প্রধান মেনু খুলুন

দিলীপসিংজী

ভারতীয় ক্রিকেটার

দিলীপসিংজী (জন্ম: ১৩ জুন, ১৯০৫ - মৃত্যু: ৫ ডিসেম্বর, ১৯৫৯) ব্রিটিশ ভারতের নয়ানগর এলাকায় জন্মগ্রহণকারী বিখ্যাত ইংরেজ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট তারকা ছিলেন। সচরাচর তিনি কুমার শ্রী দিলীপসিংজী বা কে এস দিলীপসিংজী নামে পরিচিত ছিলেন। ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯২৯ থেকে ১৯৩১ সময়কালে ইংল্যান্ডের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশ নিয়েছিলেন।

কুমার শ্রী দিলীপসিংজী
Duleepsinhji 1920s.jpg
১৯২০-এর দশকের সংগৃহীত স্থিরচিত্রে দিলীপসিংজী
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামকুমার শ্রী দিলীপসিংজী
জন্ম(১৯০৫-০৬-১৩)১৩ জুন ১৯০৫
নয়ানগর রাজ্য, কাথিয়াওয়ার, ব্রিটিশ ভারত
মৃত্যু৫ ডিসেম্বর ১৯৫৯(1959-12-05) (বয়স ৫৪)
বোম্বে, বোম্বে রাজ্য, ভারত
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি লেগ ব্রেক
ভূমিকাব্যাটসম্যান
সম্পর্ককাকা: রণজিত সিংহ
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ২৩৮)
১৫ জুন ১৯২৯ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
শেষ টেস্ট১৮ আগস্ট ১৯৩১ বনাম নিউজিল্যান্ড
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯২৪–১৯৩১সাসেক্স
১৯২৫–১৯২৮কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়
১৯২৮–১৯২৯হিন্দু
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ১২ ২০৫
রানের সংখ্যা ৯৯৫ ১৫,৪৮৫
ব্যাটিং গড় ৫৮.৫২ ৪৯.৯৫
১০০/৫০ ৩/৫ ৫০/৬৪
সর্বোচ্চ রান ১৭৩ ৩৩৩
বল করেছে ১,৮৩৫
উইকেট ২৮
বোলিং গড় ৪৮.০৩
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৪/৪৯
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১০/– ২৫৬/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭

ইংরেজ কাউন্টি ক্রিকেটে সাসেক্সকেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় এবং ভারতীয় ঘরোয়া ক্রিকেটে হিন্দু দলের পক্ষে খেলেছেন তিনি। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ব্যাটসম্যানের দায়িত্ব পালন করতেন। এছাড়াও ডানহাতে লেগ ব্রেক বোলিংয়ে পারদর্শী ছিলেন।

প্রারম্ভিক জীবনসম্পাদনা

নয়ানগর রাজ্যের জাম সাহিব এলাকা থেকে দিলীপসিংজী এসেছেন। বর্তমান গুজরাতের কাথিয়াবার উপত্যকায় তিনি জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তার ভাই হিম্মতসিংজী হিমাচলপ্রদেশের প্রথম লেফটেনেন্ট গভর্নর ছিলেন। অপর ভাই দিগ্বিজয়সিংজী, কাকা রঞ্জিতসিংজীর স্থলাভিষিক্ত হয়ে নয়ানগরের শাসক হন। ভারতের রাজকূটের রাজকুমার কলেজে অধ্যয়ন করেছেন তিনি। এরপর ইংল্যান্ডের গ্লুচেস্টারশায়ারের চেল্টেনহাম কলেজে পড়াশোনা করেন।

বিদ্যালয়ের ছাত্র থাকাকালে ক্রিকেট খেলতেন। ভবিষ্যতের এমসিসির সভাপতি এইচএস অ্যাল্থাম উইজডেনে তাকে ঘিরে লেখেন যে, চোখ, কব্জি ও পায়ের কারুকাজে তিনি সহজাত প্রতিভা ছিলেন। নিঃসন্দেহে তিনি সাধারণ মানদণ্ডের ঊর্দ্ধে। তার লেট কাট অত্যন্ত দৃষ্টিনন্দন ছিল। ব্যাটিংয়ে পরিপক্বতার দরুণ সাধারণ বালকদের তুলনায় পৃথক ছিলেন তিনি।

১৯৩০ সালে সাসেক্সের সদস্য থাকাবস্থায় নর্দাম্পটনশায়ারের বিপক্ষে একদিনে ৩৩৩ রান তুলেন তিনি।[১] চেল্টেনহাম কলেজ, কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়, সাসেক্স ও ইংল্যান্ডের পক্ষে ব্যাটসম্যান হিসেবে বেশ সফলতা পান। কিন্তু অসুস্থতার কারণে বেশ আগেভাগেই খেলা থেকে অবসর নিতে বাধ্য হন।

খেলোয়াড়ী জীবনসম্পাদনা

১৯২৪ থেকে ১৯৩১ সাল পর্যন্ত মেরিলেবোন ক্রিকেট ক্লাবের প্রতিনিধিত্ব করেছেন।[২][৩] এ সময়ে ১৯২৯-৩০ মৌসুমে এমসিসি দলের সদস্যরূপে অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড গমন করেন।

১৯৩২ সালে ভারতীয় ক্রিকেট দল প্রথমবারের মতো টেস্ট খেলার উদ্দেশ্য নিয়ে ইংল্যান্ড গমন করে। প্রতিপক্ষীয় দলগুলোর বিপক্ষে তিনিসহ ইফতিখার আলি খান পতৌদি ভারতের পক্ষে অংশগ্রহণ করেননি। তবে, তারা নিজ কাউন্টি দল সাসেক্স ও ওরচেস্টারশায়ারের সদস্যরূপে খেলেছিলেন।[৪]

টেস্টে তার ব্যাটিং গড় ছিল ৫৮.৫০। এরফলে টেস্ট ক্রিকেটে অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান হিসেবে পরিগণিত হন তিনি।

অবসরসম্পাদনা

 
সিগারেট কার্ডে দিলীপসিংজীর স্থিরচিত্র

ক্রিকেট খেলা থেকে অবসর নেয়ার পর অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডে ভারতের হাইকমিশনারের দায়িত্ব পালন করেন। এরপর ভারতে ফিরে সৌরাষ্ট্র রাজ্যের পাবলিক সার্ভিস কমিশনের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন দিলীপসিংজী।

দেহাবসানসম্পাদনা

৫ ডিসেম্বর, ১৯৫৯ তারিখে ৫৪ বছর বয়সে বোম্বেতে দিলীপসিংজী’র দেহাবসান ঘটে। তাঁব সম্মানার্থে দিলীপ ট্রফির প্রচলন ঘটানো হয়।

তার কাকা কুমার শ্রী রঞ্জিতসিংজীও ইংল্যান্ডের পক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছিলেন।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Duleep's triple"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৯ মে ২০১৭ 
  2. ACS (১৯৮২)। A Guide to First-Class Cricket Matches Played in the British Isles। Nottingham: ACS। 
  3. "Marylebone Cricket Club Players"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৭ 
  4. Guha, Ramachandra (২০০২)। A Corner of a Foreign Field – The Indian History of a British Sport। London: Picador। পৃষ্ঠা 194। আইএসবিএন 0-330-49117-2 

আরও দেখুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা