সিড বার্নস

অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার

সিডনি জর্জ বার্নস (ইংরেজি: Sid Barnes; জন্ম: ৫ জুন, ১৯১৬ - মৃত্যু: ১৬ ডিসেম্বর, ১৯৭৩) নিউ সাউথ ওয়েলসের অ্যান্নানডেল এলাকায় জন্মগ্রহণকারী বিখ্যাত অস্ট্রেলীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ও ক্রিকেট লেখক ছিলেন। অস্ট্রেলিয়া দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন। ১৯৩৮ থেকে ১৯৪৮ মেয়াদকালে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের প্রতিনিধিত্ব করেন।

সিড বার্নস
SidBarnesHeadshot.jpg
১৯৫০-এর দশকের সংগৃহীত স্থিরচিত্রে সিড বার্নস
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামসিডনি জর্জ বার্নস
জন্ম(১৯১৬-০৬-০৫)৫ জুন ১৯১৬
অ্যান্নানডেল, এনএসডব্লিউ, অস্ট্রেলিয়া
মৃত্যু১৬ ডিসেম্বর ১৯৭৩(1973-12-16) (বয়স ৫৭)
কলারয়, নিউ সাউথ ওয়েলস, অস্ট্রেলিয়া
ডাকনামব্যাগ্গা[১]
সুইসাইড সিড
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি লেগ ব্রেক
ভূমিকাব্যাটসম্যান, মাঝেমধ্যে উইকেট-রক্ষক
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ১৬৩)
২০ আগস্ট ১৯৩৮ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট১৪ আগস্ট ১৯৪৮ বনাম ইংল্যান্ড
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯৩৬/৩৭-১৯৫২/৫৩নিউ সাউথ ওয়েলস
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ১৩ ১১০
রানের সংখ্যা ১০৭২ ৮৩৩৩
ব্যাটিং গড় ৬৩.০৫ ৫৪.১১
১০০/৫০ ৩/৫ ২৬/৩৭
সর্বোচ্চ রান ২৩৪ ২৩৪
বল করেছে ৫৬৪ ৪৪৫১
উইকেট ৫৭
বোলিং গড় ৫৪.৫০ ৩২.২১
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ২/২৫ ৩/০
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১৪/– ৮০/৪
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৭ আগস্ট ২০১৫

ইনিংসের গোড়াপত্তন থেকে শুরু করে নিচেরসারিতেও ব্যাটিং পারদর্শী ছিলেন ‘ব্যাগ্গা’ ডাকনামে পরিচিত সিড বার্নসদ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তীকালে তাকে অস্ট্রেলিয়ার অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান হিসেবে বিবেচনা করা হয়ে থাকে। ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে নিউ সাউথ ওয়েলসের পক্ষে খেলেছেন তিনি।

প্রারম্ভিক জীবনসম্পাদনা

১৯১৬ সালে সিডনির অ্যান্নানডেল এলাকায় জন্মগ্রহণ করেন তিনি।[২] কিন্তু নিজ আত্মজীবনীতে লিখেছেন যে, তার জন্ম ১৯১৮ বা ১৯১৯ সালে কুইন্সল্যান্ডে হয়েছিল।[৩] এছাড়াও, সামরিক বাহিনীতে রক্ষিত তথ্যে তার জন্ম ৫ জুন, ১৯১৭ রয়েছে।[৪] আলফ্রেড পার্সিভাল বার্নস ও হিল্ডা মে বার্নস দম্পতির তৃতীয় সন্তান ছিলেন।

জন্মের পূর্বেই টাইফয়েড জ্বরে আক্রান্ত হয়ে আলফ্রেড মৃত্যুবরণ করেন। এরপর হিল্ডা সন্তানদেরকে নিয়ে সিডনিতে চলে যান ও বোনের বাড়ীতে অবস্থান করেন। সেখানেই সিড বার্নসের জন্ম হয়। বার্নস স্ট্যানমোর পাবলিক স্কুলে অধ্যয়ণ করেন। সাধারণমানের হলেও খেলাধূলার জগতে তার যথেষ্ট আগ্রহ ছিল। বড় ভাই হরি’র সংস্পর্শে ক্রিকেট খেলায় সম্পৃক্ত হন।[৫] বড় ভাই হরি’র সংস্পর্শে ক্রিকেট খেলায় সম্পৃক্ত হন। খেলার প্রতি আগ্রহের কারণে বিদ্যালয় দলের শেষদিকে মাঠে নামতেন। ঘটনা পরম্পরায় প্রথম একাদশে অন্তর্ভুক্ত হন তিনি। কিন্তু আম্পায়ারের সিদ্ধান্তের বিপক্ষে অবস্থান নেয়ায় প্রথম তিন সপ্তাহকাল সাময়িকভাবে নিষিদ্ধ ঘোষিত হন।[৬] বিদ্যালয়ের দলসহ স্থানীয় ক্লাব দল সেন্ট অগাস্টিনে সফলতা লাভের প্রেক্ষিতে বিখ্যাত অস্ট্রেলীয় টেস্ট ক্রিকেটার চার্লি ম্যাককার্টনি’র ডাকনাম অনুসরণে ‘গভর্নর-জেনারেল’ ডাকনাম অর্জন করেন তিনি। ভিক্টোরিয়া ও কুইন্সল্যান্ড দলের স্কুলবয় হিসেবে নিউ সাউথ ওয়েলস দলে অন্তর্ভুক্ত হন তিনি।[৬]

খেলোয়াড়ী জীবনসম্পাদনা

পূর্ণাঙ্গ টেস্ট জীবন ব্যাটিং গড়
ডোনাল্ড ব্র্যাডম্যান (অস্ট্রেলিয়া)
৯৯.৯৪
স্টুই ডেম্পস্টার (নিউজিল্যান্ড)
৬৫.৭২
সিড বার্নস (অস্ট্রেলিয়া)
৬৩.০৫
গ্রেইম পোলক (দক্ষিণ আফ্রিকা)
৬০.৯৭
জর্জ হ্যাডলি (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
৬০.৮৩
হার্বার্ট সাটক্লিফ (ইংল্যান্ড)
৬০.৭৩
এডি পেন্টার (ইংল্যান্ড)
৫৯.২৩
কেন ব্যারিংটন (ইংল্যান্ড)
৫৮.৬৭
এভারটন উইকস (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
৫৮.৬১
কে.এস. দিলীপসিংজী (ইংল্যান্ড)
৫৮.৫২
ওয়ালি হ্যামন্ড (ইংল্যান্ড)
৫৮.৪৫
গারফিল্ড সোবার্স (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
৫৭.৭৮
জ্যাক হবস (ইংল্যান্ড)
৫৬.৯৪
জ্যাক রাসেল (ইংল্যান্ড)
৫৬.৮৭
ক্লাইড ওয়ালকট (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
৫৬.৬৮

উৎস: ক্রিকেটআর্কাইভ
যোগ্যতা: ১০ পূর্ণাঙ্গ ইনিংস,
পূর্ণাঙ্গ খেলোয়াড়ী জীবন।

১৯৩৬-৩৭ মৌসুমের শেষদিকে নিউ সাউথ ওয়েলসের পক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। এর পরপরই ১৯৩৮ মৌসুমে ইংল্যান্ড সফরের জন্য অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের সদস্য হিসেবে মনোনীত হন তিনি। সিরিজের সর্বশেষ টেস্টে তার টেস্ট অভিষেক ঘটে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে। এর পরই বিশ্বযুদ্ধের কারণে খেলা বন্ধ হয়ে যায়। বিশ্বযুদ্ধের পর আর্থার মরিসকে সাথে নিয়ে ব্যাটিং উদ্বোধনে নামতেন তিনি।

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে ১৩ টেস্টে অংশ নিয়েছেন তিনি। ডিসেম্বর, ১৯৪৬ সালে সিডনিতে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় টেস্টে ২৩৪ রান করেছিলেন। ঐ টেস্টে ডন ব্র্যাডম্যান অধিনায়কত্ব করেন ও তার সাথে পঞ্চম উইকেট জুটিতে ৪০৫ রানের বিশ্বরেকর্ড স্থাপন করেন। ১৯ ইনিংসে ৬৩.০৫ গড়ে রান সংগ্রহ করেছিলেন তিনি। ১৯৪৮ মৌসুমে ইংল্যান্ড সফরে অপরাজেয় দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ঐ সফরে অস্ট্রেলিয়া দল কোন খেলায়ই পরাজিত হয়নি।

অবসরসম্পাদনা

১৯৪৮ সালে ইংল্যান্ড সফর শেষে তিনি অবসর নেন। তবে, ১৯৫১-৫২ মৌসুমে টেস্ট ক্রিকেটে ফিরে আসার চেষ্টা চালালেও বিতর্কিতভাবে বাদ পড়েন।[৭] ১৬ ডিসেম্বর, ১৯৭৩ তারিখে সিডনির কাছাকাছি কলারয় এলাকায় অবস্থিত নিজ বাড়ীতে তাকে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Frith, David (১৯৮৭)। "What did you do at Lord's, Grandpa?"Wisden Cricket Monthly। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-১২-০৩ 
  2. Smith, p.3. "... was born in Annandale on 5 June 1916. She christened him Sidney George after the city of his birth and his maternal grandfather. Sid's place of birth would remain a problem for many years to come. He always thought it was Charters Towers in Queensland and said so in his autobiography. He also confessed confusion over the year citing 1918 or 1919, rather than 1916."
  3. Barnes, p. 13.
  4. Military service record, National Archives
  5. Smith, p. 5.
  6. Smith, p. 10.
  7. As a convention, cricket seasons are denoted as a single year to represent northern hemisphere summer, or dashed for southern hemisphere. See Cricket season for more information.

আরও দেখুনসম্পাদনা

গ্রন্থপঞ্জীসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা