প্রধান মেনু খুলুন

কুলু-মানালি বিমানবন্দর

কুলু-মানালি বিমানবন্দর (আইএটিএ: কিউউ, আইসিএও: ভিআইবি) ভারতের হিমাচল প্রদেশ রাজ্যের ভুন্টার এলাকাতে অবস্থিত একটি বিমানবন্দর। বিমানবন্দরটি কুলু থেকে ১১ কিলোমিটার এবং মানিলা থেকে ৫২ কিমি দূরে অবস্থিত।

কুলু–মানালি বিমানবন্দর
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
বিমানবন্দরের ধরনপাবলিক
মালিকভারত সরকার
পরিচালকভারতীয় বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ
সেবা দেয়কুলু, মানালি
অবস্থানভূন্টার, হিমাচল প্রদেশ, ভারত
এএমএসএল উচ্চতা১,০৮৯ মিটার / ৩,৫৭৩ ফুট
স্থানাঙ্ক৩১°৫২′৩৬″ উত্তর ৭৭°০৯′১৬″ পূর্ব / ৩১.৮৭৬৬৭° উত্তর ৭৭.১৫৪৪৪° পূর্ব / 31.87667; 77.15444স্থানাঙ্ক: ৩১°৫২′৩৬″ উত্তর ৭৭°০৯′১৬″ পূর্ব / ৩১.৮৭৬৬৭° উত্তর ৭৭.১৫৪৪৪° পূর্ব / 31.87667; 77.15444
মানচিত্র
কেইউইউ হিমাচল প্রদেশ-এ অবস্থিত
কেইউইউ
কেইউইউ
কেইউইউ ভারত-এ অবস্থিত
কেইউইউ
কেইউইউ
বিমানবন্দরের অবস্থান
রানওয়েসমূহ
দিকনির্দেশনা দৈর্ঘ্য পৃষ্ঠতল
মি ফুট
১৬/৩৪ ১,১২৫ ৩,৬৯০ আস্ফাল্ট
পরিসংখ্যান (এপ্রিল ২০১৭- মার্চ ২০১৮)
যাত্রী সংখ্যা৩০,৪৬৬ (বৃদ্ধি 18.6%)
বিমান সংখ্যা1,091 (বৃদ্ধি 21.5%)

ভুন্টার এলাকায় অবস্থিত এই বিমানবন্দরটি বিমানচালকদের জন্য একটি চ্যালেঞ্জিং বিমানবন্দর হিসাবে বিবেচিত হয়, কারণ একটি গভীর উপত্যকায় বিমানবন্দরটির একক রানওয়ে যা সেট যা পিক্সের রানওয়ে চেয়ে কয়েক হাজার ফুট বেশি উচুতে অবস্থিত। এছাড়াও, বায়ু প্রবাদ ও নদীর তীরে বিমানবন্দরের অবস্থিত, এবং ১৯৯৫ সালে, নদীর বন্যার রানওয়ে একটি ক্ষয়ক্ষতির মধ্যে পরে। ২০০৮ সালে ভুট্টারের নতুন যাত্রী টার্মিনাল উদ্বোধন করা হয় এবং বিমানবন্দের এপ্রন একই সময়ে দুটি উড়োজাহাজ দাঁড়করানোর করার জন্য বিস্তৃত করা হয়। [৪] ২০১২ সালের সেপ্টেম্বর মাসে কিংফিশার এয়ারলাইন্স বিমানবন্দরটি থেকে উড়ান পরিষেবা বন্ধ করে দিয়েছিল [৫] আর ২০১৩ সালের মে মাসে এয়ার ইন্ডিয়া রিজিওনাল তার উড়ান পরিষেবা কুলুতে পুনরায় চালু করেছিল। [৬] ডেকান চার্টারের সহযোগিতায় হিমালয় বুলস ২ এপ্রিল, ২০১৪ সাল থেকে দিনে তিনবার কুলু-চণ্ডীগড়-কুলু রুটে উড়ান পরিষেবা চালু করেছে।

২০১৭-২০১৮ সালের যাত্রী পরিবহনের হিসাবে কুলু-মানালি বিমানবন্দর হল হিমাচল প্রদেশ রাজ্যের ২ তম ও ভারতের ৬৫ তম ব্যস্ত বিমানবন্দর। [১] ২০১৭-২০১৮ সালের মধ্যে বিমানবন্দরটি ৩০,৪৬৬ জন যাত্রী পরিবহন করেছে এবং বিমানবন্দরে ১০৯১ বি বিমান ওঠা নামা করেছে। ওই সময়ে বিমানবন্দরে যাত্রী পরিবহন বৃদ্ধি পেয়েছে ১৮.৬ শতাংশ এবং বিমান ওঠা নামা বৃদ্ধি পেয়েছে ২১.৫ শতাংশ। [২]

অবস্থানসম্পাদনা

কুলু-মানালি বিমানবন্দরটি উত্তর ভারতয়ের হিমাচল প্রদেশ রাজ্যের ভূটার এলাকাতে অবস্থিত। এটি সমুদ্র সমতল থেকে ১,০৮৯ মিটার বা ৩,৫৭৩ ফুট উচুতে অবস্থিত। বিমানবন্দরটি অবস্থান করছে ৩১.৫২ ডিগ্রি উত্তর অক্ষাংশ থেকে ৭৭.০৯ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমার মধ্যে। বিমানবন্দরটি হিমাচল প্রদেশ রাজ্যের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত।

কলু-মানালি বিমানবন্দর একটি পার্বত্য উপত্যকায় নদীর তীরবর্তী জমিতে গড়ে উঠেছে।

সম্প্রসারণ ও উন্নয়নসম্পাদনা

রাষ্ট্রায়ত্ত বিমানবন্দরকে শক্তিশালী করার জন্য, হিমাচল প্রদেশ সরকার বিমানবন্দরের সম্প্রসারণ ও উন্নয়ন করার পরিকল্পনা করছে। "ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি (আইআইটি) রুর্কি" বিমানবন্দরের রানওয়েটি জন্য ₹২৪৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ৫৫০ মিটার সম্প্রসারণের একটি বিস্তারিত সম্ভাব্যতা প্রতিবেদন প্রস্তুত করেছে। ভারতের ভারতীয় বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ (এএআই), যেটি এয়ারপোর্ট পরিচালনা করে, সেই সংস্থা রানওয়েকে আরও ৬০ মিটারের একটি সম্প্রসারণের পরিকল্পনা করেছে। [৭]

বিমানসংস্থা এবং গন্তব্যস্থলসম্পাদনা

বিমান সংস্থাগন্তব্যস্থল
অ্যালায়েন্স এয়ার চণ্ডীগড়, দিল্লি
এয়ার ডেকান লুধিয়ানা (শুরু ১৪ জন ২০১৮)

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Traffic News for the month of March 2018: Annexure-III" (PDF)Airports Authority of India। ১ মে ২০১৮। পৃষ্ঠা 3। সংগ্রহের তারিখ ১ মে ২০১৮ 
  2. "Traffic News for the month of March 2018: Annexure-II" (PDF)Airports Authority of India। ১ মে ২০১৮। পৃষ্ঠা 3। ১ মে ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ মে ২০১৮ 
  3. "Traffic News for the month of March 2018: Annexure-IV" (PDF)Airports Authority of India। ১ মে ২০১৮। পৃষ্ঠা 3। ১ মে ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ মে ২০১৮ 
  4. "Flight to safety"The Indian Express। ২০ জুন ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ১৮ এপ্রিল ২০১২ 
  5. "Kingfisher shuts down operation in Himachal"Hindustan Times। ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১২। ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ অক্টোবর ২০১২ 
  6. "Air India to start flights to Dharamsala, Kullu today"The Indian Express। ১৫ মে ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুন ২০১৩ 
  7. "Himachal keen to expand airports"। Zeenews.india.com। ৬ এপ্রিল ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১৮ এপ্রিল ২০১২ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা