১৯২৯-৩০ ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের নিউজিল্যান্ড সফর

১৯২৯-৩০ মৌসুমে ইংল্যান্ড ক্রিকেট দল সিলন, অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড গমন করে। এ সফরের এক পর্যায়ে দলটি নিউজিল্যান্ড গমন করে একটি টেস্ট সিরিজে অংশগ্রহণ করে। এরফলে নিউজিল্যান্ড দল তাদের ক্রিকেটের ইতিহাসের প্রথম টেস্ট খেলার সুযোগ পায়। অক্টোবর, ১৯২৯ সালে সিলনে একটি কম গুরুত্বপূর্ণ খেলায় অংশ নেয়ার পর অস্ট্রেলিয়ায় যায়। সেখানে দলটি পাঁচটি প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশ নেয়। ডিসেম্বরে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে পদার্পণ ঘটায় ইংরেজ দল। টেস্ট সিরিজের পাশাপাশি প্রত্যেক প্রাদেশিক দল অকল্যান্ড, ওয়েলিংটন, ক্যান্টারবারি এবং ওতাগোর বিপক্ষে তারা খেলে।[১] ইংরেজ দলনেতা হ্যারল্ড জিলিগানের নেতৃত্বে ইংল্যান্ড দল ১-০ ব্যবধানে টেস্ট সিরিজ জয়ে সমর্থ হয় ও বাদ-বাকী তিন টেস্ট ড্রয়ে পরিণত হয়।

একই সময়ে অর্থাৎ ১৯২৯-৩০ মৌসুমে ফ্রেডি ক্যালথর্পের নেতৃত্বে আরও একটি ইংরেজ দল ওয়েস্ট ইন্ডিজ গমন করে। সেখানে দলটি ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে প্রথমবারের মতো টেস্ট সিরিজে অংশগ্রহণ করেছিল।[২]

ইংরেজ দলসম্পাদনা

এ সফরের পূর্বে ৫৫ টেস্ট খেলায় অংশগ্রহণকারী ফ্রাঙ্ক ওলি বাদে দলটি টেস্টের অপরিপক্ক দলরূপে পরিচিতি পায়। টেড বোলি মাত্র দুই টেস্টে অংশ নিয়েছেন। বারাট, ডসন, দিলীপসিংজী ও লেগ - প্রত্যেকেই একটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছিলেন। দলের অন্য খেলোয়াড়দের টেস্ট খেলার কোন পূর্ব-অভিজ্ঞতা ছিল না।[৩]

জুন মাসের শেষদিকে ইংরেজ দলের সদস্যদেরকে মনোনীত করা হয়। ১১ টেস্ট খেলার অধিকারী আর্থার জিলিগানকে দলের অধিনায়কের দায়িত্বভার অর্পণ করা হয়েছিল।[৪] তবে, শারীরিক অসুস্থতার কারণে তার কনিষ্ঠ ভ্রাতা হ্যারল্ড জিলিগানকে এ দায়িত্বভার হস্তান্তর করা হয়। অন্য পরিবর্তন ঘটে মূল দলে থাকা মরিস অলমের পরিবর্তে ফ্রাঙ্ক ওয়াটসনের অন্তর্ভূক্তি।[৫]

টেস্ট খেলাসম্পাদনা

প্রথম টেস্টসম্পাদনা

১০-১৩ জানুয়ারি, ১৯৩০
স্কোরকার্ড
১১২ (৪৭.১ ওভার)
রজার ব্লান্ট ৪৭
মরিস অলম ৫/৩৮ (১৯ ওভার)
১৮১ (৬৩.১ ওভার)
দিলীপসিংজী ৪৯
রজার ব্লান্ট ৩/১৭ (১১.১ ওভার)
১৩১ (৬০.৩ ওভার)
টম লরি ৪০
মরিস অলম ৩/১৭ (১৫ ওভার)
৬৬/২ (১৮.৫ ওভার)
দিলীপসিংজী ৩৩ *
রজার ব্লান্ট ২/১৭ (৭ ওভার)
ইংল্যান্ড ৮ উইকেটে বিজয়ী
ল্যাঙ্কাস্টার পার্ক, ক্রাইস্টচার্চ
আম্পায়ার: উইলিয়াম বাটলার (নিউজিল্যান্ড) ও কেনেথ কেভ (নিউজিল্যান্ড)

দ্বিতীয় টেস্টসম্পাদনা

২৪-২৭ জানুয়ারি, ১৯৩০
স্কোরকার্ড
৪৪০ (১৩৬.৩ ওভার)
স্টুই ডেম্পস্টার ১৩৬
ফ্রাঙ্ক ওলি ৭/৭৬ (২৮.৩ ওভার)
৩২০ (১০৭.৫ ওভার)
স্ট্যান নিকোলস ৭৮*
টেড বেডকক ৪/৮০ (৩৬ ওভার)
১৬৬/৪ডি (৫৩ ওভার)
স্টুই ডেম্পস্টার ৮০*
ফ্রাঙ্ক ওলি ২/৪৮ (২৩ ওভার)
১০৭/৪ (৩৯ ওভার)
দিলীপসিংজী ৫৬*
লিন্ডসে ওয়ার ১/১ (২ ওভার)
খেলা ড্র
ব্যাসিন রিজার্ভ, ওয়েলিংটন
আম্পায়ার: কেনেথ কেভ (নিউজিল্যান্ড) ও থমাস কবক্রফ্ট (নিউজিল্যান্ড)
  • টসে জয়ী হয়ে নিউজিল্যান্ড ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়
  • নিউজিল্যান্ডের পক্ষে এডি ম্যাকলিওড, জ্যাকি মিলস, ও লিন্ডসে ওয়ারের টেস্ট অভিষেক ঘটে।
  • স্টুই ডেম্পস্টারের প্রথম ইনিংসে সংগৃহীত ১৩৬ রান নিউজিল্যান্ডীয়দের মধ্যে প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরির মর্যাদা পায়।
  • স্টুই ডেম্পস্টার ও জ্যাকি মিলসের উদ্বোধনী জুটিতে সংগৃহীত ২৭৬ রান নিউজিল্যান্ডের পক্ষে সর্বোচ্চ ও টেস্ট ক্রিকেটে তৃতীয় সর্বোচ্চ রান।
  • ফ্রাঙ্ক ওলি টেস্টে ৩,০০০ রানের মাইলফলক স্পর্শ করেন। এরফলে, তিনি দ্বিতীয় ইংরেজ ও টেস্ট ক্রিকেটে চতুর্থ খেলোয়াড় হিসেবে এ কীর্তিগাঁথা স্থাপন করেন।

তৃতীয় টেস্টসম্পাদনা

১৪-১৭ ফেব্রুয়ারি, ১৯৩০
স্কোরকার্ড
৩৩০/৪ডি. (৮৮ ওভার)
কেএস দিলীপসিংজী ১১৭
ডব্লিউই মেরিট ২/১১৯ (২৮ ওভার)
৯৬/১ (৩৪ ওভার)
সিএস ডেম্পস্টার ৬২*
এফ বারাট ১/২৬ (১২ ওভার)
  • টসে জয়ী হয়ে নিউজিল্যান্ড ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়
  • ১৬ ফেব্রুয়ারি বিশ্রামবার ছিল
  • প্রথম অথবা দ্বিতীয় দিনে কোন খেলা অনুষ্ঠিত হয়নি। ফলে, চতুর্থ টেস্টের আয়োজন করা হয়।
  • নিউজিল্যান্ডের পক্ষে সিএফডব্লিউ অলকটএইচএম ম্যাকজিরের টেস্ট অভিষেক ঘটে।

চতুর্থ টেস্টসম্পাদনা

২১-২৪ ফেব্রুয়ারি, ১৯৩০
স্কোরকার্ড
৫৪০ (১৭১.৪ ওভার)
জিবি লেগ ১৯৫
আরসি ব্লান্ট ২/৬১ (২১ ওভার)
৩৮৭ (১৬৬.১ ওভার)
টিসি লরি ৮০
এমজেসি অলম ৪/৪১ (২৬.১ ওভার)
২২/৩ (১২.৩ ওভার)
এমএস নিকোলস*
এএম ম্যাথসন ২/৭ (৫ ওভার)
  • টসে জয়ী হয়ে ইংল্যান্ড ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়
  • ২৩ ফেব্রুয়ারি বিশ্রামবার ছিল
  • নিউজিল্যান্ডের পক্ষে এএম ম্যাথসনের টেস্ট অভিষেক ঘটে

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. CricketArchive – tour itinerary
  2. "New Zealand v England – statistical quirks"। International Cricket Council। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৮ 
  3. "England to New Zealand 1929-30"। Test Cricket Tours। ২৭ আগস্ট ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ আগস্ট ২০১৭ 
  4. "M.C.C. tour: New Zealand plans"Evening Post: 8। ১৮ জুলাই ১৯২৯। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মার্চ ২০১৮ 
  5. "Cricket: M.C.C. team to visit New Zealand"Press: 9। ৩১ আগস্ট ১৯২৯। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মার্চ ২০১৮ 
  6. Four wickets in five balls
  7. Wicket with first ball

বহিঃসংযোগসম্পাদনা