প্রধান মেনু খুলুন

ব্রায়ান ক্লোজ

ইংরেজ ক্রিকেটার

ডেনিস ব্রায়ান ক্লোজ, সিবিই (ইংরেজি: Brian Close; জন্ম: ২৪ ফেব্রুয়ারি, ১৯৩১ - মৃত্যু: ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৫) রডনের টাউন স্ট্রিট এলাকায় জন্মগ্রহণকারী বিখ্যাত ইংরেজ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট তারকা ছিলেন। ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। তিনি ইংল্যান্ডের ক্রিকেটের ইতিহাসে সর্বকনিষ্ঠ টেস্ট ক্রিকেটারের মর্যাদা পেয়েছেন। মাত্র ১৮ বছর বয়সে তার টেস্ট অভিষেক ঘটে। এছাড়াও, ইংল্যান্ড দলকে নেতৃত্ব দিয়েছেন ব্রায়ান ক্লোজ। ইংল্যান্ডের প্রধান ঘরোয়া ক্রিকেট প্রতিযোগিতা কাউন্টি ক্রিকেটে ইয়র্কশায়ারের প্রতিনিধিত্ব করেছেন তিনি। এছাড়াও, সমারসেট দলের অধিনায়কত্ব করেন।[১]

ব্রায়ান ক্লোজ
ব্রায়ান ক্লোজ.jpg
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামডেনিস ব্রায়ান ক্লোজ, সিবিই
জন্ম(১৯৩১-০২-২৪)২৪ ফেব্রুয়ারি ১৯৩১
রডন, ইয়র্কশায়ার, ইংল্যান্ড
মৃত্যু১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৫(2015-09-13) (বয়স ৮৪)
উচ্চতা৬ ফুট ০ ইঞ্চি (১.৮৩ মিটার)
ব্যাটিংয়ের ধরনবামহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি অফ ব্রেক, ডানহাতি মিডিয়াম
ভূমিকাঅল-রাউন্ডার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৩৪৪)
২৬ জুলাই ১৯৪৯ বনাম নিউজিল্যান্ড
শেষ টেস্ট৮ জুলাই ১৯৭৬ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ১৪)
২৪ আগস্ট ১৯৭২ বনাম অস্ট্রেলিয়া
শেষ ওডিআই২৮ আগস্ট ১৯৭২ বনাম অস্ট্রেলিয়া
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯৪৯-৭০ইয়র্কশায়ার
১৯৫০-৬৭এমসিসি
১৯৭১-৭৭সমারসেট
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ২২ ৭৮৬ ১৬৪
রানের সংখ্যা ৮৮৭ ৪৯ ৩৪,৯৯৪ ৩,৪৫৮
ব্যাটিং গড় ২৫.৩৪ ১৬.৩৩ ৩৩.২৬ ২৩.৮৪
১০০/৫০ ০/৪ ০/০ ৫২/১৭১ ২/১১
সর্বোচ্চ রান ৭০ ৪৩ ১৯৮ ১৩১
বল করেছে ১,২১২ ১৮ ৬৯,৯৭১ ২,২৫৮
উইকেট ১৮ ১,১৭১ ৬৫
বোলিং গড় ২৯.৫৫ ২৬.৪২ ২২.৪৩
ইনিংসে ৫ উইকেট ৪৩
ম্যাচে ১০ উইকেট - -
সেরা বোলিং ৪/৩৫ ০/২২ ৮/৪১ ৪/৯
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ২৪/– ৮১৩/১ ৫৩
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৯ আগস্ট ২০১৭
ফুটবল খেলোয়াড়ী জীবন
মাঠে অবস্থান ফরোয়ার্ড
জ্যেষ্ঠ পর্যায়ের খেলোয়াড়ী জীবন*
বছর দল উপস্থিতি (গোল)
১৯৪৯-৫০ লিডস ইউনাইটেড (০)
১৯৫০-৫২ আর্সেনাল (০)
১৯৫২-৫৩ ব্রাডফোর্ড সিটি (২)
জাতীয় দল
১৯৪৮ ইংল্যান্ড অনূর্ধ্ব-১৮
  • পেশাদারী ক্লাবের উপস্থিতি ও গোলসংখ্যা শুধুমাত্র ঘরোয়া লিগের জন্য গণনা করা হয়েছে।
† উপস্থিতি(গোল সংখ্যা)।

প্রারম্ভিক জীবনসম্পাদনা

রডনের টাউন স্ট্রিট এলাকার শ্রমজীবি পরিবারের সন্তান তিনি। হ্যারি ও ইস্থার দম্পতির ছয় সন্তানের মধ্যে তিনি দ্বিতীয় ছিলেন।[২] শৈশবে বাবার সাথে ক্রিকেট খেলায় প্রশিক্ষণ নিতেন। ক্রিকেটে তার সুগভীর আগ্রহ লক্ষ্য করা যায়। ব্রাডফোর্ড ক্রিকেট লীগে তিনি উইকেট-রক্ষণ ও বড় ধরনের রান সংগ্রহের দিকে আগ্রহ ছিল। তাস্বত্ত্বেও ইয়র্কশায়ার কাউন্টি দলে মনোযোগ আকর্ষণ করতে পারেননি।[৩]

পরবর্তীকালে কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপে ইয়র্কশায়ার ক্রিকেট দলের সদস্য ছিলেন। এছাড়াও ক্লাব দলটির অধিনায়ক হিসেবে চারবার শিরোপা বিজয়ে সহায়তা করেন। ১৯৪৯ সালে ইয়র্কশায়ারের সদস্য হিসেবে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিপক্ষে অংশ নেন।[৪] এরপর খেলেন অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিপক্ষে।[৫]

পরবর্তীতে ক্লাব ত্যাগ করে সমারসেটে চলে যান ও অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করেন। এ সময়ে দলটিকে শক্তিশালী দলে রূপান্তরে ভূমিকা রাখেন ও ভিভ রিচার্ডস এবং ইয়ান বোথামের ন্যায় ক্রিকেটারদেরকে সফলতম খেলোয়াড়ে পরিণত করেন তিনি।

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটসম্পাদনা

১৯৪৮ থেকে ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত তার ক্রিকেট জীবন অতিবাহিত হয়। এ সময়ে তিনি জনপ্রিয় ক্রিকেটারে পরিণত হয়েছিলেন। ব্যাটসম্যান হিসেবে প্রায় ৩৫,০০০ রান সংগ্রহ করেছিলেন। ৫২ সেঞ্চুরি করেন তিনি। ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ১৯৮ রান তোলেন। এছাড়াও বোলার হিসেবে ১,১৬৮টি ডিসমিসালের পাশাপাশি ফিল্ডার হিসেবে ৮০০ ক্যাচ ও উইকেট-রক্ষক হিসেবে একটি স্টাম্পিং করেছিলেন তিনি। ছয় ফুটেরও অধিক উচ্চতার অধিকারী ক্লোজ শর্ট লেগে ফিল্ডিং করতেন যা ব্যাটসম্যানের কাছাকাছি স্থানে থাকে। ক্লোজের সময়কালে মাথা বা শরীর রক্ষার্থে কোন প্রতিরক্ষামূলক ব্যবস্থা ছিল না। ফলে মাঝে-মধ্যেই ব্যাটসম্যানের বল তাকে আঘাত হানতো।

খেলোয়াড়ী জীবনসম্পাদনা

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে ২২টি টেস্টে অংশ নিয়েছেন। তন্মধ্যে সাত টেস্টে নেতৃত্ব দিয়ে ছয়টিতেই দল জয় পেয়েছিল। বাকী একটি খেলা ড্রয়ে পরিণত হয়।

জুলাই, ১৯৪৯ সালে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের বিপক্ষে সর্বপ্রথম মাঠে নামেন।[৬] সফরকারী নিউজিল্যান্ড দলের বিপক্ষে ওল্ড ট্রাফোর্ডে অনুষ্ঠিত তৃতীয় টেস্টে খেলার জন্য মনোনীত হন। লেস জ্যাকসনের সাথে একযোগে টেস্ট অভিষেক ঘটে তার। এ সময় তার বয়স ছিল ১৮ বছর ১৪৯ দিন। ২০১৩ সাল পর্যন্ত ইংল্যান্ডের সর্বকনিষ্ঠ টেস্ট ক্রিকেটার ছিলেন তিনি। ইংল্যান্ডের ইনিংসে দ্রুত রান সংগ্রহের প্রয়োজন পড়ায় দলীয় অধিনায়ক ফ্রেডি ব্রাউনের পরামর্শক্রমে দুই বল মোকাবেলা করে তৃতীয় বলে বাউন্ডারি নেয়ার উদ্দেশ্যে বল শূন্যে তুললে কোন রান সংগ্রহ ছাড়াই আউট হন তিনি। এরপূর্বে নিউজিল্যান্ডের প্রথম ইনিংসে ৩৯ রানের বিনিময়ে এক উইকেট লাভ করেছিলেন ক্লোজ।

২৪ আগস্ট, ১৯৭২ তারিখে ৩ ওডিআই নিয়ে গড়া প্রুডেন্সিয়াল ট্রফি প্রতিযোগিতার প্রথম খেলায় অস্ট্রেলিয়ার রস এডওয়ার্ডস, ডেনিস লিলি, বব ম্যাসি, পল শিহানগ্রেম ওয়াটসন এবং ইংল্যান্ডের ডেনিস অ্যামিস, জিওফ আর্নল্ড, ব্রায়ান ক্লোজ, টনি গ্রেগবব উলমারের একযোগে ওডিআই অভিষেক ঘটে।[৭] ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্রাফোর্ড ক্রিকেট গ্রাউন্ডে সফরকারী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে অনুষ্ঠিত ঐ খেলায় তার দল ৬ উইকেটে জয়লাভ করেছিল।

অবসরসম্পাদনা

১৯৭৭ মৌসুম শেষে কাউন্টি ক্রিকেট থেকে অবসর নেন তিনি। ১৯৭৯ থেকে ১৯৮১ সাল পর্যন্ত ইংল্যান্ডের দল নির্বাচকের দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়াও ১৯৮৪ সালে ইয়র্কশায়ার কমিটির সদস্য মনোনীত হন।

১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৫ তারিখে ৮৪ বছর বয়সে তার দেহাবসান ঘটে।[৮]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Somerset players". CricketArchive. Retrieved 14 August, 2017.
  2. Ward, John (২০০৩)। "A profile of Brian Close"। Cricket Archive। সংগ্রহের তারিখ ২১ আগস্ট ২০০৯ 
  3. Hill (2003), p. 12.
  4. "Cambridge University v Yorkshire at Cambridge, 11–13 May 1949"Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মে ২০০৮ 
  5. "Oxford University v Yorkshire at Oxford, 14–17 May 1949"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মে ২০০৮ 
  6. "3rd Test: England v New Zealand at Manchester, 23–26 July 1949"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মে ২০০৮ 
  7. "Prudential Trophy (1972): Scorecard of first ODI"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ৯, ২০১০ 
  8. "Brian Close: Former England and Yorkshire captain dies, aged 84"BBC News। ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৫ 

আরও দেখুনসম্পাদনা

গ্রন্থপঞ্জীসম্পাদনা

আরও পড়ুনসম্পাদনা

মুদ্রিত

ওয়েবসাইট

বহিঃসংযোগসম্পাদনা