বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ

বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের অধীন একটি বিভাগ

বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ হলো বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের অধীন একটি বিভাগ।[১] বিভাগ বার্ষিক উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় প্রকল্পসমূহের পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়নের দায়িত্বে নিয়োজিত। এছাড়া বিভাগটি মাঠ প্রকল্পসমূহের পর্যবেক্ষণ এবং রাষ্ট্রপতি ও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন পেশ করার জন্য নিয়োজিত। এছাড়া বিভাগ সেন্ট্রাল প্রকিউরমেন্ট টেকনিক্যাল ইউনিটের কর্মকাণ্ড নিয়ন্ত্রণ করে থাকে।[২] আবুল মনসুর মো. ফয়েজউল্লাহ বিভাগের বর্তমান সচিব হিসেবে দায়িত্বরত।[৩]

বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ
গঠিত১৯৯৬; ২৬ বছর আগে (1996)
সদরদপ্তরঢাকা, বাংলাদেশ
যে অঞ্চলে কাজ করে
বাংলাদেশ
দাপ্তরিক ভাষা
বাংলা
ওয়েবসাইটimed.gov.bd

ইতিহাস ও গঠন সম্পাদনা

১৯৭৫ সালের জানুয়ারি মাসে “প্রকল্প বাস্তবায়ন ব্যুরো” (পিআইবি) সৃষ্টি করা হয়। পরবর্তীতে কর্মপরিধি বৃদ্ধির কারণে ১৯৭৭ সালে পিআইবিকে প্রজেক্ট মনিটরিং ডিভিশন (পিএমডি) নামে একটি স্বতন্ত্র বিভাগে উন্নীত করা হয়। অতঃপর ১৯৮২ সালে বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ (আইএমইডি) নামে নামকরণ করা হয়। পরবর্তীতে ১৯৮৪ সালে তা পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের অধীনে ন্যস্ত করা হয়।

১৯৯৬ সালে ব্যবসা আইনের মাধ্যমে বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৯৭ সালে কর্মক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য প্রতিষ্ঠানটি এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক থেকে অর্থ সাহায্য লাভ করে।[৪][৫][৬]

কার্যক্রম সম্পাদনা

  • উন্নয়ন প্রকল্পসমূহের বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন;
  • প্রকল্পভিত্তিক বাস্তবায়ন অগ্রগতির তথ্যসংগ্রহ এবং সংকলনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী, এনইসি, একনেক, মন্ত্রণালয়সমূহ এবং সংশ্লিষ্ট অন্যান্যদের জন্য ত্রৈমাসিক, বার্ষিক এবং সাময়িক প্রতিবেদন প্রণয়ন;
  • প্রকল্প বাস্তবায়ন বিষয়ে মন্ত্রণালয়/বাস্তবায়ন সংস্থাসমূহকে প্রয়োজনে বিশেষজ্ঞ এবং পরামর্শ সেবা প্রদান;
  • স্পট ভেরিফিকেশনের মাধ্যমে প্রকল্পের বাস্তবায়ন অবস্থা জানার জন্য মাঠ পর্যায়ে পরিদর্শন;
  • প্রয়োজনে মন্ত্রণালয়/বিভাগ/সংস্থাসমূহের মধ্যে সমন্বয় করে প্রকল্পের বাস্তবায়ন সমস্যা দূরীকরণের জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ;
  • প্রয়োজনের আলোকে প্রকল্পের পরিদর্শন প্রতিবেদন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে পেশ;
  • সিপিটিইউ সংক্রান্ত যাবতীয় বিষয়াদি;
  • পিপিএ, ২০০৬ এবং পিপিআর, ২০০৮ সংক্রান্ত যাবতীয় বিষয়াদি; এবং
  • সময়ে সময়ে প্রধানমন্ত্রী/পরিকল্পনা মন্ত্রী/জাতীয় সংসদ কর্তৃক প্রদত্ত অন্যান্য বিষয়াদি।

সেক্টরসমূহ সম্পাদনা

বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের কার্যক্রম মোট আটটি সেক্টরে বিভক্ত।[৭]

অর্জনসমূহ সম্পাদনা

বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের অর্জনসমূহ হলো:[৮]

  • বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি
  • শুদ্ধাচার কৌশল
  • নান্দনিক কর্ম পরিবেশ সৃষ্টির উদ্যোগ
  • পরিবীক্ষণ প্রতিবেদন আধুনিকীকরণ
  • শতভাগ পরিবীক্ষণ লক্ষ্যমাত্রা অর্জন
  • প্রকল্প পরিবীক্ষণে ভিডিও কনফারেন্স
  • প্রকল্প পরিচালনার জন্য তথ্য সিস্টেম (পিএমআইএস) গঠন
  • ই-জিপি অর্জনের লক্ষ্যে মাইলস্টোন অর্জন
  • “কিয়স্ক অর্জন”
  • প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে সক্ষমতা অর্জন

তথ্যসূত্র সম্পাদনা

  1. "Imed" (পিডিএফ)imed.portal.gov.bd। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০১৯ 
  2. "History & Function"imed.gov.bd। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০১৯ 
  3. "Secretary"imed.gov.bd/। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০১৯ 
  4. "Strengthening the Post-Evaluation Capability of the Implementation Monitoring and Evaluation Division (IMED)"এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (ইংরেজি ভাষায়)। ৬ এপ্রিল ১৯৯৪। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০১৯ 
  5. "ADP spending off to a slow start"দ্য ডেইলি স্টার (ইংরেজি ভাষায়)। ২ সেপ্টেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০১৯ 
  6. "ADP spending picks up pace"দ্য ডেইলি স্টার (ইংরেজি ভাষায়)। ১০ ডিসেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০১৯ 
  7. "সেক্টর, আইএমইডি"imed.gov.bd। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৮-১৯ 
  8. "অর্জনসূহ, আইএমইডি" (পিডিএফ)imed.gov.bd। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০২২