প্রবেশদ্বার:চলচ্চিত্র

চলচ্চিত্র প্রবেশদ্বার

চলচ্চিত্র প্রবেশদ্বারে আপনাকে স্বাগত
চলচ্চিত্র প্রবেশদ্বার

Cartella verde.jpg

Media Player Classic MPC With Shadow No Numbers.png
চলচ্চিত্র
প্রবেশদ্বার চলচ্চিত্র- উদাহরণ ১
চলচ্চিত্র এক প্রকারের দৃশ্যমান বিনোদন মাধ্যম। চলমান চিত্র তথা "মোশন পিকচার" থেকে চলচ্চিত্র শব্দটি এসেছে। এটি একটি বিশেষ শিল্প মাধ্যম। বাস্তব জগতের চলমান ছবি ক্যামেরার মাধ্যমে ধারণ করে বা এনিমেশনের মাধ্যমে কাল্পনিক জগৎ তৈরি করে চলচ্চিত্র নির্মাণ করা হয়। চলচ্চিত্রের ধারণা অনেক পরে এসেছে, উনবিংশ শতকের শেষ দিকে। আর এনিমেশন চিত্রের ধারণা এসেছে আরও পরে। বাংলায় চলচ্চিত্রের প্রতিশব্দ হিসেবে ছায়াছবি, সিনেমা, মুভি বা ফিল্ম শব্দগুলো ব্যবহৃত হয়।

চলচ্চিত্রের সাথে ওতোপ্রোতভাবে জড়িয়ে থাকে সাংস্কৃতিক উপাদানসমূহ। যে সংস্কৃতিতে তা নির্মিত হয় তাকেই প্রতিনিধিত্ব করে চলচ্চিত্রটি। শিল্পকলার প্রভাবশালী মাধ্যম, শক্তিশালী বিনোদন মাধ্যম এবং শিক্ষার অন্যতম সেরা উপকরণ হিসেবে খ্যাতি রয়েছে চলচ্চিত্রের। ছায়াছবির সাথে ভিজ্যুয়াল বিশ্বের সমন্বয় থাকায় সাধারণ মানুষের সাথে সবচেয়ে ভাল যোগাযোগ স্থাপন করতে পারে। অন্য কোন শিল্পমাধ্যম সাধারণের সাথে এতোটা যোগাযোগ স্থাপনে সক্ষম নয়। অন্য ভাষার চলচ্চিত্রের ডাবিং বা সাবটাইটেল করার মাধ্যমে নিজ ভাষায় নিয়ে আসার প্রচলন রয়েছে।

প্রথাগতভাবে চলচ্চিত্র নির্মিত হয় অনেকগুলো একক ছবি তথা ফ্রেমের ধারাবাহিক সমন্বয়ের মাধ্যমে। এই স্থিরচিত্রগুলি যখন খুব দ্রুত দেখানো হয় তখন দর্শক মনে করেন তিনি চলমান কিছু দেখছেন। প্রতিটি ছবির মাঝে যে বিরতি তা একটি বিশেষ কারণে দর্শকের চোখে ধরা পড়ে না। ধরা না পড়ার এই বিষয়টাকে দৃষ্টির স্থায়িত্ব বলে। সহজ কথা বলা যায়, ছবির উৎস সরিয়ে ফেলার পরও এক সেকেন্ডের ১০ ভাগের ১ ভাগ সময় ধরে দর্শকের মনে তার রেশ থেকে যায়। এভাবে চলমান ছবির ধারণা লাভের বিষয়টাকে মনোবিজ্ঞানে বিটা চলন নামে আখ্যায়িত করা হয়। (বাকি অংশ পড়ুন...)

Cartella blu.jpg

Article blue with a globe icon.png
বিশেষ নিবন্ধ
Angelina-Jolie.jpg

অ্যাঞ্জেলিনা জোলি একজন জনপ্রিয় মার্কিন চলচ্চিত্র অভিনেত্রীযুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া’র লস অ্যাঞ্জেলেসের একটি সংস্কৃতিমনা পরিবারে এই অস্কারজয়ী অভিনেত্রীর জন্ম। তাঁর বাবা জন ভট নিজেও একজন অস্কারজয়ী অভিনেতা। ১৯৮২ সালে লুকিন’ টু গেট আউট ‌ছবিতে একটি শিশু চরিত্রে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে রূপালী পর্দায় জোলির আবির্ভাব হয়। তবে পেশাদার চলচ্চিত্র অভিনেত্রী হিসেবে তাঁর অভিষেক ঘটে স্বল্প বাজেটের ছবি সাইবর্গ ২ (১৯৯৩)-এ অভিনয়ের মাধ্যমে, এবং চলচ্চিত্র জগতে তাঁর অনিরূদ্ধ উত্থান শুরু হয় হ্যাকারস (১৯৯৫) ছবিটির মধ্য দিয়ে। নব্বইয়ের দশকে শুরু হওয়া তাঁর এই তুঙ্গস্পর্শী জনপ্রিয়তা আজও সমান তালে বিদ্যমান। ১৯৯২ সালে গার্ল, ইন্টারাপ্টেড চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য লাভ করেন চলচ্চিত্রের সর্বোচ্চ স্বীকৃতি অ্যাকাডেমি পুরস্কার। এছাড়াও তাঁর প্রাপ্ত অন্যান্য উল্লেখযোগ্য পুরস্কারের মধ্যে আছে তিনটি গোল্ডেন গ্লোব ও দুইটি স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ডসহ আরও বহু পুরস্কার। অভিনয়ের পাশাপাশি তাঁর বিভিন্ন কর্মকাণ্ড, এবং ব্যক্তিজীবনও সাধারণ মানুষের আকর্ষণের বিষয়। বর্তমানে হলিউডের অন্যতম সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক-প্রাপ্ত এই অভিনেত্রী অভিনয়ের সাথে তাল মিলিয়ে মানবহিতৈষী কর্মকাণ্ডেও যথেষ্ট সক্রিয়; বিশেষ করে বিশ্বজুড়ে শরণার্থীদের জন্য কাজ করার জন্য জোলি বিশেষভাবে সমাদৃত। এ সুবাদেই ২০০১ সাল থেকে তিনি জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থার একজন শুভেচ্ছাদূত। (বাকি অংশ পড়ুন...)

Cartella rossa.jpg

Crystal Clear action bookmark.png
নির্বাচিত নিবন্ধ
আন্ধাধুন চলচ্চিত্রের পোস্টার.jpg

আন্ধাধুন (হিন্দি: अंधाधुन, অনুবাদ 'অন্ধ সুর') হল শ্রীরাম রাঘবন পরিচালিত ২০১৮ সালের ভারতীয় হিন্দি ভাষার অপরাধ রোমহর্ষক চলচ্চিত্র। ছবিটির গল্প লিখেছেন যৌথভাবে শ্রীরাম রাঘবন, অরিজিৎ বিশ্বাস, পূজা লধা সুর্তি, যোগেশ চন্দকার, ও হেমন্ত রাও। এটি প্রযোজনা করেছে ভায়াকম এইটিন মোশন পিকচার্স ও ম্যাচবক্স পিকচার্স ও পরিবেশনা করেছে ভায়াকম ও ইরোস ইন্টারন্যাশনাল। এতে শ্রেষ্ঠাংশে অভিনয় করেছেন তাবু, আয়ুষ্মান খুরানারাধিকা আপ্টে। এতে অন্ধের অভিনয় করা এক পিয়ানোবাদকের একজন অভিনেতার হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িয়ে পড়ার গল্প বর্ণিত হয়েছে।

আন্ধাধুন ২০১৮ সালের ৫ই অক্টোবর ভায়াকমএইটিন মোশন পিকচার্সের ব্যানারে ভারতের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পায় এবং সমাদৃত হয়। সমালোচকগণ এর লেখনী, খুরানা ও তাবুর অভিনয়ের প্রশংসা করেন। চলচ্চিত্রটি শ্রেষ্ঠ পরিচালনাসহ চারটি স্ক্রিন পুরস্কার, শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র (সমালোচক)শ্রেষ্ঠ অভিনেতা (সমালোচক) সহ পাঁচটি ফিল্মফেয়ার পুরস্কার অর্জন করে। এছাড়া ৬৬তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে চলচ্চিত্রটি তিনটি পুরস্কার লাভ করে, সেগুলো হল শ্রেষ্ঠ হিন্দি চলচ্চিত্র, শ্রেষ্ঠ অভিনেতাশ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্য। ₹৩২ কোটি রুপী নির্মাণব্যয়ে নির্মিত চলচ্চিত্রটি বিশ্বব্যাপী ₹৪৫৬ কোটি রুপী আয় করে। (সম্পূর্ণ নিবন্ধ...)

Cartella rossa.jpg

Biographystar.png
নির্বাচিত জীবনী
২০২২ সালে তাপসী

তাপসী পান্নু (জন্ম: ১ আগস্ট ১৯৮৭) একজন ভারতীয় মডেল এবং অভিনেত্রী, যিনি দক্ষিণ ভারতীয় এবং বলিউড চলচ্চিত্র শিল্পে কাজ করেন। তাপসী একজন সফটওয়্যার পেশাজীবী হিসেবে কাজ করতেন, এবং অভিনেত্রী হবার পূর্বে মডেলিং কর্মজীবনে জড়িত ছিলেন। তার মডেলিং কর্মজীবনে তিনি কিছুসংখ্যক বাণিজ্যিক বিজ্ঞাপনে কাজ করেছেন, এবং ২০০৮ সালে "প্যান্টালুন ফেমিনা মিস ফ্রেশ ফেস" ও "সাফি ফেমিনা মিস বিউটিফুল স্কিন" খেতাব লাভ করেন।

মডেলিংয়ে সীমিত ভূমিকা রাখার পর, রাঘবেন্দ্র রাও পরিচালিত ২০১০ সালের ঝুম্মান্ডি নাডাম তেলুগু চলচ্চিত্রের মাধ্যমে চলচ্চিত্রে তার অভিষেক ঘটান তাপসী। এরপর তিনি কয়েকটি চলচ্চিত্রে কাজ করেন যেমন, ২০১১ সালে আদুকালাম, ভাস্তাধু না রাজু এবং মি. পারফেক্ট। তার তামিল আদুকালাম চলচ্চিত্র ৫৮তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অনুষ্ঠানে ছয়টি পুরস্কার জিতে নেয়। তিনি এছাড়াও মালয়ালম এবং হিন্দি চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন। আরম্ভাম (২০১৩) তামিল চলচ্চিত্রে অবদানের জন্য তিনি ২০১৪ এডিসন পুরস্কার অনুষ্ঠানে সর্বাধিক অত্যুৎসাহী সঞ্চালক-নারী পুরস্কার জেতেন। ২০১৫ সালে, তিনি সামালোচকীয় এবং বাণিজ্যিকভাবে সফল বেবি চলচ্চিত্রে কাজ শুরু করেন। ২০১৬ সালে, তিনি পিংক চলচ্চিত্রে প্রধান ভূমিকায় অভিনয় করেন। ২০১৭ সালে, প্রধান ভূমিকায় অভিনয় করেন নাম শাবানা চলচ্চিত্রে, যেটি ২০১৫ সালের বেবি চলচ্চিত্রের প্রিকুএল। ২০১৭ সালে তিনি দা গাজি অ্যাটাক যুদ্ধ চলচ্চিত্র এবং জুড়ওয়া ২ কমেডি চলচ্চিত্রে কাজ করেন। তার সর্বাধিক বাণিজ্যিক সাফল্যর্জিত চলচ্চিত্রের মধ্যে রয়েছে জুড়ওয়া ২ (২০১৭) এবং মিশন মঙ্গল (২০১৯)। ২০১৯ সালে ষাণ্ড কি আঁখ জীবনীচলচ্চিত্রে সেপ্টোগেনারিয় শার্পশুটার প্রকাশি তোমার চরিত্রে অভিনয়ের জন্য তিনি শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে ফিল্মফেয়ার সমালোচক পুরস্কার পেয়েছিলেন। ফোর্বস ইন্ডিয়া সেলিব্রিটি ১০০ তালিকায় ২০১৮ সালে তিনি ৬৮তম স্থানে এবং ২০১৯ সালে ৬৭তম স্থানে অন্তর্ভুক্ত ছিলেন। (সম্পূর্ণ নিবন্ধ...)

Cartella roug.jpg

Crystal Clear app ksnapshot.png
নির্বাচিত চিত্র
Great Train Robbery still
কৃতিত্ব: দ্য গ্রেট ট্রেন রবারি স্থিরচিত্র, ১৯০৩-এর চলচ্চিত্রের পাবলিক ডোমেইন চিত্র।
দ্য গ্রেট ট্রেন রবারি ১৯০৩ সালে মুক্তির পর চলচ্চিত্রের মাইলফলক হিসেবে বিবেচিত হয়।

Cartella verde.jpg

PL Wiki CzyWiesz ikona.svg
আপনি জানেন কি...
মনিকা বেলুচ্চি


Cartella verde.jpg

Crystal Clear action find.png
বিষয়শ্রেণী অনুসন্ধান
উপবিষয়শ্রেণী দেখার জন্য [►] ক্লিক করুন

Cartella roug.jpg

Crystal Clear app ksnapshot.png
অন্যান্য প্রকল্পে

Wikinews-logo.svg
উইকিসংবাদে চলচ্চিত্র
উন্মুক্ত সংবাদ উৎস

Wikiquote-logo.svg
উইকিউক্তিতে চলচ্চিত্র
উক্তি-উদ্ধৃতির সংকলন

Wikisource-logo.svg
উইকিসংকলনে চলচ্চিত্র
উন্মুক্ত পাঠাগার

Wikibooks-logo.png
উইকিবইয়ে চলচ্চিত্র
উন্মুক্ত পাঠ্যপুস্তক ও ম্যানুয়াল

Wikiversity-logo.svg
উইকিবিশ্ববিদ্যালয়ে চলচ্চিত্র
উন্মুক্ত শিক্ষা মাধ্যম

Commons-logo.svg
উইকিমিডিয়া কমন্সে চলচ্চিত্র
মুক্ত মিডিয়া ভাণ্ডার

Wiktionary-logo.svg
উইকিঅভিধানে চলচ্চিত্র
অভিধান ও সমার্থশব্দকোষ

Wikidata-logo.svg
উইকিউপাত্তে চলচ্চিত্র
উন্মুক্ত জ্ঞানভান্ডার

Wikivoyage-Logo-v3-icon.svg
উইকিভ্রমণে চলচ্চিত্র
উন্মুক্ত ভ্রমণ নির্দেশিকা

সার্ভার ক্যাশ খালি করুন