ম্যাজিস্ট্রেট

ম্যাজিস্ট্রেট হচ্ছেন আইন প্রয়োগ ও বিচারিক দায়িত্বপালনকারী একজন সরকারী কর্মকর্তা। প্রাচীন রোমে ম্যাজিস্ট্রেট ছিলেন একজন অন্যতম উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা যার নির্বাহী ও বিচারিক উভয় ধরনের ক্ষমতাই ছিল। ২০০৭ সালে বিচার বিভাগ পৃথকীকরনের পর বাংলাদেশে বর্তমানে ম্যাজিস্ট্রেটগণ সাধারণত ফৌজদারী অভিযোগ আমলে গ্রহণ ও বিচার করেন।

যুক্তরাজ্যসম্পাদনা

ইংল্যান্ডওয়েলস-এ ম্যাজিস্ট্রেটগণ জাস্টিস অফ পিস নামে পরিচিত যারা গৌণ অপরাধের বিচার করেন। ম্যাজিস্ট্রেটদের দন্ড দেয়ার ক্ষমতা ছয় মাস বা বার মাসের কারাদন্ডের মধ্যে সীমাবদ্ধ।[১] ব্রিটেনে ম্যাজিস্ট্রেট হতে হলে কোন আইনগত শিক্ষাগ্রহণ দরকার নেই। বর্তমানে ব্রিটেনে প্রায় ২১,৫০০ জন ম্যাজিস্ট্রেট আছে।[১]

বাংলাদেশসম্পাদনা

ম্যাজিস্ট্রেটগণ বাংলাদেশে হাকিম নামেও অভিহিত। ২০০৭ সালে বিচার বিভাগ পৃথকিকরণের পর বাংলাদেশে ম্যাজিস্ট্রেটদেরকে দুই ভাগে ভাগ করা হয়ঃ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট[২] ও বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেট।[৩] ২০০৭ সালে সংশোধিত ফৌজদারী কার্যবিবিধি অনুসারে ম্যাজিস্ট্রেট বলতে শুধুমাত্র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটই বোঝানো হয়। বিভিন্ন ধাপের বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেটগণ হচ্ছেনঃ

  1. চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট/মুখ্য মহানগর হাকিম
  2. অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট/অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম
  3. ১ম শ্রেণীর ম্যাজিস্ট্রেট/মহানগর ম্যাজিস্ট্রেট(সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট/মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট)
  4. ২য় শ্রেণীর ম্যাজিস্ট্রেট(জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট)
  5. ৩য় শ্রেণীর ম্যাজিস্ট্রেট

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Magistrates, Courts and Tribunals Judiciary.
  2. Executive Magistrates, ধারা ১০, ফৌজদারী কার্যবিধি, ১৮৯৮।
  3. Judicial Magistrates, ধারা ১১, ফৌজদারী কার্যবিধি, ১৮৯৮।