তানোর উপজেলা

রাজশাহী জেলার একটি উপজেলা

তানোর বাংলাদেশের রাজশাহী জেলার অন্তর্গত একটি উপজেলা। তানোর থানা গঠন করা হয় ১৮৬৯ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে এবং উপজেলা গঠিত হয় ১৯৮৩ সালে।[২]

তানোর
উপজেলা
তানোর রাজশাহী বিভাগ-এ অবস্থিত
তানোর
তানোর
তানোর বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
তানোর
তানোর
বাংলাদেশে তানোর উপজেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৪°৩৬′ উত্তর ৮৮°৩৭′ পূর্ব / ২৪.৬০০° উত্তর ৮৮.৬১৭° পূর্ব / 24.600; 88.617স্থানাঙ্ক: ২৪°৩৬′ উত্তর ৮৮°৩৭′ পূর্ব / ২৪.৬০০° উত্তর ৮৮.৬১৭° পূর্ব / 24.600; 88.617 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগরাজশাহী বিভাগ
জেলারাজশাহী জেলা
আয়তন
 • মোট২৯৫.৪০ বর্গকিমি (১১৪.০৫ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)[১]
 • মোট১,৯১,৩৩০
 • জনঘনত্ব৬৫০/বর্গকিমি (১,৭০০/বর্গমাইল)
সাক্ষরতার হার
 • মোট৪৮.৮ %
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
পোস্ট কোড৬২৩০ উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
প্রশাসনিক
বিভাগের কোড
৫০ ৮১ ৯৪
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন

অবস্থানসম্পাদনা

রাজশাহী জেলা শহর হতে ৩০ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিম কোণে বরেন্দ্র ভূমিতে অবস্থিত। তানোর উপজেলার উত্তরে নওগাঁ জেলার নিয়ামতপুর উপজেলামান্দা উপজেলা, পূর্বে রাজশাহী জেলার মোহনপুর উপজেলা , দক্ষিণে রাজশাহী জেলার পবা উপজেলাগোদাগাড়ী উপজেলা এবং পশ্চিমে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলানাচোল উপজেলা অবস্থিত। তানোরের পাশ দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে শিব নদী

 
বুরুজ ব্রিজের উপর থেকে তোলা শিব নদীর একাংশ

যোগাযোগসম্পাদনা

সড়ক পথে- ঢাকা থেকে ঢাকা-রাজশাহী জাতীয় মহাসড়ক পথে রাজশাহী জেলা শহর প্রায় ২৭০ কি. মি. রাজশাহী - তানোর সড়কে রাজশাহী বাসস্ট্যান্ড হতে তানোর উপজেলা পরিষদ প্রায় ৩০ কি. মি.। রাজশাহী থেকে রাজশাহী-নঁওগা জাতীয় মহাসড়ক পথে ১০ কি.মি. বায়া নামক স্থান হয়ে আমনুরা রাস্তায় ২০ কি.মি. এলে তানোর গোল্লা পাড়া বাজার বা তানোর থানা মোড়ে নেমে তালন্দ সড়কে ১ কি. মি. এলে তানোর উপজেলা পরিষদ এর চত্বর। নদী পথে- শিব নদী পথে তানোর উপজেলায় মালামাল পরিবহন করা যায়। তবে রেল পথে তানোর উপজেলা পরিষদ এর সাথে কোনো যোগাযোগ নাই। তানোরের মোট পাকা রাস্তা ২১৬ কি.মি., আধা পাকা রাস্তা ৫১ কি.মি., কাঁচা রাস্তা ৪২৭ কি.মি.।

প্রশাসনিক এলাকাসম্পাদনা

তানোর উপজেলা মোট ২ টি পৌরসভা, ৭ টি ইউনিয়ন, মৌজা ২১১ এবং ১৬৯ টি গ্রাম এর সমন্বয়ে গঠিত। তানোরের ইউনিয়ন সমূহ হলো -

দুটি পৌরসভা হলো-

ইতিহাসসম্পাদনা

রাজশাহী জেলার উত্তর-পশ্চিম কোণে জেলা শহর থেকে ৩০ কি. মি. দূরে শিবনদী এবং বিলকুমারীর পশ্চিমপাড়ে বরেন্দ্রভূমির প্রাণকেন্দ্রে তানোর উপজেলা । ‘তানোর ’ শব্দটি তানর হতে উদ্ভূত । ‘ তানর ’ অর্থ তান-রহিত অর্থাৎ জীবন-স্পন্দনহীন, নিস্প্রভ ও নিরানন্দ জনপদ। পুরাকালে গাছপালাহীন মরুপ্রায় এ অঞ্চলে জনপদ বলতে তেমন কিছুই ছিল না । কালের আবর্তে ধীরে ধীরে গড়ে ওঠে আজকের এ জনপদ ‘তানোর ’ যা একটি শস্যশ্যামল খাদ্য ভান্ডার বিশেষ । এখানে অনেকগুলো আদিবাসী গ্রাম রয়েছে এবং তারা এখানে স্বাচ্ছন্দ্যে বসবাস করে। তানোরে অনেক প্রাচীন কাল থেকে সাঁওতাল আদিবাসী গোত্রের জনগণ বাস করে।

মুক্তিযুদ্ধে তানোরসম্পাদনা

তানোর উপজেলা পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর হাত থেকে মুক্তি পায় ১৯৭১ সালের ৩০ শে নভেম্বর। ২৯ শে নভেম্বর রাতে এখানে সর্বশেষ যুদ্ধ হয়। মুক্তিযোদ্ধা গেরিলা বাহিনীর নেতৃত্ব দেন সফিকুর রহমান রাজা যিনি ঐ সময় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স শেষ বর্ষের ছাত্র ছিলেন। ২৯ শে নভেম্বর তানোর বুরুজ গ্রামের বুরুজ ঘাট এলাকায় এসে ছয়জন মুক্তিযোদ্ধা রাজাকারদের সহযোগিতায় পাক বাহিনীর হাতে ধরা পড়েন। তাদেরকে তানোর থানা টর্চার সেলে নিয়ে নির্যাতন চালানো হচ্ছিল। মুক্তিযোদ্ধাদের মুক্ত করতে সেই দিনই তানোর থানায় হামলা চালানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। [৩] ২৯শে নভেম্বর রাতে সফিকুর রহমান রাজার নেতৃত্বে ৩০-৩৫ জন মুক্তিযোদ্ধার একটি দল চার ভাগে বিভক্ত হয়ে তানোর থানায় অতর্কিত হামলা চালায়। প্রবল আক্রমণের মুখে পাক বাহিনী পিছু হটতে বাধ্য হয়। তারা থানার বন্দীদশা থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের মুক্ত করেন। এই যুদ্ধে তিনজন মুক্তিযোদ্ধা শাহাদাত বরণ করেন, সিরাজুল ইসলাম ওরফে হানিফ মৃধা নামে আরেকজন মুক্তিযোদ্ধা গুরুতর আহত হলেও বেঁচে যান। শহীদ মুক্তিযোদ্ধারা হলেন রাজশাহী পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের ছাত্র মোনায়েম মঞ্জুর, কাটাখালীর মাসকাটাদিঘী বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র মোঃ ইসলাম ও আরেকজন নাম না জানা আদিবাসী যুবক। ঐ দিনের পর তানোর থানা থেকে সেনাবাহিনী ও পুলিশ সরিয়ে নেয়া হয় এবং এই এলাকা কার্যত মুক্ত হয়। ১৭ই ডিসেম্বর সফিকুর রহমান রাজা তানোরে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রথম স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেন। তানোরের গোল্লাপাড়া বাজারের কাছে অবস্থিত বধ্যভূমি মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বহন করছে।[৪]

উপজেলার ঐতিহ্যসম্পাদনা

 
বুরুজ গ্রামের ব্রিজের উপর থেকে তোলা বিলকুমারির দৃশ্য

এ উপজেলার প্রাচীন ঐতিহ্যের মধ্যে বৌদ্ধ সভ্যতার নিদর্শন বিহারৈল ঢিবি, কুঠিপাড়ার নীলকুঠি, মাদারীপুরের পাগলা শাহ’র মাজার ও ধানোরা ঢিবি,সিঁধাইড়ের সুলতানী আমলের মসজিদ ও মাজার, গোল্লাপাড়ার বধ্যভূমি উল্লেখ্যযোগ্য। এছাড়া তানোর এ কে সরকার ডিগ্রি কলেজের শহীদ মিনার আজও স্বাধীনতা যুদ্ধের স্মৃতি বহন করে চলেছে। উচুঁ নিচু স্তরীভূত বরেন্দ্রভূমির ভূ-প্রকৃতির মাঝে বাঙালি হিন্দু-মুসলমানের সাথে সাঁওতাল, ওঁরাও , মাহাতো, মাহালী আদিবাসী সম্প্রদায়ের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক অপূর্ব মিলনস্থল এ উপজেলা।

জনসংখ্যার উপাত্তসম্পাদনা

২০১১ সালের আদমশুমারী অনুযায়ী মোট জনসংখ্যা ১,৯১,৩৩০ জন। পুরুষ ৯৪,০৪১ জন (৪৯.১৫ %) ও মহিলা ৯৭,২৮৯ জন(৫০.৮৫ %) । জনসংখ্যার ঘনত্ব ৬৪৮ প্রতি বর্গ কি.মি. । মুসলমান ১,৬২,০১৮ জন (৮৪.৬৮%), হিন্দু ১৫,১৫২ জন (৭.৯২%), খৃস্টান ৯,৩২৯ জন (৪.৮৭%), বৌদ্ধ ১৭ জন (০.০১%), অন্যান্য ৪,৮১৪ জন (২.৫২%)। ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে মসজিদ ৫১০ টি, ঈদগাহ ২০০ টি, মন্দির ২২ টি, গির্জা ১৬টি, প্যাগোডা ১টি।

শিক্ষাসম্পাদনা

শিক্ষার হার ৪৮.৮%(পুরুষ ৫১.১%, মহিলা ৪৬.৭%), প্রাথমিক বিদ্যালয় ১২৭( সরকারি ৪৯টি এবং বেসরকারি ৭৮টি), মাধ্যমিক/নিম্ন-মাধ্যমিক বিদ্যালয় ৬২, কলেজ ১৮(০২টি কারিগরি মহাবিদ্যালয়সহ), মাদরাসা ২৮।

অর্থনীতিসম্পাদনা

 
বুরুজ গ্রামে শিব নদীর উপর নির্মিত একটি দর্শনীয় সেতু

মোট কৃষি জমির পরিমাণ ২২,৬৬৫ হেক্টর; চাষযোগ্য কৃষি জমির পরিমাণ ২১,২৯৫ হেক্টর; বনাঞ্চল ১০০ কি.মি. (সামাজিক বনায়ন) গবাদী পশু খামার ৮৬টি, হাঁস-মুরগি খামার ৬৩টি, হাঁস-মুরগির ইউনিট ২৬টি।

প্রধান ফসল: আলু, ধান, টমেটো, গম, ভুট্টা, বেগুন, পটল ইত্যাদি। তানোর উপজেলায় সবচেয়ে ধান চাষ বেশি পরিমাণে হয়ে থাকে তাই এ অঞ্চলের মানুষের ব্যবসা-বাণিজ্য মূলত ধান নিয়েই। তানোরে আমকাঁঠাল সবচেয়ে বেশি উৎপাদিত হয়।

উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্বসম্পাদনা

  1. জনাব আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধুরী,মাননীয় সংসদ সদস্য, রাজশাহী-১ (জাতীয় সংসদের নির্বাচনী এলাকা)
  2. মাহিয়া মাহি, বাংলাদেশ চলচ্চিত্রের নায়িকা, তানোরের মুণ্ডুমালা নামক জায়গায় জন্মগ্রহণ করেন। কিন্তু তার নিজস্ব বাসভবন ছিল নাচোল উপজেলার মাক্তাপুর এলাকায়।
  3. ব্যারিস্টার আমিনুল হক ছিলেন একজন বাংলাদেশি রাজনীতিবিদ ও সাবেক মন্ত্রী। তিনি রাজশাহী-১ আসন থেকে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) মনোনয়নে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং ২০০১ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত খালেদা জিয়ার দ্বিতীয় মন্ত্রিসভায় ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত তিনি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

দর্শনীয় স্থানসমূহসম্পাদনা

 
তানোর এখন সারাদেশ গ্রন্থের প্রচ্ছদ
  • বিল কুমারী বিল;
  • কামারগাঁ ব্রিটিশ আমলের খাজনা আদায়ের কাঁচারী বাড়ি;
  • তালন্দ ললিত মোহন জমিদারের বাড়ি।

জনপ্রিয় সংস্কৃতিতেসম্পাদনা

তানোর উপজেলার কৃষক আন্দোলন নিয়ে হাসান ফকরী লিখেছেন নাটক তানোর এখন সারাদেশ

আরও দেখুনসম্পাদনা

বাংলাপিডিয়ায় তানোর উপজেলা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (জুন ২০১৪)। "এক নজরে তানোর উপজেলা"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। ৪ মে ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  2. "তানোর উপজেলা"বাংলাপিডিয়া। সংগ্রহের তারিখ ২২ জুলাই ২০১৬ 
  3. "তানোর থানা দখল নিতে আমাদের তিন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন"। দৈনিক জনকণ্ঠ। সংগ্রহের তারিখ ২২ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  4. "তিন সহযোদ্ধার রক্তে মুক্ত তানোর থানা"। দৈনিক সমকাল। ২৪ ডিসেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ ডিসেম্বর ২০১৬ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

১.উপজেলা প্রশাসনের ওয়েবসাইট

.