মিরানা জামান

বাংলাদেশী অভিনেত্রী

মিরানা জামান (জন্ম: ২৫ ডিসেম্বর ১৯৩৬) একজন বাংলাদেশী অভিনেত্রী। তিনি বেতার, মঞ্চ, টেলিভিশন ও চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন।[১] তিনি ১৯৬২ সালে বাংলাদেশ বেতারের কণ্ঠশিল্পী হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। জাহাঁ বাজে শেহনাই (১৯৬৮) দিয়ে তার চলচ্চিত্রে অভিষেক ঘটে এবং পরবর্তীকালে তিনি ওরা ১১ জন (১৯৭২), ধীরে বহে মেঘনা (১৯৭৩), সুপ্রভাত (১৯৭৬), শঙ্খনাদ (২০০৫), অপেক্ষা (২০১০), গেরিলা (২০১১) চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। অপেক্ষা চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য তিনি শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র অভিনেত্রী বিভাগে মেরিল-প্রথম আলো সমালোচক পুরস্কার অর্জন করেন।

মিরানা জামান
জন্ম (1936-12-25) ২৫ ডিসেম্বর ১৯৩৬ (বয়স ৮৭)
পেশাঅভিনেত্রী
কর্মজীবন১৯৬৮-২০১৩
দাম্পত্য সঙ্গীকাজী মোহাম্মদ আকতারুজ্জামান (বি. ১৯৫০)

প্রারম্ভিক জীবন সম্পাদনা

মিরানা ১৯৩৬ সালের ২৫শে ডিসেম্বর তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের (বর্তমান বাংলাদেশ) টাঙ্গাইল জেলার করোটিয়ার সৈয়দ বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা সৈয়দ বদরুদ্দোজা এবং মাতা মাহমুদা খাতুন।[২]

১৯৫০ সালের ২৭শে আগস্ট কাজী মোহাম্মদ আকতারুজ্জামানের সাথে তিনি বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন।[২]

কর্মজীবন সম্পাদনা

মিরানা ১৯৬২ সালে বাংলাদেশ বেতারের তালিকাভুক্ত শিল্পী হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন।[৩] বেতারে তিনি নায়লা সামাদ রচিত নাটকে প্রথম কণ্ঠ দেন। এই সময়ে তিনি নীলিমা ইব্রাহিম ও নমিতা আনোয়ার রচিত নাটকেও কণ্ঠ দেন। এছাড়া বেতার তিনি গ্রামীণ সচেতনতামূলক অনুষ্ঠানে শায়লা বু চরিত্রে কণ্ঠ দিয়ে জনপ্রিয়তা অর্জন করেন।[২]

১৯৬৮ সালে উর্দু চলচ্চিত্র জাহাঁ বাজে শেহনাই দিয়ে তার চলচ্চিত্রে অভিষেক ঘটে। এরপর ১৯৭০ সালের সন্তান চলচ্চিত্রে মায়ের ভূমিকায় অভিনয় করে প্রশংসিত হন।[৩][৪] এছাড়া তিনি মতি মহল (১৯৭৭), নতুন বউ (১৯৮৩)-সহ বেশ কিছু চলচ্চিত্রে মায়ের ভূমিকায় অভিনয় করেন।[৫] তিনি মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র ওরা ১১ জন (১৯৭২), ধীরে বহে মেঘনা (১৯৭৩) ও গেরিলা (২০১১) চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন।

তিনি আবু সাইয়ীদের অপেক্ষা (২০১০) চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য তিনি শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র অভিনেত্রী বিভাগে মেরিল-প্রথম আলো সমালোচক পুরস্কার অর্জন করেন। তার অভিনীত সর্বশেষ চলচ্চিত্র মহম্মদ হান্‌নানের শিখন্ডী কথা (২০১৩)।[৪]

টেলিভিশনে তিনি সৈয়দ মুস্তফা মনোয়ারের নির্দেশনায় প্রথম অভিনয় করেন।[৩] তার অভিনীত প্রথম ধারাবাহিক নাটক হল ঘরোয়া[২][৪] তিনি ২০১৯ সালে সাধাসিধে মানুষের গল্প নাটকের জন্য ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক নাটক শাখায় জুরি সিলেকশন বিভাগে আরটিভির স্টার অ্যাওয়ার্ড লাভ করেন।[৬]

চলচ্চিত্রের তালিকা সম্পাদনা

পুরস্কার ও সম্মাননা সম্পাদনা

তথ্যসূত্র সম্পাদনা

  1. সামিউল্লাহ, মুজাহিদ (১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২২)। "সময়ের পরিবর্তনকে অস্বীকার করা যায় না -মিরানা জামান"দৈনিক মানবজমিন। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০২৩ 
  2. বুলবন, শেখ আরিফ (২৫ ডিসেম্বর ২০১৭)। "Mirana Zaman turns 82 today"দ্য ডেইলি নিউ নেশন (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০২৩ 
  3. সামিউল্লাহ, মুজাহিদ (১৮ ডিসেম্বর ২০২২)। "যেমন আছেন মিরানা জামান"দৈনিক মানবজমিন। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০২৩ 
  4. "কেউ খোঁজ না নিলেও তাদের আফসোস নেই"দৈনিক ইনকিলাব। ৪ ডিসেম্বর ২০২২। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০২৩ 
  5. "সিনেমায় যারা 'মা' চরিত্রে অনবদ্য অভিনয় করেন | বিনোদন"সময় নিউজ। ১৭ আগস্ট ২০২২। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০২৩ 
  6. "আরটিভি স্টার অ্যাওয়ার্ড ২০১৮ পেলেন যারা"আরটিভি অনলাইন (ইংরেজি ভাষায়)। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০২৩ 
  7. "Mirana Zaman honoured with Bulbul Ahmed Award"দ্য ডেইলি স্টার (ইংরেজি ভাষায়)। ১৩ জুলাই ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০২৩ 

বহিঃসংযোগ সম্পাদনা

টেমপ্লেট:মেরিল-প্রথম আলো সমালোচক পুরস্কার শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র অভিনেত্রী