জম্মু

ভারতের জম্মু ও কাশ্মীর কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের জম্মু বিভাগের শহর

জম্মু (/ˈʌm/) হচ্ছে ভারতের উত্তরাঞ্চলীয় কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল জম্মু ও কাশ্মিরের শীতকালীন রাজধানী। এছাড়াও এটি উক্ত কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের জম্মু জেলার সদর দপ্তর এবং বৃহত্তম শহর। জম্মু শহর তাওয়ি নদীর তীরে অবস্থিত। এই শহরটি ২৪০ কিমি (৯৩ মা) এলাকা জুড়ে বিস্তৃত। জম্মু শহরটি উত্তরে হিমালয় পর্বতমালা এবং দক্ষিণে সিন্ধু-গাঙ্গেয় সমভূমির উত্তরাংশ দ্বারা বেষ্টিত। জম্মু হচ্ছে উক্ত কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের দ্বিতীয় জনবহুল শহর। শহরটিতে এপর্যন্ত দুটি যুদ্ধ সংঘটিত হয়েছে। প্রথমবার ১৭১২ সালে[১০] এবং দ্বিতীয়বার ১৮০৮ সালে যুদ্ধ সংঘটিত হয়।[১১]

জম্মু
শহর
জম্মু জম্মু ও কাশ্মীর-এ অবস্থিত
জম্মু
জম্মু
জম্মু ভারত-এ অবস্থিত
জম্মু
জম্মু
স্থানাঙ্ক: ৩২°৪৪′ উত্তর ৭৪°৫২′ পূর্ব / ৩২.৭৩° উত্তর ৭৪.৮৭° পূর্ব / 32.73; 74.87
দেশ ভারত
কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলজম্মু ও কাশ্মীর
জেলাজেলা
প্রতিষ্ঠিত২৯০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
প্রতিষ্ঠা করেনজম্বু লোচন
সরকার
 • ধরনপৌরসংস্থা
 • শাসকজম্মু মিউনিসিপ্যাল করপোরেশন এন্ড জম্মু ডেভেলপমেন্ট অথরিটি
 • মেয়রচন্দ্রমোহন গুপ্ত (বিজেপি)[১]
আয়তন[২]
 • শহর২৪০ বর্গকিমি (৯০ বর্গমাইল)
উচ্চতা[৩]৩০০–৪০০ মিটার (১,০০০−১,৩০০ ফুট)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • শহর৫,০২,১৯৭
 • ক্রম৯৪তম
 • জনঘনত্ব৪৫/বর্গকিমি (১২০/বর্গমাইল)
 • মহানগর৬,৫৭,৩১৪
ভাষা
 • সরকারিহিন্দি,[৪][৫] ডোগরি,[৬] উর্দু ,[৭] ইংরেজি
 • অন্যান্যপাঞ্জাবি[৭][৮]
সময় অঞ্চলভারতীয় প্রমাণ সময় (ইউটিসি+৫:৩০)
ডাক সূচক সংখ্যা ১৮০০০১[৯]
যানবাহন নিবন্ধনজেকে ০২
লিঙ্গানুপাত৮৬৭ / ১০০০
স্বাক্ষরতা৯০.১৪%
দিল্লী থেকে দুরত্ব৫৭৫ কিলোমিটার (৩৫৭ মা) উত্তর-পশ্চিমে
মুম্বই থেকে দুরত্ব১,৯৭১ কিলোমিটার (১,২২৫ মা) উত্তর-পূর্বে
ভারতের জলবায়ুCfa (Köppen)
বৃষ্টিপাতের পরিমাণ৭১০ মিলিমিটার (২৮ ইঞ্চি)
গড় গ্রীষ্মের তাপমাত্রা২৯.৬ °সে (৮৫.৩ °ফা)
গড় শীতের তাপমাত্রা১৭.৭ °সে (৬৩.৯ °ফা)
ওয়েবসাইটjammu.nic.in

প্রাচীন মন্দির ও হিন্দু মঠের জন্য জম্মু শহরটি উত্তর ভারতের মন্দিরের শহর হিসাবে পরিচিত। তাই শহরটি উক্ত কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের সবচেয়ে দর্শনীয় স্থান। জম্মু জেলার অন্তর্ভূক্ত হলেও প্রতিবেশী সাম্বা জেলার সাথে এই শহরের সীমানা রয়েছে।

ব্যুৎপত্তিসম্পাদনা

স্থানীয় ঐতিহ্য অনুসারে, জম্মুর নামকরণ করা হয়েছে এর প্রতিষ্ঠাতা রাজা জাম্বুলোচনের নামে। তিনি নবম শতাব্দীতে এই এলাকা শাসন করেছিলেন বলে মনে করা হয়।[১২] স্থানীয় ঐতিহ্য শহরটিকে ৩০০০ বছরের পুরানো বলে মনে করে। তবে এই দাবি ঐতিহাসিকদের দ্বারা সমর্থিত নয়। [১৩]

ভূগোলসম্পাদনা

 
জম্মু উপত্যকা

জম্মুতে অবস্থানের স্থানাঙ্ক ৩২°৪৪′ উত্তর ৭৪°৫২′ পূর্ব / ৩২.৭৩° উত্তর ৭৪.৮৭° পূর্ব / 32.73; 74.87[১৪] শহরটির গড় উচ্চতা ৩০০ মি (৯৮০ ফু)। জম্মু শহর শিবালিক পাহাড়ে কম উচ্চতার অসম চূড়ায় অবস্থিত। এটি উত্তর, পূর্ব এবং দক্ষিণ-পূর্বে শিবালিক রেঞ্জ দ্বারা বেষ্টিত এবং উত্তর-পশ্চিমে ত্রিকুটা রেঞ্জ এটিকে ঘিরে রয়েছে। এটি ভারতের জাতীয় রাজধানী অঞ্চল নতুন দিল্লি থেকে ৬০০ কিলোমিটার (৩৭০ মা) দূরে অবস্থিত।

শহরটি তাউই নদীর চারপাশে ছড়িয়ে আছে। পুরানো শহরটি উত্তর দিক (নদীর ডান তীর) থেকে নদীটিকে উপেক্ষা করে এবং শহরের নতুন এলাকাগুলো নদীর দক্ষিণ দিকে (বাম তীর) চারপাশে ছড়িয়ে গিয়েছে। নদীটির ওপর মোট পাঁচটি সেতু রয়েছে। শহরটি কয়েকটি পর্বতশৃঙ্গের উপর নির্মিত।

ইতিহাসসম্পাদনা

তারিখ-ই-আজমির মতে, জম্মু ৯০০ খ্রিস্টাব্দের দিকে অস্তিত্ব লাভ করে। ডুর্গার রাজ্যও (আধুনিক রূপ "ডুগার" এবং " ডোগরা ") এই সময়ের কাছাকাছি সময়ের বলে প্রমাণিত হয়।[১৩] [১৫] সেই সময়ে ডুর্গার রাজ্যের রাজধানী ছিল ভাল্লাপুরা (আধুনিক বিল্লাওয়ার নামে পরিচিত) বলে মনে করা হয়। কালহানের রাজতরঙ্গিনীতে এর শাসকদের বেশ কয়েক বার উল্লেখ করা হয়েছে। [১৬] বব্বাপুরা (আধুনিক নাম বাবর) হল রাজতরঙ্গিনীতে উল্লিখিত আরেকটি রাজ্য, যার কিছু শাসক পরবর্তী জম্মু শাসকদের বংশাবলীতে (পারিবারিক ইতিহাস) পাওয়া যায়। সেসময় এই শাসকেরা প্রায় স্বাধীন মর্যাদা উপভোগ করেছিলেন এবং দিল্লির সুলতানদের সাথে নিজেদের মিত্রতা করেছিলেন বলে মনে করা হয়। রাজা ভীম দেবকে দিল্লির ক্রনিকলস-এ মুবারা শাহ (১৪২১-১৪৩৪) এর সমর্থক হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। [১৫]

তৈমুরের ( শা. ১৩৭০–১৪০৬ ) ইতিহাসে জম্মুর নাম উল্লেখ আছে। তিনি ১৩৯৮ সালে দিল্লি আক্রমণ করেন এবং জম্মু হয়ে সমরকন্দে ফিরে আসেন। ১৬ শতকের গোড়ার দিকে বাবরের সময়ের মুঘল ইতিহাসে জম্মুকে পাঞ্জাব পাহাড়ের একটি শক্তিশালী রাজ্য হিসাবে উল্লেখ করা হয়েছে। এটি মানহাস রাজপুতদের দ্বারা শাসিত ছিল বলে জানা যায়। পরবর্তীতে সম্রাট আকবর এই অঞ্চলের পার্বত্য রাজ্যগুলোকে মুঘল আধিপত্যের অধীনে নিয়ে আসেন। তবে সেসময় এখানকার স্থানীয় রাজারা যথেষ্ট রাজনৈতিক স্বায়ত্তশাসন উপভোগ করতেন। জম্মু ছাড়াও এই অঞ্চলের অন্যান্য রাজ্য যেমন কিশতওয়ার এবং রাজৌরির কথাও উল্লেখ করা হয়েছে। এটা স্পষ্ট যে মুঘল সাম্রাজ্য এই পার্বত্য প্রধানদের সাথে সাম্রাজ্যের মিত্র এবং অংশীদার হিসাবে আচরণ করেছিল। [১৭]

আধুনিক ইতিহাসসম্পাদনা

 
জম্মু ও কাশ্মীরের মহারাজা গুলাব সিং
 
কাশ্মীরের মহারাজা, হরি সিং (১৮৯৫ - ১৯৬১)

অষ্টাদশ শতাব্দীতে মুঘল শক্তির পতনের পর, জামুওয়াল (জামওয়াল) পরিবারের রাজা ধ্রুব দেবের অধীনে জম্মু রাজ্য সমস্ত দুগার রাজ্যের মধ্যে তার আধিপত্য প্রতিষ্ঠা করে। তার উত্তরসূরী রাজা রঞ্জিত দেবের (১৭২৮-১৭৮০) অধীনে এর সমৃদ্ধি সর্বোচ্চ শিখরে পৌঁছেছিল। তিনি পার্বত্য রাজ্যগুলোর মধ্যে ব্যাপকভাবে সম্মানিত ছিলেন।[১৮] [১১] রঞ্জিত দেব ধর্মীয় স্বাধীনতা ও নিরাপত্তার প্রচার করেছিলেন, যা অনেক কারিগর ও ব্যবসায়ীকে জম্মুতে বসতি স্থাপনের জন্য আকৃষ্ট করেছিল এবং এর অর্থনৈতিক সমৃদ্ধিতে অবদান রেখেছিল। [১৯]

রঞ্জিত দেবের শাসনের শেষের দিকে, পাঞ্জাবের শিখ গোষ্ঠী ( মিসল ) উৎকর্ষতা লাভ করে। সেসময় জম্মুর সাথে ভাঙ্গি, কানহাইয়া এবং শুকেরচাকিয়া মিসলদের প্রতিদ্বন্দ্বিত শুরু হয়। ১৭৭০ সালের দিকে ভাঙ্গি মিশাল জম্মু আক্রমণ করে এবং রঞ্জিত দেবকে একটি করদ রাজ্য হতে বাধ্য করে। রঞ্জিত দেবের উত্তরসূরী ব্রিজ লাল দেব সুকেরচাকিয়ার প্রধান মহান সিংয়ের কাছে পরাজিত হন। তিনি জম্মুর শাসককে পদচ্যুত করেন এবং এটি লুণ্ঠন করেছিলেন। এভাবে জম্মু পার্শ্ববর্তী রাজ্যের কাছে তার আধিপত্য হারায়।[১১] ১৮০৮ সালে জম্মু নিজ থেকেই মহান সিংয়ের পুত্র মহারাজা রঞ্জিত সিং-এর অধীনে শিখ সাম্রাজ্যের সাথে সংযুক্ত হয়েছিল।[১১]

১৮১৮ সালে রাজা কিশোর সিং-এর পিতা রাজা গুলাব সিং জম্মু রাজ্যের শাসক নিযুক্ত হন এবং অভিষিক্ত হন। তাই এভাবে তিনি জামওয়াল রাজবংশ ওরফে ডোগরা রাজবংশের সূচনা করেন। এরপর থেকে তিনি ব্রিটিশ শাসনের অধীনে জম্মু ও কাশ্মীর দেশীয় রাজ্য শাসন করতে থাকেন। সেসময় জম্মুর শাসকেরা বড় বড় মন্দির নির্মাণ করেছিলেন। এছাড়াও তারা পুরানো মঠগুলো সংস্কার করার পাশাপাশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং আরও অনেক কিছু তৈরি করেছিলেন। ১৮৯৭ সালে শিয়ালকোটের সাথে জম্মুর সংযোগকারী ৪৩ কিলোমিটার দীর্ঘ রেলপথ স্থাপন করা হয়।[২০]

জম্মু ঐতিহাসিকভাবে জম্মু প্রদেশের রাজধানী এবং জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যের (১৮৪৬ – ১৯৫২) শীতকালীন রাজধানী।

ভারত বিভাগের পর, জম্মু ভারতের জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যের শীতকালীন রাজধানী হিসাবে অব্যাহত রয়েছে।

যুদ্ধসম্পাদনা

ঐতিহাসিক সূত্র অনুসারে এই শহরে এখন পর্যন্ত দুইটি বড় যুদ্ধ সংঘটিত হয়। সেগুলো হলো:

  1. জম্মুর যুদ্ধ (১৭১২)
  2. জম্মুর যুদ্ধ (১৮০৮)

জলবায়ুসম্পাদনা

উত্তর-পশ্চিম ভারতের বাকি অংশের মতো জম্মুতেও একটি আর্দ্র উপক্রান্তীয় জলবায়ু ( কোপেন সিডব্লিউএ ) রয়েছে, যেখানে গ্রীষ্মের চরম উচ্চতা ৪৬ °সে (১১৫ °ফা) -এ পৌঁছেছে, এবং শীতের মাসগুলোতে তাপমাত্রা মাঝে মাঝে ৪ °সে (৩৯ °ফা) এর নিচে নেমে যায়। জুন হল সবচেয়ে উষ্ণতম মাস। এর গড় তাপমাত্রা সর্বোচ্চ ৪০.৬ °সে (১০৫.১ °ফা)। অন্যদিকে জানুয়ারি হল সবচেয়ে ঠান্ডা মাস। এই মাসে এখানে গড় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৭ °সে (৪৫ °ফা) এ পৌঁছেছে। জম্মু শহরের বার্ষিক গড় বৃষ্টিপাত প্রায় ৪২ ইঞ্চি (১,১০০ মিমি)। জুন থেকে সেপ্টেম্বর মাসে বেশির ভাগ বৃষ্টিপাতের হয়। যদিও শীতকালেও এখানে বৃষ্টি হতে পারে। শীতকালে ঘন ধোঁয়াশা অনেক অসুবিধার কারণ হয় এবং তাপমাত্রা কখনও কখনও ২ °সে (৩৬ °ফা) পর্যন্ত নেমে যায়। গ্রীষ্মকালে বিশেষ করে মে এবং জুন মাসে অত্যন্ত প্রখর সূর্যালোক বা গরম বাতাস তাপমাত্রা ৪৬ °সে (১১৫ °ফা) -এ বাড়িয়ে দিতে পারে।। গরম ঋতুর পরে বর্ষায় এই শহরে বজ্রপাতের সাথে সাথে প্রবল বর্ষণ হয়ে থাকে। আর্দ্রতম মাসে বৃষ্টিপাত মোট ৬৬৯ মিমি (২৬.৩ ইঞ্চি) পর্যন্ত হতে পারে। শহরটি তাপপ্রবাহের সংস্পর্শে রয়েছে।[স্পষ্টকরণ প্রয়োজন]

পরিবহনসম্পাদনা

 
জম্মু তাউই স্টেশন

জম্মু শহরে জম্মু তাভি (স্টেশন কোড জেএটি) নামে একটি রেলওয়ে স্টেশন রয়েছে যা ভারতের প্রধান শহরগুলোর সাথে সংযুক্ত। ১৯৪৭ সালের সেপ্টেম্বরে পাকিস্তানের সরকার কর্তৃক শিয়ালকোটের পুরানো রেল যোগাযোগ স্থগিত করা হয়েছিল। কিন্তু ১৯৭১ সাল পর্যন্ত জম্মুতে কোনো রেল পরিষেবা ছিল না। সেবারের মধ্যে ভারতীয় রেল পাঠানকোট-জম্মু তাওয়ি ব্রডগেজ লাইন স্থাপন করেছিল। নতুন জম্মু তাওয়ি স্টেশনটি ১৯৭২ সালের অক্টোবরে খোলা হয়েছিল। এটি এখানকার এক্সপ্রেস ট্রেনগুলোর একটি উৎপত্তিস্থল। জম্মু-বারামুল্লা লাইন চালু হওয়ার সাথে সাথে, কাশ্মীর উপত্যকায় সমস্ত ট্রেন জম্মু তাউই দিয়ে যাবে। জম্মু-বারামুল্লা প্রকল্পের একটি অংশ এরই মধ্যে কার্যকর করা হয়েছে এবং ট্র্যাকটি কাটরা পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। জলন্ধর - পাঠানকোট - জম্মু তাওয়ি সেকশন দ্বিগুণ এবং বিদ্যুতায়িত করা হয়েছে।

জাতীয় মহাসড়ক ৪৪ যা জম্মুর মধ্য দিয়ে গেছে এটিকে কাশ্মীর উপত্যকার সাথে সংযুক্ত করেছে। জাতীয় সড়ক ১বি জম্মুকে পুঞ্চ শহরের সাথে সংযুক্ত করেছে। জম্মু ৮০ কিলোমিটার (৫০ মা) কাঠুয়া শহর থেকে, যখন এটি ৬৮ কিলোমিটার (৪২ মা)মাই উধমপুর শহর থেকে। বিখ্যাত তীর্থস্থান কাটরা শহরটি ৪৯ কিলোমিটার (৩০ মা) জম্মু থেকে।

জম্মু বিমানবন্দর জম্মুর প্রা য় মাঝখানে। শহরটির শ্রীনগর, দিল্লি, অমৃতসর, চণ্ডীগড়, লেহ, মুম্বাই এবং বেঙ্গালুরুতে সরাসরি ফ্লাইট রয়েছে। জম্মু বিমানবন্দর প্রতিদিন ৩০ টি ফ্লাইটের আগমন এবং প্রস্থান পরিচালনা করে যা গো এয়ার, এয়ার ইন্ডিয়া, স্পাইসজেট, ইন্ডিগো এবং ভিস্তারা দ্বারা পরিবেশিত হয়।

শহরে স্থানীয় পরিবহনের জন্য "জে কে আর টি সি" সিটি বাস এবং মিনিবাস রয়েছে। তবে এগুলো নির্দিষ্ট কিছু রুটে চলে। এই মিনিবাসগুলোকে "ম্যাটাডরস" বলা হয়। এর পাশাপাশি জম্মু শহরের রাস্তায় অটোরিকশা এবং সাইকেল-রিকশা পরিষেবাও পাওয়া যায়। এখানে স্থানীয় ট্যাক্সিও পাওয়া যায়।

প্রশাসনসম্পাদনা

 
জম্মু শহরের দৃশ্য

জম্মু শহর নভেম্বর থেকে এপ্রিল পর্যন্ত জম্মু ও কাশ্মীর কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের (পূর্বতন রাজ্য) শীতকালীন রাজধানী হিসাবে কাজ করে। তখন সমস্ত অফিস-দপ্তর শ্রীনগর থেকে জম্মুতে স্থানান্তরিত। অন্যদিকে কাশ্মীর উপত্যকার শ্রীনগর মে থেকে অক্টোবর পর্যন্ত কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলটির গ্রীষ্মকালীন রাজধানী হিসেবে কাজ করে।[২৪] ভারতের ২০০১ সালের আদমশুমারির সময় জম্মু একটি পৌরসভা কমিটি ছিল। ৫ সেপ্টেম্বর ২০০৩ থেকে এটি কার্যকর হয়। বর্তমানে এটি একটি পৌর কর্পোরেশনের মর্যাদায় উন্নীত হয়েছে।[২৫]

অর্থনীতিসম্পাদনা

জম্মু শহর জম্মুর প্রশাসনিক বিভাগের প্রধান সাংস্কৃতিক ও অর্থনৈতিক কেন্দ্র। সবচেয়ে বিখ্যাত স্থানীয় বাসমতি চাlলের প্রকরণগুলোর মধ্যে একটি জম্মুর নিকটবর্তী আরএস পুরা এলাকায় উত্পাদিত হয়। এই চাল পরে জম্মুর রাইস মিলগুলোতে প্রক্রিয়াজাত করা হয়। জম্মুর চারপাশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা রাইস মিলগুলো ছাড়াও, বারি ব্রাহ্মনায় শিল্প এস্টেটে কার্পেট, বৈদ্যুতিন পণ্য, বৈদ্যুতিক পণ্য থেকে শুরু করে বিভিন্ন পণ্য উত্পাদনকারী শিল্প ইউনিটগুলোর একটি বড় উপস্থিতি রয়েছে।

পর্যটনসম্পাদনা

জম্মু শহরের সবচেয়ে বড় শিল্প হল পর্যটন। এটি বৈষ্ণো দেবী এবং কাশ্মীর উপত্যকায় যাওয়া তীর্থযাত্রীদের জন্যও একটি কেন্দ্রবিন্দু। কারণ এটি উত্তর ভারতের দ্বিতীয় শেষ রেল টার্মিনাল। কাশ্মীর, পুঞ্চ, ডোডা এবং লাদাখ যাওয়ার সমস্ত রুট জম্মু শহর থেকে শুরু হয়। তাই সারা বছরই শহরটি ভারতের সমস্ত অঞ্চলের লোকে পরিপূর্ণ থাকে। জম্মু শহরের আকর্ষণীয় স্থানগুলোর মধ্যে রয়েছে পুরানো ঐতিহাসিক প্রাসাদ যেমন মোবারক মান্ডি প্রাসাদ, পুরান মান্ডি, রানি পার্ক, অমর মহল, বহু দুর্গ, রঘুনাথ মন্দির, রণবীরেশ্বর মন্দির, কারবালা, পিয়ার মিঠা, পুরাতন শহর।

জনসংখ্যাসম্পাদনা

জম্মু শহরে ধর্ম (২০১১)[২৬][২৭]

  হিন্দুধর্ম (৮১.১৯%)
  শিখ ধর্ম (৮.৮৩%)
  ইসলাম (৭.৯৫%)
  জৈন ধর্ম (০.৩৩%)
  বৌদ্ধধর্ম (০.০৫%)
  অন্যান্য (০.০২%)
  বিবৃত নয় (০.২৮%)


২০১১ সালের আদমশুমারি অনুসারে,[২৮] জম্মু শহরের জনসংখ্যা ছিল ৫০২,১৯৭ জন। এখানকার জনসংখ্যার ৫২.৭% পুরুষ। নারীর সংখ্যা জনসংখ্যার ৪৭.৩%। জম্মু শহরের লিঙ্গ অনুপাত ছিল জাতীয় গড় ৯৪০ এর বিপরীতে প্রতি ১,০০০ পুরুষের মধ্যে ৮৯৮ জন নারী। জম্মুতে সাক্ষরতার হার ছিল ৮৯.৬৬%। এই হার সারা দেশের সাক্ষরতার হার ৭৪.৪% থেকে অনেক বেশি। এর মধ্যে পুরুষদের মধ্যে সাক্ষরতার হার ছিল ৯৩.১৩% এবং মহিলাদের সাক্ষরতার হার ৮৫.৮২%। এই জনসংখ্যার ৮.৪৭% হল ৬ বছরের কম বয়সী। জম্মুর নগর সমষ্টির জনসংখ্যা ছিল ৬৫৭,৩১৪ জন।[২৯] জম্মু ও কাশ্মীরের অধিকাংশ হিন্দু জম্মু অঞ্চলে বাস করে। তাদের মধ্যে অনেকে ডোগরি ভাষায় কথা বলে।[৩০]

 
১৯২১-এর দশকে গায়িকা মালেকা পুখরাজ
পদমর্যাদা ভাষা ১৯৬১[৮]
ডোগরি ৫৫%
পাঞ্জাবি ২২%
হিন্দি ১১.৬%
অন্যান্য ১১.৪%

মুসলিম সম্প্রদায়সম্পাদনা

ভারত ভাগের আগে জম্মু শহর এবং জম্মু জেলায় উল্লেখযোগ্য মুসলিম জনসংখ্যা ছিল। ১৯৪১ সালের আদমশুমারি অনুসারে তা ৩৭ শতাংশ। ১৯৪৭ সালের জম্মুর মুসলিম গণহত্যা সময় অনেক মুসলমান নিহত হয়েছিল এবং বাকিদের পাকিস্তানে তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল। ১৯৪৭ সালে কাশ্মীরে পাকিস্তানের উপজাতীয় আক্রমণের আগে এবং পরে এই গণহত্যা অব্যাহত ছিল। নিহতের সংখ্যার অনুমানিক ২০,০০০ থেকে ১০০,০০০ এর মধ্যে পরিবর্তিত হয়। এই হত্যাকাণ্ডগুলো চরমপন্থী হিন্দু এবং শিখদের দ্বারা পরিচালিত হয়েছিল। রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ কর্তৃক এই গণহত্যা সংগঠিত হয়েছিল। এই গণহত্যায় ভারতের রাষ্ট্রীয় বাহিনী এবং মহারাজা হরি সিং সাহায্য করেছিল বলে জোড়ালো অভিযোগ করা হয়।[৩১] [৩২][৩৩] সহিংসতা ও অভিবাসনের ফলে এখানকার মুসলিমের সংখ্যা বিপুল পরিমাণে হ্রাস পাওয়ার ফলে ১৯৬১ সালের মধ্যে, জম্মু জেলার জনসংখ্যার মাত্র ১৭.২ শতাংশ মানুষ ছিল মুসলিম। [৩৪] বাস্তুচ্যুত মুসলমানরা পাকিস্তানের শিয়ালকোট জেলা সহ পাকিস্তানি পাঞ্জাবের অন্যান্য অংশে আশ্রয় নেয়। রাজনীতিবিদ চৌধুরী আমির হুসেন, অর্থনীতিবিদ মাহবুব উল হক, এয়ার মার্শাল আসগর খান, সাংবাদিক খালিদ হাসান এবং গায়িকা মালেকা পুখরাজ সহ পাকিস্তানের অনেক বিশিষ্ট পাঞ্জাবি বাসিন্দা ছিলেন জম্মু থেকে আসা। [৩৪]

শিক্ষাসম্পাদনা

 
গভর্নমেন্ট কলেজ অফ ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি, জম্মু

ভারতের ২০১৪-২০১৫ সালের সাধারণ বাজেটে, ভারতের অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি এই বিভাগের জন্য একটি ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি এবং একটি ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ ম্যানেজমেন্টের প্রস্তাব করেছিলেন। নিচে জম্মু শহরের কিছু উল্লেখযোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের তালিকা দেওয়া হল।

জম্মুতে ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ:-

  • ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি জম্মু
  • গভর্নমেন্ট কলেজ অফ ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি, জম্মু
  • মডেল ইনস্টিটিউট অফ ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি, জম্মু
  • যোগানন্দ কলেজ অফ ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি, জম্মু
  • ইউনিভার্সিটি ইনস্টিটিউট অফ ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি, জম্মু বিশ্ববিদ্যালয়

চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান:-

  • ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ ইন্টিগ্রেটিভ মেডিসিন, সিএসআইআর
  • সরকারি মেডিকেল কলেজ, জম্মু

আইনি প্রতিষ্ঠান:-

  • কিষেন চাঁদ আইন কলেজ, জম্মু
  • ডোগরা ল কলেজ, জম্মু
  • ক্যালিওপ স্কুল অফ লিগ্যাল স্টাডিজ, জম্মু
  • আর কে ল কলেজ, জম্মু

সাধারণ ডিগ্রি কোর্স (কলেজ):-

  • সরকার গান্ধী মেমোরিয়াল সায়েন্স কলেজ , জম্মু
  • সরকার এমএএম পিজি কলেজ, জম্মু

বিশ্ববিদ্যালয়:-

  • জম্মু কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়
  • জম্মুর শের-ই-কাশ্মীর ইউনিভার্সিটি অফ এগ্রিকালচারাল সায়েন্সেস অ্যান্ড টেকনোলজি
  • জম্মু বিশ্ববিদ্যালয়

স্কুল

  • কেন্দ্রীয় বিদ্যালয়, বান্তলাব
  • কেন্দ্রীয় বিদ্যালয়, সুঞ্জুয়ান

রন্ধনপ্রণালীসম্পাদনা

 
কালারি পনির

জম্মু তার সুন্দ পাঞ্জিরি, পাটিসা (শনপাপড়ি), রাজমা ভাত এবং কালারি পনিরের জন্য পরিচিত। ডোগরি খাবারের বিশেষত্বগুলোর মধ্যে রয়েছে অম্বল, খাট্টার মাংস, কুলথিন ডি ডাল, ডাল প্যাট, মা দা মাদ্রা, রাজমা এবং আউরিয়া। জম্মুর সাধারণ আচারগুলো কাস্রোদ, গিরগল, সাউফ, জিমিকান্দ, টিয়াও, সিও এবং আলু দিয়ে আম দিয়ে তৈরি। আউরিয়া আলু দিয়ে তৈরি একটি খাবার। জম্মু রন্ধনপ্রণালীতে বিভিন্ন চাট রয়েছে। এই তালিকায় বিশেষ করে গোল গাপ্পা, কচুলু, চোলে ভাতুরে, গুলগুলে, রাজমা কুলচে এবং দহি পাল্লা সহ আরও অনেক কিছু অন্তর্ভূক্ত রয়েছে।[৩৫]

উদ্বাস্তুসম্পাদনা

কাশ্মীরি পন্ডিত উদ্বাস্তুসম্পাদনা

সন্ত্রাসবাদ থেকে তুলনামূলকভাবে নিরাপদ হওয়ায় জম্মু শহর উদ্বাস্তুদের কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে। এর মধ্যে মূলত কাশ্মীরি হিন্দুরা অন্তর্ভুক্ত। তারা ১৯৮৯ সালে কাশ্মীর উপত্যকা থেকে স্থানান্তরিত হয়েছিল। পাকিস্তান শাসিত জম্মু ও কাশ্মীর থেকে ভারতে চলে আসা হিন্দুরাও জম্মু শহরে বসতি স্থাপন করেছে। রেকর্ড অনুযায়ী প্রায় ৩১,৬১৯ হিন্দু পরিবার পাকিস্তান শাসিত জম্মু ও কাশ্মীর থেকে ভারতে চলে এসেছে, তাদের মধ্যে ২৬,৩১৯ পরিবার জম্মুতে বসতি স্থাপন করেছে।

রোহিঙ্গা শরণার্থীসম্পাদনা

২০১৬ সালে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের কেউ কেউ বর্তমানে জম্মুতে বসতি স্থাপন করেছে।[৩৬][৩৭] কেউ কেউ বিশ্বাস করেন যে রোহিঙ্গা মুসলমানদের বসতি জম্মুতে নিরাপত্তা হুমকিও বাড়িয়ে দিয়েছে।[৩৮][৩৯][৪০] ২০১৮ সানজুওয়ান হামলার সময়, গোয়েন্দা সংস্থাগুলো সন্দেহ করেছিল যে এই হামলায় রোহিঙ্গা মুসলমানদের জড়িত ছিল। কিন্তু তাদের জড়িত থাকার বিষয়টি প্রমাণিত হয়নি।[৪১][৪২][৪৩]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. PTI (১৫ নভেম্বর ২০১৮)। "Jammu gets new mayor, deputy mayor | India News - Times of India"The Times of India (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১ এপ্রিল ২০২০ 
  2. "Jammu City" 
  3. Akhtar, Rais (২০০৯)। Regional Planning for Health Care System in Jammu and Kashmir। Concept Publishing Company। পৃষ্ঠা 1। আইএসবিএন 9788180696275 
  4. "The Jammu and Kashmir Official Languages Act, 2020" (PDF)। The Gazette of India। সংগ্রহের তারিখ ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  5. "Parliament passes JK Official Languages Bill, 2020"Rising Kashmir। ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০। ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  6. Pathak, Analiza (২ সেপ্টেম্বর ২০২০)। "Hindi, Kashmiri and Dogri to be official languages of Jammu and Kashmir, Cabinet approves Bill" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  7. "52nd Report of the Commissioner for Linguistic Minorities in India" (PDF)nclm.nic.inMinistry of Minority Affairs। ২৫ মে ২০১৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জানুয়ারি ২০১৯ 
  8. Kashmir, India Superintendent of Census Operations, Jammu and; Kamili, M. H. (১৯৬৬)। "District Census Handbook, Jammu & Kashmir: Jammu" – Google Books-এর মাধ্যমে। 
  9. Department of Posts, Ministry of Communications, Government of India (১৬ মার্চ ২০১৭)। "Village/Locality based Pin mapping as on 16th March 2017"data.gov.in। সংগ্রহের তারিখ ৪ অক্টোবর ২০১৮ 
  10. Jacques, Tony (২০০৭)। Dictionary of Battles and Sieges। Greenwood Press। পৃষ্ঠা 485। আইএসবিএন 978-0-313-33536-5 
  11. Panikkar, Gulab Singh 1930
  12. "Priya Sethi lays foundation stone of statue of Jambu Lochan"Daily Excelsior। ১ আগস্ট ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১৯ 
  13. Kapur, History of Jammu and Kashmir State 1980
  14. "Maps, Weather, and Airports for Jammu, India"www.fallingrain.com 
  15. Charak & Billwaria, Pahāṛi Styles of Indian Murals 1998
  16. Bamzai, Culture and Political History of Kashmir 1994
  17. Jigar Mohammad, Raja Ranjit Dev's Inclusive Policies 2010
  18. Jeratha, Dogra Legends of Art & Culture 1998
  19. Rai, Hindu Rulers, Muslim Subjects 2004
  20. "Imperial Gazetteer2 of India, Volume 14, page 49 -- Imperial Gazetteer of India -- Digital South Asia Library"dsal.uchicago.edu 
  21. "স্টেশন: জম্মুর জলবায়ু সংক্রান্ত ছক ১৯৮১-২০১০" (PDF)Climatological Normals 1981–2010। ভারতের আবহাওয়া বিভাগ। জানুয়ারি ২০১৫। পৃষ্ঠা 353–354। ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মার্চ ২০২০ 
  22. "ভারতীয় স্টেশনগুলির জন্য চরম তাপমাত্রা এবং বৃষ্টিপাত (২০১২ পর্যন্ত)" (PDF)। ভারতের আবহাওয়া বিভাগ। ডিসেম্বর ২০১৬। পৃষ্ঠা M76। ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মার্চ ২০২০ 
  23. "42056: Jammu (India)"ogimet.com। OGIMET। ২৬ মার্চ ২০২২। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মার্চ ২০২২ 
  24. "Scheme for voting by postal ballot by a person holding any office under the Govt. and verified to be moving along with the headquarters of the Govt. from Kashmir Province to Jammu Province or vice-versa." (PDF)। Office of the Chief Electoral Officer, Jammu and Kashmir। পৃষ্ঠা 1। সংগ্রহের তারিখ ৮ ডিসেম্বর ২০০৮...the State Govt. functions for six months (November to April) in the winter capital Jammu after which it moves to the summer capital Srinagar... 
  25. "History of Jammu Municipal Corporation"। Official website of Jammu Municipal Corporation। ১০ এপ্রিল ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ ডিসেম্বর ২০০৮ 
  26. "Jammu City Population"Census India। ১৬ এপ্রিল ২০২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুলাই ২০২১ 
  27. "Jammu City Population Census 2011-2019 | Jammu and Kashmir"www.census2011.co.in 
  28. "Jammu Municipal Corporation Demographics"Census of India। সংগ্রহের তারিখ ২৫ এপ্রিল ২০১৭ 
  29. "Jammu & Kashmir (India): State, Major Agglomerations & Cities – Population Statistics in Maps and Charts"City Population। সংগ্রহের তারিখ ২৫ এপ্রিল ২০১৭ 
  30. Encyclopædia Britannica 
  31. Ved Bhasin (১৭ নভেম্বর ২০১৫)। "Jammu 1947"Kashmir Life। সংগ্রহের তারিখ ৪ জুন ২০১৭ 
  32. Chattha, Partition and its Aftermath 2009
  33. Singh, Amritjit; Iyer, Nalini (১৫ জুন ২০১৬)। Revisiting India's Partition: New Essays on Memory, Culture, and Politics (ইংরেজি ভাষায়)। Lexington Books। পৃষ্ঠা 149। আইএসবিএন 9781498531054 
  34. Luv Puri, Across the Line of Control 2012
  35. "Jammu Pincode"। citypincode.in। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মে ২০১৪ 
  36. Sharma, Arjun (১৬ আগস্ট ২০১৮)। "As Jammu becomes home for refugees from four communities, govt has to deal with complex issue of rights"। সংগ্রহের তারিখ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  37. Sharma, Shivani। "Paradise Lost - the Kashmiri Pandits"। সংগ্রহের তারিখ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  38. Excelsior, Daily (১১ জানুয়ারি ২০১৭)। "Demographic changes make Jammu a "Ticking Time Bomb"" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৯ 
  39. Jain, Sandhya (১৫ মে ২০১৮)। "Rohingya refugees: A threat to Jammu"The Pioneer (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৯ 
  40. IANS (১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯)। "Demographic changes in Assam, Bengal, J&K, Kerala aided rise of fundamentalist forces: Himanta"Business Standard India। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৯ 
  41. Sharma, Arteev (৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯)। "'Illegal settlement' of Rohingya to be probed by security agencies"After terror attack on the Sunjuwan military station in February last year, Rohingya again came under the radar of security agencies as their alleged role in assisting militants was probed. However, their involvement has not been established as yet. 
  42. Yhome, K.। "Examining India's stance on the Rohingya crisis" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৯In early February 2018, a terrorist attack on an army camp in Sunjuwan of Jammu city sparked a debate on the involvement of Rohingyas as many had settled around the camp. 
  43. Jain, Bharti; Dua, Rohan (১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮)। "Sunjuwan Attack: After intelligence inputs, forces were told to be on alert"The Times of India (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১ 

গ্রন্থপঞ্জিসম্পাদনা

  •   উইকিভ্রমণ থেকে জম্মু ভ্রমণ নির্দেশিকা পড়ুন।

টেমপ্লেট:Jammu district

টেমপ্লেট:Jammu and Kashmir topics