিহত হয়। এসময় তেনজিং আহত হয়, আর্কে জল ঢুকতে শুরু করে। জ্যাকসন এবং নোয়া এই সরঞ্জামটি বাতিল করে দেয় এবং ক্রুরা মাউন্ট এভারেস্টে আঘাত হানার পূর্বে আর্কটির নিয়ন্ত্রণ ফিরে পায়। জ্যাকসন তার পরিবারের সাথে পুনরায় মিলিত হন এবং কেটের সাথেও তার পুনর্মিলন ঘটে।

সাতাশ দিন পরে জল নেমে আসে। আর্কগুলো উত্তমাশা অন্তরীপের নিকটে পৌঁছে, যেখানে পৃথিবীর সর্বোচ্চ পর্বতমালা ড্রাকেন্সবার্গ উদয় হয়েছে। অ্যাড্রিয়ান এবং লরার মধ্যে সম্পর্ক শুরু হয় এবং জ্যাকসন ও কেটের প্রণয় পুনরুজ্জীবিত হয়। মহাকাশ থেকে ঘোষণা আসে যে গ্রহের একমাত্র ল্যান্ডমাস হিসেবে আফ্রিকা মহাদেশ, ইউরোপ এবং এশিয়ার কয়েকটি অঞ্চল জলরাশির উপরে উঠে এসেছে।

বিকল্প সমাপ্তিসম্পাদনা

চলচ্চিত্রের ডিভিডি মুক্তির সংস্করণে বিকল্প সমাপ্তি দেখানো হয়েছে। আর্ক ৪-এর ক্যাপ্টেন মাইকেলের কেপ অব গুড হোপের শীর্ষে থাকার ঘোষণার পর অ্যাড্রিয়ান ফোনে জানতে পারেন যে তার বাবা হ্যারি এবং হ্যারির বন্ধু টনি একটি মেগাসুনামি থেকে রক্ষা পেয়েছে যেটি তাদের ক্রুজ জাহাজ জেনেসিসকে আঘাত করেছিল। অ্যাড্রিয়ান এবং লরা কর্টিজের মাঝে বন্ধুত্ব গড়ে উঠে। লিলির যত্ন নেওয়ার জন্য লরাকে ধন্যবাদ জানান কেট। অন্যদিকে লরা, জ্যাকসনকে বলেছিলেন যে তিনি তার ফেয়ারওয়েল আটলান্টিস বইটি উপভোগ করেছেন এবং জ্যাকসন ও অ্যাড্রিয়ান বিশ্বসঙ্কটের ঘটনাগুলো প্রতিফলিত করার জন্য একটি কথোপকথন চালান। জ্যাকসন নোয়ার সেল ফোনটি ফিরিয়ে দেন, যা তিনি আর্ক ৪ ডোবার সময় পুনরুদ্ধার করেছিলেন। আর্কটি সৈকতে বিধ্বস্ত জেনেসিস জাহাজ এবং তাতে বেঁচে থাকা লোকদের খুঁজে পায়।[৯][১০]

কুশীলবসম্পাদনা

উৎপাদনসম্পাদনা

অগ্রগতিসম্পাদনা

চলচ্চিত্রটি গ্রাহাম হ্যানকক রচিত ফিঙ্গারপ্রিন্ট অব দা গড্‌স (১৯৯৫) বই থেকে অনুপ্রেরিত হয়ে নির্মিত হয়েছে।[১৫] লন্ডনের টাইম আউট সাময়িকীর এক সাক্ষাৎকারে এমেরিখ বিবৃতি দেন: "আমি সবসময় চেয়েছি বাইবেলিয় প্লাবন সম্পর্কে চলচ্চিত্র নির্মাণ করতে, কিন্তু কখনো ভাবি নি এই বইটি আমার কাছে থাকতে পারে। আমি প্রথমে গ্রাহাম হ্যানককের ফিঙ্গারপ্রিন্ট অব দা গড্‌স বইয়ে 'আর্থ ক্রাস্ট ডেভেলপমেন্ট থিওরি' সম্পর্কে পড়ে নিই।"[১৬] পরিচালক এমেরিখ এবং সুরকার-প্রযোজক হ্যারাল্ড ক্লোজারের মধ্যে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল এবং তারা যৌথভাবে "২০১২" শিরোনামে একটি স্পেস স্ক্রিপ্ট রচনা করেন, যা ২০০৮ সালের ফেব্রুয়ারি বাজারে ছাড়া হয়। কাছাকাছি প্রায় সব স্টুডিও এমেরিখের সাথে যোগাযোগ করতে আসে এবং তার প্রতিনিধিদের পরিচালক বাজেট অভিক্ষেপ এবং গল্প পরিকল্পনা সম্পর্কে জানতে চায়। এটি ছিল এমন একটি প্রক্রিয়া যা পূর্বে ইন্ডিপেন্ডেন্স ডে (১৯৯৬) এবং দা ডে আফটার টুমরো (২০০৪) চলচ্চিত্রের পরিচালকের ক্ষেত্রেও ঘটেছিল।[১৭]

 
২০১২ চলচ্চিত্রে দুনিয়া ধংসের মূহুর্তের একটি দৃশ্য

সেই মাসের শেষে কলাম্বিয়া পিকচার্সের অধিনে পরিবেশনের পরিকল্পনায় সনি পিকচার্স এন্টারটেনমেন্ট স্প্যাক স্ক্রিপ্টের স্বত্ত্বাধিকার জিতে নেয়,[১৮] এবং চলচ্চিত্রটি স্বল্প বাজেটে তৈরি করা হয়। এমেরিখের মতে, চলচ্চিত্রটি অবশেষে প্রায় $২০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে তৈরি করা হয়েছিল।[৮]

২০০৮ সালের জুলাই মাসে ক্যালিফোর্নিয়ার লস অ্যাঞ্জেলেসে চলচ্চিত্রটির চিত্রগ্রহণ শুরু হয়েছিল,[৫] কিন্তু এর পরিবর্তে কামলুপ্স, সাভোনা, ক্যাশে ক্রিক এবং অ্যাশক্রফট, ব্রিটিশ কলাম্বিয়ায় চিত্রগ্রহণ করা হয়।[১৯] সম্ভাব্য স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড স্ট্রাইকের কারণে চলচ্চিত্রের প্রযোজকরা এর উদ্ধার করার জন্য একটি অবিচ্ছিন্ন পরিকল্পনা করেছিলেন।[২০] ২০১২-এর কম্পিউটার-অ্যানিমেটেড ভিজ্যুয়াল এফেক্টগুলি তৈরি করতে আনচার্টেড টেরিটরি, ডিজিটাল ডোমেইন, ডিএনইজি, স্ক্যানলাইন এবং সনি পিকচার্স ইমেজওয়ার্ককে দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল।

চলচ্চিত্রটিতে বিশ্বজুড়ে বেশ কয়েকটি সাংস্কৃতিক ও ঐতিহাসিক স্থাপনার ধ্বংস চিত্রিত হয়েছে। এমেরিখ বলেন যে, কাবা ধ্বংসের জন্য নির্বাচিত হয়েছিল, তবে তার বিরুদ্ধে সম্ভাব্য ফতোয়া সম্পর্কে উদ্বিগ্ন থাকায় তা বাদ দেয়া হয়।[২১][২২]

বিপণনসম্পাদনা

জ্যাকসন কার্টিসের ফেয়ারওয়েল আটলান্টিস বইয়ের সমন্বয়ে "ইনস্টিটিউট অব হিউম্যান কন্টিনিউটি" নামক কাল্পনিক সংস্থা কর্তৃক এই চলচ্চিত্রের বিপণন প্রচারাভিযান শুরু হয়,[৬] স্ট্রিমিং মিডিয়া, ব্লগ আপডেট এবং বেতার সম্প্রচার সহ চার্লি ফ্রস্টের This Is The End ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রচার জোরেশোরে চলতে থাকে।[৬] ২০০৮ সালের ১২ নভেম্বর স্টুডিও এই চলচ্চিত্রের প্রথম ট্রেইলর প্রকাশ করে, যেখানে দেখানো হয়, একটি সুনামি হিমালয় পর্বতমালার উপর দিয়ে ধাবিত হচ্ছে এবং যা থেকে বুঝা যায় ২০১২ সালে বিশ্ব ধ্বংস হতে যাচ্ছে। এর মাধ্যমে বার্তা দেয়া হয় যে, আন্তর্জাতিক সরকার বিশ্ববাসীকে এই ঘটনার জন্যে প্রস্তুত করে নি। এই ট্রেইলরের সমাপ্তিতে দর্শকদের প্রতি সার্চ ইঞ্জিনে "২০১২"-এর পাশাপাশি "সত্যকে খুঁজে নাও" অনুসন্ধানের একটি বার্তা রাখা হয়। দ্য গার্ডিয়ান এই চলচ্চিত্রটির বিপণন এবং সম্পৃক্ত "ওয়েবসাইট যেগুলো ২০১২ সম্পর্কে মিথ্যা উৎসাহের দাবি তোলে" সেগুলির সম্পর্কে প্রতিক্রিয়ামূলক সমালোচনা করে একে "গভীরভাবে ত্রুটিযুক্ত" মন্তব্য করেছিল।[২৩]

এছাড়াও এই স্টুডিও এর কাল্পনিক সংস্থা ইনস্টিটিউট অব হিউম্যান কন্টিনিউটির তত্ত্বাবধানে একটি ভাইরাল বিপণন ওয়েবসাইট তৈরি করেছিল, যেখানে চলচ্চিত্র নির্মাতারা লটারি সংখ্যার জন্য একটি স্বল্প জনগোষ্ঠীর অংশ হতে পারে যা বিশ্বব্যাপী ধ্বংসের মোকাবিলা করতে সহায়ক হতে পারে।[৭] এই ওয়েবসাইটকে আসল ভাবা মানুষের কাছ থেকে নাসার ডেভিড মরিসন ১০০০-এর অধিক অনুসন্ধান গ্রহণ করেছিলেন। তিনি এই সাইটটির নিন্দা জানিয়ে মন্তব্য করেন, "আমি এমনও ঘটনা পেয়েছি যেখানে আমার কাছে কিশোররা লিখেছে যে তারা আত্মহত্যার পরিকল্পনা করেছে কারণ তারা বিশ্বকে ধ্বংস হতে দেখতে চায় না"। তিনি আরো বলেন, "আমি ভাবি আপনি ইন্টারনেটে মিথ্যা বলবেন এবং ভয় চাপিয়ে শিশুদের ভীত করে তুলবেন, এটা নৈতিকভাবে ভুল।"[২৪] আরেকটি ভাইরাল বিপণন ওয়েবসাইট ২০১২-এর ঘটনা সম্পর্কিত একটি কাল্পনিক সংশয়াপন্ন উপন্যাস ফেয়ারওয়েল আটলান্টিস-এর প্রচারণা চালায়।[৬]

চলচ্চিত্র প্রচারের জন্য কমকাস্ট একটি "রোডব্লক ক্যাম্পেইনের" আয়োজন করেছিল, যেখানে ২০০৯ সালের ১ অক্টোবর পূর্বপ্রশান্ত মহাসাগরীয় সময় ১০:৫০ থেকে ১১:০০টার মধ্যে ৪৫০টি মার্কিন বাণিজ্যিক টেলিভিশন নেটওয়ার্ক ১০ মিনিটের দৃশ্য প্রচার করা হয় এবং স্থানীয় ইংরেজি ও স্প্যানিশ ভাষার স্টেশন ও ৮৯টি ক্যাবল আউটলেটে দুই মিনিটের একটি দৃশ্য প্রচারিত হয়েছিল।[২৫] এই দৃশ্যে লস অ্যাঞ্জেলেসের ধ্বংসের চিত্র দেখানো হয়েছে এবং একটি ক্লিফহ্যাঙ্গারের মধ্য দিয়ে সমাপ্ত হয়েছিল। পুরো ৫:৩৮ মিনিটের ক্লিপটি কমকাস্টের ফ্যানকাস্ট ওয়েবসাইটে উপলব্ধ। ভ্যারাইটির মতে, "এই স্টান্টটি ১১০ মিলিয়ন দর্শকের প্রায় ৯০ শতাংশ পরিবারের সাথে বিজ্ঞাপনযুক্ত টেলিভিশনে দেখেছিলেন।[২৫]

সঙ্গীতসম্পাদনা

২০১২: অরিজিনাল মোশন পিকচার্স সাউন্ডট্র্যাক
 
হ্যারাল্ড ক্লোজার এবং থমাস ওয়ান্ডার কর্তৃক সাউন্ডট্র্যাক অ্যালবাম
মুক্তির তারিখ১০ নভেম্বর ২০০৯ (2009-11-10)
দৈর্ঘ্য৫৭:৪৮
সঙ্গীত প্রকাশনীআরসিএ ভিক্টর
২০১২: অরিজিনাল মোশন পিকচার্স সাউন্ডট্র্যাক থেকে একক গান
  1. "টাইম ফর মিরাকলস"
    মুক্তির তারিখ: ১৮ অক্টোবর ২০০৯ (2009-10-18)

চলচ্চিত্রের মূল সুর রচনা করেছেন হ্যারাল্ড ক্লোজার এবং থমাস ওয়ান্ডার। গায়ক অ্যাডাম ল্যামবার্ট "টাইম ফর মিরাকল্‌স" শিরোনামের একটি গানে কণ্ঠ দেন এবং এমটিভির এক সাক্ষাৎকারে এই সুযোগ প্রাপ্তির কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।[২৬] চলচ্চিত্রটির সাউন্ডট্র্যাকে ২৪টি গান রয়েছে এবং ফিল্টারের "ফেডস্ লাইক অ্যা ফটোগ্রাফ" এবং জর্জ সেগালব্লু মানকুমা পরিবেশিত "ইট আইন’ট দা এন্ড অব দা ওয়ার্ল্ড" অন্তর্ভুক্ত হয়েছে।[২৭] ট্রেইলার সঙ্গীত ছিলো টু স্টেপ্‌স ফ্রম হেলের মাস্টার অব শ্যাডোস

সবগুলি গানের সুরকার হ্যারাল্ড ক্লোজার এবং থমাস ওয়ান্ডার

নং.শিরোনামদৈর্ঘ্য
১."টাইম ফর মিরাকল্‌স" (অ্যাডাম ল্যাম্বার্ট কর্তৃক)৪:৪৩
২."কন্সটেলেশন"১:৩০
৩."উইসকনসিন"১:১৪
৪."ইউ.এস. আর্মি"২:২০
৫."রেডি টু রাম্বেল"১:৪২
৬."স্প্রিট অব সান্তা মোনিকা"১:২১
৭."ইট আইন'ট দা এ্যন্ড অব দা ওয়ার্ল্ড" (জর্জ সেগাল এবং ব্লু মানকুমা কর্তৃক)২:৫২
৮."গ্রেট কিড"২:১৭
৯."ফাইন্ডিং চার্লি"১:৪৫
১০."রান ড্যাডি রান"১:১৪
১১."স্টিপিং ইন্টুু দা ডার্কনেস"১:৩৫
১২."লিভিং লাস ভেগাস"১:৪৪
১৩."এ্যাশেস ইন ডি.সি."৪:১৯
১৪."উই আর টকিং দা বেন্টলে"৩:৪৩
১৫."নাম্পান প্লাটাও"২:৫১
১৬."সেভিং সিজার"২:০৯
১৭."আর্দ্রিয়ান'স স্পিচ"১:৪১
১৮."ওপেন দ্য গেট্স!"২:১৬
১৯."দা ইম্পেক্ট"১:৪৯
২০."সুইসাইড মিশন"২:০৬
২১."২০১২ দা এ্যন্ড অব দা ওয়ার্ল্ড"১:২৪
২২."কলিশন উইথ মাউন্ট এভারেস্ট"১:০৯
২৩."দা এ্ন্ড ইজ অনলি দা বিগিনিং"৫:৪৪
২৪."ফেড্‌স লাইক অ্যা ফটোগ্রাফ" (ফিল্টার কর্তৃক)৪:১৯
মোট দৈর্ঘ্য:৫৭:৪৮

মুক্তিসম্পাদনা

২০১২ চলচ্চিত্রটি ২০০৯ সালের ১০ জুলাই মুক্তি দেবার পরিকল্পনা থাকলেও এটি ১৩ নভেম্বর সুইডেন, কানাডা, ডেনমার্ক, মেক্সিকো, ভারত, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং জাপানের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি দেয়া হয়।[২৮] স্টুডিওর মতে, চলচ্চিত্রটি গ্রীষ্মে মুক্তির জন্য সম্পূর্ণ করার কথা ছিল, কিন্তু তারিখ পরিবর্তনে এর উৎপাদনে আরো সময় পাওয়া যায়।

২০১০ সালের ২ মার্চ চলচ্চিত্রের ডিভিডি এবং ব্লু-রে সংস্করণ মুক্তি দেয়া হয়। ২-ডিস্ক ব্লু-রে সংস্করণে ৯০ মিনিটের বিশেষ ফিচার অন্তর্ভুক্ত, যার মধ্যে রয়েছে অ্যাডাম ল্যামবার্টের মিউজিক ভিডিও "টাইম ফর মিরাকল্‌স" এবং পিএসপি, পিসি, ম্যাক এবং আইপডের জন্য একটি ডিজিটাল কপি[২৯] ডিভিডিতে ২০১২ চলচ্চিত্রের ইউরোপিয় মুক্তির তারিখ ছিল ১৬ মার্চ ২০১০; উত্তর আমেরিকার সংস্করণের মতো এখানেও একই বিশেষ আবহ অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। ২০১০ সালের ফেব্রুয়ারিতে, মেক্সিকোর সিনেম্যাক্স প্রেক্ষাগৃহে এটির থ্রিডি সংস্করণ পূনর্মুক্তি দেয়া হয়েছিলো।[৩০]

অভ্যর্থনাসম্পাদনা

বক্স অফিসসম্পাদনা

মাধ্যম মূল্যায়ন/শতাংশ সমালোচক
অলমুভি[৩১]       -
আলোসিনে[৩২]       ২২
ইন্টারনেট মুভি ডেটাবেজ[৩৩]            ৩৩৫,৯১৯
রটেন টম্যাটোস[৩৪] ৩৯% ২৪২
মেটাক্রিটিক[৩৫] ৪৯% ৩৪

$২০০ মিলিয়ন বাজেটের ২০১২ চলচ্চিত্রটি উত্তর আমেরিকায় $১৬৬.১ মিলিয়ন এবং অন্যান্য অঞ্চলে $৬০৩.৬ মিলিয়ন সহ সর্বোপরি বিশ্বব্যাপী মোট $৭৬৯.৭ মিলিয়ন আয় করে।[২] গার্হস্থ্যভাবে $২০০ মিলিয়ন আয়ের পূর্বেই প্রথম চলচ্চিত্র হিসাবে এটি বিশ্বব্যাপী $৭০০ মিলিয়ন ডলারের বেশি উপার্জন করে।[৩৬] বিশ্বব্যাপী ২০০৯ সালের ৫০তম সর্বাধিক উপার্জনকারী চলচ্চিত্রের তালিকায় অন্তর্ভূক্ত হয়, এবং সনি/কলাম্বিয়া পরিবেশিত স্যাম রাইমির স্পাইডার-ম্যান ট্রিলজি এবং স্কাইফল চলচ্চিত্রের পর পঞ্চম সর্বোচ্চ-উপার্জনকারী চলচ্চিত্র।[৩৭] এছাড়াও এটি ইন্ডিপেন্ডেন্স ডে চলচ্চিত্রের পর রোলান্ড এমেরিখ পরিচালিত দ্বিতীয় সর্বোচ্চ-আয়কারী চলচ্চিত্র।[৩৮] বিশ্বব্যাপী এর উদ্বোধনী সপ্তাহের উপার্জন ছিল $২৩০.৫ মিলিয়ন, যা সনি/কলাম্বিয়ার ২০০৯ সালের চতুর্থ সর্বোচ্চ-উপার্জনকারী উদ্বোধনী চলচ্চিত্র।[৩৯]

উত্তর আমেরিকায় প্রথম সপ্তাহে $৬৫ মিলিয়ন উপার্জন করে, এটি চতুর্থ-সর্বোচ্চ উপার্জনকারী দুর্যোগ চলচ্চিত্র হয়ে ওঠে।[৪০] উত্তর আমেরিকার বাইরে, এটি ২৮তম সর্বোচ্চ-উপার্জনকারী চলচ্চিত্র, ২০০৯ সালের চতৃর্থ সর্বোচ্চ-উপার্জনকারী চলচ্চিত্র,[৪১] এবং স্কাইফল চলচ্চিত্রের পর সনি/কলাম্বিয়া পরিবেশিত দ্বিতীয় সর্বোচ্চ-উপার্জনকারী চলচ্চিত্র। উদ্বোধনী সপ্তাহে এটি $১৬৫.২ মিলিয়ন উপার্জন করে, যা উদ্বোধনী সপ্তাহের সর্বোচ্চ-আয়কারী চলচ্চিত্রের মধ্যে ১৪তম অবস্থানে রয়েছে।[৪২] চলচ্চিত্রটির সর্বাধিক উদ্বোধনী উপার্জন $১৮.০ মিলিয়ন ফ্রান্স এবং মাগরেব অঞ্চলে রেকর্ড করে। সর্বমোট উপার্জনে, উত্তর কোরিয়ার পর তিনটি সর্বোচ্চ-উপার্জনকারী অঞ্চল হলো ফ্রান্স ($৬৮.৭ মিলিয়ন), মাগরেব ($৪৪.০ মিলিয়ন) এবং জাপান ($৪২.৬ মিলিয়ন)।[৪৩]

২০১৯-২০ করোনাভাইরাস বৈশ্বিক মহামারীর সময় চলচ্চিত্রটি নতুন আগ্রহ অর্জন করে, যা ২০২০ সালের মার্চ মাসে নেটফ্লিক্স এর সর্বাধিক জনপ্রিয় চলচ্চিত্র এবং সপ্তম-সর্বাধিক জনপ্রিয় সামগ্রিক শিরোনাম হয়ে উঠেছে।[৪৪]

সমালোচনামূলক সাড়াসম্পাদনা

চলচ্চিত্রটি সমালোচকগণের নিকট থেকে মিশ্র সমালোচনা অর্জন করে। পর্যালোচনা অনুমোদনকারী রটেন টম্যাটোস, ২৪২ জন সমালোচকের ভিত্তিতে চলচ্চিত্রটির টমেটো মিটার ৩৯% শতাংশ নির্ধারণ করেছে, যেখানে গড় রেটিং ৫.২/১০।[৩৪] সাইটের সমালোচনামূলক মন্তব্যে রয়েছে, "রোল্যান্ড এমেরিখের ২০১২ প্রচুর ভিজ্যুয়াল থ্রিল সরবরাহ করলেও এর বিশাল সুযোগ এবং স্ফীত দৈর্ঘ্য সমর্থন করার মতো শক্তিশালী স্ক্রিপ্টের অভাব রয়েছে।"[৪৫] মেটাক্রিটিকে ৩৪ জন সমালোচকদের মিশ্র মন্তব্যের ভিত্তিতে চলচ্চিত্রটি ৪৯ শতাংশ গড় স্কোর লাভ করে।[৩৫] সিনেমাস্কোর দ্বারা পরিচালিত দর্শক ভোটে চলচ্চিত্রটি গড় এ+ থেকে এফ স্কেলের মধ্যে "বি+" লাভ করে।[৪৬]

রজার ইবার্ট চলচ্চিত্র সম্পর্কে অত্যুৎসাহী ছিলেন, চারের মধ্যে   তারকা প্রদান করেন, বলেন এটি "প্রতিশ্রুতি রেখেছে এবং এর টিকিট ক্রয় করতে কোনো দ্বন্দ্ব থাকবে না। চলচ্চিত্রটি দর্শকদের জন্যেই, বছরের সবচেয়ে সফল চলচ্চিত্র এটি।"[৪৭] ইউএসএ টুডে পত্রিকার ইবার্ট এবং ক্লডিয়া পিউইগ দুজনই এই চলচ্চিত্রকে "দূর্যোগ চলচ্চিত্রের জননী" বলে উল্লেখ করেন।[৪৭][৪৮] রোলিং স্টোন পত্রিকার পিটার ট্র্যাভার্স ট্রান্সফর্মার্স: রিভেঞ্জ অব দা ফলেন (২০০৯) চলচ্চিত্রের সাথে তুলনা করে এই চলচ্চিত্রের সমালোচনা করেন।[৪৯]

উত্তর কোরিয়ায় নিষেধাজ্ঞাসম্পাদনা

উত্তর কোরিয়ায় এই চলচ্চিত্র দেখা নিষিদ্ধ করে। সে বছরটি ছিল জাতির প্রতিষ্ঠাতা কিম ইল-সাংয়ের ১০০তম বার্ষিকী এবং একই সাথে একে "উদীয়মান পরাশক্তি হয়ে ওঠার জন্য প্রধান দ্বার উন্মোচনের বছর" হিসাবে মনোনীত করা হয়েছিল। সুতরাং উত্তর কোরিয়া সরকার একটি চলচ্চিত্র এই বছরের প্রতি বিপরীত মনোভাব সৃষ্টি করবে বলে আপত্তিকর মনে করেছিল। উত্তর কোরিয়ায় এই চলচ্চিত্র দেখার দায়ে কিছু ব্যক্তি আটক হয় এবং "রাষ্ট্রের উন্নয়নের বিরুদ্ধে গুরুতর উসকানি প্রদানে" অভিযুক্ত হয়।[৫০][৫১]

পুরস্কার এবং মনোনয়নসম্পাদনা

চুয়াটেল এজিওফর এবং ড্যানি গ্লোভার চলচ্চিত্রে তাদের ভূমিকার জন্য এনএএসিপি ইমেজ পুরস্কারে মনোনীত হয়েছেন।
পুরস্কার/সংস্থা অনুষ্ঠানের তারিখ বিভাগ প্রাপক এবং মনোনীত ফলাফল সূত্র
এনএএসিপি ইমেজ পুরস্কার ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১০ চলচ্চিত্রে অসাধারণ পার্শ্ব অভিনেতা চুয়াটেল এজিওফর মনোনীত [৫২]
ড্যানি গ্লোভার মনোনীত
টিন চয়েস পুরস্কার ৯ আগস্ট ২০১০ চয়েস চলচ্চিত্র: সাইফাই ২০১২ মনোনীত [৫৩][৫৪]
চয়েস চলচ্চিত্র অভিনেত্রী: সাইফাই আমান্ডা পিট মনোনীত
চয়েস চলচ্চিত্র অভিনেতা: সাইফাই জন কুস্যাক মনোনীত
ব্রডকাস্ট ফিল্ম ক্রিটিকস অ্যাসোসিয়েশন পুরস্কার ১৫ জানুয়ারি ২০১০ শ্রেষ্ঠ ভিজ্যুয়াল এফেক্ট ভল্কার এঙ্গেল, মার্ক উইগের্ট, মাইক ভেজিনা মনোনীত [৫৫]
ব্ল্যাক রিল পুরস্কার ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১০ শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেতার বিভাগে ব্ল্যাক রিল পুরস্কার চুয়াটেল এজিওফর মনোনীত [৫৬]
বিএমআই চলচ্চিত্র ও টিভি পুরস্কার ২০১০ বিএমআই চলচ্চিত্র সঙ্গীত পুরস্কার হ্যারাল্ড ক্লোজার, থমাস ওয়ান্ডার বিজয়ী [৫৭]
ভিজ্যুয়াল এফেক্টস সোসাইটি পুরস্কার ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১০ ভিজ্যুয়াল এফেক্টস-চালিত ফিচার মোশন পিকচারের অসামান্য ভিজ্যুয়াল এফেক্টস ভল্কার এঙ্গেল, মার্ক উইগের্ট, জোশ আর জাগগার্স মনোনীত [৫৮]
বছরের সেরা একক ভিজ্যুয়াল এফেক্ট ভল্কার এঙ্গেল, মার্ক উইগের্ট, জোশ আর জাগগার্স, মোহেন লিও ("এসকেপ ফ্রম এল.এ."-এর জন্য) মনোনীত
ফিচার মোশন পিকচারে অসামান্য পরিবেশ সৃষ্টি হার্ম-পিটার ডুইকার, মার্টেন লারসন, রিও সাকাগুচি, হানঝি তাং ("লস অ্যাঞ্জলেস ধ্বংস"-এর জন্য) মনোনীত
মোশন পিকচার্স শব্দ সম্পাদক ২০১০ শ্রেষ্ঠ শব্দ সম্পাদনা – ফিচার চলচ্চিত্রে সঙ্গীত ফার্নান্ড বোস, রোনাল্ড জে. ওয়েব মনোনীত [৫৯]
শ্রেষ্ঠ শব্দ সম্পাদনা – ফিচার চলচ্চিত্রে সাউন্ড এফেক্টস ও ফোলি মনোনীত
ম্যাক্স চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১০ শ্রেষ্ঠ ট্রেইলার ২০১২ বিজয়ী [৬০]
রুশ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১০ জর্জেস অ্যাওয়ার্ড - শ্রেষ্ঠ বিদেশী অ্যাকশন চলচ্চিত্র ২০১২ মনোনীত [৬১]
স্যান ডিয়েগো চলচ্চিত্র সমালোচক সমিতি ১৫ ডিসেম্বর ২০০৯ বিশেষ পুরস্কার উডি হেরেলসন বিজয়ী [৬২]
স্যাটেলাইট পুরস্কার ৩০ নভেম্বর ২০০৮ শ্রেষ্ঠ শব্দ (সম্পাদনা ও সমন্বয় পল এন.জে. অটসন, মাইকেল ম্যাকগী, রিক ক্লিন, জেফ্রি জে. হাবোউশ, মাইকেল কেলার বিজয়ী [৬৩]
শ্রেষ্ঠ ভিজ্যুয়াল এফেক্ট ভল্কার এঙ্গেল, মার্ক উইগের্ট, মাইক ভেজিনা বিজয়ী
শ্রেষ্ঠ শিল্প নির্দেশনা ও পরিকল্পনা ব্যারি চুসিড, এলিজাবেথ উইলকক্স মনোনীত
শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র সম্পাদনা ডেভিড বার্নার, পিটার এস. এলিয়ট মনোনীত
স্যাটার্ন পুরস্কার ২৪ জুন ২০১০ শ্রেষ্ঠ অ্যাকশন, রোমাঞ্চকর বা থ্রিলার চলচ্চিত্র ২০১২ মনোনীত [৬৪]
শ্রেষ্ঠ স্পেশাল এফেক্ট ভল্কার এঙ্গেল, মার্ক উইগের্ট, মাইক ভেজিনা মনোনীত
স্ক্রিম পুরস্কার ১৬ অক্টোবর ২০১০ শ্রেষ্ঠ পরিচালক রোলান্ড এমেরিখ মনোনীত [৬৫]

টেলিভিশন স্পিন-অফ বাতিলসম্পাদনা

২০১০ সালে এন্টারটেইনমেন্ট উইকলি ঘোষণা দেয় যে, এই চলচ্চিত্রের আবহে "২০১৩" শিরোনামে একটি আনুষঙ্গিক বা স্পিন-অফ টেলিভিশন ধারাবাহিকের পরিকল্পনা ছিলো।[৬৬] ২০১২ চলচ্চিত্রের নির্বাহী প্রযোজক মার্ক গর্ডন ইডব্লিওকে বলেন, লস্ট শেষ হবার পর এবিসি দুর্যোগ সম্পর্কিত কর্মসূচী হাতে নিচ্ছে, তাই দর্শকগণ সপ্তাহব্যাপী এই ধারাবাহিকে আগ্রহী হয়ে উঠবেন। চলচ্চিত্রানুসারে ২০১২ সালের ঘটা দুর্যোগের গুরুত্ব থাকা সত্ত্বেও বিশ্বের জন্যে তাদের আশা ছিল, যা তারা চলচ্চিত্রে দেখেছেন। এই চলচ্চিত্রের পর কিছু মানুষ রয়েছে যারা টিকে থাকার লড়াই করেছেন এবং তাদের প্রশ্ন ছিলো কীভাবে এই টিকে থাকার লড়াই একটি নতুন বিশ্ব তৈরি করতে পারে। এটাই একটি কৌতূহলী টেলিভিশন ধারাবাহিক হয়ে উঠেছে।"[৬৬] যদিও, ভবিষ্যৎ বাজেটের কারণে পরিকল্পনাটি বাতিল হয়ে যায়।[৬৬] এটি এমিরিখের তৃতীয় চলচ্চিত্র হতে যাচ্ছিল, প্রথমটি স্টারগেট (পরবর্তীতে স্টারগেট এসজি-১, স্টারগেট ইনফিনিটি, স্টারগেট আটলান্টিস, স্টারগেট ইউনিভার্স টেলিভিশন ধারাবাহিক), এবং দ্বিতীয়টি গডজিলা (পরবর্তীতে গডজিলা: দা সিরিজ-এর কার্টুন স্পিন-অফ)।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "২০১২"আমেরিকান ফিল্ম ইনস্টিটিউট। মে ৬, ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ৬, ২০১৪ 
  2. "২০১২ (২০০৯)"বক্স অফিস মোজো। আগস্ট ২০, ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ২, ২০১৬ 
  3. "২০১২ (২০০৯)"allmovie.comঅলমুভি। ১৫ জুন ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ ডিসেম্বর ২০১৯ 
  4. "AFI|Catalog"catalog.afi.com। ২০১৯-১২-২৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জুন ২০১৯ 
  5. সিগেল, তাতিয়ানা (মে ১৯, ২০০৮)। "John Cusack set for 2012"ভ্যারাইটি। ৯ জুলাই ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ১৪, ২০০৮ 
  6. "Farewell Atlantis by Jackson Curtis – Fake website"সনি পিকচার্স এন্টারটেইনমেন্ট। ১০ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুন ৩০, ২০১১ 
  7. বিলিংটন, অ্যালেক্স (নভেম্বর ১৫, ২০০৮)। "Roland Emmerich's 2012 Viral — Institute for Human Continuity"FirstShowing.net। ২০ ডিসেম্বর ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ১০, ২০০৮ 
  8. ব্লেয়ার, ইয়ান (নভেম্বর ৬, ২০০৯)। "'2012's Roland Emmerich: Grilled"। দা র‌্যাপ। ১৪ নভেম্বর ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ৯, ২০০৯ 
  9. অরেঞ্জ, বি. অ্যালান। "EXCLUSIVE VIDEO: Watch the Alternate Ending for '2012'!"মুভিওয়েব। ১৮ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  10. "Roland Emmerich Talks 2012 Blu-ray Alternate Ending"Blu-ray.com। ৯ অক্টোবর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  11. ফয়, স্কট (২ অক্টোবর ২০০৯)। "Five Hilariously Disaster-ffic Minutes of 2012"ড্রেড সেন্ট্রাল। অক্টোবর ১৯, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০১১ 
  12. সিমন্স, লেসলি (১৯ মে ২০০৮)। "John Cusack ponders disaster flick"দ্য হলিউড রিপোর্টার। মে ২৫, ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুলাই ২০০৮ 
  13. সিমন্স, লেসলি; Borys Kit (১৩ জুন ২০০৮)। "Amanda Peet is 2012 lead"দ্য হলিউড রিপোর্টার। জুলাই ৫, ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুলাই ২০০৮ 
  14. কিট, বয়েস (১ জুলাই ২০০৮)। "Thomas McCarthy joins 2012"দ্য হলিউড রিপোর্টার। জুলাই ৩, ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুলাই ২০০৮ 
  15. "২০১২ (২০০৯) – ক্রেডিট লিস্ট" (PDF)chicagoscifi.com। ১৩ এপ্রিল ২০১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০০৯ 
  16. জেনকিন্স, ডেভিড (১৬ নভেম্বর ২০০৯)। "Roland Emmerich's guide to disaster movies"টাইম আউট। ১৬ নভেম্বর ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০০৯ 
  17. ফ্লেমিং, মাইকেল (ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০০৮)। "Studios vie for Emmerich's 2012"ভ্যারাইটি। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ১৪, ২০০৮ 
  18. ফ্লেমিং, মাইকেল (ফেব্রুয়ারি ২১, ২০০৮)। "Sony buys Emmerich's 2012"ভ্যারাইটি। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ১৪, ২০০৮ 
  19. "2012 Filmed in Thompson Region!"। Tourismkamloops.com। ডিসেম্বর ১৪, ২০০৯। ১৭ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুন ৩০, ২০১১ 
  20. "Big Hollywood films shooting despite strike threat"রয়টার্স। আগস্ট ১, ২০০৮। ডিসেম্বর ৫, ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ৫, ২০০৮ 
  21. বেন চাইল্ড (অক্টোবর ৩, ২০১৫)। "Emmerich reveals fear of fatwa axed 2012 scene"দ্য গার্ডিয়ান। লন্ডন। ১৪ আগস্ট ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০২০ 
  22. জনাথন ক্র (অক্টোবর ৩, ২০১৫)। "The One Place on Earth Not Destroyed in '2012'"। ইয়াহু! মুভিজ। জানুয়ারি ১৪, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ২, ২০২০ 
  23. পিকার্ড, অ্যানা (নভেম্বর ২৫, ২০০৮)। "2012: a cautionary tale about marketing"দ্য গার্ডিয়ান। লন্ডন। ২২ জানুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ১০, ২০০৮ 
  24. কন্নর, স্টিভ (অক্টোবর ১৭, ২০০৯)। "Relax, the end isn't nigh"দি ইন্ডিপেন্ডেন্ট। লন্ডন। ২০ অক্টোবর ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ২০, ২০০৯ 
  25. গ্রাসের, মার্ক (সেপ্টেম্বর ২৩, ২০০৯)। "Sony readies 'roadblock' for 2012"ভ্যারাইটি। অক্টোবর ১১, ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ২৯, ২০১৫ 
  26. ভিনা, জোসেলিন (নভেম্বর ৪, ২০০৯)। "Adam Lambert Feels 'Honored' To Be On '2012' Soundtrack"এমটিভি মুভি নিউজ। ২৮ জানুয়ারি ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ১৮, ২০১০ 
  27. "2012: Original Motion Picture Soundtrack" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৪ জানুয়ারি ২০১৬ তারিখে. আমাজন.কম। Retrieved April 3, 2011.
  28. "2012 Worldwide Release Dates"sonypictures.com। ফেব্রুয়ারি ৯, ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ১২, ২০০৯ 
  29. "Early Art and Specs: 2012 Rocking on to DVD and Blu-ray"। DreadCentral। ৭ জুন ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ৩, ২০১১ 
  30. "সিনেম্যাক্স"সিনেম্যাক্স। ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  31. "২০১২ (২০০৯)"অলমুভি। ২০ মে ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১২ 
  32. "২০১২ (২০০৯)"আলোসিনে। ১৩ জানুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১২ 
  33. "২০১২ (২০০৯)"ইন্টারনেট মুভি ডেটাবেজ। ২ জানুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১২ 
  34. "২০১২ (২০০৯)"রটেন টম্যাটোস। ২৮ ডিসেম্বর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১২ 
  35. "২০১২ (২০০৯)"মেটাক্রিটিক। ৭ জানুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১২ 
  36. স্কট মেন্ডেলসন (১২ জুন ২০১৭)। "Box Office: Johnny Depp's 'Pirates 5' Breaks Walt Disney's Memorial Day Curse"ফোর্বস। আগস্ট ১৬, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০১৭ 
  37. "All Time Worldwide Box Office Grosses"বক্স অফিস মোজো। ৩১ জুলাই ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  38. "রোলান্ড এমেরিখ"বক্স অফিস মোজো। ১০ মে ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  39. "All Time Worldwide Opening Records at the Box Office"বক্স অফিস মোজো। ৩ জুন ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  40. "Disaster Movies at the Box Office"বক্স অফিস মোজো। ডিসেম্বর ২৫, ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ২৫, ২০১৪ 
  41. "Overseas Total Yearly Box Office"বক্স অফিস মোজো। সেপ্টেম্বর ১, ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুন ২৯, ২০১১ 
  42. "Overseas Total All Time Openings"বক্স অফিস মোজো। ২৩ জুন ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুন ২৯, ২০১১ 
  43. "২০১২ (২০০৯) – International Box Office Results"। ৬ জুলাই ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  44. ট্র্যাভিস ক্লার্ক (মার্চ ২০, ২০২০)। "Movies and TV shows about pandemics and disasters are surging in popularity on Netflix"বিজনেস ইনসাইডার। সংগ্রহের তারিখ মার্চ ২৯, ২০২০ 
  45. লেন, অ্যান্থনি (১৬ নভেম্বর ২০০৯)। "Only Make-Believe" (ইংরেজি ভাষায়)। দ্য নিউ ইয়র্কার। সংগ্রহের তারিখ ৩ জানুয়ারি ২০২০ 
  46. "Home - Cinemascore"cinemascore.com। ২ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ জানুয়ারি ২০২০ 
  47. ইবার্ট, রজার (নভেম্বর ১২, ২০০৯)। "2012 :: rogerebert.com"Chicago Sun-Times। ১৫ নভেম্বর ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ১৪, ২০০৯ 
  48. পিউইগ, ক্লদিয়া (নভেম্বর ১৩, ২০০৯)। "'2012': Now that's Armageddon!"ইউএসএ টুডে। নভেম্বর ১৬, ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ২০, ২০০৯ 
  49. ট্রাভের্স, পিটার (নভেম্বর ১২, ২০০৯)। "2012: Review"রোলিং স্টোন। ১৫ নভেম্বর ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ১২, ২০০৯ 
  50. নিশিমুরা, ডাইসুক (মার্চ ২৬, ২০১০)। "Watching '2012' a no-no in N. Korea"Asahi.com। দা আশাহি শিম্বুন কোম্পানি। ২৯ মার্চ ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ২৫, ২০১০ 
  51. "North Korea fears 2012 disaster film will thwart rise as superpower"দ্য টেলিগ্রাফ। মার্চ ২৬, ২০১০। ফেব্রুয়ারি ৫, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ১৮, ২০১১ 
  52. "The 41st NAACP Image Awards"এনএএসিপি ইমেজ পুরস্কার। ১৮ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুন ৩০, ২০১১ 
  53. সোল, লিন্ডসে (জুন ১৪, ২০১০)। "Teen Choice Awards 2010: First Round Of Nominees Announced"হলিউড ক্রাশভায়াকম। জুন ৬, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ১৬, ২০১০ 
  54. মিলেট, সান্দ্রিন (জুন ২৮, ২০১০)। "Teen Choice Awards 2010: Second (Giant) Wave Of Nominees Announced!"হলিউড ক্রাশ। ভিয়াকম। নভেম্বর ৫, ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ১৬, ২০১০ 
  55. "The 15th Annual Critics Choice Movie Awards" (ইংরেজি ভাষায়)। ব্রডকাস্ট ফিল্ম ক্রিটিকস অ্যাসোসিয়েশন পুরস্কার। ২০১০। ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০২০ 
  56. "ব্ল্যাক রিল পুরস্কার ২০১০" (ইংরেজি ভাষায়)। আইএমডিবি। ২০১০। ১৭ জুন ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০২০ 
  57. "বিএমআই চলচ্চিত্র সঙ্গীত পুরস্কার ২০১০" (ইংরেজি ভাষায়)। আইএমডিবি। ২০১০। ২৫ জুন ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০২০ 
  58. "8th Annual VES Awards" (ইংরেজি ভাষায়)। ভিজ্যুয়াল এফেক্টস সোসাইটি পুরস্কার। ২০১০। ১৫ মে ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০২০ 
  59. "2010 Golden Reel Award Nominees: Feature Films"মোশন পিকচার্স শব্দ সম্পাদক। জুলাই ১৬, ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুন ৩০, ২০১১ 
  60. "ম্যাক্স চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১০" (ইংরেজি ভাষায়)। আইএমডিবি। ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০২০ 
  61. "রুশ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১০" (ইংরেজি ভাষায়)। আইএমডিবি। ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০২০ 
  62. "সান দিয়েগো চলচ্চিত্র সমালোচক সমিতি ২০০৯" (ইংরেজি ভাষায়)। আইএমডিবি। ২০০৯। ১৭ জুন ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০২০ 
  63. "Satellite Awards Announce 2009 Nominations"। Filmmisery.com। নভেম্বর ২৯, ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ জুন ৩০, ২০১১ 
  64. মিলার, রোস (ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০১০)। "Avatar Leads 2010 Saturn Awards Nominations"। Screenrant.com। ৩ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুন ৩০, ২০১১ 
  65. "স্ক্রিম পুরস্কার ২০১০" (ইংরেজি ভাষায়)। আইএমডিবি। ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০২০ 
  66. রাইস, ল্যানেট (২ মার্চ ২০১০)। "ABC passes on '2012' TV show"এন্টারটেইনমেন্ট উইকলি। অক্টোবর ১৭, ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ জুলাই ২০১৪ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা