আয়া সোফিয়া

তুরস্কের ইস্তাম্বুলে বাইজেন্টাইন স্মৃতিস্তম্ভ
(হাজিয়া সোফিয়া থেকে পুনর্নির্দেশিত)

আয়া সোফিয়া (গ্রিক: Ἁγία Σοφία, "পবিত্র জ্ঞান"; লাতিন: Sancta Sophia বা Sancta Sapientia; তুর্কী: Ayasofya) মধ্যযুগের রোম সাম্রাজ্যের সাবেক রাজধানী কনস্টান্টিনোপলের (বর্তমান ইস্তাম্বুল) প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত একটি গির্জা।[২] সুলতান ফাতিহ সুলতান মুহাম্মদ কনস্টান্টিনোপল বিজয়ের পর স্থাপনাটি মসজিদে রূপান্তর করেন।[৩][৪][৫]

আয়া সোফিয়া
Ayasofya (তুর্কি)
Ἁγία Σοφία (গ্রিক)
Sancta Sophia (লাতিন)
Hagia Sophia Mars 2013.jpg
আয়া সোফিয়া, ইস্তানবুল
আয়া সোফিয়া ইস্তাম্বুল ফাতিহ-এ অবস্থিত
আয়া সোফিয়া
ইস্তাম্বুলের ফাতিহ জেলায় অবস্থান
অবস্থানইস্তানবুল, তুরস্ক
নকশাকারকমালিটাসের আইসিডোর
ট্রেলসের অ্যান্থিমিয়াস
ধরন
উপাদানঅ্যাশলার, ইট
দৈর্ঘ্য৮২ মি (২৬৯ ফু)
প্রস্থ৭৩ মি (২৪০ ফু)
উচ্চতা৫৫ মি (১৮০ ফু)
শুরুর তারিখ৩৬০
সম্পূর্ণতা তারিখ৫৩৭; ১৪৮৩ বছর আগে (537)
নিবেদিতঈশ্বরের প্রজ্ঞা, লোগোস তথ্যসূত্র, পবিত্র ট্রিনিটির দ্বিতীয় ব্যক্তি[১]
ওয়েবসাইটhttp://fatih.gov.tr/ayasofya-camii
এর অংশইস্তাম্বুলের ঐতিহাসিক অঞ্চল
মানদণ্ডসাংস্কৃতিক: i, ii, iii, iv
সূত্র৩৫৬
তালিকাভুক্তকরণ১৯৮৫ (৯ম সভা)

জাস্টিনিয়ান প্রথমের আদেশে ৫৩২ এবং ৫৩৭ এর মধ্যে কনস্টান্টিনোপলের খ্রিস্টান ক্যাথেড্রাল হিসাবে এটি নির্মিত হয়, ব্যাসিলিকাটি মাইলাতাসের গ্রীক জিওমিটার ইসিডোর এবং ট্রেলসের অ্যান্থিমিয়াস ডিজাইন করেছিলেন।[৬] বর্তমান জাস্টিনিয়ান ইমারতটি একই স্থানে অধিষ্ঠিত তৃতীয় গির্জা, এর আগে এটি নিকা দাঙ্গায় ধ্বংস হয়েছিল। কনস্টান্টিনোপলের একিউম্যানিকাল মহাবিশপ এপিসোপাল সী অনুসারে এটি প্রায় এক হাজার বছর ধরে বিশ্বের বৃহত্তম ক্যাথেড্রাল হিসাবে রয়ে গিয়েছিল, ১৫১৫ সালে সেভিল ক্যাথেড্রাল সমাপ্ত না হওয়া পর্যন্ত। ১২০৪ সালে, এটি চতুর্থ ক্রুসেডারদের দ্বারা লাতিন সাম্রাজ্যের অধীনে রোমান ক্যাথলিক ক্যাথেড্রালে রূপান্তরিত করা হয়েছিল। ১২৬১ সালে বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্যের ফিরে আসার পরে পূর্ব অর্থোডক্স চার্চে পুনরুদ্ধার করা হয়েছিল। ১৪৫৩ সালে কনস্টান্টিনোপল এর পতনের পর অটোমান সাম্রাজ্যের তৎকালীন মুসলিম শাসক ফাতিহ সুলতান মুহাম্মদ মসজিদে রূপান্তরিত করেন।[৭] [৮] ২০২০ সালের জুলাইয়ের গোড়ার দিকে, কাউন্সিল অফ স্টেট ১৯৩৪ সালের মন্ত্রিসভার জাদুঘর স্থাপনের সিদ্ধান্ত বাতিল করে তুরস্কের রাষ্ট্রপতির একটি আদেশের পরে আয়া সোফিয়াকে পূণরায় একটি মসজিদ হিসাবে পুনর্নির্মাণের আদেশ দেয়,[৯][১০] এই পদক্ষেপের নিন্দা জানায় ওয়ার্ল্ড কাউন্সিল অফ গীর্জা এবং অনেক আন্তর্জাতিক নেতৃবৃন্দ।[১১][১২][১৩]

চার্চটি প্রজ্ঞার ঈশ্বর লোগোসকে উৎসর্গ করা হয়েছিল, যিনি ত্রিতত্বের দ্বিতীয় ব্যক্তি[১৪], খ্রিস্টের লোগোস অবতারের জন্মের স্মরণে ২৫ ডিসেম্বর (ক্রিসমাস) এর পৃষ্ঠপোষক ভোজ অনুষ্ঠিত হয়েছিল।[১৪] গ্রীক শব্দ জ্ঞানের জন্য লাতিন ভাষায় সোফিয়া হলো ফোনেটিক বানান এবং যদিও এটি কখনও কখনও সান্টা সোফিয়া, 'সেন্ট সোফিয়া' হিসাবে অভিহিত হয় তবে এটি শহীদ সোফিয়ার সাথে সম্পর্কযুক্ত নয়। [১৫][১৬] গ্রীক ভাষায় এর পুরো নাম: Ναός της Αγίας του Θεού Σοφίας, উচ্চারণ: নাৎস তিস হাগাস টু থিও সোফিয়াস, লিট. (Naós tis Hagías tou Theou Sophías, lit) যার আক্ষরিক অর্থ 'ঈশ্বরের পবিত্র জ্ঞানের মন্দির'। চার্চটি বেশ কয়েকটি ধ্বংসাবশেষ রেখেছিল এবং একটি ১৫ মিটার (৪৯ ফুট) রৌপ্য আইকনোস্টেসিসের বৈশিষ্ট্যযুক্ত ছিল। প্রায় এক হাজার বছর ধরে পূর্ব অর্থোডক্স চার্চের কেন্দ্রস্থলে, ভবনটি সরকারীভাবে মাইকেল আই সেরুলারিয়াসের বহনকারীকে বহিষ্কারের সাক্ষ্য দিয়েছিল, ১০৫৪ সালে পোপ লিও চতুর্থর রাষ্ট্রদূত হ্যাম্বার্ট অফ সিলভা ক্যান্ডিডা দ্বারা, এটি এমন একটি কাজ যা সাধারণত পূর্ব-পশ্চিম ধর্মবাদের সূচনা হিসাবে বিবেচিত হয়। চতুর্থ ক্রুসেডের নেতৃত্বাধীন ভেনিসের ডেজ এবং ১২০৪ স্যাক কনস্ট্যান্টিনোপল, এনরিকো দানডোলোকে গির্জার মধ্যে সমাহিত করা হয়েছিল।

১৪৫৩ সালে, ফাতিহ সুলতান মুহাম্মদ ক্যাথেড্রালকে মসজিদে রূপান্তরের আদেশ দেন। মহাবিশপদেরকে চার্চ অফ দ্য হোলিত অ্যাপোস্টলে স্থানান্তরিত করেন, যা এই শহরের ক্যাথেড্রাল হয়ে উঠেছিল। যদিও শহরের কিছু অংশ ভেঙে পড়েছিল, তবুও এই উদ্দেশ্যটির জন্য আলাদা তহবিল রেখে ক্যাথেড্রাল রক্ষণাবেক্ষণ করা হয়।‌ নতুন ওসমানীয় শাসকদের উপর এর শক্ত ধারণা তৈরি করেছিল যারা এর রূপান্তর ঘটিয়েছিল বা ঘটাতে বাধ্য কিংবা সহযোগিতা করেছিল।[১৭][১৮] চার্চবেল বা ঘণ্টা, বেদী, আইকনোস্টেসিস, অম্বো এবং ব্যাপটিস্ট্রি সরানো হয়েছিল এবং ধ্বংসাবশেষগুলোও ধ্বংস করা হয়েছিল। যীশু, তাঁর মা মেরি, খ্রিস্টান সাধু এবং স্বর্গদূতদের চিত্রিত মোজাইকগুলি শেষ পর্যন্ত ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল বা এর উপরে প্লাস্টার করা হয়েছিল[১৯]। এর পরিবর্তে ইসলামী স্থাপত্য বৈশিষ্ট্য যুক্ত করা হয়েছিল, যেমন একটি মিনবার (মিম্বার), চারটি মিনার এবং একটি মিহরাব - একটি কুলুঙ্গি যা প্রার্থনার দিক নির্দেশ করে(কিবলা)। এটির প্রাথমিক রূপান্তর থেকে ১৬১৬ সালে নিকটবর্তী সুলতান আহমেদ মসজিদ নির্মাণ সমাপ্তির আগ পর্যন্ত ও নীল মসজিদের আগে, এটি ইস্তাম্বুলের প্রধান জামে মসজিদ ছিল। আয়া সোফিয়ার বাইজেন্টাইন আর্কিটেকচার নীল মসজিদ, ইহজাদে মসজিদ, সলেমনিয়ে মসজিদ, রিস্টেম পাশা মসজিদ এবং কালী আলী পাশা কমপ্লেক্স সহ আরও অনেক উসমানীয় মসজিদের জন্য অনুপ্রেরণা হিসাবে কাজ করেছিল।

কমপ্লেক্সটি চার বছর ধরে জনসাধারণের জন্য বন্ধ থাকাকালীন ১৯৩১ সাল পর্যন্ত মসজিদ হিসাবে থেকে যায়। এটি ১৯৩৫ সালে তুরস্কের ধর্মনিরপেক্ষ প্রজাতন্ত্রের যাদুঘর হিসাবে পুনরায় খোলা হয়েছিল। আয়া সোফিয়া ছিল, ২০১৪ সালে, তুরস্কের দ্বিতীয় সর্বাধিক পরিদর্শন করা যাদুঘর, বার্ষিক প্রায় ৩.৩ মিলিয়ন দর্শনার্থী এতে আকৃষ্ট হতো।[২০] সংস্কৃতি ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের প্রকাশিত তথ্য অনুসারে, আয়া সোফিয়া ২০১৫[২১] এবং ২০১৯ সালে[২২][২৩] তুরস্কের সবচেয়ে বেশি পর্যটন-আকর্ষণীয় স্থান ছিল।

ইতিহাসসম্পাদনা

এটি স্থাপন করা হয়েছিল মূলত অর্থোডক্স গির্জা হিসেবে। এই স্থাপনাটি অর্থোডক্স গির্জা হিসেবে স্থাপনের পর থেকে ১২০৪ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত ব্যবহার করা হয়। এর এটিকে ক্যাথলিক গির্জায় রুপান্তর করা হয় ১২০৪ খ্রিস্টাব্দে, যা ১২৬১ সাল পর্যন্ত ব্যবহৃত হয়। তারপর এটি পুনরায় অর্থোডক্স গির্জায় রূপান্তর করা হয়, যার মেয়াদকাল ১২৬১-১৪৫৩ সাল পর্যন্ত। কিন্তু এর পর মানে পঞ্চদশ শতাব্দীর মাঝামাঝি ফতেহ সুলতান মুহাম্মদের ঐতিহাসিক কন্স্টান্টিনোপল জয়ের মাধ্যমে তুরস্ক মুসলিম সাম্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত হয়।এরপর এটিকে মসজিদে রূপান্তর করা হয়। যার নতুন নামকরণ হয় "ইম্পিরিয়াল মসজিদ", যা প্রায় ৫০০ বছর স্থায়ী হয়। বর্তমানে তুরস্কের প্রধান মসজিদ সুলতান আহমেদ মসজিদ, যা "ব্লু মসজিদ" নামে পরিচিত। যা স্থাপিত হয় ১৬১৬ সালে। কিন্তু এই মসজিদ স্থাপনের পূর্বে "ইম্পিরিয়াল মসজিদ"-ই ছিল তুরস্কের প্রধান মসজিদ।

এরপর এই স্থাপনাটি ১৯৩৫ সালে আধুনিক তুরস্কের স্থপতি ও স্বাধীন তুরস্কের প্রথম রাষ্ট্রপতি মোস্তফা কামাল আতাতুর্ক যাদুঘরে রূপান্তর করেন।[৮] ২০২০ সালে আদালতের রায়ের পর এটিকে পুনরায় মসজিদে রুপান্তরের কার্যক্রম গ্ৰহণ করা হয়েছে।

মসজিদে রূপান্তরের পর এর দেয়ালে মার্বেল পাথরে অঙ্কিত যীশু খ্রিস্টের অনেক গুলো ছবি সিমেন্ট দিয়ে মুছে দেওয়া হয়। ছবিগুলো প্রায় ৫০০ বছরের জন্য সিমেন্টের নিচে চাপা পড়ে। কিন্তু এই স্থাপনাটিকে যাদুঘরে রূপান্তরের পর ছবিগুলো পুনরুদ্ধার করা হয়।এছাড়া এই স্থাপনায় নতুন নিয়ম প্রবর্তন হয়। প্রধান নিয়মটি হল, "এই স্থাপনার মূল অংশ বা হলরুম ধর্মীয় কাজে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ, সেটি মুসলিম অথবা খ্রিস্টান ধর্ম উভয়ের জন্য প্রযোজ্য। কিন্তু এই স্থাপনার উভয় ধর্মের জন্য আলাদা সংরক্ষিত জায়গা রয়েছে। অর্থাৎ এই কমপ্লেক্ষটিতে একটি মসজিদ ও একটি গির্জা নির্মাণ করা হয়। যা শুধুমাত্র যাদুঘরের কর্মচারী কর্মকর্তাদের জন্য সংরক্ষিত।"

৩১ মার্চ ২০১৮, তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী রিসেপ তায়িপ এরদোয়ান কুরআন তিলাওয়াত করে ফতেহ সুলতান মুহাম্মদ সহ আয়া সোফিয়ার জন্য কাজ করা সকলের রহুের মাগফেরাতে মোনাজাত করেন।[২৪] এবং ১০ জুলাই ২০২০ সালের রোজ শুক্রবার তুরস্কের শীর্ষআদালত এটাকে পুনরায় মসজিদে রূপান্তরের রায় ঘোষণা করেন। আদলতের রায়ের পর মসজিদে আজান দেওয়া হয়েছে যা প্রায় ৮৬ বছর পর।[২৫]

ভ্রমণসম্পাদনা

মসজিদে রূপান্তরিত হওয়ার পর তুরস্কের অন্য সব মসজিদের মতোই আয়া সোফিয়া উন্মুক্ত থাকবে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবার জন্য। মসজিদে রূপান্তর হওয়ার পূর্বে জাদুঘর হিসেবে ব্যবহার করা হতো আয়া সোফিয়া। সেসময় রবিবার-বৃহস্পতিবার সকাল ৯.৩০ থেকে বিকাল ৪.৩০ পর্যন্ত খোলা থাকতো । এর প্রবেশ মূল্য ছিল ২৫ তুর্কি লিরা (প্রায় ৳১,০০০)। এটি তুরস্কের সবচেয়ে বেশি পর্যটক ভ্রমণশীল স্থান।[২৬]

ঐতিহাসিক সংরক্ষিত ছবিসম্পাদনা

জনপ্রিয় সংস্কৃতিতেসম্পাদনা

আয়া সোফিয়া অ্যাসাসিন'স ক্রিড: রেভেলেশনস প্রদর্শিত হয়।[২৭]

আয়া সোফিয়া তুরস্কের নাটক দ্য প্রটেক্টর (নেটফ্লিক্সে) সীজন ১ এবং ২ এর মাধ্যমে অমরদের সমাধিস্থল হিসাবে প্রদর্শিত করা হয়।

এটি ২০০৩ সালের ভিডিও গেম সিমসিটি ৪-এ ল্যান্ডমার্ক হিসাবে বৈশিষ্ট্যযুক্ত ছিল।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Curta, Florin; Holt, Andrew (২০১৬)। Great Events in Religion: An Encyclopedia of Pivotal Events in Religious History [3 volumes] (English ভাষায়)। ABC-CLIO। পৃষ্ঠা 299। আইএসবিএন 978-1-61069-566-4Hagia Sophia was consecrated on December 27, 537, five years after construction had begun. The church was dedicated to the Wisdom of God, referring to the Logos (the second entity of the Holy Trinity) or, alternatively, Christ as the Logos incarnate. 
  2. Hamm, Jean S. (২০১০)। Term paper resource guide to medieval history। Santa Barbara, Calif.: Greenwood Press। আইএসবিএন 978-0-313-35968-2ওসিএলসি 676696317 
  3. Ajansı, İlke Haber (undefinedundefinedundefined)। "Tarihçi Şama: 'Ayasofya'nın ilelebet cami olarak hizmet vermesi Fatih'in vasiyetidir'"İLKHA (তুর্কী ভাষায়)।  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  4. "আয়া সোফিয়া: সুলতান ফাতিহ ও প্রেসিডেন্ট এরদোগান"Jugantor 
  5. "Fatih Sultan Mehmet'in Ayasofya Vasiyeti! | GAZETE VATAN"www.gazetevatan.com 
  6. Kleiner, Fred S.; Christin J. Mamiya (২০০৮)। Gardner's Art Through the Ages: Volume I, Chapters 1–18 (12th সংস্করণ)। Mason, OH: Wadsworth। পৃষ্ঠা 329। আইএসবিএন 978-0-495-46740-3 
  7. Müller-Wiener (1977), p. 112.
  8. Magdalino, Paul, et al. "Istanbul: Buildings, Hagia Sophia" in Grove Art Online. Oxford Art Online. http://www.oxfordartonline.com. accessed 28 February 2010.
  9. Gall, Carlotta (১০ জুলাই ২০২০)। "Erdogan Signs Decree Allowing Hagia Sophia to Be Used as a Mosque Again"The New York Times 
  10. Dal, Aylin; Karadag, Kemal (১০ জুলাই ২০২০)। "Turkey: Court strikes down Hagia Sophia museum decree"Anadolu Agency 
  11. "Church body wants Hagia Sophia decision reversed" (English ভাষায়)। BBC News। ১১ জুলাই ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুলাই ২০২০ 
  12. "Pope 'pained' by Hagia Sophia mosque decision" (English ভাষায়)। BBC। ১২ জুলাই ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুলাই ২০২০ 
  13. "World reacts to Turkey reconverting Hagia Sophia into a mosque" (English ভাষায়)। Al Jazeera। ১০ জুলাই ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুলাই ২০২০ 
  14. Janin (1953), p. 471.
  15. Binns, John (২০০২)। An Introduction to the Christian Orthodox Churches। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 57। আইএসবিএন 978-0-521-66738-8 
  16. McKenzie, Steven L.; Graham, Matt Patrick (১৯৯৮)। The Hebrew Bible Today: An Introduction to Critical Issues। Westminster John Knox Press। পৃষ্ঠা 149। আইএসবিএন 978-0-664-25652-4 
  17. [১]. LiveScience.
  18. "Hagia Sophia ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৫ জানুয়ারি ২০০৯ তারিখে." ArchNet.
  19. Müller-Wiener (1977), p. 91.
  20. "Top 10: Turkey's most visited museums"Hürriyet Daily News। ১০ নভেম্বর ২০১৪। 
  21. "Hagia Sophia still Istanbul's top tourist attraction"। hurriyet। 
  22. "Hagia Sophia: Turkey turns iconic Istanbul museum into mosque"। BBC News। ১০ জুলাই ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুলাই ২০২০President Erdogan stressed that the country had exercised its sovereign right in converting it back to a mosque. He told a press conference the first Muslim prayers would be held inside the building on 24 July. 
  23. "Hagia Sophia still top tourist attraction"। hurriyet। 
  24. Turkish President Erdoğan recites Islamic prayer at the Hagia Sophia
  25. [২]
  26. "এখনও ইস্তাম্বুলের শীর্ষ পর্যটকদের আকর্ষণ আয়া সোফিয়া"। hurriyet। 
  27. "অ্যাসাসিন'স ক্রিড: রেভেলেশনস ঐতিহাসিকভাবে হৃদয়স্পর্শী"দ্য ন্যাশনাল 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

  বহিঃ ছবিসমূহ
  360° panoraITS A BISHic view (ভার্চুয়াল ট্যুর)