ক্রিস্টোফার প্লামার

কানাডীয় অভিনেতা

আর্থার ক্রিস্টোফার অর্মে প্লামার সিসি (জন্ম: ১৩ ডিসেম্বর ১৯২৯) হলেন একজন কানাডীয় অভিনেতা। ছয় দশকের অধিক সময়ের কর্মজীবনে তিনি শতাধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। ১৯৫৮ সালে স্টেজ স্ট্রাক দিয়ে তার চলচ্চিত্র জীবন শুরু হয়। তিনি দ্য সাউন্ড অব মিউজিক (১৯৬৫) ছবিতে ক্যাপ্টেন গেয়র্গ ফন ট্রাপ চরিত্রে অভিনয়ের জন্য সর্বাধিক পরিচিতি অর্জন করেন।[১] পরবর্তীকালে তিনি অসংখ্য ঐতিহাসিক চরিত্রে অভিনয় করেছেন, তন্মধ্যে রয়েছে ওয়াটারলু (১৯৭০) ছবিতে ওয়েলিংটনের প্রথম ডিউক আর্থার ওয়েলেসলি, দ্য ম্যান হু উড বি কিং (১৯৭৫) ছবিতে রুডইয়ার্ড কিপলিং, দি ইনসাইডার (১৯৯৯) ছবিতে মাইক ওয়ালেস, দ্য লাস্ট স্টেশন (২০০৯) ছবিতে লিও তলস্তয়, দি এক্সেপশন (২০১৬) ছবিতে দ্বিতীয় কাইসার ভিলহেল্ম, এবং অল দ্য মানি ইন দ্য ওয়ার্ল্ড (২০১৭) ছবিতে জে. পল গেটি।

ক্রিস্টোফার প্লামার
Christopher Plummer
Christopher Plummer 2014.jpg
জন্ম
আর্থার ক্রিস্টোফার অর্মে প্লামার

(১৯২৯-১২-১৩)১৩ ডিসেম্বর ১৯২৯
পেশাঅভিনেতা
কার্যকাল১৯৫৩-বর্তমান
দাম্পত্য সঙ্গীট্যামি গ্রাইমস
(বি. ১৯৫৬; বিচ্ছেদ. ১৯৬০)

প্যাট্রিশিয়া লুইস
(বি. ১৯৬২; বিচ্ছেদ. ১৯৬৭)

এলাইন টেলর (বি. ১৯৭০)
সন্তানঅ্যামান্ডা প্লামার

প্লামার তার অভিনয় জীবনে একাধিক পুরস্কার অর্জন করেছেন, তন্মধ্যে রয়েছে একটি একাডেমি পুরস্কার, দুটি এমি পুরস্কার, একটি গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কার, একটি জিনি পুরস্কার, একটি টনি পুরস্কার, একটি বাফটা পুরস্কার এবং একটি স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড পুরস্কার। তিনি অভিনয়ের ত্রি-মুকুট (একাডেমি, এমি ও টনি পুরস্কার) বিজয়ী অভিনয়শিল্পীদের একজন। তিনি ৮২ বছর বয়সে বিগিনার্স (২০১০) চলচ্চিত্রের জন্য শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেতা বিভাগে একাডেমি পুরস্কার অর্জন করেন[২] এবং ৮৮ বছর বয়সে অল দ্য মানি ইন দ্য ওয়ার্ল্ড চলচ্চিত্রের জন্য শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেতা বিভাগে একাডেমি পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন।[৩] ফলে তিনিই শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেতা বিভাগে বয়োজ্যেষ্ঠ একাডেমি পুরস্কার বিজেতা ও মনোনীত ব্যক্তি।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. অ্যাবেল, জুডি (৩১ জানুয়ারি ২০১০)। "At 80, Plummer has arrived at his 'Station'"বোস্টন। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  2. "৮৪তম অ্যাকাডেমি পুরস্কার"আনন্দবাজার পত্রিকা। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  3. "নব্বইতম অস্কার মনোনয়ন চূড়ান্ত"দৈনিক যুগান্তর। ২৬ জানুয়ারি ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা